নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

টারজান০০০০৭

টারজান০০০০৭ › বিস্তারিত পোস্টঃ

!!! রবীন্দ্র সংগীত রচনায় নজরুলের বিস্মৃত ভূমিকা !!!! :) :D ;) :P

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:২৬



নজরুলের "বিদ্রোহী" কবিতা প্রকাশ পাইলে চারিদিকে সাড়া পড়িয়া গেল ! ঠাকুর মহাশয় খুব খুশি হইয়া স্বাগত জানাইলেন
"আয় চলে আয় রে ধূমকেতু
আঁধারে বাঁধ অগ্নি সেতু !! "

নজরুলও মহা খুশি! নিয়ত করিলেন , গুরুদেবকে একদিন সারপ্রাইজ গি-ফ-ট দিবেন ! জেল হইতে বাহির হইয়া ঠিকই যাইয়া হাজির হইলেন গুরুদেবের আশ্রমে ! সেথায় ভিক্টরিয়া ওকাম্পোও আসিয়াছিলেন ! তিনি ঠাকুর মহাশয়ের মহা ভক্ত ! তাহার সান্নিধ্যে কিছুকাল কাটাইবার জন্য আসিয়াছেন !
ঠাকুর সকাশে গিয়া ভক্তিতে গদগদ হইয়া নজরুল গুরুদেবকে সম্ভাষণ জানাইলেন ! গুরুদেব স্বভাবসুলভ মুচকি হাসিয়া জিজ্ঞাসা করিলেন---
-----তারপর, কি খবর দুখু মিয়া ?
----ভালো গুরুদেব ! জেলে থাকিয়াই এক সেপাইরে ছড়া লিখিয়া দিয়া আপনার প্রশংসাপত্র হাতে পাইয়াছি ! তাই জেল হইতে বাহির হইয়া আর দেরি করি নাই ! আপনার সাথে দেখা না করিয়া শান্তি পাইতেছিলাম না !
---- সেকি ! বাড়ির খবর নাওনি ?
---- তাহা নিয়াছি ! তাহারা চির দুঃখী জন ! আমার অনুপস্থিতিতে তেমন কিছুই আসে যায় না ! আমি কিন্তু একখানা আবদার লইয়া আপনার কাছে আসিয়াছি !
-----ঠাকুর মহাশয়ের ভ্রূ ঈষৎ কুঞ্চিত হইলো ! আচ্ছা , তোমার আবার কি আবদার ? দেখো বাপু , গতমাসে আমার টাকা-পয়সা লইয়া খাজাঞ্চি ভাগিয়া গিয়াছে ! তাছাড়া , খ্যাতির বিড়ম্বনা তো আছেই ! এমনকি নোবেলের টাকাও শেষের পথে !
----- নজরুল বুঝিলেন, গুরুদেব কৌশলে টাকা দিতে পারিবেন না ইহাই বোঝাইতেছেনে ! টাকা নিতে সে আসেও নাই ! বেচারাকে দোষ দেওয়া যায় না ! একে জমিদার , তার উপরে সাহিত্যমনা ! খ্যাতিমান মানুষ ! নিশ্চয়ই অভাবীরা তাহাকে বিরক্ত করে ! তাই নজরুল পরিস্থিতি বুঝিয়া কিছু মনে করিলেন না !
স্মিত হাসিয়া বলিলেন, গুরুদেব, আমি আপনাকে একবেলা রাঁধিয়া খাওয়াইতে চাই !
----ঠাকুর মহাশয় মনে মনে আত্বকীয়া উঠিলেও বিশেষ স্নেহবশতঃ নজরুলকে মানা করিলেন না ! জিজ্ঞাসা করিলেন, কি রাঁধিতে চাও বৎসে ?
----গুরুদেব, আপনি তো জানেন , আমি রুটির দোকানে কাজ করিতাম! ওখানে নানরুটি আর তড়কা ডাল বানানো শিখিয়াছি ! উহাই রাঁধিতে চাই !
---- আচ্ছা ! তবে ঝাল কম করিয়া দিও। আশ্রমের শিক্ষক ও মেহমানদেরও দাওয়াত দিবো কিন্তু ! বেশি করিয়া বানাইও !
---- জি , গুরুদেব। এবার বাজার সরকারকে ডাক দিন ! কি কি আনিতে হইবে বলিয়া দেই !

