নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

জ্ঞানিরা বলেন মানুষ জন্মমাত্রই মানুষ নয়,তাকে যোগ্যতা অর্জন করে তবেই মানুষ হিসেবে পরিচয় দিতে হয়।যোগ্যতা আছে কি না জানি না,হয়তো নিতান্তই মূর্খ এক বাঙ্গাল বলেই নিজেকে নির্দ্বিধায় মানুষ হিসেবে পরিচয় দিয়ে ফেলি।

কল্পদ্রুম

আমি আপনার চেয়ে আপন যে জন খুঁজি তারে আমি আপনায়

কল্পদ্রুম › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমেরিকান \'রায়ট\'-এ রেসিস্ট বঙ্গবাসী বাঙ্গালির মনোভাব কি?!

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:০৮



এটাকে বাটারফ্লাই ইফেক্ট বলা যায় কি না? যেদিন জর্জ ফ্লয়েডকে মারা হলো ঐদিনের ঘটনা। এমি কুপার ৯১১ এ ফোন করলো। গলায় স্পষ্ট ভয়ের ছাপ। তার অভিযোগ একজন 'আফ্রিকান আমেরিকান' তাকে 'ফিজিক্যালি এসল্ট' করছে। সে খুবই ভীত। যত দ্রুত সম্ভব যেন পুলিশ পাঠানো হয়। তার রীতিমত কান্নায় ভেঙ্গে পড়ার মত অবস্থা। পরিস্থিতির গুরুত্ব নিয়ে ফোনের অন্য পাশের পুলিশের সন্দেহ থাকার কোন সুযোগই নেই। মজার ব্যাপার হলো। যেই আফ্রিকান আমেরিকানের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হচ্ছে। সে এমির থেকে কয়েক হাত দূরে শান্ত ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে আছে। এমির অসাধারণ অভিনয় একদম শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ফোনের ক্যামেরায় ধারণ করেছে।

আফ্রিকান আমেরিকান ভদ্রলোকের নাম ক্রিশ্চিয়ান কুপার। সে পরে নির্দোষ প্রমাণিত হয়। ভিডিওটাই তার সবচেয়ে বড় স্বাক্ষী ছিলো। তাদের দুজনের ঝগড়ার শুরুটা হয়েছিলো এমির কুকুরকে নিয়ে। ক্রিশ্চিয়ান এমিকে বলেছিলো কুকুরের গলায় লিশ পরাতে। এই নিয়ে কথার লড়াই এর এক পর্যায়ে এমি রীতিমত থ্রেট দিয়ে তারপর পুলিশকে ফোন করে।

ক্রিশ্চিয়ান নির্দোষ হলেও তার ধারণকৃত ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। অসংখ্য মানুষ এই ভিডিও দেখে উত্তেজিত হয়। আক্রোশে ফেটে পড়ে। বিশেষত একি কুপার যেভাবে রেসিয়াল থ্রেট দেওয়ার পর নিজেই ভিকটিম সাজার এত নিখুঁত অভিনয় করে। নিজের চোখে না দেখলে তা কেউ বিশ্বাস করতো না।

এই ঘটনা যারাই দেখেছেন। ফুঁসে উঠেছেন। এরপরই জর্জ ফ্লয়েডের ঘটনা। ক্ষুদ্র স্ফুলিঙ্গ থেকে দাবানলের সূত্রপাত। দাবানলে দেবালয় জ্বলছে এখনো।

লেখার শিরোনাম টা নিয়ে দ্বিধায় ছিলাম। 'রায়ট' এবং 'প্রটেস্ট' এর পার্থক্য আছে। বাংলায় যেমন 'বিক্ষোভ' এবং 'আন্দোলন' এর মাঝে পার্থক্য আছে। আন্দোলনের নির্দিষ্ট উদ্দেশ্য থাকে, সুস্পষ্ট নেতৃত্ব থাকে। আন্দোলন করাই হয় কোন কিছু অর্জনের জন্য। আন্দোলনের পরে রাজনীতিতে পরিবর্তন আসে। আন্দোলনকারীদের অবস্থানের উন্নতি না হলে অবনতি হয়। কিন্তু বিক্ষোভ সত্যিকার ভাবেই দাবানলের মত। তার নির্দিষ্ট দিক নেই। ধ্বংসই তার উদ্দেশ্য। রাজনীতিতে বিক্ষোভকারীদের (anarchists) দের কোন শুভ প্রভাব থাকে না। তার চেয়ে বড় কথা। বিক্ষোভে সব মানুষ অংশগ্রহণ করে না। সমাজের যেই জনগোষ্ঠীর জন্য এই বিক্ষোভ। তাদের সবাই ও রাস্তায় নেমে ভাঙচুর করে না। কিন্তু সবার একরকম সমর্থন থাকে। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে এই সমর্থন কমে যেতে থাকে।

আমেরিকান রঙ্গিন মানুষরা এখন যা করছে তা কি আন্দোলন না কি বিক্ষোভ?

এই সব তাত্বিক প্রশ্নের উত্তর পলিটিক্যাল সায়েন্সের মানুষরা দিবেন।

কিন্তু কথা হচ্ছে। এই যে আমেরিকান রেসিয়াল রায়ট — তার প্রতি রেসিস্ট বাঙ্গালিদের মনোভাব কি? 'বাঙ্গালি' শব্দের আগে রেসিস্ট কথাটা লিখেছি। কারণ জাতি হিসেবে আমরা আসলেই তাই। এটা এতটাই প্রকট যে অস্বীকার করার উপায় নেই। এইটা নিয়ে নতুন কিছু বলারও নেই। অনেকে এটা নিয়ে লিখেছেন।
এখন একটা রেসিস্ট জাতি হিসেবে এরকম রেসিয়াল ডেস্ক্রিমিনেশনের বিরুদ্ধে গড়ে ওঠা বিক্ষোভের প্রতি আমাদের মনোভাব কি?

যেরকমটা হওয়া উচিত, ঠিক তাই। দেশের বেশির ভাগই মানুষের এটা নিয়ে কোন অনুভূতি নেই। অশিক্ষিত মানুষের কথা বলছি না। শিক্ষিত জনসংখ্যার কথাই বলছি। ফেসবুক যোদ্ধারা ফেসবুকে যুদ্ধ করে ক্লান্ত হবে। আমার মত ক জন ব্লগে দুই কথা লিখে উদাস হয়ে কবিতা পড়া শুরু করবে৷ অল্প কিছু মানুষ চরম স্বার্থন্বেষী, আধিপত্যবাদী, মুসলিমদের শত্রু, ইহুদিদের বন্ধু, নাসারাদের ভাই, আমেরিকার এই দুর্দিনে অত্যন্ত খুশি হবেন। হয়তো সডোম গমোরাহ নগরীর মত আমেরিকার পতনও নিকটে ভেবে স্বস্তি পাবেন। কিন্তু সর্ব সাকুল্যে এই ঘটনার কোন প্রভাব, কোন শিক্ষা পৃথিবীর এই প্রান্তে এসে পৌছাবে না। আমরা যেরকম ফেয়ার এন্ড লাভলি এবং লাক্স মাখতাম তেমনটা মেখেই যাবো। সুন্দরী প্রতিযোগীতার বিউটি পিজিয়নরা দুধ সাদা কইতর হয়ে পর্দায় উড়ে বেড়াবেন। আমরা বলবো — বাহ! কি সৌন্দর্য!

