নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ঢাবিয়ান

ঢাবিয়ান › বিস্তারিত পোস্টঃ

বেসরকারী উদ্যোগে মডের্না ও ফাইজারের টিকা আমদানী করা হোক

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৫০

বাংলাদেশে ১৬ কোটির বেশি মানুষের জন্য করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন বা টিকা কেনার জন্য বিপুল অঙ্কের অর্থের যোগান এখনও নিশ্চিত হয়নি বলে জানা গেছে। কর্মকর্তারা বলেছেন, বিশ্বব্যাংকসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার কাছে বাংলাদেশ অর্থসহায়তা চেয়েছে।

সরকারের পক্ষ থেকে নিজস্ব অর্থে দেড় হাজার কোটির টাকা নিয়ে ভ্যাকসিন কেনার দৌড়ে থাকার কথা বলা হচ্ছে।তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, বিশ্বে সবচেয়ে কম দামের অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের তিন কোটি ডোজ নেয়ার জন্য বাংলাদেশ যে সমঝোতা করেছে, তাতেই বিপুল অঙ্কের অর্থ গুনতে হবে। অন্যদিকে সংরক্ষণ এবং সরবরাহের অবকাঠামোর অভাবে ও দাম বেশি হওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের ফাইজার বা মডার্নার ভ্যাকসিন বাংলাদেশ আনতে পারছে না। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংকের কাছে ৫০ কোটি ডলার সহায়তা চেয়েছে, যা সোয়া চার হাজার কোটি টাকার মতো। অন্যান্য সংস্থার কাছেও অর্থ সহায়তা চেয়ে অনুরোধ করা হয়েছে।

উন্নত দেশগুলোতে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি টিকা দেয়ার কর্মসুচী শুরু করার কথা শোনা যাচ্ছে। বাংলাদেশের দুর্নীতিগ্রস্ত ক্ষমতায়নে করোনার টিকা নিয়েও যে দুর্নিতি হবে না তার নিশ্চয়তা নাই।বিশ্বব্যাংক ও অন্যান্য দাতা সংস্থা থেকে পাওয়া বিপুল অংকের টাকার কতখানি আত্মসাৎ হবে সেটা নিয়ে সন্দেহ থেকেই যায়।সবচেয়ে বড় কথা দুই নম্বরী টিকা প্রয়োগের সম্ভাবনাও রয়েছে ।সেক্ষেত্রে টিকা কর্মসুচী সফলতা লাভ করার সম্ভাবনা খুবই কম।

বাজারে আসার আগে মডার্না ভ্যাকসিনের সম্ভাব্য মূল্য জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। প্রতি ডোজ করোনা টিকার দাম ২৫ থেকে ৩৭ ডলার করে রাখবে মডার্না। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২ হাজার ১৮৮ টাকা থেকে ৩ হাজার ১৩৫ টাকা দাঁড়ায়। এই টিকা আমদানি করে আনতে গেলে খরচ পড়বে আরী বেশী।কিন্ত অক্সফোর্ডের টিকার সাফল্য ৭০% এবং ফাইজার ও মডের্নার টিকার সাফল্য ৯৫ঁ% । সরকারী আশায় না থেকে বরং বেসরকারী উদ্যোগে মডের্না ও ফাইজারের টিকা আমদানী করা হোক। সামর্থবানেরা নিজের খরচে টিকা কিনে নেবে।

এই একটা বছরে ব্যবসা বানিজ্য , শিক্ষা ব্যবস্থা, অর্থনীতি মুখ থুবরে পড়েছে। যে কোন মূল্যে সবাই সুস্থ স্বাভাবিক পৃথীবিতে ফিরতে চায়। নতুন বছর করোনামুক্ত হোক পৃথীবি এই আশায় চাতক পাখির মত অপেক্ষায় আছে বিশ্ববাসী।

মন্তব্য ৩৩ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (৩৩) মন্তব্য লিখুন

১| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:২৫

শাহ আজিজ বলেছেন: আমি যতদুর জানি বেসরকারি পর্যায়ে বড় ওষুধ কোম্পানি চেষ্টা করছে টিকার জন্য কিন্তু স্বাস্থ্য সিন্ডিকেট পেরিয়ে যদি হাত লাগাতে পারে তবেই তা সম্ভব হবে ।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৫৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: সেটাই । ভাল কোন কিছু করা এই দেশে অত্যন্ত দুরুহ।

২| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৩৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: এইসব বলে লাভ নাই। ভ্যাকসিন নিয়া দেশে দুর্ণীতি হবেই। কানাডার তথাকথিত বেগমপাড়ায় বাড়ির সংখ্যা আরো কিছু বাড়বে। এটা বাংলাদেশে এখন একটা স্ট্যাটাস সিম্বল দুর্ণীতিবাজদের মধ্যে। কাজেই এর জন্য তৈরী থাকাই ভালো।

অক্সফোর্ডের টিকার সাফল্য ৭০% এবং ফাইজার ও মডের্নার টিকার সাফল্য ৯৫ঁ% এই তথ্যে কিন্চিৎ সমস্যা আছে। ডাব্লিউ এইচ ও বলছে, অক্সফোর্ডের টিকার সাফল্য ৬২-৯০%, ফাইজার ও মডের্নার টিকার সাফল্য ৯৫% আর রাশানটার ৯২%। এটা এখনও প্রাথমিক তিন ফেজের ফলাফলের ভিত্তিতে। এখনও পিয়ার-রিভিউ হয়নি কোনটারই।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:০৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: তাইলে অক্সফোর্ডের এই ৬২-৯০% কাযর্করী টিকা আইনা লাভ কি? অক্সফোর্ডের ওই টিকা ভারতে তৈরি করছে সিরাম ইনস্টিটিউট। মনেতো হচ্ছে টিকা সেখান থেকেই এই দেশে আসবে।

৩| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৪৪

জুন বলেছেন: আমরা চাইলেই কি হবে :( আগে বিল গেটস একটু ব্যাবসা করুক এরপর আমাদের দরবেশ বাবাজী এরপর দেখেন পান কি না? তবে একটাই আশার আলো আমাদের তথাকথিত দুর্নীতিবাজরা ফ্লাইট না চলার কারণে বাইরে যেতে পারছে খুব কম। এখন এদের ওছিলায় আমরা কিছু আমজনতা যদি ফাইজার বা পুতিনরে পাই ঢাবিয়ান।
আমার ভাই এর বিয়াই বিয়াইন দুই মাস আগে আম্রিকা যাবার আগে ভাইকে জিজ্ঞেস করলো 'আপনার জন্য কি আনবো বলেন'? ভাই বলছে "কিছু লাগবে না, শুধু আমার জন্য ভ্যাক্সিন নিয়া আইসেন "। =p~

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:০৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: জুন আপু ঠিকই কইসেন । এখন দুর্নীতিবাজেরাই একমাত্র ভরসা। তাদের নিজেদের খাতিরে যদি তারা ভাল ভ্যকসিনটা আনে তাইলেই রক্ষা। তবে ব্যক্তিগতভাবে এই ভ্যক্সিন বহন করে আনা সম্ভব না। যে ধরনের সংরক্ষন সাপোর্টের প্রয়োজন সেটা শুধু মাল্টিন্যাশনাল ফার্মাসিউটিকাল কোম্পানিগুলোর পক্ষেই বজায় রাখা সম্ভব।

৪| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৪৭

নেওয়াজ আলি বলেছেন: সৌদি আরব ঘোষণা দিয়েছে সেখানে বসবাসরত প্রতিটি নাগরিক ফ্রী টিকা পাবে। এবং ২১ সালে প্রথমে শতকরা ৭০জন লোক টিকা পেয়ে যাবে। ঠিক বলেছেন মডের্ণার ও ফাইজার টিকা যেহেতু বেশী কার্যকর তাই এইটা ভালো হবে

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:০৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: অন্য আর দশটা দেশের সাথে এই দেশের তুলনা করে লাভ নাই। এখন কিভাবে ব্যক্তিগত ও বেসরকারী উদ্যোগে এই করোনা নামক যন্ত্রনা থেকে রেহাই পাওয়া যায় সেটাই চিন্তা করা প্রয়োজন।

৫| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৫২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: @জুন আপাঃ আম্রিকা থিকা ভ্যাকসিন আনতে পারবো না। ওগুলা -২০ থিকা -৭০ ডিগ্রী তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা লাগে। লাগেজে কইরা আনবো কেমনে? হালারা আম্রিকান প্যাচ লাগায়া রাখছে ভ্যাকসিনের মইদ্দে!!! X(

