নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

হে মানব! আর নয়তো দেরী; জেগে তুলে বিবেকের তরী করো হিংসার বলিদান। জন্মান্ধ হয়ে থেকো নাকো তুমি;মানুষ বলে হও বলিয়ান ।

তুমি জীবন খুঁজো সুখের নীড়ে, আমি জীবন খুঁজি দুঃখের ভীরে।,,, রহমান লতিফ,,,,

› বিস্তারিত পোস্টঃ

# সুখের পৃথিবী

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ ভোর ৬:৫৯


পর্ব --০১
(২)
মফিজ রাতে ঘরে ফিরলে খাবার খাওয়ার সময় মা খুব সাবধানে জিজ্ঞেস করলেন,সে কি কোন ফরম পুরণ করেছে বা কোন কিছুতে নাম লিখিয়েছে? মায়ের কথার মর্ম তাৎক্ষণিক না বুঝতে পেরে উল্টো মা'কে প্রশ্ন করলো,
- কেন মা কি হয়েছে!
- সত্যি করে বলতো বাবা- কোন কিছুতে কি তুই নাম লিখিয়েছিস?
- যতদূর মনে পড়ে বেশ কিছুদিন আগে কাজের ফাঁকে স্হানীয় ক্লাবে ইন্ডিয়া -পাকিস্তান ক্রিকেট খেলা দেখতে গিয়েছিলাম।
- খেলার মাঝখানে বিরতির সময় দশ টাকা দিয়ে লটারির ফরম পুরণ করি।
- কেন মা কি হ'য়েছে
- নাহ মনে হয় কেউ তোকে ভুল কোনকিছুতে প্ররোচিত করেছে।
- নাহ মা, আমার কাজের অনেকই করেছে, এটা ছিলো ভাগ্যের পরীক্ষা যদি একবার লেগে যায় তবে এদেশে থাকা লাগবে না। বিদেশে গিয়ে অনেক টাকা রোজগার করতে পারবো।
- বোকা ছেলে আমার এ দেশ আর তোর মা'কে ছেড়ে কোথায় যাবে ?
- ঠিক আছে মা আর ওই ক্লাবে যাবো না।
-দেখতে দেখতে তুই বড় হয়ে গেলে তোর জন্য একটা বউ নিয়ে আসলে বাঁচি সেজন্য আগে থেকেই আমরা শহরে চলে যাবো।
- শহরে কেনো মা? এখনে থাকলে কি দোষ!?
- শহরে গেলে কাজ কোথায় পাবো?
-সেটা পড়ে দেখা যাবে তুই কাল কাজের জায়গা থেকে বিদায় নিয়ে আসবে এটা আমার ফাইনাল কথা। আমরা এখান থেকে চলে যাবো।
- ঠিক আছে মা তাই করবো।
হাফিজের পরামর্শ অনুযায়ী মফিজের মা চিঠির কথা গোপন রাখেন। তিনি ভাবলেন হাফিজ যা ব'লেছে তা তো আসলেই সত্য। মফিজকে কেউ প্রলোভন দিয়ে চরমপন্থী গ্রুপের সদস্য বানিয়ে ফেললো। এখন তাদের হাতে বাড়ি ছাড়া আর কোন পথ খোলা নেই।
খুব সকালবেলা কাজের জায়গায় গিয়ে নোটিশ দেওয়ার পর তার ম্যানেজার বললো এটা হতে পারে না। গত ছয় বছর যাবৎ তুমি আমাদের এখানে কাজ করতেছো। মালিকের সবচেয়ে বিশ্বস্ত ও পুরানো কর্মচারীকে এভাবে বিদায় দিতে পারবে না। বিকালে মালিক আসার পর তার কাছে কাজ ছাড়ার ব্যাপারে বুঝেশুনে কথা বলতে তার ম্যানেজার অনুরোধ করলো।
বিকালবেলা মালিক সবকিছু শুনে বললেন,তাহলে ভালোই হলো। উনি চট্টগ্রামের হালি শহরে আগামী তিনমাসের মধ্যে নতুন একটি গ্যারেজ ও পাম্প খুলতে যাচ্ছেন। এখন সাইডে মাঠি ভরাটের কাজ চলছে। আপাততঃ যেন সে সাইড দেখাশোনা করে সেই সাথে তার বেতন সাড়ে তিন হাজার থেকে বাড়িয়ে পাঁচ হাজার দেওয়ার কথা হলো।
বাড়ি ফিরে মা'কে কথাটা জানানোর সাথে সাথে উদ্বিগ্ন মায়ের মুখে হাসি ফুটে ওঠে। তিনি মফিজের মুখের দিকে একদৃষ্টিতে চেয়ে থেকে বললেন, আল্লাহ এভাবেই ফেরেশতা পাঠিয়ে বিপদগ্রস্তকে বিপদ থেকে উদ্ধার করেন।
পরদিন খুব ভোরে মা ছেলে রওয়ানা দিলো নতুন জায়গায়। সৎ ভাই হাফিজ তাদের সাথে সাথে আসলো স্টেশন পযর্ন্ত। তাদেরকে বাসে তুলে দিয়ে হাফিজ রওয়ানা দিলো ইউনিয়ন অফিসে জন্ম নিবন্ধন করার জন্য, সেখান থেকে সে যাবে পাসপোর্ট অফিসে। তার হাতে অনেক কাজ খুব দ্রুত ও সর্তকতার সহিত সেগুলো শেষ করতে হবে ।