ছবি সূত্র


মন্তব্য ৮৬ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৮৬) মন্তব্য লিখুন

১| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:২৬

অনল চৌধুরী বলেছেন: ওবামাও বলতে বাদ্য হয়েছিলো,বর্ণবাদ এ্যামেরিকানদের রক্তে মিশে আছে।।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:৩৩

কল্পদ্রুম বলেছেন: বর্ণবাদ একটি অভিশাপ।

২| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:৩৮

শহুরে আগন্তুক বলেছেন: আমেরিকার রায়ট নিয়ে বঙ্গবাসী বাঙ্গালীর মনোভাবের দাম পাশ যাওয়া ঝাঁ চকচকে মার্সিডিজের কনফিগারেশন নিয়ে রাস্তার চিপায় ভনভন করা মাছির মাঝে দুই দিন না খেতে পারার ক্ষুধা নিয়ে বসে থাকা, জীবনে টয়োটা ফিল্ডারেও না ওঠা ফকিরের করা ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণের গুরুত্বের সমতুল্য । এদের কোন ধরণের মনোভাবেই এখানে কিছু আসে যায় না । অবশ্য নিজের অবস্থান সচেতন না হয়ে তাও হয়তো কেউ কেউ কিছু বলতে - টলতে চাইবে, যা না বললেও কোন ক্ষতি বৃদ্ধি হত না ।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:৪৬

কল্পদ্রুম বলেছেন: এতটাও ক্ষুদ্র চোখে দেখা মানতে পারলাম না।আমরা না খেতে পাওয়া ভিক্ষুক না।ভিক্ষুক সম্প্রদায়ে আমাদের যথেষ্ট ইজ্জত আছে। আমাদের মূল্যায়ণ আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্ব পরিস্থিতি বিবেচনা করার ক্ষমতা নিজের অধিকার নিয়ে সচেতন করে।

৩| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:৪২

নতুন বলেছেন: আমাদের দেশের অনেক মানুষও কালোদের পছন্দ করেনা। তাদের অনেকেই নিগ্রো শব্দটি ব্যবহার করে, অথ` তারা জানেনা এটা ব্যবহার করা ঠিক না।

আমাদের দেশে র মানুষও কিন্তু দরিদ্রের, ভিন্ন জাতের, মানুষের প্রতি একটা নিচু মনভাব প্রকাশ করে।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:৪৯

কল্পদ্রুম বলেছেন: একদমই ঠিক বলেছেন ভাই।পাশের সাউথ ইন্ডিয়ার মানুষ,কিংবা শ্রীলংকার,ওয়েস্ট ইন্ডিজের খেলোয়াড়দের প্রতি আমাদের আচরণ আমেরিকানদের থেকে কম কিছু না।

৪| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:৫০

চাঁদগাজী বলেছেন:


বাংগালীরা প্রাকৃতিকভাবে রেসিষ্ট।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:০১

কল্পদ্রুম বলেছেন: দুঃখের বিষয় আমরা স্বজাতের বিরুদ্ধেই প্রাক্টিস করি।

৫| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:০২

আহমেদ জী এস বলেছেন: কল্পদ্রুম,




শুধু বাঙালীরাই নয় সকল জাতিগোষ্ঠীই কম বেশি " রেসিজম" বা " বর্ণবাদ"এ আক্রান্ত।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:০৬

কল্পদ্রুম বলেছেন: এমনকি যে জাপানিরা এতটা বন্ধু সুলভ।এই আধুনিক যুগেও তাদের রেসিজমের কথা পড়ে অবাক হয়েছি।তবে বাঙ্গালিদের রেসিস্ট আচরণ হাস্যকর পর্যায়ের।

৬| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:১৩

শের শায়রী বলেছেন: মুরুব্বী আপনি ব্লগে আমেরিকা আমেরিকা বইলা যদি চিল্লাপাল্লা না করতেন তবে এই ব্লগের আমেরিকা প্রবাসীরা ছাড়া অন্যান্য দেশে বসবাস কারী বাংলাদেশীরা (ইনক্লুডিং বাংলাদেশ) এই সব ছাতা মাতা নিয়ে দুই পয়সার ভাবত না। আপনি আপনার আমেরিকার রেসিসিজমের দায় এখন আমাদের ওপর চাপাতে চাচ্ছেন সারা দিন আম্রিকা আম্রিকা কইরা। কিন্তু বিশ্বাস করেন, আপনার আমেরিকা নিয়া আমাদের দুই আনার ভাবনা নাই, নিজেদের অবস্থা নাভিশ্বাস। এর মধ্যে আইছেন আমাগো রেসিষ্ট মেসিষ্ট বলতে। আম্রিকা আকাশে উঠলেও আমাদের কিছু না পাতালে পড়লেও আমাদের কিছু না। দয়া কইরা ফাইলতু অপবাদ দেবেন না। :-<

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:৩৭

কল্পদ্রুম বলেছেন: :) :) :)

৭| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:১৬

শের শায়রী বলেছেন: উপরের মন্তব্য আমার শ্রদ্ধেয় মুরুব্বী চাদ্গাজীর জন্য

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:৩৭

কল্পদ্রুম বলেছেন: বুঝতে পারছিলাম।

৮| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:৩০

নেওয়াজ আলি বলেছেন: ট্রাম্পের মাথা এখন মনে হয় অনেক গরম। নিপাত যাক সব বৈষম্য

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:৩৯

কল্পদ্রুম বলেছেন: তিনি শেষ বয়সটা নিজের মত উপভোগ করছেন।

৯| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:৪২

কাজী আবু ইউসুফ (রিফাত) বলেছেন: Trump enjoy it n indirectly support this issue for infavour of next election. Trump is the most Culprit in the universe.

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:৫১

কল্পদ্রুম বলেছেন: কিন্তু এটা কাজ করবে বলে আমার মনে হয় না।

১০| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১০:০৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: ব্লগের নামী দামী হেভিওয়েট ব্লগাররা বলিয়াছে যে আমেরিকান 'রায়ট'-এ রেসিস্ট বঙ্গবাসী বাঙ্গালির চিন্তা ভাবনার খুবই দরকার আছে। পাশের বাড়ীর কুদ্দুসের সমস্যায় আমার কি যায় আসে এই মার্কা চিন্তাভাবনা একেবারেই নাকি ঠিক না। এখন আপনে আবার এর মধ্যে টাইন আনলেন ফেয়ার এন্ড লাভলি, লাক্স =p~ এখনো প্রশ্নফাশ জেনারেশন ট্যাগ খান নাই দেইখা চমকিত হইলাম ।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১০:২০

কল্পদ্রুম বলেছেন: এই ট্যাগ বহু বছর আগেই খাইয়া বইসা আছি ভাইজান।এখন গা সওয়া হয়ে গেছে।

১১| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১০:১১

রাজীব নুর বলেছেন: অতি সাধারন একটা বিষয় অল্পতেই মিটমাট করা যেত। অথচ মানূষের ঈগোর জন্য আ এই অবস্থা।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১০:২১

কল্পদ্রুম বলেছেন: না ভাই।এটা ইগোর সমস্যা না।ইগো খুবই হালকা বিষয়।

১২| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১০:১৩

নতুন বলেছেন: @ কল্পদ্রুম <<< ভাই উপরের আমার শেষ কমেন্টটা আমাদের অনল ভাইয়ের জন্য । আপনার এখানে ভুল মিসটেক হয়ে পোস্ট হয়ে গেছে। :) একটু কস্ট করে মুছে দেন প্লিজ।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১০:১৮

কল্পদ্রুম বলেছেন: ডান।তবে কমেন্টটা মন দিয়ে পড়লাম।অনল ভাইয়ের রিপ্লাইটা দেখতে ইচ্ছা করছে।

১৩| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১০:২২

নতুন বলেছেন: উনি মাঝে মাঝে আজব তত্ব নিয়ে আসে তাই।

যেমন বাংলাদেশিরা রাক্ষসের মতন ৩ বেলা নোংড়া হাত দিয়ে ভাত খায়।
আমেরিকায় যে লাখের উপরে মানুষ করোনায় মারা গেছে তাতে উনি খুব খুশি....

