নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ঢাবিয়ান

ঢাবিয়ান › বিস্তারিত পোস্টঃ

বাসায় বসে চিকিৎসা নেয়া করোনা রোগীদের সুস্থ হবার হার বেশি

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৩:৫৬

পহেলা জুন থেকে এই বিশ্বের প্রায় বেশিরভাগ দেশেই লকডাউন উঠিয়ে দেয়া হচ্ছে। তবে বেশিরভাগ দেশেই লকডাউন এর মাধ্যমে করোনা পরিস্থিতি কন্ট্রোলে আনা হয়েছে। বাংলাদেশে কার্যকরী লকডাউন না দেয়ায় করোনা সংক্রমন নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব হয়নি। যে সব হাসপাতালে করোনার চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে সেসব হাসপাতালের অবস্থা শোচনীয়। কার্যকরী পিপিই না থাকায় সব হাসপাতালেই ডাক্তার ও স্বাস্থকর্মীরা ব্যপক হারে করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে । হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা সেবা একরকম নেই বললেই চলে। করোনায় মৃতূবরন করা বেশীরভাগ রোগীরই মৃত্যূ হচ্ছে হাসপাতালে।

বাংলাদেশে ডাক্তাররা এখন বাসায় বসে করোনা রোগের চিকিৎসা নেয়ার ওপড় জোড় দিচ্ছেন। দেখা গেছে বাসায় চিকিৎসা নেয়া রোগীরা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠছে। করোনা জয়ী প্রচুর মানুষের ভাষ্য থেকে জানা গেছে যে তারা সবাই বাসায় ডাক্তারের প্রেস্ক্রিপশন মাফিক ঔষধের পাশাপাশি ঘরোয়া চিকিৎসা নেয়ার মাধ্যমে সুস্থ হয়েছেন। ঘন্টায় ঘন্টায় মধু, আদা লেবু মেশানো গরম পানি পান, গরম পানির ভাপ, ঘাম হলেই সঙ্গে সঙ্গে গরম পানি দিয়ে শরীর স্পঞ্জ , এসি ব্যবহার না করা , পাতলা আরামদায়ক কাপড় পরিধান ইত্যাদি ঘরোয়া চিকিৎসায় কাশি মারাত্মক আকার ধারন রোধ করা সম্ভব। কাশি মারাত্মক আকার ধারন না করলে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হবার আশংকাও কমে যায় যার ফলে শ্বাষকষ্টও তৈরী হয় না। এই ঘরোয়া চিকিৎসা সেবা হাপাতালে পাওয়া সম্ভব নয়। তাই ইমার্জেন্সী না হলে ডাক্তাররা সবাইকে ঘরেই চিকিৎসা নিতে উৎসাহিত করছেন। এমনকি শ্বাষকষ্ট হলেও ডাক্তাররা বাসায় অক্সিজেন সিলিন্ডার রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন।অক্সিজেন স্যচুরেশন মাপার যন্ত্রও সিলিন্ডার এর সাথে দিয়ে দেয়া হচ্ছে। এ কারনে ঘরেই বসেই এখন জানা সম্ভব রোগীর অবস্থা কোন পর্যায়ে আছে। করোনার সাথে লড়াই এ আরেকটা ঔষধ হচ্ছে মনোবল। যে কোন পরিস্থিতিতেই মনোবল শক্ত রেখে লড়াই করতে হবে এই ভাইরাসের সাথে।

এক ডাক্তার আত্মীয় বলেছেন যে জ্বর কাশি হলেই এখন করোনা টেস্টের জন্য দৌড়ানোরও দরকার নাই। জ্বড় , কাশি হলে দরকার চিকিৎসা। সেটা টেস্ট এর রেজাল্ট পজিটিভই হোক বা নেগেটিভ হোক। আর চিকিৎসাও একই। গবেষনায় জানা গেছে যে করোনায় আক্রান্ত রোগী ১১ দিন পার হয়ে গেলে আর করোনা ছড়াতে পারে না। তাই প্রাথমিকভাবে করোনার উপরর্গ দেখা দিতেই যারা দৌড়ে টেস্ট এর জন্য যাচ্ছেন, তারাই করোনা চারপাশে ব্যপকহারে ছড়াচ্ছে।

