নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ঢাবিয়ান

ঢাবিয়ান › বিস্তারিত পোস্টঃ

প্রশ্নবিদ্ধ বুয়েট প্রসাশন !!!

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১২:১৪



বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে (২১) পিটিয়ে হত্যার পর এখনও উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম ক্যাম্পাসে আসেননি। মুঠোফোনে কল দিলেও কল ধরছেন না তিনি।
দুপুর ১২ টার দিকে শিক্ষার্থীদের চাপের মুখে গণমাধ্যম কর্মীদের সামনে উপাচার্যকে মুঠোফোনে কল দেন প্রাধ্যক্ষ। তখন উপাচার্যের ব্যক্তিগত সহকারী (পিএস) কল রিসিভ করে উপাচার্য অসুস্থ বলে জানান। এজন্য তিনি ক্যাম্পাসে আসতে পারবেন না বলেও নিশ্চিত করেছে!!!



আবরার হত্যাকান্ডকে অনাকাংখিত মৃত্যূ হিসেবে অভিহিত করেছে বুয়েট প্রসাষন !!!



৬ ঘণ্টা ধরে নি'র্যাতন, এটা অবশ্যই পরিকল্পিত হ'ত্যাকাণ্ড : আবরারের বাবা।

ছাত্রলীগকে দোষারোপ করার আগে ছাত্রদের উচিৎ বুয়েট প্রসাষনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো। আবাসিক হলে একটি ছাত্রকে ছয় ঘন্টা ধরে নির্যাতন করার সময় কোথায় ছিল হল প্রভোস্ট বা হাউজ টিউটর? কেন বুয়েটের ভিসি তার প্রতিষ্ঠানে এক ছাত্রের মৃত্যূর পরও ক্যা্মপাসে অনুপস্থিত?

ছাত্রলীগের খুনীদের বিচার হবে কি হবে না তার দায়ভার আদালতের। কিন্ত বুয়েট প্রসাষনকে গাফিলতির জবাব দিতে বাধ্য করা উচিৎ ছাত্রদের। বুয়েটের আবাসিক হলে এই হত্যাকান্ডের দায়ভার পুরোপুরি বুয়েটের। হলের হাউজ টিউটর, প্রভোস্ট , ভিসি সবাইকে জিজ্ঞাসাবাদের আওতায় আনা উচিৎ।এদের প্রত্যেকের দ্বায়িত্বে অবহেলার কারনে মেধাবী একটি ছেলেকে এরকম নিশৃংষভাবে প্রান দিতে হল।

মন্তব্য ৪০ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (৪০) মন্তব্য লিখুন

১| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১২:৫৪

রায়হান চৌঃ বলেছেন: আমার তো মনে হয় না প্রফেসর সাইফুল ইসলাম সাহেব কুকুর পুষেন

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:০৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: ??

২| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:০০

রাজীব নুর বলেছেন: বিশ্বজিতের ঘটনা মনে পড়ে যায়। সেই সময় যদি কঠিন বিচার হতো, তাহলে আজ হয়তো এরকম ঘটনা নাও ঘটতে পারতো।

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:১০

ঢাবিয়ান বলেছেন: এই দেশে এখন কারো জীবনের একবিন্দু নিরাপত্তা নাই। যে যার অবস্থান থেকে যার যার সম্পর্কিত সিস্টেমের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানোর সময় এসেছে। দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের যদি দ্বায়িত্ব পালন করা সম্ভব নাই হয়, তাহলে দ্বায়িত্ব ছেড়ে দিতে বাধ্য করা উচিৎ।

৩| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:০৯

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: সহমত। ক্যাম্পাসের ভিতর, হলে কিছু ছাত্রের ৬ ঘন্টা ধরে চলা নির্যাতনে একজন ছাত্র মারা গেছে। এর দায় হল প্রশাসনকে নিতে হবে।

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:২৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: দেশের সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই যদি এই অবস্থা হয়, বাকিগুলোর কথাতো ভাবাই যায় না

৪| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:১৬

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: একটি প্রশ্ন করতে চাই - বুয়েট কি কাশ্মীর বাঁচাও / কাশ্মীর ঠেকাও প্রতিষ্ঠান?

