নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার নাম- রাজীব নূর খান। ভাবছি ব্যবসা করবো। ভালো লাগে পড়তে- লিখতে আর বুদ্ধিমান লোকদের সাথে আড্ডা দিতে। কোনো কুসংস্কারে আমার বিশ্বাস নেই। নিজের দেশটাকে অত্যাধিক ভালোবাসি। সৎ ও পরিশ্রমী মানুষদের শ্রদ্ধা করি।

রাজীব নুর

আমি একজন ভাল মানুষ বলেই নিজেকে দাবী করি। কারো দ্বিমত থাকলে সেটা তার সমস্যা।

রাজীব নুর › বিস্তারিত পোস্টঃ

হে হে ...

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:২৯



এক বৃদ্ধ ট্রেনে উঠেছে।
বগিতে বৃদ্ধ একাই ছিলো। হঠাৎ বারো জন দুষ্ট যুবক চলন্ত ট্রেনের ঐ বগিতে উঠেই চিৎকার করে গান গাচ্ছিলো। ছুরি দিয়ে আম কেঁটে কেঁটে খাচ্ছিলো ।

হঠাৎ একটি যুবক বলে উঠলোঃ "চল আমরা ট্রেনের চেইনটা টেনে ট্রেনটাকে থামিয়ে দেই।"
২য় যুবকঃ "না দোস্ত, লেখা আছে পাঁচ শত টাকা জরিমানা অনাথায় ছয় মাস জেল।"
১ম যুবকঃ "আমরা একশো টাকা করে চাঁদা তুলি। বারোশো টাকা হবে বাকী সাত শো টাকা দিয়ে লাঞ্চ করবো। Let's fun friends"
(বারোশো টাকা তুলে ১ম যুবকের পকেটে রাখলো)

৩য় যুবকঃ "দোস্ত, আমরা চেইন টেনে ঐ বুইড়াটাকে দেখিয়ে দিলে পাঁচ শো টাকাও বাঁচলো Fun হলো। আমরা ১২জনের সাক্ষী দিলে টিটি মেনে যাবে।"
বৃদ্ধ কাঁদতে কাঁদতে হাত জোড় করে বললোঃ "বাবা, তোমরা আমার ছেলের বয়সী। কেনো আমাকে বিপদের মধ্যে ফেলবে।"

যুবকগুলো বৃদ্ধের অনুরোধ অবজ্ঞা করে চেইনটা টান দিতেই। টিটি চলে এসে জিজ্ঞাসা করলোঃ "কে চেইন টেনেছে?"
যুবকগুলো বৃদ্ধকে দেখিয়ে বললোঃ "ঐ চাচা মিয়া টেনেছে।"

টিটি বৃদ্ধকে বললোঃ "অকারনে চেইন টানলে পাঁচ শত টাকা জরিমানা অথবা ছয় মাস জেল।"
যুবকগুলো চিৎকার করে বললোঃ "স্যার, বুইড়া অকারনেই টেনেছে। হো হো হো হো......"

বৃদ্ধ একটু দাঁড়িয়ে বললোঃ "টিটি সাহেব আমি বিপদে পড়েই চেইন টেনেছি।"
টিটি বললোঃ "কি বিপদ?"
বৃদ্ধ বললোঃ "ঐ যুবকগুলো আমার গলায় ছুরি ধরে আমার বারো শো টাকা ছিনতাই করেছে।"
টিটি বললোঃ "কি সর্বনাশ?"
বৃদ্ধ বললোঃ "দেখুন ঐ যুবকটির পকেটে টাকা আর ঐ ব্যাগে ছুরি।"

টিটি পুলিশ কল করে ১২জন যুবককে গ্রেফতার করে নিয়ে যাচ্ছিলো।
তখন বৃদ্ধ নূর মোহাম্মদ নূরু তাঁর পাঁকা চুল/দাঁড়ি দেখিয়ে যুবকগুলোকে বললোঃ "এইগুলো বাতাসে পাঁকে নাই''।

মন্তব্য ৩৮ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৩৮) মন্তব্য লিখুন

১| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:৩৪

নেওয়াজ আলি বলেছেন: বৃদ্ধ অভিজ্ঞ লোক

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:২৬

রাজীব নুর বলেছেন: হুম।

২| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:৪৯

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
নূরু হুজুর এতো কাচা লোক না।

