নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মনটা যদি তুষারের মতো...

আখেনাটেন

আমি আমাকে চিনব বলে বিনিদ্র রজনী কাটিয়েছি একা একা, পাই নি একটুও কূল-কিনারা কিংবা তার কেশমাত্র দেখা। এভাবেই না চিনতে চিনতেই কি মহাকালের পথে আঁচড় কাটবে শেষ রেখা?

আখেনাটেন › বিস্তারিত পোস্টঃ

সত্যি নয় গল্পঃ ‘ভাইলোক,--জীবনতো একটাই, চলো সবাই আমোদফূর্তি করি, বাঈজী নাচাই...’!!!!

০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:১৫




ফুটপাত দিয়ে হাঁটতে গিয়ে বেশ বড়সড় জটলার ভিতর থেকে এক ষাটোর্ধ লোক জবুথবু পোশাকে অর্ধ-উলঙ্গ হয়ে নাচানাচি করছে এই সব কথা বলে।

শ্যামলের নিজেরও একটু কৌতূহল হল কীভাবে বাঈজী নাচায় এই লোক। কাছে গিয়ে দেখে সৌম্যদর্শন এক ভদ্রলোক এভাবে মানুষকে আহব্বান জানাচ্ছে। জিনিসটা তাঁর কাছে অদ্ভুত ঠেকলো। লোকটিকে দেখে কিছুতেই পাগল মনে হচ্ছে না। আবার এহেন কাজকর্ম দেখে অবিশ্বাস করারও কোনো কারণ নেই।

সিদ্ধান্তে উপনীত হতে না পেরে পাশের এক ভদ্রলোককে জিজ্ঞেস করল ব্যাপারটি নিয়ে। উনিও জানেন না জানালো। ধাঁধাঁ।

-‘এই লোক এক সরকারী ব্যাংকের রাজনৈতিক তদবিরে এমডি হয়েছিল। এখন ব্যাংকটি প্রায় দেউলিয়া হওয়া বাকি রয়েছে। সরকার জনগণের করের টাকায় প্রণোদনা দিয়ে দিয়ে ব্যাংকের দম ধরে রেখেছে। সাঙ্গপাঙ্গদের নিয়ে হাজার হাজার কোটি টাকা তছনছ করেছে এই লোক...’- কেউ একজন রাগত গলায় বলে চলেছে।

-‘তাহলে এই শু... বাচ্চার এখন এই অবস্থা কেন?’-আরেকজনের গ্রীষ্মের ঝাঁঝালো গরমের মতো কথা কানে এল।

পাশের এক ভদ্রলোককে কিড়মিড় করে সাপের মতো ফুঁসে উঠে বলতে শুনা গেল, ‘’হারাম...দারা, পাগল হয়ে মরবে তারপরও বাঈজী নাচিয়ে যাবে’’।

এইসব খিস্তিখেউড়ের মাঝ থেকে বের হয়ে সোজা ফুটপাত ধরে হাঁটা দিল হতাশ শ্যামল।


সামনে এগুতে গিয়ে দেখে আরেকটা জটলা। একদল লোক এক হালকা-পাতলা ছেলেকে এলোপাথাড়ীভাবে মারছে। কাছে গিয়ে জানতে পারে বাসের কন্ট্রাক্টর। অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে বচসা। উত্তেজনা। এবং তুলকালাম। মানুষজন ভীষণরকম খেপে আছে।

শ্যামলেরও ভীষণ রাগ হয়। তাঁরও মন চাইছে দু লাথি দিয়ে দেয়। কেন এই রাগ হচ্ছে সে নিজেও জানে না? ছেলেটির সাথে তো তাঁর কোন ঝগড়া হয় নি। তবে কীসের জন্য তাঁর এই...। সব মানুষের কীসের এত রাগ! কার উপর রাগ! শ্যামল ভাবতে পারে না। ফুটওভার ব্রিজ পার হয়ে রাস্তার অন্যপারে আসে।


রাস্তায় এক ট্রাফিক সার্জনকে ঘিরে কিছু মানুষের ভীষণরকম কথাকাটাকাটি হচ্ছে। শ্যামল এগিয়ে যায়। পাশে দেখে আহত এক লোককে ধরাধরি করে একটি রিক্সাতে তোলা হচ্ছে। একটি প্রাইভেট কার নাকি ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে গেছে।

একজন জানাল পালায় নি। ঐ ব্যাটা পুলিশ টাকা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে। এই নিয়েই লোকজনের সাথে বাকবিতণ্ডা।

