নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার নাম- রাজীব নূর খান। ভাবছি ব্যবসা করবো। ভালো লাগে পড়তে- লিখতে আর বুদ্ধিমান লোকদের সাথে আড্ডা দিতে। কোনো কুসংস্কারে আমার বিশ্বাস নেই। নিজের দেশটাকে অত্যাধিক ভালোবাসি। সৎ ও পরিশ্রমী মানুষদের শ্রদ্ধা করি।

রাজীব নুর

আমি একজন ভাল মানুষ বলেই নিজেকে দাবী করি। কারো দ্বিমত থাকলে সেটা তার সমস্যা।

রাজীব নুর › বিস্তারিত পোস্টঃ

পাকিস্থানকে আমরা কতদিন ঘৃণা করবো?

০৪ ঠা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:১৬



৪৭ সালে দেশ ভাগ হয়।
তার পর থেকেই ৭১ পর্যন্ত পাকিস্তান আমাদের অনেক অত্যাচার করেছে। পৃথিবীর মধ্যে এত এত দেশ। কিন্তু একমাত্র পাকিস্তান আমাদের সীমাহীন অত্যাচার করেছে। দেশ স্বাধীন হয়েছে বহু বছর হয়ে গেছে। কিন্তু আজও পাকিস্তান আমাদের কাছে ক্ষমা চায়নি। যদিও আন্তজার্তিক চাপে ১৯৭৪ সালে আমাদের স্বাধীন দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের উচিত ছিল জাতিসংঘে তার ভাষনে আমাদের কাছে ক্ষমা চাওয়া। ক্ষমা চাইলে তারা বিশ্ব দরবারে মানুষের সহানুভূতি পেত। আমরাও তাদের সহযোগিতা করতে পারতাম। আমরা কতদিন পাকিস্তানকে ঘৃণা করবো? পাকিস্তানের সমস্ত নাগরিককেও ঘৃণা করবো? যাদের জন্ম ৭১ এর পরে তাদেরও ঘৃণা করবো? যারা পাকিস্তানের নতুন প্রজন্ম ৫২ বা ৭১ দেখেনি তাদেরও ঘৃণা করবো?

পাকিস্তানের করাচি শহরে ফুটপাতে যে ছেলেটি ফুল বিক্রি করে তাকেও ঘৃণা করবো? অথবা পাকিস্তানের সমস্ত কৃষকদের ঘৃণা করবো? খেটে খাওয়া মানুষদের ঘৃণা করবো? ক্রিকেট খেলোয়াড়দের ঘৃণা করবো? সিনেমার নায়ক নায়িকা বা গায়ক গায়িকাদের ঘৃণা করবো? যে কিশোর স্কুলে শেষে মাঠে গিয়ে বিকেলে ফুটবল খেলে বন্ধুদের সাথে তাদের ঘৃণা করবো? যে বাবা সারাদিন কারখানায় কাজ করে দিনশেষে পরিবারের জন্য বাজার নিয়ে বাড়ি ফিরে সেই বাবাকে ঘৃণা করবো? ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে আমৃত্যু বা কেয়ামত পর্যন্ত ঘৃণা করে যাবো? ঘৃণা করে আমাদের লাভটা কি হবে? যে সমস্ত হারামীরা আমাদের হত্যা করেছে, বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিয়েছে, ধর্ষন করেছে, লুট করেছে, ধনসম্পদ কেড়ে নিয়েছে- তারা তো কেউ বেঁচে নেই। তাদের প্রতি ঘৃণা দেখানোর একমাত্র উপায় কি নতুন প্রজন্মকে ঘৃণা দেখানো? ঘৃণা অব্যহাত রাখা?