তাই এই রকমের বুদ্ধিজিবিদের একটু নাড়া না দিলে হয় না।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১০:২৯

কল্পদ্রুম বলেছেন: আপনাদের দুজনের মন্তব্যই পড়ছিলাম এতক্ষণ।

১৪| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১০:৩৯

উদাসী স্বপ্ন বলেছেন: এমি কুপারের ভিডিওটি আজকে দেখলাম সকালে নাইনগ্যাগে। সাদাদের জঙ্গিবাদ বের হয়ে আসার মূল কারন ট্রাম্প আর পতনমুখী অর্থনীতি। ট্রাম্পকে নামানো জরুরী।

আর বাঙ্গালী যে সব যে বড় রেসিস্ট এটা যে বলতে পেরেছেন এজন্য আপনাকে ধন্যবাদ

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১১:১৩

কল্পদ্রুম বলেছেন: আমার নিজেদের ভিতরেও অনেক ক্ষোভ জমে আছে। যে কোন সময়ে একটি ছোট্ট ঘটনা ট্রিগার হিসেবে কাজ করতে পারে।

১৫| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ১২:০০

চাঁদগাজী বলেছেন:


@শের শায়রী ,

নিউইয়র্ক শহরে, আফ্রিকান আমেরিকানদের উপস্হিতিতে, অনেক বাংগালী অন্য বাংগালীদের সাথে বাংলা ভাষায় "কালা", "কালামিয়া" শব্দ ব্যবহার করে বেশ বিপদে পড়েছে হাজার বার।

১৬| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ১২:২৯

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: সারা পৃথীবির জন্য বর্নবাদ একটা বাস্তবতা।এখান থেকে বেরিয়ে আসতে সময় লাগে।

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ১:০২

কল্পদ্রুম বলেছেন: তাই তো মনে হচ্ছে।মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

১৭| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ২:১৯

অনল চৌধুরী বলেছেন: নতুন বলেছেন: আমাদের দেশের অনেক মানুষও কালোদের পছন্দ করেনা। তাদের অনেকেই নিগ্রো শব্দটি ব্যবহার করে, অর্থ তারা জানেনা এটা ব্যবহার করা ঠিক না।

আমাদের দেশের মানুষও কিন্তু দরিদ্রের, ভিন্ন জাতের, মানুষের প্রতি একটা নিচু মনভাব প্রকাশ করে
- আমি চোর ,ঘুষখোর-দুর্নীতিবাজ-বিদেশে টাকা পাচারকারী-মদ-মাদক-জুয়ার ব্যবসায়ী-ঋণখেলাপি-স্বাধীনতাবিরোধী-এইসব দেশের শত্রুদের মানুষ বলেই মনে করি না।
তাই এদের প্রতি আমার আচরণ নিকৃষ্ট বর্ণবাদী।
২। কেউ যেতো বড় লেখক-সাংবাদিক-গবেষক-বা ব্লগা,জ্ষানী-গুণী হোক না কেনো,চোর, ক্ষমতাবান দুর্বৃত্ত-ঘুষখোর-দুর্নীতিবাজ-বিদেশে টাকা পাচারকারী-মদ-মাদক-জুয়ার ব্যবসায়ী-ঋণখেলাপি-স্বাধীনতাবিরোধীদের মধ্যে যারা শত বা হাজার কোটি টাকার মালিক,তারা এদের সাথে টাকার গরমে বর্ণবাদী আচরণ করে।
৩। বাংলাদেশেরই সাদা চামড়ার মেয়েদের অনেককে দেখেছি কালো ছেলেরা তাদের সাথে খাতির করতে গেলে এমন ভাব করে যেনো তারা নিগ্রো !!! তবে সবাই না।
৪।"কালা", "কালামিয়া" শব্দ ব্যবহার করে বেশ বিপদে পড়েছে হাজার বা আফ্রিকান এ্যামেরিকানরা যে অন্তত কয়েকটা বাংলা শব্দ জানে,সেটাই বা কম কি

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ২:২৮

কল্পদ্রুম বলেছেন: ৪। একই মত।

১৮| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ২:২৩

রুদ্র নাহিদ বলেছেন: আমেরিকা আর আমাদের মধ্যে বড় পার্থক্য হইলো ওরা জানে রেসিজম কি..আমাদের মেজরিটি জানে না এইটা কি জিনিস। আবার বুঝলেও গায়ে মাখে না।

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ২:৩২

কল্পদ্রুম বলেছেন: এই কথাটা পছন্দ হয়েছে।

১৯| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ২:৪০

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: যেখানেই সামাজিক বৈষম্য প্রকট সেখানে রেসিজম থাকবেই - সে যুক্তরাষ্ট্র হোক বা আমার জন্মভূমি বাংলাদেশই । বাংলাদেশে ধনী ও দরিদ্রদের মধ্যে পার্থক্য বিশাল । এর উপর রয়েছে আমাদের মজ্জাগত সামন্ততান্ত্রিক মনোভাব - অন্যকে ছোট করে নিজেকে কত উপরে তুলে ফেলা যায় তার প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা। এমনকি প্রবাসে গিয়েও এই নিজেকে শো-অফ করার জন্য কতরকম কায়দা কানুনই না করি আমরা। রেসিজমের সাথে আমাদের মধ্যে যুক্ত হয়েছে চরম হিংস্রতা, যার নজির দেখবেন প্রতিনিয়ত।

যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশের নির্যাতনে ফ্লয়েডের মৃত্যুর মতো ঘটনা কি আমরা বাংলাদেশে দেখি না ? হয়তো নিজ দেশে একজন বাঙালি আরেক বাঙালিকে নির্যাতন করছে, কিন্তু সামাজিক অবস্থান বিচার করলে নির্যাতনকারী এবং নির্যাতিতের মধ্যে সহস্র যোজনের ব্যবধানই খুঁজে পাওয়া যাবে। সেই হিসাবে তা রেসিজমই। সমাজের সুবিধাভোগী শ্রেণী কর্তৃক সুবিধাবঞ্চিতদের উপর নির্যাতন ও অত্যাচার - তা এক শ্রেণী কর্তৃক আরেকশ্রেণীর প্রতি বিদ্বেষজনিত রেসিজমেরই মনোভাব।

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ৩:১৭

কল্পদ্রুম বলেছেন: শ্রেণীবৈষম্যের রেসিজম প্রকটভাবে চোখে পড়ে।উপেক্ষা করবার সুযোগ নেই।কিন্তু খাঁটি রেসিজমও কিন্তু দেশে আছে।বাঙ্গালি আর আদিবাসি/উপজাতি (জানি না কোনটা অধিক সঙ্গতিপূর্ণ) ভিতর রেসিয়াল বৈষম্য পাহাড়ে গেলে টের পাওয়া যায়।তারপর চিটাইঙ্গা/বঙ্গীয়া, অদূর ভবিষ্যতে রোহিঙ্গা/চিটাইঙ্গা রেসিয়াল ক্লাশ হবার ইঙ্গিত কিন্তু অস্বীকার করা যায়।এগুলো নির্দিষ্ট অঞ্চলে গেলে টের পাওয়া যায়।চিটাইঙ্গা/বঙ্গীয়া উল্লেখযোগ্য না হলেও রোহিঙ্গা/চিটাইঙ্গা কিংবা রোহিঙ্গা/বাঙ্গালি সংঘর্ষ কিন্তু ইতিমধ্যে হচ্ছে।

২০| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ২:৫৭

নিমো বলেছেন: শের শায়রী বলেছেন: এর মধ্যে আইছেন আমাগো রেসিষ্ট মেসিষ্ট বলতে। দয়া কইরা ফাইলতু অপবাদ দেবেন না।
উত্তরাধিকার অস্বীকার করছেন কেন ?

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ৩:২৫

কল্পদ্রুম বলেছেন: লিংকটা কাজ করছে না।

২১| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ৩:২১

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:

বাংগালিরা মোটা দাগে রেসিস্ট নয় তবে অনেকেই বিভিন্ন স্বার্থান্বেসী মহলের উস্কানীর প্রভাবে প্রভাবিত হয়ে বুঝে কিংবা না বুঝে বিবিধ প্রকারের রেসিজমে জড়িয়ে পরে ।

মারাত্মক ধংসযজ্ঞের রূপ নিয়ে সমগ্র আমিরিকাব্যপি ছড়িয়ে পড়া বিপজ্জনক বিক্ষোভটি কঠিন নীপিরন মুলক কর্মসুচী দিয়ে নিয়ন্ত্রনের জন্য আমিরিকার প্রশাসন যে কর্মসুচী নিয়েছে তার প্রভাব শুধু আমিরিকা কেন বৈশ্বিকভাবেও হবে বহবিধ । তৃতীয় বিশ্বের কোন দেশে ঘটে যাওয়া কোন বিক্ষোভ কিংবা জ্বালাও পুরাও জাতিয় ধংসাত্মক কার্যকলাপ দমনে আমিরিকাসহ তার ইরোপীয় মিত্রদের মানবতার মুখোসধারী মুরুব্বীয়ানা কিংবা বিবিধ ধরনের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ হস্তক্ষেপের ক্ষমতা সীমিত হয়ে যাবে। বৈশ্বিকভাবে এর ইমিডিয়েট প্রভাব দেখা দিবে হংকং বাসীদের সাম্প্রতিক কালের বিক্ষোভ/আন্দোলন এর উপরে । হংকং বাসীদের স্বাধিকার রক্ষার আন্দোলনকে বিক্ষোভ অভিধায় অভিহিত করে তা দমনে চীনকে আরো কঠোর ব্যবস্থা নিতে অনুপ্রানীত/উৎসাহিত করবে। প্রতিবেশি দেশ ভারতও ট্রাম্পের দমনমলক কর্মসুচীটিকে আদর্শ হিসাবে বেশ ভাল ভাবেই গ্রহন করবে বিবিধ কারণে ।

