নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ঢাবিয়ান

ঢাবিয়ান › বিস্তারিত পোস্টঃ

প্রবাসীরা এই মুহুর্তে দেশে ফেরা থেকে বিরত থাকুন

১৫ ই মার্চ, ২০২০ রাত ৯:৪২



উপড়ের ছবিটি সিঙ্গাপুরের একটি কোয়ারেন্টিন আবাসস্থলের ছবি। নীচের ছবিটি আশকোনা হজ্ব ক্যাম্পের কোয়ারেন্টিন।



পত্রিকায় এসেছে যে হজ ক্যাম্পে কোয়ারেন্টিনে থাকা ইতালিফেরত লোকজন বিক্ষোভ করছেন। আর বাইরে তাঁদের স্বজনেরাও বিক্ষোভে যোগ দিয়েছেন। বিক্ষোভস্থলে পুলিশের সঙ্গে ইতালিফেরত লোকজন ও তাঁদের স্বজনদের কথা-কাটাকাটি ও হট্টগোলের ঘটনা ঘটেছে।ইতালিফেরত এক ব্যক্তি গেটে দাঁড়িয়ে বিক্ষোভস্থলে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি বলেন, এখানে তাঁরা অমানবিক অবস্থার মধ্যে আছেন। শিশুরা আছে। কিন্তু কোনো খাবার পাওয়া যাচ্ছে না। কিন্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, প্রবাসীরা দেশে এলে নবাবজাদা হয়ে যান। তাঁরা কোয়ারেন্টিনে যাওয়ার বিষয়ে খুব অসন্তুষ্ট হন। ফাইভ স্টার হোটেল না হলে তাঁরা অপছন্দ করেন।

আমাদের দেশের স্বাস্থ্য সেবা যে কি প্রকারের তা বলার অপেক্ষা রাখে না। কোয়ারেন্টিন শব্দটির মানেও স্বাস্থ্যবিভাগের লোকজন জানে বলে মনে হয় না। হাজী ক্যাম্পের গনরুমকে কোন সংজ্ঞায় কোয়ারেন্টিন বলা যায় তা একমাত্র এদেশের কর্তা ব্যক্তিরাই ভাল বলতে পারবে। এই অবস্থায় বিদেশে বসবাসরত প্রবাসীদের বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশে না ফেরাটাই বিচক্ষনতার পরিচয় হবে। আমাদের দেশে যদি করোনা ব্যপকহারে ছড়িয়ে পড়ে , তবে বিনা চিকিৎসায় প্রান যাবে প্রচুর মানুষের। প্রবাসি বাংলাদেশীরা যে যেখানেই থাকুক না কেন সেই দেশের বিদ্যমান স্বাস্থ্য সেবা করোনায় আক্রান্ত হলে পাবে। কিন্ত করোনা ভাইরাস শরীরে বয়ে নিয়ে নিজ দেশে ফিরলে নিজেরো সঠিক চিকিৎসা পাবার সুযোগ নাই সেই সাথে দেশের মানুষকেও বিপদেগ্রস্ত করা হবে।


বিভিন্ন দেশে কতজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বা কতজনের মৃত্যূ হয়েছে সে সম্পর্কে স্বচ্ছ তথ্য প্রতি মুহুর্তে আপডেট করা হচ্ছে, কিন্ত বাংলাদেশে সরকারী তথ্যের উপড় কেউ বিশ্বাস স্থাপন করতে পারছে না। যে কারনে সবাই বেশ একটা আতংকের মাঝে সময় পার করছে। এই মুহুর্তে প্রায় বেশীরভাগ দেশেই করোনা মোকাবেলায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আমাদের দেশেও সবাই চাচ্ছে যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হোক। গ্লোবাল মহামারী রুখতে আপাতত সবাই যে যার অবস্থানে থেকে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করাটাই এখন সবচেয়ে জরুরী।

মন্তব্য ৪২ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (৪২) মন্তব্য লিখুন

১| ১৫ ই মার্চ, ২০২০ রাত ৯:৫২

চাঁদগাজী বলেছেন:


সরকার স্কুল বন্ধ করছে না; কিন্তু বাচ্চাদের মা-বাবা স্কুলে পাঠানো বন্ধ করলে কি দুনিয়া উল্টে যাবে? সরকারের ইডিয়টরা কাজ করে, এবং এরা স্কুলের ছাত্রদের মা-বাবা

