নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সব কিছুর মধ্যেই সুন্দর খুঁজে পেতে চেষ্টা করি............

জুল ভার্ন

সামু, আমার প্রিয় সামু-প্রত্যাশা পুরণে ব্যার্থতার ভারে নূহ্য! বর্তমান সামু কোনো দিন প্রত্যাশিত ছিলনা-তাই আপাতত সামু চর্চা বন্ধ। আপাতত সামু নষ্টদের দখলেই থাকুক। যদি মডারেটর চান-তাহলেই সামু আবার ফিরে আসবে স্বমহিমায়, ফিরে আসবো আমিও অনেকের মতই। ভালো থেকো প্রিয় বন্ধুরা। সকলের জন্য শুভ শুভ কামনা। * প্রানবন্ত কল্পনাশক্তির প্রয়োগে স্বচ্ছ ভাবনা আর বাস্তবতার মিশেলে মানুষ ক্রমশই সংকীর্ণ আর ক্ষুদ্র গন্ডিতে আবদ্ধ হয়ে যাচ্ছে।সব কিছু ছোট হয়ে যাচ্ছে, ছোট হয়ে যাচ্ছে আমাদের চিন্তা শক্তি-ছোট হয়ে যাচ্ছে আমাদের মন। আসুন পারস্পরিক মূল্যবোধ বিনিময়ে নিজ নিজ ভুল্গুলো শুধরে নিয়ে নিজেকে বিকশিত করি।

জুল ভার্ন › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমার দুই সত্তা....

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৪১

আমার দুই সত্তা...

পড়া ও লেখা কেন্দ্রীক আমার ভেতর দুজন মানুষ আছে। একজন পাঠক, আরেকজন কথক। আমার কথকসত্তা আমার পাঠকসত্তার জঠর হতে জন্মেছে। আগে আমি শুধু পাঠকই ছিলাম। শুধুই পড়তাম। কিছু লিখতাম না।

আমি সব ধরনের বই কমবেশি পড়তাম। পড়ার কোনো নিয়ম ছিল না। যদিও আমি সব কিছুতেই নিয়ম মেনে চলি। পড়তে পড়তে আমার একটা পছন্দের ধারা হল। চিন্তার একটা নিজস্ব প্রক্রিয়া- এভাবেই চলছিল।

কিন্তু কোনো লেখকই আর আমার পাঠকসত্তার মন ভরাতে পারছিলেন না। এমনকি আমার প্রিয়তম কবি/ লেখক আল মাহমুদ, আবুল হাসান, সুকান্ত, বিভূতিভূষণ বা জীবনানন্দ দাস- তাঁদের সঙ্গেও আমি পুরোটা একমত হতে পারছিলাম না।

যেকোনো বই, লেখা পড়ে মনে হত, প্রত্যেকটা বইয়ের লেখক তার নিজের কথা বলছে এবং তাদের কারুর সঙ্গেই আমি সম্পূর্ণ সহমত নই। চোখ বন্ধ করে দেখতাম রাসেল, কাম্যু, চেখভ, রবীন্দ্রনাথ, মার্কস, গোর্কি, নজরুল, সৈয়দ শামসুল হক, সুনিল, বিভূতি, মানিক...সবাই নিজের কথা বলছেন। কিন্তু কারুর কথায় আমি পাঠক হিসেবে তৃপ্তি পাচ্ছি না। আমার পাঠকসত্তা অতৃপ্ত। ভুখা। আমি 'প্রো লেখক' পাঠক নই।

পড়লেই নিজের কিছু লিখতে ইচ্চে হতো। আমিও লিখতাম, যা ইচ্ছে তাই। টুকরোটাকরা কাগজে লিখে নিজে নিজেই পড়তাম। কখনও খুশি হতাম, কখনও বলতাম, ধুসশ্লা হল না!