ছবিঃ ঢাকা'য় বিহারী ক্যাম্প।

পাকিস্তান আমাদের চেয়ে অনেক বড় দেশ। জনসংখ্যাও আমাদের থেকে অনেক বেশি। দরিদ্র একটি দেশ। ওদের দেশে চোর আছে, ডাকাত আছে, দূর্নীতিবাজ আছে। পাকিস্তানের ইসলামাবাদে বাংলাদেশের একটি হাইকমিশন রয়েছে, অপরদিকে ঢাকায় পাকিস্তানের একটি হাইকমিশন রয়েছে। আপাতত ভিসা আদান প্রদান বন্ধ আছে। পাকিস্তানের সাথে ৩৪ বার ক্রিকেট খেলা হয়েছে আআমদের। এর মধ্যে আমরা তিনবার জয়ী হয়েছি। মুক্তিযুদ্ধের পর পাকিস্তানের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রথম সম্পর্ক তৈরি হয় ১৯৭৪ সালে। ওই বছরের ২২ ফেব্রুয়ারি লাহোরে অনুষ্ঠিত ইসলামী সম্মেলন সংস্থার শীর্ষ সম্মেলনে যোগদানের জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তান সফরে যান। সেই সময় দু’দেশের সম্পর্ক উন্নয়নে শেখ মুজিব ও জুলফিকার ভুট্টোর মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। একই বছরের ২৭ জুন জুলফিকার আলী ভূট্টো তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ঢাকায় আসেন।

পাকিস্তানীরা কি আমাদের ঘৃণা করে?
আমার শিক্ষক প্রফেসর আলতাফ বলেছিলেন, পাকিস্তানী সুধী সমাজে বাঙ্গালীদের গাদ্দার হিসেবে দেখা হয়। ৮০'র দশকে যেসব শ্রমজীবি মানুষ যারা পাকিস্তান গেছেন, তাঁদের প্রায় বেশির ভাগই আর ফিরতে চান না। বাংলাদেশের যে দরিদ্র গ্রাম থেকে তাঁরা গেছেন এ তুলনায় করাচির ঝকঝকে শহরে জীবন সংগ্রাম চালানো অধিকতর সহজ। বাংলাদেশের সাথে পাকিস্তানের অনেক মিল আছে। খাবার, পোশাক, বিয়ের অনুষ্ঠান, রাস্তাঘাট, বিয়েতে যৌতুক দেওয়া-নেওয়া ইত্যাদি। সেই ৭১ সালের আগে ও পরে অনেক বাঙ্গালী নানান কারনে পাকিস্তানেই রয়ে গিয়েছিল। তাদের সংখ্যা এখন প্রায় ত্রিশ লাখ হবে। এদের বেশির ভাগই থাকে করাচির বস্তিতে। বাংলাদেশী হোক আর পাকিস্তানীই হোক, সবারই অবস্থা কমবেশি একই রকম। পাকিস্তান কি আমাদের চেয়ে উন্নত?


ছবিঃ পাকিস্তানে থাকা বাঙ্গালী।

বাংলাদেশে কমপক্ষে পাঁচ লাখ বিহারী আছে।
বিহারী নামে পরিচিত এইসব উর্দুভাষী লোকজনের বেশিরভাগই কসাইখানায়, সেলুনে, খাবারের দোকানে, কিংবা দিনজুরের কাজ করে। কেউ রিকশা বা অটোরিকশা চালান। ঢাকার মিরপুর ও মোহাম্মদপুরসহ চট্গ্রামের ফিরোজশাহ কলোনী, শেরশাহ কলোনী, অক্সিজেন- বায়েজীদ এলাকা, আঁতুড়ার ডিপোসহ আরো বেশ কয়েকটি এলাকায় তাদের বাস। বেশিরভাগ বিহারিই এখন পাকিস্তানে যেতে নারাজ। বিশেষ করে নতুন প্রজন্ম এদেশে থেকেই ভালো কিছু করতে চায়।

পাকিস্তান যে অন্যায় করেছে, তা আমরা বাঙ্গালীরা কোনো দিনও ভুলতে পারবো না। আমাদের পক্ষে ভুলে যাওয়া সম্ভব নয়।

মন্তব্য ৫০ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৫০) মন্তব্য লিখুন

১| ০৪ ঠা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:১৯

ইসিয়াক বলেছেন: যশোরেও অনেক বিহারি আছে । তারা বাঙালিদের সাথে মিশে গেছে । তাদের বাালিদের সাথে অহরহ বিয়ে হচ্ছে ।

০৪ ঠা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:২২

রাজীব নুর বলেছেন: শুধু যশোর না। আরো বহু অঞ্চলেই তারা আছে।

২| ০৪ ঠা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:৩৩

সুপারডুপার বলেছেন: মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর যারা নিহত হয়েছিল, পাকিস্তান তাদের শহীদ মর্যাদা দিয়েছে। আমি এখন পর্যন্ত যতগুলো পাকির সাথে আলাপ করেছি, কেউ-ই মুক্তিযুদ্ধে পাকিদের ভূমিকা নিয়ে অনুতপ্ত নয় বরং তারা গর্বিত।

এখন আপনার পাকিস্তান কে ঘৃণা করার প্রশ্ন গুলো কিছুটা এই রকম: একজন অত্যাচারী দুর্নীতিবাজ সব হারিয়ে ভিক্ষুক হয়ে দুয়ারে দুয়ারে ভিক্ষা করতে লাগলো। তাকেও কি আমরা ঘৃণা করবো ?