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:২৬

রাজীব নুর বলেছেন: হুম উনি পাকনা লোক।

৩| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:৫৪

নিয়াজ সুমন বলেছেন: বাতাসে পাকে নাই, হাওয়ায় পেকেঁকে বোদহয় তবে - হা হা হা

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:২৬

রাজীব নুর বলেছেন: হুম।

৪| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:৫৮

গুরুভাঈ বলেছেন: সুন্দর হইছে :)

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:২৭

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ।

৫| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:০২

রাশিয়া বলেছেন: বৃদ্ধ বেঁচে গেছে যে ঐ যুবকেরা ছাত্রলীগের না। ছাত্রলীগের হলে আগে টিটিকে রাম ধোলাই দিত, তারপর বৃদ্ধের খবর ছিল।

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:২৭

রাজীব নুর বলেছেন: ঠিক বলেছেন।

৬| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:০২

বিজয় নিশান ৯০ বলেছেন: হে হে নূর মোহাম্মদ নূরু নামে একজন ব্লগার আছেন

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:২৭

রাজীব নুর বলেছেন: হতে পারে।
তবে এক নাম তো অনেকের হতে পারে।

৭| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:০৩

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: উন্নত জীবনের স্বপ্ন নিয়ে চার মাস আগে বাড়ি ছেড়েছিলেন যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার খাটবাড়িয়া গ্রামের তরুণ রাকিবুল ইসলাম (২০)। দালালের মাধ্যমে তিনি পাড়ি দেন লিবিয়ায়। কিন্তু দালাল চক্র লিবিয়ার একটি শহরে তাঁকে আটকে রেখে নির্যাতন শুরু করে। পরিবারের লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করে মুঠোফোনে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। পরিবারের লোকজন টাকা দিতে রাজিও হন। এরই মধ্যে খবর এল দালাল চক্র রাকিবুলকে গুলি করে হত্যা করেছে।

গৃহযুদ্ধকবলিত দেশ লিবিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় মিজদা শহরে বৃহস্পতিবার ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ অভিবাসীকে খুন করা হয়। তাঁদেরই একজন এই রাকিবুল। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার ছয় বাসিন্দা রয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।


রাকিবুলের বড় ভাই সোহেল রানা প্রথম আলোকে বলেন, উন্নত জীবনের আশায় দেশ ছেড়েছিলেন রাবিকুল। ভালো কাজের জন্য দালালের মাধ্যমে তাঁকে লিবিয়ায় পাঠানো হয়। কিন্তু শুরু থেকেই দালালেরা তাঁর সঙ্গে খারাপ আচরণ করতে থাকে। পরে তাঁকে আটকে রেখে ১৭ মে মুঠোফোনে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। ওই টাকা দুবাই থেকে তারা নিতে চায়। ভাইয়ের মুক্তির জন্য ওই টাকা দিতে রাজিও হয়েছিলেন তাঁরা। আগামী ১ জুন পর্যন্ত তাঁদের কাছ থেকে সময় নিয়েছিলেন। কিন্তু এর মধ্যে কী হয়ে গেল কিছুই বুঝতে পারলেন না। তাঁর চাচাতো ভাই সকালে লিবিয়া থেকে ফোন করে জানিয়েছেন, যে ২৬ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে, তার মধ্যে রাকিবুলও রয়েছেন। সোহেল রানা বলেন, ‘আমরা এখন কী করব কিছুই বুঝতে পারছি না। লাশ কবে দেশে আসবে, তা–ও জানি না।’


পরিবার সূত্রে জানা গেছে, রাকিবুল যশোর সরকারি সিটি কলেজে অর্থনীতি বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিলেন। রাকিবুলের চাচাতো ভাই লিবিয়াপ্রবাসী। ওই ভাই লিবিয়ায় থাকা এক বাংলাদেশি দালালের সঙ্গে যোগাযোগ করে রাকিবুলকে লিবিয়ায় নিয়ে যান। চার মাস আগে সাড়ে চার লাখ টাকা খরচ করে রাকিবুলকে লিবিয়ায় পাঠান পরিবারের লোকজন। চার ভাইবোনের মধ্যে রাকিবুল সবার ছোট। যে কারণে তাঁর মৃত্যুর খবরে মা-বাবা, ভাই-বোন মুষড়ে পড়েছেন। তাঁদের বাড়িতে এখন শোকের মাতম চলছে।