(৩)
পেট্রোল স্টেশনের মালিকের একান্ত সহায়তায় হালিশহরের একটি ভাড়া বাসায় মা'কে নিয়ে উঠলো। নতুন কাজের জায়গায় শুধু সকাল-বিকাল সাইড তদারকি করা ছাড়া আপাততঃ কোন কাজ নেই। নিজেকে বেশ সুখী মানুষ ভাবতে লাগলো। কিছুদিন পর কাজের চাপ বেড়ে যাবে তাই মা দূর সম্পর্কের এক খালাতো বোনের সাথে বিয়ের ব্যাপারে পাকাপোক্ত করলেন । অত্যন্ত সাদামাটা ও ঘরোয়াভাবে একমাসের মধ্যে মফিজ বিয়ে করে খালাতো বোন মনি বেগমকে। মনিদের পাঁচ বোন তাদের দু'জনের বিয়ে হয়ে গেছে। কোন ভাই নেই ফলে আয় রোজগারের দায় বাবার উপর। মনিদের পারিবারি অবস্থা তেমন ভালো নয়। মনি বেগম পাঠশালা পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে। বিয়ের কিছুদিন পর স্হানীয় একটি কোম্পানিতে ক্লিনার হিসাবে কাজ পেয়ে যায়। মনি দিনের বেলা কাজ করে আর মফিজ রাতের শিফটে কাজ করে। দু'জনের আয় রোজগারের মাধ্যমে মোটামুটি আনন্দময় তাদের দিন কেটে যাচ্ছে।
বছর ঘুরতেই মনি বেগম প্রেগন্যান্ট হয়ে গেলো। ডাক্তার কনফার্ম করে দিয়েছেন তাদের ঘর জুড়ে যমজ শিশু আসতেছে। যেহেতু জোড়া শিশু তাই তাদের আগাম ডেলিভারির জন্য প্রস্তুতি থাকার নির্দেশ দিলেন। যেখানে স্বাভাবিক নারীর ছয়ত্রিশ বা আটত্রিশ সপ্তাহে লাগে সেখানে তাদের সময় দেওয়া হলো তেত্রিশ সপ্তাহ। যেকোনো পরিবারে নতুন অতিথির আগমনে মা- বাবার মনে আনন্দের বন্যা বয়ে নিয়ে আসে। সেখানে মফিজের মনে আজানা আশংকা ছেয়ে গেলো। স্বামী স্ত্রী মিলে যা আয় রোজগার করে তা দিয়ে কোনরকম সংসার চলছে। এদিকে মায়ের শরীরে অসুখ বাঁধা বেসেছে।অসুস্থতা দিন দিন বেড়ে চলছে তার জন্য চিকিৎসা খরচ তো আছে। মফিজ স্ত্রীর পেটে হাত বুলায় আর ভাবে কেমন করে তোদের পৃথিবীর মুখ দেখাবো। জন্মের পর তাদের কিভাবে লালান পালন করবে যখন তার স্ত্রীর কাজ থাকবে না। মেটারনিটিতে ছুটি নিলে তো কোন টাকা পয়সা পাবে না তখন তার একার বেতন দিয়ে সংসার চলবে কিভাবে! কিভাবে বাচ্চার জন্য নতুন জামা, শীতের কাপড় নিয়ে আসবে। দেশে তো কোন জমিজমা নেই যে বিক্রি করবে। ভাইয়েরা টাকা পয়সাই বা কোথায় পাবে! ভাইদের কাছে একবার গিয়ে চেষ্টা করে কি দেখবে!
মফিজ তার মালিককে অগ্রীম বেতন চাওয়ার কথা বললে তিনি তিন মাসের জন্য অগ্রীম বেতন দিতে রাজি হলেন। সেই টাকা দিয়ে তো আর ডেলিভারির বিল হবে না। আর কোথায়ও কোন টাকা পাবার কোন আশা নেই। চিন্তাগ্রস্ত স্বামী - স্ত্রী প্রতি রাতে একে আন্যের মুখে চেয়ে থাকে। মনি বেগম বলে সে বাচ্চা জন্মের একমাসের মাথায় কাজে যোগ দিবে। কিন্ত অপারেশনের জন্য তো তাকে অন্ততপক্ষে দু মাস বিশ্রাম নিতে হবে। এই পিরিয়ড কিভাবে সংসারের খরচ যোগার হবে। মফিজ তো একা ম্যনেজ করতে পারবে না। দুটি নরনারীর যেন কুল-কিনারাহীণ সাগরের তলদেশে অবস্থান। যে মফিজ শত আঘাতেও একবার কাঁদেনি এখন সন্তানের জন্য প্রতি রাতে কাঁদে। কান্না যেন তার এখন নিত্যসঙ্গী। এখন কি শরীরের বিশেষ কোন অঙ্গ বিক্রি করে মফিজ স্ত্রীর ডেলিভারির ব্যবস্হা করবে নাকি কোন একটা উপায় হয়ে যাবে। দু'টি জীবনকে সে পৃথিবীর আলো দেখাবে সে যেমন করেই হোক।

