নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার নাম- রাজীব নূর খান। ভাবছি ব্যবসা করবো। ভালো লাগে পড়তে- লিখতে আর বুদ্ধিমান লোকদের সাথে আড্ডা দিতে। কোনো কুসংস্কারে আমার বিশ্বাস নেই। নিজের দেশটাকে অত্যাধিক ভালোবাসি। সৎ ও পরিশ্রমী মানুষদের শ্রদ্ধা করি।

রাজীব নুর

আমি একজন ভাল মানুষ বলেই নিজেকে দাবী করি। কারো দ্বিমত থাকলে সেটা তার সমস্যা।

রাজীব নুর › বিস্তারিত পোস্টঃ

সু চির বক্তব্য নিয়ে ব্লগাররা যা ভাবছেন

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৩০



যিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়ালেখা করা মানুষ, যিনি শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছেন তিনিই কিনা আজ নির্যাতিতদের বিরুদ্ধে দাড়িয়ে অসত্য বক্তব্য দিচ্ছেন। সুচি সামরিক শাসকের পুতুল।এমন নিকৃষ্ট মানবতাবিরোধী অপরাধীর কঠোর বিচার প্রত্যক্ষ করুক বিশ্ববাসী। অভিনন্দন গাম্বিয়া কে। ঢাকা টু বানজুল বাই এয়ার ডিসটেন্স ১১,০৬৪ কি: মি: এতো দুরে থেকে গাম্বিয়া আমাদের মর্মপীড়া, মর্মব্যথা বুঝতে পেরেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। গাম্বিয়ার প্রতি আমরা চিরো ঋণী।

চরম জাতিগত বিদ্বেষ পুর্ন বক্তব্য। রেসিস্ট এই মহিলা ক্ষমতার লোভে অন্ধ হয়ে গেছে। এই সু-চির মুক্তির জন্য বাঙ্গালীরাও প্রেসক্লাবে জমায়েত হয়েছিল!!- এই মহিলা- ইতিহাসের পাতায় কুখ্যাত হিসেবে স্থান পাবে। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, প্রতিটা পাপীদের শাস্তি এই দুনিয়াতেই হয়েছে এবং হবে। যখন অং সান সুচি বাঙ্গালী শব্দটি ব্যবহার করেছে সাথে সাথে তার নামে আন্তর্জাতিক কোর্টে পিটিশন ফাইল করা উচিত। ব্যাক্তি অং সান সুচি’র নামে মামলা করে দিলে বার্মার সামরিক জান্তা খুশিই হবেন। রোহিঙ্গা একটি ভিন্ন জাতি এরা বাঙ্গালী নয়।

একটা দরিদ্র একটা দেশ গাম্বিয়া এগিয়ে আসলো। কিন্তু ইসলামের ঝান্ডাধারি তুরষ্ক ও সৌদিআরব কোথায়? সুচি যখন গৃহবন্দী ছিল, তখন তার প্রতি আমার একটা সমবেদনা ছিল। এখন তাকে ঘৃণা করি এবং তার অনৈতিক অমানবিক কাজের প্রতিবাদ করছি। সুচী বুঝতে পেরেছে যে, রোহিংগাদের বিপক্ষে অবস্থান নিলে, আগামী নির্বাচনে তার দল আরো ভালো করবে। তবে, এটা অসুস্থ ভাবনা। সময়ে মানুষের চরিত্র বদলায়, এটাই জীবন্ত প্রমান আমাদের সামনে। একসময় উনি গনতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করে নোবেল পেয়েছেন।

বাপের খুনীদের সঙ্গেও আপোষ করতে বাধেঁনি সুচির। তার বাবাকে যারা হত্যা করেছিল সেই সোনাবাহিনির হয়ে সাফাই গাইলেন।

এখন, আমাদের উচিত সুচি বিরোধী দেশ গুলোকে সাথে নিয়ে, সব রোহিংগাদের নিরাপদে মায়ানমারে ফেরত পাঠানো, রোহিংগাদের অবস্থান শক্ত করা এবং মায়ানমারের নাগরিকত্ব নিশ্চিত করা।

মন্তব্য ২৫ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (২৫) মন্তব্য লিখুন

১| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:০০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




বাংলাদেশে অদক্ষ প্রশাসনে সুচির নামে মামলা করার মতো দক্ষতাসম্পন্ন কেউ কি আছেন? ব্যক্তি সুচির নামে মামলা করা উচিত আগে। তারপরে বার্মা। বার্মা রোহিঙ্গাদের জন্য ক্ষতিপূরণ দেবে - দেওয়া উচিত, ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। রোহিঙ্গা সহ বাংলাদেশ এই ক্ষতিপূরণের অংশিদার। ব্লগার রাজীব নুর ভাইয়ের পোষ্টে ব্লগার চাঁদগাজী ভাইকে অনুরোধ করছি এ বিষয়ে সম্ভব হলে একটি পোষ্ট দেওয়ার জন্য।



১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৪২

রাজীব নুর বলেছেন: আমিও চাই শ্রদ্ধেয় চাঁদগাজী এ বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করে অবশ্যই একটি পোষ্ট দিবেন।

২| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:১২

বাকপ্রবাস বলেছেন: সূচী এতো নিচে নামতে পারে এটা গোটা বিশ্বের কেউ কল্পনা করেনি

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৮

রাজীব নুর বলেছেন: ইয়েস।

৩| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৬

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: ভাই সাহেব, ডাইনি বুড়িকে নিয়ে আবারও পোস্ট দিলেন!
ডাইনিকে নিয়ে আমার ভাবনা কিন্তু খুবই মারাত্মক। আপনার পোস্টে আগেই দিয়ে দিয়েছি।

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৯

রাজীব নুর বলেছেন: ডাইনি বলছেন কেন?
সে তো মানুষ।

৪| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৮

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সূচি এখন সামরিক শাসকদের খেলার পুতুল।
জেনারেল সাহেবরা চাইলে এখন ইচ্ছে করলেই তাকে খেমটা নাচ নাচতে পারে।
কিন্তু তার বয়স নাই ।
আফসোস!!

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৯

রাজীব নুর বলেছেন: এভাবে বললেন!!!

৫| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৬

রুপম হাছান বলেছেন: বেশি দূরে তাকানোর দরকার আছে বলে আমার মনে হয় না। তবে নিজ দেশে তাকালেই বুঝতে পারা যায়, নিজের ঘরের মানুষও যে নিজের কথা বলছে না। তা না হলে প্রায় সাড়ে এগারো হাজার দূরের কোনো একটি দেশ একটি বিধস্ত জাতির পক্ষে প্রতিবাদে অংশ নিতে পারলো; আর যারা এর ভুক্তভোগী দেশ সে দেশের কর্তৃপক্ষ জোরালো পদক্ষেপ গ্রহন করা তো দূরের পথে... প্রতিবাদের ভাষাও উড়াতে পারেনি বন্ধু প্রতিম দেশের অমানবিক কর্মের বিরুদ্ধে!

কি আশ্চর্য কথা, যারা আমাদের প্রাণের বন্ধু তারা কিনা শেষ পর্যন্ত বিধস্ত/ধ্বংসপ্রাপ্ত একটি জাতির বিপক্ষে দাঁড়াতে গিয়ে বরং প্রত্যেক্ষ ও পরোক্ষ উভয় ভাবে বন্ধুপ্রতিম দেশের ক্ষতিটাই বেশি করে দিলো! তারপরেও নাকি তারা এই দেশের বন্ধু!! সূচী তো নিচে নেমেছে তার নিজের কারণে কিন্তু আমরা নিচে নামলাম কার কারণে?! ক্ষতিটা তো আমাদেরই হয়েছে। তিনিও জানতেন, বিনিময় গ্রহণ করলে ক্ষতি হবে। আর ক্ষতি হবে জেনেই গ্রহন করা হয়েছে বিষাদ এই গোটা। যদিও তার পিছনে একটি নষ্ট উদ্দেশ্য ছিলো আর তা হলো একটি বিশেষ উপাধি! আমাদের তো আমার উপাধি না পেলে চলে না! আর এমন জগণ্য ঘটনা এমন সময় হলো যখন দেশ অন্য কিছু নিয়ে অশান্তিতে নিমজ্জিত ছিলো।

যারা নিজেরাই সুযোগ খুঁজে মসনদে বসে গরম থাকার জন্য তারা কিভাবে ভীনদেশীদের অজ্ঞতা খুঁজে প্রতিবাদের জোয়ার তোলার চেষ্টা করে তা আমি ভেবে পাই না। তাই আগে নিজেকে বদলা তে হবে, তারপর অন্যের বদলানোর ইতিহাস গাইতে হবে। তবেই কর্মে সফলতা আসবে। এমনটা না করতে পারলে সারা জীবন ভীনদেশীদের প্রতিবাদের দিকেই আমাদেরকে তাকিয়ে থাকতে হবে। কাজের কাজ কিছুই হবে না বরং ক্ষতিটাই হবে।

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:০৩

রাজীব নুর বলেছেন: শান্তির জন্য নোবেল জয়ী প্রফেসর ইউনুস সু চি'র বিচার দাবীতে সাক্ষর করেন নি!?
হতবাক!

৬| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:০৯

ইসিয়াক বলেছেন: আমার মনে হয় সুচি মানসিক ভাবে অসুস্থ।

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:১৩

রাজীব নুর বলেছেন: সে মোটেও অসুস্থ না।
তার জ্ঞান টনটনা।

৭| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:১৮

রুপম হাছান বলেছেন: সেই কথাই তো বললাম, নিজের ঘরের লোক যখন সত্যপক্ষ বিরুদ্ধ করে তখন আর বিচার চাইবেন কার কাছে? একদিকে রাষ্ট্র তার যায়গা থেকে কঠোর প্রতিবাদ করতে সক্ষম হয়নি। অন্যদিকে, দেশের প্রখ্যাত নোবেল জয়ী মানুষটিও তার যায়গা থেকে সরে এসেছেন! আমরা সত্যিকারের হতবাক হতেই হয়। কারণ আমাদের দেশের মানুষের ভিতরে ন্যুনতম দেশপ্রেমটা আদৌ আছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখা দরকার আছে বলে আমি মনে করি। রহিঙ্গা সমস্যা বাদ দিয়েও আমি আমাদের দেশে নিয়মিত সমস্যাগুলোর কথাও যদি লিখি, তাহলেও শেষ হবে না লিখা। ন্যুনতম পেঁয়াজ সমস্যা নিয়ে বলতে গেলে রহিঙ্গা ইস্যু বাদ পড়ে যাবে। তাহলে ভীনদেশীদের অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ কিভাবে করবো, যারা নিজ দেশের সমস্যা তৈরিতে পটু, সমাধানে নয়!

