নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সবাই যখন নীরব, আমি একা চীৎকার করি \n--আমি অন্ধের দেশে চশমা বিক্রি করি।\n

গিয়াস উদ্দিন লিটন

গিয়াস উদ্দিন লিটন › বিস্তারিত পোস্টঃ

\'\'হুমায়ূন আহমেদের চামড়া, তুলে নেব আমরা।\'\'

১৯ শে জুলাই, ২০১৬ সন্ধ্যা ৬:০৩




একজন লেখকের লেখার মান কে বা কারা বিচার করবে? কয়েকজন ‘সমালোচক’ নাকি কয়েক লক্ষ্য পাঠক?
এখানে কয়েক জন যখন তাঁর উপন্যাসকে ‘অপন্যাস’ বলছে আরেকদল তখন তাঁর বাড়ির সামনে গিয়ে তাঁরই সৃষ্ট কাল্পনিক চরিত্রের ফাঁসির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছে।

সারা দেশে বিক্ষোভ হচ্ছে ,’’হুমায়ূন আহমেদের চামড়া , তুলে নেব আমরা । বাকের ভাইর কিছু হলে, জ্বলবে আগুন ঘরে ঘরে।‘’

ঘটনাটা ‘কোথাও কেউ নেই’ নাটক প্রচার সময় কালের ।
নাটকের নায়ক বাকের ভাই । এনটি সোশ্যাল ক্যারেকটার (দর্শকের দৃষ্টিতে হিরো)। সাথে দুই চেলা । মহল্লার প্রভাবশালী ‘কুত্তাওয়ালী’ তার পরিচালিত প্রাইভেট ব্রথেল ব্যবসা নির্বিঘ্ন করতে অন্যায় ভাবে বাকের ভাইকে খুনের মামলায় ফাঁসীয়ে দেয় । শেষ পর্বের কয়েক পর্ব আগে বাকের ভাইএর এক চেলা বদি (আব্দুল কাদের , বহুজাতিক কোম্পানি বাটা’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা) ভয় ভীতির কারণে রাজসাক্ষী হয়ে বাকের ভাইর বিরুদ্ধে সাক্ষী দেয় । দর্শক হতাশ , তারা অনেকটা নিশ্চিত হয়ে যায় বাকের ভাইর ফাঁসি হয়ে যাবে । এর পরেই ঘটতে থাকে উপরোক্ত ঘটনাগুলি ।

বাকের ভাইয়ের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেয়ায় রাস্তায় গণপিটুনির শিকার হন আব্দুল কাদের । অল্পের জন্য তিনি প্রাণে রক্ষা পান । বহু দিন তাঁকে পুলিশ প্রোটেকশনে চলতে হয়েছে ।

শেষ পর্ব প্রচারের দিন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ হুমায়ুন আহমেদের নিরপত্তা জোরদার করে । খারাপ কিছুর আশংক্ষায় তাঁকে গোপনে সরিয়ে নেয়া হয় অন্য বাসায় ।

রাত ৮টা ৪৫ মিনিট । সারা বাংলাদেশ বাংলাদেশ টেলিভিশনের সামনে । শেষ পর্যন্ত ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ফাঁসি হয়ে যায় বাকের ভাইর । সারা দেশে শোকের মাতম উঠে । উন্মত্ত দর্শক হামলা চালায় হুমায়ুন আহমেদের বাড়িতে । তারা ককটেল আর হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটায় ।
দেশের বিভিন্ন স্থানে রীতিমত গরু জবাই করে বাকের ভাইয়ের কুলখানি করা হয় ।

এ নজীর পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল । কত বড় মাপের লিখক হলে একজন লিখক তাঁর সৃষ্ট চরিত্রের সাথে সারা দেশকে একাত্ম করে ফেলতে পারেন তার দৃষ্টান্ত হুমায়ুন আহমেদ ।

তাঁর লিখা যতটুকু পড়েছি-যতটুকু জেনেছি...শুধু একটা কথাই বলতে পারি, সাহিত্যাকাশে হুমায়ুন নক্ষত্রের যে দীপ্তি তা অন্য যেকোন লেখিয়ের মনে হিংসার উদ্রেক করার জন্য যথেষ্ট।

• হুমায়ুন আহমেদের কয়েকটি উৎসর্গপত্রে তার মৃত্যু চিন্তা পরিস্ফুট হয়েছে -

"চলে যায় বসন্তের দিন" উৎসর্গ করা হয়েছে মেহের আফরোজ শাওনকে। (তখনো তারা পরিণয়সূত্রে আবদ্ধ হন নাই।) উৎসর্গপত্রে লেখা :

