নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার নাম- রাজীব নূর খান। ভাবছি ব্যবসা করবো। ভালো লাগে পড়তে- লিখতে আর বুদ্ধিমান লোকদের সাথে আড্ডা দিতে। কোনো কুসংস্কারে আমার বিশ্বাস নেই। নিজের দেশটাকে অত্যাধিক ভালোবাসি। সৎ ও পরিশ্রমী মানুষদের শ্রদ্ধা করি।

রাজীব নুর

আমি একজন ভাল মানুষ বলেই নিজেকে দাবী করি। কারো দ্বিমত থাকলে সেটা তার সমস্যা।

রাজীব নুর › বিস্তারিত পোস্টঃ

আজকের ডায়েরী - ২৯

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:০৫



আমি মানুষকে বিশ্বাস করি।
আসলে আমি মানুষকে বিশ্বাস করতে পছন্দ করি। আমি জানি- মানুষ ভন্ড, মিথ্যাবাদী এবং প্রতারক। তবু আমি দিনের পর দিন মানুষকে বিশ্বাস করে যাচ্ছি। আর প্রতিনিয়ত ঠকছি। বিশ্বাস করে ঠকার পর আমার বেশ মন খারাপ হয়। প্রচন্ড মন খারাপ হয়। কিন্তু তারপরে আবার নতুন করে আমি মানুষকে বিশ্বাস করি। আমৃত্যু আমি মানুষকে বিশ্বাস করে যাবো। বিশ্বাস করে ঠকা ভালো। তবে ইদানিং লোকজন আমাকে খুব বেশি ঠকাচ্ছে। লোকজন কি আমাকে গাধা মনে করছে? আমার সরলতার সুযোগ নিচ্ছে? যারা বিশ্বাস করে তারা সবাই'ই কি ঠকে। সবাইই কি প্রতারনার শিকার হয় আমার মতো? আমার সহ্যের বাঁধ ভেঙ্গে যাচ্ছে।

সেদিন বাসার কাছ থেকে এক কেজি আদা কিনলাম।
আদা আমার দরকার নাই। দেখলাম এক বুড়ো লোক বৃষ্টির মধ্যে আদা নিয়ে বসে আছে। দেখে বেশ মায়া লাগলো। আদা কিনে বাসায় এসে দেখি সব গুলো আদা পচা। বুড়োকে বিশ্বাস করলাম। বিশ্বাস এর বদলে সব গুলো আদা পচা দিলো। ফেলে দিলাম। অতি সামান্য ঘটনা তবু আমার খুব মন খারাপ হয়েছে। একলোক ভ্যানে করে পেঁয়াজ বিক্রি করছে। পেঁয়াজ দেখে মনে পড়লো, সুরভি পেঁয়াজ কিনতে বলেছে। কিনলাম পাঁচ কেজি পেঁয়াজ। পরের দিন সুরভি বলল, দেখো বেশির ভাগ পেয়াজ'ই পচা। শেষমেষ ময়লার জুড়িতে ফেলে দিলাম। বাজার থেকে নুডুলস কিনলাম। বাসায় এসে দেখি নুডুলস এর মেয়াদ আরো দুই মাস আগেই শেষ হয়ে গেছে। খেজুর কিনলাম। মেয়াদহীন খেজুর দিয়ে দিলো। অথচ এই দোকান থেকেই আমি সারা বছর কেনাকাটা করি।

চারিদিকে শুধু চাষ করা মাছ।
বাজার ভর্তি চাষকরা মাছ। চাষের মাছ খেতে একটুও মজা না। তবুও চাষের মাছ অনেক দাম। ৫/৬ শ' টাকা কেজি। এদিকে আমি চাষের মাছ খেতে পারি না। প্রতিদিন বিভিন্ন বাজারে ঘুরে বেড়াই। দেশী মাছ পাই না। এক জাগায় শিং মাছ পেলাম। দেখে মনে হলো চাষ করা না। এক কেজি শিং মাছ কিনেলাম। লোকটা বলল, একদম দেশী শিং। যদি দেশী শিং না হয়, তাহলে আপনাকে এক লাখ টাকা দিব। খুশি মনে শিং মাছ নিয়ে বাসায় ফিরলাম। মাকে দেখালাম, মা বলল, এই গুলো দেশী শিং না। চাষের। আমি মার কথা বিশ্বাস করলাম না। পাশের বাড়ির রফিক আংকেলকে ডেকে নিয়ে এলাম। উনি অভিজ্ঞ লোক। উনি মাছ দেখেই বললেন, এ গুলো চাষের শিং। মনটা ব্যাপক খারাপ হলো। মাছ গুলো বুয়াকে দিয়ে দিলাম।

