নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

হাজার হাজার অসাধারন লেখক+ব্লগারের মাঝে আমি এক ক্ষুদ্র ব্লগার। পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া লেখালেখির গুণটা চালিয়ে যাচ্ছি ব্লগ লিখে... যখন যা দেখি, যা মনে দাগ কাটে তা লিখি এই ব্লগে।

সোহানী

আমি অতি বিরক্ত হয়ে আমার অনেক লিখাই ড্রাফটে নিয়েছি কারন সামুতে আমার কিছু ভাবনা শেয়ার করছি, আর এ ভাবনা গুলো আমার অনুমতি ব্যাতিরেকে কপি না করার অনুরোধ করেছিলাম কিন্তু যত্রতত্র আমার লিখার কপি পেস্ট দেখেই যাচ্ছি দিনের পর দিন।

সোহানী › বিস্তারিত পোস্টঃ

বেকার বন্ধুদের জন্য ফ্রি উপদেশ - (ইন্টারভিউ প্রসেস) ........ পর্ব-১০

০৮ ই এপ্রিল, ২০১৪ দুপুর ১২:৫৩

যাদের চাচা/মামা নাই নিদেন পক্ষে রাজনৈতিক মামু ও নাই তাদের জন্যই শুধুমাত্র আমার পর্বগুলি। অন্যদের পড়ার দরকার নাই..............।



আগের পর্বগুলোতে সিভি রাইটিং এর ক্ষেত্রে বেসিক কিছু দিকনির্দেশনা ও সিভি তৈরীর প্রয়োজনীয় টিপস্ ছিল...... এ পর্বে ইন্টারভিউ ফেইস করার পূর্ব এবং পরবর্তী টিপস্ নিয়ে আসলাম... যা হয়তো তোমাদের কাজে লাগলে ও লাগতে পারে।

তো যা বলছিলাম.... তোমার চমৎকার সিভি দেখে বা তোমার অসাধারন রিটেনে রেজাল্টের পর তোমাকে ইন্টারভিউতে ডাকলো তারপর তোমার করনীয় কি হবে??? তুমি কি খুব নার্ভাস হয়ে যাবে :-*:-*:-*???? বা মনে মনে ভাববে যে, তোমার যেহেতু কোন চাচা/মামা নাই নিদেন পক্ষে রাজনৈতিক মামু ও নাই অত:পর তোমার চাকরী হবার কোন চান্সই নাই :((:((:((!!!!!!!

অবশ্যই তুমি ভুল ...... কারন ভাগ্না ভাইস্তাদের দিয়ে যে কোন কাজ হয় না তা চাচা/মামারা ও জানে। অত:পর তোমাদের মতো কিছু উদ্যোমী, সিনসিয়ার, কোয়ালিফাইড ছেলে মেয়ে তাদের ও দরকার। তোমরা সেই সুযোগটাই কাজে লাগাবে। আর ইন্টারন্যাশানাল অর্গানিজাইশনে সত্যিকারের কোয়ালিফাইড ছেলে মেয়েকেই চায় তারা ভাগ্না ভাইস্তা না।



অনেক বক বক হলো... কিন্তু আমার বকবক গুলো তোমাদের জাগিয়ে তোলার জন্য অবশ্যই.. হতাশ হবার জন্য নয় কিছুতেই। মনে রেখ হতাশ হয়েছতো মরেছো......

এবার আসি আসল কথায়.... কি করবে তুমি ইন্টারভিউ নিয়ে। সাধারনত: একেকটি ইন্টারভিউ ২০ মিনিট থেকে ৪০ মিনিট পর্যন্ত হয়। অনেক্ষন তোমাকে রাখলে হতাশ হবে না কিছুতেই কারন বেশিক্ষন রাখা মানে তোমাকে তাদের পছন্দ হয়েছে এবং আরো ভালোভাবে তোমাকে জাজ করতে চায়। এ ২০ মিনিট থেকে ৪০ মিনিট কিন্তু খুবই গুরুত্বপূর্ন কারন এ কয় মিনিটেই তোমাকে যাচাই বাছাই করা হবে।

তবে মনে রাখবা তোমার সিভিই কিন্তু প্রাথমিক স্টেপ তারপর রিটেইন এক্সাম এবং ফাইনাল হলো ইন্টারভিউ । যদি তুমি সবগুলোতে ভালো করো তবেই তো কাঙ্খিত ফল..... চাকরী। কাজেই প্রতিটিরই সমান প্রস্তুতি দরকার।

