নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ঢাবিয়ান

ঢাবিয়ান › বিস্তারিত পোস্টঃ

বাংলাদেশে বেসরকারিভাবে যুক্তরাষ্ট্রের মডার্নার টিকা আমদানি করতে চায় রেনাটা

২২ শে এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ১:১৭

বাংলাদেশে বেসরকারিভাবে যুক্তরাষ্ট্রের মডার্নার টিকা আমদানি করতে চায় সুপরিচিত ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান রেনাটা লিমিটেড। এ জন্য তারা সরকারের অনুমোদন চেয়েছে। গত মঙ্গলবার রেনাটার পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে দেওয়া এক চিঠিতে বলা হয়, মডার্নার টিকার কার্যকারিতা ৯৪ দশমিক ৫ শতাংশ। এখন পর্যন্ত এটিই একমাত্র টিকা, যার কোনো গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। এই টিকা সংরক্ষণও অনেক বেশি সুবিধাজনক।

চিঠিতে আরও বলা হয়, মডার্নার টিকা করোনাভাইরাসের যুক্তরাজ্য ধরন ও দক্ষিণ আফ্রিকার ধরনের বিরুদ্ধে কার্যকারিতা দেখিয়েছে। রেনাটা মডার্নার টিকা আমদানির অনুমতি চেয়ে আরও বলেছে, তারা বাংলাদেশের বাজারে এই টিকা সহজলভ্য করতে চায়। সরকার চাইলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সরবরাহ করতেও আগ্রহী। মডার্নার সঙ্গে টিকার বিষয়ে তারা যোগাযোগ রক্ষা করে আসছে। সুত্র ঃ প্রথম আলো

ফাইজারের টীকা সংরক্ষনে অনেক নিম্ন তাপমাত্রার প্রয়োজন হয় যা মডার্নার টিকাতে প্রয়োজন হয় না। মডার্নার টিকা সংরক্ষনে তাই বাড়তি ঝামেলার প্রয়োজন নাই। সিঙ্গাপুরেও এখন ফাইজারের সাথে সাথে মডার্নার টিকা দেয়া হচ্ছে জনগনকে। রাশিয়ান বা চায়নার টিকার কার্যকারীতা ৫০% এর নীচে এবং তাদের টিকা সাউথ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট এর বিরুদ্ধে কার্যকরী কিনা তা প্রশ্নসাপেক্ষ। এমতবস্থায় বেসরকারী উদ্যোগে মোডের্নার টিকা বাংলাদেশে আনাটাই সবচেয়ে উত্তম প্রস্তাব। একটা টীকার মূল্য এমন কিছু বেশি না যে জনগন তা কিনে নিতে পারবে না। প্রয়োজন হলে টীকার জন্য তহবিল গঠন করাও যেতে পারে। তারপরেও করোনা প্রতিরোধে সবচেয়ে কার্যকরী টীকা দেশে আনাটাই উচিত।

ইন্ডিয়ার সেরাম ইন্সটিউট আপাতত আর টিকা রপ্তানী করবে না বলে জানিয়েছে। তাছাড়া সাইথ আফ্রিকান ভ্যরিয়েন্ট এর বিরুদ্ধে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টীকা সেরকম কার্যকরী নয় বলে খোদ সাউথ আফ্রিকা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা টীকা কেনার চুক্তি বাতিল করেছে। বর্তমানে দেশের ক্রবর্ধমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় দীর্ঘমেয়াদি লকডাউন দেয়া কোনভাবেই আর সম্ভব নয়। পরিস্থিতি মোকাবেলায় অতি দ্রুত কার্যকরী টীকা আমদানীই মুল সমাধান। Renata Limited (formerly Pfizer Limited) এর নেয়া মহৎ উদ্যোগকে সরকার সাধুবাদ জানাবে বলে আশা করছি।

মন্তব্য ১৮ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (১৮) মন্তব্য লিখুন

১| ২২ শে এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ১:৪৭

রাজীব নুর বলেছেন: রেনেটাকে অনুমতি ভালোই হবে। কারন সরকারের পক্ষে ১০০% টিকা দেওয়া সম্ভব হবে না।

