নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ঢাবিয়ান

ঢাবিয়ান › বিস্তারিত পোস্টঃ

ছবি ব্লগ - বাংলার গ্রাম

০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ দুপুর ১:১২

দুই সপ্তাহের ছুটিতে ডিসেম্বরে বেড়াতে গিয়েছিলাম দেশে। ব্লগে ছবি আপুর গ্রামের অসাধারন সব ছবি দেখে পন করেছিলাম যে এবার একটা গ্রামে বেড়াতে যাব। এক নিকট আত্মীয় প্রস্তাব দিলেন তার গ্রামের বাড়ীতে বেড়াতে যাবার। ঢাকার বেশ কাছেই উনার গ্রামের বাড়ী। গ্রামে উনার কেউ থাকেন না।তবে সেই আত্মীয় অত্যন্ত শৌখিন মানুষ। গ্রামে তিনি ছোট্ট একটি একতালা বাড়ী বানিয়েছেন। বাসার সামনে সবজি বাগান করেছেন, পুকুরে মাছের পোনা ছেড়েছেন।প্রায়ই পরিবার নিয়ে তিনি সেখানে ছুটি কাটাতে যান। এমন একটা জায়গায় বেড়াতে যাওয়ার আমন্ত্রন পাওয়া আমার জন্য ছিল ''মেঘ না চাইতেই জল''। আত্মীয় স্বজন মিলে প্রায় পঞ্চাশ জনের একটা পিকনিকের আয়োজন করা হল। বাস ভাড়া করে খুব ভোরে রওনা দলাম সেই ছায়া সুনীবির শান্তির গাঁয়ে। ভোরে ট্রাফিক জ্যাম তেমন একটা না থাকায় মাত্র দুই ঘন্টাতেই পৌছে গেলাম গন্তব্যে। খুবই ছোট্ট সাজানো গোছানো একটা গ্রাম।গ্রামের মানুষগুলোও খুব সহজ সরল।

চারিদিকে যেদিকে তাকাই সেদিকেই শুধু সবুজের সমারোহ। শহরে বড় হওয়া বাচ্চারা , এরকম খোলামেলা সবুজ পরিবেশে কলকাকলিতে মেতে উঠেছিল। ছোটদের সাথে বড়রাও মেতে উঠেছিল মাছ ধরতে এবং সবজি ক্ষেত থেকে সবজি তুলতে। মাটির চুলায় রান্না বসানো হয়েছিল গাঁয়ের মুরগি ও পুকুর থেকে তুলে আনা মাছ। ক্ষেত থেকে তুলে আনা সবজি দিয়ে বানানো হয়েছিল কয়েক পদ ভর্তা ও ভাজি । আত্মীয়ের বাড়ি দেখাশোনা করা কেয়ারটেকার আগেই বানিয়ে রেখেছিল ছিটা রুটি , ভাপা ও পুলি পিঠা। গ্রাম্য পরিবেশে বসে সে সব খাবার মুখে ঠেেকেছিল অমৃতের মত।

চমৎকার দিনটি কেটে গিয়ে যখন সন্ধ্যা নেমে আসে, তখন মনে হয়েছিল বড্ড ছোট ছিল দিনটি। আমার মোবাইল ক্যামেরায় তোলা অল্প কিছু ছবি সেই ছোট্ট সুন্দর গায়ের।


লাউ, কুমড়র মাচা


পালং শাক, ধনিয়া পাতা, বেগুন, ঢেড়স এর ক্ষেত


সবজি ছাড়াও আছে বিভিন্ন ফলের গাছ


শিমের ফুল


একপাশে শীতকালীন ফুলের বাগানও করা হয়েছে

বাশ ঝাড়


ছোট্ট ডোবা শেওলা জমে পরিনত হয়েছে সবুজের গালিচায়




মাটির চুলায় রান্না হচ্ছে দেশি মোরগের ঝোল যার স্বাদ ও গন্ধ ছিল তুলনাবীহিন।


মাঝি ভাই পালা করে সবাইকে চড়িয়েছে তার নায়ে। ঘন সবুজের মাঝে সে নৌকাভ্রমন ছিল দারুন রোমাঞ্চকর।


চলছে মাছ ধরা

মন্তব্য ৩৫ টি রেটিং +৮/-০

মন্তব্য (৩৫) মন্তব্য লিখুন

১| ০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৩:১৬

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
ছবিগুলো চমৎকার! সবগুলোই স্পষ্ট ও সুন্দর হয়েছে।
আপনাদের গ্রামটাও সুন্দর।

০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ। গ্রামটা আসলে আমার নয়, এক নিকট আত্মীয়ের। আসলেই খুবই সুন্দর গ্রামটা।

২| ০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৪:১৩

মিরোরডডল বলেছেন: আপনার লেখাটা ইন আ ওয়ার্ড অসাধারণ !!!