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:৪৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: ঠিক বুঝলাম না কি বলতে চাইলেন

৫| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:১৭

করুণাধারা বলেছেন: এখনো "প্রশ্নবিদ্ধ" বলে মনে হচ্ছে!! খুনি মুখের হাসি দেখুন, এমন হাসি কি করে আসে, যদি না প্রশাসন থেকে প্রত্যক্ষ মদদ দেওয়া হয়? ভিসি, অন্যান্য সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিদের মতই মেরুদণ্ডহীনতা অসততা এই সমস্ত যোগ্যতার বলে বুয়েটে নিয়োগ পেয়েছেন সুতরাং তিনি কিছু করবেন না জানা কথা। প্রশাসন তার কথা মতই চলছে।

বুয়েটের এই অসৎ প্রশাসন নিয়ে আমার একটা পোস্ট ছিল। সেটার লিংক এখানে দিতে গিয়ে দেখলাম, সেখানে আপনি কমেন্ট করেছেন। সুতরাং সেটা আর দিলাম না। বুয়েটের ছাত্ররা কেন আন্দোলন করতে পারছে না, সেটাও সেই পোস্টে দেয়া আছে। আমার মনে হয়, এই নষ্ট বুয়েটকে বন্ধ করে দেবার এখনই উপযুক্ত সময়।

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:৫১

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপনাদের ক্ষোভ বুঝতে অসুবিধা হয় না আপু। ভিসি পদগুলো সব এখন মানুষের মুখোশধারী জানোয়ারদের দখলে।

৬| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:১৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: হেডলাইন - প্রশাসন।
ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করা হবে না। - একটি কাউন্টার পোষ্ট আমার পোষ্টটি পড়ার জন্য অনুরোধ করছি।

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:৫৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: পড়ব পোস্টটা।

৭| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:২৬

রায়হান চৌঃ বলেছেন: করুণাধারা- "আমার মনে হয়, এই নষ্ট বুয়েটকে বন্ধ করে দেবার এখনই উপযুক্ত সময়", ভাই আপনার এই কথা টা যদি মেনে নিতে হয় তবে এ দেশের সেকেন্ডারী স্কুল হতে শুরু করে কলেজ, ইউনির্ভসসিটি সব বন্ধ করে দিতে হবে। আসলেই কি তাই চাচ্ছেন ?

৮| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:২৯

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: এই দেশে এখন কারো জীবনের একবিন্দু নিরাপত্তা নাই। যে যার অবস্থান থেকে যার যার সম্পর্কিত সিস্টেমের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানোর সময় এসেছে। দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের যদি দ্বায়িত্ব পালন করা সম্ভব নাই হয়, তাহলে দ্বায়িত্ব ছেড়ে দিতে বাধ্য করা উচিৎ।

রাজনীতিবিদ আর অসৎ উপায়ে ধনী হওয়া লোকদের জীবনের নিরাপত্তা আছে।

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:৫৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: রাজনীতিবিদ আর অসৎ উপায়ে ধনী হওয়া লোকদের জীবনের নিরাপত্তাতো থাকবেই।কেন থাকে সেই প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়েইতো প্রান দিতে হল আবরারকে।

৯| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:৩০

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: ছাত্রলীগকে সবাই এত ভয় পায় যে অবস্থা কতটা ভয়াবহ, একজনকে রুম থেকে ডেকে নিয়ে গেল ছাত্রলীগ। আর তার রুমমেট, বন্ধু, আশে পাশের রুমের কেউ প্রতিবাদ করল না। অথচ এই তরুণ রক্তগুলো একটা পকেটমার ধরা পড়লে কী উৎসাহ নিয়ে মাইর দেয়(সবাই না), এই তরুণরা বাসের কন্ডাক্টরের কাছে ৫ টাকার হাফ ভাড়ার জন্য প্রতিবাদ করে (সবাই না), এই তরুণরা গাউছিয়া, নিউমার্কেটে কোন বন্ধুর সাথে কেউ খারাপ আচরণ করলে মার্কেট অচল করে দেয়...

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৩:০২

ঢাবিয়ান বলেছেন: রুমমেটরা প্রতিবাদ কিভাবে করবে? তাদের কি জানের মায়া নেই? হলে রাজনৈতিক দলের ক্যডাররা কি ধরনের ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে রাখে সে সম্পর্কে আপনার সম্ভবত কোন ধারনা নেই।

১০| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:৪৩

করুণাধারা বলেছেন: @ রায়হান চৌঃ, এটা আমার রাগের কথা। খুব প্রিয়, খুব পছন্দের কিছু যখন খারাপ হয়ে যায়, তখন প্রচন্ড রাগ আর মন খারাপ হয়। এখন আমার তেমন অবস্থা।

১১| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:৫৭

রায়হান চৌঃ বলেছেন: করুণাধারা- জ্বী আমারো খুব রাগ হয়, রাগের চোট মন চায় ৩০০ টা পাছায় কষে ২/৪ ঘা লাথি মার। আপসুস.......... আমার দ্বারা হয়ে ওঠনা।

১২| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৩:০০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: বুয়েট কি ফেনী নদী-কাশ্মীর বাঁচাও / ঠেকাও সহ ভারত প্রেম ভারতবিদ্ধেষ প্রতিষ্ঠান?