২২ শে এপ্রিল, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৪৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: জরুরী ভিত্তিতে অনুমোদন দেয়া দরকার।

২| ২২ শে এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ২:৪৫

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: রেনাটাকে অনুমতি দেয়া উচিৎ। এতে টিকা সংকট মোকাবেলায় সরকারের প্রভূত সুবিধা হবে।

২২ শে এপ্রিল, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৪৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: একমত

৩| ২২ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৩:৩৭

চাঁদগাজী বলেছেন:




রেনাটাকে কেন টিকা আমদানী করতে হবে, এটা তো সরকারের কাজ?
১ নং ও ২ নং মন্তব্য ২টির মুলে রয়েছে ভুল ধারণা।

২২ শে এপ্রিল, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৫১

ঢাবিয়ান বলেছেন: এখন রাজনীতির সময় না। যে কোন উপায়ে মানুষ বাচাঁনো প্রধান কাজ। ফাইজার ও মডার্না এখন পর্যন্ত সবচেয়ে কার্যকরী টিকা হিসেবে প্রমানিত। আমরা যারা বিদেশে আছি তারা সবাই এই টিকা পাচ্ছি। আমাদের দেশের মানুষও যেন পায় সেটা নিয়ে পারলে একটি দেন দরবার করুন। ভারতে হাজারে হাজারে মানুষ মরা শুরু হয়েছে। তাদের টিকার ওপড় ভরসা না করে আমাদের সকল সোর্স ইউজ করে মডার্নার টিকা আনার ব্যবস্থা করা প্রয়োজন।

৪| ২২ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৩:৫৯

পদ্ম পুকুর বলেছেন: চাঁদগাজী বলেছেন: রেনাটাকে কেন টিকা আমদানী করতে হবে, এটা তো সরকারের কাজ?

সেরামের টিকা আমদানির জন্য বেক্সিমকো তো অলরেডি চুক্তি করেছেই, তাহলে রেনেটা আনলে সমস্যা কি?

অন্যদিকে, রেনেটা বা অন্য কেউ যেনো টিকা আনতে না পারে, সেজন্য বেক্সিমকো প্রভাব খাটাতে পারে।

২২ শে এপ্রিল, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৫৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: বেক্সিমকো বাগড়া দেয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে। তাই এই মুহুর্তে দরকার জাতীয় ঐক্য। ভারতে এখন প্রতিদিন দুই হাজারের ওপড় মানুষ মারা যাচ্ছে । আমাদের এখানে শ এর মত। এই সংখ্যাও কতটা সত্য তা প্রশ্ন সাপেক্ষ।

৫| ২২ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৪:৩৭

মা.হাসান বলেছেন: ভূমিখেকো আসলাম এমপি স্পুটনিক-৫ টিকা আমদানির অনুমতি চাইছিলো, পাইয়াও গেছে, কিন্তু আনার আগেই অন্য জগতে চলে গেলো।
রেনাটা অনুমতি চাইলে পাওয়ার কথা, তবেপদ্মপুকুর ভাই যেমন বলছেন, মনোপলি ব্যবসায় বাধা কেউ চায় না। দরবেশ বাবা বাগড়া দেয়ার চেষ্টা করতে পারে।

বানিজ্যিক এবং বৈজ্ঞানিক- দুটো সমস্যার কথা চিন্তা করতে হবে।

সরকার অক্সফোর্ডের টিকা ফ্রি দেয়ার কথা ঘোষনা দিলো। ৪০ এর উপরে বয়স, অন্যান্য কোটা মিলিয়ে প্রাপ্যতা লিস্টে প্রায় সাড়ে পাঁচ- ছয় কোটি লোক হয় । এদের মধ্যে আবেদন করেছে মাত্র ৬০ লাখেরও কম। বাকিরা মনে করে করোনা কিছু না, আমার হবে না, আমরা করোনার চেয়ে শক্তিশালি ইত্যাদি।

মডার্নার ভ্যাক্সিন এক ডোজ ৩৫ ডলারের মতো, দু ডোজ ৭০ ডলারের মতো। সাধারণ ফ্রিজে রাখা যায় না, ডিপ ফ্রিজ লাগবে। পরিবহন খরচ, লাভ সহ দুই ডোজ পড়বে আট থেকে দশ হাজার টাকা।
কত জন লোক এই টিকা নিতে আগ্রহী হবে?