লকডাউন উঠিয়ে দিয়ে সব খুলে দেয়া হচ্ছে। এই অবস্থায় সচেতনতা এখন সবচেয়ে বেশি জরুরী।জ্বর হলে কোন অবস্থাতেই বাসার বাইরে না গিয়ে , ঘরে বসেই চিকিৎসা নিন এবং নিজেকে একটি ঘরে আইসোলেট করে রাখুন। ডাক্তারের পরামর্শ মাফিক ঔষধ খান, ঘরোয়া চিকিৎসা নিন। সুস্থ হবার গ্যরা্নটি এতেই বেশি।

মন্তব্য ২৪ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (২৪) মন্তব্য লিখুন

১| ২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:১০

রাজীব নুর বলেছেন: ঘরে বসে কিভাবে করোনা রোগী সুস্থ হবে এই ব্যাপারে সরকার থেকে ঘোষনা দেওয়া হলে ভালো হবে।

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:৪৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: সরকারের অপেক্ষায় থাকলে এই দেশের মানুষের খবরই আছে!! এই দেশে মানুষকে টিকে থাকতে সম্পুর্ন নিজের প্রচেষ্টায়।

২| ২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:৩৯

লাইলী আরজুমান খানম লায়লা বলেছেন: সচেতনতামূলক পোস্ট ---আমি ৥ রাজিব নুর ভাইয়ের সাথে একমত

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:৫৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: দুই মাসের লকডাউন এর মাধ্যমে এই বিশ্বের বেশিরভাগ দেশই করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়েছে কিন্ত বাংলাদেশ হয়নি। বাংলাদেশে যদি কার্ফু জারী করে লকডাউন দেয়া হত তাহলে অন্যান্য দেশের মত করোনা পরিস্থিতি এদেশেও অনেকখানি নিয়ন্ত্রনে এসে যেত। কাজেই অন্য দেশের সাথে আমাদের দেশের তুলনা করে লাভ নাই। এই দেশে মানুষকে বাচঁতে হয় সম্পুর্ন নিজের প্রচেষ্টায়।

৩| ২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:৫৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ভালো পরামর্শ। করোনা আক্রান্ত রোগী ১১ দিন পর আর করোনা ছড়াতে পারে না- এটা একটু ব্যাখ্যা করে বলুন।

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:০৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ১১ দিন পর রোগীরা আর অন্য কাউকে আক্রান্ত করতে পারে না। এমনকি নিজেরা পজিটিভ থাকলেও তখন আর অন্যদের সংক্রমিত হওয়ার ভয় থাকে না।

ব্লুমবার্গের খবরে বলা হয়, সিঙ্গাপুরের সংক্রমণ বিশেষজ্ঞরা ৭৩ জন করোনা রোগীকে পর্যবেক্ষণের পর নতুন এক গবেষণায় এ ফল পেয়েছেন।

সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল সেন্টার ফর ইনফেকশাস ডিজিস এবং একাডেমি অব মেডিসিন যৌথ ওই গবেষণা করেছে। গবেষকরা বলছেন, অসুস্থ হওয়ার ১১ দিন পর আর কেউ অন্যদের আক্রান্ত করতে পারে না।
কলিংক ঃ প্রিয় ডট কম

মুল খবরটা নীচের লিংকে দেখুন
https://www.straitstimes.com/singapore/health/covid-19-patients-no-longer-infectious-11-days-after-getting-sick-research-shows

৪| ২৮ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১৮

আরোগ্য বলেছেন: খুব ভালো পোস্ট দিয়েছেন ঢাবিয়ান ভাই। আমার অবস্থা গুরুতর ছিলো তবুও হাসপাতালে এডমিট হইনি। যথা সম্ভব কিছুদিন আইসোলেশনে থেকে পর্যাপ্ত চিকিৎসা চালিয়েছি। গরম পানি, মদু কালিজিরা এসব তো খেতেই হবে। আলহামদুলিল্লাহ এখন যথেষ্ট ভালো আছি।

২৮ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১১

ঢাবিয়ান বলেছেন: খুব ভাল খবর আরোগ্য। আপনি কি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন? যদি করোনায় আক্রান্ত হয়ে থাকেন তবে আপনার করোনা জয়ের গল্প সোস্যাল মিডিয়ায় বেশি করে শেয়ার করুন। চারপাশের মানুষ এতে সচেতন হবে এবং আতংকিত কম হবে।

৫| ২৮ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২০

আরোগ্য বলেছেন: আর এমতাবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়া আমার মতে কারোরই উচিত না। চিকিৎসা ব্যবস্থা কত উন্নত তা না ই বলি। নিজেরা সতর্ক থাকুন ও বাসায় চিকিৎসা নেয়ার ব্যবস্থা করুন।