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:২৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: ব্যক্তিগত উদ্যোগে ভ্যাকসিন আনা সম্ভব নয়। তবে ফাইজারের ব্রাঞ্চ রয়েছে বিশ্বব্যপী । সিঙ্গাপুর, হংকং ইত্যাদি দেশগুলোতেও ভ্যক্সিন তৈরী করছে ফাইজার। তাই আমদানী করতে চাইলে আমেরিকা নয় আরো কাছাকাছি দেশ থেকেই আনানো সম্ভব। আশায় আছি বাংলাদেশের ফাইজারকেও ভ্যকসিন তৈরীর অনুমতি দিয়ে দিলে আর আমদানীরও প্রয়োজন হবে না। তবে মনে হচ্ছে টিকা নিয়েও কোটি কটি টাকার খেলা চলছে।

৬| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:১১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: লেখক বলেছেন: তাইলে অক্সফোর্ডের এই ৬২-৯০% কাযর্করী টিকা আইনা লাভ কি? অক্সফোর্ডের ওই টিকা ভারতে তৈরি করছে সিরাম ইনস্টিটিউট। মনেতো হচ্ছে টিকা সেখান থেকেই এই দেশে আসবে। আরে ভাইজান, এগুলি প্রাথমিক রিপোর্ট। পিয়ার-রিভিউ হয় নাই মানে এগুলি এখনও নিশ্চিত না। আর জানেন তো, বৃটিশরা একটু রক্ষণশীল। যা ঘটে, তার থিকা একটু কমায়া কয় আর আম্রিকানরা একটু বাড়ায়া কয়। কামে দিবো, নিশ্চিত থাকেন।

আর আম্রিকানটার স্টোরেজ করাতে সমস্যা আছে, যেইটা অক্সফোর্ডেরটাতে নাই। সাধারন ফ্রিজেই রাখা যায়। আমাগো গরমের দেশে এইটা একটা বড় ফ্যাক্টর। ভারতে তৈরী হইলেও সুপারভিশনে আমরাই তো আছিলাম। কাজেই ডরায়েন না। =p~

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:২৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপনে যাই কোন বিশ্বব্যপী কিন্ত রটে গেছে যে অক্সফোর্ডের টিকার কার্যকারীতা ৭০% আর ফাইজারের ৯৫%। এমনকি সম্প্রতি ফাউজার ঘোষনা দিয়েছে কার্যকারীতা ৯৯% । ইংল্যন্ডে কবে থেকে টিকা দেয়া শুরু কবে? তারা কি অক্সফোর্ডেরটাই দিবে?

৭| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:১২

শাহ আজিজ বলেছেন: https://www.somewhereinblog.net/blog/BhuaMofiz
প্রতিটি কোম্পানি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তত্ত্বাবধানে বিশেষ ভ্যাক্সিন বক্স রেডি করছে যাতে তা বিমানে এবং গাড়িতে প্লাগ ইন করে -৭০ ডিগ্রিতে গন্তব্যে পৌছাতে পারে । একটা মিডিয়া আলাপে ক্লিয়ার হলাম ব্যাপারটা ।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: আর কিছুদিন অপেক্ষা করলেই বোঝা যাবে সবকিছু। তবে বেশীরভাগ দেশেরই আস্থা ফাইজারের ওপড়।

৮| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩২

জুন বলেছেন: এই মর্ডানার ভ্যাক্সিনের উপরই সবচেয়ে বেশি ভরসা করেছিল আমার প্রিয় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। বেচারা ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিং করে তাকে হারানো হইছে আর নির্বাচনের তিন দিন পরেই মর্ডানা তাদের টিকা আবিস্কারের ঘোষণা দিল। দেখলেন কি ষড়যন্ত্র, কি ষড়যন্ত্র #:-S
যারে বলে ইঞ্জিনিয়ারিং এর উপর এক কাঠি। আমাদের দেশকেও হারায় দিল ফাউসি =p~

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:২৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: ফাইজার ও মডের্না বিড়াট বেইমানি করসে ট্রাম্প কাকুর সাথে :)

৯| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩৬

ভুয়া মফিজ বলেছেন: তাইলে আপনে অক্সফোর্ডেরটা নিয়েন না। ফাইজারেরটা নেন। আমরা কেউরে জোর করি না। যাগো ইচ্ছা, হ্যারা নিবো। ইউকে তে আগে আমরা সব ভ্যাক্সিনের ককটেল বানামু, তারপরে নিমু। করোনা যাতে কোন চান্সই না পায়.......হের লাইগা এই ব্যবস্থা। :-B

