নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

নূর মোহাম্মদ নূরু (পেশাঃ সংবাদ কর্মী), জন্ম ২৯ সেপ্টেম্বর প্রাচ্যের ভেনিস খ্যাত বরিশালের উজিরপুর উপজেলাধীন সাপলা ফুলের স্বর্গ সাতলা গ্রামে

নূর মোহাম্মদ নূরু

দেখি শুনি স্মৃতিতে জমা রাখি আগামী প্রজন্মের জন্য, বিশ্বাস রাখি শুকনো ডালের ঘর্ষণে আগুন জ্বলবেই। ভবিষ্যৎকে জানার জন্য আমাদের অতীত জানা উচিতঃ জন ল্যাক হনঃ ইতিহাস আজীবন কথা বলে। ইতিহাস মানুষকে ভাবায়, তাড়িত করে। প্রতিদিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা কালক্রমে রূপ নেয় ইতিহাসে। সেসব ঘটনাই ইতিহাসে স্থান পায়, যা কিছু ভাল, যা কিছু প্রথম, যা কিছু মানবসভ্যতার অভিশাপ-আশীর্বাদ। তাই ইতিহাসের দিনপঞ্জি মানুষের কাছে সবসময় গুরুত্ব বহন করে। এই গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে সামুর পাঠকদের জন্য আমার নিয়মিত আয়োজন ‘ইতিহাসের এই দিনে’। জন্ম-মৃত্যু, বিশেষ দিন, সাথে বিশ্ব সেরা গুণীজন, এ্ই নিয়ে আমার ক্ষুদ্র আয়োজন

নূর মোহাম্মদ নূরু › বিস্তারিত পোস্টঃ

THE LUNCHEON by William Somerset Maugham

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৩

বিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে জনপ্রিয় সাহিত্যিকদের অন্যতম ইংরেজ ঔপন্যাসিক, নাট্যকার এবং ছোটগল্প লেখক উইলিয়াম সমারসেট মম্‌। তার বিখ্যাত একটি গল্প দ্য লাঞ্চন যা আমার মতো অনেকেরই পাঠ্য ছিলো। অনেকদিন পরে গল্পটির কথা মনে পড়ায় সবার সাথে শেয়ার করলাম।

William Somerset Maugham: The Luncheon

I saw her in the theatre. I sat down beside her during the interval. It was long since I had last seen her and if someone had mentioned her name I hardly think I would have recognized her. She addressed me brightly.

“Well, it is many years since we first met. How time does fly! Do you remember the first time I saw you? You asked me to luncheon.” Did I remember? It was twenty years ago and I was living in Paris. I had a small apartment in a Latin Quarter and I was earning only just enough money to keep body and sole together. She had read a book of mine and had written to me about it. I answered, thanked her, and presently I received from her another letter saying that she was passing through Paris and would like to have a chat with me. Would I give her a little luncheon at Foyot’s? Foyot’s is a restaurant at which the French senators eat and it was so far beyond my means that I had never even thought of going there. But I was flattered and was too young to have learned to say no to a woman. I had eighty francs (gold francs) to last me the rest of the month and a decent luncheon should not cost more than fifteen. If I stopped drinking coffee for the next two weeks I could manage well enough.

I answered that I would meet my friend at Foyot’s on Thursday at half past twelve. She was not so young as I expected. She was in fact a woman of forty and she gave me the impression of having more teeth than were necessary for any practical purpose. She talked a lot, but since she seemed inclined to talk about me I was prepared to be an attentive listener.

I was startled when the menu was brought, for the prices were a good deal higher than I had expected. But she assured me. “I never eat anything for luncheon,” she said.

“Oh, don’t say that!” I answered generously.

“I never eat more than one thing. I think people eat far too much nowadays. A little fish, perhaps. I wonder if they have any salmon.”

Well, it was early in the year for salmon and it was not on the menu, but I asked the waiter if there was any. Yes, a beautiful salmon had just come in, it was the first they had had. I ordered it for my guest. The waiter asked her if she would have something while it was being cooked.

“No,” she answered. “I never eat more than one thing. Unless you have a little caviar. I never mind caviar.” My heart sank a little. I knew I could not afford caviar, but I could not very well tell her that. I told the waiter to bring caviar. For myself I chose the cheapest dish on the menu and that was a mutton chop.

“I think you are unwise to eat meat,” she said. “I don’t know how you can expect to work after eating heavy things like chops. I don’t believe in overloading my stomach.”

Then came the question of drink.