রাতে ভুড়িভোজন না হইলেও নেহাত মন্দ হয় নাই ! ঝাল কমই ছিল। কিন্তু অনেককেই দেখা গেল বাজি ধরিয়া ঝাল খাইতেছে ! ভিক্টরিয়ার সাথে বাজি ধরিয়া গুরুজীও ব্যাফক ঝাল খাইয়া ফেলিলেন ! ভিক্টরিয়াও কম যান না ! অনেক রাত অবধি গল্প করিয়া নজরুলকে আশীর্বাদ দিয়া তৃপ্তি সহকারেই গুরুজী ঘুমাইতে গেলেন ! কিন্তু ভোরের দিকে আর তিষ্টোতে পারিলেন না ! নান রুটি আর তড়কা পেটের ভিতরে গিয়া তর্ক লাগাইয়া দিয়াছে ! কিন্তু আলস্যে উঠিতে মন চায় না ! বিছানায় বসিয়া গুরুজী আড়মোড়া ভাঙ্গিলেন ! অকস্মাৎ একটা গানের কলি মাথায় আসিল ! কাগজ-কলম বিছানার শিয়োরেই থাকে ! তাই বেগ চাপিয়া লিখিয়া ফেলিলেন ---

তুমি ডাক দিয়েছ কোন্ সকালে কেউ তা জানে না,
আমার মন যে কাঁদে আপন-মনে কেউ তা মানে না।।
ফিরি আমি উদাস প্রাণে, তাকাই সবার মুখের পানে,
তোমার মতো এমন টানে কেউ তো টানে না।।
বেজে ওঠে পঞ্চমে স্বর, কেঁপে ওঠে বন্ধ এ ঘর,
বাহির হতে দুয়ারে কর কেউ তো হানে না।

পঞ্চম স্বরে বন্ধ ঘর ঘন ঘন কাঁপিয়া উঠিতে থাকিলে তিনি আর দেরি করিতে চাহিলেন না ! কিন্তু এতো সুন্দর গান রচনার পরে টাট্টিখানায় যাইতে কাহার মনে চায় !

হায় , পেটটা যদি একটু নীরব থাকিত !! অকস্মাৎ তাহার হৃদয়পটে ভাসিয়া উঠিল ---

তুমি রবে নীরবে
হৃদয়ে মম
তুমি রবে নীরবে
নিবিড়, নিভৃত, পূর্ণিমা নিশীথিনী-সম
তুমি রবে নীরবে
হৃদয়ে মম
তুমি রবে নীরবে
মম জীবন যৌবন
মম অখিল ভুবন
তুমি ভরিবে গৌরবে
নিশীথিনী-সম
তুমি রবে নীরবে
হৃদয়ে মম
তুমি রবে নীরবে
জাগিবে একাকী তব করুণ আঁখি
তব অঞ্চল ছায়া মোরে রহিবে ঢাকি
জাগিবে একাকী তব করুণ আঁখি
তব অঞ্চল ছায়া মোরে রহিবে ঢাকি
মম দুঃখবেদন
মম সফল স্বপন
মম দুঃখবেদন… !!!

গানের খাতায় তো আর পেটের কথা লেখা যায় না ! তাই হৃদয়ের কথা লিখিতে হইলো ! মনে বড় তৃপ্তি পাইলেন। কিন্তু পেটের অতৃপ্তি তো যায় না ! অকস্মাৎ জোর বাতাসে বাতি নিভিয়া আধার হইয়া গেল ! মরার উফরে খাঁড়ার ঘা ! অগত্যা নিজেই বিছানা হইতে নামিলেন ! কিন্তু অন্ধকারে জুতা খুঁজিয়া পাইতেছেন না ! চাকর নগেন রে ডাকিয়াও পাইলেন না ! অনেক খুঁজিয়া অবশেষে খড়ম খুঁজিয়া পাইলেন ! কিন্তু হাতড়াইয়া দুয়ার খুঁজিয়া পাইলেন না ! ওদিকে পেটের ব্যাথা আর সহ্য হইতেছে না। খুঁজিয়া খুঁজিয়া অবশেষে যে দুয়ারখানা পাইলেন তাহা ভিক্টরিয়ার ঘরের দরজা, বন্ধ। জানের চাইতে মান বড় ভাবিয়া দরজায় আর নক করিলেন না ! কিয়ৎক্ষণ পরেই আর মানের কথা মনে রহিল না ! দরজায় বারংবার নক করিয়াও সাড়া পাইলেন না ! অবস্থা বেগতিক ! আর তখনই মনের পর্দায় উঁকি মারিল -

ভেঙে মোর ঘরের চাবি নিয়ে যাবি কে আমারে

ও বন্ধু আমার!

