নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সম্পাদক, শিল্প ও সাহিত্য বিষয়ক ত্রৈমাসিক \'মেঘফুল\'। প্রতিষ্ঠাতা স্বেচ্ছাসেবী মানবিক সংগঠন \'এক রঙ্গা এক ঘুড়ি\'।

নীলসাধু

আমি খুব সহজ এবং তার চেয়েও বেশী সাধারন একজন মানুষ । আইটি প্রফেশনাল হিসেবে কাজ করছি। টুকটাক ছাইপাশ কিছু লেখালেখির অভ্যাস আছে। মানুষকে ভালবাসি। বই সঙ্গে থাকলে আমার আর কিছু না হলেও হয়। ভালো লাগে ঘুরে বেড়াতে। ভালবাসি প্রকৃতি; অবারিত সবুজ প্রান্তর। বর্ষায় থৈ থৈ পানিতে দুকুল উপচেপরা নদী আমাকে টানে খুব। ব্যাক্তিগতভাবে বাউল, সাধক, সাধুদের প্রতি আমার দুর্বলতা আছে। তাই নামের শেষে সাধু। এই নামেই আমি লেখালেখি করি। আমার ব্লগে আসার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। শুভকামনা রইলো। ভালো থাকুন সবসময়। শুভ ব্লগিং। ই-মেইলঃ [email protected]

নীলসাধু › বিস্তারিত পোস্টঃ

আগে নালিশ কইরাগো রাখি আবার যেন তোমার দেখা পাই

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:০৮



তোমার সনে প্রেম করিয়া
আমার পরাণ ভরে নাই
আগে নালিশ কইরাগো রাখি
আবার যেন তোমার দেখা পাই

প্রাণ বন্ধু তোমার সনে
কত মধুর আলাপনে
সুখের নিশি জাগিয়া পোহাই
এখন পরান কাঁদে তোমার তরে
কি দিয়া মনরে বুঝাই
আগে নালিশ কইরাগো রাখি
আবার যেন তোমার দেখা পাই

প্রাণবন্ধুর মুখের বাণী
আমার প্রাণবন্ধুর মুখের বানী
পরান ভইরা কত শুনি
সেই সুর ধ্বনি অন্য কোথাও নাই
তারে আবার যেন দেখলে চিনি
পাইয়া যেন না হারাই
আগে নালিশ কইরাগো রাখি
আবার যেন তোমার দেখা পাই

আগে আমি রাখি বলে
বন্ধুরে আগে রাখি বলে
আমায় নিয়ে যাইয়ো সময় হইলে
যার তার সনে কেমন করে যাই
বাউল কবি রহম আলী
সে আশাতে রাত কাটাই
আগে নালিশ কইরাগো রাখি
আবার যেন তোমার দেখা পাই
.
... বাউল কবি রহম আলীর লেখা কোণ গান আমি শুনেছি বলে মনে করতে পারছি না। বন্ধুদের মধ্যে কেউ যদি শুনে থাকেন তবে মন্তব্যের ঘরে জানাতে পারেন :)
উপরে দেয়া লিরিকটি তার লেখা।
অসাধারণ একটি গান!

মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের একটি অনুষ্ঠানে গানটি প্রথম শুনেছিলাম।
একজন অপরিচিত বাউলের কণ্ঠে!
পর্দায় বাউলের নামটি ভালো করে দেখা হয়নি।
তবে তার চমৎকার আবেগী গলায় গানটি শুনে মুগ্ধ হয়েছিলাম।
আহা!

