নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

\n

মা.হাসান

মা.হাসান › বিস্তারিত পোস্টঃ

হামু ব্লগের ব্লগার মজনুর এক দিন

২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ৮:৩৯




মজনু একখানা ৫ টাকার নোট দোকানদার সবুজ মিয়ার নিকট বাড়াইয়া দিয়া বলিলো ১ প্যাকেট সার্ফ এক্সেল। সবুজ মিয়া ক্ষিপ্র হাতে একখানা সার্ফ এক্সেল এর প্যাকেট ও একটি হজম ক্যান্ডি মজনুর হাতে হস্তান্তর করিয়া পরের কাস্টমার কে অ্যাটেন্ড করিতে ব্যস্ত হইয়া পড়িলো। হজম ক্যান্ডির দিকে সবুজ মিয়ার দৃষ্টি আকর্ষণ করিয়া মজনু কহিল -'ইহা কি?' ব্যস্ততার মাঝে আজাইরা আলাপে ক্ষিপ্ত হইয়া সবুজ মিয়া বলিল-' উহা হজম ক্যান্ডি।' ইত্যবসরে পাড়ার ক্লাস নাইনে পড়ুয়া বখা ছেলে নিজাম আসিয়া সবুজ মিয়ার দিকে ১৫টাকা বাড়াইয়া দিয়া কহিল -'একখানা টেনশন।' । সবুজ মিয়া পুনরায় ক্ষিপ্রতায় এক শলাকা বেনসন এবং একটি হজম ক্যান্ডি নিজাম এর নিকট বাড়াইয়া ধরিলো। নিজাম ক্যান্ডির মোড়ক খুলিয়া এমন ভাবে ক্যান্ডি চুষিতে লাগিলো যেন দোকানের আগমনের উদ্দেশ্য ধুম্রপান না, হজম গোলা খাইতেই সে এখানে আসিয়াছিল। মজনু কন্ঠের উত্তাপ ঢাকিতে চেষ্টা করিয়া বলিল- ' আমার হজম শক্তি ঠিক আছে, আপনি আমাকে ভাংতি টাকা ফেরত দিন।' বখা ছেলে নিজাম পাস হইতে ফোড়ন কাটিলো -'ভাইজান অতিরিক্ত করলা পেট গরম করে, মাঝে মাঝে হজম গোলা খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।' রোজার মাসের শেষের দিকে, যখন ঢাকায় লোকজন কম, কোন এক রাতে সবজি পচিয়া যাওয়ার ভয়ে ভ্যানওয়ালা ২০ টাকা কেজি করলা বিক্রি করিতেছিল। সস্তায় পাইয়া মজনু ৩ কেজি করলা কিনিয়াছিল । করলার স্ফিত ব্যাগ দেখিয়া দু-একজন মজনু কে কারন জিজ্ঞাসা করিলে সে গর্বের সহিত দর জানাইয়া ঘটনা বর্ণনা করিয়াছিল। ইহাতে কেহ কেহ হিংসার আগুনে জ্বলিয়া ছিল এবং দুই তালার সুন্দরী ভাবি রেবেকা ফেরদৌসী তাকে জিজ্ঞাসা করেছিল সে একা মানুষ এত করলা দিয়া কি করিবে? করলার নুডুলস বা বিরিয়ানি রান্না করিবে কি? করলার খোটা না মাখিয়া মজনু পুনরায় সবুজ মিয়াকে বলিল-- 'আমাকে আমার এক টাকা ভাংতি ফেরত দিন, ক্যান্ডির কোন প্রয়োজন নাই।' মজনু অনুভব করিল ২-৪ জন খরিদ্দার মজা পাইয়া ফেসবুকে লাইভ স্ট্রিমিং শুরু করিয়াছে। সবুজ মিয়ার বিরক্ত উত্তর -'এক টাকা ভাংতি দেওয়া যাইবে না।' ইত্যবসরে ফেসবুক মেসেঞ্জারে মেসেজ আসার টিং শব্দ শুনিয়া মজনু ফোন খুলিয়া দেখে নাজমা লিখিয়াছে- ' সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠিয়া এত ছোটলোকগিরি করিতেছ, লজ্জায় আমার মাথা কাটা যায়।' (নাজমা মজনুর ছাত্রি কাম গার্ল ফ্রেন্ড, দ্বাদশ শ্রেণীতে ইংলিশ ভার্সনে পড়ে, দুর্দান্ত ইংরেজি ও যুগোপযগী বাংলা বলে।) মজনু পরীক্ষা করিয়া দেখে ইতোমধ্যে তাহার সহিত সবুজ মিয়ার কথোপকথনের ভিডিওটি ৫৩ বার শেয়ার হইয়াছে, কুড়িটি লাইক পড়িয়াছে। আপাতত রণেভঙ্গ দিয়ে মজনু হজম ক্যান্ডি হাতে লইয়া সবুজ মিয়ার দোকান হইতে রাস্তায় নামিয়া আসিল।

