নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সম্পাদক, শিল্প ও সাহিত্য বিষয়ক ত্রৈমাসিক \'মেঘফুল\'। প্রতিষ্ঠাতা স্বেচ্ছাসেবী মানবিক সংগঠন \'এক রঙ্গা এক ঘুড়ি\'।

নীলসাধু

আমি খুব সহজ এবং তার চেয়েও বেশী সাধারন একজন মানুষ । আইটি প্রফেশনাল হিসেবে কাজ করছি। টুকটাক ছাইপাশ কিছু লেখালেখির অভ্যাস আছে। মানুষকে ভালবাসি। বই সঙ্গে থাকলে আমার আর কিছু না হলেও হয়। ভালো লাগে ঘুরে বেড়াতে। ভালবাসি প্রকৃতি; অবারিত সবুজ প্রান্তর। বর্ষায় থৈ থৈ পানিতে দুকুল উপচেপরা নদী আমাকে টানে খুব। ব্যাক্তিগতভাবে বাউল, সাধক, সাধুদের প্রতি আমার দুর্বলতা আছে। তাই নামের শেষে সাধু। এই নামেই আমি লেখালেখি করি। আমার ব্লগে আসার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। শুভকামনা রইলো। ভালো থাকুন সবসময়। শুভ ব্লগিং। ই-মেইলঃ [email protected]

নীলসাধু › বিস্তারিত পোস্টঃ

অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৯

০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:৫৮



শুভেচ্ছা!
অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৯ নিয়ে কাজ করছি আমরা!
এক রঙ্গা এক ঘুড়ি প্রকাশনী হতে যারা বই প্রকাশে আগ্রহী তারা আমাদের কাছে পাণ্ডুলিপি পাঠাতে পারেন।
'এক রঙ্গা এক ঘুড়ি প্রকাশনী’ বাণিজ্যিক কোন প্রকাশনা সংস্থা নয়!
স্বেচ্ছাসেবী মানবিক সংগঠন ‘এক রঙ্গা এক ঘুড়ি’র স্বেচ্ছাসেবী বন্ধু শুভাকাঙ্ক্ষীদের সৃজনশীলতা চর্চা তৈরির একটি ক্ষেত্র।
বই প্রকাশের খরচ বহন করতে হবে আপনাকে।
স্বেচ্ছাসেবী কাজের তহবিল গঠনের উদ্দেশ্যে ৩০০ বই প্রকাশ করে দেয়ার পারি শ্রমিক হিসেবে ৫০ কপি বই রেখে দেবো আমরা- এই বইগুলোর বিক্রয়লব্ধ টাকা ব্যয় করা হবে সুবিধা বঞ্চিত শিশু এবং সমাজের দুঃস্থ অসহায় মানুষদের কল্যাণে।

মানবিক বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে নানা সামাজিক মানবিক কার্যক্রমে যুক্ত এবং পাশাপাশি লেখালিখি সহ অন্যান্য সাংস্কৃতিক কার্যক্রমে যারা আগ্রহী মূলত তাদের প্রকাশনায় সহায়তা করার উদ্দেশ্যেই প্রকাশনার শুরু। এ কাজে আমরা মুনাফা রাখি না।

গত ৮ বছর যাবত আমরা প্রকাশনার সঙ্গে জড়িয়ে আছি, ইতোমধ্যে নান্দনিক প্রকাশনায় আমাদের স্বকীয়তা প্রমাণ করেছি। পাঠক, লেখকদের চাহিদা পূরণে আমরা আন্তরিক। এক রঙ্গা এক ঘুড়ি প্রকাশনীর কাজে রয়েছে নিজস্বতা, ভিন্নতা। সুধীমহলে আমাদের প্রকাশনীর বইগুলো সমাদৃত হয়েছে।

বইয়ের বিভাগ:
#গল্প
#কবিতা
#উপন্যাস
#প্রবন্ধ
#অনুবাদ
#থ্রিলার
#হরর
#সায়েন্স_ফিকশন
#শিশুতোষ

ঘুড়ির আয়ের ৩০ শতাংশ 'তহবিল' সুবিধা বঞ্চিত শিশু এবং সমাজের দুঃস্থ অসহায় মানুষদের কল্যাণে ব্যয় করা হয়। প্রকাশনীর যে কোণ কাজে আপনি আমাদের সহায়তা নিতে পারেন।


বই প্রকাশের সাধারণ তথ্য ও শর্তাবলী:

০১। প্রকাশিত বইয়ের প্রথম ৫০ কপি বইয়ের ‘বিক্রয়মূল্য’ পারিশ্রমিক হিসেবে ঘুড়ির তহবিলে যুক্ত হবে। প্রতি ৩০০ কপি বইয়ের মধ্যে ৫০ কপি বই এক রঙ্গা এক ঘুড়ির তত্ত্বাবধানে থাকে; ৫০ কপি বই মূলত ‘এক রঙ্গা এক ঘুড়ি’র প্রকাশনা পারিশ্রমিক হিসেবে নেয়া হয় যার বিক্রয়লব্ধ টাকা স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রমে ব্যয় করা হয়। প্রকাশিত বই ৫০০ হলে তার মধ্যে থেকে ঘুড়ি পাবে ১০০ কপি। তেমনিভাবে কেউ ১০০০ কপি বই করালে ঘুড়ি রাখবে ২০০ কপি বই।

০২। এক রঙ্গা এক ঘুড়ি প্রকাশিত প্রতিটি বইয়ের ISBN নাম্বার রয়েছে।

০৩। এক রঙ্গা এক ঘুড়ির বই বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশেও পাওয়া যায়। বাংলাদেশের বাইরে বই পাঠানর ক্ষেত্রে কুরিয়ার চার্জ প্রযোজ্য!

০৪। এক রঙ্গা এক ঘুড়ির সকল বই অনলাইনে পাওয়া যায়। বাংলাদেশের যে কোন স্থান হতে অর্ডার করে বই সংগ্রহ করা যায়।

০৫। এক রঙ্গা এক ঘুড়ির পরিবেশক দেশের খ্যাতনামা প্রকাশনা সংস্থা শ্রাবণ প্রকাশনী, যাদের রয়েছে দীর্ঘ ২২ বছরের কাজের অভিজ্ঞতা। ঢাকার আজিজ সুপার মার্কেটের শ্রাবণ প্রকাশনীর বিক্রয়কেন্দ্রে পাওয়া যায় এক রঙ্গা এক ঘুড়ির সকল বই।

০৬। অমর একুশে গ্রন্থমেলায় বই বিক্রয়ের জন্য ২৫ পার্সেন্ট ডিসকাউন্ট প্রদান করতে হয়। সেক্ষেত্রে স্টল পরিচালনা বাবদ ২০ পার্সেন্ট কেটে রেখে বাকী ৫৫ পার্সেন্ট এর সমপরিমাণ টাকা লেখককে প্রদান করা হয়। এটি লেখকের অর্থায়নে প্রকাশিত বইয়ের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

০৭। এক রঙ্গা এক ঘুড়ির অর্থায়নে প্রকাশিত বইয়ের মুদ্রিত মূল্যের শতকরা ১৫ শতাংশ পরিমাণ টাকা রয়েলটি হিসেবে লেখককে প্রদান করা হয়।

০৮। এক রঙ্গা এক ঘুড়ির বই এবং লেখকদের প্রচার প্রচারণায় সকল ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। এ ক্ষেত্রে সমমনা অনলাইন মিডিয়াতে বিশেষ প্রচারণা চালানো হয়।

০৯। এক রঙ্গা এক ঘুড়ি প্রকাশনী হতে বই প্রকাশ মানে শুধু বই প্রকাশ নয় মানবিক ও সামাজিক কাজেও অংশগ্রহণ করা। তাই প্রকাশনা সংক্রান্ত সকল কাজে আমাদের সহযোগিতা নিতে পারেন আপনি।
.
.
পাণ্ডুলিপি পাঠাতে হবে
[email protected] ঠিকানায়।

শুভেচ্ছান্তে-

এক রঙ্গা এক ঘুড়ি
৩২/২ শুক্রাবাদ, নীচতলা
মোহাম্মদপুর, শেরে বাংলা নগর
ঢাকা ১২০৭, ফোন ০১৭১১৩১০৪৭৬
www.ekrongaekghuri.com










নতুন বইয়ের কিছু কাভার।
বইগুলো প্রকাশিত হবে অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৯ এ










মন্তব্য ১২ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (১২) মন্তব্য লিখুন

১| ০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৪:০২

লায়নহার্ট বলেছেন: {ওকে}

০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৩

নীলসাধু বলেছেন: ও কেউ না। :)

২| ০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:০২

রাজীব নুর বলেছেন: চমৎকার।
আমার শ্বশুর একটা পান্ডুলিপি তৈরি করছেন।
নাম সম্ভবত ''কর্মচারী সৃতিকথা''।
লেখা শেষ হোক আপনাদের সাথে যোগাযোগ করবো।

০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:০৮

নীলসাধু বলেছেন: ধন্যবাদ জানবেন।
আমাদের ঠিকানা দেয়া আছে। যোগাযোগ করবেন।
আমাদের কাছে ভালো লাগলে আমাদের নিজেদের অর্থায়নেও প্রকাশনার কাজ করি।

৩| ০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:২৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


আশাকরি, ব্লগারেরা উৎসাহিত হবেন; ফেব্রুয়ারী প্রকাশের জন্য কোন মাস অবধি লেখা জমা দেয়া সম্ভব?