বাউল কবি রহম আলী সম্পর্কে জানতে গিয়ে নেট ঘেঁটেও কিছু পাইনি।
গুগল মিয়া ব্যর্থ।
ইউটিউবে এই গানটি একজন অখ্যাত বাউলের কণ্ঠে রয়েছে
তবে সেখানে লিরিকে প্রচুর ভুল বলে লিংক দিলাম না। আমার কাছে মনে হয়েছে আমি যেটি শুনেছি এটিই মুল লিরিক। এট লিষ্ট কাছাকাছি।
.
কেউ কি জানেন কে এই বাউল কবি রহম আলী?
তার লেখা অন্য কোণ গান কি রয়েছে?
কেউ কি শুনেছেন?
তিনি কোন অঞ্চলের বাউল?
.
ছবি // নেট

মন্তব্য ১৬ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (১৬) মন্তব্য লিখুন

১| ২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:১৭

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: ভালো লাগলো গানটির কথাগুলো। তবে বাউল কবি রহম আলী সম্পর্কিত কিছু জানিনা ভেবে খারাপ লাগছে। আপনার মতো আমিও আশায় রইলাম, কবি বাউল সম্পর্কে কিছু জানার

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:৪১

নীলসাধু বলেছেন: দেখা যাক কোন তথ্য পাওয়া যায় কীনা। ধন্যবাদ আপনাকে।

২| ২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:২২

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:


মাটি ও সবুজ মনের কাছাকাছি টেনে নেয় এই গান গুলো. বাউল কবি রহম আলীর.. লিরিকস টা ভাল লাগল!

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:৪২

নীলসাধু বলেছেন: সত্য বলেছেন। মাটি ও সবুজ আমাদের প্রাণ। এসব গান আমাদের সেসবের খুব কাছে নিয়ে যায়।
ধন্যবাদ আপনাকে।

৩| ২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৬

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
কবিতা ছেড়ে দাদার গানের ভূবনে পদার্পণ,
স্বাগতম আপনাকে গানের ভূবনে।

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:৪৩

নীলসাধু বলেছেন: হা হা হা
আসলে এই গানটি ভালো লাগায় খোঁজ করছি আর কি।
আশা করি ভালো আছেন।

শুভকামনা।

৪| ২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:৫৭

ফয়েজ উল্লাহ রবি বলেছেন: এমন কতো রহম আলী হারিয়ে যায় তার খবর কে রাখে.........

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:৪৪

নীলসাধু বলেছেন: হুম, তাও ঠিক।
এই পৃথিবীর সকল কিছু চলমান। কিছুই থেমে নেই। কারো জন্যেই নয়।

ধন্যবাদ।

৫| ২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:১৫

শাব্দিক হিমু বলেছেন: এভাবেই বাউল কবি রহম আলীরা হারিয়ে যায় আর বেঁচে থাকে মাহফুজুর রহমানের মত কন্ঠওয়ালারা।

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:৪৫

নীলসাধু বলেছেন: নিদারুণ সত্য বলেছেন।


ধন্যবাদ জানবেন।

৬| ২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:২৪

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
রাউজান উপজেলার পূর্বগুজরা ইউনিয়নের আধার মানিক গ্রামে রহম আলীর নামে একটি সড়ক আছে জানি।
এটি বাউল কবি রহম আলীর নামে কিনা তা জানিনা। চট্রগ্রামের কোন ব্লগার জানলেও জানতে পারে।

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:৪৬

নীলসাধু বলেছেন: ধন্যবাদ নুরু ভাই। আমি খোঁজ খবর করার চেষ্টা করছি।
আপনার আন্তরিকতার জন্য ভালোবাসা জানাই।