আদা বিক্রেতা, পেঁয়াজ বিক্রেতা, নুডুলস বিক্রেতা অথবা মাছ বিক্রেতা আমাকে ঠকালো। তাতে ওদের কয় টাকা লাভ হলো? আমি তো কাউকে টাকা কম দেই নি। দামাদামিও করি নি। যা বলেছে তাই দিয়েই কিনেছি। আমার তো সৎ পথের টাকা। কষ্টের টাকা। হিসাবের টাকা। অনেক দিন ধরে ইলিশ খেতে খুব ইচ্ছা করছে। বাজারে প্রচুর ইলিশ। কিন্তু অনেক দাম। সীমাহীন দাম। আমি সারা বাজার ঘুরে ঘুরে দেখি, কেউ কেউ এক হালি, দুই হালি করে ইলিশ কিনছে। মনে মনে ভাবি তাদের কত টাকা! অনেক সাহস সঞ্চয় করে, বুকে হাত রেখে ২৭০০ শ' টাকা দিয়ে দুইটা ইলিশ কিনে ফেলি। বিরাট বড় ইলিশ। দুইটা ইলিশ আড়াই কেজি ওজন। আমার সামনেই মাপলো।
বাজার থেকে বাসার কাছে এসে কি মনে করে একটা দোকানে মাপলাম মাছ দুটো। ৫০০ গ্রাম ওজন কম। দু'টা মাছ দুই কেজি। আড়াই কেজি নয়।

সুরভি বলল, কি হয়েছে তোমার?
তুমি তো খুব সুন্দর বাজার করো। ইদানিং এমন হচ্ছে কেন? আমি বললাম, চা দাও। সুরভি চা করতে গেলো। বেশ কিছু দিন ধরে সময় খুব খারাপ যাচ্ছে। মন মেজাজ বেশ বিক্ষিপ্ত হয়ে আছে। চা খেয়ে আমি আর সুরভি বাইরে গেলাম। বেশ ভালো সময় কাটালাম। সুরভি যা খেতে চেয়েছে তাই খাইয়েছি। মানা করি নি। বাদাম, ঝালমুড়ি, বেলপুরি, আইসক্রীম, ফুসকা। লুচি, কাবাব, ফানটা এবং সব শেষে কোল্ড কফি। টিএসসিতে বসে বিয়ের আগের মত দুইজনে অনেক গল্প করলাম। গল্প করতে করতে সন্ধ্যা হয়ে গেল। ফুলার রোড দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে ঢাকা মেডিকেল পর্যন্ত গেলাম। রিকশা করে এক ঘন্টা ঘুরলাম। দোয়েল চত্বর থেকে সুরভিকে মাটির গহনা কিনে দিলাম। রাত দশ টায় বাসায় ফিরলাম।

মন্তব্য ৩১ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (৩১) মন্তব্য লিখুন

১| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:১৫

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
বাংলাদেশের মানুষ বেশীর ভাগই হারামজাদা টাইপের। তাদের কোন বিবেক, নীতি, সত্যবাদিতা কিছু ই নেই।
বড়ই খারাপ মানুষ।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪২

রাজীব নুর বলেছেন: আসলেই মানুষ গুলো খুব খারাপ।

২| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:২৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


মাটির গহনাগুলো কি মাটিট ছিলো, নাকি পাথরের?

আপনি যার তেকে নুডলস কিনেছেন, সে এক হালি ইলিশ কিনতে পারে; আগামীবার ওর দোকানে যাবেন লান্চের পর, হ্যান্ডশেক করবেন।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৩

রাজীব নুর বলেছেন: না না। মাটি পুড়িয়ে বানায়। তারপর রঙ দেয়।

আমাদের দেশের মানুষ গুলো মনে করে কাউকে ঠকাতে পারলেই বুজি জিতে গেলো।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৩

রাজীব নুর বলেছেন: না না। মাটি পুড়িয়ে বানায়। তারপর রঙ দেয়।

আমাদের দেশের মানুষ গুলো মনে করে কাউকে ঠকাতে পারলেই বুজি জিতে গেলো।

৩| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:২৭

ইসিয়াক বলেছেন: ভাবছি আমি একটা ফুটপাথে দোকান দেব । আপনার বাসার কাছাকাছি আর কি ? যাতে আপনার নজরে পড়ে। সেখানে দুঃখী দুঃখী
মুখ করে বসে থাকবো ।নিশ্চয় আপনার দয়া হবে ।আমার দোকান থেকে আপনি দয়া পরবশ হয়ে অনেক জিনিস কিনবেন আমি লাভবান হবো ।
আইডিয়াটা কেমন ।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৩

রাজীব নুর বলেছেন: হা হা হা-----
আইডিয়া বোকা বোকা হয়েছে।

৪| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৩২

ইসিয়াক বলেছেন: যাক বাবা ঘরে তো সুখ আছে । সেটাই তো মহামূল্যবান।
আশীর্বাদ করি চিরসুখী হোক আপনাদের জীবন।
অন্তর থেকে বলছি। আপনি অনেক ভালো আছেন । থাকবেন ।
শুভকামনা রইলো।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৪

রাজীব নুর বলেছেন: এরকম শুভ কামনা আজকাল কেউ করে না।

আপনি করলেন !!!!

