নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ঢাবিয়ান

ঢাবিয়ান › বিস্তারিত পোস্টঃ

বসুন্ধরার এমডিকে বাঁচাতে অতি তৎপর গনমাধ্যম

৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ২:২৪



চাঞ্চল্যকর মুনিয়া অপমৃত্যূ মামলা নিয়ে সোস্যালমিডিয়ায় ঝড় উঠেছে। কিন্ত আমাদের গনমাধ্যম ও আইনশৃংখলা বাহিনীর ভুমিকা অসম্ভব বিতর্কিত হয়ে উঠেছে এই ইস্যূতে।

মুনিয়ার মরদেহ উদ্ধারের পর থেকেই গণমাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তোলেন ফেসবুকে। শুরুতে বসুন্ধরা গ্রুপের এমডির নাম প্রকাশ না করা এবং পরবর্তীতে কোনো কোনা সংবাদমাধ্যম ভুক্তভোগীর ওপর দায় চাপাতে চেষ্টাও করেছে।বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীর কলেজছাত্রী মোসারাত জাহান মুনিয়ার মৃত্যুর ঘটনায় ‘আত্মহত্যা প্ররোচনার মামলা’র আসামি বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীরের দেশত্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে আদালত। কিন্তু তিনি দেশে আছেন নাকি দেশত্যাগ করেছেন, এই নিয়ে গুঞ্জন উঠেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে। যদিও এ বিষয়ে পুলিশ বা বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ কারও কাছেও সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য নেই। সুত্র ঃ প্রিয় ডট।কম

এই মামলায় ছবি,মোবাইল ডিভাইস,ডায়েরি জব্দ করল পুলিশ। অথচ মোবাইল, ডাইরির ব্যক্তিগত প্রচুর তথ্য এখন গনমাধ্যমে প্রচারিত হছে। পুলিশ কি তবে এসব গোপনীয় তথ্য , আলামত সাংবাদিকদের হাতে তুলে দিয়েছে? গনমাধ্যম জুড়ে প্রচারিত হচ্ছে শুধু মুনিয়াকে জড়িয়ে অন্য আরো অনেকের নানান কেচ্ছা কাহিনী অথচ মামলার মুল আসামী বসুন্ধরার এমডির কোন নাম নিশানাও কোথাও নাই। মামলার ভিক্টমের গায়ে দোষ চাপানোর জোড় প্রচেষ্টা চলছে লিডিং প্রায় সবগুলো গনমাধ্যমেই।

সোশ্যাল মিডিয়ায় গনমাধ্যমের নীতিহীনতা নিয়েই সবচেয়ে বেশি মানুষকে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে। এ প্রসঙ্গে একজন সাংবাদিক আনিস আলমগীর ফেসবুকে লিখেছেন, "আজ যেসব পত্রিকায়, এবং গতকাল পর্যন্ত যেসব অনলাইনে বা টেলিভিশনে বসুন্ধরার এমডি'কে নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত-প্রচারিত হয়নি, আপনি নিশ্চিত ধরে নেন, তারা মিডিয়ার মালিক হয়েছেন আপনাকে সংবাদ সরবরাহ করার জন্য নয়- নিজেদের অবৈধ ব্যবসা, নিজেদের এবং পরিবারের অপরাধ, অবৈধ কর্মকাণ্ড ঢাকার জন্য। অন্যের মিডিয়া তাকে কামড়ে দিলে পাল্টা কামড়ে দেয়ার জন্য।"

গনমাধ্যমের সাথে সাথে প্রশ্নবিদ্ধ এই দেশের আইন শৃংখলা বাহিনীর ভুমিকাও । সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান বলেছেন '' মামলাটি আত্মহত্যার প্ররোচনার না হয়ে অস্বাভাবিক মৃত্যুর হতে পারত৷ কারণ এটা আত্মহত্যা না হয়ে হত্যাও তো হতে পারে৷ তাই ময়না তদন্ত ,ফরেনসিক প্রতিবেদন ও ভিসেরা প্রতিবেদন দেখে সিদান্ত নেয়া যেত এটা হত্যা না আত্মহত্যা৷ আর তখন আত্মহত্যা হলে প্ররোচনার বিষয়টি এমনিতেই আসত৷” মামলার এজাহারটি কৌশলে দুর্বল করা হয়েছে বলে মনে করেন আইনজীবী ইশরাত হাসান৷কিন্তু ডিএমপির গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী দাবি করেন," আত্মহত্যা ও প্ররোচনার বিষয়টি স্পষ্ট হওয়ায় ওই মামলা নেয়া হয়েছে। ।ময়না তদন্ত ,ফরেনসিক প্রতিবেদন ও ভিসেরা প্রতিবেদন না দেখেই কিভাবে আত্মহত্যা ও প্ররোচনার বিষয়টি স্পষ্ট হল এই প্রশ্ন এখন সবার।

কার কাছে বিচার চাইব আমরা? অপরাধের বিচার করার দায়ভার যাদের হাতে, সঠিক খবর গনমাধ্যমে প্রকাশ করে ন্যায় বিচারের দাবী তোলার দ্বায়িত্ব যাদের হাতে তারা সবাই অতি তৎপর অপরাধীকে আড়াল করতে!!