৭| ২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:১৭

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ভাল লাগল রহম আলী নামের বয়াতীর বাউল গানের কথা গুলিকে ।
এমন অনেক গুনী বাউল কথা সাহিত্যিক হারিয়ে গেছেন অামাদের নিকট হতে ।
অনেক আগে প্রায় অর্ধশতক আগে উত্তর ঢাকা ও দক্ষীন ময়মনসিংহ এলাকায়
বেশ খ্যতিমান একজন বাউল কেরামত আলীর কথা মনে পড়ছে । তার
বাড়ী ঠিক কোথায় ছিল তা এখন মনে করতে পারছিনা । তবে তিনি তার গানে
বাউল গানের আসরকে মাতিয়ে রাখতেন । সে সময়ে অত্র এলাকায় রাতভর
বাউল গানের আসর বসত । বিভিন্ন অঞ্চল হতে প্রসিদ্ধ বাউলগন সমবেত
হতেন । তাদের মধ্যে প্রতিযোগীতা হত কে সেরা বাউল । সে সময় একটি
নিয়ম ছিল প্রথমে একজন বাউল মঞ্চে উঠে দর্শকদেরকে গানের ভাষায়
অভিবাদন করে একতারা , দোতারা বা বেহালা বাজিয়ে একটি বাউল
গান পরিবেশন করতেন । পেটের সাথে মাটির পাত্র ঠেকিয়ে তবলার মত
ঠুমরী বাজাতেন তার একজন সঙ্গী, অন্য একজনের হাতে বাজত ঝুনঝুনির
মত খঞ্জল। গান শেষে মঞ্চ থেকে নেমে যাওয়ার সময় গায়ক বা্উল পরবর্তী
বাউলের প্রতি একটি প্রশ্ন রেখে যেতেন , প্রশ্নগুলি সবই থাকত ধর্মীয় গুপ্ত জ্ঞান
দেহতত্ত্ব, ভাবতত্ত্ব প্রভৃতি বিষয়ের উপর । গানের সাথে তাদের প্রশ্ন ও তার
য়ৌক্তিক উত্তর শ্রবনকারী দর্শকেরা মুল্যায়ন করতেন এবং ঠিক করতেন
কে হবে সেরা বাউল। ধর্মীয় বিষয়ের উপর তাদের প্রশ্নগুলি ছিল গুঢ় অর্থবোধক ।
আমার বাল্যকালে আমাদের এলাকায় অনুষ্ঠিত কোন বাউল গানের আসর
আমি পারত পক্ষে মিস করতামনা । বিশেষ করে তাদের প্রশ্ন উত্তরগুলি
শুনার জন্য আমার আগ্রহ ছিল অনেক বেশী । বা্‌উলদেরকে আমার মনে
হতো গুপ্ত জ্ঞানের ভান্ডার । একজন বাউলের একটি প্রশ্ন ও তার উত্তর
শুনে আমি বাল্যকালে স্তম্ভিত হয়ে যাই তাদের জ্ঞানের পরিধি দেখে ।
প্রশ্নটি ছিল নিন্মরূপ :
পায়ু পথে গেলে বায়ু
অযু ভেঙ্গে যায়
যেখান দিয়ে গেল বায়ু
সেথার বিচার না হয়ে
ফের অযুতে পাক হল
কোন সে তরিকায় ?

পরবর্তী বাউল মঞ্চে উঠে যথানিয়মে শ্রোতাদেরকে অভিবাদন
করে একটি গান গেয়ে পুর্বর্তী বাউলের প্রশ্নের উত্তর দিতেন
উত্তর দেয়ার পরে আরো একটি গান গেয়ে মঞ্চ ত্যাগের
পুর্বে প্রতিদন্ধি বাউলের প্রতি একটি যুতসই প্রশ্ন রেখে
যেতেন , এমনি করে প্রায় সারারাত চলত বাউল গানের
অনুষ্ঠান । অধুনা বিভিন্ন জায়গায় বাউল গানের অনুষ্ঠান হয়
কিন্তু সে রকম বাউল ধারা আর দেখিনা । সেখানে
বাউল গানের সাথে একই মঞ্চে একই গায়ক কতৃক
আধুনিক এমন কি পপ সঙ্গীত পরিবেশিত হতে
দেখা যায় । বুঝাই যাচ্ছে বাউল সঙ্ঘীত তার
গতানুগতিক প্রকৃতি হারাতে বসেছে ।