একজন চিৎকার করে বলে ‘আপনারা পাঁচ টাকার জন্যও লালায়িত’। আরেকজন নিচুস্বরে কুৎসিত একটি গালি দিয়ে উঠল তাদের বড়কর্তাদের উদ্দেশ্যে। পরিবেশ ক্রমেই বিষাক্ত হয়ে উঠছে।

শ্যামল হাঁটতে থাকে ফুটপাত বরাবর। কড়া রোদ উঠেছে আজ। এক কোণে মেঘেদেরও আনাগোনা শুরু হয়েছে।


এবার হাটতে গিয়ে রাস্তার একপাশ বন্ধ করে এক রাজনৈতিক নেতার ডেমাগগির মুখোমুখি হল শ্যামল। ছাউনির নিচে কিছু চেয়ার ফাঁকা পেয়ে একটু জিরিয়ে নেওয়ার আশায় বসে পড়ল।

পাশে একলোক কুলফি আইস্ক্রিম বিক্রি করছিল। প্রচণ্ড ইচ্ছেটাকে দমন করল। মাসের শেষ। ভাবল আমি ন্যাশনাল ভার্সিটির বাংলায় পাশ ছিয়াত্তর সরকারী-বেসরকারী ভাইভা দেওয়া গরীব বর্গাচাষী বাবার ছেলে মামা-চাচাহীন বেকার শ্যামল। ইচ্ছেপুরুণ শ্যামলদের অত সহজ না।

তাই চুপচাপ সরকারী দলের মহান নেতার মধুর ভাষণ শুনতে মনোযোগী হল। নেতা:

-‘দেশ আজ উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে...’।–সাগরেদদের হাততালি।
-‘অর্থনীতির অবস্থা সর্বকালের সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে...’।–হাততালি।
-‘আইনশৃঙ্খলার অভাবনীয় উন্নতি...’।–হাততালি।
-‘দুর্নীতির মূলোৎপাটন করা হয়েছে...’।–হাততালি।
-‘বিচারব্যবস্থার যুগান্তকারী স্বচ্ছতা...’।–হাততালি।
-‘কৃষক-শ্রমিকেরা ন্যায্য মূল্য পাচ্ছে...’।–হাততালি।
-‘কর্মসংস্থানের রেকর্ড করেছে আমাদের মাননীয়...’। এ পর্যন্ত শোনার পর শ্যামলের ধৈর্যচ্যুতি ঘটল। রাগে তাঁর ব্রহ্মতালু অতিশয় গরম হয়ে উঠল। টিকতে না পেরে আবার হাঁটার সিদ্ধান্ত নিল।

হাঁটতে গিয়েও তাঁর কানে নেতার কথাগুলো কুঠারের আঘাতের মতো কষাঘাত করতে লাগল।

ঈশাণ কোণে বৈশাখের কালো মেঘ দৈত্যের রূপ নিয়েছে। প্রচন্ড ঝড়ের পূর্বাভাস। শ্যামলের ইচ্ছে করছে নিজে কালবৈশাখী ঝড় হয়ে ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয় সবকিছু। তারপর নতুন করে আবার চারপাশ গড়ে উঠুক। যেমন করে নিস্পাপ শিশু চারাগাছ বড় হয় বিশুদ্ধতায়!!!

মন্তব্য ৬৪ টি রেটিং +১২/-০

মন্তব্য (৬৪) মন্তব্য লিখুন

১| ০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৩৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


ডিজিটাল বাংলায় শ্যামলের দিনগুলো

০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৪০

আখেনাটেন বলেছেন: হুম; কিন্তু শ্যামলদের অপরাধগুলো কি? এরা কি এর চেয়ে ভালোভাবে বাঁচার আশা করতে পারে না?

আপনার কি মনে হয়?

২| ০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৪২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: দেশে এখন সব শ্যামলদের দিন বোধহয় এভাবেই কাটে!! উদ্দেশ্যহীন, এলোমেলো..... :(

০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৫০

আখেনাটেন বলেছেন: ঠিক; লাখো শ্যামলরা এখন গন্তব্যহীন পথে ছুটে চলেছে। কোথায় গিয়ে থামবে কেউ জানে না। এদের জন্য মায়াকান্না করার জন্য আমাদের মতো লোক অনেক থাকলেও উদ্ধার করার কেউ নেই। না সরকার না অসরকার কেউই মূল্য দিতে নারাজ। ফলেই এদের কেউ উত্তাল সাগর পাড়ি দেয়। কেউ সেখানেই সলিল সমাধি হয়।