"আমার একটি খুব প্রিয় গান আছে, গিয়াসউদ্দিন সাহেবের লেখা 'মরণ সঙ্গীত'- 'মরিলে কান্দিস না আমার দায়।' প্রায়ই ভাবি আমি মারা গেছি, শবদেহ বিছানায় পড়ে আছে, একজন কেউ গভীর আবেগে গাইছে- 'মরিলে কান্দিস না আমার দায়।' 'নক্ষত্রের রাত' নামের ধারাবাহিক নাটকের শ্যুটিং ফ্লোরে আমি আমার ইচ্ছা প্রকাশ করলাম। এবং একজনকে দায়িত্ব দিলাম গানটি গাইতে। সে রাজি হলো। উৎসর্গপত্রের মাধ্যমে তাকে ঘটনাটি মনে করিয়ে দিচ্ছি। আমার ধারণা সময় এসে গেছে।

"দেখা না-দেখা" গ্রন্থটি উৎসর্গ করেন তাঁর পুত্র নিষাদকে । উৎসর্গ বাণীটি এরকম:

"নিষাদ হুমায়ূন, তুমি যখন বাবার লেখা এই ভ্রমণ কাহিনী পড়তে শুরু করবে তখন আমি হয়তোবা অন্য এক ভ্রমণে বের হয়েছি। অদ্ভুত সেই ভ্রমণের অভিজ্ঞতা কাউকেই জানাতে পারব না। আফসোস!"

কিংবদন্তী এই লিখকের আজ চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী । তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি ।


মন্তব্য ৮৭ টি রেটিং +১৭/-০

মন্তব্য (৮৭) মন্তব্য লিখুন

১| ১৯ শে জুলাই, ২০১৬ সন্ধ্যা ৬:৩৯

প্রামানিক বলেছেন: বাকের ভাইয়ের কথা মনে করিয়ে দিলেন। সেই নাটকের পুরো কাহিনীই চোখে ভাসতে লাগল। ধন্যবাদ লিটন ভাই।

১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৯:০৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: প্রামানিক ভাইকে ব্লগে দেখে ভাল লাগছে ।
আপনার সুস্বাস্থ্য কামনা করছি ।

২| ১৯ শে জুলাই, ২০১৬ সন্ধ্যা ৬:৪২

মোঃ মঈনুদ্দিন বলেছেন: প্রয়াত বরেণ্য অমর কথা সাহিত্যিক, বাংলা সাহিত্যের ভিন্ন ধারার নির্মাতা শ্রদ্ধেয় হুমায়ুন আহমেদ কে অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। আমি প্রিয় লেখকের অসংখ্য বই পড়েছি। তাঁর পরিচালিত নাটক, চলচ্চিত্র দেখেছি। প্রত্যেকটি কর্মই তাঁর অনন্যসাধারণ। হিমু ও মিসির আলী নামক দুই অমর সৃষ্টিও তাঁর। আমি সর্বপ্রথম উনার লেখা নাটক "অয়োময়" দেখেছিলাম বিটিভিতে। সে এক অসাধারণ নাটক! তাছাড়া, "কোথাও কেউ নেই" নাটকটি প্রথমে পড়েছিলাম তবে যখন টিভিতে দেখি তখনকার কথাতো আপনি লিখেইছেন। বাকের ভাইয়ের জন্য কুলখানীও হয়েছিল। রামপুরাস্থ টিভি ভবন ঘেরাও করে বিক্ষোভ ও হয়েছিল বাকের ভাইয়ের ফাঁসি আটকাতে। কিন্তু, লেখক হুমায়ুন আহমেদ বাকের ভাইকে ক্ষমা করেননাই। উহ্‌ ! সেই দিনকার কথা মনে পড়লে!
ভালো লাগলো আপনার লিখাটি পড়ে।লেখক হিসেবে বাংলা সাহিত্যের এক অপরাজেয় লেখক প্রয়াত হুমায়ুন আহমেদ। আমি মরহুমের আত্মার জন্য শান্তি কামনা করছি।

১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৯:১০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: বাকের ভাইয়ের জন্য কুলখানীও হয়েছিল। এটা পত্রিকায় দেখেছিলাম , লিখতে ভুলে গেছি ।
মনে করিয়ে দেয়া ও সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ মোঃ মঈনুদ্দিন ভাই ।

৩| ১৯ শে জুলাই, ২০১৬ সন্ধ্যা ৭:২৭

গাজী বুরহান বলেছেন: "দ্বারুচিনি দ্বীপ" আমার দেখা বেস্ট বাঙলা মুভি।

১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৯:৫৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আমার কাছেও ভাল লেগেছিল ছবিটা ।

৪| ১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:০২

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: এ নজীর পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল । কত বড় মাপের লিখক হলে একজন লিখক তাঁর সৃষ্ট চরিত্রের সাথে সারা দেশকে একাত্ম করে ফেলতে পারেন তার দৃষ্টান্ত হুমায়ুন আহমেদ ।

অতুলনীয়।

"নিষাদ হুমায়ূন, তুমি যখন বাবার লেখা এই ভ্রমণ কাহিনী পড়তে শুরু করবে তখন আমি হয়তোবা অন্য এক ভ্রমণে বের হয়েছি। অদ্ভুত সেই ভ্রমণের অভিজ্ঞতা কাউকেই জানাতে পারব না। আফসোস!"