যাহোক, যে কথা বলছিলাম অনেক বাউল হারিয়ে যান
আমাদের অগোচরে যেমন হারিয়ে গেছেন আমার
দেখা সেই বিখ্যাত বা্‌উল কেরামত আলী ।
তবে তার গাওয়া একটি গান আমার স্মৃতিতে এখনো জেগে
আছে । গানটির বেশ কিছু কলি মনে করতে পারছিলাম না ।
এই মন্তব্যটি লিখার সময় মনে হলো অন্তরজাল ঘেটে দেখি
গানটিকে হয়তবা পেলেও পেয়ে যেতে পারি , কারণ অনেকেই
তো পুরাতন বাউল গান সংগ্রহ করেন ও অন্তরজালে ছাড়েন ।
অনেক ঘেটে ঘুটে অনলাইনে সেই গানটির কিছু খুঁজে পাই ।
প্রায় অর্ধশতক আগে গানটি আমি নীজ কানে
শুনেছি বাউল কেরামত আলীর কন্ঠে । যাহোক গানটি তুলে
দিলাম নীচে । গানটির প্রকৃত রচয়িতার নাম খুঁজে পাইনি
তবে এর প্রকৃত রচয়িতার প্রতি রইল বিনম্র শ্রদ্ধা ।

মাগো মা, ঝিগো ঝি
করলাম কি রঙে
ভাঙা নৌকা বাইতে আইলাম গাঙে
মাগো মা, ঝিগো ঝি
করলাম কি রঙে
ভাঙা নৌকা বাইতে আইলাম গাঙে ।।

গুমাই নদী নষ্ট করলো, ঐ না কোলা ব্যাঙে
ভাঙা নৌকা বাইতে আইলাম গাঙে

ভাঙা নৌকায় উঠলো জল
নদী করে কলকল
কল কলাকল পারি না তার সঙ্গে

নদীর নামটা কামিনী সাগর
বাকে বাকে উঠে লহর
কত সাধুর ভরা নৌকা পার হয় তার তরঙ্গে
মাগো মা, ঝিগো ঝি
করলাম কি রঙে
ভাঙা নৌকা বাইতে আইলাম গাঙে ।।

ছিলাম শিশু, ছিলাম ভালো
না ছিল সংসার জ্বালা
হাসিতাম খেলিতাম মায়ের সঙ্গে
এই দেহে আসলো জোয়ানই,
গাঙে আইল নয়া পানি
কাম কামিনী বসিল বাম অঙ্গে
মাগো মা, ঝিগো ঝি
করলাম কি রঙে
ভাঙা নৌকা বাইতে আইলাম গাঙে ।।

ছিলাম জোয়ান হইলাম বুড়া
বেকে গেল বাঁকা ঘোড়া
গলুই ঘোড়া সব গিয়েছে ভেঙ্গে
রসিক উদ্দিন বলে গেলেন,
চেয়ে দেখ আপন মনে
একদিন মিশিবে মাটির সঙ্গে
ভাঙা নৌকা বাইতে আইলাম গাঙে
মাগো মা, ঝিগো ঝি
করলাম কি রঙে
ভাঙা নৌকা বাইতে আইলাম গাঙে

গুমাই নদী নষ্ট করলো, ঐ না কোলা ব্যাঙে
ভাঙা নৌকা বাইতে আইলাম গাঙে
মাগো মা, ঝিগো ঝি
করলাম কি রঙে
ভাঙা নৌকা বাইতে আইলাম গাঙে


ধন্যবাদ সাথে রইল অনেক শুভেচ্ছা ।

২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১২:০২

নীলসাধু বলেছেন: আপনার বিস্তারিত আন্তরিক মন্তব্য পোষ্টটিকে সমৃদ্ধ করেছে। ধন্যবাদ জানবেন।

৮| ২৩ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:৪৬

মনিরা সুলতানা বলেছেন: বাহ! কি সহজ করে মনের কথা লিখে গেছেন ;খুব ভালো লাগলো ।
ধন্যবাদ শেয়ার করার জন্য ।

আশা করছি কেউ অবশ্যই তথ্য দিয়ে সাহায্য করতে পারবেন ।

২৬ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১১:৫৭

নীলসাধু বলেছেন: শুভেচ্ছা জানবেন মনিরা সুলতানা।
আশা করছি কুশলে আছেন।

হুম আমাদের অঞ্চলের বাঊল সাধকদের গান এমনই সহজ প্রাণবন্ত।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.