আপনাকে বেশ কয়দিন পর দেখলাম মনে হচ্ছে।

৩| ০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৪৪

ব্লগার_প্রান্ত বলেছেন: এই লেখাটি বড়ই সুখাদ্য।

০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৪

আখেনাটেন বলেছেন: শ্যামলরা কিন্তু 'সু' উপসর্গটা এখন ঠিকঠাক বুঝে উঠতে পারছে না। আদৌ এর অস্তিত্ব আছে কিনা তারা দ্বিধান্বিত। কারণ তারা চারপাশে এত বেশি 'কু'...।

৪| ০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৫০

শামচুল হক বলেছেন: শ্যামলদের পিত্তি জ্বললেও লাভ নেই- - - -

০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৬

আখেনাটেন বলেছেন: শ্যামলদের পিত্তি জ্বললেও লাভ নেই- - - -- এটা তারাও মনে হয় বুঝে গেছে। তাই নির্বিবাদে চারপাশের অনাচার হজম করে চলেছে। আর অাশা করছে 'হয়ত একদিন সব কিছুর অবসান হবে...।'

৫| ০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৫১

সুইসাইড বিশেষজ্ঞ মাসুম বলেছেন: এভাবে আর কতো দিন বলুন

০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৮

আখেনাটেন বলেছেন: সামনে আরো কালোরাত অপেক্ষা করছে...। শ্যামলদের এর থেকে নিস্তার নেই। রাষ্ট্রের এদিকে আর নজর নেই। তাই শ্যামলদের এখন নতুন কোনো স্বপ্নের পেছনে ছুটতে হবে। কিংবা আশাই তাদের বাঁচিয়ে রাখবে।

৬| ০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৫২

কাওসার চৌধুরী বলেছেন: চমৎকার লেখা। এরকম জত শত শ্যামল ঘুরছে, ছুটছে কে কার খবর রাখে।

০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৫:০৪

আখেনাটেন বলেছেন: এরকম জত শত শ্যামল ঘুরছে, ছুটছে কে কার খবর রাখে। --রাষ্ট্রের রাখা উচিত ছিল। কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হচ্ছে রাষ্ট্রের অন্যতম প্রধান দায়িত্ব। যারা তা পারবে তারা আজীবন ক্ষমতায় থাকলেও জনগণের মাথাব্যথা থাকবে না।

উদাহরণ দক্ষিন কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান, মালয়েশিয়া।

৭| ০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনাকে বেশ কয়দিন পর দেখলাম মনে হচ্ছে। পৃথিবীর একটা দেশ দেখতে বের হয়েছিলাম, গতকালই ফিরলাম। :)

০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৫:০৬

আখেনাটেন বলেছেন: বেশ বেশ! আমাদেরকেও জানিয়ে দেন ভ্রমণের খুঁটিনাটি। আপনার ইটালির কড়চা কিন্তু বেশ ছিল। ভবিষ্যতে সেখানে গেলে আপনার ব্লগ সাথে করে নিয়ে যাব। :D

৮| ০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৫:০৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


এরশাদ, বেগম জিয়া, শেখ হাসিনা, রওশনরা নিজেদের পরিবার চালাতে যত খরচ করে, এরা নিজের মেধায় কোনদিন এত টাকা আয় করার কথা নয়; এরা কি করে ১৭ কোটীকে চালানোর মতো আয় করবে?

০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৫:০৯

আখেনাটেন বলেছেন: এরশাদ, বেগম জিয়া, শেখ হাসিনা, রওশনরা নিজেদের পরিবার চালাতে যত খরচ করে, এরা নিজের মেধায় কোনদিন এত টাকা আয় করার কথা নয়; এরা কি করে ১৭ কোটীকে চালানোর মতো আয় করবে? --আপসোস! এদেরকেই আমরা যুগের পর যুগ তালিয়া দিয়ে যাচ্ছি।

৯| ০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৯

সৈয়দ তাজুল বলেছেন: কৌশলে এসকল অপশক্তিগুলো জনসাধারণের থেকে সমর্থন আদায় করে জনগণের রক্ত চুষে খাচ্ছে। জনগণ বুঝতে না পারায় তালিয়া দিচ্ছে। জনগণ যেন কখনো এটা বুঝতে না পারে সেজন্য বিছিয়ে রেখেছে কালো জাল।

০২ রা মে, ২০১৮ রাত ১২:২৮

আখেনাটেন বলেছেন: এই তালিয়া জনগণের কানে কর্কশ শুনালেও কিচ্ছুটি করার নেই। শ্যামের বাঁশির মতো রাধা হয়ে হাসিমুখে শুনে যেতে আমপাবলিকদের।

১০| ০১ লা মে, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৫

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
শ্যামল তুই পালিয়ে যা,
তোর জন্য কিচ্ছু নাই!!