মাটির চুলার রান্নার একটা অন্যরকম ঘ্রান থাকে যেটা খুবই ভালো লাগে ।
আমি ছোটবেলায় বাবার সাথে গ্রামে বেড়াতে যেতাম । সেই সময়ের কথা মনে পরে ।
ভোরবেলায় শীতের পিঠা ।
খুব সুন্দর গ্রাম ।

০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনার সুন্দর কমেন্টের জন্য।আসলেই মাটির চুলার রান্নার একটা অন্যরকম ঘ্রান থাকে যেটা খুবই ভালো লাগে।তাছাড়া মাছ, মুরগী ,শাক সবজি সবই অত্যন্ত ফ্রেশ।

৩| ০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:১৫

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: পোস্টে ভালোলাগা।
নববর্ষের প্রীতি ও শুভেচ্ছা প্রিয় ঢাবিয়ান ভাইকে।

০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপনাকেও নববর্ষের প্রীতি ও শুভেচ্ছা। কোলকাতায় যাবার ইচ্ছে ছিল এবার। তবে ডিসেম্বরের শীতে একেবারে কাবু হয়ে যাওয়ায় সেই প্ল্যান বাতিল করেছি।

৪| ০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৪৭

শের শায়রী বলেছেন: গ্রাম আমার সব সময়ই প্রিয়। ছবিতে ভালো লাগা।

০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫০

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ। আমাদের দেশের গ্রামগুলো আসলেই অনেক অনেক সুন্দর। শহুড়ে মানুষ আজকাল দেখলাম গ্রামের দিকে ঝুকছে।

৫| ০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:০৬

মলাসইলমুইনা বলেছেন: ঢাবিয়ান,
ব্লগে একজন "ছবি আপু" ছিল এখন একজন "ছবি ভাইয়াও" হলো তাহলে !
গ্রামের ফটোগুলো সবই সুন্দর এসেছে । বিশেষ করে ভালো লাগলো শাকসবজির গাছগুলোর ফটো দেখে। খুব সুন্দর শাক সবজি হয়েছে মনে হচ্ছে । এইসব জায়গায় কি কমার্শিয়াল বেসিসে শাকসবজির চাষ হয় নাকি ?মোরগটা খেয়েই এসেছেন বলে কিছু বলা গেলো না । রান্না করা অবস্থায় এই ফটো ব্লগ করলে "হেই ভগবান একটা পোকা যাস পেতে ওর ঢুকে " বলে ওঠার কঠিন অসম্ভাবনা ছিল । ভাবছিলাম অনেক দিন আপনি নেই কেন ব্লগে ? যাক দেশ বেড়িয়ে এলেন জেনে ভালো লাগলো । ভালো লাগলো "ছবি ভাইয়ের" ছবি ব্লগ । নববর্ষের শুভেচ্ছা ।

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৪২

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ আপনার সুন্দর কমেন্টের জন্য। দেশী মোরগের ঝোল ছিল সেই রকম :), গ্রামটা ছোোট। কমার্শিয়াল বেসিসে করা শব্জি ক্ষেত চোখে পড়েনি।

৬| ০৩ রা জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:১৪

সাইন বোর্ড বলেছেন: শুভ কামনা রইল, ছবিতে ভাল লাগল আপনার গ্রাম ।

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৪৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ

৭| ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০২০ সকাল ৭:৩৮

সোহানী বলেছেন: আহ্ কি অসাধারন সব দৃশ্য...। আর ওই মুরগীর মাংস খেয়ে নির্ঘাৎ পেটে পিড়া হবে....হাহাহা

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৪৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: হা হা হা ওই মুরগীর মাংস খেয়ে পেটে পিড়াা হয়নিি তবে বিয়ে বাড়ীর কাচ্চি খেয়ে পরে বদহজম হয়েছে :)

৮| ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০২০ সকাল ৯:৩০

চাঁদগাজী বলেছেন:


কোন জেলায়?