০৪ ঠা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১১:০২

রাজীব নুর বলেছেন: আসলে আমার এক বন্ধু দেশ বিদেশ ঘুরে বেড়াতে পছন্দ করে। বহু দেশে সে গিয়েছে। এখন পাকিস্তান যেতে চায়। তাকে কি আমি যেতে মানা করবো?

৩| ০৪ ঠা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:৩৪

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: পাকিস্তান নিজেদের ভুল স্বীকার করে অনুতপ্ত না হলে এই ঘৃণা চলতেই থাকবে।
কিছু পাকি-বাঙ্গালি আর বক ধার্মিক ছাড়া বাকি সব বাংঙ্গালির পাকিস্তানীদের প্রতি ক্ষোভ থাকবে।

০৪ ঠা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১১:০৪

রাজীব নুর বলেছেন: ক্ষোভ অবশ্যই থাকবে।
আমার নিজেরই প্রচন্ড ক্ষোভ। সীমাহীন ঘৃণা তাদের জন্য।
দ্বিধা হলো, নতুন প্রজন্মদেরও কি ঘৃণা করবো। যারা ৭১ এর পরে জন্মেছে??

৪| ০৪ ঠা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১১:১৫

সুপারডুপার বলেছেন: লেখক বলেছেন: আসলে আমার এক বন্ধু দেশ বিদেশ ঘুরে বেড়াতে পছন্দ করে। বহু দেশে সে গিয়েছে। এখন পাকিস্তান যেতে চায়। তাকে কি আমি যেতে মানা করবো?

- না করার কি আছে। আফগানিস্তান , পাকিস্তান, ইরাক , ইরান , লিবিয়া ..................; যার যেখানে ঘুরতে মুন চায় ও নিরাপদ মনে করলে, তার সেখানে যাওয়া উচিত।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:৪০

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ।

৫| ০৪ ঠা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১১:১৮

প্যারাসিটামল খবিশ বলেছেন: যে পাকি ক্ষমা চাইবে সে ঘৃনা থেকে মুক্তি পাবে কিন্তু যারা গনহত্যা ঘটিয়েছে তাদের বিচারও চাইতে হবে।শুধু ক্ষমা চাইলেই সব ব্যথা হারিয়ে যাবেনা।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:৪১

রাজীব নুর বলেছেন: ইয়েস। সহমত।

৬| ০৪ ঠা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১১:৫৬

ইসমাঈল আযহার বলেছেন: পাকিস্তান নিয়ে আমরা ভাবলেও ওরা কিন্তু আমাদের নিয়ে......।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:৪৪

রাজীব নুর বলেছেন: পাকিস্তান নিয়ে ভাবার কিছু নাই। দরিদ্র একটা দেশ। ওরা আমাদের যে ক্ষতি করেছে, তা কোনো কিছুতেই শোধ হবার নয়।

৭| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১২:২০

রাকু হাসান বলেছেন:



আমি বলবো আমৃত্যু। যত দিন পর্যন্ত ক্ষমা না চাচ্ছে অনন্ত তত দিন । বাংলাদেশের ঘৃণা করারই কথা । পাকিস্থানের ক্ষমা চাওয়া উচিত। নতুন প্রজন্মরা বুঝতে শুরু করেছে যে পাকিস্থান অন্যায় যুদ্ধ করেছিল।যারা বই টই পড়ে সচেতন নাগরিক। আমরা যেমন শিক্ষার্থীদের পাকিস্থানী কে হানাদার বলে আখ্যায়িত করি তেমনি পাকিস্থানীরাও বেঈমান -গাদ্দার বলে প্রতিষ্ঠিত করছে। এই ঘৃণা শেষ হবে/হবার ?