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ৩:৪৯

কল্পদ্রুম বলেছেন: স্যার আপনি ঠিকই বলেছেন।অন্তত বাংলাদেশের বাঙ্গালি মোটা দাগে রেসিস্ট নয়।ধর্ম আমাদের দেশের নৈতিক শিক্ষার প্রধান উৎস।আমাদের ধর্ম রেসিজমের বিরুদ্ধে খুব কঠোর।দূর্বল দেশগুলো এরপর আমেরিকার মোড়লগিরি সহজে মেনে নিবে না।ভারত ট্রাম্প প্রশাসনের নীতি ফলো করলে উপমহাদেশে যে বিক্ষোভ হবে তা খুবই নৃশংস হবে।


US double standards on domestic riots and Hong Kong turmoil mocked on Chinese internet

২২| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ৩:৩৬

নিমো বলেছেন: লেখক বলেছেন: লিংকটা কাজ করছে না।

বর্ণপ্রথা এবার করা উচিত।

০১ লা জুন, ২০২০ ভোর ৪:২০

কল্পদ্রুম বলেছেন: পুরো লেখাটা পড়লাম।পনেরো শতকে এসে লেখাটা শেষ হয়ে গেছে।বাংলায় মুসলিম এবং ইংরেজ শাসনে পনেরো শতকের আগের বর্ণবাদ রূপে আচারে অনেক পরিবর্তিত হয়েছে।তবে আপনি প্রেক্ষিতে এটা দিয়েছেন সেটা আমি বুঝতে পেরেছি।ধন্যবাদ শেয়ার করার জন্য।
শের শায়রী হয়তো পড়বেন।

২৩| ০১ লা জুন, ২০২০ ভোর ৫:৩৩

অনল চৌধুরী বলেছেন: বাংলাদেশের এক জেলার লোক আরেক জেলার লোকদের দেখতে পারেনা। বেশীরভাগ গ্রামের লোকদের এই আঞ্চলিকতােবোধ খুব প্রচন্ড। এজন্যই দেখা যায়,ঢাকায় সব জেলা সমিতির অফিস খুলেছে !!
তবে তারা চট্রগ্রাম-সিলেট-সবাই নিজেকে বাঙ্গালীই মনে করে না বুঝলে বাংলাদেশী।কারো মধ্যেই বিচ্ছিন্নতার দাবী নাই,এটাই বাঙ্গালী জাতীয়তাবোধ।
রোহিঙ্গারা শত বছর ধরে বার্মার নাগরিক।এদেশী হলে দ্বন্দ থাকতো না।

০১ লা জুন, ২০২০ ভোর ৬:২৬

কল্পদ্রুম বলেছেন: জেলা সমিতির ব্যাপারটা সত্য।সবাই যতদিন নিজেকে বাংলাদেশী মনে করবো ততদিন নিশ্চিন্ত।কিন্তু বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদের কথা বলতে গেলে চাকমা,মারমা,মুরং ইত্যাদি ক্ষুদ্র জাতিসত্ত্বাগুলো যে বিলীন হয়ে যায়।

২৪| ০১ লা জুন, ২০২০ দুপুর ১২:৪৪

চেংকু প্যাঁক বলেছেন: বোংগাল অবশ্যই রেসিস্ট, সুযোগ পাইলে পুরা মাত্রায় সেটা দেখায় দিবে। সুযোগের অভাবে ভদ্দরনোক।

০১ লা জুন, ২০২০ বিকাল ৪:০০

কল্পদ্রুম বলেছেন: সুযোগ সন্ধানী বাঙ্গালি শক্তের ভক্ত নরমের যম।

২৫| ০১ লা জুন, ২০২০ বিকাল ৩:৪১

সত্যপীরবাবা বলেছেন: "বাংগালিরা মোটা দাগে রেসিস্ট নয়" এই মন্তব্যে একমত নই। বাঙালী ভিষন রকমের রেসিস্ট। রেসিজমের বাংলা প্রতিশব্দ বর্ণবাদ আসলে রেসিজমের ব্যাপকতাকে শুধু গাত্রবর্ণের মধ্যে আবদ্ধ করে ফেলে। প্রকৃতপক্ষে যে কোন জনগোষ্ঠির প্রতির বিদ্বেষই রেসিজমের মধ্যে পরে। তাই জাতিবিদ্বেষ, আন্চলিকতাবিদ্বেষ, শ্রেণিবিদ্বেষ, ভিন্নভাষীবিদ্বেষ এমনকি ধার্মিক/নিধার্মিক র্বিদ্বেষ মাত্রই রেসিজম। শুধু তাই নয়, কোন জনগোষ্ঠিকে নিকৃষ্ট মনে করাও রেসিজম।

আমরা রেসিজম যেহেতু গাত্রবর্ণেই সীমাবদ্ধ রাখি তাই অহোরহো রেসিস্ট আচরন করি, এই ব্লগের অনেক ব্লগারই করেন। আমরা ঘাড়তেড়া তাই মানতে চাই না।

০১ লা জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৩৪

কল্পদ্রুম বলেছেন: ব্লগ এবং সোস্যাল ফ্লাটফর্মগুলো রেসিজমের বাইরে না।বিভিন্ন ইস্যুতে আমাদের মন্তব্যগুলো পড়লে বোঝা যায় আমাদের জাতির মানুসিকতা কেমন।

২৬| ০১ লা জুন, ২০২০ বিকাল ৩:৪৮

শের শায়রী বলেছেন: @মুরুব্বী, শুধু নিউইয়র্ক না আমেরিকার সর্বত্রই মোটামুটি এই অবস্থা। কিন্তু আমরা বাংলাদেশী বাঙ্গালী। নিউইর্কয়িন বাঙ্গালী না। বাংলাদেশীরা রেসিষ্ট না। আর জেলায় জেলায় ঈর্ষা নিয়ে অনেকেই আমেরিকান রেসিজিম এর সাথে তুলনা করছেন, সেক্ষেত্রে বলে রাখা ভালো এগুলো রেসিজিমের সাথে তুলনা করলে সারা বিশ্বে প্রতিটা দেশে এই কালচার চলে, ইভেন আপনাদের আমেরিকায় যে টেক্সান সে নিজেকে সুপিরিয়র ভাবে, আবার নিউইয়র্কের বাসিন্দাসের নাক উচু থাকে গাইয়া (সেই কাউবয় যুগের কারনে) টেক্সানদের দেখলে। এগুলো রেসিসিজম না। ভারত, রাশিয়া থেকে সারা বিশ্বে আঞ্চলিকতাবাদ কে রেসিসিজমের মাঝে ফেলে আমেরিকান রেসিসিজমকে জাতে উঠানো ..... =p~

আর হ্যা জনাব @নিমোর লিংক দেখলাম, ধর্মীয় বর্নপ্রথা দিয়ে আপনি আমাদের রেসিষ্ট বানিয়ে দিলেন.... :)

হ্যা আমাদের অনেক অনেক বদগুন, বদনাম, বদ অভ্যাস, বদ (আরো অনেক কিছু) আছে কিন্তু এর সাথে আজকে জানলাম আমরা রেসিষ্টও। কিন্তু বস্তিতে বসে কার সাথে তুলনা করে যে নিজেদের সুপিরিয়র ভাবব সেটাই এখন আমি ভাবছি :|| আসলে জানার কোন শেষ নেই। কত কিছুই না জানছি। শেখানোর জন্য আপনাদের সবাইকে অশেষ ধন্যবাদ। আসলে আমি বাংলাদেশে বাস করিতো তাই যা আমাদের নাই সে গুনে অভিযুক্ত করলে তো একটু গায়ে লাগতেই পারে, সে কারনে দুই লাইন লিখে ফেলছিলাম, দেখা যাচ্ছে আমি ভুল আর আপনারা ঠিক, কারন আমেরিকায় বসে আর যাই হোক নিশ্চয়ই আপনারা ভুল বলবেন না :#)

