নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

খুবই সাধারন একজন মানুষ । পড়া যার নেশা । পড়ার এবং জানার আশায় ----

মোহামমদ কামরুজজামান

মোহামমদ কামরুজজামান › বিস্তারিত পোস্টঃ

:(( "ভুল":(( !!!!!!!!!!!!! দেশের বার্ষিক রফতানি হিসাবে প্রকৃত পরিমাণের চেয়ে ১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বেশি :(

০৯ ই জুলাই, ২০২৪ দুপুর ১:০৫


ছবি - dailynayadiganta

বাংলাদেশে সাধারনতঃ জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কাছ থেকে প্রাথমিক তথ্য নিয়ে পণ্য রপ্তানির হিসাব প্রকাশ করে থাকে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)।আর সেই হিসাবে গত ১০ বছরের মধ্যে ৯ বছরই এনবিআরের চেয়ে রপ্তানির হিসাব বেশি দেখিয়েছে ইপিবি। তবে গত তিন অর্থবছরের রপ্তানির হিসাবে বড় গরমিল হয়েছে। দুই সংস্থার তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, গত তিন অর্থবছরের ৩৪ মাসে এনবিআরের চেয়ে ২ হাজার ২৬১ কোটি ডলারের রপ্তানি বেশি দেখিয়েছে ইপিবি। তার মধ্যে সংস্থাটি বিদায়ী অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) রপ্তানি বেশি দেখিয়েছে ১ হাজার ৭০ কোটি ডলারের। সাম্প্রতিক সময়ে দেশের রপ্তানি আয়ে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি দেখিয়ে আসছিল সরকারি সংস্থা রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)। কিন্তু দেশের প্রকৃত রপ্তানি কত, তা নিয়ে গত কয়েক বছর ধরেই প্রশ্ন তুলে আসছেন ব্যবসায়ী সহ অর্থনীতি বিশেষজ্ঞরা। লিংক - https://mzamin.com/news.php?news=117024

রফতানি আয়ের প্রকৃত হিসাব একটি দেশের মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপি থেকে শুরু করে অর্থনীতির বিভিন্ন সূচক নির্ধারণ এবং দেশের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থনৈতিক নীতি ও পরিকল্পনা প্রণয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। সম্প্রতি রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) থেকে প্রকাশিত বাংলাদেশের ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসের রফতানি আয়ের হিসেবে বড় ধরনের অসামাঞ্জস্য ধরা পড়েছে। বাংলাদেশে রফতানি বার্ষিক হিসাবে প্রকৃত পরিমাণের চেয়ে ১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বেশি দেখানোর ঘটনা বিভিন্ন মহলে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। ইপিবির তথ্যে বলা হয়, গত অর্থবছরের ১০ মাসে দেশে পণ্য রফতানি হয়েছে মোট ৪৭ দশমিক ৭৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। অন্য দিকে, বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাবে দেখা যাচ্ছে, ওই একই সময়ে রফতানি আয় এসেছে মাত্র ৩৩ দশমিক ৬৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

ফলে দেশটির জিডিপি, মোট জাতীয় উৎপাদন (জিএনপি), বিদেশি বিনিয়োগ, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ, ঋণ গ্রহণের নীতি লেনদেনের ভারসাম্য-সহ অর্থনীতির অনেক সূচক এবং নীতির যথার্থতা নিয়েও এখন প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।সরকারি তথ্য বা পরিসংখ্যানে বিশ্বাসযোগ্যতার ঘাটতি দেখা দিলে সেটি দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বাধাগ্রস্ত করতে পারে।

যদিও দেশের রাজনীতি-অর্থনীতি নিয়ে সরকারের সফলতার দাবী কিংবা উন্নয়নের পরিসংখ্যানের সাথে দেশ-বিদেশের বেশীরভাগ সুধীজন- অর্থনীতিবিদরা একমত নন। এমনকি দেশের সাধারন মানুষেরাও সরকারের সফলতার দাবী কিংবা উন্নয়নের পরিসংখ্যানের সাথে বেশীরভাগ সহমত নয় তারপরও সবাই ভাবে যে, সরকার যা বলে তা হয়ত সঠিক হতেও পারে( যদিও বাস্তবতা ভিন্ন কথা বলে)।

সব মিলিয়ে এটি দেশের ভাবমূর্তিকে ঝুঁকির মুখে ফেলে দিয়েছে। যদিও বিষয়টিকে একটি :(( "ভুল" :(( হিসেবে বর্ণনা করেছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। তিনি বলেন, "তিন সংস্থার সমন্বয়হীনতায় রপ্তানির তথ্যে গরমিল"।- Click This Link


দায়ী কে ?

