নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মানুষ

সরোজ মেহেদী

The inspiration you seek is already within you. Be silent and listen. (Mawlana Rumi)

সরোজ মেহেদী › বিস্তারিত পোস্টঃ

কুমিল্লায় ঘটনা তিনটা: আমি যেভাবে দেখি

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১১:৪৬

১. মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরানের অবমাননা করা হয়েছে। ‘কে করেছে?’ হিন্দু ভাইরা সবার আগে এই প্রশ্নটা করবেন। উত্তর: আমি জানি না। কোনোদিন জানা যাবে বলেও বিশ্বাস করি না। কথা হচ্ছে, উত্তর জেনে গেলে আর রাজনীতি থাকে না। সিনেমায় যেমন দর্শক চায় বলে সাসপেন্স রাখতে হয়, নায়িকারে হেলাইতে দুলাইতে হয়, রাজনীতিতেও নিরুত্তর থাকতে হয়, পাবলিকরে তুষ্ট করতে অংভং জানতে হয়।

আচ্ছা, রামু, নাসিরনগরে এসব অপকর্ম কে করছিল ঠিকঠাকভাবে জানছিলেন? প্রাথমিক তদন্তে যারা করছে প্রমাণ হইছিল তাদের কি শাস্তি হইছে? কেন হয় না? কথিত ধর্মনিরপেক্ষ সরকারের একচ্ছত্র শাসনতো দেশে চলমান।

২. কোরান অবমাননার খবর শুনে উত্তেজিত জনতা মন্ডপে হামলা চালায়, মন্দিরে ভাংচুর করে। (বি, দ্র: এই জনতাকে খবরটা যারা দিছে তারা কিন্তু ঠাণ্ডা মাথার মানুষ! তারা জনতার মাথায় কাঠাল ভেঙে খায়। এবং তারা ধর্মীয় না, প্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক শক্তি।)

গত দুইদিন ধরে ভাবলাম, কোনো হিন্দু (হিন্দু না মুসলিম কে করেছে আমরা জানি না। আমারতো মনে হয় না, এখানে সাধারণ কোনো হিন্দু বা মুসলমান জড়িত। এটা আসলে উপরের লোকদের বানর খেলা। উপরের লোকদের কোনো ধর্ম হয় না। ‘পাওয়ার’ হলো তাদের এক ও অদ্বিতীয় ধর্মের নাম।) যদি কোরানের অবমাননা করে তার বিচার হতে পারে। অবমাননার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হতে পারে। কিন্তু মন্ডপে হামলা কেন? এক হিন্দু অপরাধ করেছে সন্দেহ করে আরেক হিন্দুকে মারতে যাওয়া কোন যুক্তিতে! কেউ যদি ইসলাম ধর্মকে অপমান করে অপরাধ করে থাকে তাহলে যারা এর প্রতিবাদের নামে আরেকটা ধর্মের ধর্মালয় ভাংলেন, উৎসব পণ্ড করলেন তারা কি আরও বড় অপরাধ করলেন না! আপনাদের এই কাজ কি আরও বেশি ঘৃণিত ও গর্হিত হলো না?

এই যে কাজটা আপনারা করলেন তা কি আপনার নিজের ধর্ম সমর্থন করে? আপনিতো নিজধর্ম রক্ষার নামে আরেক ধর্মের হাজার হাজার ভাই-বোনদের মন ভাংলেন। আপনার কাছে যেমন আপনার আল্লাহ প্রিয়, তাদের কাছেওতো তাদের দেব-দেবী/ভগবান সমান প্রিয়।

যে কোরানের সম্মান রক্ষায় আপনার মাঠে নামলেন সে কোরানেইতো পরধর্ম বা পরধর্মের কোনো বিষয় নিয়ে বাজে কথা বলা পর্যন্ত কঠোরভাবে নিষেধ করা হয়েছে। একবারও ভেবে দেখলেন না, আপনারাতো কোরান রক্ষার নামে কোরান বিরোধী কাজ করে বসলেন!


