নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার নাম- রাজীব নূর খান। ভাবছি ব্যবসা করবো। ভালো লাগে পড়তে- লিখতে আর বুদ্ধিমান লোকদের সাথে আড্ডা দিতে। কোনো কুসংস্কারে আমার বিশ্বাস নেই। নিজের দেশটাকে অত্যাধিক ভালোবাসি। সৎ ও পরিশ্রমী মানুষদের শ্রদ্ধা করি।

রাজীব নুর

আমি একজন ভাল মানুষ বলেই নিজেকে দাবী করি। কারো দ্বিমত থাকলে সেটা তার সমস্যা।

রাজীব নুর › বিস্তারিত পোস্টঃ

ধর্ম নিয়ে কিছু বলতে চাই

২০ শে মার্চ, ২০১৯ দুপুর ২:০৩

মানুষের কাজ হল তারই মত আরেকজন মানুষকে সাহায্য করা। কিন্তু যখন মানুষ রুপের এই দোপেয়ে প্রাণী নিজের স্বার্থ নিয়ে মত্ত হয়ে ওঠে তখন তার কাজকর্ম হয়ে ওঠে পশুর ন্যায়।

পৃথিবীতে যত ধর্ম আছে, মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ কিবা খ্রিষ্টান। সব ধর্মেই বলা হয়েছে নারী শ্রেষ্ঠ, নারী অতুলনীয়, চির মহান।
মুসলিম ধর্ম মহান করেছে নারীকে, স্বর্গ পায়ের তলে দিয়ে ।
হিন্দু ধর্ম মর্যাদা দিয়েছে, স্বরস্বতী, লক্ষীকে দেবী সাজিয়ে ।
বৌদ্ধ ধর্মের শাশ্বত প্রেমের বাণীর কেন্দ্রবিন্দুতে বসে আছে নারী ।
খ্রিষ্টান ধর্মেও শ্রেষ্ঠত্ব ঘোষণায়, পরিচয় পেয়েছে যিশুর মাতা মেরী ।
সকল ধর্মেই দিয়েছে নারীর সম্মান, যদিও আমরা দেই ধর্মের দোহাই ।

অনুন্নত ও অনগ্রসর দেশ গুলো নারীর অবমূল্যায়ন, অবহেলা ও শোষন- নির্য্যাতনের জন্য প্রসিদ্ধ। সেটাই তাদের অনগ্রসরতার অন্যতম প্রধান কারন।
কোনো কোনো ধর্মমত ঢাক-ঢোল পিটিয়ে নারীর সমানাধিকারের কথা উচ্চস্বরে ঘোষনা করলেও সেগুলো নেহাতই ফাঁকা বুলি মানে বাত কা বাত। বাস্তবে তারা নারীর প্রতি বৈষম্য মূলক, অবমাননাকর ও কদর্য্য আচরন এবং নির্য্যাতনকে প্রাতিষ্ঠানিকীকরন করে ফেলেছে। ঐ ধর্মের অনুসারী অধিকাংশ দেশে নারীর ভোটাধিকার নেই।
The greatest religion has ensured it very well that women must be intact for the marked man no matter whether the marked man has lost his virginity earlier.

ভারতবর্ষে হিন্দু সাকসেশন আইন অনুসারে পৈত্রিক সম্পত্তিতে কন্যার সমান অধিকার। অন্য দেশের কথা জানিনা। সহমরণ সনাতন হিন্দু ধর্মের স্বীকৃত প্রথা নয়। ভারতীয় বেদ ভাষ্যকারগণদের মতে বেদে সতীদাহের উল্লেখ নেই। বরং স্বামীর মৃত্যুর পর পুনর্বিবাহের ব্যাপারেই তাঁরা মত দিয়েছেন।