সত্য অনুভব খুবই সত্য।

১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ১০:০০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ভৃগু ভাই ।

৫| ১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:০৬

অগ্নি সারথি বলেছেন: বাস্তবিক এ নজীর পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল ।

১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ১০:০২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ জানবেন সারথি ভাই

৬| ১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:১৪

পুলহ বলেছেন: "আমার একটি খুব প্রিয় গান আছে, গিয়াসউদ্দিন সাহেবের লেখা..."-- হুমায়ূন স্যারও আপনার লেখার ভক্ত ছিলেন নাকি ভাই, হা হা...
প্রিয় লেখককে নিয়ে লেখবার, তাকে স্মরণ করার জন্য ধন্যবাদ। তাঁর স্টাইলেই বলি- যে ভালোবাসা আপনি তাকে দেখিয়েছেন, তার বহুগুণ ভালোবাসা যেনো পরম করুণাময় আপনাকে ফেরত দেন- সে প্রার্থনাই করি!

১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ১০:০৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: একই ভাষায় আমিও বলি '' যে ভালোবাসা আপনি আমাকে দেখিয়েছেন, তার বহুগুণ ভালোবাসা যেনো পরম করুণাময় আপনাকে ফেরত দেন- সে প্রার্থনাই করি! ''

৭| ১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:৩০

নিরাপদ দেশ চাই বলেছেন: হুমায়ুন আহমেদ শুধু দারুন কিছু উপন্যাসই শুধু লিখেনি। অনুসরন করার মত কিছু চরিত্র তিনি তরুন্দের সামনে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছিলেন। নির্মোহ, নির্লোভ এবং পরপোকারি হিমু, বিজ্ঞানুরাগী এবং সত্যের সন্ধানী মিসির আলী এবং প্রচন্ড মানবিক গুনাবলীর অধিকারী শুভ্র। এই চরিত্রগুলোর তরুন সম্প্রদায়ের মধ্য খুবই প্রভাব বিস্তার করতে সমর্থ হয়েছিল সেই সময়ে।

১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ১০:১১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ''হুমায়ুন আহমেদ শুধু দারুন কিছু উপন্যাসই শুধু লিখেনি। অনুসরন করার মত কিছু চরিত্র তিনি তরুন্দের সামনে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছিলেন''
সঠিক বলেছেন দেশ ভাই ।

৮| ১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:৪০

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: শাওনকে উৎসর্গটা পাওয়ার পর যেটা খুঁজতেছিলাম সেটা পেয়ে গিয়েছি। আপনিও আমার টাইপের!
নিষাদ হুমায়ূন, তুমি যখন বাবার লেখা এই ভ্রমণ কাহিনী পড়তে শুরু করবে তখন আমি হয়তোবা অন্য এক ভ্রমণে বের হয়েছি। অদ্ভুত সেই ভ্রমণের অভিজ্ঞতা কাউকেই জানাতে পারব না। আফসোস!

১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ১০:১৬

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ বিমাতা আমার !

৯| ১৯ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ১০:২০

সাহসী সন্তান বলেছেন: শিরোনাম দেখে তো আমি প্রথমে টাস্কি খাইছিলাম লিটন ভাই! হুমায়ুন আহমেদ আমার খুবই প্রিয় একজন লেখক! শুধু আমার কেন বলছি, গোটা বাংলাদেশেরই সাহিত্য পাগল ব্যক্তিদের কাছে হুমায়ুন চিরঞ্জিব হয়ে থাকবেন আজীবন!

প্রিয় লেখকের মৃত্যুবার্ষিকীতে গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলী! সেই সাথে পোস্টের জন্য আপনাকেও ধন্যবাদ!
শুভ কামনা রইলো!

২০ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ৯:৩৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: গোটা বাংলাদেশেরই সাহিত্য পাগল ব্যক্তিদের কাছে হুমায়ুন চিরঞ্জিব হয়ে থাকবেন আজীবন!
সুন্দর বলেছেন । ধন্যবাদ রইল সাস ভাই ।

১০| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ১২:০৭

অশ্রুকারিগর বলেছেন: হুমায়ুন আহমেদ আমাকে বই পড়া শিখিয়েছিলেন। শ্রদ্ধাচিত্তে স্মরণ করছি প্রিয় লেখককে।

২০ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ১০:১৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: উনার আগে মধ্যবিত্তদের জীবন ঘনিষ্ঠ লিখা খুব কম হয়েছে । তাই পাঠক মনে করতো এটা তাদেরই আশ পাশের ঘটনা ।