উল্লেখ্য, চল্লিশের নিচে বয়স, কিন্তু টিকা নিতে আগ্রহী, এমন হাজার হাজার লোক ইতোমধ্যে প্রাপ্যতা লিস্টের লুপহোল ব্যবহার করে সাংবাদিক, লাশ দাফনকারি এসব কোটায় টিকা নিয়ে নিয়েছে। সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদেরকেও লিস্টের মধ্যে আনা হয়েছে।

বৈজ্ঞানিক সমস্যা- এই ভাইরাস মাসে কমপক্ষে দুইবার মিউটেট হচ্ছে। এর মধ্যে স্পাইক প্রোটিনেও মিউটেশন হয়েছে। ফাইজার/মডার্না।জনসনের টিকা দক্ষিন আফ্রিকা বা ব্রাজিল ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে কার্যকর। কিন্তু সম্ভাবনা অনেক যে কিছুদিনের মাঝে এমন মিউটেশন আসবে যেটা ঐ টিকাগুলোকেও পরাস্ত করবে। জুলাইয়ের আগে মডার্নার টিকা পাওয়া যাবে না। এর মধ্যেই আরো কয়েক বার ভাইরাসটা মিউটেটেড হবে।

দক্ষিন আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে অক্সফোর্ডের বুস্টার ডোজ অক্টোবরের মধ্যে আসার কথা । কিন্তু এর মাঝে আরো নতুন ভ্যারিয়েন্ট আসবে।

এই ভাইরাস আমাদের চেয়ে কয়েক মাস এগিয়ে আছে।

মাস্ক সবচেয়ে কার্যকর প্রটেকশন। টিকা কাজ করতেও পারে, নাও পারে। ভালো মাস্ক ৯৮% পর্যন্ত সুরক্ষা দেয়।

২২ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:৫২

ঢাবিয়ান বলেছেন: মাস্কই যদি একঅমাত্র সুরক্ষা দিত তাহলে , উন্নত বিশ্বে হাজার কোটী ডলার খরচ করে আর টিকার ব্যবস্থা করত না। এখন পর্যন্ত টীকাই মুল সমাধান। ফাইজার ও মডার্নার টিকা এখন পর্যন্ত করোনার সকল ভ্যরি্যেন্ট এর বিরুদ্ধে কাযর্করী বলে জানিয়েছে বিজ্ঞানীরা। নতুন ভ্যরি্যেন্ট এলেও বুস্টার ডোজ আসবে। অক্সফোর্ডও বুস্টার ডোজ শীঘ্রই আনার কতাহ জানিয়েছে। তবে কোন দেশই নিজের দেশের চাহিদা না মিটিয়ে অন্য দেশকে টিকা দেবে না। তাই সকল সোর্স থেকেই টিকা আনার ব্যবস্থা করতে হবে।

৬| ২২ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:০৫

বিদ্রোহী সিপাহী বলেছেন: সরকারীভাবেই টিকার ব্যবস্থা করা যেতে পারে।

২২ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৯:১২

ঢাবিয়ান বলেছেন: করোনার টীকা স্থায়ী কোন টীকা না যে,যে কোন কোম্পানির দুই ডোজ দিলেই শেষ। একেতো যে কোন টীকার মেয়াদ এক বছরের বেশি নয় আবার যেভাবে একের পর এক ভ্যরি্যেন্ট আসছে তা মোকাবেলা করতে হলে বারংবার টিকা পরিবর্তন করে বুস্টার ডোজ আসতে থাকবে। তাই টিকা নিয়ে রাজনীতি না করে দরকার জাতীয় ঐক্য। সকল সোর্স থেকেই টিকা আনার ব্যবস্থা করতে হবে। সামর্থবানেরা টিকা কিনে নেবে আর গরীবদের ব্যবস্থা সরকার করবে।