ধর্ম নিয়ে হাউকাউ করে নির্বোধেরা।
ধর্ম নিয়ে লাফালাফি করা মোটেও ঠিক না। মানুষকে মানুষ হিসেবে বিচার করতে হবে। কিন্তু কথিত ধার্মিকেরা ধর্ম দিয়ে মানূষ বিচার করে। এই আধুনিক যুগে এসেও মানুষ ধর্ম নিয়ে হানাহানি করে, মারপিট করে। শিক্ষিত মানুষেরাও বুঝে না ধর্মের চেয়ে মনুষ্যত্ব অনেক বড়। পৃথিবীতে কোনো ধর্মই বড় না। সব ধর্মই সমান। সব ধর্মেই ভালো ভালো কথা বলা হয়েছে। একমাত্র নিচু মানসিকতার লোকেরাই বলে- আমার ধর্ম বড়, অন্য ধর্ম ছোট। আরে ভাই, বাস্তবে আসুন। ধর্ম দিয়ে জীবন চলে না। ধর্ম আপনাকে কোনো সুযোগ সুবিধা দিবে না। অতীতেও কাউকে দেয় নাই। যদিও কিছু দুষ্টলোক ধর্মকে ব্যবহার করে অনেক সুযোগ সুবিধা ভোগ করে। হিন্দু আর মুসলিমরাই সবচেয়ে বেশি ধর্মকে ব্যবহার করে। ধর্ম নিয়ে ক্যাচাল করে। সমাজে অশান্তি সৃষ্টি করে।

আগে আপনার ধর্ম না। আগে আপনি, তাপর আপনার ধর্ম।
ধর্ম নিয়ে এত ক্যাচালে যাওয়ার দরকার কি? আমাদের সমাজে ভালো মানুষ দরকার। যার ভেতর মানবিকতা আছে। মনুষ্যত্ব আছে। ভালো কাজ করুন। মানুষের জন্য কাজ করুন। তাহলে আপনার প্রভু খুশি হয়ে যাবেন। সারাদিন বদমাইশি করে যাবেন অন্য দিকে নামাজ পড়তে পড়তে কপালে কালো দাগ ফেলে দিলেও লাভ নেই। বেহেশত পাবেন না। দেশকে ভালোবাসুন। দেশের মানুষের কল্যানের জন্য কাজ করে যান। নিজে সৎ থাকুন। বিপদে আপদে মানুষের পাশে দাঁড়ান। ধর্ম দিয়ে কাউকে উপকার করতে পারবেন না। ধর্ম আপনাকে চাকরী, সুখ বা আনন্দ দিবে না। সবচেয়ে বড় কথা মানুষকে মানুষ ভাবতে শিখুন। ধর্ম বড় নয়। ধর্ম থেকে মানুষ বড়। জয় হোক মানূষের। জয় হোক মানবতার।

মন্তব্য ৪৯ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৪৯) মন্তব্য লিখুন

১| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ দুপুর ২:৪২

যায্যাবর বলেছেন: ধর্ম নিয়া ক্যাচাল আমারও পছন্দ নয়।

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২১

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ।

২| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ দুপুর ২:৪২

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: মাঝামাঝি অবস্থানে থাকার কোন অপশান নেই। যদিও আপনার এক এক সময় এক এক মন্তব্য করা স্বভাবজাত। তবুও বলি, ঝাইড়া কাশেন...

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২২

রাজীব নুর বলেছেন: হা হা হা----

৩| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ দুপুর ২:৫৩

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: মানবতার কথা বলছেন।আচ্ছা মানবতা নামে কোণ বইটা রচিত হয়েছে বলুন দেখি।আপনি জানেন, একজন মুসলমান ততক্ষন পর্যন্ত একজন ভালো মুসলমান হতে পারবে না যতক্ষন না সে একজন ভালো মানুষ হয়।সুতরাং মানবতা যদি নীচ তলায় থাকে তাহলে ইসলাম উপরের তলায়। আর আমি মুসলিম আমি আমার ধর্ম নিয়ে বড়াই করবো তাই বলে অন্যের ধর্মকে ব্যাঙ্গ করার অধিকার আমি রাখি না।