৩. প্রতিবাদী মানুষের মিছিলে পুলিশের গুলি! এই পয়েন্টে কথা বলা নিরাপদ বোধ করছি না। শুধু বলি, আজকাল মানুষের উপরে গুলি চালানো দেখি মোয়া খাওয়ার চেয়েও সহজ হয়ে গেছে। কথায় কথায়তো গুলি চালায় তারা, যারা আরকে দেশ থেকে উড়ে এসে একটা জনপদ দখল করে বসে-দখলদার/হানাদার। এই সরকার ও তার পুলিশরে ধরল কোন রোগে? পান থেকে চুন খসলেই গুলি! দেখে মনে হয় যেন গুলি করাটা একটা হবি।

যারা সত্যি সত্যিই সমস্যা সমাধান চান। শান্তি চান। তারা এই তিনটা পয়েন্টেই কথা বলেন। যে বা যারাই করেছে এই তিনটা কাজই অন্যায় হয়েছে। শেষের দু’টোই বাড়াবাড়ি। বাড়াবাড়িতে শান্তি নাই কেবল অশান্তির আগুন। এই আগুন এখনই নেভানো না গেলে আপনি-আমি সবায় পুড়ব। আগুন দেবালয় চেনে না। হিন্দু রক্ত, মুসলমানের রক্ত আলাদা করা যায় না।

এই লেখাটা শেষ করি, শিক্ষিত, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় হিন্দু ভাই-বোনদের উদ্দেশ্যে দুয়েকটা কথা বলে। আপনারা যদি সদাসর্বদা ইসলাম/মুসলমানরে কিভাবে বাঁশ দেয়া যায় সে সুযোগে থাকেন। আপনাদের চিন্তা-চেতনায়, শয়নে-স্বপনে যদি এটাই থাকে যে, বাংলাদেশে হিন্দুদের জন্য নিরাপদ না/হিন্দুরা নির্যাতিত হচ্ছে এটা প্রমাণ করবেন তাহলে কথা বলে লাভ নাই জানি (এই কথা সবার জন্য প্রযোজ্য না। আমি বহু হিন্দুকে দেখি, যারা খুবই গঠনমূলক। এসব বিষয়ে যাদের কথা/লেখা চিন্তার খোরাক জোগায়)। কিন্তু এই দেশটা আপনারও জন্মভূমি, এই অনুভূতি যদি ভেতরে থাকে, আপনি যদি এখানকারই সন্তান, বলে বিশ্বাস করেন তাহলে ধর্ম চোখের বাইরেও দেখার চোখগুলো খুলেন। অন্ধ হইয়া লাভ নাই। দেখেন, এখানে সংখ্যায় কম হলেও মানুষ আছে। খালি হিন্দু-মুসলমানের আবাস না এটা। মানুষের বাইরেও এখানে বহু প্রাণী বাস করে। সবকিছুকে যখন তখন ধর্মের পাল্লায় মেপে, পাশের দেশরে টেনে আইনা, উত্তেজনা তৈরি কইরেন না। এতে লাভ কারো হবে না। মনে রাইখেন, আমাদের যাদের জন্ম বাংলায় তাদের সুখে দুঃখে এখানেই বাস করতে হবে, মরতে হবে। অন্য কেউ এসে আমাদের দুঃখ লাঘব করে দিয়ে যাবে না। দুনিয়ার ইতিহাসে কেউ দেয়ওনি। খালি বাঁশে কিছু হয় না, এ মাটিতে মায়া লুকানো আছে তাকায় দেখেন। আরকিছু না হোক, এ মাটিকে ভালোবাসেন। গতকালের অনেক সমস্যা আজ আর সমস্যা মনে হবে না।

(আমার দুনিয়ার দুই/চারটা দেশ অল্প বিস্তর দেখার সৌভাগ্য হয়েছে। কখনো মনে হয়নি, সেসব দেশে বাংলাদেশের চেয়ে বেশি দাপটে সংখ্যালঘুরা বসবাসের চিন্তাও করতে পারে। তবে প্রেশারে রাখার পদ্ধতিতে, টর্চারের ধরনে ভিন্নতা থাকতে পারে। এটা আমাদের পাশের দেশ দেখে যেমন বলা, আবার কথতি সভ্য ইউরোপের ২/৪টা দেশ টেনে এনে একই কথা বলব।)

মুসলমানদের কিছু বলার নাই। গত ক’দিনে যারা মারা গেল তাদের জন্য দুঃখ হয়। আর যা করতে গিয়ে মরল, মরার আগে যা হলো এই ঘটনায় আমার ঘাড় এখনো নুয়ে আছে। লজ্জ্বায়, অপমানে। একটা প্রতিমায় কারো আঘাত যেন আমার মুখে জুতা মারার লাঞ্ছনা নিয়ে ফিরে ফিরে আসে। আমি যতটুকু হলে মুখ দেখানো যায় না তারচেয়েও বেশি লজ্জ্বিত। এই লজ্জ্বা প্রতিনিয়ত পুড়ায়, আমৃত্য পুড়াবে। এই দুঃখ কোনোদিনও যাবে না, বোকা মানুষ বুঝল না। তারা বরাবরের মতো এবারও খেলা গুটি হলো।

