নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ব্যস্ত শহরে, ঠাস বুনোটের ভিড়ে, আজও কিছু মানুষ, স্বপ্ন খুঁজে ফেরে

অনুভব সাহা

এগুলা এডিটিং করা যায় ভাই

অনুভব সাহা › বিস্তারিত পোস্টঃ

আত্মঘাতী হামলা কী বৈধ?

২৫ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১:৪৮

প্রশ্ন:
“আমরা জানি, আত্নহত্যাকারীর পরিণাম জাহান্নাম। কিন্তু বর্তমানে অনেক দেশে মুজাহিদগণ ইহুদী, খৃষ্টানদের বিরুদ্ধে জিহাদ করতে গিয়ে নিজের দেহে বোমা স্থাপন করে নিজেকে মানব বোমায় পরিণত করে মারা যাচ্ছেন। এরুপ আত্নঘাতী বোমা হামলা শরীয়তের দৃষ্টিতে জায়েয আছে কি ? আত্নঘাতী বোমায় নিহত ব্যক্তিটি কি আত্নহত্যাকারী গণ্য হবে ?”
জবাব:
"না, এরুপ আত্নঘাতী বোমায় প্রাণ উৎসর্গ শরীয়তে জায়েয নয়। তা সম্পূর্ণ হারাম। আত্নঘাতী বোমায় নিহত ব্যক্তি অবশ্যই আত্নহত্যাকারী গণ্য হবে।"

- মুফতী আবুল হাসান মুহাম্মদ আবদুল্লাহ
মুহতামিম, মারকাজুদ্ দাওয়াতিল ইসলামিয়া ( উচ্চতর ইসলামী শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান ) ঢাকা, বাংলাদেশ। - বিস্তারিত
আরেকটি লিংক- *আত্মঘাতী হামলা অমার্জনীয় অপরাধ


ব্লগের এক বুদ্ধিজীবী ফতোয়া দিয়েছে, "সহী ইসলাম পরিপূর্ন জানলে আপনার সামনে দুটো রাস্তা খোলা। হয় আপনি জঙ্গি হবেন নইলে আপনি ইসলাম বিদ্ব্যেষ হবেন।" প্রতিউত্তর ৩
আমি না হয় ধর্ম কম বুঝি কিন্তু আজ পর্যন্ত কোন ইমাম, মুফতি, মাওলানা পেলাম না, যে জঙ্গীবাদকে সমর্থন করে। তারা কি তাহলে সহিহ্ ইসলাম বোঝে না! আজিব ব্যাপার!
আরেক ত্যানাবাজকে দেখলাম তার স্বভাবসুলভ ত্যানা পাকাতে। ব্লগারদের উপর আমার একটা শ্রদ্ধাবোধ ছিল। এসব লেখা দেখলে সেসবের ভিত একটু নড়ে যায় বই কি
আগ্রহীদের জন্য লিংক:
১।। ফতোয়া: অমুসলিমদের উপাসনালয়ে হামলা চালানো হারাম - BBC News বাংলা
২।। ‘জঙ্গিবাদ হারাম’- লাখো আলেমের ‘ফতোয়া’
3.. লক্ষাধিক মুফতি আলেম-উলামার জঙ্গিবাদ বিরোধী ফতোয়া

মন্তব্য ৬ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (৬) মন্তব্য লিখুন

১| ২৫ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ২:০৭

নাহিদ০৯ বলেছেন: আমার জানা মতে জিহাদ আর যুদ্ধ এক জিনিস নয়। কোন খারাপ কিছু আমার সামনে আসলো, আমি সেটা থেকে বেঁচে থাকার জন্যে চেষ্টা করলাম, এটাই জিহাদ। রাস্তায় কোন মেয়ে দেখলাম, তারপর আমার চোখ কে নামিয়ে নিলাম, এটাই জিহাদ।

যুদ্ধ তো আরেক বিষয়।

২| ২৫ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ২:৫৬

রাজীব নুর বলেছেন: ব্লগে ব্লগে যে যার চিন্তা ভাবনা লিখে। লিখুক সমস্যা নাই।
কারো কোনো লেখা ভালো না থাকলে আপনি এড়িয়ে যাবেন অথবা তাকে তার ভুল ধরিয়ে দিবেন।

৩| ২৫ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৩:১৮

বাংলার মেলা বলেছেন: ইসলামের দৃষ্টিতে ১ নম্বর অপরাধ হল আল্লাহ্‌র সাথে কাউকে শরীক করা। দুই নম্বর অপরাধ হল মানুষ হত্যা করা। এখানে উল্লখ্য যে কেউ ১ নম্বর অপরাধ করেও ঈমান নবায়নের মাধ্যমে আল্লাহ্‌র কাছে মাফ পেতে পারে। দুই নম্বর অপরাধ করেও যদি অনুতপ্ত হয় এবং ইসলামী আইন অনুযায়ী শাস্তি ভোগ করে, তাহলে মাফ পেতে পারে। কিন্তু আত্মহত্যার ক্ষেত্রে সে তো তওবা করার সুযোগই পেলনা। তাহলে মাফ পাবে কি করে। এরকম ব্যক্তির তো জাহান্নাম ছাড়া আর কোন গন্তব্য হতেই পারেনা।

কোন এক যুদ্ধে এক সাহাবী যুদ্ধাহত হবার যন্ত্রণা সইতে না পেরে খাড়া হয়ে পড়ে থাকা একটা তরবারির উপর পড়ে গিয়ে নিজের জীবন দিয়ে দেন। রাসূল (স) এই ঘটনা শোনার সাথে সাথেই বললেন "ঐ ব্যক্তি নিঃসন্দেহে জাহান্নামী"

৪| ২৫ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:৩৬

ব্লগার_প্রান্ত বলেছেন: ব্লগে যে যার চিন্তা ভাবনা লিখে। লিখুক সমস্যা নাই।
কারো কোনো লেখা ভালো না থাকলে আপনি এড়িয়ে যাবেন অথবা তাকে তার ভুল ধরিয়ে দিবেন।

৫| ২৫ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৮:২৬

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: আল্লাহ্‌ সকলকে আত্মহত্যা থেকে হেফাযত করুক।আমীন।

জিহাদ বিষয়ে আমার একটি পোষ্ট আসবে রাত্রে।অগ্রীম জানিয়ে দিলাম।

৬| ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আপনাকে ধন্যবাদ দিতেই হয়। বাংলাদেশের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ইলমী প্রতিষ্ঠানের, সবচেয়ে প্রাজ্ঞ মুফতি সাহেবের এবিষয়ে ফতোয়া ছিল তাহা জানা ছিল না।

ইসলামে যাহাদের খাউজানী সেইসব পাঁঠাদের খাউজানী থামানোর উপায় নাই ! ইহাদের মগজ বিচিতে ঝোলে আর নাহয় বিচিই কাঁধে চড়িয়া মগজে সেঁধিয়া যায় ! বিচির বেদনায় থাকিতে না পারিয়া ব্লগে আসিয়া আবালীয় পোস্ট প্রসব করে !

ইহাদের পোস্ট বিষ্ঠা ছাড়া আর কিছু নয় ! বিষ্ঠা এড়াইয়া চলুন ভাইডি !

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.