নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

rm -rf /

আর্কিওপটেরিক্স

Cyber security

আর্কিওপটেরিক্স › বিস্তারিত পোস্টঃ

কিউটের ডিব্বা ! (সম্পূর্ণ)

২২ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১২:২৯


বাচ্চাটা কিছুতেই আসতে চায় না। মায়ের কোলেই থাকে। হঠাৎ সামনে পড়লে গুটিগুটি পায়ে দূরে চলে যায়। তার সাথে কান্নাকাটি তো আছেই।

কি সুন্দর বাবু ! লাল গালটা শুধু টিপে দিতে ইচ্ছে হয়। বয়স একবছরও হয় নি। তবুও নতুন কেউ এলেই উনার দেখা নেই। তাকাতেও কি ভয় ! যেন রাক্ষস-খোক্কস এলো। মায়ের কোলই যেন শেষ আশ্রয় !

কি করা যায় ! ভেবে পাই না। যেভাবেই হোক বাবুটাকে কোলে নিতেই হবে। ওকে আদর না করলে আমার আসাটাই বৃথা !

একটা প্ল্যান করলাম। বাবুর মাকে ফোন করলাম না। বাবু নাকি মায়ের ফোনে কথা বলার মাধমেই বুঝতে পারে কেউ আসছে। এত্তটুকুন বাবু কিভাবে যে বোঝে ! আমার হাই আই-কিউ মস্তিষ্কও ফেল ওকে বুঝতে। কুট্টি জিনিয়াস একটা !

প্ল্যানটা হলো একটা বড় টেডি বিয়ার কিনলাম। লাল টুকটুকে। শুনেছিলাম ওর নাকি একটা আছে, কিন্তু ছোট। সারাদিনই উনি ওটা নিয়ে ঘোরেন। যাইহোক, পুরো একসেট চিপস সাথে নিয়েছিলাম। উনি নাকি চিপসও খান। সাথে কিছু খেলনা। সো চিন্তা ডান এ্যান্ড ওয়ার্ক অন........

ট্রেনটা যথাসময়ে স্টেশনে এলো। যথারীতি ট্রেন হতে নামা এ্যান্ড রিকশা নেওয়া। চিপস আর টেডি বিয়ার দুটো আলাদা ব্যাগে ভরা। সাথে আমার ছোট ব্যাকপ্যাক। রিকশা চলতে শুরু করলো...........

বাসায় পৌঁছে কলিংবেল টিপা এন্ড ইয়েস ! বাবু ইন দ্যা কোল অফ মাদার। উনি নাকি আগেই বুঝে গেছেন। কিভাবে বুঝলো আল্লাহ জানে !

আড় চোখে একবার বাবুর দিকে তাকালাম। তাকাতেই মাকে আরো শক্ত করে জড়িয়ে ধরলো। আহারে বেচারা !

ফ্রেশ হয়ে খেতে বসলাম। আমার আসার এতোটা সময়েও উনি মায়ের কোল থেকে নামেন নি। তাই বাধ্য হয়ে বাবুর মাকে বাবুসহই রান্না করতে হলো। বাবুর মার রান্না বরাবরই অসাধারণ। কিন্তু বেশি কিছু রাঁধতে পারেনি। যেটুকু করেছে সেটুকুই অমৃতের মতো খেয়ে নিলাম। খাওয়ার পুরোটা সময় লুকিয়ে লুকিয়ে বাবু আমাকে দেখছিলো। আমি কিন্তু তাকাচ্ছিলাম না। কারন বাবুকে এখন পাত্তা দেওয়া যাবে না।

খাওয়া শেষে বাবুর ভাইয়ের রুমে ঘুমিয়ে পড়লাম। জার্নির যে ধকল গিয়েছে ! সুন্দর একটা ঘুম দিলাম।

ঘুম থেকে উঠে দেখি দরজার পর্দার নিচে ছোট্ট ছোট্ট পা। বুঝলাম আমার প্রতি বাবুর কৌতুহল আছে ! বাবুর ভাইকে ডাকলাম। ও-ই বললো বাবু নাকি এদিকে প্রায়ই লুকিয়ে দেখে গেছেন। আমার কাছে এটা শুভ লক্ষণই বটে !