১১| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ১২:১৫

আমি তুমি আমরা বলেছেন: অভিনেতা আব্দুল কাদের গণপিটুনির শিকার হয়েছিলেন-জানা ছিল না।

পোস্টে ষষ্ঠ ভাল লাগা :)

২০ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ১০:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আমি তুমি আমরা ।

১২| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ৭:০৮

কি করি আজ ভেবে না পাই বলেছেন: আমি তখন হুমায়ুন আহমেদের প্রতিবেশী।এ্যালিফেন্ট পার্কের পাশেই আমাদের বাসা।নিজের চোখে দেখেছি প্রতিবাদের সেই ভয়াবহ রূপ।ট্রাকে ট্রাকে মানুষ এসে জড়ো হয়েছে বাড়ীর সামনে।হাতিরপুল-এ্যালিফেন্ট রাস্তা বন্ধ।চারিদিকে থমথমে পরিস্থিতি।কিশোরীয় উত্তেজনায় কৌতুহলে ফেটে মরছি।তার উপড় সোনায় সোহাগা স্কুলে যাওয়া হচ্ছেনা।খুশী আর ধরেনা।হঠাৎ শুরু হলো ইটা-পাটকেল বৃষ্টি।একটা এসে পড়লো পাশের জানালায়।ঝনঝন ঝনঝন।বারান্দা থেকে দৌড়ে সব ভিতরের রুমে।সারাদিন ঐভাবেই।বাইরে এতো মজা অথচ বড়দের ধমকে ভিতরের রুমে বন্দি,পৃথিবীতে এর চেয়ে দুঃসহ আর কিছুই হতে পারেনা।শুধু কিছুক্ষন পরপর হুল্লোর শুনতে পাচ্ছি।সত্যিই সে এক সময় গেছে মাইরি।এই একটি ঘটনাই বলে দেয় তিনি কোন স্তরের লেখক।খুব কম লেখকই জীবনে এই তুঙ্গস্পর্ষী জনপ্রিয়তা দেখে যেতে পারেন।

খুব ইচ্ছা ছিলো হুমায়ুন স্যারের সাথে দেখা করার।সামনাসামনি কিংবা দুর থেকে দেখেছি অনেকবার কিন্তু কথা বলা হয়নি কখনো।একবারতো লিফটেই পেয়ে গেছিলাম কিন্তু উত্তেজনায় সালাম ছাড়া মুখ থেকে কোন শব্দ আর বেরুয়নি।আফসোসে পরে মাথার চুল টেনে ছিড়েছি।আর হলোনা................হলোইনা।গোদের উপড় বিষফোঁড়া হলো স্কুলফ্রেন্ড এবং জানিদোস্ত (বন্ধুমহলে আমরা হরিহর আত্মা বলে পরিচিত ছিলুম) অনিমেষ আইচ স্যারের গল্প নিয়ে ডিরেকশন শুরু করেছে।অমা!! একদিন দেখি স্যার শালারে একটা বইও উৎসর্গ করে ফেলেছেন।হিংসেয় জ্বলে পুড়ে মরি।এই একটা দিকে ব্যাটার কাছে সারাজীবন ছোট হয়েই কাটাতে হবে আমায়।এই দুঃখ কৈ রাখি? /:) B:-/

স্যারের বিদেহি আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।তিনি যেমন তার লেখনী দিয়ে আমাদের আনন্দ দিয়েছেন মহান স্রষ্টা যেনো তার হাজার গুণ তাকে পরকালে ফিরিয়ে দেন।না না............লক্ষ কোটি গুণ,কিংবা আরো বেশী।তিনিতো অভাবমুক্ত,অসীম।

২০ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১:০৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: চমৎকার মন্তব্য , চমৎকার কামনা- স্যারের বিদেহি আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।তিনি যেমন তার লেখনী দিয়ে আমাদের আনন্দ দিয়েছেন মহান স্রষ্টা যেনো তার হাজার গুণ তাকে পরকালে ফিরিয়ে দেন।না না............লক্ষ কোটি গুণ,কিংবা আরো বেশী।তিনিতো অভাবমুক্ত,অসীম।
আমীন ।

১৩| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ৮:৫৮

শামছুল ইসলাম বলেছেন: চমৎকার ও সঠিক মূল্যায়ন:

//তাঁর লিখা যতটুকু পড়েছি-যতটুকু জেনেছি...শুধু একটা কথাই বলতে পারি, সাহিত্যাকাশে হুমায়ুন নক্ষত্রের যে দীপ্তি তা অন্য যেকোন লেখিয়ের মনে হিংসার উদ্রেক করার জন্য যথেষ্ট।//

ভাল থাকুন। সবসময়।

২০ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৪:৪৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনিও ভাল থাকুন শামছুল ইসলাম ভাই

১৪| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ৯:৪১

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: কোথাও কেউ নেই নাটক যখন প্রচার হত তখন আমি খুব ছোট তবে মনে আছে ওউ দিন আব্বু অফিস থেকে তাড়াতাড়ি ফিরে এসেছিলেন । আর বলছিলেন আজ বাকের ভাইয়ের ফাসি হবে শহরে মিছিল হচ্ছে।

২০ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:৪১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মোস্তফা সোহেল , সেদিন নাকি সারা দেশের শহর গুলি ছিল নিস্তব্দ !

