নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি সেই দিন হব শান্ত....

বিদ্রোহী ভৃগু

সকল অনাচার আর অনিয়ম জাগায় দ্রোহ.....

বিদ্রোহী ভৃগু › বিস্তারিত পোস্টঃ

কে কথা বললো!!

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৪৫

টানা সতের দিন বিছানায়। পক্সের সংক্রমনে সারা দেহ প্রিন্টেড শাড়ীর মতো ফোসকায় ভরে ছিল। ডান থেকে বামে কাত হ্ওয়া যেত না। বাম থেকে ডানে যেতে গেলেও ব্যাথায় ত্রাহি চিৎকার! চরম ভোগান্তি শেষে উনারা বিদায় নিলেন। রেখে গেলেন গা ভরা চিকেন স্পট!তখন একটু একটু হাটাচলা করতে পারি


সেদিন সন্ধ্যা থেকে আকাশ কালো করে প্রচন্ড কালেবোশেখির ঘনঘটা। দমকা বাতাস ক্ষনে ক্ষনে। বাসা তখন গুলবাগে। সন্ধ্যার পর থেকেই বাতাসের তীব্রতা বাড়ছে। সবাই বেশ আগে ভাগেই খেয়ে দেয়ে শোয়ার আয়োজনে ব্যাস্ত। আমি একা একা টিভিতে চোখ রেখে বসে আছি আনমনে।

রাত সাড়ে দশটার ঘন্টাটা বেজে থেমেছে কেবল। টিভিটা বন্ধ করে আমি ধীরে ধীরে বারান্দায় এসে দাড়ালাম। একটু পর পর ঝড় পূর্ব শীতল বাতাসের হালকা দমকা ঝটকায় বেশ আরাম বোধ হচ্ছিল। রাস্তায় লোকচলাচলও কমে এসেছে। আশেপাশের বাসায়ও দু এক রুমে মিটমিটে আলো। অনেকদিন বিছানায় থাকায় পরিবেশটা দারুন এন্জয় করছিলাম।

হঠাৎ আমার বোনের কন্ঠ শুনে চমকে গেলাম। বেশ জোরে জোরে বলছে- এখানে দাড়িয়ে আছিস! মরার ভয় নাই? কিছু একটা হলেতো আমাদেরই কাঁদতে হবে।
আমার মনে হলো আম্মা বুঝি বাইরে দাড়িয়ে হাওয়া খাচ্ছে। আর বোন তাকে ঘরে নেবার জন্য এমন কথা বলছে। আমার খুব রাগ হলো। আমারও যেহেতু খুবই ভাললাগছিল বাতাস খেতে! মায়েরও ভাল লাগতেই পারে। রাগে বেশ দ্রুত হেটে গেলাম । বোনকে বকা দেব ভেবে। একটু বাইরে দাড়ালে কি অমন মহাক্ষতি হয়ে যাবে। যে মাকে অমন করে বকতে হবে?

অমা! বাইরের খোলা ঝুল বারান্দার দরজাটা বন্ধ। নেড়ে চেড়ে দেখলাম। নাহ। ছিটকিনি শক্ত করেই লাগানো। ঘুরে গেলাম ভেতরের রুমের দিকে। ভাইরা সব ঘুমিয়ে মশারীও টাইট করে গোঁজা। মায়ের রুমে গেলাম। মা বোন দুজনেই অঘোর ঘুমুচ্ছে। মশারী চেক করলাম- উঠা নামার কোন চিহ্ণ আছে কিনা? নাই!!! এবার সত্যি চমকে গেলাম। তাহলে কথা বললো কে? কাজের মেয়েটাকে ডেকে তুললাম। তোর খালা নানী কেউ বাইরে গেছিল? বললো- নাতো।

এবার আমার চমক বিস্ময়ে বদলে গেল। গা শিরশির করে উঠলো। স্পষ্ট শোনা। কথাগুলো পরিষ্কার। কোন দ্বিধা নেই। অথচ তারা ঘুমুচ্ছে। তাহলে কথা গুলো বললো কে?