৫| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৩৮

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: চিটার বাটপার এ দেশ ভরে গেছে । আপনি যদি কখনো কুয়ালালামপুরে আসেন দেখবেন এখানে এক ভদ্রলোকের নাম চিটার বাবুল‌ এবং এই নাম নিয়ে সে বেশ গর্বের সাথে আছে।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৫

রাজীব নুর বলেছেন: আমি সব সময় খারাপ মানুষ থেকে দূরে থাকতে চেয়েছি।

৬| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫৯

ইসিয়াক বলেছেন: লেখক বলেছেন: হা হা হা-----
আইডিয়া বোকা বোকা হয়েছে।

ঠিকই বলেছেন আমাকে লোকে কিন্তু বোকা ই বলে । হে হে হে

৭| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৫৬

রাজীব নুর বলেছেন: একজন ব্লগার কখনই বোকা হতে পারে না। নো নেভার।

৮| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৩:৫১

আনমোনা বলেছেন: আজকের ডায়রীটা খুব সুন্দর, আশা জাগানিয়া।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ৮:৫৬

রাজীব নুর বলেছেন: বাস্তব তো।

৯| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ভোর ৫:০৫

গড়ল বলেছেন: বাজার করা যে কত কঠিন কাজ তা আমিও হাড়ে হাড়ে টের পাই, এখন বুয়াকে দিয়ে বাজার করাই। তাতে মোটামুটি কম দামে ভাল জিনিষ পাই।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ৮:৫৭

রাজীব নুর বলেছেন: আমি আমার বুয়াকে বলেছি, সে স্পষ্ট না করে দিয়েছে।

১০| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:২৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: লেখক বলেছেন: আমি আমার বুয়াকে বলেছি, সে স্পষ্ট না করে দিয়েছে.
এই বুয়া নামক বস্তুটা বাংলাদেশ ছাড়া পৃথিবীর আর কোথাও খুঁজে পাবেন না।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:২০

রাজীব নুর বলেছেন: আছে। আছে। অনেক দেশেই আছে।

১১| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৯

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: কি আর বলবো প্রতারকে ভরে গেছে দেশ।সুযোগ পেলেই ঠকিয়ে দেয়। এর জন্য সতর্ক থাকতে হয় । দেকা গেল দাম দিয়ে ভাল কাচা মরিচ কিনেছি আবাত্তি মরিচ দিয়ে দিয়েছে। প্রতি ক্ষেত্রে এই অবস্থা ।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:২১

রাজীব নুর বলেছেন: হুম।
ঠিক।

১২| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৩

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: আমি গত কয়েক দফা মাছ, পেঁয়াজ, রসুনে ঠকেছি...

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২০

রাজীব নুর বলেছেন: হে হে

১৩| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:১৬

সাইন বোর্ড বলেছেন: সংসারী মানুষদেরকে এরকম প্রায়ই ঠকতে হয়, অবশ্য যারা এভাবে মানুষকে ঠকায় তাদের কাছে এটা কোন ব্যাপার না ।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৩

রাজীব নুর বলেছেন: ঠকতে ভালো লাগে না।

১৪| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৫৯

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: মানুষকে ঠকানোর মধ্যে কোন বাহাদুরি নেই।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৭

রাজীব নুর বলেছেন: অবশ্যই।

১৫| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:২৩

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: ভাইয়ের আজকের ডাইরিটা একেবারে খাসা হয়েছে।

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:৩০

রাজীব নুর বলেছেন: দাদা কই ছিলেন?? আপনাকে পাই না ক্যান?

১৬| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৪৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: লেখক বলেছেন: আছে। আছে। অনেক দেশেই আছে।

কোন কোন দেশে আছে দেশের নাম বলুন। বুয়া কোন চাকরি নয়‌। এটা মানুষকে অপমান করার একটা নাম। মানুষের সম্মানজনক কাজের ব্যবস্থা থাকতে হবে। চাকরি থাকলে নিয়োগপত্র থাকতে হবে। এটা আধুনিক যুগ। মধ্যযুগ কিংবা প্রাগৈতিহাসিক কোন যুগ নয়।

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:২৫

রাজীব নুর বলেছেন: আসলে আপনি সুখে আছেন তো, তাই আসল সমস্যা বুঝতে পারছেন না।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.