স্কুল কলেজ পেরিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে নিজের পাঠপিপাসা মেটাতে গিয়ে এমনই করে অনেক ছেঁড়া কাগজের স্তূপ জমল। আমার পরিবারের সদস্যরা, বন্ধুরা আমার লেখা পড়তো।

আমি অবাক হয়ে দেখি, পরিবারের সদস্যদের বাইরেও দুয়েকজন আমার লেখাগুলো পড়ে ভাল বলেছে। আস্তে আস্তে সংখ্যাটা বাড়ে। এই করতে করতেই অনেকের বন্ধুত্ব পাই। বিভিন্ন পত্রিকা ম্যাগাজিনে লেখা পাঠাতে থাকি। দুই একটা পত্রিকা লেখা ছাপলে খুব উৎসাহ পাই। কারুর কারুর যে আমার লেখা ভাল লেগেছে, এটা জেনে আমার আনন্দ তত হয় না, যত না অবাক লাগে!

শুরু হলো এক নতুন নেশা। বিভিন্ন পত্রিকায় লেখা পাঠানোর নেশা। একদিন অবাক করে আমার একটা লেখা ছাপা হলো তখনকার অভিজাত সাহিত্য পত্রিকা সাপ্তাহিক সন্ধানীতে। নামীদামী পত্রিকার মধ্যে সন্ধানীতে মাঝেমধ্যেই লেখা বের হতে লাগলো। নিজের প্রতি আস্থা বেড়ে গেলো। সন্ধানী সম্পাদক গাজী শাহাবুদ্দিন স্যার আমাকে খুব স্নেহের চোখে দেখেন।

আমি সন্ধানী অফিসে যাই। অনেক বিখ্যাত লেখক, বামপন্থী রাজনীতিবিদদের সাথে দেখা হয়, কথা হয়। টিএসসি, আজিজ, পল্টন এলাকার সব আঁতেল কিসিমের লোকেরাই আমার পরিচিত, বন্ধু। তবে বামপন্থীদের সাথে আমার আদর্শিক সম্পর্ক বিপরীত হওয়ায় ওদের সাথে থেকেও আমি আলাদা! অনেকেই আমাকে ভালো জানেন কিন্তু আমার লেখা তাঁদের ভাল লাগে না কিম্বা আমার লেখা ভালো লাগে, আমাকে অপছন্দ করে। এতে আমি দুঃখ পাই না। অবাক হই না। কারণ, এটাই স্বাভাবিক। আমারও তো আমার নিজের লেখার মনোমত অংশগুলো ছাড়া অন্য কোনো লেখকেরই লেখা পুরোপুরি ভাল লাগে না, সে তিনি যত বড়ই হোন না কেন।

আমি আমার লেখার পরিধি বাড়াই। তখনকার সবচেয়ে অভিজাত পত্রিকা সাপ্তাহিক বিচিত্রায় ঘোরাঘুরি করি কিচ্ছু হয়না। শুরু করি পকেটের পয়সা খরচ করে ব্যক্তিগত বিজ্ঞাপন দেওয়া...বিখ্যাত এবং অখ্যাত জাতীয় কিম্বা বিজাতীয় সব দৈনিক, সাপ্তাহিক পত্রিকায় ঘোরাঘুরি করি কিন্তু আশাব্যঞ্জক কিছুই হয়না। ইতোমধ্যে "পাঠকই যার লেখক" শ্লোগানে নতুন ক্রেজ শফিক রেহমান স্যারের যায়যায়দিন আমার বেশ কয়েকটা লেখা প্রকাশ করে। মোটামুটি লেখালেখির জগতে আমাকে দুই একজন চিনতে শুরু করে,সেটা যতনা লেখক হিসেবে তার চাইতে অনেক বেশী সাংস্কৃতিক কর্মী বন্ধু হিসেবে।