এত সহজে এক টাকা ছাড়িয়া দেওয়া সম্ভব নহে। পরবর্তী গন্তব্য ৩০০ গজ দূরে থানা ভবন।


থানার হেড কনস্টেবল রুকু মুন্সি সকাল সকাল মুরগির ভুনা মাংস দিয়ে খিচুড়ি খাইয়া ডেস্কে বসিয়া খিলোল দিয়া দাঁতের ফাঁকে আটকাইয়া থাকা মাংসের কনা পিচিক পিচিক করিয়া থুতুর সঙ্গে সামনে ফেলিতেছিল। মজনুর অভিযোগ অর্ধেক শেষ হইতে না হইতে বলিয়া উঠিল- আপনার শ্লীলতাহানি করিয়াছে? মারধর করিয়াছে? শরীরে হাত দিয়াছে? কোথায় হাত দিয়াছে? কতখানি হাত দিয়াছে? হাত দিয়ে কোন কিছু টিপিয়া ধরিয়াছিল? ও, এক টাকা অতিরিক্ত রাখিয়াছে । আচ্ছা ঠিক আছে। বড় বাবুরা এখন ক্রসফায়ারে বালুর মাঠ এলাকায়। তাহা ছাড়া জিডির খাতা শেষ হইয়া গিয়াছে। আপনি বিকেলে আসিয়া লিখিত অভিযোগ করিয়া যাইয়েন।

ফেসবুকে ভিডিও শেয়ার এখন ৩১৮ বার। একজন কমেন্ট করিয়াছে- লোকে বিদেশি টেলিভিশন চ্যানেল দেখিয়া এই সমস্ত কিপটামি শিখিয়াছে। কমেন্টটিতে ৪৩ টি লাইক পড়িয়াছে। আর একজন কমেন্ট করিয়াছে এই সমস্ত অসাধু দোকানদারদের ফাঁসি চাই । উহাতে এযাবত ৩৯ টি লাইক পড়িয়াছে।

মজনু এত সহজে হাল ছাড়িয়া দেওয়ার ছেলে নহে। পরবর্তী একশন দুদক এ ১০৬ নম্বরে ফোন।


সুন্দরী মহিলার কন্ঠে-' আপনার কল আমাদের নিকট অতীব গুরুত্বপূর্ণ। অনুগ্রহ করে লাইনে থাকুন।' শুনিতে শুনিতে যখন মজনুর কানের পোকা বাহির হইয়া যাইবার উপক্রম, তখন অপর প্রান্তে দুদকের কর্মকর্তা ফোন ধরিলেন। সব শুনিয়া তিনি মহা খাপ্পা হইয়া বলিলেন -'আপনি এক টাকার অভিযোগ জানানোর জন্য ১০৬ নাম্বারে ফোন করিয়াছেন! এই নাম্বারে ফোন ফ্রি বলিয়া এরূপ করিতে পারিলেন। এই নাম্বারে ফোন করিতে পয়সা লাগিলে কি পয়সা খরচ করিয়া এক টাকার অভিযোগ জানাইতেন? চেয়ারম্যান মহোদয় কমিশনের তাগাদা করিতে লন্ডনে আছেন। উনি আসিলে উনাকে বিস্তারিত জানাইবো । অর্থমন্ত্রী এবং টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীকেও জানাইতে হইবে। এই নাম্বারে কল এর উপরে চার্জ এবং ভ্যাট ধার্যকরিতে হইবে।' মজনু ঘাবড়াইয়া ফোন কাটিয়া দিল।

ফেসবুকে ইতোমধ্যে ভিডিওটি ২৮৩৪ বার শেয়ার হইয়াছে। নাজমা 'তোমার সহিত আর কোন কথা নাই' বলিয়া মজনুকে ব্লক করিয়া দিয়াছে। নাজমার অভিমান দীর্ঘস্থায়ী নয়, ইহা মজনু জানে। ইহা বড় সমস্যা না। কিন্তু এক টাকার সমাধান করিতে হইবে। মজনুর মনে পড়িল স্থানীয় ওয়ার্ড কমিশনার বীরেন্দ্রনাথ শম্ভুর কথা। সারারাত কত কষ্ট করিয়া , কত হাত ব্যথা উপেক্ষা করিয়া ওনাকে ৯৯% ভোটে জয়যুক্ত করার পিছনে মজনুর অবদান অস্বীকার করা যায় না। মজনু বীরেন্দ্র কাকার অফিসের দিকে রওনা হইল।

ইতোমধ্যে ভিডিও ৭৩২১ বার শেয়ার হইয়াছে। তথ্যমন্ত্রী বক্তব্য দিয়াছেন -বাজারে খুচরা পয়সার সঙ্কট বিরোধী দলের ষড়যন্ত্রের কারনে হইয়াছে। এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি বলিয়াছেন ব্যবসায়ীদের এইরূপ হয়রানি তাহারা সহ্য করিবেন না। বিরোধীদলীয় নেতা বলিয়াছেন সরকার ধাতব মুদ্রা ভারতে পাচার করিয়া উহা দিয়া চামুচ বানাইয়া আনিতেছে। দেশের চামুচের সংখ্যা বাড়িয়া গিয়াছে।




মজনু বীরেন্দ্র কাকার অফিসে আসিয়া দেখিল কাকা অফিসের বারান্দায় বসিয়া ঠিকাদারদের সহিত চা চপ সিঙ্গারা সমুচা খাইতেছেন। সব শুনিয়া তিনি বলিলেন -' আমার এলাকায় এই রূপ কুলাঙ্গার দুর্নীতিবাজ ব্যবসায়ী আছে তাহা আমার ধারনায় ছিলনা। আপাতত আমি উন্নয়নের আলোকসজ্জার কাজে ব্যস্ত আছি। ইহা শেষ করিয়া ই তোমার এক টাকার বিষয়ে ব্যবস্থা নিতেছি ।'