না পেয়ে তোমার দেখা, একা একা দিন যে আমার কাটে না রে ॥

বুঝি গো রাত পোহালো,

বুঝি ওই রবির আলো

আভাসে দেখা দিল গগন-পারে--

সমুখে ওই হেরি পথ, তোমার কি রথ পৌঁছবে না মোর-দুয়ারে ॥

গান রচনার তৃপ্তিতে বেগ কিয়ৎক্ষনের জন্য থামিল ! গুরুজী স্বস্তির শ্বাস ফেলিয়া দরজা খুঁজিতে লাগিলেন। অবশেষে পাইয়া ভাবিলেন, "পাইলাম , আমি ইহারে পাইলাম !"
যাহা হউক , দরজা খুলিয়া ত্বরা করি তরী ভরাডুবি হইতে বাঁচিবার আশায় টাট্রিখানার দরজায় দাড়াইতেই ক্ষীণ আলো দেখিতে পাইলেন। সর্বনাশ ! কি হইবে এখন ! টাট্টিখানা তো খালি নাই ! হঠাৎ টাট্রিখানা হইতে আবৃত্তি হইতে লাগিল ---

মহা- বিদ্রোহী রণ-ক্লান্ত
আমি সেই দিন হব শান্ত,
যবে উৎপীড়িতের ক্রন্দন-রোল, আকাশে বাতাসে ধ্বনিবে না,
অত্যাচারীর খড়গ কৃপাণ ভীম রণ-ভূমে রণিবে না -
বিদ্রোহী রণ-ক্লান্ত
আমি আমি সেই দিন হব শান্ত!
------
আমি দূর্বার,
আমি ভেঙে করি সব চুরমার!
আমি অনিয়ম উচ্ছৃঙ্খল,
আমি দ’লে যাই যত বন্ধন, যত নিয়ম কানুন শৃঙ্খল!
আমি মানি না কো কোন আইন,
আমি ভরা-তরী করি ভরা-ডুবি, আমি টর্পেডো, আমি ভীম ভাসমান মাইন!

গুরুদেবের অকস্মাৎ মনে পড়িল , টাট্রিখানার দরজার ছিটকিনি গতকাল ভাঙিয়া গিয়াছে। একারণেই নজরুল আবৃত্তি করিতেছে যেন কেহ না ঢুকিয়া পরে ! কিন্তু এখন কি করা যায় ? একবার ভাবিলেন আমবাগানে যাইব নাকি ! পরক্ষনেই নাকচ করিয়া দিলেন ! চাকর-বাকর, ছাত্র কাহারও সামনে পড়িলে মান যাইবে ! ইশ ! নজরুল দরজা খোলে না কেন !! আর তখনই চকিতে গান আসিয়া পড়িল মনে -----

খোলো খোলো দ্বার, রাখিয়ো না আর
বাহিরে আমায় দাঁড়ায়ে।
দাও সাড়া দাও, এই দিকে চাও,
এসো দুই বাহু বাড়ায়ে॥
কাজ হয়ে গেছে সারা উঠেছে সন্ধ্যাতারা।
আলোকের খেয়া হয়ে গেল দে'য়া
অস্তসাগর পারায়ে॥

নজরুলকে সংকেত দিতে গুরুজী তৎক্ষণাৎ সুর বাঁধিয়া গান ধরিলেন ! নজরুল ভিতরে মিজাইল লঞ্চ করিবার আগে রণসঙ্গীত বাজাইতেছিলেন ! কিন্তু গুরুজী দরজার বাহিরে দাঁড়াইয়া বিধায়, লজ্জায়-সংকোচে মিজাইল আর লঞ্চ করিল না ! লঞ্চ প্যাডে ফিরিয়া গেল ! নজরুল আর দেরি করিলেন না ! বাহির হইয়া অপরাধী মুখে গুরুজীর পানে তাকাইলেন ! তাহার রাঁধা রুটি আর তড়কা খাইয়া এই অবস্থা ! ছি ছি , কি লজ্জা ! গুরুজীর অবশ্য নজরুল পানে তাকাইবার সময় ছিল না। ভরাডুবি হইতে বাঁচিতে ত্বরা করিয়া টাট্টিখানায় প্রবেশ করিলেন ! এই সুযোগে নজরুল সরিয়া পড়িলেন !

