নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার নাম- রাজীব নূর খান। ভাবছি ব্যবসা করবো। ভালো লাগে পড়তে- লিখতে আর বুদ্ধিমান লোকদের সাথে আড্ডা দিতে। কোনো কুসংস্কারে আমার বিশ্বাস নেই। নিজের দেশটাকে অত্যাধিক ভালোবাসি। সৎ ও পরিশ্রমী মানুষদের শ্রদ্ধা করি।

রাজীব নুর

আমি একজন ভাল মানুষ বলেই নিজেকে দাবী করি। কারো দ্বিমত থাকলে সেটা তার সমস্যা।

রাজীব নুর › বিস্তারিত পোস্টঃ

এই বৈশাখে

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:১০




বৈশাখ মাস।
দুপুরে ভাত খেতে বসে দেখি, সুরভি রুই মাছ রান্না করেছে পটল দিয়ে। আমার প্রচন্ড রাগ লাগল। রুই মাছ কেউ পটল দিয়ে রান্না করে?
সুরভি হাই তুলে বলল, পটল খেতে ইচ্ছে না করলে শুধু মাছ দিয়ে খাও। খেতে বসে ভদ্রলোকরা চিৎকার- চেচামেচি করে না।
আমি বললাম, এই তরকারি তো আমি মরে গেলেও খাবো না।
সুরভি বলল, তাহলে শুধু ডাল দিয়ে খাও।
আমি বললাম, শুধু ডাল দিয়ে খাবো?
সুরভি বলল- এটা তো হোটেল না যে অনেক পদের খাবার থাকবে।

আমার ইচ্ছা করছে তরকারির বাটি মেঝেতে ছুড়ে ফেলে দেই। এই কাজটা করতে পারলে মনটা শান্ত হতো। তবে সাহসে কুলাচ্ছে না। আমি তরকারির বাটি সরিয়ে উঠে দাঁড়ালাম। সুরভি বলল- কি হলো? খাবে না?
আমি কিছু না বলে হাত ধুয়ে ফেললাম।

সুরভি খুব স্বাভাবিক ভঙ্গিতে খাবার গুলো তুলে রাখলো। যেন কিছুই হয়নি। আমি প্রচন্ড অবাক হলাম পরিবারের প্রধান ব্যাক্তি রাগ করে বলেছে- ভাত খাবো না, তাকে সাধাসাধি করার একটা ব্যাপার আছে না। সুরভি কি বলতে পারত না- ভুল হয়েছে, আর কখনও পটল দিয়ে রুই মাছ রান্না করবো না। কিংবা বলতে পারত- দু'মিনিট বসো, চট করে একটা ডিম ভাজি করে দিচ্ছি। একটা ডিম বাজতে কতক্ষন লাগে! তা-না, ভাত তরকারি তুলে রাখল!

রাগে আমার ইচ্ছা করছে গৌতম বুদ্ধের মতো ঘর-বাড়ি ছেড়ে দূরে কোথাও চলে যাই। এই রকম ইচ্ছা আমার প্রায়ই করে। ঘর থেকে বেরও হই। কমলাপুর রেলস্টেশনে চলে যাই। ঘন্টাখানেক বসে থাকি, তারপর বাসায় ফিরে আসি। মোল্লার দৌড় মসজিদ পর্যন্ত আর আমার দৌড় কমলাপুর রেলস্টেশন পর্যন্ত।

রাগ টা কিছুতেই কমছে না। বরং চক্র বৃদ্ধি হারে বেড়েই চলেছে।
আমি জামা গায় দিয়ে বের হলাম। সুরভি বলল, যাচ্ছো কোথায়? আমি কঠিন চোখে তার দিকে তাকালাম। সে ঝপাং করে দরজা লাগিয়ে দিল। আমি ধুম করে দরজায় একটা লাথি দিলাম এবং পায়ের বুড়ো আঙুলে ব্যাথা পেলাম।

মধ্যদুপুরে রেলস্টেশনে বসে আছি।
রাগের মাথায় ওয়ালেট ভুলে ফেলে রেখে আসছি বাসায়। কিছু যে কিনে খাবো সেই উপায়ও নেই। এক কাপ চা খেতে পারলেও হতো। ইচ্ছে করছে চালের আটার রুটি দিয়ে গরুর মাংস খাই। আমার এমন'ই ভাগ্য দেখা যাবে সুরভি গরুর মাংস রান্না করলেও এমন ঝাল দিবে যে মুখে তোলা যাবে না।

শান্তিতে বসে চিন্তা ভাবনাও করতে পারলাম না। সবুজ শাড়ি পরা একটা মেয়ে আমার পাশে এসে বসল। মেয়েটা খুব সুন্দর। চোখে মোটা করে কাজল দিয়েছে। মাথা ভরতি চুল। দুই হাত ভরতি কাঁচের চুরি। আমি মেয়েটির দিকে তাকিয়ে বললাম, আপনার পরিচয়?