খানিকটা চিন্তিত মুখে মজনু বিরেন কাকার অফিস হইতে বাহির হইয়া আসিল। কাকা যখন বলিয়াছেন, টাকা উদ্ধার হইবে কিন্তু কতদিন পরে হইবে ইহাই ভাবনার বিষয়। ইতোমধ্যে ভিডিও ১৩৮১৭ বার শেয়ার হইয়াছে। চল্লিশ কদম হাটিবার পূর্বেই মজনুর ফোনে টিং করিয়া পুনরায় শব্দ। মজনু নিজের চোখকে বিশ্বাস করিতে পারিল না। দয়াময়ী প্রধানমন্ত্রী সুইডেনে বসিয়া ফজরের নামাজের পরে কোরআন তেলাওয়াত করতঃ দেশের খবর জানার জন্য ইন্টারনেট খুলিয়া বিএস-১ স্যাটেলাইট এ কানেক্ট করিয়া মজনুর খবর দেখিয়া ব্যথিত হইয়াছেন। তিনি প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়াছেন যেন তাহারা মজনুর এক টাকা উদ্ধার করিয়া দেয়। আনন্দে মজনুর চোখে অশ্রু চলিয়া আসিল। বীরের ন্যায় বুক ফুলাইয়া বাড়ির দিকে মজনু রওনা হইল। বাড়ির গেইটেই সবুজ মিয়ার দোকান। মজনু সেখানে যাইয়া হজম গুলি বাহির করিয়া সবুজ মিয়ার দিকে বাড়াইয়া দিতে সবুজ মিয়া কথা না বলিয়া পাইলস রোগির ন্যায় মুখ করিয়া হজম গুলি ফেরত লইয়া মজনুকে একটি টাকার কয়েন দিল। আশেপাশের কয়েকজন এই শুভ মুহূর্তটি কি তাহাদের ক্যামেরায় বন্দী করিয়া ফেসবুকে পোস্ট দেওয়া শুরু করিলেন । টিং করিয়া শব্দ হইতেই মজনু ফোন খুলিয়া দেখিল নাজমা ব্লক খুলিয়া ইংরেজি বাংলা মিশাইয়া মেসেজ লিখিয়াছে -'you my super hero. I your for many proud. আমি তোমার জন্য গর্ভিত।'

মজনু বাসায় ফিরিয়া হামু ব্লগ খুলিয়া দেখে ইতোমধ্যে ব্লগে এই বিষয়ে আাঠারো খানা পোস্ট আসিয়া গিয়াছে। ১১টি কবিতা, ৬ টি গদ্য এবং একটি পোস্টে শুধু ভিডিও লিংক আছে, কোন টেক্সট নাই। ব্লগার বাঁশবাগানের একটি পোস্টে ৪৪ টি মন্তব্য আসিয়াছে, ৯ টি লাইক পড়িয়াছে, ৪ জন উহাপ্রিয়তে নিয়াছেন । ব্লগার রানার ছুটেছে মন্তব্য করিয়াছেন- পিতা ছিলেন সক্রেটিস- প্লেটো- অ্যারিস্টোটলের ন্যায়, কন্যা বাদশা হারুনুর রশিদের ন্যায়। তাহার মন্তব্যে ৬টি লাইক পড়িয়াছে। ব্লগার লাল আকাশ পোস্ট দিয়েছেন সরকারের বেইমানির কারণে জনগণের নাভিশ্বাস। ওই পোস্টে ৪৫ টি মন্তব্য পড়িয়াছে ১০ টি লাইক পড়িয়াছে, ৪ জন উহা প্রিয়তে নিয়াছে। অসাম শালা, পাগলা চুলকে দে, তুমি গুরু ভালো সহ বিভিন্ন মন্তব্য আসিয়াছে। ব্লগার জুতা বাবা মন্তব্য করিয়াছেন - নামের আগে লাল লাগাইলেই বিপ্লবী হওয়া যায় না। কলোনিয়াল মেন্টালিটির পিগমিদের পক্ষে বিপ্লব বোঝা সম্ভব না। এই মন্তব্যে আটটি লাইক পড়িয়াছে।

টিং করিয়া পুনরায় শব্দ হইতেই মেসেঞ্জার খুলিয়া মজনু দেখিল বাল্যবন্ধু অভিজিৎ দুঃখ ও যন্ত্রণা ভরা পোস্ট দিয়াছে -'বউয়ের যন্ত্রণায় আর পারি না। প্রতিদিন তরকারিতে লবণ আর লবণ । বউ হিসাব করিয়া টাকা দেয়, বাহিরে খাইবার সুযোগ নাই। দিনের পর দিন আধ পেটা খাইয়া না মরিয়া বাঁচিয়া আছি। আত্মহত্যা করিতে মন চায়।' মজনু তৎক্ষণাৎ মেসেঞ্জারে রিপ্লাই টাইপ করে- নিউজ প্রধানমন্ত্রীকে শেয়ার করো, উনি হুকুম দিলে বউ তরকারিতে লবণ দেওয়া কমাইয়া দিবে।

মেসেন্জারে জবাব দিতে না দিতেই আর এক কাণ্ড। ব্লগার লাল আকাশের ব্যবহৃত ''বেইমান'' শব্দ ব্লগের মডারেটর অনন্ত ভালোবাসার ইমানী জজবা ও চেতনায় ধাক্কা দেওয়ায় উনি ব্লগার লাল আকাশকে জেনারেল করিয়া দিয়াছেন। মজনু ব্লগার লাল আকাশকে ফলো করিতো, এক্ষণে ভয় পাইয়া আনফলো করিয়া দিতে না দিতেই পুনরায় টিং করিয়া মেসেঞ্জারে মেসেজ আসিবার শব্দ। নাজমা লিখিয়াছে -' জানু আজ আমি বড়ই খুশি। আজ তোমাকে বিভিন্ন মূলকের ভিজা পরীক্ষার সুযোগ দিব । মিন্ট চুইংগাম খাইয়া আসিও।'