১৫| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১২:২৭

রানার ব্লগ বলেছেন: তখন আমি হয়তোবা অন্য এক ভ্রমণে বের হয়েছি। অদ্ভুত সেই ভ্রমণের অভিজ্ঞতা কাউকেই জানাতে পারব না। আফসোস!"

২০ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:৫০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: কঠিন বাস্তবতার কি চমৎকার প্রকাশ ঘটিয়েছেন তিনি । ধন্যবাদ রানা ভাই ।

১৬| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১২:৪৬

মিঃ অলিম্পিক বলেছেন: দারুন আমিও খুব ফেন....

২০ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:৫১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আমিও !!! অনেক ধন্যবাদ মিঃ অলিম্পিক ।

১৭| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১:৩৭

হাসান মাহবুব বলেছেন: অবিশ্বাস্য সব পাগলামীর জন্মদাতা। লাভ ইউ হুমায়ূন আহমেদ।

২০ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:৫৮

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালাও বলতে পারেন মাহবুব ভাই ।

১৮| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১:৩৯

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন: প্রথমে আমি তাকে পছন্দ করতাম না কিন্তু পরের তার সকল কিছু আস্তে আস্তে পর্যবেক্ষণ করে দেখলাম।।
সত্যিই তিনি অনেক মেসেজ দিয়ে গেছেন।। প্রথমে আমি যেমন ঠিক তেমনি এখনো অনেকেই বুঝেনা তাকে।।।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ১০:৫৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আমি প্রথম পড়ি দেবী । তখন বইগুলির এখনকার মত হার্ড কভার ছিলনা , ছিল পেপার ব্যাক কভার । এর পর শুরু ----
সুন্দর মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ শাহরিয়ার কবীর ।

১৯| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ২:২০

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: বাকের ভাই নাটক দেখতে গিয়ে কত কেঁদেছি

মনে করে দিলেন আবার
সুন্দর পোষ্ট

২১ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ১১:০৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: বাকের ভাই ছিলেন যেন দর্শকের আপনার চেয়ে আপন । ধন্যবাদ কাজী ফাতেমা ।

২০| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ২:৪১

ছাসা ডোনার বলেছেন: ভাই বাকের ভাইয়ের ফাঁসির পর সারা রাত কেঁদেছি, ঘুমাতে পারি নি। নিজেকে কোনভাবেই বুঁঝাতে পারি নাই এটা নাটক। বার বার মনে হয়েছে হুমায়ুন স্যার তো এই নাটকের শেষ অন্যভাবে করতে পারতেন। যাইহোক উনার অসম্ভব এই ক্ষমতার জন্য উনি সবার কাছে এত প্রিয়। প্রান ঢালা শ্রদ্ধা এবং দোয়া রইল স্যার আপনার জন্য। আল্লাহ আপনাকে বেহেশত নসীব করুন।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ১১:৪৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: নির্দোষ ব্যক্তিকে অপরাধী সাব্যাস্ত করার ঘটনা আমাদের সমাজে অহরহ ঘটে । তাই লিখক শত চাপেও উনার লিখার স্ক্রিপ পালটাননি । এখন অবস্থা আগের চেয়েও ভয়াবহ ।
সুন্দর মন্তব্য করায় ধন্যবাদ ছাসা ডোনার ।

২১| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৩:০২

কল্লোল পথিক বলেছেন:




হুমায়ুন আহমেদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি ।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ১১:৫০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আমিন ।
অনেক ধন্যবাদ কল্লোল পথিক ।

২২| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৩:১৭

কি করি আজ ভেবে না পাই বলেছেন: আরেকটা ঘটনা শেয়ার করতে ভুলে গেছি....................
সাক্ষী গোপাল বদির উপড় প্রতিশোধের আগুনে জ্বলছি।একদিন এলো সেই মাহেন্দ্র'খন।কোন এক কাজে দেখি তাঁকে হেডস্যারের রুমের বাইরে অপেক্ষা করছেন।হয়তো ভর্তির ব্যপারে এসছেন।সবে মাত্র টিফিন পিরিয়ড শুরু।আজকাল কি করি ভেবে না পেলেও সেই আমলে সুমায় মতনই ভেবে পেতুম।গেলুম পিছে,নিখুঁত দক্ষতায় তার দামী স্যুটের পিছে একদলা কফ মাখা থুথুর অটোগ্রাফ দিয়ে ভালামানুষি হাঁটা শুরু। =p~ =p~

