নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

কবিতা, গল্প, নাটক, স্ক্রিপ্ট, রাজনৈতিক নিবন্ধ যখন যা ইচ্ছা হয় তাই লিখি । ছবি তুলি আর সিনেমা বানাই ।

জিপসি রুদ্র

কবিতা, গল্প, নাটক, স্ক্রিপ্ট, রাজনৈতিক নিবন্ধ, যখন যা ইচ্ছা হয় তাই লিখি । ছবি তুলি আর সিনেমা বানাই ।

জিপসি রুদ্র › বিস্তারিত পোস্টঃ

[ তসলিমারা আসলেই অসহায় ! তসলিমাদের আসলেই কোন দেশ নাই !]

০৬ ই মার্চ, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩২

তসলিমা নাসরিন আশির দশকে নারীদের অধিকার আদায়, লিঙ্গসমতা, মানবতাবাদ, মুক্তচিন্তা এবং বাকস্বাধীনতার পক্ষে জনমত গঠন করতে ধর্মীয় মৌলবাদী গুষ্ঠির ফতোয়ার বিরুদ্ধে যখন লেখালেখি শুরু করে তখন তাকে মেরে ফেলার হুমকি ধামকি দেওয়া শুরু হয়।

১৯৯৪ সালে সিলেটের বিশাল জনসভা থেকে এক মলই তসলিমা নাসরিনের মাথার দাম নির্ধারণ করে পঞ্চাশ হাজার টাকা। সেই সময় রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিলো মৌলবাদীদের মদদপুষ্ট সরকার বিএনপি।

বিএনপি তসলিমা নাসরিনকে প্রকাশ্যে হত্যা করার ঘোষণার বিরুদ্ধে কোন রকম ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো ধর্মীয় মৌলবাদী গুষ্ঠিকে সমর্থন দিয়ে যায়।

তৎকালীন সময়ে কবি সাহিত্যিক বুদ্ধিজীবীরা তসলিমার পক্ষে দায়সারা একটা দুইটা বিবৃতি এবং মানবন্ধন করলেও সেটা বিশাল সংখ্যক মৌলবাদী গুষ্ঠির কাছে কোন রকম প্রভাবই ফেলতে পারে নাই।

বিএনপি সরকার একের পর তসলিমার বই বেঁচা কেনা এবং পড়া নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। তসলিমা কমপ্লিটলি কোনঠাসা হয়ে পড়ে। এইখানে ঐখানে এবাড়ি ওবাড়ি গা ঢাকা দিয়ে থাকে।

ডঃ কামাল হোসেনসহ দুই একজন আইনজীবী তসলিমার পক্ষে লড়লেও আদালত বিশাল সংখ্যক উগ্রমৌলবাদী ধর্মান্ধদের বিরুদ্ধে গিয়ে তসলিমার পক্ষে কোন রায় দিতে সাহস পায় নাই। কারণ তখন বিচার বিভাগ স্বাধীন ছিলোনা। সরকারই তখন বিচার বিভাগ নিয়ন্ত্রণ করতো।

তসলিমা বিএনপি সরকারের কাছ থেকে কোন রকম সাহায্য সহযোগিতা না পেয়ে বাধ্য হয় দেশ থেকে পালিয়ে যেতে। ১৯৯৪ সালে সেই যে গেলো তসলিমা আর দেশে ফিরতে পারলোনা।

অথচ এই দেশে মুক্তচিন্তার ছবক দেওয়া এবং বাকস্বাধীনতার জন্য ঘেউ ঘেউ করা লোকজন তসলিমার পক্ষে একটাও দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে পারে নাই তখনও না এখনো না।

দেশে অনেক সরকার আইলো গেলো কিন্তু কোন সরকারই তসলিমাকে দেশে ফিরিয়ে আনতে কোন রকম উদ্যোগ নেয় নাই। কারণ প্রত্যেক সরকারই জানে যেই সরকার তসলিমাকে দেশে ঢুকাবে সেই সরকারই উগ্রধর্মান্ধ বিশাল সংখ্যক মৌলবাদী গুষ্ঠির কাছে পরাভুত হবে। কারণ প্রত্যেক সরকারই জানে এবং বুঝে এই দেশে প্রগতিশীল, মুক্তচিন্তক, বাকস্বাধীনতায় ঈমান রাখা, নাস্তিক্যবাদকে সমর্থন দেওয়া, নারীর সমান অধিকার মাইনা নেওয়া লোকজনের সংখ্যা খুবই কম। যারা উগ্রধর্মান্ধ বিশাল সংখ্যক মৌলবাদী গুষ্ঠি একসাথে মুতে দিলে কমপ্লিট ভাইসা যাবে বুড়িগঙ্গায়!