ভিক্টিম যারা (হিন্দু) হলো তারাও আপনাদের মতো নীরিহ মানুষ। এই মানুষগুলো আপনার ভাই/বোন, শত্রু না। এদের আগলে রাখা, ভালোবাসা, তাদের ধর্ম শান্তিতে পালন করতে দেয়া, আপনার ধর্মীয় ও নৈতিক দায়িত্বও।

মন্তব্য ২৫ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (২৫) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ১২:৩০

নতুন বলেছেন: একজনের অপরাধে অন্য কাউকে সাজা আইন কখনো দেয় না।

আর এই ঘটনা অবশ্যই ঝামেলা সৃস্টির জন্য করা হয়েছে এবং মাথামোটা মূর্খরা সেটা না বুঝে হিন্দুদের উপরে হামলা, মন্ডপে হামলা করেছে।

যারা হামলা করে তারা কত বড় ধার্মিক সেটা তো বুঝতেই পারছেন। তারা কতটা ধর্ম পরায়ন হলে মানুষের গায়ে হাত তুলতে পারে?

তবুও আশার কথা হলো এই ঘটনায় যতটা ঝামেলা হবে মনে করেছিলাম তার চেয়ে অনেক কম ঝামেলা হয়েছে। সেই অর্থ তাদের এই পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়েছে।

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ১২:৪৯

সরোজ মেহেদী বলেছেন: ভালো বলেছেন। আমার ভয়টা কোথায় এই লিংকে ক্লিক করলে আচ করতে পারবেন।

https://indiarag.in/bangladesh-kumilla-durga-puja-update/

২| ১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ১:৫৩

জাতিস্মরের জীবনপঞ্জী বলেছেন: দেশে বর্তমানে সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে ভয়ংকর সময় বিরাজ করছে, অথচ ছোট থেকে আমি এগুলো কখনো দেখিনি। গত এক দশকে এই অবস্থা তৈরি হয়েছে। মুসলমানদের জন্য আমার একটা কথাই বলার আছে- "আমিই (আল্লাহ) কোরআন অবতীর্ণ করেছি। আর অবশ্যই আমি এর সংরক্ষক। (সুরা : হিজর, আয়াত : ৯)। প্রকৃত ধার্মিক হলে এত রিএ্যাক্ট করতো না। রাজনীতিবিদরা তো দায়ীই সাথে দেশের মূর্খ মাওলানাগুলো আরো বেয়াদব।

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৩:১২

সরোজ মেহেদী বলেছেন: 'গত এক দশকে এই অবস্থা তৈরি হয়েছে।' আমার নিজের অভিজ্ঞতাও একই মনে হয়।

আসলে এখানে ধর্ম ধর্ম খেলা চলছে বলে মনে হয় না। পেছনে পাওয়ার গেইম। দেশীয় আঞ্চলিক দু'টোই।

৩| ১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ২:৪২

রাজীব নুর বলেছেন: এত আশা না করাই ভাল। মুসলমানদের তো চেনো না, পঞ্চাশটা মাইক দিয়ে কানের পোকা নাড়িয়ে তুমি না চাইলেও আজান জোর করে শোনাবে। মন্দিরের ঘন্টা তারা শুনবে না, কাউকে শান্তিতে শুনতেও দেবেনা। হাসিনার মদিনা সদনের দেশেতো নয়ই। বঙ্গবন্ধুর "অসম্প্রদায়িকতা" "ধর্মনিরপেক্ষতা" কাজির গরুর মত কিতাবে আছে গোয়ালে নেই।

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৩:১৩

সরোজ মেহেদী বলেছেন: ঢালাও মুসলমানদের স্কিপ গট বানিয়ে কি হবে ভাই। সাধারণ মুসলমানের জীবনের নিয়ন্ত্রণও কি তাদের হাতে আছে! না তাদের জীবনের দেড় পয়সার মূল্য আছে।

৪| ১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ২:৪৭

*আলবার্ট আইনস্টাইন* বলেছেন: মুসলমানের নবী মুহাম্মদের পথে কাঁটা দেওয়া হত, নামাজরত মুহাম্মদের উপর দুম্বার নাড়িভুঁড়ি ফেলা হত, তায়েফের ময়দানে মুহাম্মদকে পাথর ছুরে রক্তাক্ত করেছে যারা মুহাম্মদের ধর্মে ঈমান আনে নাই। কিন্তু বিপরীতে মুহাম্মদ কি করেছে? কি বলেছে??

