নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ঢাবিয়ান

ঢাবিয়ান › বিস্তারিত পোস্টঃ

বাংলাদেশ ক্রিকেটের দুরাবস্থার কারনসমুহ -

০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ বিকাল ৫:৩৯

টি২০ বিশ্বকাপে যে বাংলাদেশ দল দেখেছি আমরা তা আমাদের পরিচিত বাংলাদেশ ক্রিকেট দল নয়, যে দলকে এই দেশের জনগন ভালবেসে টাইগারদের দল হিসেবে আখ্যায়িত করে। যে কারনগুলো ক্রিকেটের আজকের এই ধংশস্তুপে পরিনত হওয়ার পেছনে দায়ী বলে মনে করা হয় তা কিছুটা তুলে ধরতে চাচ্ছি অন্যান্য ক্রিকেট প্লেয়িং দেশগুলোর প্রেক্ষাপটে অর্থাৎ যেসব নজির অন্যান্য দেশগুলোতে নাই।

১। জনাব নাজমুল হাসান পাপন ক্রিকেট বোর্ডের দায়িত্ব নিয়েছেন ২০১২ সালের দিকে।আজ নয় বছর পার হয়ে প্রায় দশ বছর হতে চললো তিনি সভাপতির দ্বায়িত্বে আছেন। অন্য ক্রিকেট প্লেয়িং দেশগুলোতে খোজ নিলে দেখা যাবে দশ বছরে দশজন সভাপতি পরিবর্তন হয়েছে। তিনি আবার বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের বর্তমান সংসদ সদস্যও !

২। বাংলাদেশের ক্রিকেটের বড় ক্ষতির একটি কারণ মাশরাফি। জাতীয় দলে অধিনায়ক থাকা অবস্থায় রাজনীতি শুরু করেছেন ,এমপিও হয়েছেন। যে মাশরাফিকে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে একতাবদ্ধ ও উজ্জীবিত করার অন্যতম ফ্যকটর মনে করা হত সেই মাশরাফি এমপি হবার পর পুরোপুরিই বদলে যান।বাংলাদেশ দলে ভাঙ্গন ধরা শুরু হয় সেই সময় থেকে।

৩। মাশরাফির পর একই অবস্থা আমরা দেখেছি সাকিবের ক্ষেত্রেও। সাকিবের উদ্ধত ও আনপ্রফেশনাল আচরনের পেছনেও দায়ী দেশীয় রাজনীতি।

৪।ঘরোয়া ক্রিকেটে সীমাহীন দুর্নিতি । দেশের আনাচে কানাচে থেকে ট্যালেন্ট বের করে আনার প্রক্রিয়া এক প্রকার অনুপস্থিত এখন। স্বজনপ্রীতিই এখন মূখ্য প্রক্রিয়া ক্রিকেটারদের দলে চান্স পাওয়ার ক্ষেত্রে।

৫। ক্রিকেটার পরিবারদের ক্রিকেটকে নিয়ে আজেবাজে ফেসবুক স্ট্যটাসও অনেকখানি দায়ী ক্রিকেট দলের খেলোয়ারদের মধ্যে অন্তর্দ্বন্দ তৈরীতে । সম্প্রতি উম্মে শিশিরের এক ফেসবুক স্ট্যটাস ভাইরাল হয়েছে যেটাতে সাকিবপত্নী লিখেছেন, 'আমরা কি ২০১৯ বিশ্বকাপ নিয়ে একটু কথা বলতে পারি? আমি ভাবছি কিভাবে আমরা ভারত, পাকিস্তান, ইংল্যান্ড অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডের মতো বড় দলের বিরুদ্ধে জিততে পারিনি; যখন আমাদের গতি তারকারা এবং তথাকথিত সেরা ওপেনিং জুটি ছিল! কী ভুল হয়েছিল ওই ম্যাচগুলোতে কৌতূহলী মন জানতে চায়! যদি আমরা সেই ভুলগুলোর কিছু নিয়ে আলোচনা করার জন্য তখন কিছু টক শো করতাম, তাহলে আজ আমাদের ব্যর্থ হতে হতো না!' সেসব ম্যাচে কী ভুল হয়েছিল, আমার কৌতহূলী মন তা জানতে চায়। সেই একই অবকাঠামো এখনো আছে, তাহলে এখন এত কথা হচ্ছে কেন। তখন যদি টকশোতে সেসব ভুল নিয়ে আলোচনা হতো, তাহলে এখন ব্যর্থ হতে হতো না।’ স্ট্যটাসটা দেখার পর প্রথমেই যে কথাটা মনে হয়েছে সেটা হচ্ছে '''হু ইজ শিশির'' ? ক্রিকেটারদের সমালোচনা করে পোস্ট দেয়ার সে কে ? শিশির , তামিম মাশরাফিদের কটাক্ষ করে বক্তব্য দেয়ার পর মাসরাফির ভাইও পালাটা বক্তব্য দিয়েছে!!