এদিকে কিশোরগঞ্জের ভৈরব থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল আলম খান জানান, লিবিয়ায় নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ভৈরবের ছয়জন বাসিন্দা রয়েছেন বলে তাঁরা জানতে পেরেছেন। নিহতদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে তাঁরা এই তথ্য নিশ্চিত হয়েছেন। আহতও বেশ কয়েকজন আছেন।

উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের বাসিন্দা মোবারক হোসেন প্রথম আলোকে জানান, তাঁর ছোট ভাই সাদ্দাম হোসেন (২৫) হতাহতের মধ্যে রয়েছেন। প্রথমে তাঁরা মৃত্যুর খবর পেলেও পরে জানতে পারেন সাদ্দাম বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

পরিবার সূত্র জানায়, ছয় ভাই ও তিন বোনের মধ্যে সাদ্দাম সবার ছোট। এক বছর আগে স্থানীয় এক দালালের মাধ্যমে ভালোভাবেই লিবিয়া যান। খরচ হয় তিন লাখ ৬০ হাজার টাকা। কিন্তু সেখানে গিয়ে সুবিধা করতে পারেননি। শেষে লিবিয়ায় অবস্থান করা ভৈরবের এক দালালের মাধ্যমে ইতালিতে পাড়ি জমানোর ফাঁদে পা দেন।

সাদ্দামের বড় ভাই মোবারক হোসেন বলেন, ‘দুর্ঘটনার কিছু সময় আগে ভয়েস কল আসে। সেখানে কান্না আর জীবন শঙ্কার কথা ছাড়া আর কিছু ছিল না। যেভাবেই হোক টাকা দিয়ে বাঁচানোর কথা বলছিল আমার ভাই। কিন্তু টাকা জোগাড় করার আগেই মারা পড়ে আমার ভাই।’

মোবারক জানান, ঘটনার কিছুদিন আগে থেকেই সাদ্দামের সঙ্গে ফোনে কথা হচ্ছিল। তাঁর মাধ্যমে জানতে পেরেছেন জালাল তানজিরুল নামের একজন মানব পাচারকারী রয়েছেন। বাবার নাম সোনা মিয়া। বাবা বেঁচে নেই। বাড়ি ভৈরবের শ্রীনগর ইউনিয়নের শ্রীনগর গ্রামে। মূলত তাঁর মাধ্যমে ইতালি যাওয়ার পরিকল্পনা করা হয়। টাকা চাওয়া হয় ২ লাখ ৬০ হাজার। ৬০ হাজার টাকা পরিশোধ করা হয়। কথা ছিল ইতালি পৌঁছার পর বাকি টাকা পরিশোধ করার।

মোবারকের অভিযোগ, জালাল তানজিরুল লিবিয়ার বেনগাজি থেকে ত্রিপোলি নিয়ে যাওয়ার পথে সবাইকে অন্য একটি চক্রের কাছে বিক্রি করে দেন। চক্রটি সবাইকে নির্জন স্থানে নেওয়ার পর মুক্তিপণ চেয়ে শারীরিক নির্যাতন শুরু করে। মুক্তিপণ হিসেবে চাওয়া হয় ১০ লাখ টাকা।

একই অভিযোগ করেন নির্মমতার শিকার ভৈরবের শিবপুর ইউনিয়নের শম্ভুপুর গ্রামের জানু মিয়ার (২৪) বড় ভাই জহির মিয়া। পুলিশ প্রথমে জানু মিয়ার মারা যাওয়ার খবর দিলেও পরিবারের সদস্যরা বলছেন, জানু মারা যাননি। হাসপাতালে অচেতন অবস্থায় রয়েছেন।

জহির মিয়া বলেন, ‘দুর্ঘটনার কিছুক্ষণ আগে আমার ভাইও আমার কাছে ভয়েস রেকর্ড পাঠান। সেখানে শুধু নির্যাতন চালানোর কথা বলা হয়েছে। আর কিছুক্ষণ পর মেরে ফেলতে পারে—এমন শঙ্কার কথাও ছিল।’