এই বানীটা আপনার জন্য,
যাদের ধর্ম সম্পর্কে জ্ঞান কম কেবল তাঁরাই ধর্মের বিরুদ্ধে কথা বলে।ধর্মীয় বইগুলো পড়ুন।বুঝতে চেষ্টা করুন।কানাঘুষা কথায় কান দিবেন না।

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৩

রাজীব নুর বলেছেন: আসসালামু আলাইকুম হুজুর।

৪| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ বিকাল ৩:০৪

অগ্নিবেশ বলেছেন: এক মাত্র নিচু মানসিকতার মানুষরাই বলে আমার ধর্ম বড় - লাখ কথার এক কথা।

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৩

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ।

৫| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ বিকাল ৪:০৪

মৃত্যু হবে একদিন বলেছেন: নাস্তিকরা সব সময় ফালতু প্রশ্ন করেন।
কিন্তু আরিফ আজাদের কাছে কোনো প্রশ্ন করার সাহস পাই না।

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৪

রাজীব নুর বলেছেন: আরিফ আজাদ কে?

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৪

রাজীব নুর বলেছেন: আরিফ আজাদ কে?

৬| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ বিকাল ৫:১৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


সবচেয়ে বড় ধার্মিকও বেহেশতে যেতে পারবেন না, মহাবিশ্বের গঠন অনুযায়ী পৃথিবীতে ধর্মে বর্ণিত বেহেশত নেই, সুর্সের বুকে, কিংবা শুকতারার মাঝে বেহেশতে থাকতে পারে না, মগংলে নেই; ফলে, কোন গ্রহে কিংবা কোন নক্ষত্রে বেহেশত থাকতে পারে না।

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৫

রাজীব নুর বলেছেন: বেহেশত অলৌকিক। এটা বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রমান করা যাবে না।

৭| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ বিকাল ৫:২০

চাঁদগাজী বলেছেন:


সুর্য থেকে ১০০০০ মাইল দরত্বে থাকা হীরককন্ড কার্বন মনোস্কাইডে পরিণত হবে, মানব দেহ কিসে পরিণত হবে, সেটা বলা মুশকিল; সুর্যের আশাপাশে দোযখ থাকা সম্ভব।

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৬

রাজীব নুর বলেছেন: ৭০ টা হুর পরী দিয়া আমার তো কাম নাই
আমি দোযকে যাবো।

৮| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১৩

আখ্যাত বলেছেন:
যে বিষয়গুলোতে সব ধর্মের ঐকমত্য আছে,
সে বিষয়গুলো নিয়ে বার বার আলোচনা করা যেতে পারে

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৬

রাজীব নুর বলেছেন: অবশ্যই।

৯| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৫০

ইনাম আহমদ বলেছেন: সবার ওপরে মানুষ সত্য

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৭

রাজীব নুর বলেছেন: সবার উপরে ধর্ম।

১০| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:০৫

আকতার আর হোসাইন বলেছেন: সব ধর্মই সমান না বলে "যার যার ধর্ম তার তার জন্য বড়"।

আর এই যে বলছেন ধর্মের চেয়ে মনুষ্যত্ব বড়। মনুষ্যত্ব সবচেয়ে বড় এটা সত্য। মনুষত্ব্যের শিক্ষা কে দেয়...?

না বিজ্ঞাম, না দেশের রচিত সংবিধান। নিজে নিজেও আত্মস্থ করা যায় না।

মনুষত্বের শিক্ষা দেয় ধর্ম। মনুষ্যত্বের শিক্ষা দেয় দর্শন।

কিন্তু কিছু মানুষ আছে ধর্মের দোহাই দিয়ে চরিত্রহীনতার পরিচয় দেয়। মনুষ্যত্বহীনতার পরিচয় দেয়। এর জন্য ধর্ম দায়ী না। ধর্মের বিপরীত কাজটাই তারা করে। তাই ধর্মের চেয়ে মনুষ্যত্ব বড় কথাটা অযৌক্তিক। একটা আরেকটাসার ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৮

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ সুন্দর মন্তব্য করার জন্য।
ভালো থাকুন।

