নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সব কিছুর মধ্যেই সুন্দর খুঁজে পেতে চেষ্টা করি............

জুল ভার্ন

সামু, আমার প্রিয় সামু-প্রত্যাশা পুরণে ব্যার্থতার ভারে নূহ্য! বর্তমান সামু কোনো দিন প্রত্যাশিত ছিলনা-তাই আপাতত সামু চর্চা বন্ধ। আপাতত সামু নষ্টদের দখলেই থাকুক। যদি মডারেটর চান-তাহলেই সামু আবার ফিরে আসবে স্বমহিমায়, ফিরে আসবো আমিও অনেকের মতই। ভালো থেকো প্রিয় বন্ধুরা। সকলের জন্য শুভ শুভ কামনা। * প্রানবন্ত কল্পনাশক্তির প্রয়োগে স্বচ্ছ ভাবনা আর বাস্তবতার মিশেলে মানুষ ক্রমশই সংকীর্ণ আর ক্ষুদ্র গন্ডিতে আবদ্ধ হয়ে যাচ্ছে।সব কিছু ছোট হয়ে যাচ্ছে, ছোট হয়ে যাচ্ছে আমাদের চিন্তা শক্তি-ছোট হয়ে যাচ্ছে আমাদের মন। আসুন পারস্পরিক মূল্যবোধ বিনিময়ে নিজ নিজ ভুল্গুলো শুধরে নিয়ে নিজেকে বিকশিত করি।

জুল ভার্ন › বিস্তারিত পোস্টঃ

বাবা, আমি মানুষের মাংস খাব!

১৪ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:২৪

এক শকুনের বাচ্চা তার বাপের কাছে বায়না ধরলো,- "বাবা, আমি মানুষের মাংস খাব!"

বাবা শকুন বলল-"ঠিক আছে বেটা, সন্ধ্যার সময় এনে দেব। শকুন উড়ে গেল আর আসার সময় মুখে এক টুকরো শুকরের মাংস নিয়ে এসে বাসায় রাখলো। বাচ্চা বলল-'বাবা, এটা তো শুকরের মাংস, আমি মানুষের মাংস খেতে চাই।'

বাপ বলল-"অপেক্ষা কর বাবা!"
শকুনটা আবার উড়ে গেল আর আসার সময় একটুকরো মরা গরুর মাংস নিয়ে এলো।

বাচ্চা বলল-'আরে এটা তো গরুর মাংস নিয়ে এসেছ, মানুষের মাংস কোথায়?'

এবার শকুনটা দুটো টুকরো একসাথে মুখে নিয়ে উড়ে গিয়ে শুকরের মাংসটি একটা মসজিদের পাশে আর গরুর মাংস একটা মন্দিরের পাশে ফেলে দিয়ে চলে এলো!

কিছুক্ষণের মধ্যেই সেখানে শুরু হলো দাঙ্গা! কয়েকশ মানুষের লাশ পড়ে গেল! তখন গাছের ডাল থেকে নেমে বাপ-বেটা মিলে খুব তৃপ্তিতে মানুষের মাংস খেল।

বাচ্চাটা খেতে খেতে জিজ্ঞেস করছে-'বাবা, এত মানুষের মাংস এখানে কি করে এলো?'

বাবা শকুন বললো- "এই মানুষ জাতটাই এরকম। সৃষ্টিকর্তা এদেরকে সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ বানিয়ে জন্ম দিয়েছেন, কিন্তু ধর্ম আর রাজনীতির নামে এদেরকে আমাদের থেকেও হিংস্র বানানো যেতে পারে!"

শকুন বাচ্চা বললো, 'তুমি ধর্মকে ব্যবহার করলে কেন, কতগুলো নীরিহ লোক মারা গেল, রাজনীতি করলেই পারতে!'

বাবা হেসে উত্তর দিল, "তাতেও নীরিহ লোকগুলোই মারা পড়তো! ধর্মটা আবেগের যায়গা তাই ফলাফলটাও তাৎক্ষণিক! তুমি আজই খেতে চেয়েছিলে! রাজনীতিটা কুটিল এবং জটিল, এটি শুরু হতে সময় নেয় কিন্তূ হলে আর থামেনা!"

শকুন বাচ্চা বললো- 'তোমার অনেক বুদ্ধি, বাবা...'!

শকুন- "আরেহ, ধুর! এটা তো আমি মানুষের কাছ থেকেই শিখছি, এদের একটা অংশ যখনই কোন অনিষ্ঠ করার চেষ্টায় ব্যর্থ হয় তখনই সহজ রাস্তা হিসেবে হয় ধর্মকে নয়তো রাজনীতিকে ব্যবহার করে........!!!