ভাবছেন তারপর কি হলো?
ক্যামনে কমু?দেখা হলে তারেই জিগাইয়েন। :-B

(প্রিয় বাকের ভাই,যেখানেই থাকো জেনো তোমার মৃত্যুর প্রতিশোধ আমি নিয়েছি।) ;)

২০ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:৩৫

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: এক্কেরে কঠিন প্রতিশোধ । =p~ =p~ =p~

২৩| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৩:৫৫

রমিত বলেছেন: সুন্দর লিখেছেন।
হুমায়ুন আহমেদ-এর 'নন্দিত নরকে' পড়ে অভিভূত হয়েছিলাম।
আবেগ আপ্লুত হয়েছিলাম উনার রচিত 'সবাই গেছে বনে' পড়ে।
সেই যে হুমায়ুন ভক্ত হলাম, আর নড়লাম না। উনার রচিত 'ইরিনা' সায়েন্স ফিকশনটি কতবার যে পড়েছি নিজের কাছেই হিসাব নেই। মন খারাপ হলেও ওটা পড়তাম।
কি নিয়ে লেখেন নি বলেন তো? প্রেম, ফিলোসফি, সামাজিক দোষ-ত্রুটি-জটিলতা, সায়েন্স ফিকশন, মুক্তিযুদ্ধ, সাইকোলজি, কৌতুক, কবিতা, গান, নাটক, সিনেমা, আরো কত কিছু! আমাদের আজকের বাংলাদেশের কালচারের কিছু এলিমেন্ট-ও উনার তৈরী করা।
শক্তিমান ও জনপ্রিয় এই লেখককে স্যালুট।
উনাকে নিয়ে আমারও কিছু লেখা আছে
অতি দূর থেকে দেখা একজন হুমায়ুন আহমেদ Click This Link
নন্দিত নিবাস Click This Link

২০ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:৫৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার প্রায় লিখায় আমি পড়েছি বা পড়ি ।
আমার ব্লগে আপনার উপস্থিতি আমার কাঙ্ক্ষিত ছিল । আজ এলেন , অনেক ভাল লাগছে ।
অনেক শুভ কামনা জানবেন শ্রদ্ধেয় ।

২৪| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৪:৩৭

মুহাম্মদ জহিরুল ইসলাম বলেছেন: একজন হুমায়ূন আহমেদ, হয়ত আর কখনো পাব না আমরা এমন কাউকে... :|

২০ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:৫৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ মুহাম্মদ জহিরুল ইসলাম ।

২০ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:৫৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ মুহাম্মদ জহিরুল ইসলাম ।

২৫| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:৪৪

নীলপরি বলেছেন: খুব সুন্দর করে লিখেছেন ।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১২:১১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ নীলপরি ।

২৬| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ সন্ধ্যা ৬:০৩

রূপক বিধৌত সাধু বলেছেন: অনেক লেখা পড়েছি হুমায়ুন আহমেদ এর । তবে আমি তাঁর সিনেমা, নাটকের অন্ধ ভক্ত! সিনেমাগুলো তো দেখেছিই, বেশিরভাগ নাটকও দেখে ফেলেছি (ধারাবাহিকের মধ্যে যেমন উড়ে যায় বক পক্ষি, অয়োময়, আজ রবিবার) । এই তো সেদিন ইউটিউব এ তাঁর "কোথাও কেউ নেই" নাটকটা দেখলাম । দেখে এই বয়সেও কাঁদতে হয়েছে । বাকের ভাইয়ের জন্য অসম্ভব রকমের খারাপ লেগেছিলো, খারাপ লেগেছিলো মুনা, মজনুর জন্যও । শ্রদ্ধা রইলো হুমায়ুন আহমেদ এর বিদেহি আত্মার প্রতি ।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১২:৫১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: তিনি যেমন কাঁদিয়েছেন ,তেমনি হাঁসিয়েছেনও । যার প্রকৃষ্ট উদাহরণ বহুব্রীহি । দেখছিলেন মনে হয় ।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ রূপক বিধৌত সাধু ।

২৭| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ সন্ধ্যা ৭:২৬

দিশেহারা রাজপুত্র বলেছেন:
শ্রদ্ধা রইল প্রিয় মানুষটার প্রতি। প্রিয় লেখকের প্রতি। শব্দের সাথে প্রেম তার কারণেই।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১২:৫৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ দিশেহারা রাজপুত্র ।

২৮| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ সন্ধ্যা ৭:২৬

দিশেহারা রাজপুত্র বলেছেন:
শ্রদ্ধা রইল প্রিয় মানুষটার প্রতি। প্রিয় লেখকের প্রতি। শব্দের সাথে প্রেম তার কারণেই।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১২:৫৫

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: :-B

২৯| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ সন্ধ্যা ৭:৩১

শায়মা বলেছেন: প্রিয় লেখকের জন্য ভালোবাসা আর কি করি ভেবে না পাই ভাইয়ার কমেন্টে ভালো লাগা!