দেশে এখন আওয়ামীলীগ সরকার। কিন্তু আওয়ামীলীগও তসলিমাকে দেশে ফিরাবে না। কারণ আওয়ামীলীগ সরকার জানে তসলিমারে সমর্থন করা লোকদের পক্ষ নিলে আওয়ামীলীগ বিশাল সংখ্যক উগ্রধর্মান্ধ মৌলবাদীদের রোষানলে পুড়বে। এদের বিরুদ্ধে হাতেগোনা প্রগতিশীল, বুদ্ধিজীবী, মুক্তচিন্তক, বাকস্বাধীনতায় ঈমান রাখা, নাস্তিক্যবাদকে সমর্থন করা লোকদের নিয়ে প্রতিরোধ গড়া যাবেনা।

ফাইনালি মাইনা লইতে হবে, তসলিমারা অসহায়। তসলিমাদের দেশ নাই। তসলিমাদের পক্ষে লোকজন নাই। তসলিমাদের সংসার নাই। তসলিমাদের জীবনে সুখ শান্তি বলতেও কিচ্ছু নাই। তসলিমারা সারাজীবন আপসোস আর হতাশার মধ্য দিয়েই জীবন যাপন করবে।

দ্যাটস অল ইউর অনার।

মন্তব্য ৮ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৮) মন্তব্য লিখুন

১| ০৬ ই মার্চ, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩৯

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: আল্লাহ আপনাকে সঠিক বুঝ দান করুন।

২| ০৬ ই মার্চ, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৫৩

নীলকন্ঠ কবি বলেছেন: ও

৩| ০৬ ই মার্চ, ২০১৯ রাত ৯:৪২

নাহিদ০৯ বলেছেন: ভাবতেই গায়ে কাঁটা দিয়ে উঠে যে বিচার বিভাগ একদিন স্বাধীন ছিলোনা। সরকারই তখন বিচারা বিভাগ নিয়ন্ত্রণ করতো। কি ভয়ংরক অবস্থাই না ছিলো। :|

৪| ০৬ ই মার্চ, ২০১৯ রাত ১০:৪৫

রাজীব নুর বলেছেন: আমার এখনও বিশ্বাস আছে- শেখ হাসিনা লাল গালিচা সংবর্ধনা দিয়ে তসলিমা নাসরিনকে দেশে ফিরিয়ে আনবেন। তসলিমা নাসরিন তার দেশকে ভীষন ভালোবাসেন। দেশ নিয়ে, দেশের নদী দারুন সব কবিতা লিখেছেন। লেখায় দেশে ফেরার অনেক আকুতি স্পষ্ট।

৫| ০৭ ই মার্চ, ২০১৯ দুপুর ১:৩৭

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: দেশে কি কোনো মুক্তমনা, বুদ্ধিজীবী আছেন? আমার চোখে পড়ে নাই।
একমাত্র তসলিমা নাসরিন'ই নিজের দর্শন, ভাবনায় স্থির আছেন। বাকিরা তো সুযোগসন্ধানী!

৬| ০৭ ই মার্চ, ২০১৯ দুপুর ২:২৪

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: এই দেশ রত্নদের চিনলো না কিন্তু বিদেশেও কেনো রত্নকে জুতাপেটা করা হলো!

৭| ০৭ ই মার্চ, ২০১৯ দুপুর ২:৫৪

অক্পটে বলেছেন: "তখন বিচার বিভাগ স্বাধীন ছিলোনা। সরকারই তখন বিচার বিভাগ নিয়ন্ত্রণ করতো।"

ভাইজান এখন কি বিচার বিভাগ স্বাধীন আছে?? এখন কে নিয়ন্ত্রণ করে বিচার বিভাগ??

তবে হ্যা, তসলিমা নাসরিন লেবাসধারীদের টুপি এবং পৈতা ছিঁড়ে ফেলার যোগার করেছিলেন! শুধু ধর্মের এজেন্টদেরবই তিনি পাকড়াও করেননি, তার জীবনের সাথে জড়িয়েছিল অনেক সনামধন্য ভন্ডদেরও তিনি মুখোশ উম্মোচন করেছিলেন।

যেখানে তাকে সাপোর্ট করার কথা ছিল সমাজের সংস্কারকদের সেখানে তিনি দেশান্তরীত হয়েছেন।

৮| ০৭ ই মার্চ, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৯

আঁধার রাত বলেছেন: তার দেশে না থাকায় ভালো। অশান্তি হয়। সবাই কে আঘাত করে অশান্তি সৃষ্টি করে সে। কারো ধর্মানুভূতিতে আঘাত করে কারো বা যৌনাভুতিতে আঘাত করে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.