০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:৫০

নীলসাধু বলেছেন: ধন্যবাদ চাঁদগাজী ভাই।
আমরা পাণ্ডুলিপি নেবো নভেম্বর ৩০ পর্যন্ত!
কৃতজ্ঞতা অশেষ। ভাল থাকবেন।

৪| ০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৪

লায়নহার্ট বলেছেন: {ব্লগাররা উৎসাহিত হোক}

০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৩

নীলসাধু বলেছেন: ধন্যবাদ লায়নহার্ট।
আমরা নিজেরা বই প্রকাশ করতে গিয়ে দেখেছি নতুন পুরাতন লেখকদের প্রকাশক রা ঠকিয়ে ব্যবসা করেন। সেই থেকে এই কাজে আমরা যুক্ত হয়েছি। এখানে আমাদের কোন মুনাফা নেই। চ্যারিটি কাজের জন্য তহবিল এবং সবাইকে সহায়তার জন্যেই এই কাজগুলো করা।

ধন্যবাদ।

৫| ০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:০১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: সবেধন নীলমণি আমার দুটি বই প্রকাশিত হওয়ায় অনেকে আমার কাছে বই প্রকাশের নিয়ম কানুন জানতে চান।কোথায় কার সাথে কিভাবে যোগাযোগ করবেন, খরচ কেমন, কত কপি ছাপা হয়, কারা বাজারজাত করবে ইত্যাদী। এই পোস্ট দেখে হাঁফ ছেড়ে বাঁচলাম। তাঁদের সকলকে এই পোস্টের লিঙ্ক ধরিয়ে দিতে পারবো।
এখানে খরচ বিষয়ে একটু আলোক পাত করলে লিখক তার সামর্থ সম্পর্কে ধারনা নিতে পারতো। আমি জদ্দুর জানি 'এক রঙ্গা এক ঘুড়ি প্রকাশনী’ প্রতি ফর্মা ছাপানোর খরচ নেয় ৬০০০ (+-) টাকা।
১৬ পৃষ্ঠায় এক ফর্মা। কবিতার ক্ষেত্রে প্রতি কবিতায় এক পৃষ্ঠা ধরা যেতে পারে। গদ্যের ক্ষেত্রে মোটামুটি ৩০ লাইনে এক পৃষ্ঠা ধরা যেতে পারে।(১১ শব্দে এক লাইন হয়)
নবীন লিখকদের উদ্যশ্যে- বই যদি ছাপাতেই হয় 'এক রঙ্গা এক ঘুড়ি প্রকাশনী’ মাধ্যমেই ছাপান। এতে বই প্রকাশের সাথে একটি মানবিক উদ্যোগের সাথে যুক্ত থাকা যাবে।
পরিশেষে চমৎকার উদ্যোগের জন্য 'এক রঙ্গা এক ঘুড়ি’ কে ধন্যবাদ।

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৪:৪৭

নীলসাধু বলেছেন: অশেষ কৃতজ্ঞতা গিয়াস ভাই।
আপনার সাথে গতোকাল বিস্তারিত আলাপ হয়েছে।

ভালো থাকবেন।

৬| ০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:৫৬

অচেনা হৃদি বলেছেন: ৩০ নভেম্বর সময়সীমাতে বইয়ের পাণ্ডুলিপি নেবেন। কিন্তু ভাইয়া বই তো ফেব্রুয়ারিতে আসবে।
একটা বই প্রসেস করতে দুই মাস লেগে যায়? আশ্চর্য লাগলো। আমি মনে করতাম প্রকাশকরা চাইলে এক সপ্তাহেই বের করে ফেলতে পারেন।
নতুন একটা তথ্য জানতে পেলাম, ধন্যবাদ।

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৪:৪৬

নীলসাধু বলেছেন: শুভেচ্ছা অচেনা হৃদি
আপনি ঠিক জানেন। চাইলে এক সপ্তাহের মধ্যে বই প্রকাশ করাও সম্ভব।
তবে ধীরে সুস্থে করতে চাইলে সময় নিয়ে করা উচিৎ। নাহলে ভুলের পরিমাণ বেশি থাকে।
আমরা এখন বলছি নভেম্বর ৩০ কিন্তু সময়সীমা বৃদ্ধি করতে হয়।
এটা একটা ধাপ। এর পরের ধাপের বইয়ের জন্য আরেকটা তারিখ থাকবে।

ভালো থাকবেন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.