আর তোমাকে অনেক অনেক থ্যাংকস গিয়াসভাইয়া।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১:০৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ভালোবাসা , ভালো লাগা আর থ্যাংকস এর জন্য অনেক ধন্যবাদ শায়মু ।

৩০| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ সন্ধ্যা ৭:৩৭

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: "নিষাদ হুমায়ূন, তুমি যখন বাবার লেখা এই ভ্রমণ কাহিনী পড়তে শুরু করবে তখন আমি হয়তোবা অন্য এক ভ্রমণে বের হয়েছি। অদ্ভুত সেই ভ্রমণের অভিজ্ঞতা কাউকেই জানাতে পারব না। আফসোস!"............প্রিয় এই লেখকের জন্য অন্তরের সবটুকু ভালোবাসা

২১ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১:০৮

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অসংখ্য ধন্যবাদ সাদা মনের মানুষ ।

৩১| ২০ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ১১:৩৩

মশিকুর বলেছেন:

ফেসবুকেই পড়েছি। চমৎকার লেখা। বাকের ভাইয়ের নাটক যখন চলছিল তখন মোটামুটি ছোট ছিলাম। তখন স্লোগান চলছিল 'বাকের ভাইয়ের ফাঁসি হলে টিভি ভাঙবো ঘরে ঘরে' -তখন ভাবতাম আমদের টিভি ভাঙবে ক্যান? তখনও নতুন টিভি ছিল আমাদের। তখন রীতিমত টিভি গিলতাম আমরা :)

শুভকামনা :)

২১ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:২৬

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: যে সময়ে পুরো এলাকায় দুতিনটার বেশি সাদাকালোর বেশি ছিল না , সে সময়ে টিভি ভাংতে চাওয়া চিন্তার বিষয় বৈকি !!! হাহাহাহাহ
আপনার জন্যও শুভ কামনা মশিকুর ভাই

৩২| ২১ শে জুলাই, ২০১৬ ভোর ৫:২২

কি করি আজ ভেবে না পাই বলেছেন: @শায়মাঃ প্রতিশোধে খুশিতো??? =p~ =p~ =p~

২১ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: =p~ =p~ =p~=p~ =p~ =p~

৩৩| ২১ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ৭:৪০

মাদিহা মৌ বলেছেন: হুমায়ূনের জগদ্বিখ্যাত এই মেগা সিরিয়ালগুলি দেখা হয়নি। গল্পগুলি তো পড়েছিই, সিরিয়ালগুলি দেখার জন্য জান বেরিয়ে যাচ্ছিল। তাই সবগুলি ডাউনলোড করালাম।
কাল শ্রাবণ মেঘের দিন দেখেছিলাম আবার। কী অসাধারণ এক পরিচালক যে ছিলেন!
শেষ দৃশ্যে কাঁদতে বাধ্য হয়েছি। আর শাওনও। অসাধারণ অভিনয় প্রতিভা তার। স্যারের সৃষ্ট মেয়ে চরিত্রগুলি খুব সহজেই ফুটিয়ে তুলতে জানতো।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:৩১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: তাঁর সৃষ্টি দেখে মানুষ যেমন কেঁদেছে , হেসেছেও প্রান খুলে ।
''তারা তিন জন'' এর কিছু সিক্যুয়াল আছে , দেখতে পারেন , হাসতে হাসতে চোখে পানি চলে আসবে ।
ধন্যবাদ জানবেন মাদিহা মৌ ।

৩৪| ২১ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ৯:৪৪

মোঃ সাইফুল্লাহ শামীম বলেছেন: আপনার পোস্ট তো ভালো লেগেছেই সাথে "ভেবে না পাই" ভাইয়ের স্মৃতিচারণও।
পোস্টে +++++++++

২১ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:৩৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: "ভেবে না পাই" তো একটা জিনিয়াস ! আমিও তার ভক্ত ।

৩৫| ২১ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১২:৫৩

মেহেরুন বলেছেন: অনেকদিন পর ব্লগে আসলাম। আপনার স্মৃতিচারণ লেখা পরে ভালো লাগলো।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:৪১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক দিন পর আপনাকে দেখেও খুব ভাল লাগছে , শুভ কামনা জানবেন মেহেরুন ।

৩৬| ২১ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১:৫২

গেম চেঞ্জার বলেছেন: হুমায়ুন স্যারকে ভালবাসি! :( :( খুব খুশি হতাম যদি উনি ১০০ বছর বাঁচতেন।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৮:৫০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: সময় পেলে উনি যে বাংলা সাহিত্যে উজাড় করে দিতেন এতে সন্দেহ নাই ।
অনেক ধন্যবাদ গেম ভাই ।

