নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সম্পাদক, শিল্প ও সাহিত্য বিষয়ক ত্রৈমাসিক \'মেঘফুল\'। প্রতিষ্ঠাতা স্বেচ্ছাসেবী মানবিক সংগঠন \'এক রঙ্গা এক ঘুড়ি\'।

নীলসাধু

আমি খুব সহজ এবং তার চেয়েও বেশী সাধারন একজন মানুষ । আইটি প্রফেশনাল হিসেবে কাজ করছি। টুকটাক ছাইপাশ কিছু লেখালেখির অভ্যাস আছে। মানুষকে ভালবাসি। বই সঙ্গে থাকলে আমার আর কিছু না হলেও হয়। ভালো লাগে ঘুরে বেড়াতে। ভালবাসি প্রকৃতি; অবারিত সবুজ প্রান্তর। বর্ষায় থৈ থৈ পানিতে দুকুল উপচেপরা নদী আমাকে টানে খুব। ব্যাক্তিগতভাবে বাউল, সাধক, সাধুদের প্রতি আমার দুর্বলতা আছে। তাই নামের শেষে সাধু। এই নামেই আমি লেখালেখি করি। আমার ব্লগে আসার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। শুভকামনা রইলো। ভালো থাকুন সবসময়। শুভ ব্লগিং। ই-মেইলঃ [email protected]

নীলসাধু › বিস্তারিত পোস্টঃ

কৃষ্ণচূড়া আড্ডা ২০১৯ :: এক রঙ্গা এক ঘুড়ি

০২ রা মে, ২০১৯ বিকাল ৫:৪৫



'গুলমোহরের ফুল ঝরে যায়, বনে বনে শাখায় শাখায়/ কেন যায় কেন যায়/ বাহারের মন ভেঙে যায়...’।
কৃষ্ণচূড়ার আরেক নাম গুলমোহর।

কৃষ্ণচূড়া আড্ডা ২০১৯ :: এক রঙ্গা এক ঘুড়ি

কৃষ্ণচূড়া আড্ডায় যোগ দেবার জন্য আপনাকে নিবন্ধন করতে হবে না, কোন রেজি নেই। শুধু এই ফুল এবং প্রকৃতির প্রতি ভালোবাসা থাকলেই হবে :D
আমরা যারা আশেপাশে থাকি তারাই মূলত এই উছিলায় একসাথে হই। আড্ডা হাসি গানে সময় পার। বাদাম বুট চটপটি ফুসকায় অথবা বাসা থেকে বানিয়ে আনা খাবার সাবাড় করি। লেকের জলে কৃষ্ণচূড়া ফুল দেখি।
বৈকালিক আলো বাতাসে একটু সময় কাটাই।
এই হচ্ছে সাদামাটা পরিকল্পনা।

তারিখ: মে ০৪, ২০১৯
স্থান: চন্দ্রিমা উদ্যান/জিয়া উদ্যান - সংসদ ভবন লেক
সময়: বিকাল ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৬-৩০টা পর্যন্ত থাকবো আমরা


হাতে সময় থাকলে ঘুড়ি স্বেচ্ছাসেবী/কবি/সাহিত্যিক/লেখক/প্রকাশক/সংগঠকদের সাথে যোগ দিতে পারেন আপনিও ♥

সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা এক রঙ্গা এক ঘুড়ি র নিয়মিত আয়োজন কৃষ্ণচূড়ায় আড্ডায় আপনাকে নিমন্ত্রণ :)

আমাদের সাথে থাকবে ঘুড়ি ইশকুল ছাত্র-ছাত্রীরাও।













পোষ্টে ব্যবহৃত সকল ছবি আমার তোলা। কিছু ধানমন্ডি লেকে। কিছু রমনা পার্কের।


২০১৮ আয়োজনের পোষ্ট
গত আয়োজনের পোষ্ট

মন্তব্য ১০ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (১০) মন্তব্য লিখুন

১| ০২ রা মে, ২০১৯ বিকাল ৫:৫০

পবিত্র হোসাইন বলেছেন: বাহ্!!! অনেক সুন্দর উদ্যোগ।

২| ০২ রা মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১০

মহসিন ৩১ বলেছেন: নুতন কিছু জানতে আমিও আছি সাথে। বিজ্ঞান ছাড়া পৃথিবী অচল; কিন্তু সাহিত্য না হলে জীবনটাই পানসে হয়ে থাকে।--কৃষ্ণচূড়ার আরেক নাম গুলমোহর এটা এই প্রথম শুনলাম।

৩| ০২ রা মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১৬

আকতার আর হোসাইন বলেছেন: কৃষ্ণচূড়ার আরেক নাম গুলমোহর এটা আমিও এই প্রথম শুনলাম।



ছবি সুন্দর হয়েছে। উদ্যোগ ভালো...

৪| ০২ রা মে, ২০১৯ রাত ৮:২১

আহমেদ জী এস বলেছেন: নীলসাধু,




কৃষ্ণচূড়ার শুভেচ্ছা আড্ডার সবাইকে।

৫| ০২ রা মে, ২০১৯ রাত ৮:৪০

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: চমৎকার !