০২ রা মে, ২০১৮ রাত ১২:৩৭

আখেনাটেন বলেছেন: শ্যামল তুই পালিয়ে যা,
তোর জন্য কিচ্ছু নাই!!
-- শ্যামল পালাবে কোথায় নূরু ভাই। জায়গাতো থাকতে হবে তাদের পালানোর।

গন্তব্যহীন হাঁটা ছাড়া কোনো গতি নেই। না পারছে সিস্টেমের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে না পারছে সিস্টেমর ভিতরে নিজেকে খাপ খাওয়াতে। তাদের সব রাস্তা বন্ধ সবুজ বাংলার মা গ্রাম ছাড়া।

১১| ০১ লা মে, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: আখেনাটেন ,



প্রথম মন্তব্যে চাঁদগাজী ঠিকই বলেছেন ---- শ্যামলের দিনকাল !

সচেতন প্রতিটি মানুষই এখন একজন "শ্যামল " । রাগে ভেতরে ভেতরে জ্বলবে কিন্তু সে আগুন নেভাতে কুলফি আইসক্রীমের মতো ঠান্ডা কিছু কিনে নেয়ার সাহস নেই যার !!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!

০২ রা মে, ২০১৮ রাত ১২:৪০

আখেনাটেন বলেছেন: সচেতন প্রতিটি মানুষই এখন একজন "শ্যামল " -- বেশ বলেছেন।

কিন্তু এই সচেতন শ্যামলেরাই অচেতন থেকে অবচেতন মনে নির্যাতন সয়ে যাচ্ছে স্বযতনে। মনে হচ্ছে সিস্টেম যেন এদের নিঃশেষ করে দিয়েছে।

১২| ০১ লা মে, ২০১৮ রাত ৮:০৩

সুমন কর বলেছেন: শ্যামলের চোখ দিয়ে বাস্তবের কিছু টুকটাক চিত্র তুলে ধরেছেন--------ভালো লাগল।
+।

০২ রা মে, ২০১৮ রাত ১২:৪৩

আখেনাটেন বলেছেন: শ্যামলের চোখ দিয়ে বাস্তবের কিছু টুকটাক চিত্র তুলে ধরেছেন- -- ভালো বলেছেন। এই শ্যামলারা পড়ে পড়ে এভাবেই সমাজের অনাচারগুলো দেখে যাবে তীব্র জীঘাংসা নিয়ে। কিন্তু এর বিরুদ্ধে কিছুই করাই নেই তাদের।

১৩| ০১ লা মে, ২০১৮ রাত ৮:১৭

তানভির জুমার বলেছেন: চরম সত্য তুলে ধরেছেন ভাই। বয়সে তরুণ কিন্তু দেশ নিয়ে আর কোন স্বপ্ন দেখি না।

০২ রা মে, ২০১৮ রাত ১২:৪৬

আখেনাটেন বলেছেন: বয়সে তরুণ কিন্তু দেশ নিয়ে আর কোন স্বপ্ন দেখি না। --স্বপ্ন দেখতে হবে বৈকি! শত হতাশার মাঝেও স্বপ্ন দেখতে হবে। না হলে তো বেঁচে থাকাই অর্থহীন হয়ে পড়বে।

এরকম কোনো স্বপ্নই হয়তবা শ্যামলদের বেঁচে থাকার সঞ্জীবনী।

১৪| ০১ লা মে, ২০১৮ রাত ১০:৩৯

রাজীব নুর বলেছেন: আমাদের গ্রামে একটা কথা আছে, ছোট লোকের পোলায় যদি জমিদারি পায়, কানের আগায় কলম গুজে বাঈজী নাচায়।

০২ রা মে, ২০১৮ রাত ১২:৪৮

আখেনাটেন বলেছেন: আমাদের গ্রামে একটা কথা আছে, ছোট লোকের পোলায় যদি জমিদারি পায়, কানের আগায় কলম গুজে বাঈজী নাচায়। -- :P :P

বাঈজী নাচার লোকের তাহলে তো এদেশে অভাব হওয়ার কথা না। X(

১৫| ০১ লা মে, ২০১৮ রাত ১০:৪৩

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:



শ্যামল যেন এই দেশ । তার মতই দেশের অবস্থা । মমতাহীন এক স্বাধীন দেশ ।

লেখা ভাল লেগেছে ।

০২ রা মে, ২০১৮ রাত ১২:৫০

আখেনাটেন বলেছেন: শ্যামল যেন এই দেশ । তার মতই দেশের অবস্থা । মমতাহীন এক স্বাধীন দেশ । ---এভাবেই খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে শ্যামলরা তথা দেশ চলবে। দুনিয়া এগিয়ে যাবে আর আমরা চেয়ে চেয়ে দেখব।

সকল প্রকার র‌্যান্কিং এ পেছন থেকে প্রথম হওয়ার জন্য প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হব উগান্ডা-সোমালিয়া-আফগানদের সাথে।

১৬| ০১ লা মে, ২০১৮ রাত ১১:২৪

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: কঠিন সময় পার করছে শ্যামলরা...