(বহুল শ্রুত গল্পটা আবারও শোনালাম)

মন্তব্য ৩৬ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (৩৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৪ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:৪৪

শায়মা বলেছেন: শকুনটার বুদ্ধি মানুষের চাইতেও বেশি আসলে।

মানুষই শকুন হয়ে যাচ্ছে গাধার মত।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:১৪

জুল ভার্ন বলেছেন: আলবাত।

২| ১৪ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:৪৪

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: দুঃখজনক হলেও অস্বীকার করার উপায় নেই যে ধর্মীয় রাজনীতিই মানব জাতির পক্ষে সবচেয়ে বড় অভিশাপ।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:১৫

জুল ভার্ন বলেছেন: একমত।

৩| ১৪ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১১:১১

কামাল১৮ বলেছেন: এটা অনেক যায়গায় করা হয়েছে,কয়েকদিন আগে কুমিল্লায়।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:১৭

জুল ভার্ন বলেছেন: প্রতিপক্ষকে শায়েস্তা করার কূটকৌশল।

৪| ১৪ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১১:১৮

জ্যাকেল বলেছেন: এর পুনরাবৃত্তি খুব বেশি হয়ে যাচ্ছে পার্শবর্তী দেশে আর আমাদের দেশেও কিছুটা। খুব দুঃখজনক।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:১৮

জুল ভার্ন বলেছেন: এসব নোংরামোতে পাশের দেশটার ভুমিকা ৯০%!

৫| ১৪ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১১:৪৭

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: ঠিক এইটাই মানুষ বুঝে না

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:২০

জুল ভার্ন বলেছেন: না বোঝার পিছনেও আছে ষড়যন্ত্র।

৬| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১২:২৫

রাজীব নুর বলেছেন: শিক্ষনীয় গল্প।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:২১

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ।

৭| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৩:০৬

নেওয়াজ আলি বলেছেন: মানুষরূপি শকুনদের রাজ চলছে

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:২১

জুল ভার্ন বলেছেন: সত্য।

৮| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৩:২৭

ঋণাত্মক শূণ্য বলেছেন: এই গল্পের মধ্যে একটা খুব গভীর চিন্তার বিষয় আছে; হয়ত লেখক সেটি মিন করেন নাই; তবে সেটিই বড় একটা বিষয়।

একজন ধার্মিক মানুষ কখনোই নিজের ধর্মের কোন রকম ক্ষতি চাইবেন না; একজন রাজনীতিবিদের বেলাতেও তাই। কিন্তু এই যে মাংসের টুকরা নিয়া যে টানাটানি ফালাইলো যে শকুন; এরা কারা? এরা ধার্মিকও না; রাজনীতিবিদও না। এরা সুবিধাভোগী।

ধর্ম কখনও মানুষকে খারাপের দিকে টানে না। যারা ধর্ম পালন করতে চায় না; চায় না যে অন্যরা ধর্মের কথা শুনুক-মানুক..... এরাই মূলত পিছন থেকে কলকাঠি নাড়ে। এরাই সব কিছু অস্থিতিশীল করে তোলে।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:২৪

জুল ভার্ন বলেছেন: সব সুবিধাবাদীতার পিছনেই আছে রাজনৈতিক দলের টাউট শ্রেণীর নেতা কর্মী সমর্থক এবং সমর্থন।

৯| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ ভোর ৫:০১

জিকোব্লগ বলেছেন:



হা হা হা।
এই বিষয়ের সহজ সমাধান: বাবা শকুনকে মেরে ফেলা।
শকুনের বাচ্চাটা যেহেতু মানুষের মাংস খেতে চায় , ওটাকেও
উহার বাপের সাথে মেরে ফেলতে হবে।
এটাই এই গল্পের শিক্ষা।

নিরীহ মানুষের মাংস খেতে যাওয়া শকুনদের মেরে ফেলেই
মানুষ প্রাণীকুলের মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে। এই টেকনিকটাই
পশ্চিমা বিশ্ব প্রয়োগ করছে। সেইজন্যেই তারা সংখ্যায় কম হয়েও
উন্নতিতে উপরের দিকে আছে। এখন তাদের দেশে যেমন
শকুনের উপদ্রবও খুবই খুবই কম, তেমনি নিরীহ মানুষের মরার
রেকর্ড ও অনেক অনেক কম।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:২৪