"হে খোদা! এদের ক্ষমা করো। বোধশক্তি দাও।

মুহাম্মদের প্রকৃত অনুসরন করা হচ্ছে কি??

অযোধ্যায়, গুজরাটে, উগ্র করসেবকরা যা করেছে বাংলাদেশে মুসলিমরা একইভুল করলে মুহাম্মদ কখনই তাদের পক্ষে অবস্থান নিবে না।

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৩:১৪

সরোজ মেহেদী বলেছেন: বিষয়টাকে শুধু ধর্মীয় মনে হয় না আমার। আদতে রাজনৈতিক।

৫| ১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৩:২২

বিটপি বলেছেন: হিন্দুরা কেন সতর্ক হল না। তারা কেন কুরআনের অবমাননা দেখেও তার প্রশ্রয় দিয়ে গেল? তারা কেন সত্যি প্রকাশ করছেনা?

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৪:২৬

সরোজ মেহেদী বলেছেন: আপনি যতগুলো প্রশ্ন করেছেন তার জন্য সাধারণ হিন্দুরা দায়ী না। বাস্তবতা হচ্ছে, অসাধারণ যারা তারাতা আক্রান্ত হয় না। মরছে নীরিহ জনতা।

৬| ১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:২৪

জাতিস্মরের জীবনপঞ্জী বলেছেন: ছোটবেলা থেকেই আমার হিন্দুদের সাথে ওঠা-বসা। ছোট থাকতে আমাদের বিল্ডিং-এ এক হিন্দু ফ্যামিলি থাকতেন, যে কোন পূজার সময় আমি তাদের বাড়িতে যেয়ে খাওয়া-দাওয়া করে আসতাম।

হিন্দুরা কেন সতর্ক হল না। তারা কেন কুরআনের অবমাননা দেখেও তার প্রশ্রয় দিয়ে গেল? তারা কেন সত্যি প্রকাশ করছেনা?- সাধারণ হিন্দুরা কখনই মুসলমানদের ছোট করার কথা চিন্তা করবেনা, অন্তত মুসলিম প্রধান দেশে, আমার অভিজ্ঞতা তাই বলে। এর পিছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য তো বটেই, কিছু স্বার্থান্বেষী মহলও ফায়দা লোটার চিন্তা করেছে, সেই স্বার্থান্বেষী মহল কিছু সুবিধাবাদী হিন্দু হলেও সাধারণ হিন্দুরা তাদের সমর্থন করার কথা না।

আর ইসলাম বা কোরানের সংরক্ষণের দায়িত্ব স্বয়ং আল্লাহর। আমরা সংরক্ষণ করার দায়িত্ব নিতে গেলে সেটা শিরক ছাড়া আর কিছু না।

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:০৮

সরোজ মেহেদী বলেছেন: 'সাধারণ হিন্দুরা কখনই মুসলমানদের ছোট করার কথা চিন্তা করবেনা' আমারও তাই মনে হয়। এটা আসলে উপরের খেলা, লাভও উপরওয়ালাদের। ভোগান্তির ভাগটুকু কেবল হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে সাধারণ মানুষের।

৭| ১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৮:০৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: ভোটাধিকারবীহিন সরকার পাকাপোক্ত করতে হইলে জনগনরে সবসময় ইস্যূর উপড়ে রাখতে হয়। পরীমনি ইসূ্য শেষ, জাতি এখন ব্যস্ত এই ইস্যূ নিয়ে। এইটা স্তিমিত হইলে আরেক ইস্যূ এসে হাজির হবে।

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৮:৩৬

সরোজ মেহেদী বলেছেন: খারাপ বলেননি।

৮| ১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১:০৪

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: এক হিন্দু অপরাধ করেছে সন্দেহ করে আরেক হিন্দুকে মারতে যাওয়া কোন যুক্তিতে !
এই একটি বিষয় মেনে নিলেই অনেক সমস্যার সমাধান হয়ে যায়।
ভেবে দেখুন এই একই যুক্তি খাটে মুসলমানদের ক্ষেত্রেও। নাইন ইলেভেন, আইসিসএর সন্ত্রাস এসব যুক্তি তুলে অমুসলিম দেশে যদি ক্রিষ্টানরা মুসলিমদের উপর দল বেঁধে এভাবেই আক্রমণ করে তখন কি অবস্থা হতে পারে ?

