নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

লেমুয়া,ফেনী ।

নেওয়াজ আলি

হে পরমেশ্বর,এই নশ্বর নিখিল সৃষ্টিতে রেখো না ওই মানুষ যার ভিতর নরত্বের অভিনিবেশ নাই ।

নেওয়াজ আলি › বিস্তারিত পোস্টঃ

আলোহীন প্রদীপ একজন নয় এমন আরো বহু আছে বাংলাদেশে।

০৯ ই আগস্ট, ২০২০ দুপুর ২:৫৭

জেলে ভাল আছেন ওসি প্রদীপ বাবু। বাবুর মতোই ফুরফুরে মেজাজে দিন পার করছেন । তিনি জেলকর্মীদের সঙ্গে হাসিখুশি কথা বলছেন। তাদের কাছে শুধু একা থাকার সুবিধা চেয়েছেন। ওসি প্রদীপ কুমার দাশের হাসিমাখা চেহারা দেখে বোঝার উপায় নেই তিনি চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলায় জেলে আছেন। দেখেছি শুনানির দিনও আদালতে হাসিখুশি ছিলেন ওসি প্রদীপ। রহস্যময় সব সোনার বাংলাদেশে।

ইয়াবা বিরোধী যুদ্ধের অংশ হিসেবে কথিত ক্রসফায়ার বাণিজ্য চালাতে ওসি প্রদীপ কুমার দাস টেকনাফ থানার নিজের আস্থাভাজন পুলিশ সদস্যদের দিয়ে বিশেষ টিম গঠন করেন। ক্রসফায়ার দেওয়ার আগে এই বিশেষ টিমের সদস্যরা প্রদীপ দাসের নির্দেশে যাকে ক্রসফায়ার দেওয়া হবে তার দখলে থাকা ইয়াবা , অবৈধ অস্ত্র এবং টাকা হাতিয়ে নিত। আবার ক্রসফায়ার থেকে রক্ষা করার নামে টাকা হাতিয়ে নিত সংশ্লিষ্ট আটক ব্যক্তির পরিবারের কাছ থেকে। উদ্ধারকৃত ইয়াবা আবার গোপনে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে দিতেন ওসি প্রদীপের বিশেষ টিমের সদস্যরা। আর মেজর সিনহার ইয়াবা ও ক্রসফায়ার নিয়ে তথ্যমূলক প্রামাণ্য চিত্র তৈরিতে তার জীবনের অবসান হলো।

একটা দলের কিছু ইয়াবা খুচরা বিক্রেতা ওসি প্রদীপের গ্রেফতারের প্রতিবাদে ব্যানার নিয়ে টেকনাফের রাস্তায় দাড়াতে দেখা গেছে। প্রদীপের অপসারণ তারা মেনে নিতে পারছেনা। তারা চিন্তিত প্রদীপ স্যার না থাকলে সামনে ইয়াবার চালান তাদের কাছে কারা পৌছে দেবে?

ঘটনা যাই হোক , তার নামে কেউতো ব্যানার নিয়ে রাস্তায় দাড়িয়েছে আর এটাতেও কিছু সংকেত আছে। ওসি প্রদীপ ইয়াবা ব্যবসায়ী এইটা যেমন সঠিক আবার শুধু এই কারণেই যে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা প্রতিবাদ জানাইতেছে বিষয়টি এমন না। এরা ওসি প্রদীপের অতীত ক্ষমতা এবং উচ্চ মহলে তার অবস্থান সব জানে, কয়দিন বাদেই ওসি স্যার থানায় যোগ দিবেন। তখন এসব খুচরা বিক্রেতার সব কয়টারে বাঁশ ঢলা দিবে। সেই বাঁশ ঢলা থেকে বাঁচতে আগে থেকে কিছু ছবি তুলে রাখা । প্রদীপ স্যার ফিরে আসলে যেন এইগুলা দেখাইতে পারে

এসআই, ওসি, এসপি এমন করে যেভাবে ঘটনা উপর দিকে উঠতেছে তাতে প্রদীপের বিচার হওয়া নিয়ে আমার সন্দেহ জাগে। তবে দেশের জনগণকে ধন্যবাদ তারা কিছু মানুষ হত্যাকারী ডাকাতের বিরুদ্ধে প্রচণ্ড প্রতিবাদ গড়ে তুলেছে। টেকনাফের মহিলা নেত্রী নাজনীন সরওয়ার কাবেরী বিচার চেয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন যা পেপারেও প্রকাশ হয়েছে।এই স্ট্যাটাসে মুহূর্তের মধ্যেই ৫ শতাধিক কমেন্টস পড়ে। শত শত শেয়ার হয়ে যায়। সাহসী লিখনির জন্য তাকে ধন্যবাদ জানিয়েছে অনেকেই।