১৫ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১০:০৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: স্কুল বন্ধ না করলে কেউ কেউ হয়ত বাচ্চাকে স্কুলে পাঠাবে না আবার কেউ হয়ত পাঠাবে। যে পাঠাবে না সে মনে করবে যে তার বাচ্চাটা পড়াশোনায় পিছিয়ে যাচ্ছে।

২| ১৫ ই মার্চ, ২০২০ রাত ৯:৫৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




এখন মনে হচ্ছে বাংলাদেশে যদি করোনা ভাইরাস আসে তা আসবে একমাত্র বাংলাদেশের ইটালি ফেরত রেমিটেন্স যোদ্ধাদের মাধ্যমে।

১৫ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১০:০৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: কোন দেশ থেকে আসবে বলা মুশকিল কারন বেশিরভাগ দেশই এখন করোনায় আক্রান্ত ।

৩| ১৫ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১০:৩৫

শের শায়রী বলেছেন: কি যে মজা লাগছে ভাই বিভিন্ন ঘটনায় এবং উক্তিতে বলে বোঝানো যাবে না, এই যেমন মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রীর উক্তিটিই দেখুন আপনার পোষ্টে যেটা দিয়েছেন, সামনে আরো দেখবেন......... =p~ আমাদের হাসি আর কান্নায় খুব একটা ফারাক নেই।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ৮:৫৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: আমাদের হাসি আর কান্নায় খুব একটা ফারাক নেই

৪| ১৫ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১০:৫১

রাজীব নুর বলেছেন: সরকারী আমলারা অদক্ষ অযোগ্য।
তাদের জন্য জনগনের ভোগান্তির শেষ নেই।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ৮:৫৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: অদক্ষ ও অযোগ্যদের চাইলে দক্ষ ও যোগ্য করা যায়। কিন্ত অসৎ ও নিষ্ঠুর ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কিছু করা খুব কঠিন

৫| ১৫ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১১:০০

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: সরকারী আমলারা বিশ্বাস করে যে, বাংলাদেশে করোনা এখনো কোন থ্রেট নয়
তাই স্কুল বন্ধ হচ্ছে না , উপযুক্ত সময়ের জন্য অপেক্ষা করছেন ।

......................................................................................................................................
আমার জানা মতে যে সকল বাচ্চাদের মা-বাবা আতন্কিত তাদের বাচ্চাদের স্কুলে পাঠানো বন্ধ করা হয়েছে ।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:০০

ঢাবিয়ান বলেছেন: স্কুল কলেজে নাহয় বাচ্চা নাই পাঠালেন। কিন্ত এইচ এস সি পরীক্ষা আর কিছুদিন পর আরম্ভ হবে। তাদের উৎকন্ঠাটা একবার চিন্তা করুন

৬| ১৫ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১১:২৯

নেওয়াজ আলি বলেছেন: এই মুহূর্তে প্রবাসীরা অত্যন্ত জরুরী ছাড়া দেশে না যাওয়াই উত্তম। প্রবাসীরা নবাবজাদা কারণ তারা বিদেশ হতে দেশে টাকা পাঠায়। মন্ত্রীর মত লোকেরা দেশ হতে বিদেশে টাকা পাচার করে। জনগণের সম্পদ ও ভোট ......

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:০২

ঢাবিয়ান বলেছেন: সত্য বলা বলতে গেলে বিপদের সম্মুখীন হতে হয় আমাদের দেশে

৭| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১২:১২

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:

পৃথিবীর সব দেশেই স্বাস্থ ব্যাবস্থার লিমিটেশন আছে। হসপিটাল বেড ও আইসিইউ সংখাও লিমিটেড।
যাদের ৫০% ভাগ বেশী বাচা সম্ভাবনা তাদেরকেই চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। বাকিরা আল্লার হাতে।

বাংলাদেশের মত বিশৃখল দেশে জনস্বাস্থ শৃক্ষলা বজায় রাখতে কিছু তথ্য গোপন রাখা অন্যায় মনে করি না।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:০৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: তথ্য গোপন করে মহামারী রোখা সম্ভব হয় না। খোদ চায়নাই এর বড় উদাহরন

৮| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১২:১৪

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন: - উপরের মন্ত্যব্য ইটালির পরিস্থিতি নিয়ে

৯| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১:৩৩

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: প্রবাসী ও দেশে অবস্থানরত কেহই ভ্রমণ পরিহার করা উচিত | কোনো বিমানবন্দরে গিয়ে আটক পড়লে নানান অবর্ণনীয় কষ্ট ও ভোগান্তির সম্মুখীন হতে হয় | সুতরাং শুধু করোনার ভয়ে ভীত হয়ে ইতালি ত্যাগ কোনো সমাধান হতে পারে না | তবে যারা ওই দেশে বৈধ নন তারা সেখানে চিকিৎসা সুবিধা না পেলে তাদের দেশে ফেরা ছাড়া গত্যন্তর নেই |

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন " প্রবাসীরা দেশে এলে নবাবজাদা হয়ে যান ....."