০১ লা জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৫৯

কল্পদ্রুম বলেছেন: দুঃখিত ভাই।পুরোটা একমত না।বিয়ের জন্য মেয়ে খুঁজতে গেলে এখনো অনেক শিক্ষিত পরিবার সাদা চামড়া খুঁজে।কর্পোরেট জবগুলোতে অনেক ক্ষেত্রে যোগ্যতার বিচারে সৌন্দর্যকে প্রাধান্য দেওয়া হয়।বিশেষ করে মেয়েদের ক্ষেত্রে।রেসিজম যদি নাই থাকতো এদেশে ত্বক ফর্সাকারি ক্রিম চলতো না।এর বাইরেও আছে।অস্ট্রেলিয়ান একটা বাচ্চা ছেলে ডোয়ার্ফ হওয়ার কারণে স্কুলে বুলিড হচ্ছিলো মনে আছে সম্ভবত।তখন একাত্তর টিভিতে একজন মা আসছিলেন তার বাচ্চার স্কুলে বুলিং নিয়ে কথা বলতে।আমার মনে আছে তিনি বলছিলেন তার বাচ্চাকে উচ্চতা,বুদ্ধির সাথে গায়ের রঙ নিয়েও খোটা দেওয়া হতো।এখন একটা বাচ্চার মাথায় এই চিন্তা কি করে আসে যে ক্লাসের অন্য ছেলে/মেয়েকে গায়ের রঙ নিয়ে খোটা দেওয়া যায়!নিশ্চয় বড়দের দেখেছে করতে না হয় মিডিয়ার কল্যাণে শিখেছে।

০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০২

কল্পদ্রুম বলেছেন: বাই দা রাস্তা,ভাই আমি কিন্তু আপনার মতই বঙ্গবাসী। :) নিজেকে জোর করে রেসিস্ট প্রমাণ করা আমার উদ্দেশ্য না।কেবল যেটুকু আছে তা অস্বীকার করা যায় না সেটাই বলতে চাচ্ছি।

২৭| ০১ লা জুন, ২০২০ বিকাল ৩:৫৫

সত্যপীরবাবা বলেছেন: শের শায়রী, "সারা বিশ্বে প্রতিটা দেশে এই কালচার চলে .... তাই এগুলো রেসিসিজম না" আর "ধর্ষণ সারা বিশ্বে প্রতিটা দেশেই হয় তাই অপরাধ না" এই দুইয়ে পার্থ্যক কোথায়?

০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৬

কল্পদ্রুম বলেছেন: অপরাধ সবখানেই অপরাধ।

২৮| ০১ লা জুন, ২০২০ বিকাল ৪:২১

শের শায়রী বলেছেন: আমেরিকার অন্যায় কে জাষ্টিফাই করার জন্য আমাদের কে রেসিষ্ট বলতে হবে না, আমেরিকার সৌন্দর্য্য ভিন্ন জায়গায় সেগুলো দেখুন, সেগুলো লিখুন, ভালো লাগবে। এই জায়গায় আমি বরাবার আমেরিকার মানুষের কাছে শ্রদ্ধাবনত।



Some police step out to show support for George Floyd demonstrators

০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৭

কল্পদ্রুম বলেছেন: একজ মন্তব্যই আবার করছি। :) আমাদের পুলিশরাও সমব্যথিত হন।তারা নাটকীয় ভঙ্গিতে এভাবে সম্মান দেখাতে পারে না বলে হয়তো তাদের সাহায্যের কথা এভাবে প্রকাশ সম্ভব হয় না।নাটকীয়তা নেগেটিভ অর্থে বলিনি।

২৯| ০১ লা জুন, ২০২০ বিকাল ৪:৫০

সত্যপীরবাবা বলেছেন: আমাদের রেসিস্ট আচরন আড়াল করার জন্য অন্য দেশের অন্যায়কে শিখন্ডি খাড়া করারও দরকার নাই।

০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৮

কল্পদ্রুম বলেছেন: একদমই না।

৩০| ০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৫

করুণাধারা বলেছেন: রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালির বর্ণনায় বলেছেন,

ভদ্র মোরা, শান্ত বড়ো,
পোষ-মানা এ প্রাণ
বোতাম-আঁটা জামার নীচে
শান্তিতে শয়ান।

দেখা হলেই মিষ্ট অতি
মুখের ভাব শিষ্ট অতি,
অসল দেহ ক্লিষ্টগতি--
গৃহের প্রতি টান।

তৈল-ঢালা স্নিগ্ধ তনু
নিদ্রারসে ভরা,
মাথায় ছোটো বহরে বড়ো
বাঙালি সন্তান।

আমেরিকার এই ঘটনার কোন প্রভাব, কোন শিক্ষা এদেশে এসে পৌঁছাবে না। ঠিকই বলেছেন, আমরা নিশ্চিন্তে ফেয়ার এন্ড লাভলী আর লাক্স মাখতে থাকব।

অবশ্য এতে অবাক হবার কিছু নেই। এইতো কদিন আগে দেলোয়ার হোসেন নামে এক নিরীহ ইন্জিনিয়ার কে খুন করা হল। আমরা কি কিছু বলেছি?

০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১৭

কল্পদ্রুম বলেছেন: মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।না বলিনি।পলিটিক্স আর ক্ষমতা এখন পরিবার প্রথার উপর নির্ভরশীল।সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে একেবারে গ্রাম এলাকা পর্যন্ত।এক পরিবারের সদস্যরা সবাই পদধারী।ফলে কয়েক জেনারেশন পরে নিজেদের সুপেরিয়র রেস ভাবা শুরু করে।দেশে অনেক ক্ষেত্রে সিস্টেমিক রেসিজম কাজ করে।আমরা এসব ক্ষমতাবান সুপেরিয়র রেসের বিরুদ্ধে কথা বলবো না।আমরা চাই তারা আমাদের মত দুর্বলদের প্রতি সদয় হোন।

৩১| ০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫০

নিমো বলেছেন: শের শায়রী বলেছেন: আর হ্যা জনাব @নিমোর লিংক দেখলাম, ধর্মীয় বর্নপ্রথা দিয়ে আপনি আমাদের রেসিষ্ট বানিয়ে দিলেন.... :)
এখানে কাউকে কিছু বানিয়ে দেয়া হয় নি, সমাজে বিদ্যমান সমস্যাকে স্বীকার করার কথা বলা হয়েছে। কেননা সমস্যা(তা যত ছোট / বড়ই হোক না কেন) কে স্বীকার করার মধ্যেই আশু সমাধান নিহিত। এটা না করা হলে কী হয় তার নমুনা তো দেশের করোনা পরিস্থিতির দিকে তাকালেই বোঝা যায়।
তুমি একটা ট্রাম্প! -লুৎফর রহমান রিটন

ট্রাম্পকে তুমি বর্ণবিদ্বেষী বলছো, গালাগাল করছো, অথচ তুমি নিজেও একটা ট্রাম্প!
ট্রাম্প আমেরিকায় মুসলমানদের থাকতে দেবে না, ঢুকতে দেবে না বলাতে তুমি ট্রাম্পকে সাম্প্রদায়িক বলছো, মানবতা বিরোধী বলছো, জাতিবিদ্বেষী বলছো, অথচ তুমি তোমার দেশে হিন্দু-বৌদ্ধদের বাড়িঘর-ধর্মশালা আগুন জ্বালিয়ে ধ্বংস করে দাও, তাঁদের সম্পত্তি দখল করে নাও, তাঁদের হত্যা করো এবং তাঁদের তাড়িয়ে দাও বসতভিটা থেকে, মাতৃভূমি থেকে। তুমি ট্রাম্পেরও বাবা।
অসহায় দরিদ্র ২০০ সাঁওতাল পরিবারের জীর্ণশীর্ণ ছনের ঘরগুলো তোমার দেয়া আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যায় পুলিশী প্রহরায়! নিরাশ্রয় হতভাগ্য সাঁওতাল পরিবারের সদস্যরা মাটি কামড়ে পড়ে থাকে খোলা আকাশের নিচে, কারণ এইদেশ তোমার একার না, এইদেশ সাঁওতালদেরও। এইদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃস্টানসহ সকল ক্ষুদ্রজাতিসত্তার সদস্যদেরও। এইদেশ তোমার একার না, এইদেশ তোমার একার ছিলো না কখনো।
আয়নায় বহুদিন তুমি নিজের চেহারা দেখো না সম্ভবত, দেখলে নিজের চেহারায় ট্রাম্পের সাদৃশ্য অবলোকন করতে,একলহমায়। ট্রাম্পের কাজিন তুমি!
ট্রাম্পকে ভোট দিয়েছে বলে আমেরিকার জনগণকে তুমি অসভ্য বলো, গণতন্ত্র শেখাতে চাও তাঁদের, অথচ 'গণতন্ত্র' বানান তুমি জানো না। ওটার প্র্যাকটিস তুমি এইজনমে করোনি। কারণ তোমার চিন্তায় চেতনায় মননে পরম নিষ্ঠায় তুমি লালন করে চলেছো একজন ট্রাম্পকেই!
অথচ--
ট্রাম্পের ছায়ায় তুমি নিজেকে দেখতে পাও না।
ট্রাম্পের আচরণে তুমি নিজেকে দেখতে পাও না।
ট্রাম্পের স্বপ্নের মধ্যে তোমারই স্বপ্নটা লকলকিয়ে উঠছে বারবার, তুমি দেখতে পাও না।
কারণ তুমি অন্ধ।
হে মানুষ, তোমার চিকিৎসা দরকার।