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:২৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: টীকা সেইটা অক্সফোর্ড হোক বা ফাইজার বা রাশান - সরকারী কোন জিনিষের ওপড় এই দেশের মানুষের আস্থা নাই। তাই বেসরকারী উদ্যোগেই ভরসা।

১০| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৪৭

মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন বলেছেন: বিভিন্ন সিন্ডিকেট পেরিয়ে দেশে যত তাড়াতাড়ি টিকা চলে আসে ততই মঙ্গল। ধন্যবাদ ভাইয়া একটি গুরুত্বপূর্ণ পোস্ট সামনে নিয়ে আসার জন্য।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:২৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ

১১| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:০৫

অপু তানভীর বলেছেন: মর্ডেনা আর ফাইজারের টিকা চাইলেও এতো সহজে আনা সম্ভব না । ফাইজারের টা মাইনাস ৭০ ডিগ্রিতে আর মর্ডেনারটা মাইনাস বিশ ডিগ্রিতে সংরক্ষন করতে হয় । এটা আমাদের দেশের পরিপেক্ষিতে একটা বড় সমস্যা। যেখান দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সাধারণ মানুষকে দেওয়া হবে সেখানে এই ক্রাইটেরিয়া মানা অনেক ক্ষেত্রেই সম্ভব হবা না, বিশেষ করে সংখ্যাটা যখন বিপুল ! অক্সফোর্ডের এই ঝামেলা নেই । সাধারন ফ্রিজের তাপমাত্রাতেই সংরক্ষন সম্ভব !

অক্সফোর্ডের ভ্যাক্সিন দুইটা ডোজে দেওয়া হয় । যাদের শরীরে দুইটা পূর্নডোজ দেওয়া হয়েছে তাদের ক্ষেত্রে এই ৬২ শতাংশ কার্যকরী দেখা দিয়েছে । অন্য দিকে যাদের শরীরে দেড় ডোজ দেওয়া হয়েছে তাদের শরীরে ৯০% কার্যকরী হয়েছে । কম ডোজে কার্যকারীতা বেশি ! লিংকে গিয়ে দেখতে পারেন।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৩৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: সেই জন্যইতো বলছি যে বেসরকারি উদ্যোগে আনানোর জন্য । টিকা যেখান থেকেই আনা হোক না কেন সরকারী জিনিষের ওপড় ভরসা করা কঠিন এই দেশে । বেসরকারী উদ্যোগে আনা হলে শিক্ষিত শ্রেনীরাই মুলত টিকা কিনবে। থুবরে পড়া অর্থনীতির চাকা চালু করতে হলে শিক্ষিত শ্রেনীর বাড়ির বাইরে বের হয়ে আসা প্রয়োজন।

১২| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:২৪

ফয়সাল রকি বলেছেন: হার্ড ইমুনিটির অপেক্ষায় আছি।
দেশে যদি কখনো ভ্যাকসিন আসেও তাতে ম্যাংগো পিপল কবে পাবে- সেটা ভাবা কঠিন!
এর মধ্য থেকে আবার গুজব শুরু হয়ে যাবে যে- ডেট এক্সপায়ার ভ্যাকসিন দিয়েছে কিংবা ওমুক স্থানে ভ্যাকসিন গ্রহণ কারীরা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে!!!

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৩৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: যা বললেন সেসব কিছুই যে ঘটবে সামনে তা চোখ বন্ধ করেই বলা যায়। তবে হার্ড ইমিউনিটি আসলে একটা ধাপ্পাবাজি ছাড়া আর কিছু না।

১৩| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৩১

ওমেরা বলেছেন: বাংলাদেশ যেখান থেকেই ভ্যাকসিন আনুক না কেন যতটুকু আনবে তার ডবল ভ্যাকসিন নকল তৈরী হবে দেশে ।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৪০

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপু যা বলেছেন যথার্থ বলেছেন। অনেকেতো এও বলছে যে ভ্যক্সিন বানানোর রেসিপি ইউটিউবে চলে আসবে :)