মেয়েটি বলল, আমার নাম বেলা। কিন্তু 'সুরভি' কে? অনেকক্ষন ধরে দেখলাম আপনি বিড় বিড় করে এই নামটি বলছেন।
আমি বললাম- আমার স্ত্রীর নাম।
বেলা এক আকাশ অবাক হয়ে বলল- কী আশ্চর্য, আপনার স্ত্রী আছে!
এতে এত্ত অবাক হওয়ার কি আছে বুঝলাম না। রাস্তায় ভিক্ষা করে যে ফকির তারও একটা ফকিরনী থাকে।

বেলা বলল, সুরভি'র উপর রাগ করে স্টেশনে এসে বসে আছেন? কেন রাগ করেছেন জানতে পারি?
পলট দিয়ে রুই মাছ রান্না করেছে বলে।
বেলা বলল, এটি কি বড় ধরনের কোনো অন্যায়? পটল দিয়ে রুই মাছ রান্না করলে কি ফুড পয়জনিং হয়?

বেলা মুখটা বিষন্ন করে বলল, আপনার স্ত্রীর সাথে কি আপনার সম্পর্ক ভালো না?
আমি বললাম, ঘরের কাহিনি বাইরে বলা ঠিক না। তবু আপনি জানতে চাইলেন তাই বলছি- এই বৈশাখে খুব শখ করে, খুব পছন্দ করে একটা শাড়ি কিনলাম। সাদার মধ্যে নীল নীল ফুল আঁকা। সুরভি শাড়ি দেখে বলল, তোমাকে শাড়ি কে কিনতে বলেছে? জাকাতের একটা শাড়ি কিনে এনেছো।

বেলা আমাকে একটা রেস্টুরেন্টে নিয়ে গিয়ে প্রায় জোর করেই খাওয়ালো। তারপর তার গাড়িতে করে বাসার সামনে নামিয়ে দিল। স্ত্রীর সঙ্গে রাগ করে বের হয়ে এসে আবার ফিরে যাওয়াটাও অত্যন্ত অপমান কর। কিন্তু কি আর করা। মানুষ হয়ে জন্ম নিলে বারবার অপমানের ভেতর দিয়ে যেতে হয়। বাসায় ফিরে রাতে খাবো না। তাতে কিছুটা রাগ দেখানো হবে।

রাতে সুরভি রান্না শেষ করে খেতে ডাকলো।
আমি খেতে বসলাম। ইলিশ মাছ রান্না করেছে। রান্না খুব স্বাদ হয়েছে। ইচ্ছা করছে সুরভিকে বলি- রান্না খুব ভালো হয়েছে। বেচারি খুশি হবে। কিন্তু আমি কিছু বললাম না। কারণ, সুরভি'র চোখ লাল এবং ফোলা। সে মনে হয় খুব কেঁদেছে। আমি রাগ করে ঘরের বাইরে গেলেই সুরভি কেঁদে চোখ ফুলিয়ে ফেলে। এই কথাটা আমার মনেই থাকে না।

আমি নরম গলায় বললাম, তুমি খেয়েছো?
না।
আমি ভাত মাখিয়ে নলা করে বললাম- দেখি হা করো তো।
সুরভি বলল ঢং করবা না, তোমার ঢং অসহ্য লাগে।

আকাশে খুব মেঘ জমেছে।
ঘন ঘন বিদ্যুত চমকাচ্ছে। আজ খুব বৃষ্টি হবে। বেলা নামের মেয়েটিকে বলা হয়নি- সুরভি নামের এই মেয়েটিকে আমি কতখানি ভালোবাসি।

মন্তব্য ৩১ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৩১) মন্তব্য লিখুন

১| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:২৯

সুদীপ কুমার বলেছেন: অনুভুতির ঘনত্ব খুবই বেশী।চমৎকার ব্যাপার-স্যাপার।

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৩

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ।

২| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:৫২

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: খুব সুন্দর লেখা

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৫

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ বোন।

৩| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনার কল্পনায় দেখি প্রায়ই প্রায়ই সুন্দরী মেয়েরা আপনার আশেপাশে ঘোরাঘুরি করে। মধুর স্বরে কথা বলে। আদর-যত্ন করে। লক্ষণ বেশী সুবিধার মনে হচ্ছে না! ;)

যাইহোক, সুরভি নামের মেয়েটি জানে, আপনি তাকে অনেক বেশী ভালোবাসেন। তবে, ছবির সুরভির হাসি দেখে আমার মনে হচ্ছে....সে মনে মনে বলছে, এই ব্যাডায় আমার দিকে বেকুবের লাহান ফ্যালফ্যালায়া তাকায়া আছে ক্যান? :P