আমার উঠে পড়ার আভাস পেয়েই বাবু আবারো মায়ের কোলে। ওদের সাথে অনেক কথা বললাম। বহুদিন পরে আসা। শত কথা লুকিয়ে আছে !

একসময় বাবু ঘুমিয়ে পড়লো। ছোট্ট মুখটা দেখতে দারুণ কিউট লাগছিলো। যেন একটা পুতুল !

বাবুর ঘুমের সময়েই আমাকে যা করার করতে হবে। বাবুর মা ও ভাইকে সবকিছু বুঝিয়ে বললাম। বাবুর মা বললো, "তুমি পারো বটে ! "

বাবুজি ঘুমাচ্ছেন। আর আমি প্রস্তুত হচ্ছি বাবুকে পটানোর জন্য। প্রথমেই ব্যাগ থেকে কিছু খেলনা ও চিপসের প্যাকেট বের করলাম। তারপর বাবুর জেগে ওঠার অপেক্ষা.....

ইয়েস ! বাবুজির ঘুম ভাঙল অবশেষে ! উঠেই মাকে খুঁজছে। আমি সন্তপর্ণে বাবুর হাতে একটা চিপসের প্যাকেট ধরিয়ে দিয়ে চলে এলাম পাশের ঘরে। বাবু চোখ বড়ো বড়ো করে তাকিয়ে আছে। অতঃপর ক্রন্দন। যা কিনা চিপস মুখে নেওয়ার পরই কমলো। আমি পাশের রুমে অপেক্ষা আছি। বাবু কি আসবে???

নাহ, এলেন। হাতে চিপসের প্যাকেট নিয়ে। আমার দিকে একবার তাকালো। তারপর চিপসের প্যাকেটটা দেখালো ছোট্ট হাত বাড়িয়ে। তবে কি আমার জয় হলো?? কালক্ষেপণ না করে টেডি বিয়ারটা ওর দিকে এগিয়ে দিলাম। নিলো। তারপর মিষ্টি একটা হাসি দিলো। বরফ এখন পানিতে রূপান্তরিত হয়েছে। বাবুর মা অবাক। হেসে বললোঃ" তাহলে অবশেষে .... "।

এরপর থেকে ও আমার সার্বক্ষনিক সঙ্গী হয়ে যায়। পিছু ছাড়তে চায় না। যতদিন ছিলাম ততদিনই এই দশা। তবে গরম পানির বিড়ম্বনা ছিলো। একেই বোধহয় মধুর সমস্যা বলে !

মন্তব্য ২২ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (২২) মন্তব্য লিখুন

১| ২২ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৩

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: বাবুরা আশেপাশে থাকলে সময়টাই মূল্যবান হয়ে উঠে
সুখে ভরে যায় পরিবেশ

সুন্দর পোস্ট

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:১৩

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: সহমত আপু :)

শুভকামনা

২| ২২ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:২৯

ইসিয়াক বলেছেন: সুন্দর। বাবুটা সুন্দর বাবুটার গল্পটাও সুন্দর।

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:১৩

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: ধন্যবাদ :)

৩| ২২ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৩৮

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
পোস্ট তো সুন্দর।

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:১৩

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: ধন্যবাদ :)

৪| ২২ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:১১

রাজীব নুর বলেছেন: আর একটা কিউটের ডিব্বা দেখাই-

১।

২।

৩।

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:১৪

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: রাজীব ভাই আপনার পরী আসলেই কিউটের ডিব্বা !

ওর জন্য অসংখ্য দোয়া এবং শুভকামনা :)

৫| ২৩ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ২:৫৬

আনমোনা বলেছেন: সোওওওওওওওওও কিউট। ডিব্বাটি কে? আপনার ভাগ্নী/ভাস্তী? না অন্য কেউ?

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:১৭

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: ডিব্বা আমার কাজিন। এটা অনেক কাল আগের কথা .....