“I never drink anything for luncheon,” she said.

“Neither do I,” I answered immediately. “Except white wine,” she continued as though I had not spoken. “These French white wines are so light. They are wonderful for the digestion.” “What would you like?” I asked, hospitable, but not exactly emotional. She gave me a bright and friendly flash of her white teeth.
“My doctor will not let me drink anything but champagne.”

I imagine I turned a little pale. I ordered half a bottle. I mentioned casually that my doctor had absolutely forbidden me to drink champagne.

“What are you going to drink then?”

“Water.”

So she ate the caviar and then salmon. She talked happily of art and literature and music. But I wondered what the bill would come to. When my mutton chop arrived she took me quite seriously to task.

“I see you are in the habit of eating a heavy luncheon. I am sure it is a mistake. Why don’t you follow my example and just eat one thing? I am sure you would feel so much better for it.”

“I am only going to eat one thing,” I said as the waiter came again with the menu.

She waved him aside with an airy gesture.

“No, no, I never eat anything for luncheon. Just a bite, I never want more than that, and I eat that more as an excuse for conversation than anything else. I couldn’t possibly eat anything more - unless they had some of those great asparagus. I should be sorry to leave Paris without having some of them.”

My heart sank. I had seen them in the shops and I knew that they were horribly expensive.

“Madam wants to know if you had any of those great asparagus,” I asked the waiter.

I tried with all my might to will him to say no. A happy smile spread over his face, and he assured me that they had some so large, so tender, and so very rich, that it was a miracle.

“I am not in the least hungry,” my guest sighed, “but if you insist I don’t mind having some asparagus.” I ordered them. “Aren’t you going to have any?” “No, I never eat asparagus. I know there are people who don’t like them. The fact is, you ruin your palate by all the meat you eat.” We waited for the asparagus to be cooked. Panic seized me. It was not a question now how much money I should have left over for the rest of the month, but whether I had enough to pay the bill. It would be mortifying to find myself ten francs short and be obliged to borrow from my guest. I could not bring myself to do that. I knew exactly how much I had and if the bill came to more I made a decision that I would put my hand in my pocket and with a dramatic cry startup and say it had been stolen. Of course, it would be unfortunate if she had not money enough either to pay the bill. Then the only thing would be to leave my watch and say I would come back and pay later. The asparagus appeared. They were big, delicious and appetizing. I watched the shameless woman thrust asparagus down her throat and the smell of the melted butter hit my nose. At last she finished. “Coffee?! I said. “Yes, just an ice cream and coffee,” she answered. I was past caring now, so I ordered coffee for myself and an ice cream and coffee for her. “You know there is one thing I thoroughly believe in, “ she said, as she ate the ice-cream. One should always get up from a meal feeling one could eat a little more.” “Are you still hungry?” I asked weakly. “Oh no, I’m not hungry: you see, I don’t eat luncheon. I have a cup of coffee in the morning and then dinner but I never eat more than one thing for luncheon. I was speaking for you.” Oh, I see!” Then a terrible thing happened. While we were waiting for the coffee, the headwaiter with a pleasant smile on his false face came up to us bearing a large basket full of big peaches. They were beautiful; they had the rich tone of Italian country. But surely peaches were not in season then? God knew what they cost. “You see, you have filled your stomach with a lot of meat” – my one miserable little chop - and you can’t eat any more. But I have just had a snack and I shall enjoy a peach.” The bill came and when I paid it I found that I had only enough for a quite inadequate tip. Her eyes rested for an instant on the three francs I left for the waiter. But when I walked out of the restaurant I had the whole month before me and not a penny in my pocket. “Follow my example,” she said as we shook hands, “and never eat more than one thing for luncheon. “I will do better than that,” I answered. “I will eat nothing for dinner tonight.” “Humorist!” she cried happily, jumping into the cab. “You are quite a humorist.” But I have had my revenge at last. I do not believe that I am a vindictive man, but when the immortal gods take a hand in the matter it is pardonable to observe the result with complacency. Today she weighs one hundred and thirty-three kilograms.



