নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি জাহিদ হাসান শিশির। আপনাদেরকে আমার ব্লগে স্বাগতম।

জাহিদ হাসান

বড় বড় স্বপ্ন দেখায় অভ্যস্ত এক ছেলে

সকল পোস্টঃ

আজ আমি যাচ্ছি, কাল আমার পরীক্ষা ! /:)

০৯ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৪০


কাল আমার পরীক্ষা। তাই খুব সকালে উঠেই একচোট পড়ার পরে রাস্তার বের হয়েছি। এলাকার ছোট ভাইয়ের সাথে দেখা। আমাকে দেখেই সে সালাম দিয়ে বলল- বড় ভাই ভালো আছেন?
আমি তার...

মন্তব্য১৪ টি রেটিং+১

রম্যগল্প: হাবলু স্যারের নকল উদ্ধার !

০৮ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:১৩

তখন ইন্টার ফাস্ট ইয়ারে পড়তাম। আমাদের কলেজের এক স্যার ছিলেন। বেজায় রাগী মানুষ। কিন্তু বোকাসোকা। স্যারের নামটা কি ছিল মনে নেই। ধরা যাক স্যারের নাম হাবলু। তো ইন্টার ফাস্ট ইয়ারের...

মন্তব্য১২ টি রেটিং+৪

রম্যগল্প: বলবান জামাতা এবং দূর্বল আমি !

০৭ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:১৪

লোকে বলে ভাগ্যই নাকি সব কিছু।বাবুল সাহেবের বেলায় তার পূর্ণ প্রতিফলন ঘটেছে। বাবুল সাহেব যেমন প্রচন্ড সম্পদশালী মানুষ,তেমনি তার জামাতাও প্রচন্ড বলশালী মানুষ।একেবারে খাপে-খাপ।বাংলা প্রবাদের ভাষায় যাকে বলে- সোনায় সোহাগা।এমন...

মন্তব্য৮ টি রেটিং+১

ধারাবাহিক উপন্যাস: নিয়তি-১০ এবং শেষপর্ব

০৫ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:০৭

দশ

পরদিন সকালে খুব ভোরে উঠলাম। সকাল সাড়ে আটটায় আমাদের দেশে ফেরার ফ্লাইট। সেলিম গতরাতেই প্রচুর মদপান করে মাতাল হয়ে পড়ে আছে। সাতটা বেজে গেল কিন্তু তাকে ঘুম টেনে তুলতে পারলাম...

মন্তব্য৮ টি রেটিং+০

ধারাবাহিক উপন্যাস: নিয়তি- ৯

০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:০৭

নয়
আমরা রাতে হোটেলে থাকলাম। সকালে আমি আর সেলিম বের হলাম কাজের উদ্দেশ্যে। সব কিছু ঠিকঠাক মতোই হল। কাল আমাদের ফিরে যাওয়ার দিন। তাই আজ বিকেলটা আমি আর ইতি ঘুরে...

মন্তব্য৪ টি রেটিং+০

ধারাবাহিক উপন্যাস: নিয়তি - ৮

০৩ রা ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:৫১

আট

এক সপ্তাহ পরে ভিসা হয়ে গেল। বিমানের টিকেটও বুক করা হয়ে গেল। বস আমাকে সকল দায়িত্ব বুঝিয়ে দিলেন।
আমি,সেলিম আর ইতি থাই এয়ারলাইন্সের বিমানে উঠে বসলাম। ইতি বসেছে আমার...

মন্তব্য৬ টি রেটিং+১

ধারাবাহিক উপন্যাস: নিয়তি- ৭

০২ রা ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:১৩

সাত
সেলিমের সাথে পরে ভাল করে পরিচিত হলাম। ছেলেটা খুবই চটপটে আর চালাক-চতুর। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজিতে পড়াশুনা করে বের হয়েছে।তার চেয়েও বড় কথা,সেলিমের পৃথিবী নিয়ে আছে বিস্ময়কর সব জ্ঞান। যেখানে...

মন্তব্য৮ টি রেটিং+১

ধারাবাহিক উপন্যাস: নিয়তি-৬

২৯ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:৫৪

ছয়
বাসায় এসে দেখি ইতি মুখ গোমড়া করে বসে আছে। ইদানীং তার নতুন রোগ হয়েছে। মুখ গোমড়া করে বসে থাকার রোগ।
বললাম- ‘ এই যে গোমড়ামুখী মেয়ে, তোমার জন্য কি...