অটোয়া ১১ নভেম্বর ২০১৬

view this link

view this link

৩২| ০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৪

নিমো বলেছেন: ৩২ মন্আতব্মেয মুছে দিন।আমেরিকার সৌন্দর্য্য view this link

৩৩| ০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৯

নিমো বলেছেন: ৩২ নাম্বার মন্তব্যটা মুছে দিন। আর ৩১ নাম্বার মন্তব্যের সঠিক ২য় লিংক view this link

০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪০

কল্পদ্রুম বলেছেন: পুরো লেখাটাই পড়লাম।ভালো লেখা।

৩৪| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ৮:৪৮

কাছের-মানুষ বলেছেন: সব ধরনের রেসিজম দূর হোক। আমেরিকায় দেখলাম অনেক কালোরা লুটপাটও শুরু করেছে, এতে তাদের প্রতি সাধাদের মনোভাব আরো খারাপ হবে হয়ত, রেসিজম না কমে বাড়তেও পারে!!

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ৯:০১

কল্পদ্রুম বলেছেন: ওরা যা করছে সেভাবে রেসিজম ঠেকানো যাবে না।কিন্তু ওদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করাই মুখ্য কথা।

৩৫| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ১০:৪৫

অনল চৌধুরী বলেছেন: ঙ্গালী জাতীয়তাবাদের কথা বলতে গেলে চাকমা,মারমা,মুরং ইত্যাদি ক্ষুদ্র জাতিসত্ত্বাগুলো যে বিলীন হয়ে যায়-মাত্র ০.১% পার্বত্য উপজাতির জন্য কি বাঙ্গালী জাতির নাম পরিবর্তন করে জিয়ার আবিস্কৃত বাংলাদেশী জাতি হতে হবে???????

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ১১:১৪

কল্পদ্রুম বলেছেন: রাজনৈতিক ব্যাখ্যায় যেতে চাচ্ছি না।এগুলো সম্পর্কে ধারণা পরিষ্কার না।কিন্তু সাধারণভাবেই চিন্তা করছিলাম।.১% হলেও উপেক্ষা করা কি উচিত?তাহলে আমরাও কি সংখ্যা গরিষ্ঠের সুবিধা নিচ্ছি না?

৩৬| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ১১:৩৬

অনল চৌধুরী বলেছেন: সংখ্যালঘুদের এদেশে পৃথিবীর যেকোনো দেশের চেয়ে বেশী সুবিধা দেয়া হয়।
মাত্র কয়েকটা পুলিশ হত্যার কারণে বার্মা ১২ লাখ রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিয়েছে। আর সন্তর সন্ত্রাসী বাহিনী এতা বাঙ্গালী মারার পরও ওদের রাজার মতো করে রাখা হয়েছে।

৩৭| ০২ রা জুন, ২০২০ সকাল ৭:০০

নিমো বলেছেন: অনল চৌধুরী বলেছেন: মাত্র ০.১% পার্বত্য...

১৯৪৭ সালে ভারত বিভক্তির সময় এখানকার জাতিগোষ্ঠীর বাঙালি ছিল মাত্র ২ শতাংশআশির দশকে সমতল থেকে প্রায় ৫ লক্ষ বাঙালিকে পার্বত্য এলাকায় সেটল করে এখানকার জাতিগোষ্ঠীর অনুপাতকে পরিবর্তন করা হয়েছিল। ফলে ১৯৪৭ সালের আদিবাসী-বাঙালির অনুপাত ৯৮:২ বর্তমানে ৪৮:৫২ তে দাঁড়িয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসীদের নিজ ভূমিতে সংখ্যালঘুতে পরিণত করেছে।

১৯৪৭ সালে এই এলাকা পূর্ব পাকিস্তানের অংশ হয়। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর এটি বাংলাদেশের জেলা হিসাবে অন্তর্ভুক্ত হয়।

৩৮| ০৩ রা জুন, ২০২০ রাত ৩:৩৫

অনল চৌধুরী বলেছেন: আশির দশকে সমতল থেকে প্রায় ৫ লক্ষ বাঙালিকে পার্বত্য এলাকায় সেটল করে এখানকার জাতিগোষ্ঠীর অনুপাতকে পরিবর্তন করা হয়েছিল। ফলে ১৯৪৭ সালের আদিবাসী-বাঙালির অনুপাত ৯৮:২ বর্তমানে ৪৮:৫২ তে দাঁড়িয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসীদের নিজ ভূমিতে সংখ্যালঘুতে পরিণত করেছে। - এধরণের মন্তব্য একইসাথে রাষ্ট্রদ্রোহীতা এবং তথ্য-প্রযুক্তি আইনে অপরাধ।
একই দেশের মধ্যে আবার কেউ বহিরাগত হয় কিভাবে? তাহলে তো ঢাকাসহ সারাদেশে বসবাস,পড়াশোনা আর কাজ করা উপজাতীরাও বহিরাগত !
চট্রগ্রাম প্রায় হাজার বছর ধরে বাংলাদেশের অংশ। এটা নিয়ে সোনারগার সুলতান,আরাকানের রাজা আর ত্রিপুরার মধ্যে অনেক যুদ্ধ হয়েছিলো,তবে শেষ পর্যন্ত সুলতানী আমল থেকে বাংলাদেশের অংশই আছে। ইবনে বতুতা সহ একাধিক চীনা পর্যটক এর প্রমাণ দিয়েছিন।
তিব্বত,কাশ্মীর,সিকিমের মতো এর স্বাধীনতা হরণ করে বাংলাদেশ ভূক্ত করা হয়নি। অতীতে পার্বত্য চট্রগাম নামে এদেশে কোনো জেলা ছিলো না।১৯০০ সালে বৃটিশরা বাঙ্গালীদের সাথে দ্বন্দ বাধানোর উদ্দেশ্যে পরিকল্পিতভাবে পার্বত্য চট্রগাম শব্দটা চালু করে।
চাকমা,মারমা,তংচঙ্গা-সব উপজাতিরা এসেছে বার্মা থেকে।এখনো আত্মীয়দের সাথে দেখা করার এরা নিয়মিত সেখানে যায় ।
আরাকানী,ত্রিপুরা,মণিপুরি- এসব নামই প্রমাণ করে, এদের আসল বসবাসের জায়গা কোথায় ছিলো।

৩৯| ০৩ রা জুন, ২০২০ ভোর ৪:৪৮

নিমো বলেছেন: অনল চৌধুরী বলেছেন: - এধরণের মন্তব্য একইসাথে রাষ্ট্রদ্রোহীতা এবং তথ্য-প্রযুক্তি আইনে অপরাধ।
হা হা হা!
অনল চৌধুরী বলেছেন: একই দেশের মধ্যে আবার কেউ বহিরাগত হয় কিভাবে?
১৯৪৭ এ যেভাবে ভারত-পাকিস্তান গঠন হয়েছে তাতেতো এই অঞ্চলের পূ্র্ব পাকিস্তানে যুক্ত হওয়ারই কথা নয়।

অনল চৌধুরী বলেছেন: তাহলে তো ঢাকাসহ সারাদেশে বসবাস,পড়াশোনা আর কাজ করা উপজাতীরাও বহিরাগত !
তো তারা কি এক সাথে কয়েক লক্ষ ঢাকায় চলে এসেছে। নাকি ধাপে ধাপে এসেছে, প্রয়োজনে এসেছে, এসে কি আপনার আমার বাড়ি জমি দখল করে নিয়েছে। ? আপনার বাড়িতে হঠাৎ করে কয়েকশ লোক হাজির হলে কি আপনার বাড়ির অবস্থা ঠিক থাকবে ?

