নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

টারজান০০০০৭

টারজান০০০০৭ › বিস্তারিত পোস্টঃ

দুই পিচ্ মাল, দুইখানা দাবি : দুইখানা ইয়ের কণ্ঠের ছঙবাদ !!! ধর্ষণের মহামারীর কারণ উদঘাটন এবং কফি আবিষ্কারের কাহিনী !!!

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:৪৬




কি তামসা ?

আসেন , আসেন ! বইস্যা যান !! বইস্যা যান !!

মাগার কেউ কিন্তুক না ঢালিয়া যাইবেন না !
-----------কি ঢালিবেন !!
না , যাহা ভাবিতেছেন................................সেই চা নহে, মন্তব্যওওওওওও !!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!

আইচ্ছা ! আগে কৌতুক পড়েন, পরে ছঙবাদ পড়েন !

কৌতুক : ভায়াগ্রা বহনকারী একটি উড়োজাহাজ একবার দুর্ঘটনা কবলিত হইয়া এক বনে ক্রাশ খাইয়া হজম করিতে পারিল না । অতঃপর সেই ভায়াগ্রা সেবন করিয়া সকল পুরুষ প্রানীর জিং জিং খেলার বাসনা তুঙ্গে উঠিয়া যায়। তাহারা সারাদিন তাহাদের নারী সঙ্গিনীদের সাথে জিং জিং খেলায় মত্ত হইয়া যায় বিধায় জঙ্গলের কাজকর্ম অচল হইয়া পরে !
এক পর্যায়ে সঙ্গিনীরা বিরক্ত হইয়া বনের রাজা সিংহের কাছে বিচার দিয়া দেয় । সিংহ আবার ভারতের সুপ্রিম কোর্টের বিচারকের মতন একতরফা পুরুষের পক্ষাবলম্বন করিতে পারিল না ! (সম্ভবত নারীবাদী সিংহীর ভয়ে !!) সিংহ আবার হেগের বিচারকদের মতন নিধিরাম সর্দারও নহে !

সিংহ মশাই গবেষনা করিয়া দেখিলেন, ভায়াগ্রার প্রভাব কমিতে আরো এক বছর লাগিবে। তাই তিনি সকল প্রানীকে তাহাদের জিং জিং স্টিক কাটিয়া জমা দিতে বলিলেন ! বিনিময়ে একটা করিয়া টোকেন দিলেন। কথা দিলেন এক বছর পর টোকেন মিলাইয়া সবার ইয়ে সবাইকে ফেরত দিবেন !

অন্য সব প্রানীর মত বান্দরও মন খারাপ করিয়া তাহার স্টিক জমা দিয়া আসিয়াছিল !

বাসায় আসিয়া বান্দর দেখিল তাহার স্ত্রী খুশিতে বাগবাকুম। বান্দরনী হাসিতে হাসিতে বলিল ,

– এখন কি করবা? আগেই কৈছিলাম সারাক্ষন …

– বেশী হাইসো না। এক বছর পর টের পাইবা।

– কেন!! এক বছর পর কি হইবেক !!!

– জমা তো দিছি নিজেরটা, টোকেন আনছি ঘোড়ারটা!!


ছঙবাদ নম্বর ১ : ভায়াগ্রা মিশ্রিত পানি খেয়ে ভেড়ার পালের কাণ্ড...!!! ৮০ হাজার ভেড়াকে থামানো যাচ্ছে না। চুটিয়ে চলছে সঙ্গম। যেখানে সেখানে, যখন তখন। তাদের নিরস্ত করা নিছক অসাধ্য হয়ে উঠেছে। তাও একদিন-আধদিন নয়, টানা ১ সপ্তাহ ধরে সঙ্গমে লিপ্ত ভেড়ারা।

এমন কাণ্ডের কারণও রয়েছে। জলে গোলা ভায়াগ্রার প্রভাব। যদিও বুঝে শুনে সঙ্গমের ক্ষমতা বৃদ্ধির কথা মাথায় রেখে ভেড়ার পাল যে ওই ওষুধ খায়নি তা অনুমেয়। তাহলে এতগুলো ভেড়া ওষুধ পেল কোথা থেকে? সে কাহিনিও রীতিমত চমকপ্রদ।