মিন্ট চুইংগাম এর দাম ১৪ টাকা প্যাকেট। ১৫ টাকা দিলে পুনরায় এক টাকার ধাক্কা। মজনু সার্ফ এক্সেল লইয়া বাথরুমের দিকে হাটা দিল । আজ সার্ফ এক্সেল দিয়াই দাঁত মাজিয়া লইবে


সকল চরিত্র কাল্পনিক। ঘটনা সম্পুর্ন কাল্পনিক । জীবিত বা মৃত কোন ব্যক্তি বা বস্তুর সাথে কোন মিল পাওয়া গেলে তা নিতান্তই কাকতালীয়।

ছবি বিভিন্ন যায়গা থেকে টুকলিফাই করা।

মন্তব্য ৪৪ টি রেটিং +১১/-০

মন্তব্য (৪৪) মন্তব্য লিখুন

১| ২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ৮:৫৯

রাজীব নুর বলেছেন: আপনি তো কামিলদার লোক।

আচ্ছা, ব্লগার রানু টা কে??

২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ৯:৪২

মা.হাসান বলেছেন: রাজীব ভাই, আপনি খোলা মনের মানুষ বিধায় এই সামান্য পোস্ট পড়ে আমাকে কামিলদার বলেছেন। যে অল্প কয়েকজন ব্লগার ব্লগে নিয়মিত পোস্ট এবং কমেন্ট করে ব্লগকে এই দুর্দিনে প্রানবন্ত রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছেন আপনি তাদের মধ্যে একজন । আপনাদের জন্য অনেক শ্রদ্ধা। লালু, ফজলু, রানু, সবুজ এগুলি আমার প্রিয় নাম। কাহিনীতে নাম ব্যবহার করতে হয় তাই এসেছে । সব চরিত্র কাল্পনিক।
অনেক শুভকামনা ।

২| ২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ৮:৫৯

রাজীব নুর বলেছেন: আপনি তো কামিলদার লোক।

আচ্ছা, ব্লগার রানু টা কে??

২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ৯:৪৪

মা.হাসান বলেছেন: রাজীব ভাই, আপনি খোলা মনের মানুষ বিধায় এই সামান্য পোস্ট পড়ে আমাকে কামিলদার বলেছেন। যে অল্প কয়েকজন ব্লগার ব্লগে নিয়মিত পোস্ট এবং কমেন্ট করে ব্লগকে এই দুর্দিনে প্রানবন্ত রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছেন আপনি তাদের মধ্যে একজন । আপনাদের জন্য অনেক শ্রদ্ধা। লালু, ফজলু, রানু, সবুজ এগুলি আমার প্রিয় নাম। কাহিনীতে নাম ব্যবহার করতে হয় তাই এসেছে । সব চরিত্র কাল্পনিক।
অনেক শুভকামনা ।

৩| ২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ৯:০৩

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: হা হা হা ব্লগে ঢুকতেই এমন হাসিভরা পোস্ট পড়তে আর হাসতে হাসতে কাম শেষ হা হা হা একটাকা নিয়া দারুণ মজাদার কাহিনির জন্ম দিয়েছেন, মজা লাগলো খুব।

সমস্যাটা কিন্তু বাস্তবিকই, আর বিরক্তিকরও বটে, আমাকে এক দোকান দুই টাকার পরিবর্তে চকোলেট দেয়ায় তারপর আর সেই দোকানে সিগারেট কিনতে যাইনা হা হা হা। আর এগুলো খবর অনলাইনে ভালোই চলে সবসময়

২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ৯:৪৮

মা.হাসান বলেছেন: জাহাঙ্গীর ভাই , পোস্ট ভাল লাগলে পোস্টটি লেখা সার্থক । এক টাকার পরিবর্তে ক্যান্ডি দেওয়ার সমস্যা সমাধানে এই পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন- ক্যান্ডি গুলো না খেয়ে সংরক্ষণ করবেন। কয়েকটি জমলে দোকানে নিয়ে যাবেন। খুচরো পয়সার বদলে এগুলো দেবেন।

৪| ২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ৯:০৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: মা.হাসান,




একেবারে চলতি বাস্তব নিয়ে এর চেয়ে রসালো স্যাটায়ার আর হয়না।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে কোনও খবর শেয়ার করার কথা বলে একটি চরম সত্যের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিয়েছেন ।

সঙ্গত কারনেই এই লেখায় "প্লাস- মাইনাস- লাইক- প্রিয়তে" কিছুই দিলুম না! :||

২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ১০:০১

মা.হাসান বলেছেন: আপনার প্রশংসা আমাকে বড় লজ্জায় ফেলে দিল। লাইক শেয়ার বা প্রিয়তে নেয়ার প্রয়োজন নেই, আপনার কমেন্ট ই যথেষ্ট অনুপ্রেরণা দিয়েছে। আপনি মোক্ষম জায়গায় আঘাত করেছেন। আমার পোসট মূলত ওই এক লাইনের ই। এক লাইন দৃষ্টিকটু লাগে বিধায় ফুলিয়ে বড় করা হয়েছে। নুসরাত হত্যার পর লিখতে চেয়েছিলাম, সময়াভাবে পারিনি । এখন না লিখে পারলাম না। অনন্য মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা।

৫| ২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ৯:৩৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


ম্যাঁওপ্যাঁও, সামুর হার্ড ড্রাইভ নষ্ট

২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ১০:১৩

মা.হাসান বলেছেন: সামুতে দু'একজন মহাবিজ্ঞ ব্লগার আছেন যাহাদের মগজ এর ক্যাপাসিটি কয়েক ইওটাবাইটের চাইতে বেশি। প্রয়োজনে ওনাদের মগজ দিয়া নিউরাল নেটওয়ার্কিং করা যাইবে। ওনারা ব্লগে থাকিতে স্পেস এর সমস্যা দেখি না।