১১| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২৭

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: চাঁদগাজী বলেছেন:
সবচেয়ে বড় ধার্মিকও বেহেশতে যেতে পারবেন না, মহাবিশ্বের গঠন অনুযায়ী পৃথিবীতে ধর্মে বর্ণিত বেহেশত নেই, সুর্সের বুকে, কিংবা শুকতারার মাঝে বেহেশতে থাকতে পারে না, মগংলে নেই; ফলে, কোন গ্রহে কিংবা কোন নক্ষত্রে বেহেশত থাকতে পারে না।

ঠিক বলেছেন যে কোন গ্রহে কিংবা কোন নক্ষত্রে বেহেশত থাকতে পারে না।[

বেহেশতের প্রশস্ততা সম্পর্কে কুরআনুল কারীমে আল্লাহ্‌ তা'আলা বলেন,
তোমরা দ্রুত অগ্রসর হও তোমাদের প্রতিপালকের ক্ষমার দিকে ও সেই জান্নাতের দিকে যার বিস্তৃতি হচ্ছে আসমানসমূহ ও যমীনের সমান, যা মুত্তাকীদের জন্য তৈরী করা হয়েছে। (সূরা আল ইমরান- ১৩৩)[২০]

রাসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘জান্নাতে শত স্তর আছে। প্রত্যেক স্তরের মাঝে দূরত্ব হল আকাশ ও যমীনের দূরত্বের সমান। আর ফেরদাউস তার মধ্যে সর্বোচ্চ স্তরে আছে। আর সেখান থেকেই জান্নাতের চারটি ঝর্ণা প্রবাহমান। এর উপরে রয়েছে আরশ। তোমরা আল্লাহ্‌র নিকট জান্নাতের জন্য দু'আ করলে জান্নাতুল ফেরদাউসের জন্য দু'আ করবে'। (তিরমিজী- কিতাবুল জান্নাহ)[২১]

বিশ্ব নবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন : “জান্নাতের মধ্যে এমনই জিনিস আছে যা চক্ষু কখনও দর্শন করেনি, কর্ণ কখনও শ্রবণ করেনি এবং এর জিনিসপত্রগুলি আমাদের কল্পনা ও ধীশক্তির বাইরে”।

সুতরাং বেহেশত হচ্ছে পরকালের জন্য একটা পুরুষ্কার।একটা মানুষ যে আল্লাহর সৃষ্টির নিদর্শন দেখেও তাকে বিশ্বাস করতে পারে না সে জান্নাত দেখলেও আল্লাহকে বিশ্বাস করবে না।কেননা শয়তান মানুষের খোলাখুলি দুশমন।

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৯

রাজীব নুর বলেছেন: হাশরের ময়দান পর্যন্ত আমি যেতে পারলেই খুশি।

১২| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:৩০

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
ধর্ম মনে হয় যার যার ব্যক্তিগত পর্যায়ে থাকাই ভালো। এটা নিয়ে কোন আলোচনা করা, কোন পোস্ট দেয়া, কোন হাউ কাউ না করাই উত্তম।

হুজুরদের কোন কাজ নাই তাই তারা ওয়াজ করে আয় করেন।

২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:৩৩

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ। ভালো থাকুন।

১৩| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:৫৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
ভাই সাহেব, আরজ আলী মাতুব্বরের বই গুলো কি আপনার সংগ্রহে আছে? অসাধারণ বই। বইগুলো পড়ে উনার প্রতি আমার শ্রদ্ধা অনেক বেড়ে গেছে। উনার মতো জ্ঞানী মানুষ বাংলাদেশে ছিলেন আমার ভাবতে অবিশ্বাস হচ্ছে। বাংলাদেশের মতো দেশে আরজ আলী মাতুব্বরের মতো মানুষও জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার বই না পড়লে বুঝা যায় না উনি কত চিন্তা ভাবনা করতেন।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৪

রাজীব নুর বলেছেন: আরজ আলী সমগ্র আছে।

১৪| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:৫৭

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: লেখক বলেছেন: আসসালামু আলাইকুম হুজুর।