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৩:১৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: বিশ্ববিদ্যালয় লেভেলে যারা পড়াশোনা করে তারা এই দেশের সচেতন তরুন প্রজন্ম যারা দেশকে ভালবাসে, দেশকে আর দশটা উন্নত দেশের মত করে দেখতে চায়। শিক্ষা তাদেরকে শিখিয়েছে ভালকে ভাল বলতে আর মন্দকে মন্দ। তরুনদের এই ধ্যান ধারনা ও মতামতকে যারা উদ্দেশ্যমূলক অকারন রাজনৈতিক খোলস পড়াতে চায় তারাই মুলত বিশেষ এক রাজনৈতিক দলের অংশ।

১৩| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৩:১৯

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: তারপরও দেখবেন একটা বিচি বিহীন ভিসি-ও ক্যাম্পাস রাজনীতি নিষিদ্ধের কথা বলবে না...

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৩:৩৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করার ক্ষমতা ভিসির হাতে নাই। কিন্ত মেরুদন্ড থাকলে এই মুহুর্তে ছাত্রদের কাছে ক্ষমা চেয়ে পদত্যাগ করত।

১৪| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫০

চাঁদগাজী বলেছেন:



ছাত্র রাজনীতিতে যুক্ত ছাত্ররা ভিসি'কে কেয়ার করে না।

১৫| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:৪৭

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: প্রশ্ন তুললে তো অনেকের উপরই তোলা যায়। সব আকামের মূলে ঢাবি।


* ১৯৭১ এ ছাত্র রাজনীতি সহ সকল প্রকার রাজনীতির সঙ্গে যারা জড়িত ছিলেন তারমধ্যে একজনও যুদ্ধে যাননি।"
এই লাইনের উপর আপনার মন্তব্য কী?

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১১

ঢাবিয়ান বলেছেন: আমার অবস্থান বরাবরই ছাত্র রাজনীতির বিরুদ্ধে। আমাদের সময়ের আরো বহু আগে থেকেই কুৎসিত রাজনৈতিক দলভিত্তিক ছাত্র রাজনীতির প্রচলন শুরু হয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে। সত্যি বলতে গেলে আসলে বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা পড়তে যায়, তাদের মধ্যে খুবই অল্প সংখ্যক শিক্ষার্থী এই দল ভিত্তিক রাজনীতিতে জড়ায়। ছাত্রলীগ, ছাত্রদল যাই বলেন এই সব সংগঠনের বেশীরভাগই মুলত বহিরাগত।

১৯৭১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যে রাজনীতির প্রচলন ছিল তা যতটুকু মুরুব্বিদের মুখে শুনেছি তা বাংলাদেশ পিরিয়ডের মত কলুশিত রাজনীতি ছিল না।সেই আমলের রাজনীতিতে দেশপ্রেম ছিল, সততা ছিল।

১৯৭১ এ ছাত্র রাজনীতি সহ সকল প্রকার রাজনীতির সঙ্গে যারা জড়িত ছিলেন তারমধ্যে একজনও যুদ্ধে যাননি।" এ সম্পর্কে সে সময়কার মানুষেরাই ভাল বলতে পারবে।

১৬| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৩৯

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: ছাত্রলীগকে নিষিদ্ধ করা দরকার সবার আগে। এটা এখন শিবিরের চেয়েও বেশি খারাপ হয়ে গেছে।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:১৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: সমস্যা এখন শুধু আর ছাত্রলীগ নয়, তারচাইতেও অনেক বেশি ভয়ঙ্কর।

১৭| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৮:৩১

নতুন বলেছেন: একটা কল কি কেউ করেছিলো ৯৯৯ নম্বরে? আমার মনে হয় না।

প্রতিবাদ করার সাহস হারিয়ে ফেলছি আমরা। :(

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:২০

ঢাবিয়ান বলেছেন: প্রথম আলোতে এসেছে যে পুলিশকে খবর দেয়া হয়েছিল কিন্ত পুলিশকে হলের ভেতরে ঢুকতে দেয়নি ছাত্রলীগ। পুলিশকে অভ্যর্থনা কক্ষে বসিয়ে রাখা হয়েছিল।