সে আমাকে দেখতে পায় যখন নাটক দেখতে গিয়েছিলাম এবং ভদ্রমহিলা হাত দিয়ে ইশারায় আমাকে ডাকলেন, নাটকের বিরতির সময় আমি তার পাশে গিয়ে বসলাম। অনেক আগে মহিলাকে একবার দেখেছিলাম, যদি কেউ একজন মহিলাটির নাম উল্লেখ না করত তবে মনে হয় না তাকে আমি তাকে চিনতে পারতাম।
“আমাদের প্রথম দেখা হয়েছিল, সেতো অনেক বছর আগের কথা। সময় কি দ্রুত চলে যায়, তাই না? আমরা কেউই প্রতিদিন তরুণ হচ্ছি না, না? আপনার কি মনে আছে আপনার সঙ্গে প্রথম দেখার দিনই আপনি আমাকে মধ্যাহ্নভোজে নিমন্ত্রণ করেছিলেন?"
সত্যিই কি আমার মনে আছে?
বিশ বছর আগের কথা। তখন আমি প্যারিসে থাকতাম। ল্যাটিন কোয়ার্টার্স এলাকায় সমাধিস্থানের পাশ ঘেষে ছোট একটা চিলেকোঠার মত বাসায় আমি থাকতাম তখন। আর আয় রোজগার ছিল কোনোরকমে বেঁচে থাকার মতো। ভদ্রমহিলা নাকি, কখন আমার লেখা একটা বই পড়েছিলেন, আর সে সম্বন্ধে আমাকে প্রশংসাসূচক কিছু একটা লিখেছিলেন। তাকে ধন্যবাদ দিয়ে ত্বরিত আমি তার জবাব দিয়েছিলাম। ক'দিন পরেই মহিলার আরেকটা চিঠি পেয়েছিলাম, তাতে তিনি লিখেছিলেন, তিনি প্যারিস হয়ে কোথাও যাচ্ছিলেন, পথিমধ্যে তিনি আমার সাথে একটু আলাপ করার ইচ্ছে পোষণ করছিলেন। কিন্তু তার হাতে নাকি একদম সময় ছিল না, পরের বৃহস্পতিবার ছাড়া তার কোনো অবসর মুহুর্তই ছিল না; সেদিন সকালবেলাটা তিনি লুক্সেমবার্গে থাকবেন, চিঠিতে তিনি জানতে চেয়েছিলেন; দুপুরবেলায় আমি তাকে দামি রেস্তোরা ফয়োটসে' মধ্যাহ্নভোজে আপ্যায়িত করব কি না? ফয়োটস রেস্তোরায় সাধারণত ফরাসি সিনেট সদস্যরাই আহার করে থাকেন, রেস্তোরাটি আমার উপার্জনের তুলনায় এত বেশি ব্যয়বহুল ছিল যে আমি জীবনে কখনোই সেখানে যাবার কল্পনাও করিনি। কিন্তু মহিলার তোষামোদীতে আমি ভীষণ আপ্লুত হয়ে গিয়েছিলাম, তাছাড়া বয়সে আমি এতই নবীন ছিলাম যে, কোনো মহিলার প্রস্তাবে না বলার মতো সামর্থ তখনো আমি অর্জন করিনি। (আমার মনে হয়, খুব কম পুরুষই কোনো মহিলার সাথে সাক্ষাৎকারের সদ্ব্যবহারের সক্ষমতা অর্জনের পূর্ব পর্যন্ত কোনো মহিলার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করতে পারে।) সাকুল্যে আমার কাছে মাত্র আশি ফ্রা ছিল, সারা মাসের সম্বল। ভাবলাম, একটা ভদ্রগোছের মধ্যাহ্নভোজে কতইবা আর খরচ হবে! বড়োজোর পনেরো ফ্রা, অবশ্য সে জন্য আমার খাদ্য তালিকা থেকে পরের দু'সপ্তাহের জন্য কফি বাদ দিয়ে কোনোরকমে চলতে হবে।
চিঠির উত্তরে আমি আমার বান্ধবীকে জানালাম-বৃহস্পতিবার, ১২ টা ৩০ এ ফয়োটসে মিলিত হব তার সাথে। মহিলার দেখা পেয়েই আমার ঘোর কাটল: যতটা তরুণী হবেন ভেবেছিলাম, তিনি মোটেও তা ছিলেন না । তার বদন মোবারক যতটা না আকর্ষণীয়, তারচে’ বেশি বিকর্ষণীয়। চল্লিশের কাছাকাছি বয়স তার (কী চমৎকার বয়স! এমন বয়স, প্রথম দর্শনে কাউকে প্রলয়ঙ্করী আবেগে তাড়িত করে না নিশ্চয়ই), তদুপরি অপ্রয়োজনীয় সাদা দাত ভর্তি মুখখানি তার মোটেও প্রথম দর্শনে মুগ্ধ হবার মতো নয়। ভীষণ বাচাল হলেও মহিলা যেহেতু আমার প্রশংসাই করছিলেন সারাক্ষণ, আমি তার কথা শোনার দিকেই ঝুকে পড়লাম।