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:৪৫

রাজীব নুর বলেছেন: ইয়েস। সহমত।

৮| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১:২৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


১৯৭২/৭৩ সালে বিহারীদের পাকিস্তানে চলে যেতে সাহায্য করার দরকার ছিলো; ওরা সেখানে নিজেদের জীবনটাকে গড়ে তুলতে পারতো।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:৪৩

রাজীব নুর বলেছেন: তা ঠিক।
কিন্তু কতদিন পাকিস্তানীদের ঘৃণা করবো তা তো বললেন না।

৯| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ সকাল ৯:০০

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: আপনার বন্ধু যেমন পাকিস্তানের ভিসা খুব সহজে পাবেন না তেমনি কোনো পাকিস্তানিও যদি চেষ্টা করে বাংলাদেশের ভিসা পেতে তিনি খুব সহজে ভিসা পাবেন না।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:৪৮

রাজীব নুর বলেছেন: জ্বী, আপাতত ভিসা বন্ধ আছে। তবে ভারত থেকে ভিসা পাওয়া যাবে।

১০| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:৩৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপনি যদি বর্তমান সরকারের একজন সুবিধাভোগী দুর্নীতিবাজ হয়ে থাকেন, তবেই শুধু নিজের অসৎ কর্মকান্ড লুকিয়ে রাখার ঢাল হিসেবে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বিশেদাগার করবেন। আপনার দুর্নীতির আকার যত বড়,গলাটাও পাল্লা দিয়ে তেমন উচু হতে হবে।

এই বিশ্বে বন্ধু রাস্ট্র বা শত্রু রাস্ট্র বলে কিছু নাই। যে আমেরিকা পারমানবিক বোমা ফেলেছিল জাপানে, সেই জাপান , আমেরিকা একে অপরের পরম বন্ধু। এরকম হাজারটা উদাহরন দেয়া সম্ভব।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:৫০

রাজীব নুর বলেছেন: আমি বেকার।
কোনো দল করি না।
জীবিনে কোনো দিন মিটিং মিছিলে যাই নাই।
কোনো রাজনীতিবিদ বা সরকারী আমলার সাথে আমার সামান্য পরিচয়ও নেই।

১১| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:৫৬

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
পাকিস্তান আমাদের কোন সমস্যা না। পাকিস্তান ৪ হাজার কিলোমিটার দূরে।
পাকিস্তান বা ইমরান এই ইহজনমে বাংলাদেশের কোন উপকারে আসে নি।
আগামীতেও আসার কোন সম্ভবনা নেই।

সমস্যা হচ্ছে আমাদের বাংপাকিদের নিয়ে।
কাম নাই কাজ নাই 'কিমরান' 'কিমরান' করে গলা শুকিয়ে ফেলতেছে। 'কিমরান' নাকি পাঠান!
পাঠান হোক আর পাঁঠা হোক, এই কিমরান দিয়া আমাদের কি কাম? কি উপকার?

বাংপাকিরা বলে 'কিমরান' ও পাকিরা সাচ্চা মোসলমান। আমাদের ভাই।
সোশাল মিডিয়া বা বাস্তবে এজাবৎ কোন একটি পাকিদের বলতে শুনেছেন - বাংলাদেশ বা বাংগালীরা আমাদের ভাই?

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:০৩

রাজীব নুর বলেছেন: এদেশে থেকে যারা পাকিস্তানের প্রতি ভালোবাসা দেখায় তারা অবশ্যই রাজাকারের বংশধর।

১২| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:৫০

Sujon Mahmud বলেছেন: পাক রা যে অপরাধ করছে তা ক্ষমার যোগ্য না।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৯

রাজীব নুর বলেছেন: তা তো অবশ্যই।
কিন্তু এখন তো সেই আমলের লোকজন তো নাই। তাহলে আমরা কাদের ঘৃণা করবো এখন?? নতুন প্রজন্মদের??

১৩| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: দুই নৌকায় পা দিয়ে চলাটা অমেরুদন্ডী প্রানীর লক্ষন। নিজেই পোস্টেই উল্লেখ করেছেন ১৯৭৪ সালে শেখ মুজিব ও ভুট্টোর দ্বিপাক্ষিক আলোচনার কথা। কেন করেছেন ? আবার কতিপয় চেতনার এজেন্টদের মন্তব্যে অবস্থান দ্রুত বদলে ফেলছেন!!! একটু সাহসী হন। যেটা ভাবেন, সেটা সাহসের সাথে উচ্চারন করতে শিখুন।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৪:০১

রাজীব নুর বলেছেন: আসলে আপনি আমাকে বুঝতেই পারছেন না!!!