পর্ব -৪
------------
রাত দু'টো বাজতে এখনো চল্লিশ মিনিট বাকী। এমন সময় পেট্রোল স্টেশনে একটি দামী গাড়ি এসে ঢুকলো।একহাজার টাকার পেট্রোল কিনে বিল দিতে এলেন বেশ ধীরস্থির ও নিস্পাপ চেহারার বৃদ্ধ। মফিজ বাবাকে হারিয়েছে সে নেক দিন কিন্তু এই লোকটার মুখটা দেখে আজ বাবার কথা মনে পড়ে গেলো । বৃদ্ধ লোকটি কেন রাত করে বাড়ি ফিরেছে?
বিল পরিশোধ শেষে লোকটি মিষ্টি হাসি দিয়ে মফিজকে ধন্যবাদ দিতে ভুললেন না। লোকটাকে দেখে কেমন যেন আপন আপন মনে হলো। লোকটির দামী রেঞ্জ রোভার ব্র্যান্ডের গাড়িটা নিয়ে চলে যাওয়া দেখতে থাকলো। মফিজের হঠাৎ চোখে পড়লো বেশ দূরে মহাসড়কের পাশে একটি গাড়ি থেমে আছে। প্রথমে ভাবলো কোন দূর্ঘটনা নাকি ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে মনে হয়। এই সড়কে অহরহ এমন ঘটনা লক্ষ্য করা যায়। বেশ কতক্ষণ পরে বুঝতে পারলো, এই রাতের অন্ধকারে বিপদ সংকেত লাইটের আলোয় দেখা যাচ্ছে কে যেন হাত নেড়ে নেড়ে সাহায্যে চাচ্ছে । এত রাতে ভয়ে হোক আর বাড়ি ফেরার তাড়া হোক কেউ দাড়াচ্ছে না। কেউ দেখতে চাইলো না কেন লোকটা হাত নেড়ে সাহায্য চাইছে। সবাই যার যার মতো চলে গেলো।
মফিজ অনেকক্ষণ ধরে এই দৃশ্য দেখছে কিন্তু সে চাইলেও যেতে পারছে না। মনটা গাড়ির আজানা মালিকের জন্য ছটফট করে উঠলো। নিশ্চিত কেউ একজন বিপদে পড়েছে কেউ উদ্ধারের জন্য এগিয়ে গেলো না। সেই একমাত্র রাতের স্টাফ যে রাত দু'টা হলে পাম্প বন্ধ করে ঘরে যাবে। টানা পয়ত্রিশ মিনিট থেকে গাড়ির সংকেত লাইট জ্বলছে। যদিও ঘরে প্রেগন্যান্ট স্ত্রী তবুও রাত দু'ইটার সময় পাম্প বন্ধ করে যত দ্রুত সম্ভব সে গাড়ির কাছে যাবে এই মনস্থির করলো। যখন মনে মনে এসব ভাবতেছে হঠাৎ সেই বৃদ্ধ লোকটি তার সামনে এসে দাঁড়ালেন। মলিন ও শুষ্ক মুখে তার দিকে তাকিয়ে ঠোঁট চেপে হাসি দিয়ে জানালেন গাড়িতে ভুল করে পেট্রোলের বদলে ডিজেল ঢুকানোতে ইঞ্জিন বন্ধ হয়ে গেছে। এখন এত রাতে কি করবেন