# অতিপ্রাকৃত ঘটনা সিরিজ




মন্তব্য ৫৮ টি রেটিং +১০/-০

মন্তব্য (৫৮) মন্তব্য লিখুন

১| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৫৩

সাগর শরীফ বলেছেন: এখন পর্যন্ত সহীহ সালামত আছেন দেখে ভাল লাগল!

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৫৫

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হা হা হা

অনেক ধন্যবাদ।
হুম, তারা ছিল শুভাকাংখি! তাই সতর্ক করে দিয়েছিল মাত্র!

২| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:০০

সাগর শরীফ বলেছেন: আমার শুভাকাঙ্ক্ষীরা এসে ভয়ও দেয় না। ভাল মন্দ তো পরের কথা।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:০৬

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হা হা হা
হয়তো দেখাবে কোন একদিন ;)

৩| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:১৮

notekhaata বলেছেন: Click This Link

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:২৮

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: ধন্যবাদ

৪| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:২২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




বিদ্রোহী ভৃগু ভাই,
গল্প খুবই ভালো লেগেছে। এই গল্পের কোনো ব্যাখ্যা শুনতে চাইনা। থাকুক, ব্যাখ্যাহীন একটি গল্প মনের কোনো এক ছোট স্থানে যতনে।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৩১

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: দারুন বলেছেন ঠা.মা ভাই

থাকুক, ব্যাখ্যাহীন একটি গল্প মনের কোনো এক ছোট স্থানে যতনে।

অনেক অনেক ধন্যবাদ
শুভেচ্ছা রইল

৫| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:১৮

পদ্মপুকুর বলেছেন: আমারও এখন গা শিরশির করছে! ব্লগে ভুতের গল্প পড়তে পড়তে ওইদিন বাসায় রাতে হঠাৎ ইলেকট্রিসিটির ভোল্টেজ বেড়ে যাওয়াজনিত কারণে ফ্যানের গতি বাড়লে ভয়ে অস্থির হয়ে গিয়েছিলাম.... :(

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩৭

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হা হা হা

বলেন কি!
সব দোষ কাভা ভাইয়ের ;)

৬| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:২০

বিএম বরকতউল্লাহ বলেছেন: কথাগুেলা বলল কে তার রহস্য আমাকে বের করতেই হবে।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩৮

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: সত্যিই তাই।
বের করে ফেলুন প্রিয় ভায়া

রহস্যভেদের ফলের অপেক্ষায় - - -

৭| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৫২

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: এএএএ..... ভয় পাইলে নানান জিনিস ঘটে, ঘটে শরীর দূর্বল থাকলেও

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:০৭

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হা হা হা

ভয়তো আগে পাই নাই ;)

শরীর দুর্বল এইটা কইতে পারেন। যেহেতু দীর্ঘ রোগ ভোগের পরের ঘটনা!
তো কথা কইলটা কে? তাতো কইলেন না দাদা :)

৮| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:১৪

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: কথা কেউ বলেনাই গুরু, আপনার কান বেজেছে।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:২০

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হুম!!! কিন্তু এত লম্বা স্পষ্ট বাক্য?
হুটহাট শব্দ হলে হয়তো বোঝা যেত... স্পষ্ট কথা এবং বোনের কন্ঠ হুবহু ...
অথচ সে গভীর ঘুমে। কথা আর তাকে চেক করতে যাবার ব্যবধান সর্বোচ্চ ১০ সেকেন্ড। বাইরে থেকে দৌড়েও যদি ঘরে ঢুকে বিছানায় যায় ঐ সময়ে তা অসম্ভব। আর তখন চাদর উল্টেও চেক করেছি- দেখেছি, ঘুমটা গভীর ছিল।

দেখি, আর কি কি ব্যাখ্যা আসে! :)

৯| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:২৭

নেওয়াজ আলি বলেছেন: পড়তে মজাই লাগলো । একটুতো গা শির শির করবেই

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৩৬

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: সত্যি বিষয়টা পড়ে যখন বুঝলাম অস্বাভাবিক কিছু -দোয়া দরুদ পড়ে বুকে ফু দিয়ে শুয়েছিলাম।
বেশ অনেকক্ষন ঘুমাতে পারিনি!
:)