অর্ধশতাধিক বয়সে লেখালেখির জগতে সোস্যাল মিডিয়ায় নতুন দ্বার উন্মোচন করে বাংলায় প্রথম ব্লগ সাইট সামহোয়্যারইন ব্লগ.নেট। দেখতে দেখতে সামু ব্লগে দুই আইডিতে প্রায় সাত শতাধিক ব্লগ লিখি। একটা ভিন্ন জগৎ পাই অম্লমধুর অভিজ্ঞতায়। যেখানে যৎসামান্য তিক্ততা বাদ দিয়ে সুন্দর ও সৃজনশীলতাই বেশী।
ইতোমধ্যে সোস্যাল মিডিয়ায় আরো কয়েকটি ব্লগ সাইট, ফেসবুক, টুইটারে সক্রিয় হলেও সামু ব্লগের সাথে কোনো কিছুরই তুলনা হয়না। নিঃসন্দেহে সামু ব্লগ পাঠক -লেখক তৈরির অন্যতম প্লাটফর্ম হিসেবে প্রতিষ্ঠিত এবং প্রকৃতপক্ষেই সোস্যাল কমিটমেন্ট রক্ষায় অনন্য।

তবে আমি এটা বেশ স্পষ্ট করে বুঝেছি, আমি লেখক না। আমি কথক। বা তার থেকেও ভাল করে বললে, আমি একজন পাঠক। আমার নিজস্ব পাঠকসত্তার তৃপ্তির জন্যই আমার কথকসত্তা জন্মেছে। এখন আমি নিজেকে একজন ভালো পাঠক দাবি করতেই স্বাচ্ছন্দ বোধ করছি।

মন্তব্য ৫১ টি রেটিং +১১/-০

মন্তব্য (৫১) মন্তব্য লিখুন

১| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৪৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আমার মনে হয়, আমাদের প্রত্যেকের ভিতরেই এই দুই সত্ত্বা আছে। কারোটা প্রকাশ পায়, কারোটা পায় না। তাছাড়া, আমরা ক'জনেই বা নিজেদের ভিতরের শক্তিকে উপলব্ধি করতে পারি! যারা পারে, এবং একটু চেষ্টা করে, তারা বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই সফল হয় বলে আমার ধারনা।

'কথক' হিসেবেই আপনার কাছ থেকে নিয়মিত লেখা আশা করছি। :)

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:১২

জুল ভার্ন বলেছেন: ছয় বছর পর ব্লগে ফিরে প্রথম মন্তব্য পেয়েছি আপনার কাছথেকে। আত্মস্থ হতে একটু সময় লাগবে।
ধন্যবাদ।

২| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৫৭

অপু তানভীর বলেছেন: কেমন আছেন জুলভার্ন ভাই ?
অনেক দিন পরে আপনার দেখা পেলাম । ব্লগের পর ফেসবুকে অনেক দিন যুক্ত ছিলাম । তারপর হঠাৎ করে আপনাকে আর খুজে পাই নি ।
অনেক দিন পর আপনাকে দেখে ভাল লাগছে । ব্লগ লিখছেন আবার দেখে ভাল লাগলো !

সব সময় ভাল থাকুন !

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫৮

জুল ভার্ন বলেছেন: বেঁচে আছি তাই ভালো আছি।
প্রায় ছয় বছর পর ব্লগে এলাম।
ফেসবুকেও বছর খানেক নাই।

শুভ কামনা।

৩| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৫৮

নুরহোসেন নুর বলেছেন: পাঠক থেকেই লেখক,
আমরা সকলেই ভাল পাঠক হলে এমনিতেই ভাল লেখকের জন্ম হবে ।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫৪

জুল ভার্ন বলেছেন: সহমত।

৪| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:১০

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: অভিনন্দন হে। সুস্বাগতম।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫৯

জুল ভার্ন বলেছেন: লাভ য়্যু সো মাচ ভাইয়া।

৫| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:১৬

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: অনেক অনেক দিন পর আবার আপনার পোস্ট দেখতে পেলাম । শুভ কামনা করছি।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:০০