১৪| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:২৯

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: পাকিস্তানীরা এখনও ভুলতে পারছে না ৭১-এর পরাজয়কে। ভোলা সম্ভবও নয়। তারপরও সম্পর্ক ভাল করা যেত। কিন্তু তাদের জনগণের মধ্যে আমাদের নিয়ে ঘৃণা এখনও রয়ে গিয়েছে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে যেখানে ভারত/পাকিস্তানীদের সাথে কাজ করতে হয় তারাই জানে 'বন্ধু ভাই' বলে বলে তারা কীভাবে বাংলাদেশীদের নীচু ভাবে। ব্যতিক্রম থাকতেই পারে। তাদের সরকারী ওয়েব সাইটে এখনও মাঝে মাঝে বাংলাদেশ নিয়ে মিথ্যা তথ্য দেয়া হয়। তাদের অনেক শীর্ষ নেতা এখনও বাংলাদেশীদের নিয়ে কটাক্ষ করে। ভালবাসা বা ঘৃণা কিছুই নয়। তারা যদি মানসিক ভাবে সব কিছু মেনে নেয় তাহলে একদিন পরিস্থিতির উন্নয়ন হবে। এছাড়া এই ঘৃণা চলতেই থাকবে...

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৯:২০

রাজীব নুর বলেছেন: কোনো দিন কি এই ঘৃণার অবসান হবে? সম্ভবনা আছে?

১৫| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:৪৮

আখ্যাত বলেছেন:
আমাদেরকে দু’শ বছর যারা গোলাম বানিয়ে রেখেছিল
তাদের সাথেও বন্ধুত্ব হতে পারে, হতে হয়

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৯:২২

রাজীব নুর বলেছেন: বুঝলাম।

১৬| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২৫

শাহিন-৯৯ বলেছেন:



বাংলাদেশ হকি দলের কোচ ছিল একজন পাকিস্থানী তাঁর সাথে খারাপ ব্যবহার করার জন্য জিমিসহ কয়েকজনকে ছয়মাস সাসপেন্ড করেছিল হকি ফেডারেশন। আপনার কি মনে হয় পাকিস্থানী কাউকে নিয়োগ দেওয়া ঠিক?
মোশতাক আহমেদ কিছুদিন আমাদের স্পিন কোচ ছিল এটা কি ঠিক?
বাংলাদেশে পোশাক শিল্পে এখনো কয়েক শত উচ্চ পর্যায়ে লোক কাজ করছে এটা কি ঠিক? আমাদের এমডি স্যারের একজন উপদেষ্টা ছিল এক পাকিস্থানী।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৯:২৪

রাজীব নুর বলেছেন: চিন্তার বিষয়।
দেখি সামনের দিন গুলোতে কি হয়!

১৭| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৫২

নতুন বলেছেন: পাকিস্তানীদের ক্ষমা করা যাবেনা। দুনিয়াতে এতো গুলি দেশ আছে তাদের মধ্য একটা দেশের সাথে সম্পূন` সম্পক` ছিন্ন করলে আমাদের ক্ষতি হবেনা।

তাই পাকিস্তানের সাথে সকল সম্পক` ছিন্ন করার পক্ষে আমি। ক্ষমা তো অনেক পরের ব্যপার।

পাকিস্তানীদের প্রতি সফট কনার থেকেই বাংপাকিদের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৯:২৭