০২ রা মে, ২০১৮ রাত ১২:৫১

আখেনাটেন বলেছেন: কঠিন সময় পার করছে শ্যামলরা... -- ক্ষমতাসীনরা যদি বুঝত এদের সেই কঠিন সময়গুলোর মূল্য।

১৭| ০২ রা মে, ২০১৮ সকাল ৮:০০

শায়মা বলেছেন: আহারে শ্যামল চোখ কান মুখ থাকতেও বোবা, কালা, অন্ধ..... :(

০২ রা মে, ২০১৮ সকাল ১১:১৩

আখেনাটেন বলেছেন: শ্যামলদের চোখ কান মুখ ব্যবহারের যথাযথ সুযোগ রাষ্ট্রযন্ত্র সৃষ্টি করছে না বা প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছে। তবে সবকিছুর যেমন শেষ আছে এরও নিশ্চয় একদিন অবসান হবে।

শ্যামলরাও তাদের বর্গাচাষী কিংবা খেটে খাওয়া বাবাদের মুখে এক চিলতে হাসি ফুটাতে পারবে। একটি রাষ্ট্রেরও অন্যতম দায়িত্বও তাই হওয়া উচিত। শ্যামলরা কাজে লাগতে চায়, রাষ্ট্রকে তাদের কাজে লাগার সুযোগ তৈরি করতে হবে। না পারলে সরে যেতে হবে রাষ্ট্রের কর্তাদের।

ইতিহাসের শিক্ষা বড় নিষ্ঠুর। ভুল করলে ভুলের প্রায়শ্চিত্ত একদিন করতে হবে।

১৮| ০২ রা মে, ২০১৮ সকাল ৮:১০

পুলক ঢালী বলেছেন: ভীষণভাবে বর্তমানকে ফুটিয়ে তুলেছেন। প্রত্যাশা শ্যামলরা কাল বৈশাখীর দৈত্য হয়ে ফিরে আসুক।
(একটা অশিক্ষিত জাতীর কর্ণধাররাও অশিক্ষিত আর মূর্খ হয়)

০২ রা মে, ২০১৮ সকাল ১১:২১

আখেনাটেন বলেছেন: ভীষণভাবে বর্তমানকে ফুটিয়ে তুলেছেন। প্রত্যাশা শ্যামলরা কাল বৈশাখীর দৈত্য হয়ে ফিরে আসুক।
(একটা অশিক্ষিত জাতীর কর্ণধাররাও অশিক্ষিত আর মূর্খ হয়)
-- ভালো বলেছেন।

আমাদের রক্তে নানা জাতি নানা গোষ্ঠীর মিশ্রণ। প্রত্যেক জাতির ভালো দিকগুলো বাদ দিয়ে মনে হয় খারাপদিকগুলোই আমরা অাত্তীকরণ করেছি। ফলেই এত এত চোর-বাটপাড় এ দেশে। নেতাও বানাচ্ছি এদেরই। অন্য জাতিরা যখন দশ কদম এগিয়ে গিয়েও উল্লাস করে না, সেখানে আমরা এক কদম ফেলেই বাদ্য-বাজনা বাজিয়ে গগনবিদারী চিৎকার করে পাড়া মাথায় তুলছি।

এই নেতৃত্ব নিয়ে এ দেশ চলছে যুগ যুগ ধরে। তাই এখানে শ্যামলরা সৃষ্টি হচ্ছে লাখে লাখে।

১৯| ০২ রা মে, ২০১৮ সকাল ৯:২১

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: কোটি কোটি শ্যমলের ক্ষোভ জমছে ঈষান কোণে. . .

ঘনিভূত হয়ে শুধূ আছড়ে পড়ার অপেক্ষা - - -

তছনছ হয়ে যাক স্বৈরচারিতার প্রাসাদ,
অনাচার, অবিচার আর জুলুম
মিথ্যা প্রতারণা আর শোষন
লুটেরা ধর্ষক আর দালালেরা
ভৈসে যাক কাল বৈশাখীর তান্ডবে!