৬| ২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ৯:৪৫

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: প্রিয় ব্লগার মা,হাসান, আপনার ১ টাকার রম্য কথা ভালোই লাগিয়াছে,ইহা নিয়া থানায় ডায়েরী করিয়া কোন লাভ হইবেনা,মজনুর এক টাকা ফেরতের আক্ষেপ শেষ হইবার নহে।

২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ১০:১৭

মা.হাসান বলেছেন: মেঘ প্রিয় বালক ভাই, আপনার ভালো লাগলে আমার লেখা সার্থক। বাস্তব পক্ষেই ম্যাংগো পিপল এর আক্ষেপ শেষ হওয়ার না।

৭| ২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ১০:৪৩

বলেছেন: হা হা হা -- ব্লগার লালা আকাশ, রানু, জুতা বাবা এগুলো তো দারুণ নিক।।।।

সাধু উক্তিতে গ্রহণযোগ্য পোস্টে লাইক ।।।।।

২৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১২:৩৩

মা.হাসান বলেছেন: ল ভাই , সব চরিত্র কিন্তু কাল্পনিক। সুন্দর মন্তব্য ও লাইকের দ্বারা কৃতজ্ঞতা পাশে আবদ্ধ করে রাখলেন। আমি অসম্ভব শরমিন্দা যে ব্যক্তিগত ব্যস্ততার কারনে আপনার সব পোস্টে আসতে পারি না। ব্লগে খুব কম আসতে পরছি। আশা করি নিজ গুনে অপারগতা ক্ষমা করবেন।

৮| ২৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১২:০৭

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: :D :D :D

ভালোই রম্য।

সার্ফেক্সেলেরর দাম তো পাঁচ টাকা, টেনসন শলাকা ১৩৳। দুজনেই ক্যান্ডি পাচ্ছে, ক্যামনে কী!!!??


থানার হেড কনস্টেবল নাম পরিবর্তন করা যাইতে পারে। ব্লগের অংশটুকু ভালোলাগছে। স্যান্ডেল বাবা সহ সবাইরে আমি চিনি। :D

২৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১২:৪৭

মা.হাসান বলেছেন: বড় ভুল হয়ে গেল। ২টাকা করে কিনতাম, ৩ টাকা দরেও কিনেছি। শেষ কিনেছি ৪ টাকা হবার পর। এর পর এখন পাগলা সাবান, পচা সাবান, বাংলা সাবান- কম দামে যা পাই তাই কিনি। আগে জানা থাকলে মিনি শ্যাম্পু লিখে দিতাম। নিজ গুনে ভুল উপেক্ষা করে যাবেন এই অনুরোধ থাকলো। টেনশন শলাকার দাম জানা নেই, কিন্তু মরীচিকা ২৪ নম্বর পর্বে ব্লগার রাজীব নুরের মন্তব্য থেকে দেখলাম ১৪ টাকা, এজন্য ভুল হয়ে গেল।
থানার হেড কন্সটেবল এবং ব্লগার রানুর নাম পরিবর্তন করলাম। সব চরিত্র কাল্পনিক, সবাইকে চিনলেন কি করে? ক্লাস নাইনের বখা ছেলে বা করলার ইতিহাসও তাহলে নিশ্চয়ই জানেন :-B
লেখায় আপনার ইনপুট টুকু অত্যন্ত আনন্দের সাথে স্বীকার করলাম। রম্য আপনার ভালো লাগায় আমি খুশি। সুন্দর মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। লাইকের জন্য কৃতজ্ঞতা ।

৯| ২৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১২:১১

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: পড়লাম। চলতি বাস্তবতা খুব সুন্দর করে উপস্থাপন করেছেন।

২৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১২:৫৩

মা.হাসান বলেছেন: ইব্ রাহীম আই কে ভাই, পাঠ শেষে সুন্দর মন্তব্য রেখে যাওয়ায় অনেক ধন্যবাদ। লেখা সুন্দর বলায় কৃতজ্ঞতা। অনেক শুভ কামনা।

১০| ২৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১২:৩০

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: শেষমেশ সাধুভাষায় যাবতীয় বিষয়াবলী নিয়া লিখিয়াছেন। উত্তম উত্তম অতি উত্তম B-))

নামগুলান ঝাক্কাস হইয়াছে। আপনার জন্য রহিল একখানা প্লাস যাহার মূল্য একটাকা মাত্র B-)

সাধুবাদ এবং ধন্যযোগ :)

২৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১:০৮

মা.হাসান বলেছেন: পোস্ট করিবার প্রায় সাথে সাথেই আপনার প্লাস পাইয়াছি। এক্ষণে আপনার মন্তব্য পাইলাম। আপনার ব্যস্ততার মাঝে পোস্ট খানি পড়িয়াছেন বলিয়া আমি শিহরিত। আপনার ন্যায় আমিও মনে করি রম্যের জন্য সাধুভাষাই অধিকতর প্রশস্ত।
সব চরিত্র কাল্পনিক, এর পরেও বিজ্ঞ পাঠকের দাবিতে রানু নামটি কন্সটেবল ও ব্লগার দু জায়গা হইতেই বদলাইয়া দিলাম।
আপনার লাইকটি অমূল্য।
চলতিবাদ, ধন্যযোগ ও কৃতজ্ঞতা যোগ।