রাজীব নুর বলেছেন: আজ থেকে এক শ' বছর পরও আমরা ওদের ঘৃণা করবো।

১৮| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৮:০৩

নব ভাস্কর বলেছেন: ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের সময় ভারতের বিহার থেকে মুসলমানের (?) দেশ পাকিস্তানে এসেছিল বিহারী জনগোষ্ঠী। এসেছিল চোখে একরাশ স্বপ্ন নিয়ে.....। এখানে এসে তারা সুপরিকল্পিতভাবে পাকিস্তানি শোষকদের দ্বারা ব্যবহৃত হয়েছেন বাঙালীদের বিরুদ্ধে। ব্যবহারের চরম কুৎসিত রূপ আমারা দেখতে পাই ১৯৭১ এর প্রথম ক'মাসে। অবশ্য তাদেরকে এর জন্য কম খেসারত দিতে হয়নি।
পাকবাহিনী পরাজিত হলে পাকিস্তান ভেঙ্গে যায় (প্রকৃতপক্ষে রাষ্ট্রটি জন্ম থেকেই ভাঙ্গা ছিল) বিহারীদের স্বপ্নে প্রচণ্ড ঝাঁকুনি লাগে--তারপরও তারা আশায় ছিল পাকিস্তান সরকার তাদের স্বাদরে গ্রহণ করবে পাকবাহিনীর সঙ্গে মিলে বাঙালী জাতির ওপর নৃসংসতার পুরস্কার স্বরূপ। কিন্তু ৭১ পরবর্তী পাকিস্তান রাষ্ট্র তাদেরকে গ্রহণ করতে অস্বীকার করলো, বললো "বিহারিরা ভারতীয় নাগরিক আমরা তাদের গ্রহণ করতে পারবো না"। একটা জনগোষ্ঠীর ভাগ্য ঝুলে গেল, সঙ্গে স্বপ্নও।

এখনো কি বিহারিগণ পাকিস্তানে যাওয়ার স্বপ্ন দেখেন?
উত্তরটা এক কথায় দেয়া সম্ভব নয়। আসুন আমার একটা ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করিঃ কয়েক বছর আগে মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পের একটা ছেলে আদালতে বাংলাদেশের নাগরিক হওয়ার জন্য আবেদন করছিল। এই গর্হিত কাজটি করার জন্য ছেলেটির স্বগোত্রীয়রা তাকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে তাড়া করেছিল এবং ক্যাম্পে থাকার অধিকার হারিয়েছিল। দীর্ঘ আইনি লড়াই শেষে নাগরিকত্ব সে ঠিকই পেয়েছে কিন্তু পরিণত হয়েছে স্বজাতির শত্রুতে।

আমরা বাংলাদেশের জনগণ অনেক উদার আর মানবিক। উদার আর মানবিক আমাদের রাষ্ট্রও। পাকিস্তানেরবেশিরভাগ জনগণ হয়তো আমাদের মতই হবে। পাকিস্তান রাষ্ট্রের আমাদের নিকট ক্ষমা চাওয়ার বোধ উদয় হোক সে আশায় রইলাম।

জনাব রাজীব নুরকে তার লেখনীর জন্য অনেক অনেক ধন্যবা।

০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৯:৩৩

রাজীব নুর বলেছেন: আপনার সুচিন্তিত মতামতের জন্য অশেষ ধন্যবাদ।

১৯| ০৫ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১১:৫২

মোঃ সাকিবুল ইসলাম বলেছেন: মোহাম্মদপুরে জেনেভা ক্যাম্পে বিহারী এবং স্থানীয় জনগণের মধ্যে সংঘর্ষ @রাজীব নুর ভাই লিঙ্ক টা দেখেন।

০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ সকাল ১১:৩৯

রাজীব নুর বলেছেন: সকালে পত্রিকাতে পড়েছি।

২০| ০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ২:৫৮

মেহরাব হাসান খান বলেছেন: আমি সারাজীবন ঘৃনা করব।সুযোগ পেলেই ঘৃনার পরিমাণ বাড়িয়ে নেই।
এটা কারও কাছে নিছক আবেগ, তাতে আমার ক্ষতি নেই।

০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ সকাল ১১:৪০

রাজীব নুর বলেছেন: ইয়েস। রাইট।

২১| ০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:১৬

রায়হান চৌঃ বলেছেন: দুরত্ব হিসেব করলে পাকিস্থান কোন সমস্য ই না।
সমস্যা হলো ৭১ সালে পাক- ভারত যে সব বীজ বাংলায় বপন করে ছিল তা এখন ৪৯ বছর বয়সের পূর্ন বয়ষ্ক। তই তো কেউ ভারতীয় বা কেউ পাকি গুন-গানে ব্যস্ত।

০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:২৩

রাজীব নুর বলেছেন: গুনগান করে তাদের কি কোনো লাভ হছে?