আপনার উপরো শান্তি বর্ষিত হোক।
ভালো থাকুন।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৫

রাজীব নুর বলেছেন: জ্বী দোয়া করবেন।

১৫| ২০ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ১১:৩২

রোকসানা লেইস বলেছেন: জন্মসূত্রে পাওয়া ধর্ম নিয়ে যত হৈ চৈ। কজন মানুষ নিজের ইচ্ছায় ধর্ম পালন করতে পারে।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৬

রাজীব নুর বলেছেন: আজ একজন বলল উনি নাকি ধর্ম পদলে ফেলেছেন। মুসলিম থেকে খ্রস্টান হয়েছেন।

১৬| ২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ১২:৫৩

আরোগ্য বলেছেন: আরে ভাই, বাস্তবে আসুন। ধর্ম দিয়ে
জীবন চলে না। ধর্ম আপনাকে কোনো
সুযোগ সুবিধা দিবে না। অতীতেও
কাউকে দেয় নাই।


ধর্ম সম্পর্কে আপনার জ্ঞান কম। নইলে এমন কথা বলতেন না। পথহারা মানুষকে যুগে যুগে ধর্মই পথ দেখিয়েছে। ধর্ম ছাড়া মানুষ জঙ্গলের পশুর মতো। সকল ধর্মই সম্মানের অধিকার রাখে।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৭

রাজীব নুর বলেছেন: ধর্ম তো আজকাল দেখি না।
সব জাগায় অধর্ম।

১৭| ২১ শে মার্চ, ২০১৯ সকাল ১০:০৭

নূর আলম হিরণ বলেছেন: হটাৎ করে সবাই ধর্মহীন হয়ে পড়লে যেমন অনেক সমস্যার উদ্ভব হবে তেমনি সবাই ধর্ম পালন করা শুরু করলে কোন জাতি এগুতে পারবে না।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৮

রাজীব নুর বলেছেন: ভারসাম্য প্রকিতি ঠিক করে দিবে।

১৮| ২১ শে মার্চ, ২০১৯ সকাল ১১:৪১

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: সব ধর্মই মানুষের কল্যানের জন্য। কিন্তু মানুষ ভুল প্রয়োগ করছে।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:২৯

রাজীব নুর বলেছেন: এটাই আআসল কথা।

১৯| ২১ শে মার্চ, ২০১৯ দুপুর ১২:১৭

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: যারা যেখানে সংখ্যাগুরু তারা সেখানে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্বের দাবি করে । ঘরের মধ্যে যদি তিনজন ভিন্ন ধর্মের লোকের তর্কযুদ্ধ হয়, বাইরে তাহলে সেই তিনজনের হাতাহাতি থেকে রক্তক্ষয় দাঙ্গা হওয়াটা অস্বাভাবিক নয় । ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী গুজরাট দাঙ্গায় দুই হস্ত রঞ্জিত করে কোর্ট থেকে ক্লিনচিট পেয়ে দিল্লির মসনদে বসে আছেন । যথারীতি সেই ধর্মকে আঁকড়ে ধরেই উনি 2019 এ বৈতরণী পার হবেন এবং দিল্লির মসনদে হয়তো ধর্মীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতার কারণে আবারো বসবেন । কাজেই অন্তরের বিষয় ধর্মের যদি বহির্বঙ্গে আবির্ভাব ঘটে, তাহলে রাজনীতির কারবারিদের লাভ। গণতন্ত্র হৃষ্টপুষ্ট হবে ,ভোটব্যাঙ্ক বাড়বে। কিছু লোক গৃহহীন হবে ,সংখ্যালঘুদের মা মেয়ের ইজ্জত লুটেপুটে নেওয়া যাবে ।
আর আমরা শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত রুমে বসে ধর্মের দোহাই দিয়ে একে অপরের দোষ খুঁজে বেড়াবো ।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:৩০