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ সাজ্জাদ।

৬| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:২২

আহমেদ জী এস বলেছেন: জুল ভার্ন,




সব মানুষের সাথে সব মানুষের মনের বা কথার মিল হয়না, সম্ভবও নয়। আপনার দশটি কথার সাতটিই হয়তো কারো মনপূতঃ হবে বাকী তিনটে হবেনা। তাই কোনও লেখকই কাউকে একনাগাঢ়ে সন্তুষ্ট করতে অপারগ। এটাই জগতের নিয়ম।

যে লেখক কথনের ঢংয়ে লেখেন তার লেখাই নজর কাড়ে বেশী। এতে আলাপচারিতার একটি আমেজ পাওয়া যায়।
লেখক তো শুধু লেখেনই না, পাঠও করেন।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:০৪

জুল ভার্ন বলেছেন: আমাকে মনে রাখার জন্য ধন্যবাদ আহমেদ জী এস ভাই।

সেই আগের মতোই গঠন মূলক মন্তব্য! নস্টালজিক!!!

শুভ কামনা।

৭| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:০৪

জুল ভার্ন বলেছেন: আমাকে মনে রাখার জন্য ধন্যবাদ আহমেদ জী এস ভাই।

সেই আগের মতোই গঠন মূলক মন্তব্য! নস্টালজিক!!!

শুভ কামনা।

৮| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:০৪

শের শায়রী বলেছেন: আরে এ যে টিয়াপাখি ওয়ালা এসেও হাজির। ভীষন ভালো লাগছে জুল ভার্ন ভাই আপনাকে দেখে। পুরানো মানুষ গুলো হাজির হোক সব না হলেও অন্তত কিছু মানুষ আসুক আবার জলসা বসুক।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:০৮

জুল ভার্ন বলেছেন: আমি পাঠক হিসেবে মোটামুটি ছিলাম....


তোমার চমৎকার দুঃখ পোস্ট পড়ে সত্যিই আপ্লূত। কিন্তু মন্তব্য করতে পারছি না কারো পোস্টেই!

৯| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:১০

রাজীব নুর বলেছেন: চমৎকার লিখেছেন।
নিজের বিশ্বাসের কথা সহজ সরল ভাবে বলে গেছেন। এটা অনেকেই পারে না।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:১২

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ প্রিয় রাজীব নুর ভাই।

১০| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:০৪

বিজন রয় বলেছেন: সেই তো ফিরে এলেন, এতো দিন দূরে থেকে কি সুখ বলেন পেলেন!!

ওয়েলকামব্যাক!!
আশাকরি ভাল আছেন এবং নিয়মিত ব্লগিং করবেন।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ৮:০৬

জুল ভার্ন বলেছেন: যাওয়া কিম্বা ফিরে আসা - একান্তই ইচ্ছা নির্ভর। সুখ দুঃখ আপেক্ষিক।
ধন্যবাদ।

১১| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:২২

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
শুনছিলাম লঞ্চ থেকে ধরে আপনার লাশ গুম করে ফেলা হয়েছিল।
কাহিনীটা যদি জানাতেন ....

১২| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:১৯

কিরমানী লিটন বলেছেন: সত্ত্বার গভীরে লুকিকে থাকা মানুষটি একদিন প্রকাশ পাবেই। অতল গভীরের মুগ্ধ অনুবাদ- খুব ছুঁয়ে গেলো। ভালোলাগা খুব। পাশেই আছি - এভাবেই.....

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ৮:০৪

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ।

১৩| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ ভোর ৫:৩৩

জগতারন বলেছেন:
(মহা কবি) মাইকেল মেহেদী'র কথা মনে আছে আপনার।
একসময়য়ে এখানে লিখতেন।
সে কথায় কেমন আছে জানেন ?
আপনাকে আবার দেখে ভালো লাগছে।
ভালো থাকুন ও লিখুন মনের কথা অবশ্যই পড়বো।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ৮:১০

জুল ভার্ন বলেছেন: মাইকেল মেহেদীর কথা মনে আছে। তার সাথে কখনো ব্যক্তিগত যোগাযোগ ছিলো না, তাই তার সম্পর্কে এবং ব্লগের পুরনো বন্ধুদের দুই চার জন ছাড়া কারোর সম্পর্কেই কিছু জানিনা।