এই লেখাটা চমৎকার হয়েছে।

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৫

রাজীব নুর বলেছেন: ভালো থাকুন।

৪| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:০৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: সব মানুষের ভালবাসা প্রকাশের ভাষা এক নয়।
সুরভি ভাবির জন্য শুভ কামনা।

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:০৫

রাজীব নুর বলেছেন: মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

৫| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:১৩

পবিত্র হোসাইন বলেছেন: হেলুসিনেশন , লাস্ট স্টেজ B-)) :#) B-))

১। ডা. সুলতানা আলগিন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ, সাইকোথেরাপিস্ট। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোরোগবিদ্যাবিভাগের সহযোগী অধ্যাপক। চেম্বার করেন পান্থপথের শমরিতা হাসপাতালে সন্ধ্যা ও রাতে।

২। ডা. মেহতাব খানম। ফোন: ০১৭১১৬৮৮১৭০ এসএমএস করে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে পারেন। বাসা (চেম্বার) গুলশান ২-এর দিকে। ১ ঘণ্টা ৩০ মিনিট (১ দিন) এর জন্য ফি নেন ১৫০০ টাকা।

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:২৪

রাজীব নুর বলেছেন: আজ পবিত্র শবে বরাত।পৃথিবীর সব মানুষের ওপর আল্লাহর রহমত বর্ষিত হোক।আমীন।

৬| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:১৭

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: বেশ B-))

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:২৪

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ।

৭| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:২৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমিও আপনার মতো বেকার হতে চাই

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৬

রাজীব নুর বলেছেন: হা হা হা---
বেকার হওয়া আনন্দময় কিছু না।
অনেক যন্ত্রনা সহ্য করতে হয়।

৮| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:২৮

করুণাধারা বলেছেন: গল্পটা চমৎকার হয়েছে! কিন্তু কেন মনে হচ্ছে এটা আমি আগে পড়েছি!!!

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৭

রাজীব নুর বলেছেন: আসলে আমার বেশির ভাগ লেখা। মেঘ, বৃষ্টি, কাজল, আদর ভালোবাসা থাকে। চরিত্র গুলোও একই রকমের হয়। এজন্য।

৯| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৫

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: মানুষ হয়ে জন্ম নিলে বারবার অপমানের ভেতর দিয়ে যেতে হয়।

অপমানটাই হচ্ছে একটা শিক্ষা।আশা করি এতোক্ষনে আপনাদের ভুল বোঝাবুঝির অবসান ঘটেছে।

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৮

রাজীব নুর বলেছেন: হুম।

১০| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩৩

হাবিব স্যার বলেছেন: আপনি লোকটা মোটেও সুবিধার না, অযথা সুরভি আপাকে কষ্ট দেন। পটল দিয়ে রুই মাছ খেলে কি এমন হতো?

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৯:৫৭

রাজীব নুর বলেছেন: হা হা হা----

১১| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ১০:৫৭

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: আপনার ওখানে পটল কত করে কেজি?

২২ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১২:১৬

রাজীব নুর বলেছেন: ৬০ টাকা।

১২| ২২ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৯:৩৩

কালো যাদুকর বলেছেন: দারুন!!!
তবে হুমায়ুন আহমেদের কোন গল্পের সাথে যেন মিলে গেল.. :)

২২ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১২:১৭

রাজীব নুর বলেছেন: ঠিক বলেছেন।

১৩| ২২ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৯:৩৩

কালো যাদুকর বলেছেন: দারুন!!!
তবে হুমায়ুন আহমেদের কোন গল্পের সাথে যেন মিলে গেল.. :)

১৪| ২২ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১১:৪৭

সাইন বোর্ড বলেছেন: বাস্তব-কল্পনা মিলে ঘটনা যায়'ই হোক না কেন, পরিবেশন চমৎকার হয়েছে ।

২২ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১২:১৮

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ।

১৫| ২২ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ২:০৮

:):):)(:(:(:হাসু মামা বলেছেন: গুরু ভাই ও ভাবীকে ২০২০সালের বৈশাখের অগ্রিম শুভেচ্ছা। :)
সাথে বেলাদের মত সুন্দরিদেরও জন্য শুভকামনা থাকল। ;)

২২ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৮:৪৯

রাজীব নুর বলেছেন: হা হা হা-----

১৬| ২৩ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:১৫

বাংলার মেলা বলেছেন: ঃ এই গল্প আপনি লিখেছেন?
ঃ জ্বী, এই গল্পের প্রতিটি লাইন আমার লেখা (কেবল 'সুরভী' বাদে)
ঃ ও আচ্ছা, আপনিই তাহলে মহান কথাশিল্পী হুমায়ূন আহমেদ? আমি তো জানতাম আপনি মারা গেছেন!

২৩ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৯:২১

রাজীব নুর বলেছেন: !!

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.