জানেন না। অনেক চেষ্টা ক'রেও কোন যানবাহন না থামাতে পেরে গাড়িটা রেখে হেঁটে হেঁটে এখানে এসেছেন। এবার যদি সে কোন সাহায্য করতে পারে নতুবা সকাল হওয়ার আগ পযর্ন্ত তাকে গাড়িতে বসে থাকতে হবে। মফিজ কাজ শেষ করে গাড়িটা যাতে সচল হয় সে ব্যবস্হা করার আশ্বাস দিলো। বৃদ্ধলোক গাড়ির দিকে চলে গেলেন। মফিজ কাজ শেষ করে খুব দ্রুতপায়ে গাড়ির দিকে গেলো। যাবার সময় পাঁচ লিটারের এক ড্রাম পেট্রোল নিলো। প্রায় এক ঘন্টার মতো সময় কষ্ট করে গাড়ির ডিজেল পরিবর্তন করে পেট্রোল ভরিয়ে দিয়ে। গাড়ির ইঞ্জিন আবারো চালু হলো। বৃদ্ধ লোকটি অনেক ধন্যবাদ জানিয়ে মফিজকে এক হাজার টাকার পাঁচটি নোট ধরিয়ে দিলেন। টাকার দিকে মফিজ শৈণ্য দৃষ্টিতে তাকায়। এই টাকাটা তার এই মুহূর্তে খুব দরকার, একটা নয় দু'টি নয় চারটি জীবনের বৃহত্তর প্রয়োজনে টাকাটা তার চাই। বৃদ্ধ লোকটি অনেকক্ষণ থেকে হাতে টাকাটা ধরে ছিলো এবার মানিব্যাগ থেকে আরো দুটি একহাজার টাকার নোট যোগ করলেন। আস্তে করে বললেন মনে হয় রাতের কাজের জন্য তোমাকে কম পারিশ্রমিক দিয়েছিলাম তাই টাকাটা নেও নি। আশাকরি এবার ঠিক আছে । মফিজ টাকাটা নিতে অস্বীকার করে। সে বলে এতো রাতে আপনাকে সাহায্য করা আমার দায়িত্ব। এরজন্য আমি কোন টাকা নিবো না। বৃদ্ধ আশ্চর্য হয়ে বলেন কি বলো? এটা তোমার প্রাপ্য ' টাকাটা নাও, 'প্লিজ' নতুবা আমি শান্তি পাবো না। মফিজ বলে ওঠে,স্যার টাকা দিয়ে তো হাসি পাওয়া যায় না। "মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর মাধ্যমেই গড়ে তুলতে পারি একটি সুখের পৃথিবী" আমার কাছে আপনার হাসি পাওয়াটাই বড়।
বৃদ্ধ মফিজের বাহুতে হাত বুলাতে বুলাতে বললেন জীবনটা যেন এক পাঠশালা। চলে যাবার সময় মফিজের হাতে একটা ভিজিটিং কার্ড দিয়ে বললেন সময় করে একদিন আমার অফিসে আসো। মফিজের অনেক দেরী হয়ে গেছে স্ত্রী না খেয়ে অপেক্ষা করছে তাই কার্ডটি পকেটে রেখে দৌড়াতে দৌড়াতে চললো তার ঘরের দিকে।