ধন্যবাদ।

১৪| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:০৭

রুমী ইয়াসমীন বলেছেন: আপনিই তাহলে কিনাদি কেএনডি ভাইয়া!!!
লিখাটা ফেসবুকেও পড়েছি বলে চিনতে পারলাম।
লিখাটা পড়ে অনেক ভালো লেগেছে। আসলেই আমার কাছেও মনে হয় আমাদের মাঝে দুটা স্বত্তা থাকে পাঠক আর কথক স্বত্তা। পাঠক হয়ে আমরা অন্যের কথা শুনি আর কথক হয়ে আমরা নিজের নিজস্ব কথা বলি।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:০০

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ।

১৫| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:১৭

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: ভায়া, আপনার ষৌল সালের শেষ পোষ্টে আপনাকে প্রথম লগিন দেখে মন্তব্য করেছিলাম।
চোখে পড়নি বোধকরি!
আপনার হঠাৎ অন্তর্ধানে সামু ব্লগের সবাই যারপরনাই চিন্তিত ছিলম।

আমি পত্রিকায় নিউজ দেখে পোষ্ট দিয়েছিলাম।
খুবই পেরেশানিতে মাঝে মাঝে খবরের খোঁজে ছিলাম।
কোন আইনি আর প্রশাসনিক বাধ্যবাধকতা থাকলে বিস্তারিত জানানোর প্রয়োজন নেই।

আপনি ফিরে এসেছেন এটাই আনন্দের।
শুভেচ্ছা অন্তহীন

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:৩৮

জুল ভার্ন বলেছেন: ন: প্রিয় ভাই আমার,কিছু অভিমান নিয়ে সামু ছেড়ে যাওয়ার পরও কিছুদিন শুধু পাঠক হিসেবে সামুর সাথে ছিলাম। তারপর দুই বছরে তিনটি পোস্ট লিখেছি। আমাকে ফিরে আসার জন্য উদাত্ত আহবান জানিয়ে আপনার ও সুরঞ্জনা আপুর পোস্ট গুগলে খুঁজে পেয়ে পড়েছি কিন্তু তখন আমার আইডি লগইন করতে পারছিলামনা।
আর গত কয়েক বছরের ঝড় ঝাপটার কথাতো সোস্যাল মিডিয়ার সবাই কমবেশি জানেন....

আপনাদের সকলের দোয়া আর ভালোবাসায় ফিরে আসতে পেরেছি সেজন্য মহান রব্বুল আলামীন এবং আপনাদের কাছে কৃতজ্ঞ। কিছু বলার সুযোগ নাই....

আপনার ফেসবুক আইডি থাকলে লিংক দিয়ে বাধিত করবেন।

ধন্যবাদ ও শুভ কামনা।

১৬| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:৩৪

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ প্রিয় রাজীব নুর ভাই।

ভালো থাকুন। সুস্থ থাকুন।

১৭| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:৫৮

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: কেমন আছেন??????

প্রত্যেক পাঠকের হৃদয়েই লেখকসত্তা থাকে। শুধু দরকার সেটার উদগীরণের !


আশাকরি নিয়মিত হবেন :)

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৪১

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ জানাই। তবে আপাতত নিয়মিত হতে পারবোনা বিভিন্ন কারণে....

১৮| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:০৫

রমিত বলেছেন: আপনার পোস্ট দেখে ভালো লাগছে।
আমিও আবার সামুতে লেখা শুরু করেছি।
এই সময়ে সামুর পাশে দাঁড়ানো দরকার।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৪৬

জুল ভার্ন বলেছেন: ভালো লাগছে পুরনো অনেক ব্লগার বন্ধুদের পেয়ে, তোমাকে পেয়েও ভালো লাগছে। ভালো লাগছে দেখেযে, এখনো আমাদের অনেকেই মনে রেখেছেন।

কিছু অভিমান করে সামুতে লিখিনি সত্য তবে কখনোই সামুকে ছেড়ে যাইনি।

ব্লগ ডে তে থাকবে নিশ্চয়ই?