আয়ারল্যান্ডের রিঙ্গাস্কিডি বন্দরের কাছে ভিড়েছিল একটি জাহাজ। সেই জাহাজে ফাইজার নামে বিখ্যাত ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা ভায়াগ্রার বিশাল মজুত তুলছিল। দুর্ঘটনাবশত ৭৫৫ টন অশোধিত ওষুধ জলে পড়ে যায়। মিশে যায় বন্দরের জলে। সেই জল ভেড়ার পাল পান করে। জলে গোলা ওষুধ চলে যায় তাদের শরীরে। আর যায় কোথায়! তারপর থেকে মিলন কার্যত তাদের বাতিকে পরিণত হয়েছে।

ভেড়াদের শান্ত করার কম চেষ্টা করেননি মেষপালকরা। কিন্তু অনেক লড়াই করেও কিছু করতে না পেরে আপাতত তাঁরা হাল ছেড়ে দিয়েছেন। একরকম যা পারে করুক মানসিকতা নিয়ে থম মেরে গেছেন তাঁরা!

মেষপালকরা বলছেন তাঁদের ভেড়ারা কেমন যেন সেক্সম্যানিয়াক হয়ে উঠেছে! এক সপ্তাহ কেটে গিয়েছে। এখনও ভেড়াদের সঙ্গম ইচ্ছা প্রশমিত হচ্ছেনা।

তবে বিশেষজ্ঞদের ধারণা ওষুধের প্রভাব কাটতে আরও ১ সপ্তাহ নেবে। তারপরই ভেড়ারা স্বাভাবিক আচরণ শুরু করবে। কিন্তু তার আগে! এখন এক সপ্তাহ এসব দেখতে হবে ভেবেই মাথায় হাত পড়েছে মেষপালকদের।

সূত্র: টাইমস অফ ইন্ডিয়া

উপসং হাররররররররর :

১. রাখালগুলার বুদ্ধি বুদ্ধুজীবীদের মতন নহে ! নচেৎ ভেড়াদের ইয়ে খুলিয়া জমা রাখিলেই কাম হইয়া যাইত !

২. ধর্ষণের দেশে যেইরাম ধর্ষণ চলিতেছে তাহাতে ছন্দেহ হইতাছে শত্রূতা করিয়া কেহ আবার যমুনায়, গঙ্গায় ভায়াগ্রা ঢালিয়াছে কিনা !! (পাশ্চাত্যে বুঝি একারণেই এতো ধর্ষণ হইয়া থাকে !) অবিলম্বে তদন্ত করা হউক ! আমাদের পদ্মা, যমুনা , তিস্তার পানি অতিদ্রুত পরীক্ষা করিয়া ছরকারের প্রতি ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাইতেছি !



ছঙবাদ নম্বর ২ :

ছাগলের দেখাদেখি কফি খেতে শেখে মানুষ!

বিশ্বে সর্বপ্রথম কে কফির স্বাদ নিয়েছিলো? ধারণা করা হয়, কফির স্বাদ সবার আগে পেয়েছিলো কয়েকটি ছাগল!

কফির জন্মস্থান আফ্রিকা মহাদেশের ইথিওপিয়া। বলা হয়, ৯ম শতকে কালদি নামে ইথিওপিয়ার এক বাসিন্দা একদিন লক্ষ্য করেন, তার ছাগলগুলো কেমন অদ্ভুত আচরণ করছে। তিনি বেশ বিচক্ষণ লোক ছিলেন। লক্ষ্য করে দেখলেন, প্রতিবার সেই ছাগলগুলো একটি বিশেষ গাছের লাল লাল চেরি জাতীয় ফল খাওয়ার পরই এমন আচরণ করছে। এরপর তিনি নিজেও ফলগুলোর একটি খেলেন এবং ধারণা করা হয় তিনিই প্রথম মানুষ যিনি ক্যাফেইন নামক বস্তু মানুষের শরীরে কী প্রভাব ফেলতে পারে তা অনুভব করেন।

ফলটি খেয়ে তিনি নিজেকে তাজা ও উদ্যমী অনুভব করেন এবং কয়েকটি ফল তার গ্রামের ধর্মীয় নেতাদের কাছে এনে দেন। কিন্তু তারা সেগুলো আগুনে ফেলে দিলেন। এর ফল কিন্তু আরও উল্টো হলো। আগুনে পুড়ে এর সুগন্ধ চারদিকে ছড়িয়ে পড়লো। এরপর স্থানীয়রা পানিতে মিশিয়ে তৈরি করে ফেললো পৃথিবীর প্রথম কফির তৈরি পানীয়।