যখন খাবার মেনু নিয়ে আসা হলো, আমি তা দেখে বিস্মিত হলাম, কারণ খাদ্যবস্তুগুলো ছিল কল্পনাতীত মূল্যের। কিন্তু মহিলা বার বার আমাকে নিশ্চিত করছিলেন।
‘আমি সাধারণত মধ্যাহ্নভোজে কিছুই খাই না’, মহিলা বললেন
‘আরে না, না ও কথা বলবেন না’, আমি মহা উদারতায় বললাম।
‘আমি মধ্যাহ্নভোজে একটা খাবারের বেশি খাই না, আমার মনে হয় মানুষ আজকাল প্রয়োজনের তুলনায় খুব বেশি খায়। সামান্য একটু মাছ যদি থাকে, চলবে মনে হয়। যদি এখানে সামান্য একটু স্যামন পাওয়া যেত’।
তখনো স্যামন মাছের ঋতু আসেনি, তাই খাদ্য তালিকায় স্যামনের উল্লেখ ছিল না, কিন্তু আমি ওয়েটারকে জিজ্ঞেস করলাম, তাদের রেস্তোরায় স্যামন আছে কিনা।
ওয়েটার ত্বরিত উত্তর দিল, সেদিনই কেবল তাদের রেস্তোরায় চমৎকার স্যামন প্রথম এসেছে। আমার মাননীয় অতিথির জন্য স্যামন আনতে বললাম। ওয়েটার আমার অতিথিকে জিজ্ঞেস করল, স্যামন রান্না হবার ফাকে তিনি অন্য কিছু খাবেন কি না?
তিনি, বললেন, ‘না, আমি মধ্যাহ্নভোজে একটার বেশি খাবার খাই না। অবশ্য আপনাদের যদি সামান্য একটু ক্যাভিয়ার থাকে। ক্যাভিয়ারে আমার কোনো আপত্তি নেই’।
আমার অতিথির কথা শুনে আমি অত্যন্ত মুষড়ে পড়লাম। আমি জানতাম ক্যাভিয়ারের মূল্যমান বহন করার ক্ষমতা আমার ছিল না। তবুও সর্বশক্তি দিয়ে আমি ওয়েটারকে ক্যাভিয়ার আনতে বললাম। আর আমার জন্য খাদ্য তালিকার সবচেয়ে সস্তা খাবার খাসির মাংসের চপ আনতে বললাম।
‘আমার মনে হয়, আপনারা মাংস খেয়ে খুব বুদ্ধিমানের কাজ করেন না, তিনি বললেন। বুঝি না, আপনারা চপের মতো ভারী খাবার খেয়ে কী করে কাজ করেন। আমি পেট ঠেসে খাওয়ায় বিশ্বাস করি না’।
এবার পানের পালা এল ।
‘আমি মধ্যাহ্নভোজে কখনো কোন পানীয় খাই না, তিনি বললেন। ‘আমিও না, আমি দ্রুত উত্তর দিলাম।
‘যদি না ওদের একটু হোয়াইট ওয়াইন হয়’, তিনি বলেই গেলেন, যদিও আমি কিছুই বললাম না । ‘এই ফরাসি পানীয়টি দারুণ হালকা, হজমের জন্য ভারি উপকারী’।
‘এরপর আর কী খাবেন’ আমি পরম আতিথেয়তায় জিজ্ঞেস করলাম, কিন্তু ঠিক উচ্ছাস নিয়ে বলতে পারলাম না। তিনি গভীর সৌহার্দ্যে তার বদন বিস্ফারিত করে, আমাকে তার সাদা দাঁত গুলো দেখালেন। কল্পনায় দেখলাম, আমার মুখ পাংশুটে হয়ে গেছে। তবুও আধা বোতল আনতে বললাম। প্রসঙ্গক্রমে বললাম, কিন্তু আমার চিকিৎসক কোনোক্রমেই আমাকে শ্যাম্পেন খেতে দেবেন না।
‘তাহলে, আপনি কী খাবেন এখন?’
‘শুধু পানি’
আমার অতিথি ক্যাভিয়ারে খেলেন শ্যামনও খেলেন। খেতে খেতে তিনি সোৎসাহে, সহর্ষে শিল্প, সাহিত্য ও সঙ্গীত নিয়ে আলাপ করতে থাকলেন। কিন্তু অবাক হলাম, যখন আমার চপটি এল, তখন আমার অতিথি আমাকে ভীষণ ভৎসনা করে বললেন, ‘আপনার দেখছি ভূরিভোজনের অভ্যাস। আমি নিশ্চিত এটা আপনার একটা বর ভুল। আপনি আমার দৃষ্টান্ত অনুসরণ করে মধ্যাহ্নভোজে একটা মাত্র খাবার খান না কেন? আমি নিশ্চিত, এতে আপনি বেশ হালকা আর সুস্থ বোধ করবেন’।