মন্তব্য ২১ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (২১) মন্তব্য লিখুন

১| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ২:২৮

অধীতি বলেছেন: হত্যাকারীই বিচারক।

৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৪:১৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: একদম ঠিক বলেছেন। আইন, আদালত , গনমাধ্যম সব হাতের মুঠোয় অপরাধীদের । তারা যেভাবে বলে, সেভাবেই পরিচালিত হয় সব কিছু।

২| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৩:১৫

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:
গণমাধ্যমের পক্ষপাত ক্ষমতাসীনদের অনুকুলে দু:খজনক।

৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৪:২২

ঢাবিয়ান বলেছেন: '' কলমের কালি শহীদের রক্তের চেয়েও পবিত্র'' এই বচন শুনেই বড় হয়েছি আমরা। কিন্ত বাস্তবে কি দেখছি ?

৩| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৪:০০

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
আগে জানতাম
গরীবের বিচার নাই !!
এখনতো মনে হয়
ধনীদের বিচার নাই!

৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৪:২৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: বিচার শব্দটাই এখন একটা তামাশা।

৪| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৪:১১

রানার ব্লগ বলেছেন: তৈল মর্দন করে যে শ্রেনী বড় হয় তাদের কাছ থেকে আর যাই হোক ন্যায় অন্যায়ের বোধ পাবেন না।

৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৪:২৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: সাংবাদিক শব্দটা এখন একটা গালি বলে মনে হয়। টাকার বিনিময়ে যারা কলম বেঁচে তাদের চেয়ে নিকৃষ্ট কীট দ্বীতিয়টা আর নাই।

৫| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৪:৪৬

অপু তানভীর বলেছেন: এইবারই তো প্রথম না । এর আগে একই পরিবারের আরেক সন্তান খুণের মামলা থেকে ছাড় পেয়েছিলো । তখন অবশ্য এতো সোস্যাল মিডিয়া ছিল না । যা ছিল সংবাদ পত্র । তখনও বেশির ভাগই চেপে গিয়েছিলো । রাইভাল গ্রুপের সংবাদ পত্র তখন যা একটু খবর ছাপিয়েছিলো !

৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৩০

ঢাবিয়ান বলেছেন: ২০০৬ সালের ৪ জুলাই রাতে গুলশানের একটি বাড়িতে খুন হন বসুন্ধরা টেলিকমিউনিকেশসন্স নেটওয়ার্ক লিমিটেডের পরিচালক সাব্বির।সাব্বির খুন হওয়ার কিছুদিন পর সানবীর দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান। তৎকালীন বিএনপি সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর তাকে দেশত্যাগে সহায়তা করেছিলেন।বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে গ্রেপ্তার হওয়ার পর বাবর জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেন যে তিনি সানবীরকে খুনের মামলা থেকে বাঁচাতে বসুন্ধরা গ্র“পের মালিকের কাছ থেকে ২১ কোটি টাকা ঘুষ নিয়েছিলেন।

বিএনপি আওয়ামিলীগের রাজনীতির মাঝে কোন পার্থক্য নাই। তবে সেই সময়ে সাংবাদিকরা এই জমানার মত এতটা নিল্লজ্জ আর বিবেকহীন ছিল না বলেই শেষ পর্যন্ত পতন হয়েছিল হাওয়া ভবনের।

৬| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:২৮

জগতারন বলেছেন:
মানুষ যতদিন নিজের বিবেক সঠিকভাবে বিবেচনা করবেন না
তত দিন মানুষ বলে দাবি করতে পারেন না।

৭| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৩৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: সাংবাদিক আনিস আলমগীর সত্য কথা লিখেছেন। এজন্য পুরাই হতাশ।