মুক্তি পাক দেশ
আমজনতা
আর একজন শ্যামল।

০২ রা মে, ২০১৮ সকাল ১১:২৮

আখেনাটেন বলেছেন: ক্ষোভ জমেও লাভ নেই। সিস্টেমের প্যাঁচে পড়ে আছে জাতি। যুগ যুগ ধরে এই সিস্টেমের নোংরামী জনগণকে পরিষ্কার চিন্তা করারও সুযোগ দিতেও নারাজ।

তাই শ্যামলদের বিচ্ছিন্নভাবে হাঁটা ছাড়া আর কিছু করার নেই। এভাবেই ধুঁকতে ধুঁকতে তারা এগিয়ে যাবে, সাথে মুমূর্ষু অবস্থায় দম দিতে দিতে দেশও এগিয়ে যাবে। দুনিয়া ৫জি তে চললেও আমরা ২জি র জন্য হাপিত্যেশ করব। আবার এ নিয়েও বড়াই করে পাড়া মাথায় তুলব।

২০| ০২ রা মে, ২০১৮ দুপুর ১২:১৬

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: ফ্যারাওভাই, আপনার শ্যামলিমা দৃষ্টি আপাত ভাল লেগেছে, কিন্তু অনুভবে বিষন্ন হলাম।ভৃগু ভায়ের কমেন্টটি দাগ কেটে গেল।

অনেক অনেক ভাল লাগা আপনাকে।

০২ রা মে, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৯

আখেনাটেন বলেছেন: শুধু রাষ্ট্রযন্ত্র শ্যামলদের পালস ধরতে পারে না। কিংবা না ধরতে পারার ভান করে কেটে দেয়।

২১| ০২ রা মে, ২০১৮ দুপুর ১:১৪

বিএম বরকতউল্লাহ বলেছেন: শ্যামলা মায়ের শ্যামল ছেলে ভাল থাকিস ভাই
এ জগতে তোরচে ভাল মানুষ বুঝি নাই!

সুন্দর লেখার জন্য ধন্যবাদ।

০৩ রা মে, ২০১৮ দুপুর ১:৪৯

আখেনাটেন বলেছেন: ভালো বলেছেন। কিন্তু এদেশে মনে হয় শ্যামলরা ভালো থাকে না, ভালো থাকতে দেওয়া হয় না। কেউ হতাশায় জীবনের মানে খুঁজে না পেয়ে সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে, আর কেউ সমাজে থেকেও আজীবন মানে খুঁজে ফিরে।

ধন্যবাদ বিএম বরকতউল্লাহ ভাই সুন্দর মন্তব্যের জন্য। ভালো থাকুন।

২২| ০২ রা মে, ২০১৮ দুপুর ২:০৪

আল আমিন সেতু বলেছেন: অন্তে আপনার নিজের ক্ষোভপ্রকাশটা অন্যরকম লেগেছে। সমাজের নিত্যদিনের রুঢ় বাস্তব চিত্রপটে রচিত ছোটগল্প। ভালো লাগলো।

০৩ রা মে, ২০১৮ দুপুর ১:৫৪

আখেনাটেন বলেছেন:

সমাজের নিত্যদিনের রুঢ় বাস্তব চিত্রপটে রচিত ছোটগল্প। --চারপাশে এরকম গল্পের এখন মহাআয়োজন চলছে। আমরা কেউ সেই থেকে বিচ্ছিন্ন নয়। তাই ক্ষোভটাও সর্বজনীন।

আপনার সুন্দর মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ আল আমিন সেতু।

২৩| ০২ রা মে, ২০১৮ বিকাল ৩:০৬

তারেক ফাহিম বলেছেন: শ্যামলেরা এমনিই হয়।
সব দেখে- শুনেও অন্ধ ও বোবা হয়ে থাকে :(

শ্যামলদের বাক স্বাধীনতা এখনও আসেনি, তবুও শ্যামলেরা আশায় থাকে।

গল্প সুন্দর হয়েছে, মুগ্ধতা।

০৩ রা মে, ২০১৮ দুপুর ১:৫৫

আখেনাটেন বলেছেন: শ্যামলেরা এমনিই হয়।
সব দেখে- শুনেও অন্ধ ও বোবা হয়ে থাকে :(

শ্যামলদের বাক স্বাধীনতা এখনও আসেনি, তবুও শ্যামলেরা আশায় থাকে।
---শ্যামলরা এভাবেই তেলাপোকার মতো টিকে থাকে সমাজে। এদের জন্য কারোই মাথাব্যথা নেই।

লেখা ভালোলাগার জন্য ধন্যবাদ ব্লগার তারেক ফাহিম।

২৪| ০২ রা মে, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪১

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন: নাচ আমার ময়না তুই পয়সা পাবিরে... ;)


আসেইন একখানা ঝকানাকা গান গাই।। ;)