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৪৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: মানিকগঞ্জ

৯| ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০২০ সকাল ৯:৩৫

জুন বলেছেন: ঢাবিয়ান ছবি দেখে আর বর্ননা শুনে মনে হলো গ্রামটি আমাদের দেশের দিকেই মানে বান্দুরা বা নবাবগঞ্জ। জানি না তবে মনে হলো আর কি। আর শ্যাওলা ঢাকা ডোবার প্রথম ছবিটিতে একটা মাছরাংগা বসে ঢুলছে কি?
ভালো লাগা রইলো অনেক।
+

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৫২

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপু মানিকগঞ্জের একটি গ্রাম।মাছরাংগাটা তখন চোখে পড়েনি,এখন পড়ল। আসলেই চোখ ও মন জুড়িয়ে যাওয়ার মত একটি জায়গা ।

১০| ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০২০ সকাল ৯:৫১

নীল আকাশ বলেছেন: মাটির টান অনেক বড় টান। সবাই সেটা অনুভব করতে পারে না ।
ছবিগুলো স্পষ্ট ও সুন্দর এবং চমৎকার লেগেছে।
অনেক দিন আপনাকে ব্লগে মিস করেছি। ভাবছিলাম কোথায় গেলেন আপনি?
দেরি করে হলেও শুভ নব বর্ষ এর শুভেচ্ছা রইলো।

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৫৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ আপনার সুন্দর কমেন্টের জন্য নীলআকাাশ ।কোথায় আর যাব! ছিলাম আপনাদের ধারে কাছেই :) আপনাকেও নব বর্ষ এর শুভেচ্ছা।

১১| ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০২০ সকাল ৯:৫২

রাজীব নুর বলেছেন: ছবি গুলো দেখে মনে হলো- গ্রাম থেকে যেন ঘুরে এলাম।

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৫৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাাদ রাজীব নুর।

১২| ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০২০ দুপুর ১২:৩৩

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রতিমন্তব্যে আবার আসা প্রিয় ঢাবিয়ান ভাই। শীতের ভয়ে যেহেতু ডিসেম্বর এলেন না, পরে নিশ্চয়ই সময়-সুযোগমতো আসবেন আশা করি। আপনার আগমনের অপেক্ষায় রইলাম....

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:০৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: যাবার ইচ্ছে আছে শতভাগ :) দেখা যাক কবে আবার সুযোগ হয়

১৩| ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০২০ দুপুর ১:৪৭

করুণাধারা বলেছেন: চমৎকার সব ছবি! আমারও খুব গ্রামে যাওয়ার ইচ্ছা, কিন্তু সুযোগ হয় না। এখন আপনার সাথে সাথে চমৎকার গ্রামটি ঘুরে দেখা হয়ে গেল!!

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:০৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপু, সময় সুযোগ করে ঘুরে আসুন কাছাকাছি কোন গ্রামে। শরীর মন দুটোই তরতাজা হয়ে যাবেে নিঃসন্দেহে

১৪| ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:৫৩

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: এমন গ্রামের ছবি দেখলে মনটা আর ঘরে থাকতে চায় না........ভালোলাগা জানিয়ে গেলাম ভাই।

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:০৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাাদ।আসলেই এমন গ্রামের ছবি দেখলে মনটা আর ঘরে থাকতে চায় না....

১৫| ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৫১

এস এ মেহেদী বলেছেন: ভালো লাগলো

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:০৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাাদ।

১৬| ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:১০

হাবিব স্যার বলেছেন: রান্না দেখে জিবে জল আসার উপক্রম

০৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:১১

ঢাবিয়ান বলেছেন: আসলেই গ্রামের খাবার দাবারের স্বাদই অন্য্যরকম।

১৭| ০৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৭

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: শুভেচ্চা জানবেন ভাই

০৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপনাকেও শুভেচ্ছা

১৮| ০৯ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:৫৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিগুরু'র ভাষায়- "ছায়া সুনিবিড়, শান্তির নীড়, ছোট ছোট গ্রামগুলি"...... এমনই একটি গ্রামে আপনার ভ্রমনের ছবিব্লগ দেখে চোখ জুড়িয়ে গেল, এবং আমার নিজের গ্রামের ছবি ভেসে উঠলো।
লাউ কুমড়ো গাছের ছবি, শ্যাওলা ঢাকা পুকুরের ছবি (জুন এর তীক্ষ্ণ দৃষ্টি এড়াতে না পারা মাছরাঙাটি সহ), বাচ্চাদের বড়শি ফেলে অপেক্ষার ছবি এবং সর্বোপরি মাটির উনুনে ছোট আলু দিয়ে মুরগীর গোস্ত রান্নার ছবি আমাকে যেন কিছুক্ষণের জন্য শৈশবে ফিরিয়ে নিয়ে গেল!
নস্টালজিক এ পোস্টে অষ্টম প্লাসটি রেখে গেলুম।
আচ্ছা, গ্রামটির নামটা কী? উপজেলা?

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.