নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ইউটিউব চ্যানেল - https://www.youtube.com/channel/UChLJ8Vr419-LQnkw7q1idqw

সজল_

মুভি, সিরিজ এন্ড গেম লাভার - fb.com/movieseriesandgamelover

সজল_ › বিস্তারিত পোস্টঃ

এপোক্যালিপ্টো - বেঁচে থাকার লড়াইয়ের গল্প

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:০২



মায়া সভ্যতাকে নিয়ে সবসময়ই সবার কৌতুহল রয়েছে। মেক্সিকো আর মধ্য আমেরিকায় গড়ে উঠেছিলো মায়া সভ্যতা। আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ২০০০ থেকে ২৫০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত এই সভ্যতার ব্যাপ্তিকাল ছিলো। অনেক শক্তিশালী জাতি হিসেবে পরিচিত ছিলো মায়ানরা। অতীতের বিভিন্ন সভ্যতার মানুষেরা বন জঙ্গলে বসবাস করতো কিন্তু মায়ানরা ছিলো ব্যতিক্রম। তারা বন জঙ্গলে নয় বরং ঘর বাড়িতে বসবাস করতো। এছাড়া মায়ানরা ধার্মিক ছিলো। তারা ইশ্বরে বিশ্বাস করতো। আর তারা ইশ্বরের নিকট স্থান লাভ করার জন্য মানুষদের বিসর্জন দিতো।


ভিডিও রিভিউ -

২০০৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এপোক্যালিপ্টো মুভির কাহিনী মায়া সভ্যতাকে নিয়ে নির্মিত হয়েছে। মুভিটি পরিচালনা করেছেন অভিনেতা মেল গিবসান। কয়েক হাজার বছর পুরানো একটি সভ্যতাকে বড় পর্দায় তুলে ধরা কঠিন ছিলো। আর গিবসান সেই কঠিন কাজটি সম্পন্ন করে দেখিয়েছেন।

মুভিটির কাহিনী হচ্ছে জাগুয়ার পাও নামক এক যুবকের গ্রামে আক্রমন করে শত্রুদল। জাগুয়ার তার স্ত্রী আর পুত্রকে এক গর্তের মধ্যে লুকিয়ে রাখলেও নিজে ধরা পড়ে যায়। গ্রামের বেশিরভাগ মানুষকে মেরে ফেলা হয়। বেচে যাওয়া মানুষদের বন্দি করে আনা হয় মায়া শহরে। সেখানে তাদেরকে আনা হয় সুর্য দেবতার উদ্দেশ্যে বিসর্জন করে দেওয়ার জন্য। এখন প্রশ্ন হলো জাগুয়ার কি পারবে বেচে ফিরতে? সে কি তার স্ত্রী আর সন্তানকে রক্ষা করতে পারবে? এসব প্রশ্নের উত্তর জানার জন্য এপোক্যালিপ্টো মুভিটি আপনাকে দেখতে হবে।

মুভিটিতে কোন তারকা নেই। অচেনা অভিনেতা আর অভিনেত্রীদের কাস্ট করা হয়েছে। এছাড়া মুভিটির ভাষা ছিলো সম্পুর্ণ মায়ান ভাষা। এতো কিছু স্বত্তেও মুভিটি অনেক অসাধারণ ছিলো। একশন, এডভেঞ্চার, সারভাইভাল, থ্রিলার, ড্রামা সবকিছুরই উপস্থিতি রয়েছে মুভিটিতে। মুভিটি রিলিজের পর দর্শকদের মন জয় করে নেয় এবং সমালোচকদেরও পশংসা লাভ করে।

তবে এতো কিছুর পরেও মুভিটি নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। মেল গিবসান এর মুভি মানেই বিতর্ক। অনেকের মতে মুভিটিতে মায়া সভ্যতা সম্পর্কে ভুল তথ্য দেখানো হয়েছে। অনেক সমালোচকদের মতে গিবসান মুভিটির মাধ্যমে মায়ানদের অপমান করেছে। মায়ানরা ভাষা, শিল্পকর্ম, স্থাপত্য, জোতির্বিদ্যায় পারদর্শী ছিলো, কিন্তু মুভিতে মায়ানদের সেসব ইতিবাচক দিকগুলো তুলে ধরা হয়নি। এছাড়া মুভিটিতে বিসর্জনের দৃশ্য নিয়ে তীব্র সমালোচনা রয়েছে। তাদের মতে মায়া সভ্যতায় বিসর্জনের প্রথা ছিলো কিন্তু গনহারে বিসর্জন দেওয়া হতো না।

এ ব্যাপারে গিবসান বলেন, মুভিটি বানানোর আগে সে জেনে শুনেই বানিয়েছেন। যারা মুভিটির সমালোচনা করছে তাদেরকে মায়া সভ্যতা সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে তারপর সমালোচনা করা উচিত।

তবে যে যাই বলুক না কেনো ভক্তদের কাছে এপোক্যালিপ্টো একটি মাস্টারপিস মুভি। মুভিটিতে আদি মানুষের গল্প দেখানো হলেও, আধুনিক মানুষদের সাথে তাদের একটা বিষয়ে মিল রয়েছে। আর সেটি হচ্ছে বেচে থাকার লড়াই। সে আদিকালেও মানুষ যেমন বেচে থাকার জন্য লড়াই করতো, বর্তমান যুগে প্রত্যেক মানুষের জীবন হচ্ছে একেকটি বেচে থাকার গল্প। দিন শেষে আমরা বেচে থাকার জন্য লড়াই করে যাচ্ছি প্রতিনিয়ত। আর এরই মাঝে মিশে আছে আনন্দ-বেদনা, সুখ-দুঃখ ও হাসি কান্না। আর এভাবেই চলছে জীবন। হয়তো জীবনে অনেক প্রাপ্তি আছে অপ্রাপ্তি আছে। কিন্তু এ নিয়ে আমরা বেচে আছি। এটাই কি কম কিছু? বেচে থাকাটাই সৌভাগ্য ও আনন্দময়।


ভিডিও রিভিউ -


মন্তব্য ১৮ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (১৮) মন্তব্য লিখুন

১| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:৫০

রাজীব নুর বলেছেন: মুভিটা দেখি নি।
আর জানেন, দেখবও না।

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:০১

সজল_ বলেছেন: কেনো দেখবেন না?