আচ্ছা পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাজি ক্যাম্পের ওই মশারিওয়ালা বিছানায় এক রাত কাঠিয়ে আসলে কেমন হয় ? আর তা হবে তিনি যদি লম্বা ফ্লাইটে করে বাংলাদেশে আসার পর - এক বেলা তাকে খাওয়া দেয়া হবে না | আমার মনে হয় তার এই অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত সকল প্রবাসী অবশ্যই কোনো প্রকার আপত্তি ব্যতিরেকে মেনে নেবে |

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:১৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: সত্যি বলতে কি, আর সব দেশই করোনা আক্রান্ত দেশ থেকে নিজ দেশের নাগরিকদের ফিরিয়ে আনছে , করোনা ছড়িয়ে পড়ার আশংকা থাকা স্বত্তেও। কারন এটা একজন মানুষের নাগরিক অধিকার। তবে এদের ফিরিয়ে এনে প্রপার আইসোলেশনে রাখা হচ্ছে এবং দেশব্যপী সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। দুুঃখজনক হলেও এটাই সত্য যে এসব কোন ব্যবস্থাই বাংলাদেশে নেয়া হচ্ছেনা। ''নাগরিক অধিকার'' বলে কোন শব্দ এই দেশের ডিকশনারীতে নাই। এমতবস্থায় প্রবাসীরা দেশে ফিরে নিজের, পরিবারের এবং দেশের মানুষের বিড়াট বিপদ ডেকে আনতে পারে। এর চাইতে যে যে দেশে আছে সেখানে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করে চলাই এই মুহুর্তে শ্রেয়। দেশে ফিরে উল্টো গনপিটুনির শিকার হবার আশংকাও উড়িয়ে দেয়া যায় না।

১০| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১:৩৬

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: পূর্ববর্তী মন্তব্যে সংশোধন হবে "প্রবাসী ও দেশে অবস্থানরত সকলেরই ভ্রমণ পরিহার করা উচিত" |

১১| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১:৪৬

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
এদেশের ভার একমাত্র আল্লাহর
তিনি ছাড়া কোন মাবুদ নাই
এদেশ রক্ষা করার।
আল্লাহ তুমি রহম করো।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:২০

ঢাবিয়ান বলেছেন: একমত আপনার সাথে

১২| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ৩:৩৬

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: দেশের কোয়ারেন্টিনের অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে, এখানে দুএকজন আক্রান্ত থাকলে এদের মাধ্যমে অন্যান্যর' আক্রান্ত হবে।

তবুও ইতালি ফেরত ব্যক্তিদের গণ্ডগোল না করে একটু মানিয়ে, সাবধানে থাকা উচিত। জেনে বুঝে এইসময় এইদেশে এসে পরিবার, গ্রাম ও দেশের মানুষকে সমস্যায় ফেলার কোনো দরকার ছিলো না।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:২৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: ইটালিফেরত ব্যক্তিরা কি পাঁচ তারা হোটেলে রাখার আবদারে গন্ডগোল করছিল নাকি একটু মানবিকতা পাবার আশায় বিক্ষোভ করেছিল ?

১৩| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ ভোর ৫:০৮

সোহানী বলেছেন: স্কুল কলেজ বন্ধ হলেই কি লোকজন ঘরে বসে থাকবে? আমাদের দেশে তা সম্ভভ নয়। তারপরও কিছুদিন বন্ধ রাখা উচিত বলেই মনে করি।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:২৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: পুরোপুরি গৃহবন্দী হয়ে থাকাটা আসলে সম্ভব নয়। তবে শিক্ষার্থীরা বাসায় থাকলে অভিভাবকেরা কিছুটা নিশ্চিন্ত বোধ করে।

১৪| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:১২

নীল আকাশ বলেছেন: চাঁদগাজী বলেছেন: সরকার স্কুল বন্ধ করছে না; কিন্তু বাচ্চাদের মা-বাবা স্কুলে পাঠানো বন্ধ করলে কি দুনিয়া উল্টে যাবে? সরকারের ইডিয়টরা কাজ করে, এবং এরা স্কুলের ছাত্রদের মা-বাবা.।.।।।
সবই হবে শুধু ১৭ই মার্চ মুজিব বর্ষের এত সাধের অনুষ্ঠানটা আগে করতে দিন।
স্কুলের বাচ্চা কাচ্চাদের ঐখানে নিতেই হবে। নাহলে ওখানে মশা মাছি টিকটিকি ছাড়া কাউকে পাওয়া যাবে না!!!!!!