১০| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:৪৪

ইসিয়াক বলেছেন: অসাধারণ

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:৫৭

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: :)

১১| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৫

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় ঠাকুর মাহমুদ ভাইয়ের সঙ্গে আমিও এ কথা বলব জীবনের সবকিছু ব্যাখ্যা বা উত্তর মিলানোর দরকার নাই। পানসে জীবনের মাঝে এমন দু-একটি ঘটনা আমাদের চলার পথকে যে গতিশীল করে সে কথা বলা বাহুল্য।নিশ্চয়ই ঐ সময়ে পর আপনার মা ও বোনের প্রতি বাড়তি কেয়ারিং আপনাকে পরবর্তী বেশ কিছু দিন হৃদয়ে অব্যাহত ছিল।
গল্পে ভালোলাগা।
শুভেচ্ছা প্রিয় কবি ভাইকে।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩০

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ প্রিয় পদাতিক দা

হুম তাই থাকুক না হয়।
সেতো জনম জনমের অনুভব দাদা।

শুভেচ্ছা আর শুভকামনা অফুরান

১২| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:১৬

ঢুকিচেপা বলেছেন: “ কিছু একটা হলেতো আমাদেরই কাঁদতে হবে।”

পুরো গল্প পড়ার পর এখন তো আমারই ভয় লাগছে।
আপনি তো তাদের কেউ নন ? তা না হলে আপনার জন্য কাঁদতে যাবে কেন ?

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৫১

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হা হা হা

দারুন একখান কতা কয়েছেন।
সাবধান!
কবে আপনি লিখতে থাকবেন আর অনুভব করবেন পিছে খাড়াই আছি
হা হা হা হা

১৩| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৪৬

রাজীব নুর বলেছেন: এই ঘটনার ব্যাখ্যা আমার কাছে আছে।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৫২

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: তাই নাকি?

জলদি বলে ফেলুন!

১৪| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:৩৭

সোহানী বলেছেন: ভুতের সাথে কথোপকথন.....!!

যাউগ্গা ব্যাখ্যা দেয়া শুরু করলেতো কাভা ভাই রাগ করবে যে আমরা তোমাদেরকে শান্তিতেও একটু ভয় পেতে দিবো না ............... হাহাহাহা

আমারো ভুতের গল্প শুরু করা উচিত!!! দাড়াও দিচ্ছি.......

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৪৫

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হা হা হা

তা যা কয়েছো ;) ভূতের ভয়কে ব্যাখ্যাতীত রেখে চলো ভয়টাকেই এঞ্জয় করি :)

জলদি শুরু করো আজ রাত বােরাটা লাষ্ট টাইম!
এরপর কিন্তু ভুত গায়েব হয়ে যাবে। হাহা হা

১৫| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১২:৪৫

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:




বসন্ত রোগের মুল সমস্যা দেখা দেয় রোগ সেরে গেলে ।
তখন স্কুলে পড়ি । প্রিয় বন্ধুকে ধরেছে বসন্তে । খবর পেয়ে
দেখতে গেলাম তাকে । আলাদা ঘরে মশারী টানিয়ে তাকে
কোয়ারেসন্টাইন করে রেখেছে ।তাকে দেখে বল ভরসা দিয়ে
ফিরে এলাম ঘরে । ঘরে ফিরে প্রচন্ড শীত অনুভব করি
তখন বুঝিনি কেন অসময়ে এমন শীত করে । যাহোক
মাঝরাতে গায়ে প্রচন্ড ব্যথা অনুভবে আসে। পাশের
ঘরের কাওকে ডেকে কিছু বলিনি। সকালে ঘুম হতে
জেগে দেখি গায়ে ছোট গুটিসাথে ব্যথা, বাছ শুরু হলো
বন্ধুরমত দিবা নীশি মশারী তলে বাসে। দিন কয়েক
ভোগে ঔষধপত্র কিছু খেয়ে গায়ের গুটি শ কমে গেল
বটে। কিন্তু মহা দুর্ভোগ শুরু হল তার পরে ।গুটি শুকিয়ে
খুশকি যখন দেখা দিল তখন পারিবারিক আইন
জারী হলো, ঘর হতে বের হওয়া যাবেনা কোন
মতে । তাতে নাকি বাড়ীর সকলকে বসন্তে
ধরবে । এএক মহা জ্বালা , এমনিতেই দিন
সাতেক বিছানায়, এখন ভাল হয়েও যেতে
পারবনা ঘরের বাহিরে। দু:খ্যের কথা কারে কই ।
ছোট ফুফুকে মিন মিন করে বললাম ফুফু
দাওনা একটু সুযোগ ঘরের বাইরে যাওয়ার ।
ফুফু বললেন জানসনা তুই বসন্তের দেবী শীতলা
বিবি একহাতে ঝাড়ু আর হাতে পানির কলসি
নিয়ে ঘুরে বসন্ত রোগীর ঘরের চারপাশে ।