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫২

রাজীব নুর বলেছেন: বিমান কেনার অজুহাতে যে ৪৫ জন আনন্দভ্রমনে বিদেশ যাচ্ছে
এই টাকায় পাটকল শ্রমিকদের বকেয়া বেতন হয়ে যেতো, যেতো না?

৮| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:২০

রাশিয়া বলেছেন: আপনি এর আগের ব্লগের ব্লগারদের মন্তব্যের একটা সঙ্কলন বের করেছেন । আপনি একমত হয়ে থাকলেও এগুলো আপনার নিজস্ব বক্তব্য নয়। তবে এর মধ্যে হাসান কালবৈশাখির মন্তব্যের একটা প্রতিউত্তর না দিলেই না।

সৌদি আরব দেশটাকে যারা ইসলামের ঝান্ডাধারী ভাবে - তাদের মাথায় ইসলামী বস্তুর অভাব খুব প্রকট।
তুরস্ককেই বা ইসলামের ঝান্ডাধারী ভাবার কি কারণ? তারা ইসলামের বিধি বিধান কয় পার্সেন্ট মানে?

গাম্বিয়া এগিয়ে এসেছে কারণ চীন বা রাশিয়া থেকে তাদের খুব বেশি ধমক খাবার ভয় নেই। কিন্তু বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য মুসলিম দেশগুলোও রাশিয়া বা আমেরিকার ভয়ে সব সময় পুক পুক করতে থাকে। তাই কেউ সাহস করেনি।

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৫

রাজীব নুর বলেছেন: গামিয়া নিয়ে আজ আমি একটি পোষ্ট দিব।

৯| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৬

ওবাইদুল্লাহ আহমাদ হুসাইন বলেছেন: সে একটা মিথ্যাবাদি

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫৪

রাজীব নুর বলেছেন: দুনিয়াতে সবাই মিথ্যাবাদী।

১০| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৩৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


সুচি যা বলছে, রোহিংগাদের সম্পরকে এতাই বার্মার মানুষের মতামত; সে আগামী ভোটে নিজ দলকে জয়ী করার চেষ্টা করছে।

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫৫

রাজীব নুর বলেছেন: দোষী সাবস্ত হয়ে গেছে তাকে কে বাচাবে?

১১| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৪৮

সায়েমুজজ্জামান বলেছেন: লেখক মোহাম্মদ লুৎফর রহমান তার মহৎ জীবন বইতে একটা ঘটটান লিখেছিলেন। একজন লোক ভিক্ষার ঝুলি হাতে যুদ্ধে নিপিড়ীত মানুষের জন্য সাহায্য চাইতো। তাকে দেখে মানুষ অনেকে সাহায্য করতেন। সবার কাছে তিনি মহৎ হিসেবে পরিগণিত হয়েছিলেন। একসময় দেখা গেছে- সেই ব্যক্তি তার প্রতিবেশির সম্পদ অবৈধভাবে হস্তগত করেছেন।
সূচির অবস্থাটা হয়েছে সে রকমের।
তবে মানুষের মৃত্যুর আগের ছবিটাই থেকে যায়। রবীন্দ্রনাথকে মনে পড়লে সাদা লম্বা শ্মশ্রুধারী একজন সাধকের চেহারা মনের গভীরে ভেসে ওঠে। তিনি যে কান একসময় সুদর্শন যুবক ছিলেন এটা আমরা ভুলে যাই।
সূচির বর্তমানের এই চেহারাটাই থাকবে অনন্তকাল।

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫৬

রাজীব নুর বলেছেন: খুব ভালো মন্তব্য করেছেন।

১২| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:১১

আলমগীর কাইজার বলেছেন: খুব ভালো লেগেছে, রাজীব ভাই। গাম্বিয়া নিয়ে সাধারণ মানুষ ও ব্লগারদের ভাবনা জানতে মন চায়। যদি সম্ভব হয় লিখবেন আশা করি।

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫৭

রাজীব নুর বলেছেন: অবশ্যই।

১৩| ১৩ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১:৩৪

নীল আকাশ বলেছেন: আমার একটা মন্তব্য এখানে দেয়ার জন্য ধন্যবাদ।
সুচি তার পাপের শাস্তি অবশ্যই পাবে। নোবেল যে আজকাল অপাত্রেও দেয়া হয়, যেমন
সুচি, সেটা জ্বলজান্ত্য উদাহরণ হয়ে থাকলো ইতিহাসের পাতায়।
ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.