এপর্যায়ে তোমার প্রস্তুতিকে আমি দু'ভাগে ভাগ করি। ইন্টারভিউ ফেইস করার আগের প্রস্তুতি ও ইন্টারভিউ চলাকালীন তোমার ভূমিকা।

ইন্টারভিউ ফেইস করার আগের প্রস্তুতি :

১) যে প্রতিস্ঠান থেকে তুমি ডাক পেয়েছে তার সম্পর্কে খোঁজ নিবে। এখন ইন্টারনেটে সব প্রতিস্ঠান এরই ওয়েবসাইট আছে তাই ভালোভাবে তাদের সম্পর্কে জেনে নিবা ও নিজেকে প্রস্তুত করবা।



২) যে পজিশানের জন্য ইন্টারভিউ দিচ্ছ তার জেডি বা কাজের বর্ননা যদি থাকে তা ভালো ভাবে পড়ে যাবা আর এ কাজ সম্পর্কে তোমার পূর্ব অভিঙ্গতা যদি থাকে তাহলে সম্ভাব্য উত্তর রেডি করে যাবা। নিজেকে প্রস্তুত না করে গেলে তোমার সম্পর্কে পজিটিভ ইম্প্রেশান তৈরী হবে না কিছুতেই।



৩) ইন্টারভিউতে সময় মতো হাজির হওয়া অত্যন্ত জরুরী। প্রয়োজন হলে লোকেশান আগেই জেনে নিবা। ইন্টারভিউর দিন লোকেশান খুঁজতে যেনো পাগল হতে না হয়। আর সময়ের অনেক আগেই পৈাছাবা..... কোন মতেই দেরী করবা না।



৪) যদি কোন কাগজপত্র নিতে বলে তা অবশ্যই নিবা .... কোন কিছুই মিস করবা না তবে আগে থেকেই রেডি করে রাখবা সবকিছু। শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি কখনই ভালো হয় না।

৫) ইন্টারভিউতে ড্রেসকোড একটা বিশাল ফেক্টর। যতই আমেরিকান কালচার ফলো করো না কেন কবি শেখ সাদীই কিন্তু সত্য। খুব চমৎকার ড্রেসই পড়তে হবে তা নয় তবে পরিস্কার, ফিটফাট, খুব কালারফুল নয় এমন ড্রেসই বেছে নিবা। অনেককে দেখি হাফ প্যান্ট পড়ে ইদানিং অফিসেও আসে .... তারা ভাবে তাদেরকে খুব স্মার্ট লাগে কিন্তু সত্যিকারে তাদের ময়ুরের পাখায় কাকের মত লাগে...:P:P:P:P:P:P যা আমার খুবই অপছন্দ...। যাউগ্গা......



আজ থাক এটুকুই......... বাকি পর্বটা নেক্সট.... তবে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় বটে!!!!!!

আগের পর্ব যদি পড়তে চাও....
http://www.somewhereinblog.net/blog/belablog/29939072

মন্তব্য ২ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (২) মন্তব্য লিখুন

১| ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:১৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: খুবই দরকারী কিছু কথা, তবু মনে হচ্ছে যাদের জন্য এসব লেখা হয়েছে, তাদের অনেকেই হয়তো এ লেখা পড়েন নি। যাহোক, আপনার পরিশ্রমের ফসল এখানে রয়ে যাবে। কেউ না কেউ কোনদিন পড়ে উপকৃত হতে পারে।
পোস্টে প্লাস + +

০৫ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ২:০২

সোহানী বলেছেন: খায়রুল ভাই, লিখাটা ২০১৭ হলেও আপনিই প্রথম মন্তব্যকারী ও প্রথম প্লাস প্রদানকারী। তার মানে এ দাঁড়ায়, কারোই চাকরীর দরকার নেই। দেশে সবাই ভালো আছে.......হাহাহাহাহা

অনেক ধন্যবাদ লিখাটা পড়ার জন্য। আসলে যে সময়ে লিখাটা পোস্ট করেছিলাম সে সময়টা আমি খুব ব্যাস্ত ছিলাম। তাই পুরো লিখাতে একটা তাড়াহুড়ার ছাপ। বেসিক পয়েন্টগুলো কিন্তু এখনো কার্যকর......

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.