শেষ পর্ব
--------------
গাড়ি করে যাবার সময় বৃদ্ধের মনে শুধু একটি কথাই তীরের মতো বুকের শেলে বিঁধে গেলো।

কি দারুণ কথা - " "মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর মাধ্যমেই গড়ে তুলতে পারি একটি সুখের পৃথিবী"
বৃদ্ধ লোকটি দীর্ঘদিন বিদেশে ছিলেন, বিদেশ থেকে পি,এইচ,ডি করেছেন। দেশে ফিরত এসে দশ বছরে বিশাল কোম্পানি সাফল্যের রুপকার। বিভিন্ন দেশে সভা সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন। একসময় কবিতায় লেখতেন। তার নিজের হাতে গড়া প্রতিষ্ঠিত 'আর,এল, লিমিটেডের অধীনে প্রায় আটাশ হাজার লোক কাজ করছে। বৃদ্ধের এই ঘটনাবহুল জীবনের এতগুলি বছরের মধ্যে এত সুন্দর কথা শুনছেন বলে মনে হলো না। বাড়িতে এসে বৃদ্ধ তার লেখা 'জীবনের ব্যাকরণ' কবিতার বইটি মেলে ধরলেন। অনেক দিন হয় কবিতা লেখা হয় না। তার কবিতার প্রতিটি লাইন দেখলেন। কোথায় এত সুন্দর কোন লাইন আছে বলে মনে হলো না। একটি কবিতার চরণে তার চোখ আটকে গিয়ে অশ্রু ফোঁটা বইয়ের পাতায় ঝরে পরতে লাগলো -
আজ কিংবা কাল,
কুড়ি কিংবা একশত কুড়ি বছর পর,
তুমি,আমি আমরা সর্বজন,
চলে যাবো মোহমায়া ছেড়ে
এ নশ্বর মানবজীবন।
বৃদ্ধ নিজে নিজেকে প্রশ্ন করতে থাকলেন,জীবনে কয়জন মানুষের মুখে হাসি ফোটালাম? সে রাতে বৃদ্ধের আর ঘুম হলো না। সকাল সাড়ে সাতটায় মিটিমিটি রোদ ওঠার সাথে অফিসে চলে গেলেন। সাধারণত অফিসাররা সবাই দশটার দিকে অফিসে আসে। পরিচ্ছন্ন কর্মীরা সকালে চলে আসে।বৃদ্ধ এককাপ কফি বানানোর জন্য অফিসের কিচেনে গিলেন। সেখানে পুরুষ মহিলা কাজ করে। এই মহিলাকে আগেও দেখেছেন। আজ তার দিকে একবার চোখ পড়ার পর নিজেকে অপরাধী ভাবলেন। তার অফিসের কর্মচারী অথচ তিনি জানেন না। যে সময় মাতৃকালীন ছুটিতে থাকার কথা এই মেয়েটা শরীরের এই অবস্থা নিয়ে কাজ করছে। নিশ্চয় পেটের দায়ে না'হলে এই প্রেগন্যান্ট অবস্থায় কি কেউ কাজ করে!
বৃদ্ধ মেয়েটিকে ডেকে বললেন, তুমি এক ঘন্টা পরে আমার রুমে এসো।
মেয়েটি অফিসের বড়কর্তার এমন আদেশ পেয়ে ঘাবড়ে গেলো।আশেপাশের সবাই হতচকিত হয়ে বললো, আজ মনে হয় আমাদের সবার কাজ যাবে। কার কি ভুল হলো তা নিয়ে সবাই মাতামাতি শুরু করলো।
একঘন্টা পর মেয়েটি রুমে ঢুকল, বৃদ্ধ একটি খাম ধরিয়ে দিয়ে বললেন সোজা বাসায় চলে যাও। এবং পরিবারের সবাইকে নিয়ে খামটি খুলে দেখবে। খামটি হাতে নিয়ে মনে মনে আহাজারি করে মেয়েটি বাড়ি চলে গেলো। স্বামী ও শাশুড়ীকে ঘটনার বিবরণ দিয়ে তার স্বামীকে খামটি খুলতে বললো, তার স্বামী আশ্চর্য হয়ে স্ত্রীর মুখের দিকে তাকালো, সেখানে বড় করে লেখা
"মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর মাধ্যমেই গড়ে তুলতে পারি একটি সুখের পৃথিবী"