‘আমি শুধু একটাই খাবার খেতে যাচ্ছি’। ওয়েটার আরেকবার এলে, আমি মিন মিন করে উত্তর দিলাম। আমার অতিথি ওয়েটারকে হাতের ইঙ্গিতে একটা বায়বীয় ভঙ্গি করে চলে যেতে বললেন।
‘আরে না, না আমি মধ্যাহ্নভোজে তেমন কিছু খাই-ই না, একআধটু ছাড়া। এর বেশি আমি চাইও না, কথা বলতে বলতে যা কিছু সামান্য খাই মাত্র, মনে হয়, এর বেশি আমি আর খেতেও পারব না। অবশ্য ওদের এখানে যদি বৃহদাকার এসপারাগাস থেকে থাকে তাহলে একটু চেখে দেখতে পারি। ওগুলো একটু না চেখে প্যারিস ছেড়ে গেলে মনে বড়ো কষ্ট পাব’ আমারতো ভিমরি খাবার দশা। বৃহদাকার এসপারাগাস গুলো আমি দোকানে ঝুলতে দেখেছি, জানতাম ওগুলো খুব দামি খাবার। কতদিন ওগুলো দেখে আমার মুখে জল এসে গিয়েছিল!
‘ম্যাডাম, জানতে চাচ্ছেন, তোমাদের এখানে বৃহদাকার এসপারাগাস আছে কিনা’ আমি ওয়েটারকে জিজ্ঞেস করলাম। আমার সমস্ত শক্তি দিয়ে মনে মনে বলছিলাম, ওয়েটারটি যেন না বলে। কিন্তু পাদ্রিদের মতো তার পবিত্র মুখাবয়বে এক প্রশস্ত হাসি বিস্ফারিত হলো,ওয়েটার আমাকে নিশ্চিত করে বলল, ওদের রেস্তোরায় খুব চমৎকার, খুব কোমল, খুব ভালো এসপারাগাস আছে, সেগুলো এক বিস্ময়।
দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে আমার অতিথি বললেন, ‘আমার মোটেও ক্ষুধা নেই, তবে আপনি যদি নেহাৎ জোর করেনই, তাহলে সামান্য এসপারাগাসতে আমার আপত্তি নেই’।
আমি এসপারাগাস আনতে বললাম।
‘আপনি কিছু খাবেন না’?
না, আমি এসপারাগাস একদম পছন্দ করি না।
‘জানি, অনেকেই এসপারাগাস একদম পছন্দ করে না। আসলে কী জানেন, বেশি বেশি মাংশ খেয়ে আমরা আসল জিনিসের স্বাদ নিতেই ভুলে গেছি’।
আমরা এসপারাগাস রান্না হওয়া অবধি অপেক্ষা করছিলাম বটে কিন্তু আমি আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ছিলাম । সারা মাস কী করে চলবে, সে আতঙ্ক কেটে বরং নতুন আতঙ্ক আমাকে গ্রাস করল। রেস্তোরার বিল দেবার মতো যথেষ্ট মুদ্রা আমার কাছে ছিল কি না। সে শঙ্কায় আমি শঙ্কিত হচ্ছিলাম। আমার অতিথির কাছে ধার চাওয়া; তাওতো আমার জন্য হতো বিমর্ষক এক ব্যাপার, যদি আমার দশ ফ্রার টান পড়ে যেত। তাওতো, আমি করতে পারতাম না। আমিতো সঠিক ভাবেই জানতাম, আমার কাছে কী পরিমাণ মুদ্রা ছিল, মনে মনে ভাবলাম যদি তারও চেয়ে বেশি রেস্তোরার বিল আসে। আমি চিন্তা করলাম অভিনব এক উপায়: আমি পকেটে হাত দিয়ে নাটকীয়ভাবে চিৎকার করে বলব, পকেটমার আমার সর্বস্ব নিয়ে গেছে। ব্যাপারটা যদিও খুব বিব্রতকর হতো, যদি আমার অতিথির কাছেও রেস্তোরার বিল পরিশোধ করার মতো যথেষ্ট মুদ্রা না থাকত আমার জন্য তখন একটা পথই খোলা থাকত আমার হাত ঘড়িটা বন্ধক রেখে, পরে এসে বিল পরিশোধ করব, এ কথা বলা ।
অবশেষে এসপারাগাস এল। বিরাট, পুরু ও ক্ষুধা উদ্দীপক সে সব। তার উপর ছড়ানো, গলা মাখনের সুগন্ধে আমার নাসারন্ধ বার বার ফুলে ফুলে উঠছিল। হতচ্ছাড়া মহিলাটি আমার সামনে তার মুখটিকে বড়ো রকম হাঁ করে একের পর এক এসপারাগাসগুলো তার গলার নীচে চালান করে দিচ্ছিল আর আমি বেশ বিনীত ভঙ্গিতে তার সঙ্গে বলকান এলাকার নাটক নিয়ে আলাপ করে যাচ্ছিলাম।