বসন্ত রোগী পুরাপুরি সুস্থ না হয়ে ঘর হতে
বের হলে ঝাড়ুর বাড়ী খাবে । একটু কান
পাতলে শুনবে সে বলছে মরার ভয় না
থাকলে ঘরে থাক চুপ করে ।
এমন কথাই নাকি চালু ছিল
এলাকা জুরে । তার কথায়
ভয় একটু পেছিলাম বটে
হালকা একটু তন্দ্রা এলে শুনেছি
তেমন কথা ষ্পষ্ট করে ।
জানিনা এর রহস্যটা কি।
আপনার মতই বলতে
ইচ্ছে করে কে কথা বললো!!

শুভেচ্ছা রইল ।




০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৪৯

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আরিব্বাস!

ভাইজান কি শুনাইলেন!!!
যাক ফাঁকে শীতলা দেবীর ফুটুক দেইখ্যা নিলাম।
একেবারে এই মিথ নিয়ে জানা ছিল না!
কিন্তু আপনের কাহিনীতেতো মনে মনে আবার ভুই লাগছে!
সে না হয় বুঝলাম ভয় দেখাতে বলে- কিন্তু তাই বলে কান্নার কথা কেনু বলবে? ;)
তাতে তার দু:খ পাবার সুযোগ আছে কি?

দারুন মন্তব্যে পোষ্ট পূর্নতা পেল। অনেক কিছূ জানা হলো।
অনেক অনেক শুভেচ্ছা আর শুভকামনা!

১৬| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১২:৫৫

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: তাই নাকি? জলদি বলে ফেলুন!

না ব্যখ্যা বলব না। শেষে দেখা যাবে সবাই নানান রকম সমস্যা নিয়ে আসবে। ব্যখ্যা চাইবে।

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৫১

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হা হা হা

নিরবতা জ্ঞানের লক্ষন। মূর্খের নিরবতাও কি তাই ;) হা হা হা

সবাই নানা সমস্যা নিয়া আসলে সমস্যা কি?
বসুন্ধরায় একমাত্র শাখা নিয়ে বসে পড়বেন! ইনকামো মন্দ হবে না মনে হয়!

১৭| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১:১১

ওমেরা বলেছেন: আরে ভাইয়া এখনো বুঝেন না ——- ওটা আমি ছিলাম মানে আমি কথা বলেছিলাম —— হা হা হি হি -

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৫২

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: যাক বাবা! বাঁচা গেল

এত বছর পর রহস্য ভেদ হলো ;)
হা হা হা

ঐ কথা বলেই বুঝি ভয়েই দেশ ছেড়ে চলে গেছিলেন।
আমি যাতে খুঁজে না পাই ;) হা হা হা

শুভেচ্ছা রইল

১৮| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৯:৫৪

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:
কে কথা বলল ?


আরে বাবা সে আর বলতে-তেনারা কথা বলেছেন। না বললে আমরা আজ এ গল্প শুনতুম কোথা থেকে।

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:১৫

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হা হা হা
তা যা কয়েচেন! তেনারা যে আর কেনু আসেন না। তাই ভাবচি বসে ;)

১৯| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:০৬

এ.এস বাশার বলেছেন: হ্যালোজিনেশন হতে পারে......গল্প ভালো লেগেছে.......ভাই।

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:১৭

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হুমম হয়তো, হতে পারে কত কিছূই...