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর প্রতিবেদনে তথ্যের বড় ধরনের যে অসামাঞ্জস্যতা দেখা যাচ্ছে, সেটির দায় কোন প্রতিষ্ঠানই সরাসরি স্বীকার করছে না। এ ঘটনায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ও রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) ওপর দায় চাপিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কর্মকর্তরা দাবি করেছেন যে এনবিআরের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতেই তারা রফতানির তথ্য প্রকাশ করেছেন।"কাজেই এটি আমাদের ভুল, সেটি বলা যাবে না",বিবিসি বাংলাকে বলেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে রাজস্ব বোর্ড এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে ইপিবি যৌথভাবে কাজ করছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।"আমরা একসাথে বসছি এবং সমস্যার মূলটা খুঁজে বের করে সমাধানের চেষ্টা করছি", বিবিসি বাংলাকে বলেন ওই কর্মকর্তা। লিংক - Click This Link

এদিকে,ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকেও অতীতে বিভিন্ন সময়ে এ বিষয়ে অভিযোগ জানানো হয়েছে বলে জানা গেছে। "২০২২ সাল থেকেই আমরা বলছি যে, ইপিবির রফতানি তথ্যে ভুল আছে। কিন্তু আমাদের কথা সেভাবে আমলে নেয়া হয়নি" - বিবিসি বাংলাকে বলেন বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিকেএমইএ) নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম।
(ষড়যন্ত্র করে রপ্তানিতে ভুল তথ্য দেখিয়ে নগদ প্রণোদনা কমানো হয়েছে: বিটিএমএ সভাপতি)। লিংক - Click This Link

অর্থ্যাৎ অনেক আগে থেকেই ইচছাকৃত কিংবা অনিচছাকৃত ভাবে চলে আসছে এ ভুলের চর্চা।

এখন কোটি টাকার যে প্রশ্ন - তা হলো সরকার/প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেশের রাজনীতি-অর্থনীতির উন্নয়ন নিয়ে যে সব সফলতার দাবী করা হয়, সেসবেও কি রফতানি তথ্যের মত একরম কোন ভুল X(( (গরমিল) আছে কিনা?


তথ্যসূত্র -

১।রফতানি আয়ে ১৪ বিলিয়ন ডলার বাড়িয়ে দেখানোর নেপথ্যে- Click This Link
২।১৪ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি তথ্য সংশোধন, আর্থিক হিসাবে বড় পরিবর্তন - Click This Link
৩। গত তিন অর্থবছরেই রপ্তানির হিসাবে বড় গরমিল । ইপিবি গত তিন অর্থবছরের ৩৪ মাসে এনবিআরের চেয়ে ২ হাজার ২৬১ কোটি ডলারের রপ্তানি বেশি দেখিয়েছে। - https://www.prothomalo.com/business/pn0tth48ba
৪। প্যান্ডোরার বাক্স খুলে কী বার্তা দিল বাংলাদেশ ব্যাংক।(বিশ্লেষণ-সানাউল্লাহ সাকিব,ঢাকা)। - Click This Link
৫। পাঁচ বছরে ৩৬ হাজার কোটি টাকার নগদ প্রণোদনায় রফতানি গরমিলের প্রভাব আছে - Click This Link
৬।রফতানির সঠিক তথ্য প্রকাশে বাংলাদেশ ব্যাংক-এনবিআরের সাথে সমন্বয় করবে ইপিবি - Click This Link

মন্তব্য ১ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (১) মন্তব্য লিখুন

১| ১০ ই জুলাই, ২০২৪ সন্ধ্যা ৬:১৭

পারস্যের রাজপুত্র বলেছেন: সব হিসাব আবার নতুন করে করতে হবে

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.