সে এবার নিজের পকেট থেকে কার্ডটি বের করে দেখলো, গতকাল রাতের সেই বৃদ্ধই আর,এল গ্রুপ লিমিটেডের মালিক জনাব রহমান লতিফ। যিনি তার স্ত্রীকে দু লক্ষ টাকার চেক ও পুরো ছয় মাসের জন্য মেটারনিটি লিভ মঞ্জুর করেছেন। সেই সাথে মাতৃকালীন ছুটি অবস্থায় তার কোম্পানির সকল নারীদের ছয় মাসের জন্য বেতনের পুরো অংশ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। এবার মফিজের মা বহু দিনের পুরানো একটি খাম তার হাতে দিলেন। এই চিঠিটা পড়ে শুনাতো বাবা '' মফিজ বলে মা এটা তো অনেক আগের চিঠি, তুমি আমাকে দাও নি কেন? কি লেখা সেই চিঠিতে, তোমাকে বলেছিলাম না লটারির কথা! এখানে লেখা আমি আমেরিকা যাওয়ার জন্য ডিবি-১ লটারি পেয়েছি। মা বললেন তাহলে হাফিজ!! মা' তোমাকে না জানিয়ে আমি দেশের বাড়ি গিয়েছিলাম কিন্তু হাফিজসহ পুরো পরিবারে কেউ বাড়িতে নেই। সবাই বিদেশ চলে গেছে।

সবকিছু শুনে মফিজের মা বলে ওঠলেন, ' এ যেন বুকের ভেতর পাথর কষ্টের চাপ শেষে পাওয়া সুখের পৃথিবী'।

(সমাপ্ত)

উৎসর্গ - এই সামান্য লেখাটি যাকে উৎসর্গ করছি তিনি একজন জ্ঞানী ব্যক্তি,একজন উঁচু মাপের ও উঁচু মনের ভাবুক দার্শনিক সবার প্রিয় ভুয়া মফিজ ভাইকে।।।।

মন্তব্য ২৮ টি রেটিং +১০/-০

মন্তব্য (২৮) মন্তব্য লিখুন

১| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:১০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: শুভ সকাল প্রিয় লতিফ ভাই,

বাহ! বেশ সুন্দর লিখেছেন। লাস্টের টুইস্টটি চমৎকার হয়েছে। ++ এভাবে লিখতে থাকুন। আগামীতে আরো উন্নতি হবে আশা করি।

শুভকামনা ও ভালোবাসা জানবেন।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:২১

বলেছেন: দাদা,
সময় করে পড়ার জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা।
জানি অনেক ভুল আছে তবে আশাকরি এগুলো একসময় ঠিক করে ফেলবো।
পুরো রমজান মাস লেখালেখি করবো, ব্লগের সবার লেখা পড়বো আর আস্তে আস্তে ভুলগুলো শুধরে নিবো।

পাশে থেকে উৎসাহ দেওয়ার জন্য অফুরন্ত শ্রদ্ধা।।।


২| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৯:০৮

রাজীব নুর বলেছেন: খুব সুন্দর।
সহজ সরল ভাষায় লিখে গেছেন।

আসলেই মানূষের মুখে হাসি ফুটানো বড় আনন্দের।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২৪

বলেছেন: আপনাকপ প্রথমেই জানাই অশেষ ধন্যবাদ

সেই সাথে একটি কথা বলা জরুরি মনে করি -অনেকেই বলে থাকেন রাজীব নূর পোস্ট না পড়ে মন্তব্য করেন কিন্তু আজ পর্যন্ত আমার কোন পোস্ট পেলাম না যে আপনি না বুঝে, না পড়ে মন্তব্য করেছেন। সেজন্য আপনাকে অনেক অনেক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।


ভালোবাসা রইলো।।
শুভ কামনা।

৩| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১০:০৬

নীল আকাশ বলেছেন: ভালোই লিখেছেন তবে ডিভি পেয়ে যাবার ব্যাপারটা কেমন যেন লাগলো।
এটা খুবই কঠিন একজনের জায়গায় আরেকজন চলে যাওয়া।
ইউএস এর এমবেসী এই সব ব্যাপারে খুব কড়া।
মুল থীম বেশ ভালো লেগেছে।
ধন্যবাদ।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২৭