কিন্তু আজো ভেবে পাইনা। এত স্পষ্ট, এত শব্দা পূর্ণ বাক্য কে বললো?

২০| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:২৭

এ.এস বাশার বলেছেন: কিছু প্রশ্নের উত্তর নিশ্চয় খুজে পাওয়া যায় না............

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:৩৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: সেটাই।

কত অমিমাংসীত ঘটনাইতো রয়েছে বিজ্ঞানও পারেনি কূল কিনারা করতে!
থাক কিছু রহস্য রহস্যে মোড়া . . . .

২১| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:২৫

নীল আকাশ বলেছেন: অবচেতন মনের খেলা হতে পারে। সাইকোলজিতে বলে কেউ যখন কারো কন্ঠস্বর খুব আশা করে শুনতে, তখন এই ধরণের বিভ্রান্তি তৈরি হতে পারে।
তবে হ্যাঁ, ভুতের গল্প হিসেবে জম্পেস হয়েছে।

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৫১

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: এটা গড়পরতা ব্যাখ্যা!

কারণ আমি তখন বাতাসটাই অনুভবে ব্যাস্ত। কোনভাবেই অন্য কিছু কামনা করছিলাম না।
বরং এর ফলে আমার আনন্দনাভুবে ব্যাঘাত ঘটেছে। নয় কি ?
যাই হোক।

জম্পেস অনুভব টুকু শেয়ারের কাম্য :)

ভাল থাকুন শুভেচ্ছা

২২| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:২৫

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: হা হা হা

নিরবতা জ্ঞানের লক্ষন। মূর্খের নিরবতাও কি তাই ;) হা হা হা

সবাই নানা সমস্যা নিয়া আসলে সমস্যা কি?
বসুন্ধরায় একমাত্র শাখা নিয়ে বসে পড়বেন! ইনকামো মন্দ হবে না মনে হয়!

আমি এভাবে ইনকাম করতে চাই না।

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৫৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: গুড চিন্তা ভাবনা!

আবার রিভার্স ভেবে দেখুন। আপনার নিস্ক্রিয়াতা কত কত লোক নানা সমস্যায় ভুগবে।
অথচ আপনি চাইলে আপনার ভাষ্যমতে তাদের পরিত্রান দিতে পারতেন।
এটা কি একসময় আপনার ভাবাকে পীড়া দেবে না?

২৩| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:১৫

মুক্তা নীল বলেছেন:
ভাই ,
চমৎকার করে লিখেছেন।
আমার মনে হয় অসুস্থ থাকাকালীন সময়ে অনেক খেয়ালে
ছিলেন মা ও বোনের । উনারা সারাক্ষণই আপনাকে এতটা
খেয়াল রাখতেন,তাই হয়তো আপনার এমনটা মনে হয়েছিল

অনেক আগে আমার যখন চিকেন পক্স হয়েছিল ,তখন
ঘুমের মাঝে দেখতাম আম্মা আমাকে দই এর শরবত
খাওয়ার জন্য ডাকছেন ।

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৪৯

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: বাহ। আপনার ভাবনাটা মন্দ নয়।

কিন্তু একটা কথা-
আপনার অনুভবতো ছিল স্বপ্নে। কিন্তু এতো পূর্ণ জাগ্রত অবস্থায় স্পষ্ট শোনা।
যাকে বলে পূর্ণ হুশ এবং চেতনায় . . .
তাইতো এত কনফিউশন . .