রাজীব নুর বলেছেন: এই জন্যই ধর্মহীন হওয়া ভালো।

২০| ২১ শে মার্চ, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৮

কিশোর মাইনু বলেছেন: রাজীব ভাইয়ের কথায় কখনো মনে হয় ধর্ম মানেন, কখনো মানেন না।
কনফিউশনে আছি ভাই আপ্নারে নিয়া।
বাই দ্যা ওয়ে, আপনি ধর্ম মানেন বা না মানেন আপনার চিন্তাধারাকে আমি সম্মান করি।

ধন্যবাদ আপনাকে।
হ্যা, আগে আমি, তারপর আমার ধর্ম।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:৩২

রাজীব নুর বলেছেন: ভালোবাসা নিরন্তর।
ভালো থাকুন। সুস্থ থাকুন।

২১| ২১ শে মার্চ, ২০১৯ দুপুর ২:১০

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
ধর্ম নিয়ে আলোচনা করলে মানুষ উগ্র আচরণ করে। এটা ঠিক নয়।
যার যার ধর্ম তার তার কাছে বড়।
এখানে উগ্রবাদিতার কোন স্থান থাকা ঠিন নয়।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:৩৩

রাজীব নুর বলেছেন: ঠিক বলেছেন।

২২| ২১ শে মার্চ, ২০১৯ দুপুর ২:৪৫

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: রাজীব ভাই,



ধর্ম সম্পর্কে আপনার জ্ঞান অতি অল্প বলে এতোদিন ঢাকঢোল পিঠিয়ে আসছেন, আজ হঠাৎ ধর্মের উপর এতো দরদ দেখাচ্ছেন কেন ভাই?


আপনার পোস্টেও সেটা প্রমাণ দিচ্ছেন। আমাদের একটা সমস্যা, আমরা কোন কিছু সম্পর্কে না জেনে বাকয়াস পণ্ডিতি ফলাতে যাই, বুঝিও না কী করছি(!)


তাছাড়া আপনি এতোদিন ডামাডোল পিঠিয়ে এও বলে আসছেন যে, আপনি খুব বেশি ফিল্ম দেখেন, বই পড়ার চেয়ে ফিল্ম পড়া যার কাছে মূল্যবান, ধর্ম নিয়ে তাকে লেকচার দিতে দেখলে বাজারের মলম বিক্রেতাও লজ্জা পাবে।

যাই হোক, লেখলেন তো বটে। তবে সত্যি বলতে আজকের পোস্টের অনেক কিছুই আমার কাছে ভাল লেগেছে। তবে নিজের চিন্তার বন্ধাত্বতা প্রকাশ করে দিলেন মাঝপথে । আপনি যে দেশে বাস করেন, এবং আপনার আশপাশে যে দেশগুলো আছে এসব দেশে দু'ধর্মের লোকই বেশি। মুসলমান আর হিন্দু। মজার বিষয় হচ্ছে, আপনি এই দেশগুলোকে পুরো বিশ্ব ভাবছেন।


অনুরোধ থাকবে, এবারের বইমেলায় যে বইগুলো কিনলেন, আপাত সেগুলোই পড়ুন। ধর্মীয় বই তো কেনেননি মনে হয়, সেটা পরেই কিনেন সমস্যা নেই। আপাত ফিল্ম বন্ধ করে এগুলো পড়ুন, ধন্যবাদ। শুভকামনা অফুরান ।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:৩৫

রাজীব নুর বলেছেন: বই পড়া অব্যহত আছে। প্রতিদিন তিন ঘন্টা বইয়ের জন্য বরাদ্দ রেখেছি।

২৩| ২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ১০:৫৭

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: আমার কাছে ধর্ম হল একত্ববাদ। আমি স্রষ্টা কতৃক সৃষ্ট।

২১ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ১১:৩৮

রাজীব নুর বলেছেন: জ্বী অবশ্যই ।

২৪| ২২ শে মার্চ, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৪

তাজেরুল ইসলাম স্বাধীন বলেছেন: একমত।

২২ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:৪৮

রাজীব নুর বলেছেন: গ্রেট।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.