১১| ২৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১২:৪৬

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



আপনি পারেনও! একজন লেখক হতে হলে তৃতীয় চক্ষু আর কৌতুহল প্রিয় মাইন্ড থাকতে হয় যা আপনার আছে। লেখাটি দুই বার পড়ে সমাজের একটি বাস্তব প্রতিচ্ছবি পেলাম। ব্লগ আর ব্লগাররাও বাদ পড়েননি। চমৎকার লেখনি আর দারুণ ভাবনা। মা. হাসান ভাই এভাবে লিখুন নিয়মিত। সামু নিঃসন্দেহে সমৃদ্ধ হবে এমন লিখনিতে।

ভালো থাকুন, সবাইকে নিয়ে, সর্বদা।

২৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১:২৩

মা.হাসান বলেছেন: প্রিয় কাওসার ভাই, দৃষ্টি শক্তি ক্ষীণ বিধায় গত ৩৫ বছর ধরে চার চক্ষু বহন করে চলছি। এর মাঝে আপনার মতো গুনি ও জনপ্রিয় ব্লগার প্রশংসা করলে শরম পাই।

ব্লগ, ব্লগার, অন্য সব চরিত্র কাল্পনিক।

ল ভাই কে যা বলেছি, আপনাকেও তাই বলি, আন্তরিক ভাবে দুঃখিত সময়াভাবে আপনাদের পাতায় যেতে পারছিনা একারনে।
সুন্দর মন্তব্য ও লাইকের জন্য অনেক কৃতজ্ঞতা। আপনার জন্য নিরন্তর শুভ কামনা।

১২| ২৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ৩:২৭

আরোগ্য বলেছেন: আমার একটা অভ্যাস হয়ে গেছে যে কোন অঘটন হলেই আমি এদেশের একমাত্র সুযোগ্য কন্যাকে গালমন্দ করি। এতে সমস্যার সমাধানে না হলেও ক্রোধের জ্বালা কিছুটা কমে। কিন্তু আজ থেকে মনে হয় বাথরুমের লোডাউন নষ্ট হলেও তাহার সমীপে নাশিল দিলে অনতিবিলম্বে মেরামত হইয়া যাইবে। পূর্বেই বলিতেছি লোডাউন বিরোধীদলের লোক নষ্ট করিয়াছে।

সর্বোপরি সহনশীল মডারেটর অভা ভাইকে ব্লগার লাল আকাশকে অনতিবিলম্বেে কারাগার হইতে মুক্ত করিয়া স্বাধীন জীবনযাপন করিবার অধিকার প্রতিষ্ঠা করিতে আহবান জানাইতেছি।

২৯ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:৪৩

মা.হাসান বলেছেন: আরোগ্য ভাই, ছোটবেলায় আমরা একটা কথা শুনিয়াছি -ছেলে ভালো অভ্যাস খারাপ। আপনার কমেন্ট শুনিয়া ইহা মনে পড়িয়া গেল। অভা এবং লাল আকাশ কাল্পনিক চরিত্র। নিজের পোস্ট পুনরায় পড়িয়া আমার যেন মনে হইলো অভার চেতনা বড়ই পলকা, অল্পতেই ফাটিয়া যায়। নেত্রীর হাস্যোজ্জ্বল ছবি সহ আপনার লেখা বহুদিন পড়ি না। পোস্ট দিয়া বাধিত করিবেন।
চেতনাবাজদের নিকট এইরূপ আহবান অর্থহীন মনে হয় ।

১৩| ২৯ শে জুন, ২০১৯ সকাল ৯:৪৪

পবিত্র হোসাইন বলেছেন: বর্তমানে ভিডিও শেয়ার সংখ্যা কত?

২৯ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৪

মা.হাসান বলেছেন: সাম্প্রতিক কিছু গবেষণা থেকে দেখা যায় ইন্টারনেট এর কারণে আমরা অতি দ্রুত অনেক বেশি ইনফরমেশন পেয়ে যাচ্ছি। এর কারণে আমাদের ব্রেইন কোন বিষয়ে বেশিক্ষণ কনসেনট্রেট করতে পারছে না। অর্থাৎ কন্সেন্ট্রেশন এর স্প্যান কমে যাচ্ছে। ম্যাংগো পিপলের মাতিয়া উঠিবার জন্য নিত্য নতুন ভিডিও দরকার হয়। মজনুর ভিডিওর খবর এখন কে রাখে।

১৪| ২৯ শে জুন, ২০১৯ সকাল ১১:৪৩

সাাজ্জাাদ বলেছেন: ভালো রম্য।
সকাল সকাল এই পোস্ট পড়ে অনেক আরাম পেলাম।

২৯ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৮

মা.হাসান বলেছেন: সাজ্জাদ ভাই, আপনার সুন্দর মন্তব্য এবং সুন্দর প্রোপিক দেখিয়া আমিও অত্যন্ত আনন্দ পাইলাম।
রম্য ভালো বলায় অনেক ধন্যবাদ ।

১৫| ২৯ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ১২:৪৬

নীল আকাশ বলেছেন: ব্লগার লাল আকাশ আমার কিভাবে যেন পরিচিত! এই ব্লগে এইসব একপেশে সুবিধাবাদী কর্মকান্ডে উনি মারাত্মক বিরক্ত। ম্যাওপ্যাও জাতীয় প্রানীকে উনি আগে থেকেই দেখতে পারতেন না। আজকাল এই ম্যাওপ্যাও জাতীয় প্রানীই ব্লগে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সুতরাং আজকেই আমাকে জানাল যে উনি উনার মতামত ঠিক করে ফেলেছেন। ব্লগে লেখা দেয়া আগেই উনি বন্ধ করেছেন এবং আর মাত্র কয়েকদিন উনি দেখবেন, তারপর উনার সমস্ত লেখাগুলি ডিলিট করে দিয়ে উনি একবারে ব্লগ ছেড়ে চলে যাবেন।