এটি একটি লোককথা, তবু ইথিওপিয়া এখনও কফির জন্য বিখ্যাত। তবে কফির যে জনপ্রিয়তা তারজন্য সবচেয়ে বেশি অবদান আরবদের বিশেষ করে মুসলিমদের। ১৩০০ সালের দিকে আরবরা তৈরি করেন রোস্টেড কফি। আর পৃথিবীর প্রথম কফির দোকান তুরস্ক, মিশর, সিরিয়া, পার্সিয়াতে দেখা যায়। ইউরোপে ১৭০০ সালের আগে কফির দেখাই পাওয়া যায়নি!

আরবরা বিশ্বে কফির পরিচয় ঘটিয়েছে আর ইথিওপিয়াতে কফির সূত্রপাত হয়েছে। এখনও ইথিওপিয়ার ১ কোটি ২০ লাখ মানুষ কফির চাষ করেন !

মাজেজা : আমি এই ছঙবাদের তেব্র পোরতিবাদ জানাই !! তাহাদের এই ম্যাও-প্যাও কাহিনীর সাথে আমি দ্বিমত পোষণ করিতেছি ! ছাগু সম্প্রদায় কখনোই এতো প্রগতিশিল ছেলো না !! তাহারা কপি খাইতে পারে, কফি খাওয়ার মতন মগজ ইহাদের থাকিতেই পারে না ! তাহাদের লিলিপুটিয়ান মগজ কফি চেনার মতন নহে ! ইহা একমাত্র পাঁঠাদের পক্ষেই সম্ভব ! অবিলম্বে এই কৃতিত্ব পাঁঠাদের দেওয়া হউক !!!


মন্তব্য ২০ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (২০) মন্তব্য লিখুন

১| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:০৭

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: ম্যাও প্যাও বন্ধু করুন.............।

প্রাণীকুলেরে সং.... করিতে দিন।

ধর্ষকের ধর্ষনের শাস্তি মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হইক।

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:২১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ম্যাও প্যাও বন্ধু করুন.............।

আপনার নির্দেশ "ইয়ের কণ্ঠকে " পৌঁছাইয়া দিতাছি ! হেতারা বন্ধ না করিলে গাজী কাহুর কাছে বিচার দিবাম !

প্রাণীকুলেরে সং.... করিতে দিন।

অবশ্যই ! তাহারা যত জিংজিং খেলিবে ততই লাভ !

ধর্ষকের ধর্ষনের শাস্তি মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হইক।

তাহার আগে ওদিক হইতে আসা পানি , বাতাস পরীক্ষা করা হউক ! প্রয়োজনে নারীকূলকে রক্ষার জন্য মহান পুরুষ জাতি তাহাদের ইয়ে খুলিয়া তসলিমার কাছে জমা রাখিতে পারে !!

২| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:২৪

রাজীব নুর বলেছেন: এতদিন কোথায়?
এত রস!!!
আহা !!

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৪৮

টারজান০০০০৭ বলেছেন: জঙ্গলে ছিলাম , ডুবিয়া ডুবিয়া জল খাইতেছিলাম ! এক্ষণে ভাসিয়া উঠিলাম !

রস কি চুয়াইয়া পড়িতেছে ? পাত্র লন !! হে হে হে !

৩| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৩৭

সম্রাট ইজ বেস্ট বলেছেন: বিনোদন!!!

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৫০

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আমার মনে হয় এই ছঙবাদগুলোর জন্য ইয়ের কন্ঠরে ইয়ের পুরস্কার দেওয়া যাইতে পারে !! কি বলেন ?

৪| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৩৫

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
টারজানসাব কি ওই জঙলে ছিলেন নাকি !
যে বনে ভায়াগ্রা বহনকারী একটি উড়োজাহাজ
দুর্ঘটনা কবলিত হইয়াছিলো !!!!!

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৪১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: শুধু আমি কেন , ব্লগের অনেকেই ছিল ! আপনারেও দেখিয়াছি বোধহয় !

সকলেই আমার কাছে ইয়ে জমা দিতে আসিয়াছিল ! খিকজ !!
আমিই বনের রাজা কিনা !