‘কফি খাবেন’ আমি বললাম।
হ্যা, একটু আইসক্রিম আর একটু কফি খাব, তিনি বললেন।
আমি তখন আর কোনো কিছুরই তোয়াক্কা করছিলাম না, তাই আমি আমার জন্য কফি আর আমার অতিথির জন্য কফি ও আইসক্রিমের অর্ডার দিলাম।
‘জানেন, একটা জিনিস আমি খুব বিশ্বাস করি’, আইসক্রিম খেতে খেতে তিনি বললেন। তা হচ্ছে, ‘আমার মতে সব সময়ই পেট একটু খালি রেখেই খাওয়া শেষ করা উচিত।
‘আপনি কি এখনো ক্ষুধার্ত’ আমি মিনমিনে গলায় বললাম।
‘আরে না, আমার মোটেও ক্ষুধা নেই, দেখুন আমি মধ্যাহ্নভোজ করিই না বলতে গেলে। সকালবেলা এক কাপ কফি খাই তারপর একবারেই দুপুরের খাবার খাই কিন্তু মধ্যাহ্নের খাবারে আমি কখনো একটা খাবারের বেশি খাই না, আমি বলছিলাম, আপনি ক্ষুধার্ত কিনা।
‘ও, তাই নাকি’
তারপর ঘটল এক ভয়ঙ্কর কাণ্ড। আমরা যখন কফির জন্য অপেক্ষা করছিলাম তখন প্রধান ওয়েটার তার মেকি মুখে এক টুকরো মেকি হাসি বুলিয়ে আমাদের সামনে বেশ পুষ্ট পীচ ফল ভর্তি একটা ঝুড়ি নিয়ে হাজির হলো। পিচগুলো দেখতে ছিল নিস্পাপ কিশোরীর মতো লাজ রাঙা আর ইতালীয় প্রাকৃতিক দৃশ্যের ছবির মতো অতুলনীয়। কিন্তু তখনতো পিচ ফলের ঋতু ছিল না! ঈশ্বরই জানতেন ওদের দাম না জানি কত হবে? আমিও জেনেছিলাম—অবশ্য একটু পরে—যখন আমার অতিথি অমনোযোগী ভঙ্গিতে আমার সঙ্গে কথা বলতে বলতে কুঁড়ি থেকে তুলে নিয়ে একটা পিচ ফল মুখে পুরে ফেললেন।
‘দেখুন, আপনি কিন্তু প্রচুর মাংস খেয়ে আপনার পেট ভরিয়ে ফেলেছেন’—আহা! আমার সকরুণ সেই সামান্য চপটি—‘আপনার আর কিছু খাওয়া ঠিক হবে না। আর আমি আমিতো সামান্য জলখাবার খেলাম মাত্র, আমি একটু পিচ খাব’।
অবশেষে খাবারের বিল এল, যখন বিল দিলাম তখন দেখলাম ওয়েটারকে বখশিশ দেবার মতো পর্যাপ্ত মুদ্রা আমার কাছে নেই। আমি যে তিন ফ্রা ওয়েটারকে বখশিশ দিলাম, মহিলা মুহুর্তের জন্য সেদিকে তাকালেন এবং আমি নিশ্চিত আমাকে খুব ছোটো লোক ভাবলেন। কিন্তু যখন আমি রেস্তোরা থেকে বের হলাম, তখন আমার সামনে সারাটা মাস পড়েছিল আর পকেট ছিল কপর্দকশূন্য।
‘আমার দৃষ্টান্ত অনুসরণ করবেন, কখনো মধ্যাহ্নভোজে একটার বেশি খাবার খাবেন না। তিনি আমার সাথে করমর্দন করতে করতে বললেন। উত্তরে আমি বললাম,‘আমি তার চেয়েও বেশি কিছু করব, আজ রাতে আমি আর কিছুই খাব না’।
‘রসিক’, একটা ট্যাক্সিক্যাবে লাফ দিয়ে উঠতে উঠতে তিনি আনন্দ ও উচ্ছাসের সাথে বললেন, ‘আপনি দারুণ রসিক মানুষ’
অবশেষে আমি প্রতিশোধ নিতে পেরেছিলাম। আমি কখনোই বিশ্বাস করি না যে আমি একজন প্রতিহিংসাপরায়ণ মানুষ নই। এরকম আমার মনে হয় না, কিন্তু ঈশ্বর যখন নিজেই কারো কোনো খারাপ কাজের জন্যে একহাত নেন তখন তাকে ক্ষমার যোগ্য মনে করে আত্মতৃপ্তি পাওয়া যেতেই পারে। এখন মহিলার ওজন প্রায় ২১ স্টোন। =p~ এক স্টোন সমান ১৪ পাউণ্ড। অর্থাৎ ১৩৩.৪ কেজি

সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণঃ এমন ভোজন রসিক ললনার ক্ষপ্পরে পরে কেউ শেষ কপর্দক শূন্য হবেন না!!

নূর মোহাম্মদ নূরু
গণমাধ্যমকর্মী
নিউজ চ্যানেল :-& ফেসবুক
[email protected]

মন্তব্য ২৬ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (২৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৩

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: Okay.

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩০

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

ধন্যবাদ !

২| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনি ইংরেজী থেকে অনুবাদ করতে পারেন, ইহা বিশাল বড় ঘটনা।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪২

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

অনুবাদের কৃতিত্ব আমার নয় বরং গল্পটি
ভালোলাগার। আমাদের সময়ে নোট বই
থাকতো যাতে প্রতিটি লাইনের অনুবাদ
করা থাকতো। বারে বারে পড়তাম, শিক্ষক
সাহেবও পড়াতেন, একপ্রকার মুখস্তই হয়ে
গিয়ে ছিলো। তাই আপনার বিশাল ঘটনার
আমি নিমিত্ত মাত্র।

৩| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩২

অনল চৌধুরী বলেছেন: মনে হচ্ছে সম্প্রতি কেউ এই গল্পের মতোই দামী জায়গায় খেতে নিয়ে গিয়ে আপনার পকেট শূণ্য করেছে !!
দুশ্চিন্তা করবেন না।
উহা অচিরেই আপনার অভিশম্পাতে এই আকৃতি পাইবে,যেমনা পাইয়াছিলো গল্পের সেই নারী !!!! !!!!

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৫

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
অনলদা ধন্যবাদ আপনাকে। তবে সময় এখন আপনাদের
আমাদের মতো ডেড হর্সরা কি এদের পাত্তা পাবে !
এই বয়সে কাউকে অভিসম্পাৎ করা কি ঠিক !!
সবাই থাকুক নিরাপগে !!

৪| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:১৫

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন:

কিউবা এমন বয়স হল ৮০ ছুঁই ছুঁই।মনের দিক থেকে যুবক থাকুন।

তার সিঙ্গাপুর ইন্দোনেশিয়া থাকাকালীন গল্পগুলো আমার প্রিয় গল্প ।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৫৩

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

আপানাকে ধন্যবাদ নুরুলইসলাম ভাই
সাহস যোগাবার জন্য। গল্পটি ভালো
লেগেছিলো বলেই মনের মাঝে গেঁথে
আছে। এ রকম ভালো লাগার একটি
কবিতাও পাঠ্য ছিলো। The Sands Of Dee -
Charles Kingsley

‘O Mary, go and call the cattle home,
And call the cattle home,
And call the cattle home
Across the sands of Dee;’
The western wind was wild and dank with foam,
And all alone went she.

৫| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:২২

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: আমাদের এইচ এস সি তে ছিল। আমার মনে আছে এই লাইনগুলি ( মেমোরি থেকে বলছি, ভুল হতে পারে) ;
'It was long since I last met you'
'I was too young to have learnt to say no to a woman.'

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০২

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

আপনাকে অসংখ্য্য ধন্যনাদ জনাব সাচু
আমরও এইচএসসিতে এটা পাঠ্য ছিলো।
আপনার সাড়ে চুয়াত্তরে আর আমার পচাত্তরে !!!