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:৫৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: অনেকেই স্কুল কলেজ বন্ধ না করার পেছনে এই কারনটা উল্লেখ করছে।

১৫| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:৪৩

যাযাবর জোনাকী বলেছেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেকে মাসখানেক কোয়ারন্টিনে রাখাটা এখন সময়ের দাবি!

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:৫৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: দাবীটা করবে কারা? কার ধরে কয়টা মাথা?

১৬| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:২৮

এম এ হানিফ বলেছেন: হোম কোয়ারেন্টিন জিনিসটা কি? কিভাবে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে? আমি সিউর এটা দেশের ৯৫ ভাগ মানুষ সঠিক ভাবে বলতে ও পালন করতে পারবে না। কারণ অলরেডি যারা হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন তারা কিভাবে কোয়ারেন্টিন করছেন শুনলে গা আঁতকে ওঠে!

আমার দেশের রেমিটেন্স যোদ্ধা ভাইয়েরা এই মুহুর্তে দেশে না এসে প্রবাস জীবনটাকেই মন্দের ভালো বলে মেনে নেন। এটাই আপনাদেরকে দেশের এই ক্রান্তি কালে সত্যিকারের যোদ্ধায় পরিনত করবে।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:০৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: খুব সুন্দর বলেছেন। আমার দেশের রেমিটেন্স যোদ্ধা ভাইয়েরা এই মুহুর্তে দেশে না এসে প্রবাস জীবনটাকেই মন্দের ভালো বলে মেনে নেন। এটাই আপনাদেরকে দেশের এই ক্রান্তি কালে সত্যিকারের যোদ্ধায় পরিনত করবে।



১৭| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:৩১

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: প্রবাসীদের এখন দেশে আসা উচিত হবে না। তবে তাদের আত্মীয় স্বজনেরা মনে করছে, বাংলাদেশে চলে আসলে কিছু হবে না। তারা আবার যে দেশ থেকে চলে আসছে সেখানে চিকিৎসা সেবাও ভাল। কিন্তু সেখানেও মালিক/কোম্পানী তাদের নিজ নিজ দেশে চলে যেতে বলছে...

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:০৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: বুঝতে পারছি উভয় সংকটে পড়েছে অনেকে। কিন্ত দেশের হাল দেখছেনতো? করোনা ভাইরাস নিয়ে যদি প্রচুর প্রবাসী দেশে প্রবেশ করে দেশটার অবস্থা কি হবে? ইরান, ইটালির অবস্থা দেখলেতো রক্ত হিম হয়ে যায়।

১৮| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:৪৬

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: লেখক বলেছেন: ইটালিফেরত ব্যক্তিরা কি পাঁচ তারা হোটেলে রাখার আবদারে গন্ডগোল করছিল নাকি একটু মানবিকতা পাবার আশায় বিক্ষোভ করেছিল ?

এইদেশে সরকার কি ধরনের ব্যবস্থা করতে পারে, এটা প্রায় সবাই জানে। যারা জানেন না, বলা যায় তারা দেশের খবর রাখেন না।
এইদেশে সরকার বক্তব্য আর লুটপাট ছাড়া জনকল্যাণে কিছুই করতে পারে না। সুতরাং নিজেকেই নিজের এবং আশপাশের মানুষদের কথা ভাবতে হবে।

১৯| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:০৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: পুরোপুরি একমত আপনার সাথে।

২০| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:৩৭

করুণাধারা বলেছেন: একজনের থেকে শুনেছিলাম, ইতালি ফেরত এক লোকের কাছে এয়ারপোর্টের লোক অর্থ চেয়ে বলেছিল, না দিলে কোয়ারাইন্টাইনে দিয়ে দেব!!