০৩ রা মে, ২০১৮ দুপুর ১:৫৯

আখেনাটেন বলেছেন: নাচ আমার ময়না তুই পয়সা পাবিরে.. -- নেচে কুদে হয়ত এদেশে পয়সা যায়, পড়াশুনায় নয়। ;) শ্যামলরা নাচ জানে না, ফলে তাদের সামান্য আইসক্রিম খাওয়ারও পয়সা জোটে না।

কবির হঠাৎ আজকে গানের প্রতি ঝোঁক। ডাল মে কুচ কালা হ্যায়...। ;)

২৫| ০৩ রা মে, ২০১৮ সকাল ৭:০৮

সোহানী বলেছেন: এই নেন, ডিজিটাল বাংলার ডিজিটাল ব্লগার....... ব্লগেও শুরু করছে....... (সরি শেয়ার না করে পারলাম না)

স্পার্টাকাস৭১ বলেছেন:

আপনি পোষ্ট দিছেন ঐ মেয়ের রগ কাটার ঘটনা নিয়ে, যে মেয়েকে রগ কাটার অপবাদ দিয়ে মধ্য রাতে হাজার হাজার ছেলে মেয়ে টেনে হিঁচড়ে গলায় জুতার মালা দিয়ে রাস্তায় বের করে দিয়েছিল। আসলে সেই মেয়ে এটলিষ্ট রগ কাটার কোন ঘটনাই সেই দিন ঘটায় নি।
আর সেই ঘটনা নিয়ে আপনি মেয়েটার বিভিন্ন ছবি সহ বুদ্ধিজিবী ভাব নিয়ে একটা পোষ্ট দিয়ে তাকে আরও ডোবানোর ব্যাবস্থা করেছেন।
আমি এখানে কমেন্ট করেছি আপনার পোষ্ট নিয়ে। ছাত্রলীগ বা ছাত্রদলের কোন কুকর্ম নিয়ে এখানে কথা বলিনি। তাই তাদের অপরাজনীতি নিয়ে রিপলাই দিয়ে ড্যামেজ রিকভারির চেষ্টা বৃথা।

বিনা দোষে একটা মেয়ে কে চরম ভাবে হেয় করার জন্য এখন একজন দ্বাযিত্বশীল মানুষ হিসাবে আপনিই বলেন, সেই মেয়ের গলায় যে জুতার মালা দেয়া হয়েছিল সেখান থেকে একটা জুতা নিয়ে আপনার মুখে ঠিক কতটা বাড়ি দেয়া উচিৎ?

০৩ রা মে, ২০১৮ দুপুর ২:০৫

আখেনাটেন বলেছেন: বিবেক বলে যে মানুষের একটা বিশেষ দিক আছে। ইনারা সেটা না পেয়েছে পরিবার থেকে না পেয়েছে চারপাশের পরিবেশ থেকে।

ফলে সাদাকে সাদা ও কালোকে কালো বলার মতো চরিত্রের দৃঢ়তা এরা মাটিচাপা দিয়েছে।

সামান্য হালুয়া-রুটির জন্য সবকিছু বিসর্জন...।

২৬| ০৩ রা মে, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪৩

প্রামানিক বলেছেন: অনেক ঘটনার সম্মুখীন হলে নিজেরও পিত্তি জ্বলে কিন্তু কিছু করার থাকে না।

২২ শে মে, ২০১৮ রাত ১০:২৫

আখেনাটেন বলেছেন: দেরীতে উত্তরের জন্য দুঃখিত প্রিয় ব্লগার প্রামানিক ভাই।

অনেক ঘটনার সম্মুখীন হলে নিজেরও পিত্তি জ্বলে কিন্তু কিছু করার থাকে না। -- হুম; শ্যামলদের এখন পিত্তি জ্বললেও কিছু করার নেই। ফাটা বাঁশের চিপায় পড়ে আছে তারা।

আপনার সুন্দর মন্তব্যের জন্য অশেষ ধন্যবাদ।

২৭| ২৬ শে মে, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৯

সৈয়দ ইসলাম বলেছেন: এ পরিস্থিতি, এ ভাষণ জানা নেই কতদিন চলবে! তবে বাঙালিকে এটা শ্য করতে হবে।
সাধারণ পাব্লিককে এমন ভাবে ব্রেইন ওয়াশ করা হয়েছে যে, দেশ কেউ বিক্রি করে দিলেও তাদের কিছু যায় আসে না; তাদের প্রয়োজন ফকিরি জিন্দেগি, তাদের এতটুকু হলেই চলবে।

২৮ শে মে, ২০১৮ দুপুর ১:১৯

আখেনাটেন বলেছেন: কুশিক্ষায় শিক্ষিত জাতির জন্য এর চেয়ে আর বেশি কি অাশা করতে পারেন। সুশিক্ষিত মানুষ অবশ্যই বিবেকবান হোন।