৬| ০৩ রা মে, ২০১৯ ভোর ৪:২০

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: গুলমোহর, গুলমো্র, রক্তচূড়া কতই না এর নাম ।
ফুলটির যেমনি রয়েছে আন্তর্জাকিকতা যথা এর আদি নিবাস আফ্রিকার মাদাগাস্কার, সেখান থেকে প্রথম মরিশাস, পরে ইংল্যান্ড এবং শেষাবধি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিরাট অংশ, ক্যারাবিয়ান অঞ্চল, আফ্রিকা, হংকং, তাইওয়ান, দক্ষিণ চীন, বাংলাদেশ, ভারত আমাদের উল্টাদিকের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা, টেক্সাসের রিও গ্রান্ড উপত্যকা আর আস্ট্রেলিয়া, কোথায় না আছে কৃষ্ণচূড়া। কৃষ্ণচূড়ার মত সামু ব্লগের মানুষেরাই আজ ছড়িয়ে আছে দুনিয়ার বিভন্ন প্রান্তে ।

ছায়া দায়ী এই ফুল গাছের তলে আড্ডা অতি লোভনীয় , এর কথা ভাবলে কেবলী মনে পড়ে
“তুমি আমার আলোর নেশা বিভোর ভোরময়
কৃষ্ণচূড়া তুমি আমার প্রেমের পরিচয়

শুধু কৃষ্ণচূড়া ফুলটিই নয়, এই আড্ডার আয়োজক এক রঙ্গা এক ঘুড়িও অনন্য।

গ্রীষ্মের খরাদীর্ণ আকাশের নিচে প্রচণ্ড তাপ ও রুক্ষতায় কৃষ্ণচূড়ার আশ্চর্য প্রস্ফুটনের যেমন তুলনা নেই তেমনি মনে হয় তুলনা নেই এক রঙ্গা এক ঘুড়ির বৈচিত্রময় আড্ডার । সুন্দর বিকেলে আড্ডায় আসা দেশের প্রতিথযশা কবি সাহিত্যিকদের সাথে সামুর সহ- ব্লগারবৃন্দের হবে আনন্দমুখর মিলনমেলা , মুগ্ধ হবেন আড্ডা প্রেমীগন, পাবেন পরম তৃপ্তি, সকলের আনন্দঘন মিলনের জন্য এক রঙ্গা এক ঘুড়ির এমহতি আয়োজনের খবর শুনে ভাল লাগল । কৃষ্ণচূড়ার ফুল ফোটার আগে কলি দেখতে মোহরের মতো দেখায় বিধায় হিন্দিতে এই ফুলকে বলা হয় গুলমোহর! গুলমোহরের মত এক রঙ্গা এক ঘুড়ি ইস্কুলের ছাত্র ছাত্রীবৃন্দও হবেন প্রস্ফুটিত তাতে কোন সন্দেহ নেই । এ্ মহুর্তে দুরে আছি বলে আমরা যারা সেখানে যেতে পারবনা তারাও মনচোখে দেখব-
“আবার ফুটেছে দ্যাখো কৃষ্ণচূড়া থরে থরে শহরের পথে
কেমন নিবিড় হয়ে স্মৃতিগন্ধে ভরপুর ভাবে ।

আর মনে পড়বে
“এই সেই কৃষ্ণচূড়া যার তলে দাঁড়িয়ে
চোখে চোখ হাতে হাত কথা যেত হারিয়ে”


তবে আশার বাণী হল কারো কোন কথাই হারাবেনা , এক রঙ্গা এক ঘুড়ি সকলের কথাগুলিকে কাগজের মোরকে ঝকঝকা বাধা্ই করা পুথি পুস্তকে রাখবেন তা জগতের বুকে চিরভাস্কর করে ।

আড্ডার সাফল্য কামনা রইল

০৪ ঠা মে, ২০১৯ সকাল ১১:১০

নীলসাধু বলেছেন: আপনার মন্তব্যে পোষ্ট ঋদ্ধ হয়েছে।
সকল শুভকামনা, আন্তরিক মন্তব্যে ভালোবাসা জানাই।

৭| ০৩ রা মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৪৪

প্রামানিক বলেছেন: আগামি কাল ফনিতে আক্রমণ করলে তখন আড্ডা হবে কি করে?

০৪ ঠা মে, ২০১৯ সকাল ১১:০৯

নীলসাধু বলেছেন: আড্ডা স্থগিত করা হয়েছে। বিরূপ আবহাওয়ার জন্যেই :)

৮| ০৫ ই মে, ২০১৯ রাত ১০:৫৭

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: গুলমোহর,রক্তিম জবা,কৃষ্ণচূড়া নাম যতই হোক,এ ফুলটার রুপ আর সৌন্দর্য বসন্তকেও হার মানায়। ধন্যবাদ রইলো আমার প্রিয় ফুল নিয়ে লিখার জন্য। গুলমোহরকে নিয়ে চিরকুট লিখা আছে আমার ব্লগে, আমার প্রিয় ফুলকে নিয়ে লিখার কারনেই চিরকুট পড়ার দাওয়াত রইলো। ভালবাসা জানিবেন লেখক।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.