৬| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:২৮

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: @সাড়ে চুয়াত্তুর সাহেব,লিখেন ভাল কিন্তু আমাকে কেন ব্লক করে রেখেছেন।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০২

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

সাচু ভাই ভালো বলতে পারবেন এ ব্যপারে !!

৭| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৪০

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: এমন ভোজন রসিক ললনার ক্ষপ্পরে পরে কেউ শেষ কপর্দক শূন্য হবেন না!!
..........................................................................................................
আপনার অনুবাদটি মনোযোগ দিয়ে পড়লাম,ছোট বেলয় হুবহু এরকম ছিল কিনা
মনে নেই, গল্পটি যে আমাদের খুব একটা উপকারে এসেছে তা্ও না,
এখনো প্রতিযোগিতা করে খাই আর অসুস্হ হলে ক্লিনিকে লাইন দেই ডাক্তার
কি ওষুধ দিবেন ।
........................................................................................................
স্মরন শক্তি অনেক দূর্বল হয়েছে প্রমান হলো, আর একটা বিষয় পরিস্কার হলো যে,
বাঙালী এরচেয়েও বড় প্রতারানা করতে পারে, পার্শ্ববর্তী দেশ সমূহ, ভারত,চীন, মায়ানমার , হুমকি দেয়
আরো অধীক প্রতারনা করে, আমাদের বোকা বানাতে পারে,
জাতি হিসাবে জ্ঞানত আমাদের অবস্হান কি ???

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০৭

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

আমরা উপদেশ দেই কিন্তু মানিনা।
ধুমপান ক্ষতিকর জানি কিন্তু ছাড়িনা।
তাইতো ডাক্তার ছাড়া উপায় দেখিনা।
জাতি হিসেবে আমরা জ্ঞানপাপী।

৮| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৫১

রাজীব নুর বলেছেন: ২নং মন্তব্যকারীর উত্তরে শিক্ষককে সাহেব বলছে কেন?

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০৮

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

সাহেব বলা কি দোষের !
আপনাকেতো বলি !

৯| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০৬

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: @ নুরুলইসলাম০৬০৪ - আপনি আমাদের নবীকে নিয়ে অসম্মানজনক কথা বলেছেন আপনার মন্তব্যে।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:১৫

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

নবী, রসুল, সাহাবাগন, ওলামায়ে কেরাম এদের
সম্পর্কে কটু কথা বলা ঠিক নয়।
নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর মহববত ও ভালবাসা
কেবল আবেগের বিষয় নয়, দ্বীন ও ঈমানের বিষয়।
আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের আদেশ সমর্পিত চিত্তে মেনে
নেওয়াই ঈমানের আলামত।

১০| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:৫২

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: @ সাচু,আমি যদি মিথ্যা কিছু বলে থাকি তবে ক্ষমা চাইছি। কোরানে বহু যায়গায় বলা আছে, নবী তোমাদেরই মতো একজন মানুষ।যাতে তোমরা বিভ্রান্ত না হও।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৯

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

সব কিছু মিটে যাক !!

১১| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ ভোর ৪:২৫

অনল চৌধুরী বলেছেন: তবে সময় এখন আপনাদের আমাদের মতো ডেড হর্সরা কি এদের পাত্তা পাবে !- টিভি চ্যানেলে কাজ করেও যদি একথা বলেন তাহলে বলতে হবে আপনি জেমস বন্ড না।
এরশাদ--সামাদ আজাদ আর রেলমন্ত্রীর কথা কি ভুলে গেছেন?
রোমান্টিকতার কোনো বয়স নাই।
আপনার লেখায় জনাব গাজি কই?
নাকি তিনি রুপান্তরিত হয়ে এখানে এসেছেন?

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩০

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

গাজীসাব সবার উপরেই আছেন।
ভালো মানুষ !!

১২| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:১২

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: @নুরুলইসলা০৬০৪- আপনি আশা করি এরকম কাজ আর করবেন না। এখন আপনি আমার পোস্টে মন্তব্য করতে পারেন।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩২

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

যাক সব ঝামেলা চুকে গেলো !!

১৩| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৩২

সাহাদাত উদরাজী বলেছেন: এটা আমাদের পাঠ্য ছিলো। ৯ম শ্রেনীতে। এখনো মনে আছে।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৩

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

আপনাকে ধন্যবাদ উদরাজী ভাই
মন্তব্য প্রদানের জন্য।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.