১৪| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৩৪

জুন বলেছেন: @ভুয়া এইডা হইলো মনের ব্যাপার বুঝছেন #:-S মনে চাইলে এমন ভাবে ঝিনুক চকলেটও পাঠান যায় যা গইলা পরে না, ভাইংগা পরেনা কাচের জুতা। তেমনি বরফের বাক্সে কইরা ভ্যাক্সিন আনা যাবে যদি মনে চায় /:)
তবে এই সবই হইলো রাজপুত্র রাজকন্যার ব্যাপার স্যাপার। আমরা আম জনতা :(

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৪৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: কতা হইলো এই দেশের রাজপুত্র রাজকন্যারা বিদেশে যাইয়া বিদেশি নার্সের হাতেই ভ্যাকসিন দিয়া আসবো। আম জনতার কি হইবো তা কইতে পারতেসি না :(

১৫| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:১৮

রাজীব নুর বলেছেন: আমদানী রফতানি বুঝি না।
টিকার ফর্মুলা আমাদের দিয়ে দিক, আমরা দেশেই বানিয়ে নেব।

১৬| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:৪৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: ঢাবিয়ান ,




সরকারী হোক আর বেসরকারী , সিন্ডিকেটের হাত থেকে বাঁচতে পারবেন না কেউ -ই। সরকারীটা যাবে জায়গা মতো, পাবলিক পাবেনা আর বেসরকারীটা যাবে নাগালের বাইরে। বেসরকারীরা দাম২০/৫ গুন বাড়িয়ে রঙ্গ করে বলবে সরবরাহ কম , প্লেন চলেনা, টিকার ফ্যাক্টরীর বেল্ট ছিড়ে গেছে তাই উৎপাদন কয়েকদিন বন্ধ, উৎপাদন হলেই আবার টিকার বাজার স্বাভাবিক হয়ে আসবে ইত্যাদি ইত্যাদি..................

১৭| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩১

নূর আলম হিরণ বলেছেন: প্রথম প্রথম তো শুনলাম বাংলাদেশকে ফ্রি দিবে, এরপর শুনলাম ২ডলার, ৩ডলার পড়বে এখন দেখি অনেক দাম। :(

১৮| ২৫ শে নভেম্বর, ২০২০ রাত ৩:২২

চাঁদগাজী বলেছেন:



যারা ভালো মাস্ক পরে, মানুষের সাথে দুরত্ব রাখে চলবেন, তাদের আসলে টিকার দরকার নেই।

১৯| ২৫ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৫০

আমি সাজিদ বলেছেন: খাদ্য মন্ত্রী সেদিন বললো, ভ্যাক্সিনের ব্যাপারে চুক্তি হয়ে গেছে। ডোজ অর্ডার হয়ে গেছে। আবার জানা গেল, ভ্যাক্সিনের টাকার জন্য সরকার দাতাদের পেছনে ঘুরছে। আবার টাকার অভাব যদি হয়েই থাকে তাহলে একনেকে এই সময়ে দরকার নেই এমন (যেমন ঘাস চাষের প্রকল্প, গতকালেই এসেছে মিডিয়াতে) প্রকল্প অনুমোদন হচ্ছে কেন মাসে চার থেকে পাঁচবার? কিছুই বুঝি না।

অক্সফোর্ডের ভ্যাক্সিনের গ্রহনযোগ্যতা বেশী আমার কাছে। এমন একটা ভ্যাক্সিন আনতে হবে যেটা আমাদের দেশে সংরক্ষণ করার মতো ব্যবস্থা থাকবে।

আমার বিশ্বাস হয় না বেগম পাড়ায় খালি আমলারা আছে। আমলাদের ব্যালেন্স দিতেই সরকার দলীয় একজন শীর্ষ নেতা এবং পাশাপাশি একজন মন্ত্রী এই কথা বলেছেন। বেগমপাড়ায় বাড়ি আমলাদেরও আছে, রাজনীতিবিদেরও আছে, শেয়ার বাজার থেকে লুট করা ডাকাতেরও আছে। আমলা- প্রশাসন, পুলিশ আর ক্ষমতাসীন রাজনীতিবিদের লড়াই জমে উঠেছে৷ আমরা সাধারণ মানুষ নাহয় দর্শক হয়েই দেখি।

বাংলাদেশে জলদি ভ্যাক্সিন আসুক। হু প্রটোকল অনুযায়ী ভ্যাক্সিনেশন প্রোগ্রাম হোক।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.