আসলে এক শ্রেণীর লোকজন ধর্মের অন্তর্নিহিত অর্থই অনুধাবন করতে পারে না। তাই এতো ধর্মকর্ম করেও অনেকে দুর্নীতি, ব্যাভিচার ও অন্যান্য পাপকার্য থেকে নিজেকে বিরত রাখতে পারে না।

১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:২৪

সরোজ মেহেদী বলেছেন: ভাইরে যা হইছে এটা সাধারণ মানুষের কাজ বলে মনে হয় না আমার। সাধারণ মানুষ বড় জোর ব্যবহৃত হতে পারে, এর বেশি না।

৯| ১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ ভোর ৬:৩৮

কামাল১৮ বলেছেন: @ বিটপি,হিন্দুর কেন সতর্ক হল না এই অপরাধের জন্য তাদের আরেক দফা পিটান।

১০| ১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৮:৩৬

বিটপি বলেছেন: @ কামাল১৮, হিন্দুরা আমার কাছে শ্রদ্ধার পাত্র। কারণ তারা কোন একটা ধর্মের অনুসারী। কিন্তু তোমার মত যারা ধর্মবিদ্বেষী, তাদেরকে পেটানোর আমার খুব শখ আছে। যারা মূর্তি ভাঙ্গে, তাদের সাথে তোমাদের আমি কোন পার্থক্য দেখিনা। ক্ষমতা থাকলে তোমাকে আর তাদেরকে একসাথে ফেলে পিটাতাম।

১১| ১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৮:৫৪

কামাল১৮ বলেছেন: @ বিটপি,ক্ষমতা থাকলে যে কি করতেন এটা পৃথীবির সবাই জানে।তাইতো আপনারা ক্ষমতা হীন।চীনে,ইরাকে,লিবিয়ায়,আফগানে,মিয়ানমারে ক্ষমতা দেখাতে গিয়ে কি অবস্থা হয়েছে তাতে দেখতেই পান।আরো ক্ষমতা দেখানো বাকি আছে।

১২| ১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৯:১৪

নীল আকাশ বলেছেন: এত সিনেমা দেখেন আর এটা বুঝে না?

১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:২৬

সরোজ মেহেদী বলেছেন: কিছু দেখি, কিছু দেখেও দেখি না। চোখ খুইলা ঘুমাই থাহি।

১৩| ১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১০:৪০

বংগল কক বলেছেন: বিটপি বলেছেন: @ কামাল১৮, হিন্দুরা আমার কাছে শ্রদ্ধার পাত্র। কারণ তারা কোন একটা ধর্মের অনুসারী। কিন্তু তোমার মত যারা ধর্মবিদ্বেষী, তাদেরকে পেটানোর আমার খুব শখ আছে। যারা মূর্তি ভাঙ্গে, তাদের সাথে তোমাদের আমি কোন পার্থক্য দেখিনা। ক্ষমতা থাকলে তোমাকে আর তাদেরকে একসাথে ফেলে পিটাতাম।

পিডা কামাল আতাতুর্করে পিডা..........

১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:২৬

সরোজ মেহেদী বলেছেন: পিডাপিডি বাদ দেন ভাই। আসেন একসাথে রং খেলা খেলি।

১৪| ১৮ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ৮:৪৭

বিটপি বলেছেন: কামাল আতাতুর্ক অত্যন্ত সম্মানিত ব্যক্তি। তিনি কাঠমোল্লাদের দমন করেছিলেন বলেই তুরস্ক আজ এত ক্ষমতাশালী দেশ হয়ে উঠেছে।

১৮ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:৩৫

সরোজ মেহেদী বলেছেন: আমি তুরস্কে কয়েক বছর ছিলাম ভাই পড়াশোনার সূত্রে। এ বিষয়ে আসলে বাংলাদেশে পক্ষে-বিপক্ষে খণ্ডিত আলোচনা হয়। আবার বাঙালিরা হয়তো গভীরে যেতেও চায় না। তাকে বা তুরস্ক নিয়ে গঠনমূলক কাজ বাংলাদেশে নাই।

পাশার ভালো দিক যেমন আছে, খারাপ দিকও আছে। (পৃথিবীর ইতিহাসে যারা অমর, পাশা তাদের একজনতো অবশ্যই।)

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.