১৮| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৮:৩৮

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় ঢাবিয়ান ভাই,

বিষয়টা নিয়ে নতুন করে আর কিছু বলার নেই। অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক, লজ্জাজনক এবং এবং হতাশাজনক ঘটনা। পোস্টের সঙ্গে সহমত জ্ঞাপন করছে।
পাশাপাশি কয়েকটি টাইপো চোখে পড়লো। হেডলাইনে প্রশাসন এবং একেবারে শেষে নৃশংস ও প্রাণ বানানে টাইপো আছে।
প্লীজ ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:২১

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ আপনার কমেন্টের জন্য।

১৯| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:১৩

বলেছেন: প্রসাষন নাকি প্রশাসন

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:২২

ঢাবিয়ান বলেছেন: সংশোধন করেছি। ধন্যবাদ

২০| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:৫৭

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: @@ লেখকবলেছেন: ১৯৭১ এ ছাত্র রাজনীতি সহ সকল প্রকার রাজনীতির সঙ্গে যারা জড়িত ছিলেন তারমধ্যে একজনও যুদ্ধে যাননি।" এ সম্পর্কে সে সময়কার মানুষেরাই ভাল বলতে পারবে।

হাসি পাচ্ছে ঢাবি। ইতিহাস না জানলে সমস্যা আর মিথ্যাচার করলে আরো সমস্যা।
৭১এ রাজনীতিবিদরা যুদ্ধ না করলে মুজিব বাহিনীতে ছিল কারা? ছাত্রইউনিয়নের শত শত ছেলে যুদ্ধ করেছে।


পুনশ্চঃ ব্লগের এক বুড়ো এসব নিয়ে মিথ্যাচার করছিল। আপনাকে টেস্ট করার জন্য প্রশ্নটা করেছিলাম। :D

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:২৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: এই দেশের ইতিহাসবিদেরা যার যার চাহিদামাফিক ইতিহাস বানায়।

২১| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৩:৩৩

মোস্তফা কামাল পলাশ বলেছেন:
সারাজীবন শুনে আসলাম বাবা-মায়ের পরেরই সম্মানিত মানুষ হলো শিক্ষক। শিক্ষকরাও ছাত্র-ছাত্রীদের ছেলে-মেয়ে হিসাবে গন্য করে। আমার শাবিপ্রবির পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের একাধিক শিক্ষক-শিক্ষিকার সাথে কথা বলতে গেলে ছাত্র-ছাত্রীদের বাবা-মা বলে সম্বোধন করে। বুয়েটের বর্তমান ভিসি দেশের মানুষের সামনে নতুন এক উদাহারণ রাখলেন নিজের বিশ্ববিদ্যালয়ের, নিজের বিভাগের ছাত্রের মৃত্যুর পরেও তার জানাযায় উপস্হিত না হয়ে; নিহত ছাত্রের বাবার সাথে দেখা করে সান্তনা না দিয়ে।

ব্লগার @মা.হাসানের উক্তিটাই কোট করছি

"ঢাবির চপ সিঙ্গাড়া বিচি, রাবির জয় হিন্দ বিচি, জাবির ঘরে ঘরে ঈদ সালামি পৌঁছানো বিচি, বশেমুরবিপ্রবির তিনদিনের বাছুর বিচি, বুয়েটের অসুস্থ বিচি ---এই সমস্ত বিচি নিয়োগের মাধ্যমে সরকার দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে যে উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছে তা অন্য কোন সরকারের জন্য অতিক্রম করা খুব কঠিন হবে।"

সরকার এতগুলো অ-মানুষকে খুজে পেলো কিভাবে?


০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: অমানুষের দল সব লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে বিক্রি হবার অপেক্ষায়। খুজে পাওয়া এমন আর কঠিন কি! মুখোশধারী সব জানোয়ারের সাথে আমাদের বসবাস।

২২| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৩:০৭

নীল আকাশ বলেছেন: দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের যদি দ্বায়িত্ব পালন করা সম্ভব নাই হয়, তাহলে দ্বায়িত্ব ছেড়ে দিতে পারলে দেশ অনেক আগেই বেচে যেত রে ভাই। এরা ক্ষমতা জন্য এতই বেহেয়া লোভি যে এদের জোর করে তাড়িয়ে না দিলে ক্ষমতা ছাড়বে না।
সুন্দর লিখেছেন। ছাত্রলীগ এখন দেশ একটা বিরাট বিষবাষ্প।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপনি একটা পোস্ট দেন। বুয়েটের ঘটনা যেহেতু,আপনি ও ব্লগার করুনাধারা আপুর কাছ থেকে একটা পোস্ট আমরা আশা করছি।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.