পুলিশ সুপার এর বিরুদ্ধে এমন কঠোর স্ট্যাটাস দেয়ার কারণ কক্সবাজার জেলার কোন থানায় টাকা ছাড়া মামলা হয় না। সাধারণ মানুষকে হয়রানি করা হয়। এই অবস্হা সারা বাংলাদেশে তাই দলমতের উদ্ধে উঠে এসব ভয়ংকর হায়েনাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ গঠে তুলে বিচার করতে সরকারকে বাধ্য করা উচিত । মনে রাখা দরকার এই প্রদীপ কুমার বিএনপি জামাত জোটের আমলে চাকরী পেয়েছে। তখন সে বিএনপি করতো বলে চাকরী পেয়েছে। আর সেই সময় সে বিএনপি হতে সুবিধা নিয়েছে ।

বিএনপির দিন শেষ বলে আওয়ামী দিনে সে সন্ত্রাসীদের বাপ বনে পুলিশ হযে বিএনপির কর্মীর মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করেছে এই প্রদীপ বাবু । এখান হতে সবার শিখার আছে যে প্রদীপ দাশ কারো নয়। সে শুধু টাকা রোজগার করতে মুখোশ পরিবর্তন করেছে এবং কোটি কোটি টাকা অবৈধ রোজগার করে ভারতে পাচার করেছে । সেখানে বাড়ি গাড়ি সব করেছে , স্ত্রীর পাসপোর্টও ভারতীয় । অর্থাৎ চাকরী জীবন শেষ হলেই পালাবে প্রদীপ স্যার। আগে আরো কয়েকবার সে বিপদে পড়ে ছিল কিছুই হয়নি বলে সে এত হাসিখুশি এত বেপরোয়া । তাই লোকে বলে এই প্রদীপ কুমারের খুটির জোর অনেক উপরে! ভারতের উন্নয়ন মানে আমাদের উন্নয়ন আর আমাদের উন্নয়ন মানে ভারতের উন্নয়ন এমন কথা শুনে নিশ্চয় প্রদীপ বাবুও খুশি হয়েছেন । পেপার টিভি ও সামাজিক মাধ্যমে তার অত্যাচারের কাহিনী দেখে ও পড়ে ৭১ -এ লক্ষ লক্ষ শহীদের কাছে লজ্জিতবোধ করছি ।

সরকারী বন্দুক ব্যবহার করে জনগণকে ভয় দেখিয়ে অর্থ উপার্জনই এমন অনেকেরই পেশা ও নেশা । মানুষকে অত্যাচার নির্যাতন করা জেলে দেওয়া এবং মানুষ হতে চাঁদা আদায়ের হিসাব দেখে বলতে মন চায় মানুষ শান্তিতে নেই এই স্বাধীন দেশে। হে আম জনতা বলুন আমরা রক্তের সাগর পাড়ি দিয়ে চিনিয়ে এনেছি বাংলাদেশ । এমন হাজারো আলোহীন প্রদীপের জন্য নয়।

মন্তব্য ৩১ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৩১) মন্তব্য লিখুন

১| ০৯ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:০৪

রবিন.হুড বলেছেন: সবাই মিলে এই অন্ধকার জগতের গডফাদারদের শিকড় উপড়ে ফেলতে হবে।

০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:২৩

নেওয়াজ আলি বলেছেন:
মনে হয় কখনো সম্ভব হবে না। এদের শিকড় অনেক গভীরে।

২| ০৯ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:০৮

পগলা জগাই বলেছেন: এরা চুনোপুটি। সারা শরীরই পঁচে গেছে।

০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:২৪

নেওয়াজ আলি বলেছেন: একদম ঠিক বলেছেন

৩| ০৯ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:১৬

প্রবালরক বলেছেন: ল্যাম্প পোষ্টের সাথে মাথা পিটিয়ে নির্দোষ ছাত্র রুবেলকে মেরে ফেলেছিল একজন ওসি আকরাম। খুব হৈ চৈ হয়। ওসি আকরামের ফাঁসী দাবী করে সামাজিক আন্দোলনের মতও হয়॥ ওসির বিরুদ্ধে মামলা হয়। সেই মামলার গতি কি হয় আর কেউ কিছু জানেনা। সাংবাদিকেরাও জানেনা।
কেউ কি জানেন সেই ওসি আকরাম এখন কোথায়!