বলেছেন: ধন্যবাদ প্রিয় ভাই,
আসলে ভাই কিভাবে ভাইকে ঠকায় সেটা বুঝাতে উদাহরণ স্বরূপ এটা ব্যবহার করেছি তবে বাস্তব জীবনে এমন ঘটনা অমার জানা আছে। আগে যুগটা ডিজিটাল ছিলো না এক জনের লটারি অন্যজন নিয়ে গেছে সেটা আগে সম্ভব হয়েছে হয়তো এখন হবে না।

ইউ, এস আর ইউ কে যতই কড়া হোক উপমহাদেশের লোকজন একটা উপায় বের করে নেয় - অভিজ্ঞতা।

গল্পপর যাদুকরপর আমার সামান্য থিমটা ভালো লাগায় সার্থকতা।

সময় করে পাড়ার জন্য ধন্যবাদ।।

৪| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১০:০৭

নীলপরি বলেছেন: গল্পের শেষটা খুব ভালো লাগলো ।

শুভকামনা

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২৯

বলেছেন: শুধু শেষটাই দেখলেন!!
তাহলে প্রথম অংশ কেটে দেবো!! --

৫| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১২:১৭

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: কি দারুণ কথা - " "মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর মাধ্যমেই গড়ে তুলতে পারি একটি সুখের পৃথিবী"

লেখাটা বেশ প্রাঞ্জল।আর উপরোক্ত এই কথাটির জন্য প্লাস দিয়ে গেলাম।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩১

বলেছেন: মাহমুদ ভাই,
আপনি অনেক লেখেন আবার সময় করে আমার লেখাগুলো পড়ে মূল্যবান মন্তব্য রেখে যান।


আপানর কাছে আমার অফুরন্ত কৃতজ্ঞতা।

ভালো থাকুন।

৬| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১২:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: গল্পটিতে চমৎকার ম্যাসেজ ছিল।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩২

বলেছেন: নিখুঁত রম্য লেখকের ছোট্ট মন্তব্য কিন্তু তার ভার আমার কাছে অনেক বেশি।

আপনার মূলবান মন্তব্যের জন্য কৃতজ্ঞতা।


ভালো থাকুন।।
শুভ কামনা নিরন্তর।।

৭| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ২:১১

মুক্তা নীল বলেছেন:
ল' ভাই
জগতে কেউ সুখী হয় হাসিয়ে আর কেউ কাঁদিয়ে । আপনার এই গল্পে একটা শান্তি ও ধৈর্যভাব আছে। যা পাঠক হৃদয় আকৃষ্ট করে।বৃদ্ধ মানুষটির জন্য রইল অন্তর থেকে শ্রদ্ধা ও ভালো লাগা।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩৬

বলেছেন: প্রিয় নীল,
চারিদিকে নীলের ছড়াছড়িতে আপনি মুক্তার নীল আপনার সুন্দর মন্তব্যের জন্য।

কান্না শুধু কান্নাই ডেকে আনে কাউকে কাঁদিয়ে সুখী হওয়া যায় না সেটা হয় নিজের কাছে প্রতারণা।

গল্পটার গভীর মূল্যায়নকে সাধুবাদ সেই সাথে বৃদ্ধের কাছে আপনার ভালোলাগাটুকু পৌঁছে দিবো।


ভালোবাসা অবিরাম।।
অন্তহীন শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।।
ধন্যবাদ নিরন্তর।।।

৮| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৫৯

হাবিব স্যার বলেছেন: লেখক দেখা যায় খুবই ব্যস্ত। আমার চেয়েও.........

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩৭

বলেছেন: এতদিন কোথায় ছিলে!!

পথভুলে তুমি কি এলে!!


আসসালামু আলাইকুম সুহৃদ।।
বেশ আছি আপনাকে ছাড়া।।।

৯| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:১৩

করুণাধারা বলেছেন: এই গল্পের মধ্যে দিয়ে চমৎকার একটা মেসেজ দিয়েছেন, ল। গল্পটা সুখপাঠ্য হয়েছে, যদিও সত্যি সত্যি জীবনে এমন সুখের ঘটনা খুবই বিরল।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৪০

বলেছেন: আপু আমার প্রিয় আপু,

আপনার মতো ঋদ্ধ জ্ঞানের মানুষের কাছে গল্পটি সুখপাঠ্য হওয়াতে ভালো লাগলো।
কখনো কেউ যদি বাস্তব জীবনে এমন সুখের হাত বাড়িয়ে দেয় তবেই সৌভাগ্য।


