নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ঢাবিয়ান

ঢাবিয়ান › বিস্তারিত পোস্টঃ

শহরকে পরিস্কার পরিছন্ন রাখার জন্য প্রয়োজন শুধু সরকারের একটু সদিচ্ছা

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৩১

ডেঙ্গু মহামারী আকার ধারন করার পর ঢাকা শহরের প্রধান যে চিত্র উঠে এসেছে তা হচ্ছে এই শহড় অত্যন্ত নোংরা একটি শহর। বৃষ্টির পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা এখানে নাই, ময়লা পড়ে থাকে যত্রতত্র। মানুষ যেখানে ইচ্ছা সেখানে ময়লা ফেলে। মোট কথায় পুরো শহরটাই একটা ডাস্টবিন।এমন শহরে রোগব্যাধিতো মহামারী আকার ধারন করবেই।

সিঙ্গাপুর খুব ছোট একটি পরিস্কার পরিছন্ন এবং গোছানো একটি শহর। এই শহরকে পরিস্কার পরিছন্ন রাখতে কি কি পদক্ষেপ নেয়া হয় তার কিছুটা এখানে তুলে ধরছি।











- প্রতিটি বিল্ডিং এর নীচে আছে বিরাট ডাস্টবিন যেখানে বাসা বাড়ীর ময়লা এসে জমা হয়। ক্লিনাররা সেই ডাস্টবিনের ময়লা বিশেষ গাড়ীতে করে প্রতিদিন ময়লা ডিসপোজাল এলাকায় গিয়ে ফেলে আসে।

- রেসিডেন্টশিয়াল এবং বিজনেস এলাকাগুলো প্রতিদিন বিশেষ যন্ত্রের সাহায্যে পরিস্কার করে থাকে ক্লিনাররা।

- ড্রেইনেজ সিস্টেম অত্যন্ত উন্নত এই দেশে। বৃষ্টি শেষ হবার পাচঁ মিনিট পর মনেই হয় না একটু আগেও এইখানে বৃষ্টি হয়েছে।

- এই শহড়ে কোন কাক এবং কুকুর নাই। এই দুই প্রানী পরিবেশ ময়লা করে থাকে বলে এদের বিনাশ করা হয়।

- মশা এবং অন্যান্য কীট পতঙ্গ এখানে দমন করার জন্য আছে পেস্ট কন্ট্রোল ডিপার্টমেন্ট।

-পুরো শহরময় প্রতি পাচঁ মিনিট হাটার দুরত্বে ঢাকনাসহ ডাস্টবিন স্থাপন করা আছে। ময়লা ডাস্টবিন ছাড়া অন্যত্র ফেলা দন্ডনীয় অপরাধ এখানে। শুধু ময়লাই নয়, থুথু ফেলাও দন্ডনীয় অপরাধ। এই জাতীয় অপরাধের শাস্তি হচ্ছে জড়িমানা এবং ক্লিনিং এর প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে একটি সেমিনারে অংশ নেয়া অতঃপর সারাদিন একটি এলাকার ক্লিনার হয়ে সেই এলাকা পরিস্কার করা

এই কাজগুলো আসলে এমন কঠিন কোন কাজ নয়। একটি রাস্ট্র চাইলেই এই উপায়ে প্রতিটি শহরকে পরিস্কার পরিছন্ন রাখতে পারে। শুনলে অবাক হবেন যে সিঙ্গাপুরে এই ক্লিনার জবটায় বাংলদেশীরা মুলত কাজ করে। ক্লিনিংএ অত্যন্ত দক্ষ এই দেশী ভাইরা আসলে আমাদের নিজের দেশটাকেও এক নিমেশে পরিবর্তন করে ফেলতে সক্ষম। প্রয়োজন শুধু একটু সরকারের সদিচ্ছা।


মন্তব্য ৩১ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৩১) মন্তব্য লিখুন

১| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৫৪

রাজীব নুর বলেছেন: শহড় নয়। শহর।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:২৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ । বানান ঠিক করে দিয়েছি

২| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:৫৪

নতুন বলেছেন: পরিস্কার পরিচ্ছন না থাকলে জরিমানা করা উচিত।

ঠিক মতন ব্যবস্তা নিলে অবশ্যই ঢাকাও পরিস্কার থাকবে।

আর জনগনকে নিয়মের মাঝে আনতে হয়।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৩৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: ঢাকাকে একটি পরিকল্পিত নগরীতে পরিনত করার মত যোগ্য বাংলাদেশীদের অভাব নাই। সমস্যা হচ্ছে ক্ষমতা চলে গেছে নষ্টদের দখলে।