অতীতের মতোই সব নাটক সাজানো হবে। সাক্ষী, আলামত, কিছুই পাওয়া যাবে না।

৮| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:২৭

শাহ আজিজ বলেছেন: এবারের এই কেসটি ভিন্ন মাত্রা পাবে । কোন এক পুলিশ অফিসার ঝেড়ে ডাইরি আর ফোনালাপ ফাস করে দিয়েছেন । ওই বিষয়গুলো কাটিয়ে বের হয়ে আসা বেশ কঠিন হবে । শারুর চৌধুরী সাক্ষী হিসাবে দাঁড়ালে কেল্লা ফতে । আমি অনেক আগে থেকেই সাঙ্ঘাতিক আর প্রস ক্লাব উচ্চারনে অভ্যস্ত হয়ে গেছি , আমার দোষে নয় , জেনেরিক ম্যাপ পাল্টে গেছে । মেয়েটি বিচার পাক এই আমার কামনা ।

৯| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:০৪

নেওয়াজ আলি বলেছেন: সকল অন্যায় অবিচার দুর হোক নিপাত যাক জুলুমবাজ I দুই পাশে দুই সম্পাদক মাঝখানে ওই বদমাশ ছবি দেখে বুঝা যায় সাংবাদিক আজ পচা

১০| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:২৪

আমি নই বলেছেন: কাক যে কাকের মাংস খায়না সেটাই প্রমান করতেছে। আমি ভাবছিলাম রাইভাল গ্রুপগুলোর মালিকানাধিন পেপারগুলো অন্তত কিছু লিখবে কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে বিপদে পরলে ওরা সবাই এক হয়ে যায়। শুধু একতা নাই আমাদের সাধারন জনগনের।

১১| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:৩৯

কামাল১৮ বলেছেন: বিচার পাক আর না পাক,দেশের মানুষ অনেক সত্য জেনে গেছ।এই অন্যায়ের বোঝা যখন অনেক ভারী হবে তখন বহন করবার ক্ষমতা থাকবে না এই অন্যায় কারিদের।

১২| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:৫৮

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: এখন গণমাধ্যম সরকারের একটা অঙ্গসংগঠনের মত কাজ করছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আর ব্লগই ভরসা। বেশীরভাগ মানুষ এখন মুনিয়ার চরিত্র বিশ্লেষণ নিয়ে ব্যস্ত। কিন্তু এটা বুঝতে চাচ্ছে না যে এই ধরণের প্রভাবশালীদের বিচারের আওতায় না আনা গেলে এই ধরণের ঘটনা ঘটতেই থাকবে। সমাজের প্রয়োজনেই এই অপমৃত্যুর বিচার প্রয়োজন। আর এই অপরাধীরা শুধু নারীঘটিত অপরাধই করে না। এদের পুরনো রেকর্ডে আরও অনেক ধরণের অপরাধ আছে যেগুলির বিচার হয়নি। লোভে বা অভাবের কারণে অনেক নারী নিজেকে পণ্য বানায়। এটা সব দেশেই কম বেশী আছে। এটা একটা সামাজিক ব্যাধি। কিন্তু হত্যাকাণ্ড/ অপমৃত্যু অনেক অপরাধের চেয়ে অনেক বেশী ভয়ংকর একটা অপরাধ। মুনিয়া দোষ করেছে তাই সাজা পেয়েছে। এই মনোভাব নিয়ে অনেকে এখন বিচারের প্রয়োজনীয়তাকে খাটো করছে। এটা ভালো লক্ষণ না।

১৩| ০১ লা মে, ২০২১ রাত ২:১৩

ইফতেখার ভূইয়া বলেছেন: আমি আগেও বলেছি এখনো বলছি, সমগ্র পৃথিবীতে আমরা জাতি হিসেবে অত্যন্ত নিচু শ্রেনীর। যারা নিজেদের নিয়ে খুব উচ্চ ধারনা পোষণ করেন, তাদের বলবো দয়া করে পৃথিবীটা ঘুরে দেখে আসুন। নিজের সংকীর্ণ মানসকিতার রূপরেখা নিয়ে একটা স্পষ্ট ধারনা পাবেন।

১৪| ০১ লা মে, ২০২১ সকাল ৯:২০

সাইফুল১৩৪০৫ বলেছেন: মিডিয়াগুলা দেখছে বসুন্ধরা থেকে বিজ্ঞাপন প্রাপ্তি বন্ধ হয় কি না! কারণ টিভি চ্যানেলগুলা হইতেছে বিজ্ঞাপনের বাক্স।

১৫| ০৫ ই মে, ২০২১ রাত ১২:৩২

রাজীব নুর বলেছেন: শেখ হাসিনা নড়াচড়া না দিলে কিছুই হবে না। এখন কথা হলো উনি চনড়াচড়া দিবেন কিনা।

১৬| ১২ ই মে, ২০২১ রাত ১১:৫১

সোহানী বলেছেন: টাকার কাছে সবার বিবেক বন্ধ। এ আর নতুন কি?

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.