মুভিটি দেখার আগের আমারও দেখার আগ্রহ ছিলো না। টিভিতে একটু দেখার পর ভাবতাম জংলিদের মুভি। কিন্ত মেল গিবসান এর ব্রেভহার্ট মুভিটি দেখার পর তার অন্যান্য মুভিগুলো দেখার ইচ্ছা হলো। এরপর এপোক্যালিপ্টো দেখলাম। দারুন লাগলো। অথচ মুভিটা নিয়ে কোন প্রত্যাশাই ছিলো না।

২| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:৪০

ভুয়া মফিজ বলেছেন: মুভিটা দেখেছি। অত্যন্ত চমৎকার একটা মুভি। প্রাচীণ সভ্যতাগুলো নিয়ে যাদের আগ্রহ আছে, তাদের মুভিটা দেখা উচিত।

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৬

সজল_ বলেছেন: সহমত।

৩| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪৪

নতুন বলেছেন: রাজীব নুর বলেছেন: মুভিটা দেখি নি।
আর জানেন, দেখবও না।


এটা অবশ্যই দেখার মতন একটা ছবি। দেখুন ভালো লাগবে।

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৬

সজল_ বলেছেন: :)

৪| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০০

নূর আলম হিরণ বলেছেন: এই ছবিটি অন্য কোন ভাষায় ডাবিং করা হয়নি। মায়ান ভাষা বুঝিনা, তারপরেও একটি বারের জন্য মনে হয়নি তার কি বলছে বুঝা যায়নি।

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৮

সজল_ বলেছেন: মনের কথা বলে দিলেন। কাহিনীর গভীরতায় হারিয়ে গিয়ে ভুলেই গিয়েছিলাম যে মুভিটি মায়ান ভাষায় নির্মিত।

৫| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:২০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আমার দেখা একটি অসাধারণ মুভি। টিভিতে দেখেছিলাম।মাঝের বিজ্ঞাপনের বিরতির সময়গুলোকে এত বিরক্তি লেগেছিল তার আর ভোলার নয়। একেবারে রিয়েল বলে মনে হয়েছিল।

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৫৪

সজল_ বলেছেন: মেল গিবসান এর মুভি, অসাধারণ তো হবেই।

৬| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:৪০

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: কেনো দেখবেন না?
মুভিটি দেখার আগের আমারও দেখার আগ্রহ ছিলো না। টিভিতে একটু দেখার পর ভাবতাম জংলিদের মুভি। কিন্ত মেল গিবসান এর ব্রেভহার্ট মুভিটি দেখার পর তার অন্যান্য মুভিগুলো দেখার ইচ্ছা হলো। এরপর এপোক্যালিপ্টো দেখলাম। দারুন লাগলো। অথচ মুভিটা নিয়ে কোন প্রত্যাশাই ছিলো না।

আমার মুভি দেখার কিছু নিয়ম আছে।
আমি আগে একটা মুভির তিনটা রিভিউ পড়ে নিই। মুভির অভিনেতা অভিনেত্রী সুন্দর না হলে সেই মুভি দেখি না।
গতকাল রাতে দেখলাম- Parasite মুভিটা। চমৎকার মুভি। চমৎকার অভিনয়। চমৎকার কাহিনী।

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৫৩

সজল_ বলেছেন: প্যারাসাইট তো মাস্টারপিস মুভি। গত বছরের মুভিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে প্রিয়।

৭| ২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১২:২৩

নেওয়াজ আলি বলেছেন: দেখতে হবে তাহলে মুভিটা ।

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৫৫

সজল_ বলেছেন: দেখে ফেলুন জলদি। অনেক চমৎকার একটা মুভি।

৮| ২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৫১

রাশিয়া বলেছেন: পানির নিচে সন্তান প্রসব করলে সেই সন্তানের কি বেঁচে থাকার কথা?

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:০৯

সজল_ বলেছেন: বেচে থাকতে পারে, ইউরেশিয়া, স্ক্যান্ডিনেভিয়া, নর্থ আমেরিকাতে (আদিবাসীরা ) অনেকেই পানিতে সন্তান প্রসব করে থাকে। পানিতে সন্তান প্রসব করলে ব্যাথা কিছুটা কম হয়। তবে পানিতে সন্তান প্রসব সম্পুর্ন নিরাপদ নয়। সন্তান শ্বাসগ্রহণ করলে ফুসফুসে পানি চলে যেতে পারে, সন্তান ডুবে যেতে পারে।

৯| ০২ রা অক্টোবর, ২০২০ রাত ১০:৩৮

অধীতি বলেছেন: পাঁচ বার দেখেছি।অসাধারণ মুভি।

০৮ ই অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৫:২৩

সজল_ বলেছেন: :)

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.