৩| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১২:২১

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: শহরের এবং দেশের প্রতিটি নাগরিকের ই সদিচ্ছা থাকতে হবে।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৩৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: কঠিন আইন শৃংখলার মাঝে রাখলে জনগনের সদিচ্ছাটা আপনাতেই জন্ম নেয়।

৪| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৮

অন্তরা রহমান বলেছেন: সবার আগে সদিচ্ছার প্রয়োজন আর আমাদের কতৃপক্ষের মধ্যে সেটার নিদারুণ অভাব পরিলক্ষিত। :|

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৩৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: সেটাই। দেশের জন্য একবিন্দু পরিমান ভালবাসা নাই ক্ষমতায় থাকা মানুষগুলোর।

৫| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:০৩

নূর আলম হিরণ বলেছেন: পরিকল্পনা মাফিক আমাদের ড্রেনেজ সিস্টেম করা হয়নি। ড্রেনেজ সিস্টেমকে একবারে নতুন করে করতে হবে। ড্রেনেজে যে সমস্যা সবচেয়ে বেশি সেটা হচ্ছে ড্রেন ঢালু দিকে করতে হয়, শহরের অনেক ড্রেন উঁচু দিকে করা তাই বৃষ্টি হলে পানি সে দিকে দ্রুত গড়াতে পারেনা।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৪৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: আমাদের সমস্যা চতুর্মুখী। ড্রেনেজ সিস্টেমের ব্যপারে আপনি যেটা উল্লেখ করলেন সেটি একটি সমস্যা। আবার পানি যে গরিয়ে নদীতে যে যাবে, নদীগুলো কি নিয়মিত ড্রেজিং করা হয়? একটি শহড়কে মেইন্টেইন করার কোন ব্যবস্থাইতো নেয়া হয় না।

৬| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:৪১

ইসিয়াক বলেছেন: আমরা ভালো জিনিস গ্রহন করি কম। খারাপ জিনিস গ্রহণ করি বেশী।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৪৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: এই আমাদের মানুষ করতে প্রয়োজন কঠিন আইন শৃংখলা। খারাপকে গ্রহন করলে যদি শাস্তিভোগ করতে হয়, তবে খারাপ গ্রহন করার মানসিকতা আপনাতেই বদলে যায়। সিঙ্গাপুরে ড্রাগ সেবন ও পরিবহন এর একমাত্র শাস্তি মৃত্যূদন্ড। তাই এই দেশে কোন ড্রাগ নাই। তাহলে বোঝেন যে খারাপ মানসিকতা ও খারাপ কাজ কর্মকে কিভাবে প্রতিহত করা হয়।

৭| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:২০

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ । বানান ঠিক করে দিয়েছি

দ্রুত টাইপ করতে গিয়ে আমিও খুব বেশি বানান ভুল করি।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৫৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: হুম। এইবার পোস্টের বিষয়ে একটা মন্তব্য করুন ।

অট ঃ অনেকেই মাঝে মাঝে জানতে চান যে আমি কোথায় থাকি। আসলে ছদ্মনামে লিখি তাই ভাবি যে কি দরকার কোথায় থাকি এসব বলার। তবে আজ বলতে চাচ্ছি। আমি সিঙ্গাপুরে থাকি এবং আমি এই শহরের নাগরিক। :)

৮| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:২৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: সঠিক পরিকল্পনা, নৈতিকতা আর সদিচ্ছার অভাবই এর জন্য দায়ী। সরকার এলোমেলোভাবে লোক দেখানো কিছু কাজ করে আর ভাব করে অনেক কিছু করে ফেললো। দেশের মানুষকে এরা মনে করে 'ছাগল', আসলে নিজেরা যে 'রামছাগল' সেটাই এদের বুঝে আসে না।

সবই নিয়তি!!! :(

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:০০

ঢাবিয়ান বলেছেন: একমত আপনার সাথে । সঠিক পরিকল্পনা, নৈতিকতা আর সদিচ্ছার অভাবই এর জন্য দায়ী। একমত । অথচ যোগ্য ব্যক্তির অভাব নেই আমাদের।

৯| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:১৯

রাজীব নুর বলেছেন: ডেঙ্গু নির্মূলে মন্ত্রী-সচিব ও সরকারি শিল্পীদের ঝাড়ু দিয়ে রাস্তা পরিষ্কার করার দৃশ্যে আমাদের জ্ঞান আরও বাড়লো। আমরা জানতে পারলাম, দিনের বেলায় এডিস মশা রাস্তায় জমায়েত হয়ে মনুষ্যবিরোধী অবস্থান কর্মসূচি পালন করে।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:০৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: ফেসবুকে দারুন সমালোচনা চলছে। তবে শুধু সমালোচনা করে আসলে কোন লাভ নাই। দরকার সম্মিলিতভাবে জোড়ালো জনমত সৃষ্টি করে সিটি কর্পোরেশনকে বাধ্য করা কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে।