তা আপনার টোকেন নাম্বার জানি কত ?

৫| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৩

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: তেনাগো মন্ত্রীরা তো ডেঙ্গুর জন্য আমাগো দায়ী করে। আপনার এই লেখা পড়ার পর বলবে, ধর্ষণের জন্যও আমরা দায়ী...

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:০৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ভাগ্যিস পানির উৎস ওগো দেশেই ! আমরা ভাটিতে। তাই এই কথা কওনের সুযোগ নাই ! তয় সিংহ ও হরিণ ছানার উদাহরণও আছে বটে !!

ইহার সমাধান একখানই ! তাহাদের দেশের পুরুষেরা নিজ নিজ ইয়ে জমা দিয়া দিলেই পারে !!

৬| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৩

ইসিয়াক বলেছেন: মজা!মজা!!মজা!!!

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৬

টারজান০০০০৭ বলেছেন: বিনুদুন স্কয়ার !!! আপনিও ছিলেন কিনা মনে পড়িতেছে না !

৭| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:১৫

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন:

আজকাল ভায়াগ্রার উপর পিএইচডি করা হচ্ছে নাকি বন্দু;)

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: না হে ! সকালে ছঙবাদপত্র পড়িতে গিয়া দুইখানা মজার ছঙবাদ পাইলাম ! তাই পোস্ট হইয়া গেলু !

৮| ২১ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৫০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




টারজান০০০০৭ ভাই,
আমাদের পাশের বাড়ির JANE ও তার দলবল সহ নকল TARZAN নিয়ে ছাদে এই শীতের সিজনে প্রায় রাতেই গ্রিল পার্টি করেন, আপনি দুই একটি ভেড়া ধরে নিয়ে আসেন, তাতে JANE তাদের বাড়ির বাড়ির গ্রিল পার্টিতে হয়তো আমাদের সুযোগ দিতে পারেন। তাছাড়া আপনি যে অরিজিনাল TARZAN এখানে একটি সম্মানের ব্যাপার আছে না? দুই খানা ভেড়া নিয়ে আসেন দেখি চান্স পাওয়া যা কিনা ? প্রয়োজনে নকল টারজানকে পথেই ধোলাই দেওয়ার ব্যবস্থা নিবো।

২১ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:০৯

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ভেড়ারা সব স্ত্রীর আঁচলের নিচে লুকাইয়াছে। তাই উহাদের আনা সম্ভব হইতেছে না । তবে আপনি চাহিলে দুই-একখানা পাঁঠা ধরিয়া আনা যাইতে পারে। ব্লগে উহাদের চড়িয়া বেড়াইতে দেখা যাইতেছে !


আপনার প্রতি কৃতজ্ঞতা ! আমার প্রত্যাহারকৃত পোস্টে অনিচ্ছাকৃত গুরুতর ভুল ধরাইয়া দেওয়ার জন্য ! আমি ওলামায়ে কেরামের সাথে আলোচনা করিয়াছি। তাহারাও ইহাকে ভুলই বলিয়াছেন ! আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনাও করিয়াছি , আশা করিতেছি সেই মহান সত্তা আমাকে ফিরাইবেন না !

৯| ২১ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৪৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:





ভুলে যান সমস্যা নেই। আল্লাহ বসেই আছেন বান্দাকে ক্ষমা করার জন্য।
শীরক আর এতিমরে হক ছাড়া আর কিছু বড় পাপ বাদে সব তিনি ক্ষমা করে দেন।

২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ সকাল ১১:৫৪

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ ! ঐটাই মুমিনের আশা ! আল্লাহ কবুল করুন ! আমিন !

১০| ২১ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৫১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




পাঠা দরকার। নাদুস নুদুস হলে আরো ভালো। পার্টিতে হাজিরা দিতে হবে যেভবেই হোক।
পাঠাতে চর্বি বেশী হয় জানতাম। পাঠা গ্রিল হবে ভালো - পাঠার তেলে পাঠা গ্রিল।

২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:১৩

টারজান০০০০৭ বলেছেন: পাঁঠা আনিতেই গিয়াছিলাম ! বেচারাদের কান্নাকাটি দেখিয়া আমিও কাইন্দালাইছি ! তাই এবারের মতন ক্ষ্যামা দিলাম ! হাম দুখতিহ হ্যায় কাহু !!

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.