৬| ২৩ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৩:০৪

সোহানী বলেছেন: তুমি এ বাচ্চাকে পটানোর জন্য এতো ঘুষ??? আমারে খবর দিও মাঁচ মিনিটের মামলা। আমার কিছু ট্যাকনিক আছে, ঘুষ বিহীনই আমার পিছে পিছে ঘুরে.............

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:১২

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: এই তো তোমাকে খবর দিলাম :-B

তাড়াতাড়ি এটা নিয়ে একটা পোস্টু করে ফেল :)

৭| ২৩ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:১৪

নীল আকাশ বলেছেন: যাক পুরো লেখাটা একবারে পড়ে ফেললাম। ভাল লেগেছে। ছোট বাচ্চারা হলো ফেরেস্তাদের মতো, দেখলেই আদর করতে ইচ্ছে করে।

@সোহানী আপু, টিপস গুলি শুধু একে দিবেন কেন? ভাল মতো লিখে একটা জবরদস্ত পোস্ট দিয়ে দিন, আমাদের সবারই উপকার হতো!!
ধন্যবাদ।

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:২০

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আসলে দেরীই হয়ে গেল লেখাটি সম্পূর্ণ করতে !

শিশুরা এ দুনিয়ায় স্বর্গের জ্যোতি ছড়ায়....

আমিও আপুনিকে পোস্ট করার কথা বলেছি।

শুভকামনা...

৮| ২৩ শে আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:১৮

শায়মা বলেছেন: হা হা অনেক মজার!!!!

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:২২

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: মজা সাজা দুটোই :(

আসলে গরম জলের কথা বলছি ;)

৯| ২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:১৫

ইসিয়াক বলেছেন: উত্তর পেতে এত দেরী হয়ে গেলে ভালো লাগে কি ?

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:২৪

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: ২ দিন পরে উত্তর দিলাম তো !!!

অনেক পুরনো ব্লগার ২-৩ বছর পরেও উত্তর দেন।

আসলে সময় বের করাটাই মূখ্য !

১০| ২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৩১

ইসিয়াক বলেছেন: এমনি বললাম। প্লিজ কিছু মনে করবেন না । সরি
শুভসন্ধ্য ।

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৩৩

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: নোপ... কিচ্ছুটি মনে করিনি :)

শুভকামনা ....

১১| ২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৩৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: অবশেষে বিশ্ব জয়!

আমার আবার কিউটের ডিব্বা ভাগ্য খুবই ভাল ;)
একবারতো এয়ারপোর্টে বিতিকিচ্চিরি অবস্থা! আমিও ওয়েটিংএ ডিপারচারে।
কিউটের ডিব্বা ফ্যামিলিও। কিছুক্ষন পর ওরা আগ্রহে বাধ্য হলাম কোলে নিতে।
ব্যাস পুরা টাইম মাস্তিতে।
এখন যাবার সময়। ওরা মা নিতে চায় যায় না। আত্মীয় স্বজন! উহু কারো কাছে না।
আমার গলা আকড়ে ধরে গভীর ভাবে! এদিকে ফেরার সময়। তাদেরও যাবার সময়।
মনে পাষান বেঁধে জোর করে ছূটিয়ে দিলাম :((
পুরা রাস্তা যতক্ষন আমাকে দেখা গেছে দু হাত মেলে কাঁদছে তারস্বরে!!!
পিছন ফিরে আর তাকাইনি! বুকের কষ্ট বুকে পুষে চলে এসেছি! তবে মনে রয়ে গেছে তার অকৃত্রিম টান!

২৪ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৪৫

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: হুম.... বিশ্ব জয়ই বটে ;)

আপনার কুট্টি ঘটনা শুনে হাসি-কান্না দুটোই এলো। এরকম পরিস্থিতিতে আমিও পড়েছি। বাবু আর যায় না :( । তারপর জোর করেই বিচ্ছেদ হলো !

এসব খুদে জিনিয়াসদের কাকে ভালো লাগলে হলো... আসবেনই...


পাঠে কৃতজ্ঞতা...

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.