১০| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৮

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: স্বার্থপর মানুষগুলোর জন্য কিছুই সম্ভব নয় ঢাকায় :(

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:০৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: শুধু স্বার্থপর নয় অসম্ভব লোভী। দেশের জন্য তিল পরিমান মমতা নাই।

১১| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:০৮

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় ঢাবিয়ান ভাই,

অত্যন্ত সময়োপযোগী পোস্ট। ঠিকই তো শুধু নিয়ম করলেই হবে না; দরকার সচেতনতা, সদিচ্ছা। আমাদের মধ্যে চেতনার প্রসার ঘটুক।আমরা আরও একটু পরিবেশবান্ধব হওয়ার চেষ্টা করে সমাজকে ভয়ঙ্কর বিপদ থেকে রক্ষা করি।

শুভেচ্ছা নিয়েন।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:১১

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ দাদা। পরিবেশ বান্ধব হওয়াটা এখন সর্বত্র বড় প্রয়োজন।

১২| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৩৯

সুপারডুপার বলেছেন: শহরকে পরিস্কার পরিছন্ন রাখার জন্য সরকারের সদিচ্ছার চেয়ে দরকার মানুষের ইচ্ছা। বাংলাদেশিরা যা চিজ , ডাস্টবিন থাকলেও ডাস্টবিনে ময়লা ফেলে না। রাস্তা ঘাটে যেখানে সেখানে ময়লা ফেলতেই স্বাচ্ছন্দ অনুভব করে। বাসার ময়লাও চুপ করে রাস্তার উপর ফেলে যায়।

ডাস্টবিন তিন ধরণের হলে ভালো হয় : ১) সবুজ ( কাগজের জন্য) ২) হলুদ (প্লাস্টিকের জন্য) ৩) কালো (রান্নার ময়লা)
১ ও ২ যাবে রিসাইকেলে। ৩ যাবে জৈব সার হতে।

রাস্তাঘাট ও শহরকে পরিষ্কার রাখার জন্য দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের নিয়মিত ট্রেনিং দিতে হবে ও জনগণকে সতর্ক করতে হবে। সতর্ক না মানলে জরিমানা করতে হবে।

১৩| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৫৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: কোন দেশে বাস আপনার ? একেক দেশে আসলে একেক নিয়মে ময়লা নিস্কাশন করা হয়।

রাস্তাঘাট ও শহরকে পরিষ্কার রাখার জন্য দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের নিয়মিত ট্রেনিং দিতে হবে ও জনগণকে সতর্ক করতে হবে। সতর্ক না মানলে জরিমানা করতে হবে।পুরোপুরি একমত

১৪| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:০২

সুপারডুপার বলেছেন: কোন দেশে বাস আমার, এটা জানাতে চাচ্ছি না। হাঁ, একেক দেশে আসলে একেক নিয়মে ময়লা নিস্কাশন করা হয়।

১৫| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:০৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: কি সরকার? কে সরকার? কোন দেশের সরকার?

০৫ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৩৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: প্রশ্নগুলোর কোন জবাব নাই এখন আমাদের

১৬| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:১৬

সুপারডুপার বলেছেন: সামনে কুরবানীর ঈদে ময়লা নিস্কাশনে জনগণকে এখনই সতর্ক হতে হবে ও দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের এখনই সব স্টেপই নিতে হবে।
এটি একটি ভালো পোস্ট। লেখককে ধন্যবাদ।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪১

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ । ঢাকার যে অবস্থা তাতে এখন উচিৎ ছিল গনহারে বাসা বাড়ীতে কোরবানি দেয়া নিশিদ্ধ করা। কোন একটি ফার্মহাউজে গিয়ে কুরবানি দিয়ে আসতে হবে ,এরকম সিস্টেম করা উচিৎ। আর লোকদেখানো দুই তিনটা গরু কুরবানের প্রথাকে পুরোপুরি বিলুপ্ত করা উচিৎ। ধর্মীয় নিয়ম অনুসারে যতটুকু দেয়ার বিধান আছে সেটা শুধু পালন করার অনুমতি দেয়া উচিৎ।

১৭| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৯:২৫

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: ফেসবুকে দারুন সমালোচনা চলছে। তবে শুধু সমালোচনা করে আসলে কোন লাভ নাই। দরকার সম্মিলিতভাবে জোড়ালো জনমত সৃষ্টি করে সিটি কর্পোরেশনকে বাধ্য করা কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে।

শুধু সিটি করপোরেশন দিয়ে সম্ভব না। শহরের সমস্ত মানুষকে সচেতন হতে হবে।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: ঢাকা শহড়ের এক কোটি জনগনকে সচেতন করবেটা কে?

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.