এদিকে হইয়াছে আরেক কাহিনী ! ভিক্টরিয়ারও রুটি-তড়কা খাইয়া পেট নামি নামি করিতেছে ! একেতো বিদেশ বিভুঁই , তারউফরে অন্ধকার ! চাকরানী রাখিকেও খুঁজিয়া পাওয়া যাইতেছে না ! কি যে করি, ভিক্টরিয়া ভাবেন ! দিশা না পাইয়া খুঁজিয়া খুঁজিয়া নিজেই রওয়ানা হইলেন ! টাট্টিখানার সামনে আসিয়া দেখিলেন আলো জ্বলিতেছে। পেটের ব্যাথায় লজ্জা-শরমের মাথা খাইয়া শেষে হাক দিলেন --- Anybody there ? Please make it hurry!!!

ভিক্টরিয়ার হাক শুনিয়া গুরুজী আতঙ্কে হিম হইয়া গেলেন ! এখন যদি ভিক্টরিয়া আসিয়া দরজা খুলিতে চেষ্টা করে ? দরজায় ছিটকিনিও নাই ! কি করা যায় !! হঠাৎ মনে গান আসিল ----

আমি চিনি গো চিনি তোমারে ওগো বিদেশিনী।

তুমি থাক সিন্ধু পারে ওগো বিদেশিনী॥

তোমায় দেখেছি শারদ প্রাতে, তোমায় দেখেছি মাধবী রাতে,

তোমায় দেখেছি হৃদি-মাঝারে ওগো বিদেশিনী।

আমি আকাশে পাতিয়া কান শুনেছি শুনেছি তোমারি গান,

আমি তোমারে সঁপেছি প্রাণ ওগো বিদেশিনী।

এই বিপদজনক মুহূর্তে গান রচনা করিয়া কবি পুলকিত হইলেন ! সুর বাঁধিয়া গান ধরিলেন ! ভিক্টরিয়া বুঝিতে পারিলেন গুরুজী এইখানে ! কি আর করা ! দাঁত -মুখ খিঁচিয়া অপেক্ষা করিলেন, গুরুজী কখন বাহির হন ! মনে হইল হাজার বছর পরে গুরুজী বাহির হইলেন ! ভিক্টরিয়া লজ্জায় থামের আড়ালে দাঁড়াইলেন। গুরুজী সরিয়া গেলে পরে তিনি টাট্টিখানায় প্রবেশ করিলেন ! অতঃপর গুরুজী চলিয়া গিয়াছেন ভাবিয়া দ্বিধাহীন চিত্তে বজ্রপাত শুরু করিলেন !

লজ্জা হইতে বাঁচিতে গুরুজীও একটু দূরে সরিয়া গিয়াছিলেন ! কিন্তু বিপদ হইলো খড়ম খুঁজিয়া পাইতেছিলেন না ! তাই আবার ফিরিয়া আসিয়াছিলেন। হঠাৎ বজ্রপাতের আওয়াজ শুনিয়া চমকিয়া উঠিলেন। তৎক্ষণাৎ গান মনে আসিল -----

তোমার হল শুরু, আমার হল সারা--

তোমায় আমায় মিলে এমনি বহে ধারা ॥

তোমার জ্বলে বাতি তোমার ঘরে সাথি--

আমার তরে রাতি, আমার তরে তারা ॥

তোমার আছে ডাঙা, আমার আছে জল--

তোমার বসে থাকা, আমার চলাচল।

তোমার হাতে রয়, আমার হাতে ক্ষয়--

তোমার মনে ভয়, আমার ভয় হারা ॥

অতঃপর গুনগুন করিয়া সুর ভাজিতে ভাজিতে ঘরের দিকে রওয়ানা হইলেন !!

রাতে সকলেই শান্তিনিকেতনের ঝোপঝাড়ে কাজ সারিয়া ক্লান্ত , ক্ষিপ্ত ! নজরুলকে কাছে পাইলে তক্তা বানানোর জন্য সকলের হাত নিশপিশ করিতেছে ! কিন্তু সকালে নজরুলকে খুঁজিয়া পাওয়া গেল না ! বেচারা লজ্জায় গৃহত্যাগ করিয়াছে !