০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:২৭

নেওয়াজ আলি বলেছেন: প্রদীপের হাবভাব দেখে মনে হয় তার কিছুই হবে না । সে চিন্তাই করে না । সে অনেক ক্ষমতাবান

৪| ০৯ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:৫৩

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
সরকারী কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের লাগামহীন দূর্নীতির জন্য রাজনৈতিক নেতাদের ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে।
এখানে তারা পারস্পরিক আন্তঃক্রিয়া সম্পাদিত হওয়ার পর লাভবান হয়।

০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:৩১

নেওয়াজ আলি বলেছেন: সব দলই এমন । নেতা এদের দিয়ে কামাই করে

৫| ০৯ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪১

ঢুকিচেপা বলেছেন: ভালই লিখেছেন, দেখা যাক সামনে কি হয়।

০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:৩২

নেওয়াজ আলি বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে । ধৈর্য্য ধরতে হবে

৬| ০৯ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৬

সাইন বোর্ড বলেছেন: প্রদীপ একা নয়, এ বানিজ্যের সাথে জড়িত আছে অনেকেই । প্রদীপের ড্রয়ারে লিস্ট পাওয়া গেছে ।

০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:৩৪

নেওয়াজ আলি বলেছেন: দেখেছি খবরে । ওর হাত অনেক লম্বা

৭| ০৯ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৭

শেরজা তপন বলেছেন: ভাল লিখেছেন- ধন্যবাদ।

০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:৩৫

নেওয়াজ আলি বলেছেন: শুকরিয়া ভাইজান।

৮| ০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:০৪

রাজীব নুর বলেছেন: এই অপরাধের বিচার অবশ্যই হবে। হবেই।

০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:৩৬

নেওয়াজ আলি বলেছেন: আশা করি হবে তবে ধৈর্য্য ধরতে হবে।

৯| ০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ১০:০৪

আকন বিডি বলেছেন: রতনে রতন চিনে, সহায়তাও করে পরস্পরকে। যুগলবন্দী। এটি চলতে থাকবে।সমাধান চিরতরে এদের এলিমিনেশন অথবা দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা।

০৯ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ১০:১০

নেওয়াজ আলি বলেছেন: তবে এইসব লিখে ভয়ে থাকতে হয় এদের হাত অনেক উপরে। ধৈর্য্য ধরতে হবে বিচারের জন্য।

১০| ১০ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ১২:৩৫

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: পাপ কানায় কানায় পূর্ণ হলে এমনটাই হবে ।
....................................................................
যে ১৪০ জনকে ক্রশ ফায়ার দিয়েছে , কে তাকে সেই
অধিকার দিলো জানা দরকার ।
বিনা বিচারে মানুষ হত্যার অনুমোদন যারা দিয়েছে,
তাদের ও একই শাস্তি পাওয়া উচিত ।

১০ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ১২:৫৮

নেওয়াজ আলি বলেছেন: Click This Link

১১| ১০ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ১:৫৭

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: বিদ্যুৎ উৎপাদন তো অনেকগুন্ বেড়েছে, কিন্তু তারপরও এরকম আলোহীন আঁধারে ঢেকে আছে কেন বাংলাদেশ ? =p~

১০ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ২:৪৫

নেওয়াজ আলি বলেছেন: প্রদীপ স্যারেরা বিদ্যুৎ পছন্দ করে না ।

১২| ১০ ই আগস্ট, ২০২০ ভোর ৬:২৯

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: ফুড চেইনের নিম্ন স্তরের খাদক হচ্ছে প্রদীপ। পিরামিডের উপরের লেভেলের খাদকগুলোকে ধরতে না পারলে দেশে লোডশেডিং আরো বাড়বে এবং চরম আলোহীনতায় প্রবেশ করবে বাংলাদেশ।

১০ ই আগস্ট, ২০২০ দুপুর ১২:২৬

নেওয়াজ আলি বলেছেন: ঠিক বলেছেন । তবে প্রদীপের উপরে প্রদীপ লাইনের লোক তার উপরে পলিটিক্স । যারা বাড়ি গাড়ি ও পরিবার বিপদে রাখে । ধরার ক্ষমতা আম পাবলিকের নাই ক্যা।

১৩| ১০ ই আগস্ট, ২০২০ সকাল ৭:১৬

ককচক বলেছেন: পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেওয়া যায় এমন প্রতিষ্ঠান তৈরি করা দরকার। সমস্যা হলো, দেশের সব প্রতিষ্ঠান দুর্নীতির সাথে যুক্ত। সব পচে নষ্ট হয়ে গেছে।
উপর থেকে নিচ পর্যন্ত।

১০ ই আগস্ট, ২০২০ দুপুর ১২:২৮

নেওয়াজ আলি বলেছেন: মজার কথা পুলিশের বিরুদ্ধে তদন্ত পুলিশ করে । মজাই মজা।

১৪| ১০ ই আগস্ট, ২০২০ দুপুর ১:২৯

দেশ প্রেমিক বাঙালী বলেছেন: সব গুরুত্বপূর্ণ জায়গাতে প্রদীপদের মতো অনেক প্রদীপ জ্বলজ্বল করে জ্বলছে; দুহাতে লুটেপুটে কামাচ্ছে, চাকুরী শেষ সবনিয়ে নিজভুমে পারি জমাচ্ছে।