আপনার পোস্টের জন্য জানতে পারলাম হাজীদের ( যাদের বেশিরভাগই বয়োবৃদ্ধ) বিদায় বেলায় কী ধরণের ব্যবস্থা নেয়া হয়। যে দেশে একটা বালিশ একবার উঠাতে ছয় হাজার টাকা খরচ হয়, সে দেশে বছরের পর বছর ব্যবহার করার জন্য অন্তত সস্তা চৌকি কিনতে কত লাগে?

ইতালি ফেরতরা গোলমাল করেছে দেখে ওদের উপর বিরক্ত হয়েছিলাম, গণরূমের ছবি দেখে বিরক্তি আর থাকল না।

১৭ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:২১

ঢাবিয়ান বলেছেন: একজনের কাছে এও শুনলাম যে ঢাকা এয়ারপোর্টে ৫০০ টাকায় করোনামুক্ত সার্টিফিকেট পাওয়া যাচ্ছে যা দিয়ে কোয়ারেন্টাইন এভোয়েড করা যায়।

২১| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ৯:৫৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: ঢাবিয়ান,




যথার্থ আহ্বান।

পররাষ্ট্র মন্ত্রী যে ভাবে বলেছেন তা একজন দায়িত্ব জ্ঞানহীন মূর্খের মুখ থেকেই বেরুনোর কথা।

এই মূহুর্তে করোনা প্রতিরোধের ব্যবস্থাপনা নিয়ে অহেতুক বাগড়ম্বর করা ঠিক নয়। যতো সীমিততা আমাদের থাকুক না কেন এই বিপর্যয়ের সময় মানুষকে কাছে টেনে নিয়ে অভাব বুঝতে না দেয়ার মানসিকতা থাকা উচিৎ।

অকাজে কতো কোটি কোটি টাকাই তো খরচ হয়ে গেছে - যাচ্ছে এই দেশে, সেখানে এই ভয়াবহ মহামারীর ব্যবস্থাপনায় এক একটা "কোয়ারেন্টাইন" কে ঠিকমতো সাজিয়ে রাখতে ( সকল সুবিধা সহ ) অর্থের অভাব হতে পারে তা ভাবা যায়না।
আপনি ঠিকই প্রশ্ন রেখেছেন , সংশ্লিষ্টরা "কোয়ারেন্টাইন" কি সেটা বোঝে কিনা!

আশা করি, কাজের কাজ কিছু করতে না পারলেও উপরমহল থেকে অদায়িত্বশীল মন্তব্য করা বন্ধ হবে।

১৭ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:২৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: পত্রিকায় এসেছে '' দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর সৃষ্ট পরিস্থিতি সামলাতে স্বাস্থ্যসেবা খাতে ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে সরকার।''

এই ৫০ কোটি টাকারসিকি ভাগও জনগনের জন্য ব্যায় করা হলে এই মার্কা কোয়ারেন্টাইন সিস্টেম হবার কথা নয়। করোনা নিয়ন্ত্রনের প্রধান ধাপই হচ্ছে বিদেশ ফেরতদের প্রপার কোয়ারেন্টাইনে রাখা। সব দেশেই করোনা ছড়াচ্ছে মুলত বিদেশ ফেরতরা।

২২| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১০:২৭

রাজীব নুর বলেছেন: আমরা মনে হয় বেশি আতংকগ্রস্ত হয়ে পড়ছি।

১৭ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:৩০

ঢাবিয়ান বলেছেন: ইরান ও ইটালির অবস্থা দেখার পরও যদি মনে হয় যে এই আতংক অর্থহীন, তবে কিছু বলার নাই।

২৩| ১৭ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:০৬

জুন বলেছেন: আমাদের মহামান্য প্রেসিডেন্ট শুধু কিশোরগঞ্জের মিঠামইনের প্রবাসীদের হোম কোয়ারেন্টাইন এ না থেকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলেছে। দেশের অন্য জায়গায় ফিরে আসা প্রবাসীদের নিয়ে কোন বক্তব্য নেই। মনে রাইখেন তারাও ভাইরাস ছড়াতে পারে যা মাইলের পর মাইল পাড়ি দিয়ে মিঠামইন পর্যন্ত যাইতে পারে। এই ভাইরাস বাতাসে ভাসতে পারে যে :(

১৭ ই মার্চ, ২০২০ রাত ৯:২১

ঢাবিয়ান বলেছেন: কঠিন বিপদের সম্মুখীন পুরো বিশ্ব।এই মুহুর্তে জাতিগতভাবে একতাবদ্ধ হয়ে করোনা মোকাবেলা করা প্রয়োজন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.