১৯| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:১৫

নেক্সাস বলেছেন: জুলভার্ণ ভাইয়া, রমিত ভাইয়া আপনাদের দেখে ভিষণ ভালো লাগছে। আমিও ফিরেছি আবার। দেখি কি হয়? কতোদিন থাকা যায়? আশা করি নিয়মিত থাকবেন।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৪৮

জুল ভার্ন বলেছেন: রমিত ফিরেছে, শোভন ফিরেছে, তুমি আমি......

২০| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৫০

নতুন নকিব বলেছেন:



আলহামদুলিল্লাহ, অবশেষে আপনি ফিরে এসেছেন। পত্রপত্রিকায় বছরখানিক পূর্বে আপনার সম্মন্ধে উদ্বেগপূর্ণ খবর পড়ে চিন্তিত ছিলাম। বিশেষ করে প্রিয় বিদ্রোহী ভৃগুর দেয়া ১৮ নভেম্বর ২০১৮ এর একটি পোস্টের পরে সুস্বাস্থ্যে আপনার পুন:প্রত্যাবর্তন কামনা করে দুআ করেছিলাম।

আপনি সুস্থ আছেন এবং ব্লগে ফিরে এসেছেন দেখে সত্যি ভালো লাগছে। ভালো থাকুন সবসময়।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:০৬

জুল ভার্ন বলেছেন: আল্লাহ তাআলার রহমত ও আপনাদের দোআ'র বরকত।

২১| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৫৫

নতুন নকিব বলেছেন:



১ম মন্তব্যটা রেখে যাওয়ার পরে আপনার এই পোস্টে চোখ বুলালাম। সুন্দর। ভালো লাগলো। +++

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:০৭

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ।

২২| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:১৮

সোনালী ডানার চিল বলেছেন:
আপনাকে দেখে খুব ভালো লাগছে!
শুভকামনা সবসময়ের-

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:০৮

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ। দোআ করবেন।

২৩| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:১৮

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: শ্রদ্ধেয় ভাইজান,

গতকয়েকদিন ধরে সামুর ফেসবুক পেজে আপনাকে দেখলেও ব্লগে দেখতে উদগ্রীব ছিলাম। আমি ব্যক্তিগতভাবে বলেছিলাম সে কথা। আপনি কিছু অসুবিধার কথা জানিয়েছিলেন। আপনার অনুভূতিকে সম্মান জানাতে তখনকার মতো মেনে নিয়েছিলাম। কিন্তু মনে একটা বাসনা তৈরী হয়েছিল আপনাকে ব্লগে দেখার। আজ একারণে আপনাকে পেয়ে ভীষণ খুশি হয়েছি। আশা করব এখন থেকে আবার নিয়মিত ব্লগিং করবেন।

পোস্ট প্রসঙ্গে:-
চমৎকার বিশ্লেষণ করেছেন আমাদের দ্বৈত সত্তার। আত্মবিশ্লেষণ মূলক লেখায় দুটি ভিন্ন সত্তাকে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত প্রতিপালন করলেন চমৎকার মুন্সিয়ানার সঙ্গে পাশাপাশি ফুটিয়ে তুলেছেন নিবন্ধটির বহুমুখী চরিত্রও।
পাঠক হিসেবে জ্ঞানপিপাসু, একজন উঠতি লেখক হিসেবে প্রথম পরিচয়ে ভালোলাগার অনুভূতি তার সাফল্য ব্যর্থতা, প্রকাশ শৈলীর ব্যাপ্তিতা, মাঝে সাময়িক বিষণ্ণতা, শেষ পর্বে সামুসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নতুন করে মেলে ধরা-প্রভৃতির মধ্যে দিয়ে প্রতিটি মুহূর্তে নিজেকে নব নবরূপে প্রকাশ করার মধ্যে দিয়ে আজকের একজন পাঠকের পরিপূর্ণতা। কাজেই দিনশেষে বলাই যায়,মুই পাঠক ভিন্ন অন্য কিছু নই।হাহাহা...
আপনার সুন্দর অনুভূতিকে সম্মান জানাই। নিরন্তর শুভেচ্ছা আপনাকে।