এদেশে দুর্ভাগ্যজনকভাবে বিবেকসম্পন্ন মানুষের সংখ্যা নিদারুনভাবে কমে গেছে। যে কয়জন আছে তারাও নানারকম বিড়ম্বনার মধ্য দিয়ে জীবন অতিবাহিত করছে।

২৮| ২৮ শে মে, ২০১৮ দুপুর ১:৫৩

সৈয়দ ইসলাম বলেছেন: সেটাই ভাই।

কী করুনন অবস্থার দিকে আমরা এগুচ্ছি, বলার মত না।

২৮ শে মে, ২০১৮ দুপুর ২:১১

আখেনাটেন বলেছেন: এভাবেই ধুঁকতে ধুঁকতে এগিয়ে যাব তথাকথিত উন্নয়নের সিঁড়ি বেয়ে। নৈতিকতা ও মূল্যবোধকে পদ্মার জলে বিসর্জন দিয়ে।

অন্যরা দশকদম এগিয়ে গেলেও আমরা এককদম এগিয়েও গাধার মতো চিৎকারে পাড়া মাথায় তুলব। অদ্ভুত আমাদের মানসিকতা!

২৯| ২৮ শে মে, ২০১৮ বিকাল ৩:০৮

সৈয়দ ইসলাম বলেছেন: মন্তব্যে করুন কথা চলে আসে ভাই!

আল্লাহ!

২৮ শে মে, ২০১৮ বিকাল ৩:২২

আখেনাটেন বলেছেন: দেশকে সত্যিই ভালোবাসলে এইসব দেখে চোখ বুঝে থাকতে পারবেন না।

আমি আমার সর্বস্ব দিয়ে যাব কোন কিছু অতিরিক্ত পাওয়ার অাশা না করেই শুধু বিবেকের কাছে বাধা পেয়ে। ভালো কিছু করতে গেলে সেখানেও পদে পদে বাধা। আর দেখব কীভাবে পাশের শকুনেরা খুবলে খাচ্ছে চারপাশ?

একবার ভাবেন মূল্যবোধের কারণে আপনি না পারছেন এই শকুনদের সঙ্গী হতে - না পারছেন এদের ভণ্ডামী দেখতে? এ এক অাজব অবস্থা?

৩০| ৩১ শে মে, ২০১৮ রাত ৯:২৩

লায়নহার্ট বলেছেন: ২য় প্রশ্ন

০১ লা জুন, ২০১৮ রাত ১১:১৫

আখেনাটেন বলেছেন: ঝেড়ে কাশুন ভায়া।

৩১| ১৭ ই জুন, ২০১৮ সকাল ১১:০০

খায়রুল আহসান বলেছেন: শ্যামলদের ইচ্ছেগুলো তো শুধু ভেবে ভেবে পূরণ হবার নয়। মুষ্টিবদ্ধ হাতগুলোকে এক হতে হবে।

২৬ শে জুন, ২০১৮ দুপুর ১২:৪৪

আখেনাটেন বলেছেন: শ্যামলদের ইচ্ছেগুলো তো শুধু ভেবে ভেবে পূরণ হবার নয়। মুষ্টিবদ্ধ হাতগুলোকে এক হতে হবে। -- ঠিকই বলেছেন। তবে দুর্ভাগ্য যে হাতগুলো মুষ্টিবদ্ধ করতে যে পরিমাণ এনার্জির দরকার সে পরিমাণ এনার্জিও গেদার করা তাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়েছে।

তাই এ হতাশা-আক্ষেপ বুঝি শেষ হবার নয়। সিস্টেমে গিট্টু লেগে গিয়েছে। যিনি খুলবেন তিনি এই গিট্টুকে আরো মারাত্মক রূপ দেওয়ার তালে আছেন। তারপরও অাশাবাদী হিসেবে বলতে হয়, সবকিছুর যেমন শেষ আছে, এসবেরও একদিন বিনাশ হবে। আমাদেরও পলায়নপর মানসিকতার অবসান ঘটবে।

মন্তব্যের জন্য অশেষ ধন্যবাদ প্রিয় ব্লগার খায়রুল আহসান। ভালো থাকুন। সুস্থ থাকুন।

৩২| ০৯ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৩:৪৩

Ashfi Tuhin বলেছেন: শ্যামল তুই পালিয়ে যা ভাতিজা।।

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৫০

আখেনাটেন বলেছেন: পালিয়ে কোথায় যাবে? পালানোর রাস্তাটাও তো কণ্টকাকীর্ণ শ্যামলদের জন্য।

শুভকামনা মন্তব্যের জন্য।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.