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ।

১০| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ ভোর ৫:৪২

জিকোব্লগ বলেছেন:



আগের মন্তব্যে একটি বিষয় অ্যাড করা হয় নি।

যদিও পশ্চিমা বিশ্ব তাদের দেশে শকুনের উপদ্রব তুমুলে
উচ্ছেদ করার জন্য বদ্ধপরিকর। কিন্তু অন্যদেশে অনেক
ক্ষেত্রেই তারাই শকুন হিসেবে কাজ করে নিজেদের স্বার্থ
উদ্ধার করে। যেমনঃ ব্রিটিশরা ভারত পাকিস্তান ভাগ
করে ধর্মের উপর ভিত্তি করে।
আর আমেরিকা ও ইসরায়েল এখনো এই গল্পের শকুন
হিসেবে অনেক দেশেই কাজ করে যাচ্ছে।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:২৭

জুল ভার্ন বলেছেন: দুনিয়ায় যাবতীয় অনাসৃষ্টির পিছনে আছে ইং-মার্কিন-ইজরায়েল এবং নব্য সাম্রাজ্যবাদী ইন্ডিয়ার কালো হাত।

১১| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৮:০৫

ইসিয়াক বলেছেন: শিক্ষনীয় গল্প। কিন্তু ... এই একই ধরনের ঘটনার শেষ নেই কোন। অনন্তকাল ধরে চলতেই থাকবে।এটাই যেন নিয়তি। স্বার্থলোভী মানুষের তৈরি এত ভেদাভেদ, হানাহানি,ষড়যন্ত্র আর দেখতে ভালো লাগে না। মানুষের শুভ বুদ্ধির উদয় হোক। মানুষ আরও মানবিক হোক।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:২৯

জুল ভার্ন বলেছেন: সাধারণ মানুষের অবশ্যই শুভ বুদ্ধি আছে কিন্তু ক্ষমতাসীনদের আগ্রাসী মনোভাব সব কিছু ধ্বংস করে দিচ্ছে।

১২| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ২:১৮

রাজীব নুর বলেছেন: ধর্ম নিয়েও কিছু লিখুন।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৯:৩৩

জুল ভার্ন বলেছেন: আমি ওই বিষয়টা সব সময় এড়িয়ে চলি।

১৩| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৮:০০

অধীতি বলেছেন: বাস্তবিক কথা।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৯:৩৩

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ।

১৪| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৮:৩৫

মেহবুবা বলেছেন: বহুল শ্রুত ? আমার প্রথম পড়া।
জানতে ইচ্ছে হচ্ছে এই লেখার আবিষ্কারক কে।

১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৯:৩৫

জুল ভার্ন বলেছেন: আমি এই গল্প অনেক আগে একাধিক বার শুনেছি। কিন্তু জানিনা কে আবিষ্কার করেছিলেন। সম্ভবত পরিস্থিতিই এই গল্পের আবির্ভাব হয়েছে।

১৫| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৯:৩৭

জটিল ভাই বলেছেন:
গৌরগোবিন্দের বাড়িতেতো সত্যিই কাকে গোশত ফেলে রেখে গিয়েছিলো। লীলা বুঝা দায়।

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১১:০৬

জুল ভার্ন বলেছেন: হ্যা তেমন মীথ প্রচলিত।

১৬| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৯:৫১

শাহ আজিজ বলেছেন: আরেব্বাহ , জোশ হইছে । মিয়া , নমো দুইটাই সাইজ B-))

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১১:০৮

জুল ভার্ন বলেছেন: সাইজ হয়েছে নিরীহ মানুষ।

১৭| ১৫ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১১:৪১

সোহানী বলেছেন: লিখাটা ক'দিন ধরেই অনলাইনের বিভিন্ন পোর্টালে দেখছি। আমি সবসময়ই ভাবি আপনি একান্ত নিজের লিখাই পোস্ট করেন। অন্য কারো লিখা নয়।

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১১:০৫

জুল ভার্ন বলেছেন: সোহানী, আমার পোস্টেই যেখানে আমি বলেছি, "বহুল শ্রুতি গল্পটা আবারও শোনাচ্ছি" -সেখানে আপনার মন্তব্য নেতিবাচক নয়কি?

১৮| ১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১২:৪৩

কামাল১৮ বলেছেন: @জটিল ভাই,বড় জটিল করে ব্লক করেছেন।আপনার এতো সুন্দর সুন্দর পোষ্টে ঢুকতে পারছি না।

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১১:১০

জুল ভার্ন বলেছেন: যাহার জন্য প্রযোজ্য।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.