অনল চৌধুরী বলেছেন:চট্রগ্রাম প্রায় হাজার বছর ধরে বাংলাদেশের অংশ।
হাজার বছর আগে বাংলাদেশ ছিল B:-) তা ৫০ বছর আগে বাংলাদেশ পাকিস্তানের অংশ ছিল তো ? তারও আগে ভারতের..., যাক আর বেশি না পেছাই, তো ?

অনল চৌধুরী বলেছেন:তিব্বত,কাশ্মীর,সিকিমের মতো এর স্বাধীনতা হরণ করে বাংলাদেশ ভূক্ত করা হয়নি
১৯৪৭ এ যেভাবে ভারত-পাকিস্তান গঠন হয়েছে তাতেতো এই অঞ্চলের পূ্র্ব পাকিস্তানে বা অধুনা বাংলাদেশে যুক্ত হওয়ারই কথা ছিল না। আর আপনি স্বাধনীতা হরণ বলতে কী বোঝেন সেটাইতো আপনার লেখায় পরিস্কার না, তো এর উত্তর কী দেব ?

অনল চৌধুরী বলেছেন: অতীতে পার্বত্য চট্রগাম নামে এদেশে কোনো জেলা ছিলো না।
অতীতেতো বাংলাদেশ বলেও কিছু ছিল না, তো ?

অনল চৌধুরী বলেছেন:চাকমা,মারমা,তংচঙ্গা-সব উপজাতিরা এসেছে বার্মা থেকে।
তো। মানুষও ইথিওপিয়া থেকে ছড়িয়ে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। অভিবাসন একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। প্রায় ৫ লক্ষ বাঙালিকে পার্বত্য এলাকায় সেটল করা অভিবাসন নয়।

অনল চৌধুরী বলেছেন:আরাকানী,ত্রিপুরা,মণিপুরি- এসব নামই প্রমাণ করে, এদের আসল বসবাসের জায়গা কোথায় ছিলো।
হা হা হা! বাঙালি জাতির উৎসটা কোথায় ?

অনল চৌধুরী বলেছেন:সংখ্যালঘুদের এদেশে পৃথিবীর যেকোনো দেশের চেয়ে বেশী সুবিধা দেয়া হয়।
তাই। ১২ লাখ রোহিঙ্গার কারণে কক্সবাজারে বাঙালিই জাতিগোষ্ঠীর অনুপাতে এখন সংখ্যালঘু। সেখানে কে রাজার হালতে আছে রোহিঙ্গা নাকি বাঙালি ?

সারা পৃথিবীতে Nativism এর চর্চা নিয়ে আপনার বক্তব্যটা একটু জানান ?



৪০| ০৩ রা জুন, ২০২০ রাত ৮:২২

অনল চৌধুরী বলেছেন: প্রাচীন বাংলা আর বাংলাদেশের সীমানা যে মোটামুটি এক যে একই সেটা আগে জানেন।
পার্বত্য চট্রগামের আয়তনে বাংলাদেশের ১০ ভাগের ১ ভাগ কিন্ত জনসংখ্যা অনেক কম।
অবিলম্বে দেশের স্বার্থে ঢাকাসহ সারাদেশ থেকে আরো কয়েক কোটি মানুষকে নিয়ে সেখান বসবাস ও কৃষিকাজে নিয়োজিত করা উচিত।
তাতে ঢাকার উপর জনসংখ্যার চাপ কমবে।

০৩ রা জুন, ২০২০ রাত ১০:২১

কল্পদ্রুম বলেছেন: ভাই আমার ব্যক্তিগত পর্যবেক্ষণ হলো,পাহাড়ে বাঙ্গালি সেটেলার-রা পাহাড়িদের থেকে অনেক কুটিল চিন্তার ও লোভী।এদের জোর করে জমি দখল ও জঙ্গল কাটার প্রবণতাও বেশি।জনসংখ্যার পুনর্বণ্টন খুবই বাস্তববাদী কাজ হবে।তবে পাহাড়ের ক্ষেত্রে আমাদের ভিন্ন ভাবে ভেবে দেখা উচিত।

৪১| ০৩ রা জুন, ২০২০ রাত ১০:৩৬

অনল চৌধুরী বলেছেন: বাঙ্গালীদের মধ্যে অবশ্যই চুরি-নীতিহীনতা বেশী।কিন্ত সেজন্য নিজের দেশের অংশ অব্যবহ্রত থাকতে পারেনা।

৪২| ০৩ রা জুন, ২০২০ রাত ১০:৪৩

নিমো বলেছেন: অনল চৌধুরী বলেছেন: প্রাচীন বাংলা আর বাংলাদেশের সীমানা যে মোটামুটি এক যে একই সেটা আগে জানেন।

হা হা হা! একটা প্রশ্নেরও উত্তর পেলাম না, উল্টো প্রাচীন বাংলা বলে উদ্ভট এক অ্স্তিত্বহীন স্থানের গপ্পো শোনাতে এসেছেন। আপনার মত জ্ঞানের তিমিঙ্গিলের সাথে আলোচনা করে নষ্ট করার মত সময় আমার কমই আছে।

লেখক বলেছেন: ভাই আমার ব্যক্তিগত পর্যবেক্ষণ হলো,পাহাড়ে বাঙ্গালি সেটেলার-রা পাহাড়িদের থেকে অনেক কুটিল চিন্তার ও লোভী।এদের জোর করে জমি দখল ও জঙ্গল কাটার প্রবণতাও বেশি।জনসংখ্যার পুনর্বণ্টন খুবই বাস্তববাদী কাজ হবে।তবে পাহাড়ের ক্ষেত্রে আমাদের ভিন্ন ভাবে ভেবে দেখা উচিত।
উনাকে এসব বলে বোঝাতে পারবেন না। অতি মঙ্গলজনক চিন্তা-ভাবনাও যে ভুল উপস্থাপনের কারণে অমঙ্গলজনক হতে পারে সেটা উনার লেখা পড়ার আগে আমার ধারণারও বাইরে ছিল।

৪৩| ০৩ রা জুন, ২০২০ রাত ১০:৪৮

নিমো বলেছেন: অনল চৌধুরী বলেছেন: নিজের দেশের অংশ অব্যবহ্রত থাকতে পারেনা।
ঠিক ব্রাজিল যেভাবে আমাজন অরণ্য ব্যবহার করেছে তাই না। =p~

০৩ রা জুন, ২০২০ রাত ১০:৫৯

কল্পদ্রুম বলেছেন: আমাজনের উপর পৃথিবীর সব দেশের অধিকার ও দায়িত্ব আছে।ব্রাজিল ইচ্ছামত কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারে না।একই কথা সুন্দরবন এবং কক্সবাজারের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।

৪৪| ০৪ ঠা জুন, ২০২০ রাত ১:০২

নিমো বলেছেন: লেখক বলেছেন: আমাজনের উপর পৃথিবীর সব দেশের অধিকার ও দায়িত্ব আছে।ব্রাজিল ইচ্ছামত কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারে না।একই কথা সুন্দরবন এবং কক্সবাজারের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।

সেই জন্যই আজকাল তথাকথিত উন্নয়নের বদলে টেকসই উন্নয়ন শব্দবন্ধের ব্যবহার হয়। অনল এবং ব্লগের আরেক ব্লগার সত্যপথিক শাইয়্যান নানা চিন্তা-ভাবনা পোস্ট করেন, কিন্তু এগুলো কতটা বাস্তবায়নযোগ্য কিংবা এর জন্য কতটা মূল্য চোকাতে হবে/হতে পারে তার কোন তুলনামূলক পর্যালোচনা লেখাগুলোয় দেখতে পাই নি। এর ফলে যেটা ঘটে তা হচ্ছে, উনারা যো সব বিষয় নিয়ে পোস্ট দেন তাতে উনাদের সম্যক ধারণা নেই বলে প্রতীয়মান হয়।