২৯ শে জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১৪

মা.হাসান বলেছেন: নীল আকাশ ভাই, কাল্পনিক চরিত্র লাল আকাশের সঙ্গে আপনার পরিচয় থাকা সম্পূর্ণ কাকতালীয় ব্যাপার। অভা বেটা তো বড় ভন্ড মনে হইতেছে। লাল আকাশকে বলুন তিনি যেন হামু ব্লগ ছাড়িয়া সামু ব্লগে চলিয়া আসেন। সামু ব্লগ ম্যাওপ্যাও মুক্ত। এখানকার মডারেটর অত্যন্ত উদার মানসিকতার লোক। ব্লগারদের বাকস্বাধীনতাকে উনি অত্যন্ত সম্মান করেন। 'ভাষা হোক শৃঙ্খলা মুক্ত ' ইহাই ওনার জীবনের স্লোগান। তবে ছোট্ট একটি সমস্যা, চেতনার পরীক্ষায় পাশ করিতে না পারিলে সেফ হইতে লাল আকাশের বছর দুই লাগিতে পারে । বাকি ২২ নম্বর মন্তব্য পড়িবার অনুরোধ থাকিলো। পোস্টে লাইক দেয়ায় অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা।

১৬| ২৯ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ১:৩২

করুণাধারা বলেছেন: পোস্ট পড়ে অনেকক্ষণ হাসলাম, তারপর মন্তব্য পড়তে শুরু করলাম। মন্তব্য, প্রতিমন্তব্য সবই ভালো লাগছিল যতক্ষণ না ১৫ নম্বর মন্তব্যে এসে পৌছালাম। এখন আর ভালো লাগছে না...

সামুতে আমরা সবাই মিলেমিশে থাকতে চাই। অন্তত এই দুর্দিনে ছোটখাট ব্যাপার ইগনোর করে সবাই ব্লগে থাকলে ভালো লাগে। এসব দেখে এখন আর ভালো লাগছে না কিছু।

আপনার পোস্টে লাইক।

২৯ শে জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২৫

মা.হাসান বলেছেন: আপনাকে হাসাতে পারায় নিজেকে ধন্য মনে করছি। পোস্টে লাইক দেওয়ায় অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা। কয়েকদিন আগে ব্লগার আর্কিওপ্টেরিক্স কোন পোস্টে কমেন্ট করেছিলেন- সবকিছু নষ্টদের অধিকারে। অধিক কিছু বলতে চাই না।

১৭| ২৯ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ১:৪৯

রানার ব্লগ বলেছেন: অনেকদিন পর খোলা মনে হাসিলাম।

২৯ শে জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৩৬

মা.হাসান বলেছেন: ভাই রানার ব্লগ, বহুদিন পর আপনাকে ব্লগে দেখলাম (আমি নিজেও আসলে খুব একটা নিয়মিত না) । আপনার প্রোপিকের লাল সবুজ রং দেখে অন্যরকম ভালোবাসার অনুভূতি মনে জাগে। আপনি হাসতে পেরেছেন জেনে খুব ভালো লাগলো। অনেক শুভকামনা।
সুন্দর মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

১৮| ২৯ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ১:৫২

মুক্তা নীল বলেছেন:
হাসান ভাই ,
আপনার রম্য পোস্ট ভাল হয়েছে।
করুনাধারা আপার সাথে আমিও একমত। সামুতে আমরা সবাই
মিলেমিশে থাকতে চাই।
১৫ নং মন্তব্য পড়ে খুব মন খারাপ লাগছে। কিছুই কি করার
নাই ?

২৯ শে জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৪৭

মা.হাসান বলেছেন: মুক্তা নীলআপু, আপনার সুন্দর মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ। রম্য ভালো লাগলে লেখা সার্থক হয়েছে।
'সামুতে আমরা সবাই মিলেমিশে থাকতে চাই।' না বলে ' সামুতে আমি সবার সাথে মিলেমিশে থাকতে চাই ' এরকম বলাই এখানে বেশি প্রযোজ্য হবে । কেননা আপনার পক্ষ থেকে চাইলেই হবে না, অপরপক্ষ ও মিলেমিশে থাকতে চায় কিনা দেখতে হবে। অধিক বলতে মন চাইতেছে না। আপনার জন্য অনেক শুভকামনা।

১৯| ২৯ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:১৪

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন:
আপনি পারেনও বটে!!!

হাইসা হাইসা পেটের নাড়ি ব্যথা হইয়া যাইতেছে। দারুণ রম্য হইয়াছে। ++++

বিলম্বিত আগমনের জন্য দুঃখিত।

পোস্টে একাদশ লাইক।

শুভকামনা ও ভালোবাসা জানবেন।

২৯ শে জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:০২

মা.হাসান বলেছেন: প্রিয় পদাতিক ভাই আমি আসলে তেমন পারি না, পোষ্টটি দেওয়ার আগে কয়েকটি এনার্জি ট্যাবলেট খেয়ে নিয়েছিলাম। পেটের ব্যথা থাকলে রাতে লেবু- নুন দিয়ে সাবু চলতে পারে। বেশি ব্যথায় হরিমটরই উত্তম।
হামি, ভাট বকা, এনার্জি ট্যাবলেট এই শব্দগুলো পশ্চিমবাংলায় যেভাবে প্রচলিত পূর্ব বাংলায় সেরকম না, বরং অধিকাংশ বাংলাদেশীই এই শব্দগুলোর অর্থ বুঝবেন না। একই ভাবে, আমার এই রম্যটি ছিল বাংলাদেশ স্পেসিফিক। এর ভিতরে আপনি দাঁত ফুটাতে পারায় আপনার হজম শক্তির ব্যপ্তি অনুভব করতে পারছি। বড় মাপের লেখকদের একাধিক যখন লেখা ভালো বলে তখন আসলে অনেক ভালো লাগে। লাইকের জন্য অনেক কৃতজ্ঞতা। আপনার জন্যও অনেক শুভকামনা ও ভালোবাসা।