২৪| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:২৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: যে কোন গল্পে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ঘটনার সুন্দর বর্ননা পাঠককে আকৃষ্ট করে বেশি। এই যেমন বারান্দায় দাঁড়িয়ে ঝড়পুর্ব ক্ষনের বর্ননা ।খুব ভাল লাগলো

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৪

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ ঢাবিয়ান ভায়া :)

শুভেচ্ছা

২৫| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১১

মিরোরডডল বলেছেন:



এখানে দাড়িয়ে আছিস, মরার ভয় নাই? কিছু একটা হলেতো আমাদেরই কাঁদতে হবে

এ কথাটা তাহলে ভৃগুকে বলে নাই , বোন মাকে বলেছে কারন ভৃগু বলেছে

আমার মনে হলো আম্মা বুঝি বাইরে দাড়িয়ে হাওয়া খাচ্ছে আর বোন তাকে ঘরে নেবার জন্য এমন কথা বলছে

যদি তাই হয়, বোন মাকে কেনো এ কথা বলবে ? প্রথমত তুই করে বলছে আর দ্বিতীয়ত মা অসুস্থ না , তাহলে মরার ভয় নেই কেনো বলবে !

যদি ভৃগুকে বলতো তাহলে লজিক ছিলো ।

পাশের বাসার বারান্দায় হয়তো কেউ কারো সাথে কথা বলছিলো , মনে হয়েছিলো বোনের কথা ।
অথবা টিভি অন ছিল ওখানে শব্দটাই মনে হয়েছে পাশে কেউ কথা বললো ।

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২৫

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: বলেছে আমাকেই, কিন্তু কন্ঠস্বর বোনের থাকায় মনে হয়েছে যে বোন মাকে বলছে!

ঝড় বৃষ্টির আগে বাইরের পরিবেশ উত্তল থাকে এই শংকায় মনে হয়েছে মাকে এমন বলছে!
আর তুই করে বলা ছোটকাল থেকেই অভ্যাস ছিল! তুইতে বেশি আপন মনে হতো।

আগেই বলা হয়েছে ঝড়ের পূর্বাবস্থার কারণে সময়ের অনেক আগেই সব বাসারই লাইট নেভানো।
আর টিভি বন্ধ করে আসা হয়েছে তা্ও লেখা আছে।
আর আশে পাশের যে ফ্লাটের দূরত্ব মাঝখানে রাস্তার পর এতদূরের কথা এত স্পষ্ট শোনার কোন উপায় নাই
যেখানে ঝড়ো বাতাস ক্ষনে ক্ষনে বইছিল।

তাই রহস্যটা রহস্যই রয়ে গেল।

২৬| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৯

আখেনাটেন বলেছেন: সোজা উত্তর 'ভূত'?

বোন সেজে এসেছে ভয় দেখানোর জন্য। নিশ্চয় আগের দিন বিনা কারণে বোনকে বকা দিয়েছিলেন...সেজন্য... :D

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৫

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হা হা হা

দারুন বল্লেন। কত কিছুই অমীমাংসিত এ ভুবনে! ভাবে ক’জনে :)

শুভেচ্ছা রইল ভায়া

২৭| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫২

মিরোরডডল বলেছেন:



ঠিক আছে ভৃগুর প্রতিমন্তব্যে কনভিন্সড হলাম ।
তাই একটা প্রিয় গজল দিয়ে গেলাম ।


Aj peene de or peene de,
Kal karein gey Hisab ae saqi



[yt।jfk09j2uwYQ]




০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৭

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আমারও প্রিয় শিল্পী

অনেক অনেক ধন্যবাদ শেয়ারে
শুনছি...
বেশ লাগছে :)

২৮| ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৪

মিরোরডডল বলেছেন:

লিংকটা যায়নি, তাই আবার দিলাম

০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৭

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: থ্যাংকস এগেইন :)

২৯| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:২৪

নাসরিন ইসলাম বলেছেন: পক্স নিয়ে আমার ছোটবেলাতেও একটি মজার ঘটনা ঘটেছিল। ঈদের দিনে মা বুঝিয়ে শুনিয়ে মশারীর ভিতর শুইয়ে রেখেছিল। আমি মাকে জিজ্ঞেস করলাম, " ঈদ কবে?" মা বলল, " কয়েকদিন পরে।" কয়েকদিন পর মাকে আবার জিজ্ঞেস করলাম, " ঈদ কবে?"। এবার মা বলল, " ঈদের দিন তো তুমি সারাদিন ঘুমিয়েছ, তাই তুমি টের পাওনি।" কিন্তু আমি মনেই করতে পারিনি কোন দিন আমি সারাদিন ঘুমিয়েছিলাম।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.