২৮ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: বেশ কিছু নিকট আত্মীয় যারা দেশে সরকারী ও বেসরকারী হাসপাতালে সিনিয়র পদে চাকুরি করছে , তাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য নিয়েই আজকের এই পোস্ট লিখেছি।স্বাস্থ্যব্যবস্থা একপ্রকার ভেঙ্গে পড়েছে হাসপাতালগুলোতে।

৬| ২৮ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫১

চাঁদগাজী বলেছেন:


করোনার ভয়ে বাংগালী ডাক্তার ও নার্সরা রোগীর কাছেও আসে না; রোগী খাবারও পায় না; একই অবস্হা ছিলো আমেরিকার কিছু হাসপাতালে।

২৮ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২২

ঢাবিয়ান বলেছেন: একজন পরিচিত মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়ে শ্বাষকষ্ট নিয়ে কুর্মিটোলায় ভর্তি হয়েছিলেন। সেখানকার ভয়াবহ পরিস্থিতি দেখে সেই মুহুর্তেই বাসায় ফেরত আসেন। বাসায় বসে সিলিন্ডারে অক্সিজেন নিয়ে এখন মোটামোটি ভাল আছেন।

৭| ২৮ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২০

কল্পদ্রুম বলেছেন: একান্ত দরকার না হলে বাসায় থাকাটাই জরুরি।১১ দিনের ব্যাপারটা বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও একই কি না গবেষণা করে দেখা উচিত।আপাতত রেজাল্ট নেগেটিভ না আসা পর্যন্ত এই রোগ ছড়াতে পারে এটা ভেবে রাখা উচিত।সাবধানের মার নেই।

২৮ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩০

ঢাবিয়ান বলেছেন: একজন পরিচিত ডাক্তার যিনি নিজে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছেন তিনি বলেছেন যে , টেস্ট এর চাইতেও বেশি জরুরী বাসায় বসে চিকিৎসা নেয়া। টেস্ট করাতে গিয়ে বরং রোগী চারপাশের আরো একশ জনকে আক্রান্ত করছে।এরপর সেই বাসা লকডাউন করেও আদতে কোন লাভ হচ্ছে না। এর চাইতে জ্বর হলেই বাসায় অন্তত চোদ্দদিন আইসোলেশনে থেকে ডাক্তারের পরামর্শনুযায়ী চিকিৎসা নিয়ের এরপর পুরোপুরি সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত বাইরে বের না হলেই সবার জন্য মঙ্গল।

৮| ২৮ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৪

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: সরকারের অপেক্ষায় থাকলে এই দেশের মানুষের খবরই আছে!! এই দেশে মানুষকে টিকে থাকতে সম্পুর্ন নিজের প্রচেষ্টায়।

মন্তব্যের উত্তর চমতকার দিয়েছেন।

২৮ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ

৯| ২৮ শে মে, ২০২০ রাত ৮:১০

সাইন বোর্ড বলেছেন: হাসপাতালে গিয়েও যদি আশানুরূপ সেবা না পাওয়া যায়, তবে ও আশা ছেড়ে দেওয়ায় ভাল ।

২৮ শে মে, ২০২০ রাত ৯:১১

ঢাবিয়ান বলেছেন: সরকারী, বেসরকারী সব হাসপাতালের অবস্থাই বেহাল দশা। খোদ ডাক্তাররাই করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঘরে বসে নিজের চিকিৎসা করছে।

১০| ২৮ শে মে, ২০২০ রাত ১০:৫৬

নেওয়াজ আলি বলেছেন: হাসপাতাল হতে ভালো হয়ে রোগীর অভিজ্ঞতা শুনলে বা পড়লে ভয় লাগে খুব

৩০ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:৫১

ঢাবিয়ান বলেছেন: হাসপাতালে গিয়ে বেঁচে ফেরত আসাই কঠিন। বরং বাসায় চিকিৎসা নিয়েই সুস্থ হয়ে উঠছে বেশিরভাগ মানুষ।