আরো কিছু কারন ব্লগারদের তুলে ধরার আহবান জানাচ্ছি ।

মন্তব্য ১৭ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (১৭) মন্তব্য লিখুন

১| ০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ বিকাল ৫:৫৭

চাঁদগাজী বলেছেন:



করোনার মাঝে নতুন মহামারী?

২| ০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:০৭

ঋণাত্মক শূণ্য বলেছেন: বাংলাদেশ ক্রিকেটের সব থেকে বড় সমস্যা হচ্ছে এইধরণের লেখা যারা লিখে তারা। দ্বিতীয় সমস্যা হচ্ছে এই খেলোয়াড় গুলারে চিকন বেত দিয়ে পিটানোর কোন ব্যবস্থা না থাকে।

পুরা একটা দল না পারলে কাইন্দা জিততে চায় মনোভাব নিয়ে মাঠে নামে। হারে নিজেদের খারাপ খেলার দোষে, দোষ সব পাপনের!

এই খেলোয়াড় গুলা যদি যোগ্যই না হয়, আজকেই তাদের চাকরী থেকে বাদ দিয়ে দেশের ক্রিকেটে নিষেদ্ধ করে দেওয়া হোক। আগামীকাল যাদের নেওয়া হবে, এরা এমনেই ডরে ঠিক হয়ে যাবে।

একবার পাকিস্তানের সাথে ২/৩ রানে হারলো, আরে কান্দন; পত্রিকায় নিউজ, কাপ জিততে না পারলেও মন জিতে নিছে। পুরা জাতি তাদের মাথায় নিয়ে নাচতে লাগলো। এই মনোভাব যদি আমরা রাখি তাহলে এরা ভালো খেলবে কি করে?

নিজেদের দ্বায়িত্ববোধ নাই; খালি লম্বা লম্বা লেকচার আর বিজ্ঞাপন করার ধান্ধা। একএকজন সুন্দরী বউ গোছায়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস, আর একজন অন্যের বউ নিয়া চম্পট।

আগে এগুলিরে প্যাদায় সায়েস্তা করা দরকার।

০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ রাত ৮:৪৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: গাছের গোড়ায় সমস্যা থাকলে , ডালপালা কেটে কোন লাভ হয় না ।

৩| ০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:২৮

রূপক বিধৌত সাধু বলেছেন: একটা-দুইটা ম্যাচ জিতলে সরকার এদের বাড়ি-গাড়ি দিয়ে মাথায় তুলে ফেলে। এগুলোও বন্ধ হওয়া দরকার।

০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ রাত ৮:৪৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: পুরোপুরি একমত। খেলার জন্য এমনিতেই খেলোয়াররা বিড়াট অংকের টাকা পায়।

৪| ০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৪৬

চাঁদগাজী বলেছেন:



খেলায় জিতলে ঘরবাড়ী/টাকাপয়সা না দিয়ে নতুন করে বিয়ে করিয়ে দেয়া হোক, দেখা যাক অবস্হা কোনদিকে যায়!

০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ রাত ৮:৪৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: খেলোয়ারদের নৈতিক স্খলন রোধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় কি?

৫| ০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৫৬

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: দেশে কোন দুর্নীতি নেই অথচ ক্রিকেটে দুর্নীতি আসলো কোথা থেকে।নিশ্চয় ইহুদি নাসারাদের ষড়যন্ত্র ।

০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ রাত ৮:৫৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: ষড়যন্ত্র !!!!!!!!!!!!!!!!!!

৬| ০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ রাত ৯:৩৪

নূর আলম হিরণ বলেছেন: বাংলাদেশের মানুষের অতি আবেগের জন্য এই খেলাটির বাণিজ্যিকরণ খুব দ্রুতই হয়েছে। তা হোক সমস্যা নাই কিন্তু কোনো ব্যবসায়িক পণ্য বা সেবার মান উন্নত করার জন্য দিন দিন চেষ্টা করা হয়। আর আমাদের বিসিবি এক্ষেত্রে উল্টোটাই করছে।

৭| ০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ রাত ৯:৩৭

রাজীব নুর বলেছেন: রাজনীতিবিদরা দেশের জন্য রাজনীতি করেন না। তাঁরা টাকা আর ক্ষমতার জন্য রাজনীতি করেন।
তেমনি খেলোয়াড়রা দেশের জন্য খেলে না। তাঁরা খেলে টাকার জন্য। বিজ্ঞাপন করার জন্য।

৮| ০৫ ই নভেম্বর, ২০২১ রাত ১১:০৪

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: আপনার সবগুলি পয়েন্টের সাথে একমত। বিশেষ করে পাপন সাহেব কেন এত বছর ধরে দায়িত্বে আছেন বোধগম্য নয়। বাংলাদেশের ক্রিকেট ওনার ব্যক্তিগত সম্পত্তিতে পরিনত হতে বেশী দেরি নাই।