মন্তব্য৪ টি রেটিং+০

ধারাবাহিক উপন্যাস: নিয়তি- ৫

২৭ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:১০

পাঁচ
আশেপাশের দোকানের ধারদেনা শোধ করতেই আমার ছয় মাস চলে গেল।তবে পারলাম অবশেষে। এখন অল্প কিছু ঋণ রয়েছে। সেগুলোও ধীরে-সুস্থে শোধ করবো। তা নিয়ে আমার কোন টেনশন নেই।টেনশন বাঁধিয়েছে ইতি।...

মন্তব্য১৩ টি রেটিং+১

ধারাবাহিক উপন্যাস: নিয়তি- ৪

২৬ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৫৭

চার
আম্মার মৃত্যুর ছয় মাস পরে আমি একটি ভালো খবর পেলাম। বাড়ির পাশে একটা নতুন গার্মেন্টস হয়েছিল দেখে আমি সেখানে চাকরির আবেদন করে রেখেছিলাম। তিন মাস পরে আমাকে নিয়োগ দেওয়া হল।...

মন্তব্য৪ টি রেটিং+০

ধারাবাহিক উপন্যাস: নিয়তি-৩

২৫ শে নভেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:১৩

তিন
বাড়ি ফিরে আম্মার এই অবস্থা দেখে আমি ইতিকে ডাকলাম। সে ছুটে এল।
বললাম- ‘আম্মার শরীরে এত জ্বর। তুমি কি করছিলে?’
সে অবাক হওয়ার ভঙ্গিতে বলল-‘ আম্মার জ্বর এসছে? কই আমিতো টের...

মন্তব্য৮ টি রেটিং+১

ধারাবাহিক উপন্যাস: নিয়তি-২

২৪ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:৪৬

দুই
বজলুলের কাছ থেকে টাকা ধার করে বাজার করে বাড়ি ফিরছি। পাঁচশ টাকায় ব্যাগভর্তি বাজার করতে পারবো ভাবিনি।এখনও পকেটে কিছু টাকা রয়ে গেছে। তবুও রিকশা করে বাড়ি ফিরতে সাহস করিনি। কারণ...

মন্তব্য১০ টি রেটিং+৩

ধারাবাহিক উপন্যাস: নিয়তি -১

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:৩১

এক
সুখ সবার কপালে সয় হয় না। আমার কপালটাও ঠিক তেমনি। নয়তো ঋণের বেড়াজালে পড়ে সারাটা জীবন কষ্ট করলাম। এরপরে সকল ঋণ থেকে মুক্তি পেয়ে যখন একটু সুখের মুখ দেখছিলাম,তখন আবারও...

মন্তব্য৭ টি রেটিং+২

কারো মনে আঘাত না দিয়ে, সবার মন জুগিয়ে সমাজের ভালো করা সম্ভব নয়

১৪ ই নভেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:৫৪


ময়লা পরিস্কার করতে গেলে,ময়লার তো সমস্যা হবেই। তাই বলে কি ময়লা পরিস্কার করা বন্ধ করে দিতে হবে?
কোন কামারকে কি কখনও দেখেছো লোহার মন জুগিয়ে তারপর লোহাকে ফুলের টোকা...

মন্তব্য৮ টি রেটিং+২

স্বপ্নবাজের ঢাকায় বসবাস

১১ ই নভেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:১২

মতিঝিলের চত্বরে,শাহবাগে,
খেই হারিয়েছি সদরঘাটে- জনতার ভীড়ে।
বাহদুর শাহ পার্কের খপ্পরে
সীমানা হারিয়েছি অকাতরে।

লক্ষী্বাজারে আমি ছুটছি,
পদদলিত হয়েছি গেন্ডারিয়ায়।
জনসন রোডের সীমানা -
ছাড়িয়ে গিয়ে,গুলিস্তানে স্বপ্নবাজ অসহায়।

রায়সাহেব বাজার থেকে ওই জুরাইন।
রাস্তা হয়েছে...

মন্তব্য৮ টি রেটিং+০

full version

©somewhere in net ltd.