ভালো থাকুন।
পড়ার জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা।

১০| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৪১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: সুন্দর গল্প। গল্পে চমৎকার একটা মেসেজও আছে। কষ্ট করলে একসময় না একসময় এর ফল মিলবেই।

মানূষের মুখে হাসি ফোটানো আনন্দের ব্যাপার। আমাকে উৎসর্গ করে আমার মুখেও আপনি হাসি ফুটিয়েছেন। তবে যেসব বিশেষণ দিয়েছেন.....একজন জ্ঞানী ব্যক্তি, একজন উঁচু মাপের ও উঁচু মনের ভাবুক দার্শনিক সবার প্রিয়......এগুলো কিন্তু বেশী বেশী হয়ে গিয়েছে। পড়ে খুবই লজ্জা পেলাম। :)

''মাটি, দু'ভাগ হয়ে যাও; আমি ঢুকে পরি'' টাইপের একটা ইমো খুজলাম, পেলাম না। সামু'র ইমো কালেকশান আরো সমৃদ্ধ করতে হবে। :P

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৪৩

বলেছেন: আপনার মন্তব্যে আমি ও হাসলাম --
আপনি তার চেয়েও বেশি,

আপনি আপনার মতো -- প্রাণময়তা জড়ানো প্রিয়জন।

ভালোবাসা অবিরাম।।।

সময় করে পড়ার জন্য কৃতজ্ঞতা।


১১| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৮:১১

আরোগ্য বলেছেন: চমৎকার হয়েছে বড় ভাই। একটি গুণগ্রাহী কথা একটি পরিবারের জীবন কিভাবে বদলে দিল। দারুণ।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৮:৪০

বলেছেন: প্রিয় ছোট ভাই,

জীবন বদলে দেওয়ার জন্য একটি সুন্দর আচরণ- ই যথেষ্ট --


গল্পটিতে সেটা তুলে ধরার চেষ্টা কতটা সফল হলাম সেটাদ দায়ভার পাঠকের হাতে।

সুন্দর মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।


ভালো থেকো।।।

১২| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৮:১৮

নতুন নকিব বলেছেন:



সুন্দর লিখেছেন শেষের এই পর্বটিও।

উৎসর্গটাও বেশ হয়েছে। ভুয়া মফিজ ভাই অনেক গুনের অধিকারী চমৎকার একজন ব্যক্তিত্ব। অনেকের মত আমারও তিনি কাছের মানুষ।

শুভকামনা সবসময়।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৮:৪৪

বলেছেন: নকিব ভাই,

আপনার মতো গুণী লেখকের মন্তব্য পেয়ে পুলকিত হলাম।

মফিজ ভাই অনেক ভালো একজন মানুষ সেটাই বড় কথা।

আপনার কাছের মানুষেরা থাকুক কাছাকাছি আজীবন।

ভালো থাকুন।

১৩| ২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৮:৫৫

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আমার কিছুটা সন্দেহ হচ্ছিল, ভুয়া মফিজের নাম B-)

যাইহোক, পোস্টটা দারুণ হয়েছে :)

মেসেজটাও জোসস।

আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ:)

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৯:৩৫

বলেছেন: পাখি ভাই,,,

সময় করে পড়ার জন্য ধন্যবাদ ব্রাদার।।


গল্পের মেসেজটি ভালো লাগায় মনের জোঢ পেলাম।।
মফিজ ভাই লোক অনেক ভালো আফনার মতো এক্কেবারে সহজ সরল জটিল।।

১৪| ২৮ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ১:৫৭

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: গল্পযে গতানুগতিক অনেক উন্নতি করছে প্লটেই বুঝা যায়। এবারের গল্পের মোড় ও সেটিং দারুণ হয়েছে লথিফ ভাই। সবাইকে খুশি করতে পেরেছেন। আমি অনেক খুশি হয়েছি গল্পের এই অংশের অবতারনা। ভাল থাকবেন লতিফ ভাই।

২৮ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ২:০৬

বলেছেন: আবারো প্রিয় সুজন ভাই,,,
গল্পটির এমন সুমিষ্ট মূল্যায়নে যারপরনাই লজ্জিত হলাম।।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.