একটা উদাহরণ দেই, অনল দাবি করলেন পার্বত্য চট্রগামের আয়তনে বাংলাদেশের ১০ ভাগের ১ ভাগ কিন্ত জনসংখ্যা অনেক কম।
অবিলম্বে দেশের স্বার্থে ঢাকাসহ সারাদেশ থেকে আরো কয়েক কোটি মানুষকে নিয়ে সেখান বসবাস ও কৃষিকাজে নিয়োজিত করা উচিত।
তাতে ঢাকার উপর জনসংখ্যার চাপ কমবে।
কিন্তু এর ফলে দেশের ক্রান্তীয় আর্দ্র চিরহরিৎ বনের কী অবস্থা হবে তার উল্ল্যেখ করলেন না। রেহিঙ্গা বসতি স্থাপনের জন্য উজাড় হয়েছে বন। দেশের বিভিন্ন এলকায় বিভিন্ন এলাকায় বনের জায়গায় গড়ে উঠছে অর্থনৈতিক অঞ্চল ও বিদ্যুৎকেন্দ্র। ঢাকার উপর চাপ কমিয়ে দেশের উপর চাপ বাড়ানোর এহেন প্রস্তাবনাকে কী বলা যেতে পারে আমার জানা নেই।

আমি দুঃখিত যে, আমার শেষের মন্তব্যগুলো আপনার মূল পোস্ট থেকে অনেকটাই বিচ্যুত।

০৪ ঠা জুন, ২০২০ রাত ১:৩৫

কল্পদ্রুম বলেছেন: দুঃখিত হওয়ার কিছু নেই। :)

৪৫| ০৪ ঠা জুন, ২০২০ রাত ৩:২৫

অনল চৌধুরী বলেছেন: নিমো বলেছেন: অনল চৌধুরী বলেছেন:
উল্টো প্রাচীন বাংলা বলে উদ্ভট এক অ্স্তিত্বহীন স্থানের গপ্পো শোনাতে এসেছেন আপনার মতো গন্ডমূর্খের সাথে কথা বলা মানে সময় নষ্ট করা।প্রাচীন বাংলা উদ্ভট? বাংলার সুলতানী আমল সম্পর্কে কোনো পড়াশোনা আছে ?
কয়দিন লেখালেখি করেন? দিনে কয় ঘন্টা পড়াশোনা করেন আর কয়টা গবেষণামূলক বই হয়েছে?
সবাইকে নিজের জায়গায় টেনে আনাতেই ব্যার্থদের আনন্দ।
আমাজান ব্রাজিলের একার না আরো ৯ টা দেশের। আর চট্রগ্রামের সাথে যে আমাজানের তুলনা দেয়,তার জ্ঞান-বুদ্ধির দৌড় সবার জানা।

৯৯.৯% বাঙ্গালীর পরিবর্তে যারা ০.১% উপজাতির দালালি করে,তারা দেশদ্রোহী।

৪৬| ০৪ ঠা জুন, ২০২০ ভোর ৬:১৬

নিমো বলেছেন: অনল চৌধুরী বলেছেন: আপনার মতো গন্ডমূর্খের সাথে কথা বলা মানে সময় নষ্ট করা
জ্বী ঠিক বলেছেন আমি গন্ঢমূর্খ। আমার জানায় ভুল থাকতে পারে এবং এটা মেনে নিতেও আমার আপত্তি নেই। আপনার মত ব্লগের চিপায় বসা "আমি কত্ত জানি" সিনড্রোমে আক্রান্ত নই।

অনল চৌধুরী বলেছেন: প্রাচীন বাংলা উদ্ভট? বাংলার সুলতানী আমল সম্পর্কে কোনো পড়াশোনা আছে ?
না আপনার মত ভুলভাল নেই, এই জন্য জানি বাংলার সুলতানী আমল মধ্যযুগের বাংলা, প্রাচীন বাংলা বলে বলে কিছু নেই।

অনল চৌধুরী বলেছেন: কয়দিন লেখালেখি করেন?
সিকি শতাব্দীর চেয়ে বেশিই হবে।

অনল চৌধুরী বলেছেন: দিনে কয় ঘন্টা পড়াশোনা করেন আর কয়টা গবেষণামূলক বই হয়েছে?
আপনার চেয়ে যে বেশি তা ইতোমধ্যেই প্রমানিত। =p~

অনল চৌধুরী বলেছেন:সবাইকে নিজের জায়গায় টেনে আনাতেই ব্যার্থদের আনন্দ।
জ্বী ভাই আমি ব্যর্থ। আপনার মত ভুলভাল বানানের গরুখোঁজক হতে না পারার। =p~

অনল চৌধুরী বলেছেন:আমাজান ব্রাজিলের একার না আরো ৯ টা দেশের। আর চট্রগ্রামের সাথে যে আমাজানের তুলনা দেয়,তার জ্ঞান-বুদ্ধির দৌড় সবার জানা।
এখানে বনের গুরুত্ব বোঝানো হয়েছে। আমাজন অরণ্য কয় দেশের সেটা জরুরী নয়।

অনল চৌধুরী বলেছেন:৯৯.৯% বাঙ্গালীর পরিবর্তে যারা ০.১% উপজাতির দালালি করে,তারা দেশদ্রোহী।
আপনার মত লোক আমি দেশদ্রোহী না দেশপ্রেমী সেটা যে বিচার করার সামর্থ্য রাখেন না, ইতোমধ্যেই প্রমানিত।



৪৭| ০৫ ই জুন, ২০২০ রাত ২:৫৭

অনল চৌধুরী বলেছেন:
অনল চৌধুরী বলেছেন: দিনে কয় ঘন্টা পড়াশোনা করেন আর কয়টা গবেষণামূলক বই হয়েছে?
আপনার চেয়ে যে বেশি তা ইতোমধ্যেই প্রমানিত- ব্লগের সবাই প্রকাশিত কয়েকটা বইয়ের নাম শুনুক।

৪৮| ০৫ ই জুন, ২০২০ ভোর ৪:৫০

নিমো বলেছেন: অনল চৌধুরী বলেছেন: ব্লগের সবাই প্রকাশিত কয়েকটা বইয়ের নাম শুনুক।
হা হা হা! ব্লগের সবাই না শুনলে কি আমার বই হাওয়া হয়ে যাবে ? আমি ব্লগে আপনার মত আত্মপ্রচারের জন্য আসি না। ব্লগ কী, কেন এগুলো একটু জানুন, বুঝুন। যাক আপনার উপহারটা নিচে দেয়া হল:

অনল চৌধুরী বলেছেন: ব্লগের সবাই প্রকাশিত কয়েকটা বইয়ের নাম শুনুক।
হা হা হা! ব্লগের সবাই না শুনলে কি আমার বই হাওয়া হয়ে যাবে ? আমি ব্লগে আপনার মত আত্মপ্রচারের জন্য আসি না। ব্লগ কী, কেন এগুলো একটু জানুন, বুঝুন। যাক আপনার উপহারটা নিচে দেয়া হল:

৪৯| ০৬ ই জুন, ২০২০ ভোর ৪:১১

অনল চৌধুরী বলেছেন: বাংলাদেশে ইন্টারনেট-ব্লগ চালু হওয়া অনেক বছর আগে ১৯৯২ সালে থেকে আমি লেখালেখি করি।
এমনকি ১৯৯৯ সালে যখন একসাথে আমার ৪ টা বই ( ২টা মৌলি,২ টা অনুবাদ) বের হয়,তখনও দেশে এসব শুরু হয়নি।
সুতরাং এখানে নতুন করে নিজের প্রচার করার কিছূ নাই।এজন্য গুগল,ফেসবুক,ইউটিউব আছে।
যে যেমন,তার মানসিকতা-চিন্তাভাবনাও তেমন।
একটা লেখা দিতে পারলে বুঝতাম,কলমের জোর আছে !!!

৫০| ০৬ ই জুন, ২০২০ ভোর ৪:২৬

নিমো বলেছেন: অনল চৌধুরী বলেছেন: যে যেমন,তার মানসিকতা-চিন্তাভাবনাও তেমন।
আয়নায় তাকিয়েই বুঝি এই উপলব্দি আপনার। :P

অনল চৌধুরী বলেছেন: একটা লেখা দিতে পারলে বুঝতাম,কলমের জোর আছে !!!
আমার কলমের জোর নেই, কারণ কম্পিউটারে লেখালেখি করি। B-) আর আপনার বেশি বুঝে কাজ নেই, উপরে দেয়া উপহারটা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকুন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.