৭| ২২ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৯:০৭

শাহ আজিজ বলেছেন: ভারতে ট্রিপল মিউটেট হয়েছে বলে জানা গেছে । শুধু টিকা নয় সাথে মাস্ক বাড়তি সুরক্ষা দেবে। আমার দুই ডোজ এর পর ১৪ দিন পার হল আজ ।

২২ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৯:১৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: যাক আপনি দুই ডোজ পেয়েছেন। অভিনন্দন । মাস্ক ও স্বাস্থবিধিতো মানতে হবেই। টীকাতো আর ১০০% সুরক্ষা দেবে না।

৮| ২২ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ১০:০১

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় তুলে ধরেছেন। যদিও মনে হচ্ছে একটা সংবাদ জানালেন মাত্র। তবু অনেক ধন্যবাদ।


যুদ্ধপরবর্তী সময়ের মত এখনো যদি সরকার নিজ দায়িত্ব প্রাইভেট কোম্পানিগুলোকে দেওয়ার চেষ্টা করে, তবে স্বাধীনতার অর্ধ শতক পর রাষ্ট্রের সফলতা কোথায়?


কেন যেন মনে হয়, এটা সরকারের ব্যর্থতার পাশাপাশি ধনাট্যদের জন্যই সরকারের চেষ্টার প্রকাশ। যা আমাদের সামনে রেনেটার খোলসে প্রকাশ পাচ্ছে মাত্র।

ব্লগার মা: হাসানের সাথে সহমত।



২৩ শে এপ্রিল, ২০২১ সকাল ৮:৩৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: যুদ্ধপরবর্তী সময়ের মত এখনো যদি সরকার নিজ দায়িত্ব প্রাইভেট কোম্পানিগুলোকে দেওয়ার চেষ্টা করে, তবে স্বাধীনতার অর্ধ শতক পর রাষ্ট্রের সফলতা কোথায়?

দয়া করে মহামারী ও টিকা নিয়েও রাজনীতি করবেন না। মানুষের জীবনের মূল্য অনেক বেশি। প্রতিদিন যেভাবে মৃত্যূর সংখ্যা বাড়ছে তা থামাতে সরকারী বেসরকারী সব ধরনের উদ্যোগের প্রয়োজন।

৯| ২২ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ১১:৫৭

করুণাধারা বলেছেন: ভারতীয় হাইকমিশনার বলেছেন আগামী চার মাস কোন টিকা দেয়া হবে না বাংলাদেশকে। আমার পরিচিত বহু মানুষ টিকা নিতে অনাগ্রহী, ফ্রিতে পেয়েও। তাই মডার্না যদি টিকা আনেও, সেটা কতটা কাজে আসবে তা নিয়ে সংশয় আছে।

আমার ধারণা এই টিকা কার্যক্রম একটা গোঁজামিল দিয়ে শেষ হবে, হয়ত চল্লিশ শতাংশের টিকা হবে।

২৩ শে এপ্রিল, ২০২১ সকাল ৮:৪৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপু , যারা টীকা নিতে অনাগ্রহী তারা মুর্খ ও অজ্ঞ। তা এই মহামারীতে হয় ইমুউন সিস্টেমের কারনে বেঁচে যাবে নাহয় করোনায় প্রান হারাবে। তাদের কথা নাহয় সরকারই ভাবুক। বেসরকারীভাবে ভাল টিকা আনার ব্যবস্থা করা গেলে আপত্তি কোথায়? কোন জোড়াজুড়িতো নাই। যাদের ইচ্ছা কিনে নেবে এবং যাদের ইচ্ছা নাই তারা নেবে না। তবে নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন যে, মডার্নার টিকা দেশে এলে কাড়াকাড়ি পড়ে যাবে। জীবন বাচাঁতে কে না সেরাটা চায় ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.