দূর্ভাগ্যজনক বর্তমান সরকার এইসব প্রদীপদের হাইলাইট করছে ফলে রেমিট্যান্সে অর্জিত সমস্ত ডলার ভারতে পাচার হচ্ছে।

১০ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৩:৩৬

নেওয়াজ আলি বলেছেন: ওসি প্রদীপকে নিয়ে ফেনীর সোনাগাজী ও ফুলগাজীর সাবেক ওসি হুমায়ুন কবির তার ফেইজ বুক ওয়ালে দারুন এক খোলা চিঠি লিখেছেন। এতে তিনি এক সৎ পুলিশ অফিসারের পরিচয় দিয়েছেন।মুখ খুলেছেন ওসি প্রদীপের কিছু প্রাসঙ্গিক কথা।
পুলিশ বাহীনির নিজের স্বার্থে এসবের উত্তর জানা দরকারঃ–
★১৬ অক্টোবর,২০১৮ তারিখে ফেনীর ফুলগাজী থানার ওসির দায়িত্বে থাকা এক অফিসার অব্যহতি চেয়ে অন্য যে কোন জেলায় বদলীর প্রার্থনা করে বর্তমান ডিআইজি, চট্টগ্রাম রেঞ্জ, চট্টগ্রাম বরাবর দাখিলকৃত আবেদন পেয়ে স্যার সরাসরি ঐ অফিসারকে ফোন করে জানতে চান–কোন কোন পুলিশ সুপারের অধীনে তিনি ওসি’র দায়িত্ব পালন করেছেন? ৪ জন পুলিশ সুপারের নাম বললে ডিআইজি মহোদয় সকলের সাথে কথা বলেন, একই সময়ে কক্সবাজারের পুলিশ সুপারের সাথেও। আলোচনার পর Assignment দিয়ে টেকনাফ থানার উদ্দেশ্যে কক্সবাজার বদলীর আদেশ করেন ডিআইজি মহোদয়। যে সন্ধ্যায় বদলীর আদেশটি করেন, ঠিক সে সন্ধ্যায় বর্তমান এসপি কক্সবাজার প্রদীপকে মহেশখালী থেকে টেকনাফে বদলীর আদেশ পাঠানোর আগেই রাতারাতি টেকনাফ থানায় যোগদান করান।
পরদিন যাচাই করে বদলী করা অফিসারটি কক্সবাজারে যোগদান করে এসপি’র কাছ থেকে যা যা আচরণ পেয়েছিলেন তা সে প্রত্যাশা করেনি কখনো। উর্ধ্বতনে নালিশ করেও সুফল আসেনি বরং তার চোখের সামনে নেমে এসেছিল অমানিশার অন্ধকার। কক্সবাজারের পরবর্তী দিনগুলো কাটাতে হয়েছিল তাকে অমানসিক অসহনীয় যন্ত্রণার মধ্য দিয়ে। অবশেষে মুক্তি মেলে রেঞ্জ অফিসের ছোট্ট একটি বদলীর মধ্য দিয়ে। তবে মনটা ভেঙ্গে গেছে তার। চাকুরী করার মানসিকতাও পুরোপুরি সঞ্চয় করতে কষ্ট হচ্ছে ঐ অফিসারের।
★ ২২ মাস আগে টেকনাফ থানায় ওসি হিসেবে যোগদান করার কথা ছিল কার?
★ কাদের আশির্বাদে প্রদীপের রাতারাতি নাটকীয়ভাবে মহেশখালী হতে টেকনাফে যোগদান?
★তার চাকুরীর খতিয়ান কার অজানা আছে?
★ এসআই থেকে ইন্সপেক্টর পর্যন্ত প্রদীপ কতবার কক্সবাজারে?
★ শুধু কক্সবাজার-সিএমপি-কক্সবাজার কেন হবে তার চাকরীর ক্ষেত্র?
★কক্সবাজার ও সিএমপিতে এক প্রদীপ কতবার ডুবিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশের ইমেজকে?
★ সাধারন জনগন যা জানেন তা কি তার উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের অজানা ছিল?
এ বাহিনীর স্বার্থে বাহিনীকেই জানতে হবে এসব প্রশ্নের উত্তর।

১৫| ১০ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:০৫

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: নতুন ওসির চেহারা তো ভয়ঙ্কর। বাংলাদেশের পুলিশ বাহিনী বিলুপ্ত করে নতুন করে না গড়লে কোনও পরিবর্তন হবে না।

১০ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:২৩

নেওয়াজ আলি বলেছেন: Ha ha ha

১৬| ১১ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৩:২৭

অন্তরা রহমান বলেছেন: পুরো ঘটনাটাই রহস্যের চাদরে ঘেরা।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.