১১| ২৯ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:২৫

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
করোনা রোগীর চিকিৎসা বা ঔসধ নেই। শুধু জ্বর কমানোর ট্যাবলেট প্যারাসিটামল বা টাইলনল, আর সিরিয়াস অবস্থায় ডাক্তারের পরামর্শে জিংক ট্যাবলেট। আর ভাল উচ্চ প্রটিন যুক্ত পুষ্টিকর প্রচুর খাওয়াদাওয়া, লেবু সরবত, তাজা অরেঞ্জ জুস।
যাদের ডায়াবটিজ, তারা বেশী খেতে পারে না, তাদের অবস্থাই বেশী খারাপ হয়।
নিউইয়র্কে বেশীরভাগ রোগিকে বাসায় থেকেই ফোন ও ওয়েভসাইট মারফত চিকিৎসা। ডিজিটাল থার্মোমিটার, ডিজিটাল অক্সিজেন মিটার আগেই কিনে রাখতে হয়। ডাক্তারকে ডেইলি রিডিং জানাতে হয়।
৭ দিন কমবেশী ভুগে ভাইটাল ৩ দিন, স্বাসকষ্ট হতে পারে নাও হতে পারে। স্বাসকষ্ট বেশী হলে হাসপাতালে ডেকে এক্সরে করে বলে তোমার ফুসফুস ভাল আছে, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া লাগবেনা, বাসায় যাও।
করোনা থেকে ভাল হয়ে সুস্থ হওয়াদের মুখে শোনা।

নিউইয়র্কের গভর্নরের তথ্যানুযায়ী নিউইয়র্কের হসপিটালগুলোতে ভর্তি হওয়া
রুগিদের ৬৮ শতাংশ বাসায় দরজা বন্ধ রেখেও আক্রান্ত হয়েছে।
১৮ শতাংশ করোনা পজেটিভ হয়েছে যারা হসপিটালের কর্মি। (নার্স,ডাক্তার,রোগীর সহকারী ও অন্যান্য)।
১ শতাংশ এসেছে কারাগার থেকে সংক্রমিত হয়ে।
১৪ শতাংশ ভর্তিরুগীরা জরুরি কর্মি, পুলিশ, ডেলিভারি ম্যান ও লকডাউন না মেনে রাস্তায় ঘুরাঘুরি করা সাধারন লোকজন।

লকডাউন পদ্ধতি মোটামোটি ব্যার্থ হয়েছে চীন হংকং বাদে সবদেশেই।
শীর্ষ আক্রান্ত প্রথম ৭টি দেশই কিন্তু কঠিন লকডাউন দিয়েছিল। কিন্তু লাভ হয় নি।
অথচ লকডাউন না দিয়েও সুইডেন আছে ৮ নাম্বারে।

৩০ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:৫৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: এশিয়ার বেশিরভাগ দেশই লকডাউন দিয়ে সুফল পেয়েছে। করোনা এখন অনেকটাই কন্ট্রোলে এসেছে। ইউরোপেও এসেছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। কন্টাক্ট ট্রেসিং এর আওতায় আনা হয়েছে বেশীরভাগ দেশের জনগনকে । যে কারনে করোনা ছড়িয়ে পড়ার আশংকাও কমে গেছে অনেক।

বাংলাদেশে এখন হার্ড ইমিউনিটিই একমাত্র রাস্তা। তাই ঘরে বসে যদি বেশিরভাগ মানুষ সুস্থ হয়ে উঠে, তবে হয়ত কমিউনিটিতে হার্ড ইমিউনিটি গড়ে উঠতে পারে।

১২| ২৯ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:২৮

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন:

বাঙালি হচ্ছে একটা অসুস্থ মানসিকতা লালনকারী জাতী। এরা মরে যাবে তবু নিজ মুর্খতা আর অহমিকা ধরে রাখবে। আমাদের গ্রামের পাশের গ্রামে একজন করোনা পজেটিব লোক ধরা পড়েছে। অথচ আশপাশের গ্রামগুলোর মধ্যে তারা যথেষ্ট সুশিক্ষিত। মাগার এখন দেখা যাচ্ছে তাদের কুশিক্ষার প্রমাণ৷তাদের মধ্যে প্রায় লোকজন অসুস্থ । কিন্তু কেউ টেস্ট করাচ্ছে না। শুনতে পেলাম আকিজ গ্রুপ কর্তৃক তৈরিকৃত করোনা হাসপাতাল নাকি একদল মানুষ ভেঙে দিয়েছে।

৩০ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:০১

ঢাবিয়ান বলেছেন: টেস্ট করিয়ে কোন লাভ নাই। এখন দরকার ঘরে বসে ডাক্তারের পরামর্শ মাফিক চলে সুস্থ হওয়া।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.