৯| ০৬ ই নভেম্বর, ২০২১ ভোর ৫:৫০

নেওয়াজ আলি বলেছেন: সাবের হোসেন চৌধুরী অনেকটা সত্যই বলেছেন।

১০| ০৬ ই নভেম্বর, ২০২১ সকাল ৭:০১

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: বাংলার টাইগারদের মানসিক শক্তির যে দৈন্যতা দেখা যাচ্ছে তা দেখে কার্টুনের পরাজিত ও বিধ্বস্ত সৈনিকদের কথাই মনে করিয়ে দেয়।

বাংলাদেশ এখন ক্রিকেট বিশ্বকাপের সুপার এইট দলগুলো বাদ দিয়ে নামিবিয়া, ভানুয়াতু, উগান্ডা, পাপুয়া নিউগিনির মতো দলগুলো নিয়ে উন্নয়নশীল ক্রিকেট বিশ্বকাপ নাম টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করতে পারে। এতে ধীরে ধীরে দলটির উন্নতি হতে পারে এবং উন্নয়নশীল থেকে মধ্যম আয়ের ক্রিকেট দলে পরিণত হবার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায় না।

বিপিএল নামক ফাইজলামিতে যে ক্রিকেটার অংশ নেবে তাকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণে বিরত রাখতে হবে। বিপিলে ঝড়ে বক মারা ব্যাটিং করতে করতে এদের অভ্যাস এমনি বদ পর্যায়ে চলে গিয়েছে যে ক্রিকেট বিশ্বের শীর্ষ দলগুলোর সাথে খেলতে গিয়ে প্রত্যেকটি বাংলাদেশী ক্রিকেটার পিচ, বল, খেলার পরিস্থিতি না বুঝেই চোখ বুঝে 'মার্ ঘুরিয়ে' স্টাইলে ব্যাটিং করে। এই বদভ্যাসের দাসগুলোকে বিদেশে না পাঠানোই উত্তম। আর বিপিএলে তো এরা ভালোই মালপানি কামাচ্ছে - এদের সরকারি পয়সায় মোটাতাজা করার কোনো প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না।

১১| ০৬ ই নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:৪৯

জ্যাকেল বলেছেন: বাংলাদেশের ক্রিকেট বোর্ডে সীমাহীন দুর্নিতি ঠাই পেয়েছে আর তার বাস্তব প্রতিফলন হইতেছে এই টি ২০ কাপের ব্যর্থতা। মনে আছে সাকিবের বার বার বেয়াদবি? মানুষ এমনইতে কি বেয়াদবি করে? আম্পায়ারদের বিরুদ্ধে কঠিন ব্যবস্থা নেওয়া হয় যদি তারা প্রভাবশালী দল জিতিয়ে না দেয়। খুব কমই মিডিয়ায় আসে কারণ ওরাও তো আরেক বাটপারের দল। ক্রিকেটাররা একবার মাঠে খেলা ছেড়ে চলে যায়, একবার নো বলের বন্যায় ভাসিয়ে দেয় তো আরেকবার স্টাম্প নিয়ে ছূড়ে ফেলে দেওয়া। কত বলব?

১২| ০৬ ই নভেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:৪০

নীল আকাশ বলেছেন: বাংলাদেশের এই ক্রিকেট দলের প্রতিটা প্লেয়ারকে ঢাকার বড় কোন রাস্তার পাশে নিয়ে চিকন জালি বেত দিয়ে পাছার ছাল তুলে ফেলা দরকার। একবার এইভাবে শাস্তি দিলে বাকিগুলি আর জীবনেও এই দৃশ্য ভুলবে না। মাঠ নামলে উলটা পাল্টা কোন ভুলও করবে না।

এদের কারোই নিজেদের দ্বায়িত্ববোধ নাই। খালি লম্বা লেকচার দিয়ে বেড়ায়। সারাদিন বিজ্ঞাপন করার ধান্ধা থাকে। এদের প্রধান ধান্দা হচ্ছে সুন্দরী কোন বউ গোছায়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস দেয়ার। অন্য আরেকজনের বউ নিয়ে চম্পট দেয়াটাকে এরা খেলোয়ারী জীবনের সার্থকতা মনে করে।

এবং সবশেষে পাপন সহ বোর্ড এর সকল সদস্যদের বাধ্যতামূলকভাবে তিন বছর পাবনা মানসিক হাসপাতালে রাখা হোক শাস্তি স্বরূপ। এরা কোটি কোটি টাকা নয় ছয় করেছে, এই শাস্তি দিতেই হবে।

১৩| ২২ শে ডিসেম্বর, ২০২১ রাত ১০:২৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: পাপন সাহেবকে ব্যর্থতার দায়িত্ব নিয়ে পদত্যাগ করতে হবে। তিনি অনেক সময় পেয়েছেন (প্রায় দশ বছর), কিন্তু দলকে সুসংগঠিত করতে পারেন নি। ব্যর্থতার দায়ভার মূলতঃ প্রাথমিকভাবে সংগঠন-প্রধানের উপরেই বর্তায়, তারপরে অনুসন্ধান সাপেক্ষে অন্যদের উপর।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.