৩৭| ২১ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:৪১

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: খুব ভাল লাগল হুমায়ুন স্যারকে নিয়ে স্মৃতিচারণ । এ সাথে মন্তব্যগুলিতে স্যার সম্পর্কে বিজ্ঞ পাঠক কুলের অসাধারণ মুল্যায়ন গুলি খুবই ভাল লাগল । বিলম্বে এসে এ লিখা দেখায় লাভই হল অনেক বেশী , জানতে পারলাম তাঁর সম্পর্কে অগনিত পাঠকের মূল্যায়ন । শুভেচ্ছা রইল ।

২১ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৯:২৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার জন্যও শুভেচ্ছা ডঃ এম এ আলী ।

৩৮| ২২ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১২:৩৮

অনিন্দ্য অবনী বলেছেন: শ্রদ্ধা এবং ভালবাসা নিরন্তর....

২২ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:১২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনিন্দ্য অবনী , আপনার জন্য শুভ কামনা ।

৩৯| ২২ শে জুলাই, ২০১৬ সন্ধ্যা ৬:০১

শাহ আজিজ বলেছেন: হুমায়ুন একটা নেশা আর আমরা সবাই সেই নেশায় আসক্ত । কেউ বা কোন বাংলাভাষী লেখক জীবদ্দশায় এতো বই বিক্রি , এতো কিশোরের সমন্বয় , একটা নতুন স্বপ্নে আসক্তি ধরিয়ে হ্যামিলনের বংশীবাদকের মত চলাচল করতে পারেননি । কোন চাকুরির তোয়াক্কা না করেই চলে এলেন ভাড়া বাসায় আর পেশাদার লেখক হওয়ার বাসনায় মগ্ন হলেন। তিনি বাংলাভাষী পাঠকদের অভাব কোথায় তা বুঝেই শুরু করেছিলেন। সিন্ডিকেটে যোগ দেননি বলেই সব বড় লেখক শাওনকে নিয়ে টানাহেঁচড়া করে । গান লিখতেন ,সিনেমায় সফল , নাটকে সফল , বাগানবাড়ী বানিয়ে স্বপ্নের কথা লিখে গেছেন, সেন্ট মারটিন দ্বীপে বাড়ি বানিয়ে হইচই ফেলে দিলেন। আরও কত কি? আমাদের হুমায়ুন আর জাফর ইকবালের সব বই আছে । আমরা ধন্য আমাদের জীবদ্দশায় এমন একজনকে পেয়েছি । স্যালিউট !!

২৩ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ১০:১৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: চমৎকার একটি মন্তব্য করেছেন শাহ আজিজ ।
বেশি ভাল লাগলো , আমরা ধন্য আমাদের জীবদ্দশায় এমন একজনকে পেয়েছি ।

৪০| ২৩ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১:৪১

আব্দুল্যাহ বলেছেন: বাকের!!!
আমার নিজের সেরা চরিত্র

২৩ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৫:০৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: তখনকার দর্শক বাকের ভাইকে নিজেদের আপন জন বলেই মনে করতো ।

৪১| ২৫ শে জুলাই, ২০১৬ বিকাল ৪:২৮

যমুনার চোরাবালি বলেছেন:



লিখা ভালো লাগছে। সেই সময় হাতে একটি চেইন থাকতো, সেটা ঘুরতোও অনবরত। বদি আর মজনুও ছিলো। খালি একটা বাইক আছিলো না, এই যা। । সেই শোক কাটতে অনেক সময় লাগছিলো।

আমার কাছে এখন পর্যন্ত হুমায়ুন আহমেদ সেরা। তার মতো লেখক বাংলায় আসতে বহু সময় লাগবে। এখন যারা আছে তাদের অধিকাংশ পা চাটা টাইপের। নিজস্বতা বলতে কিছু নাই। শুভেচ্ছা।

২৬ শে জুলাই, ২০১৬ সকাল ১০:২৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মজনু নামটা আমি মনে করতে পারিনি , শুধু বদি মনে ছিল ।
এখন যারা আছে তাদের অধিকাংশ পা চাটা টাইপের। নিজস্বতা বলতে কিছু নাই। একটা কঠিন সত্য বলেছেন । এজন্য এদের লিখা কেউ পড়েও না । দু চার পাতা পড়ে মনে হয় টাকাটা জলে গেল । আর পড়াই হয় না ।

৪২| ২৭ শে জুলাই, ২০১৬ দুপুর ১২:২৯

জেন রসি বলেছেন: কল্পনার কোন চরিত্রকে বাস্তবের সাথে মিশিয়ে ফেলা-হুমায়ুনের মত খুব কম লেখকই এমনটা পেরেছেন।

২৮ শে জুলাই, ২০১৬ রাত ৯:১৬

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ জেন রসি ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.