২২| ০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:৩৬

রায়হান চৌঃ বলেছেন: জ্বী রাজীব সাহেব......... তাদের লাভ কি হচ্ছে জানি না। তবে এ টুকু বুঝতে পারছি, বাংলার খেয়ে পরে বাংলার পরিবেশ নষ্ট করছে।আর চারদিকে দুর্গন্ধময় করে বেড়াচ্ছে।

০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৪:১০

রাজীব নুর বলেছেন: ভুল ধারনা আপনার।

২৩| ০৭ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:২৫

নূর আলম হিরণ বলেছেন: পাকিস্তানিরা জন্মগতভাবে স্বার্থপর, সারা বিশ্বে পাকিস্তানের চেয়ে আমাদের ভাবমূর্তি এখন কিছুটা বেশি।

০৭ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ২:৩০

রাজীব নুর বলেছেন: শুকুর আলহামদুলিল্লাহ।

২৪| ০৭ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৩:২৩

রায়হান চৌঃ বলেছেন: ঠিক এই ব্যপার টা ডিপেন্ড করে পরিবেশের উপর। আমার গত ১০ বছরের অভিজ্ঞতা থেকে বলব আমরা বাংলাদেশি দের জন্য পাকিস্থানের মানুষের একটা ভালো টান আছে। এটা অ-স্বীকার করার উপায় নেই যে তাদের মুখের ব্যবহার খুব একটা উন্নত না, কিন্তু মনের দিক থেকে ওরা বাংলাদেশি দের জন্য খুব ই ভালো, খুব ই হেলফ ফুল বলতে পারেন। জাব না থাকলে ওরা চেষ্টা করে বাংলাদেশি মানুষ টার জন্য একটা জব এর ব্যবস্থা করার, পারুক বা না পারুক তবে চেষ্টা করে, এমন কি টাকা পায়সা লাগলেও তারা চেস্টা করে। এক জন বাংলাদেশি দেখলে জোর করে টেনে নিয়ে খেতে বসায়।

কিন্তু ভারতীয় রা ঠিক তার উল্টো আচারন, কোন প্রতিষ্ঠানে ম্যানেজারিল পজিশনে ভারতীয় থাকলে সেখানে বাংলাদেশি দের জব পাওয়ার সম্বাবনা ৯৮% এর ও কম থাকে। আর যদিও জব হয়ে যায়, তবে আপনার সাথে আচারণ বন্ধুর মতো হলেও আপনার জব এর স্থায়িত্ব বলতে পারেন ০ লেভেলে থাকবে। ওরা কখনোই চায় না একজন বাংলাদেশি তাদের সাথে জব করুক, ওরা যে কোন প্রকারে আপনার পজিশনে একজন ভারতীয় কে পছন্দ করবে কাজের যাগ্যতা থাকু আর না থাকুক। আর টাকা পয়সা ? যাদি আপনি ভারতীয় দের কাছে কোন টাকা হাওলাত চান তবে তারা অকপটে বলে দিবে কবে দিবে এবং কত টাকা প্রপিট দিবে, এনি হাও ওরা বাংলদেশ বলতে ওদের একটা নাক ছিটকানো অভ্যাস আছেই।

আল্লাহর কছে শুকরিয়া আদায় করি যে গত ১০ বছরে কোন ভারতীয়র আন্ডারে আমাকে কাজ করতে হয় নি ।

২৫| ০৭ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৮:৪৬

রাজীব নুর বলেছেন: আচ্ছা, আমরা কেন আগে মানুষ ভাবি না?? কেন ভাবি ভারতীয় বা পাকিস্তানি??

২৬| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ সকাল ৮:৪৬

দীপংকর চক্রবর্ত্তী বলেছেন: তদানিন্তন পাকিস্তানকে কখনোই ক্ষমা করা সম্ভব না। ওদের প্রতি ঘৃণাটা সারাজীবনই থাকবে। তবে, আমেরিকায় অবস্থান করার সুবাদে যেসব পাকিস্তানীদের সাথে আমি চলাফেরা করিছি(বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র) তাদের প্রতি আমার কোনো ঘৃণা নেই। এমনটি পাকিস্তানী সহপাঠীরা আমার ঘনীষ্ট বন্ধু। সারাদিনই একসাথে চলা ফেরা করি। কখনো কখনো ওদের ৭১ সালের কথা মনে করিয়ে দেই, তারাও এতে অনুতপ্ত।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:১৭

রাজীব নুর বলেছেন: এইটা আবার কোণ বিচার?? ঘৃণা করলে সমস্ত পাকিস্তানীকেই করতে হবে। সহপাঠী বলে ছাড় দিবেন কেন??

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.