একা গুরুদেবের মনেই শুধু সুখের ফোয়ারা ! নাহঃ ! রুটি-তড়কা খারাপ নহে। একসাথে এতগুলো গান রচনা হইয়া গেল। দেখি নগেনকে বলিতে হইবে , এখন হইতে সপ্তাহে অন্ততঃ একবার রুটি-তড়কা চলুক !

তুমি ডাক দিয়েছ কোন্ সকালে কেউ তা জানে না,
আমার মন যে কাঁদে আপন-মনে কেউ তা মানে না।।

গুরুদেব আপন মনে গুনগুন করিতে লাগিলেন !

মন্তব্য ২৪ টি রেটিং +৭/-০

মন্তব্য (২৪) মন্তব্য লিখুন

১| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৩৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:

আসুন কিছু খেয়ে নেই।

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৩৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ ! সত্যিই দরকার ! সারাদিন চেষ্টার পর পোস্ট দিতে পারিলাম। প্রথম হওয়ায় আবারো ধইন্যা !

২| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: ভাই আমাকে ১৪৪ ধারায় ঘরে আটকে দিন তারপরও প্রথম হওয়ার সাজা দিয়েন না। আমি সারা জীবন শেষের কবিতা ছিলাম। দুই কবিকে আমার সালাম দেবেন।

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: দেখা হইলে অবশ্যই দুই কবিকে সালাম জানানোর চেষ্টা করিব। অবশ্য কবে দেখা হইবে বুঝিতেছি না ! আপনি গত পোস্টেও প্রথম ছিলেন !

৩| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫১

আহমেদ জী এস বলেছেন: টারজান০০০০৭ ,




জম্পেশ লিখিয়াছেন ।
মনে হয়, গুরুজীর আস্তানায় আপনিও নানরুটি আর তড়কা ভক্ষন করিয়াছেন দফায় দফায়। ওকাম্পোর পার্শ্বে বসিবার কারনেই হয়তো কম্প দিয়া আপনার শরীরের ঘর্ম বাহির করিবার চেষ্টা করিতেই এমন বেশী ঝালের লেখার সাক্ষাৎ পাওয়া গেল। আর
ইহাতে আমাদের পাঠককুলেরও লম্ফঝম্প করিবার সুযোগ মিলিল। :P

দারুন'স........................

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:১৪

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আপনি কিভাবে জানিলেন ? তাইলে আফনেও ছিলেন নাকি ? :D
ঝোপঝাড়ে আফনারেতো পাই নাই ! অবশ্য অন্ধকারে মিস হইতে পারে। ;)
নজরুলের সাথে আর দেখা হইলো না এইটাই আফসোস ! আফনার সাথে কি দেখা হইয়াছে ?
আমার কম্প দেখিয়া গুরুদেবেরও ভূমিকম্প হইয়াছিল ! :P

৪| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫২

ঢাকার লোক বলেছেন: দারুন! আমি এখনো হাসিতেছি!!

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:১৯

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আমিও ! অবশ্য নজরুলের জন্য খ্রাফ লাগিতেছে ! বেচারা !

৫| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৩৩

রাজীব নুর বলেছেন: আমরা কেবল পোশাকের উপরেই মানুষ।

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৩৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: পোশাকের নিচে তাইলে কি ?

৬| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:৫৪

মা.হাসান বলেছেন: আমার বাসার সামনে ইসবগুল, আ্যালোভেরা এবং আরো অনেক জড়িবুটি মিলাইয়া ওয়াসার পানি সহযোগে বানানো শরবৎ পাওয়া যায়। আফসোস, কবিরা আর ইহজগতে নাই, নতুবা ওনাদের খাওয়াইতে পারিলে আরেক খানা গীতবিতান পাওয়া যাইতো।
লেখা রুটি-তড়কার মতই উপাদেয় হইয়াছে।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: বুঝছি ! ইভা আর মাহফুজুর রহমানের গান আর কোকিল কণ্ঠ বুঝি আপনার ঐখানে শরবত খাইয়াই হইয়াছে !!! হে হে হে !
এখন কার ব্লগ আর ফেবুর কাকের চেয়েও বেশি সংখ্যক কবি আর সাহিত্যিকগন ওয়াসার পানিরই ফসল ! সাহিত্যে ওয়াসার পানির নোবেল প্রাপ্তি এখন সময়ের দাবি !!!