২৪ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:৫৬

জুল ভার্ন বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ অসাধাণ সুন্দর মন্তব্যের জন্য।

২৪| ২৪ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ২:১১

অন্তরন্তর বলেছেন: খুব ভাল লাগছে আপনাকে আবার দেখে ব্লগে। আশা করি নিয়মিত আবার লিখবেন। শুভ কামনা। আগে একটা মন্তব্য করেছিলাম কিন্তু মন্তব্যটা কি বুঝলাম না।

২৪ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:৫৮

জুল ভার্ন বলেছেন: আপনার মন্তব্যআমি দেখেছি এবং রিপ্লাইকরতে যেয়ে দেখি আপনার মন্তটি নেই!
ধন্যবাদ।

২৫| ২৪ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১১:১২

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ভালো লাগলো লেখা। শুভ ব্লগিং
লিখতেই থাকুন আমরাও পাঠক হিসেবে আছি
পড়বো ইনশাআল্লাহ

২৪ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৫

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ।

২৬| ২৪ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:০৬

বিতর্কিত বিতার্কিক বলেছেন: ভাইয়া,।
আসসালামু আলাইকুম। সামুতে ঢুকিনা অনেক দিন। যখনই ঢুকি আপনার আইডি তে একটু খোঁজ নিয়ে যাই। মাঝেমধ্যে আগের লেখা পড়ি।
প্রথম যখন আপনাকে নিয়ে দুঃসংবাদ পাই তারপর থেকে কিছুদিন আমি রীতিমত ট্রমার মাঝে ছিলাম।
হঠাত দেখি আপনার নতুন লেখা। অন্য কিছু নয় স্রেফ আপনি আছে, ভালো আছেন, বেঁচে আছে এই তথ্যটুকুই যথেষ্ট আমার জন্য। পরমকরুণাময় আপনাকে সর্বাবস্থায় সুস্থ রাখুন, পরিবারের সাথে রাখুন। দেশের যে ভবিষ্যৎ দেখবেন বলে একদিন যুদ্ধ করেছিলেন সেই অবস্থা দেখার তৌফিক আল্লাহ আপনাকে দান করুন, আমাদের সকলকে দান করুন।
লগইন করিনা বহু বছর। আইডি আর পাসওয়ার্ড মনে নেই। রাখা প্রয়োজনই বোধ হয়না অনেক বছর ধরে। আপনার লেখা দেখে আবার মেইল আইডি মনে করা, পাসওয়ার্ড মনে করার চেষ্টা করা। ব্যর্থ হয়ে বহু কসরত করে রিকভার করা গেল। আপনার জন্য প্রার্থনা।
ফেসবুকে কি আছেন? কোন ভাবে কথা বলা বা দেখা করার উপায় থাকলে জানাবেন প্লিজ।

২৪ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৪

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ রাজু।
সেই ভয়ার্ত দিনগুলোর কথা বলা যাবেনা ভাইয়া। কারণ, বাইরে থেকেও এখনো সেই অবস্থাতেই আছি। অবশ্যই কথা ও দেখা হবে। দীর্ঘ ছয় বছরের অনভ্যস্ততাহেতু ব্লগের বিভিন্ন সুবিধাদির কথা ভুলে গিয়েছি তাই তোমার ফেসবুক আইডি থাকলে কিম্বা কন্টাক্ট নম্বর জানিও। আমি যোগাযোগ করবো।

শুভ কামনা।

২৭| ২৫ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৬

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: আমার প্রত্যাবর্তন অর্থবহ হোক। ভালো থাকবেন। শুভকামনা।
টিয়া পাখি দেখে মনটা জুড়িয়ে গেল।

২৫ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:২৭

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.