২০| ২৯ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:২৯

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় মা. হাসান ভাই,

কমেন্টগুলো আগে পড়িনি। ব্লগার লাল আকাশের সঙ্গে আমরা সবাই কোন না কোন ভাবে পরিচিত। উনার কারাগার প্রাপ্তির খবর আমরা আগে থেকে জানতাম। বিষয়টি নিঃসন্দেহে দুঃখজনক। শীঘ্রই ওনার কারা মুক্তির দাবি রাখি। মাননীয় কাভা ভাই আপনার পোস্ট থেকে বিষয়টি সহানুভূতির সঙ্গে ভাববেন আশা করি। 15 নম্বর কমেন্টটি পড়ে সত্যিই খুব বিষন্ন হলাম। ব্লগিং মিথস্ক্রিয়ার পরিবর্তে কারো মানসিক চাপ বৃদ্ধি করবে- এমনটি কখনোই কাম্য নয়।


শুভ ব্লগিং।

০৫ ই জুলাই, ২০১৯ রাত ৮:২০

মা.হাসান বলেছেন: ব্লগিং মিথস্ক্রিয়ার পরিবর্তে কারো মানসিক চাপ বৃদ্ধি করবে- এমনটি কখনোই কাম্য নয়।

সুস্থ ব্যক্তিরা এরূপ কামনা করে না। অসুস্থদের পক্ষে সব সম্ভব।
মজনু নিজেও নিজেকে ব্যান করিয়া দিতে চায়।
আপনি মনে হয় অভা লিখিতে কাভা লিখিয়াছেন।
বাকি ২২ নম্বর মন্তব্যের দিকে দৃষ্টি আকর্ষন করিলাম।

২১| ২৯ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৩:৩০

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: আগেই বুঝিয়াছি। এই লেখা পড়িয়াই আকাশ সাহেব চটিয়াছেন। এখন কি সব ভাবিতেছেন! এত মাথা গরম করিলে চলে??
ভাবিলাম ইয়ে বাবাদের বিরুদ্ধে একটা নিজু বন্ড বানাইবো... কি হবে, কে জানে!




শান্তি! শান্তি!

০৫ ই জুলাই, ২০১৯ রাত ৮:৩১

মা.হাসান বলেছেন: যাহারা ব্যান খাইয়া খাইয়া ব্যান প্রুফ হইয়াছেন তাহারা সহজে বিচলিত হন না। একজন জ্ঞানী ব্লগার বলিয়াছেন - ব্যান না খাইলে বড় ব্লগার হওয়া যায় না। আকাশ সাহেব হয়তো ঐ কথাটি জানেন না।

বন্ড বানাইতে ০.৩২ ওয়ালথার পিপিকে লাগে, নূন্যতম রামদা । পকেটে গাজর ভরিয়া ভাব লইতে গেলে ধরা পড়িলে ইজ্জত প্লাস্টিক হইবে।
আমার কি-বোর্ডই সম্বল। যন্ত্রপাতি থাকিলে আওয়াজ দিয়েন, বন্ড হইতে না পারি, জনি ইংলিশের ন্যায় উহার সাগরেদ হাসান বাঙালি হইয়া যাইবো।
অনেক শুভ কামনা।

২২| ২৯ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:০০

ঢাবিয়ান বলেছেন: হা হা দারুন রম্য। ব্লগার নীল আকাশ ব্লগ ছাড়িয়া গেলে ম্যাও প্যাও এর এজেন্ডা সফল হবে। তার কাজই হচ্ছে ভিন্ন মতের ব্লগারদের গালি গালাজ ও ব্যক্তিগত আক্রমন করে ব্লগ থেকে বিদায় করার ব্যবস্থা করা। তার এই দ্বায়িত্বকে এত সহজ করে দিলে কি চলে? মডারেটর কিছু দিন পর তাদের ব্যান তুলে নিবে আশা করি। ব্লগ ও দেশের এই দুর্দিনে সাহসী ব্লগারদের ব্লগ ছেড়ে দেবার সিদ্ধান্ত একেবারেই অযৌক্তিক।

০৫ ই জুলাই, ২০১৯ রাত ৮:৪৬

মা.হাসান বলেছেন: বড় তাৎপর্যময় কথা বলিয়াছেন।
হামু ব্লগের দুএকটি ভাড়াটিয়া নিকের কাজ হইলো মডারেটরদের চেতনার বিপরীতমুখী চিন্তার লোকদের ব্যক্তিগত আক্রমন করা ও উষ্কানীমূলক বক্তব্য দেয়া। এনারা মডারেটর অভার নিকট যাহা খুশি বলার লাইসেন্স লইয়াছেন। এনাদের উষ্কানীমূলক বক্তব্যের প্রেক্ষিতে যদি কেউ মুখ খুলে তবে ব্যান। হামু ব্লগে ভাষা উম্মুক্ত নয়। এজন্য দলে দলে হামু ব্লগের ব্লগার রা অন্য প্লাটফর্ম খুঁজিতেছেন। লাল আকাশের দরকার মাটি কামড়াইয়া থাকা।
আপনার সুন্দর মন্তব্যটির জন্য অনেক ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.