৭| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:১৫

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: দারুন। এমন বিনোদন মিস হলো কেমনে? পড়ে আরাম পাওয়া গেল। :D

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: মিস তো হয় নাই মেবাই ! নাইলে পাইলাম কেমনে !! :D

যাক স্ট্যান্ডার্ড লুঙ্গি পড়েন নাই ! বেশি আরাম হইলে আবার ঘুম আসিয়া যাইবে !! হে হে হে ! :)

৮| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২৪

শায়মা বলেছেন: ভাইয়া কালরাতে অফলাইনে এই পোস্ট পড়ে আমি হাসতে হাসতে মরে গেছি!

আজকে বেঁচে উঠে ফিরে এলাম! হা হা হা হা

এই গানগুলো গাইতে গেলে তো আমার এখন এই সব মনে পড়ে ফিক করে হাসি বেরিয়ে যাবে আর নিশ্চয়ই তখন লোকে বলবে পাগোলটা কোথা থেকে আসছে রে! :P

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ভাইয়া কালরাতে অফলাইনে এই পোস্ট পড়ে আমি হাসতে হাসতে মরে গেছি!

আজকে বেঁচে উঠে ফিরে এলাম! হা হা হা হা


তাইলে লিখতে গিয়ে আমার কি অবস্থা বুঝুন !! তার উফরে আহমেদ জি ভাইয়ু নাকি আমারেও ঝোপঝাড়ে দেখিয়াছেন ! আমি অবশ্য উনারে অন্ধকারে মিস করিয়াছি ! :P

এই গানগুলো গাইতে গেলে তো আমার এখন এই সব মনে পড়ে ফিক করে হাসি বেরিয়ে যাবে আর নিশ্চয়ই তখন লোকে বলবে পাগোলটা কোথা থেকে আসছে রে! :P

একটা প্রোগ্রামে --তুমি রবে হৃদয়ে মম গানটা শুনিতেছিলাম ! তাহাতেই পোস্ট দাঁড়াইয়া গেল ! আমার মনে হয় হাসি থামার পরে আপনিও আরেকখানা পোস্ট লিখিবেন, ভইন !! :D

৯| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫২

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আপনার এই পোস্টটি পড়ে হেসে হেসে পেটে ব্যথা হওয়ার উপক্রম। যদিও আপনি একথা বলবেন যে তার জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।
মাঝে মাঝে গুরুগম্ভীর আলোচনার মাঝে এমন পোস্ট আমাদের পক্ষে বেশ উপভোগ্য। আগামীতে এমন পোস্ট আরো পেতে চাই।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:০৪

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আপনার এই পোস্টটি পড়ে হেসে হেসে পেটে ব্যথা হওয়ার উপক্রম। যদিও আপনি একথা বলবেন যে তার জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।
সব কিছুর জন্য দায়ী তো নজরুল ! কতৃপক্ষ বা আমি নই তাহা নিশ্চিত ! কিন্তু নজরুল কে তো পাওয়া যাইতেছে না ! কি আর করা !

মাঝে মাঝে গুরুগম্ভীর আলোচনার মাঝে এমন পোস্ট আমাদের পক্ষে বেশ উপভোগ্য। আগামীতে এমন পোস্ট আরো পেতে চাই।

ভাইরে , কামলাগিরি কইরা সুময় পাই না ,তারউফরে সামুতে ঢোকা যায় না ! আপনার কাছেও মজার পোস্ট চাই !

১০| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ভোর ৫:৩০

বলেছেন: ব্যাপক বিনোদন,....


ঢেলে দেই।।।। হা হা।।।।

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:০৮

টারজান০০০০৭ বলেছেন: দোহাই ভাইজান ,আরেকটু কষ্ট করেন ! ভিক্টরিয়া বাহির হইলে সেখানে গিয়া ঢালেন !!!

১১| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ১১:১৯

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: :D :D :D

২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:১১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: কি বোর্ড কি মইরা গেছে , ইমো দিয়া কাম সারা !

১২| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:৩০

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: দারুন। আহা কি অমৃত।

২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:১২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: মধুর লাহান ?

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.