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:৩১

রাজীব নুর বলেছেন: প্রচন্ড দুঃখজনক।

৮| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:০৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


নুরু সাহেব অভিজ্ঞা মানুষ, বিপদ থেকে বের হওয়ার মতো উপস্হিত বুদ্ধি উনার থাকার কথা।

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:৩১

রাজীব নুর বলেছেন: এজন্যই শেষমেশ জিতে গেলেন।

৯| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:০৮

তারেক ফাহিম বলেছেন: পুণরায় পড়লাম।


বৃদ্ধটি অভিজ্ঞ ছিল।

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:৩২

রাজীব নুর বলেছেন: হে হে ----

১০| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:১৭

ইলি বলেছেন: এইগুলো বাতাসে পাঁকে না

৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:৩২

রাজীব নুর বলেছেন: হিহিহিহ

১১| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:৩৫

খাঁজা বাবা বলেছেন: নুরু ভাই কি তার এই কর্মের কথা জানেন? ;)

৩১ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:০৫

রাজীব নুর বলেছেন: না মনে হয়। তবে না জানাই ভালো।

১২| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:৪২

মীর আবুল আল হাসিব বলেছেন:


বিশ্বাস করুন ব্লগে যে জিনিসটা সবচেয়ে বেশি উপভোগ করি সেটা হলো- আপনার আর নুরু সাহেবের কমেন্ট চালাচালি।
=p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~

৩১ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:০৬

রাজীব নুর বলেছেন: হা হা হা হা হা----

১৩| ৩১ শে মে, ২০২০ বিকাল ৩:৩৬

নতুন বলেছেন: তখন বৃদ্ধ নূর মোহাম্মদ নূরু তাঁর পাঁকা চুল/দাঁড়ি দেখিয়ে যুবকগুলোকে বললোঃ "এইগুলো বাতাসে পাঁকে নাই''।


=p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~ =p~

৩১ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:০৮

রাজীব নুর বলেছেন: বৃদ্ধ না উনি। না উনি শক্তসমর্থ মানুষ।

১৪| ৩১ শে মে, ২০২০ বিকাল ৩:৫৬

আমি পরাজিত যোদ্ধা বলেছেন: মজার ছিল।

৩১ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:০৮

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ।

১৫| ৩১ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৫

আমি রানা বলেছেন: এই টাকা দিয়ে উনি কি করেছিল?

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:৫৩

রাজীব নুর বলেছেন: উনাকে জিজ্ঞেস করে জেনে আপনাকে জানাবো।

১৬| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:২৯

সাইন বোর্ড বলেছেন: আমিও হাসলাম, কিন্তু আপনার ঐ মুরুব্বিকে তো খুঁজে পাইলাম না ।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:৫৪

রাজীব নুর বলেছেন: আছে কোথাও। ধারে কাছেই আছে।

১৭| ০১ লা জুন, ২০২০ সকাল ১১:১৩

মুজিব রহমান বলেছেন: অভিজ্ঞতাও জ্ঞান। এই গল্পে সেই শিক্ষাটাই দেয়া হল নতুন করে। গল্পটা আরো পড়লেও আজও পড়ে ভাল লাগলো।

০১ লা জুন, ২০২০ দুপুর ১২:২৮

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ মন্তব্য করার জন্য।

১৮| ০১ লা জুন, ২০২০ বিকাল ৪:৪২

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

দেখতে তুমি হিরোর মতো, ভাবযে বোঝা দায়
পরের জমির সোনার ধান ওঠাও তোমার নায়।
খানসাব হইলো গাজীর শিষ্য জিং জিং খেলা খেলে
বেশী বাড়া বাড়লে ধুইবো তোমায়, বুড়িগঙ্গার জলে।

০১ লা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২৮

রাজীব নুর বলেছেন: মুরু্ববী রাগ করবেন না। জাস্ট ফান।

১৯| ০২ রা জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪৪

ইসিয়াক বলেছেন: বাহ!

০২ রা জুন, ২০২০ রাত ৮:০৩

রাজীব নুর বলেছেন: !

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.