নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার নাম- রাজীব নূর খান। ভাবছি ব্যবসা করবো। ভালো লাগে পড়তে- লিখতে আর বুদ্ধিমান লোকদের সাথে আড্ডা দিতে। কোনো কুসংস্কারে আমার বিশ্বাস নেই। নিজের দেশটাকে অত্যাধিক ভালোবাসি। সৎ ও পরিশ্রমী মানুষদের শ্রদ্ধা করি।

রাজীব নুর

আমি একজন ভাল মানুষ বলেই নিজেকে দাবী করি। কারো দ্বিমত থাকলে সেটা তার সমস্যা।

রাজীব নুর › বিস্তারিত পোস্টঃ

মিসির আলি

২৫ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:০৯



সময় সন্ধ্যা সাতটা।
সারাদিন বড্ড কড়া রোদ ছিল। এখন চারিদিকে ঠান্ডা বাতাস বইছে। মনে হচ্ছে যে কোনো সময় ঝুম ঝুম বৃষ্টি পড়তে শুরু করবে। আমি বিখ্যাত মিসির আলি সাহেবের ঘরে বসে আছি। তিনি আমার জন্য চা বানাতে গিয়েছেন। তার কাজের ছেলেটি নাম জিতু মিয়া। সে গিয়েছে গ্রামের বাড়িতে। তাই মিসির আলিকেই চা বানাতে হচ্ছে। মিসির আলি সাহেব গতকালই দশ দিন হাসপাতালে থেকে বাসায় ফিরেছেন। এখনও তিনি পুরোপুরি সুস্থ হননি। একটু পরপর রান্না ঘর থেকে তার কাশির শব্দ শুনতে পাচ্ছি। বেচারার জন্য আমার খুব মায়া লাগছে। তার সারা ঘরময় নানান রকম বই ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। ভদ্রলোক যে বেশ অগোছালো তা বেশ বুঝা যাচ্ছে। তবে তিনি যে প্রচুর বই পড়ে-পড়ে পন্ডিত হয়েছেন তা পরিস্কার বুঝা যায়।

আমি এক সমস্যা নিয়ে মিসির আলি সাহেবের কাছে এসেছি।
আমি জানি, তার ধৈর্য অসাধারন এবং তিনি প্রচন্ড পরিশ্রমী ও দক্ষ একজন মানুষ। তিনি আমার কথা খুব মন দিয়ে শুনবেন। আমার সমস্যা সমাধানের জন্য যা যা করতে হয় করবেন। মিসির আলীর জন্য এক কার্টুন বেনসন সিগারেট এনেছি। এক কার্টুন মানে বিশ প্যাকেট। আমার খুব শখ একদিন দাওয়াত দিয়ে মিসির আলিকে আমার বাসায় ভালো মন্দ রান্না করে খাওয়াই। সুরভির হাতের রান্না খেলে মিসির আলি মুগ্ধ হয়ে যাবেন এ ব্যাপারে আমি নিশ্চিত। আজ আমি ঘরে ঢুকেই মিসির আলিকে দেখে একটা বড় ধরনের ধাক্কা খাই। তিনি একটি সস্তা প্রেমের বই পড়ছিলেন। বইটির নাম 'সুইট সানডে'। লেখক জন স্টেইনবেক। তার মতো লোক এমন সস্তা প্রেম ভালোবাসার বই কেন পড়বেন? ব্যাপারটা আমি কিছুতেই মানতে পারছি না। তিনি পড়বেন, 'দ্য আর্ট অব ওয়ার' অথবা হেনরি রাইডার হ্যাগার্ড এর বই।

মিসির আলি আমাকে হাসি মুখে চায়ের কাপ এগিয়ে দিলেন।
তিনি চা বানাতে অনেক সময় নিয়েছেন। চা বানাতে এত সময় লাগার কথা না। চায়ে চুমুক দিয়ে মনটা খারাপ হয়ে গেল। চা মোটেও ভালো হয়নি। আশা করেছিলাম তার বানানো চা অসাধারন হবে। চায়ের স্বাদ মুখে অনেকদিন লেগে থাকবে। আমি মানুষের কাছে গল্প করবো- মিসির আলি অসাধারন চা বানান। তিনি চা শেষ করে সিগারেট ধরালেন। আমি মুগ্ধ হয়ে তার সিগারেট খাওয়া দেখছি। একটা মানুষ এত সুন্দর করে সিগারেট খেতে পারে! আমার বলতে ইচ্ছা করলো স্যার আপনি আরও সিগারেট খান। আমি আমার সমগ্র জীবনে এত সুন্দর করে সিগারেট খেতে কাউকে দেখিনি। মিসির আলির সিগারেট খাওয়া দেখলে মনে হয়- সিগারেট খাওয়া ও যেন একটা শিল্প। রবীন্দ্রনাথের পক্ষেও এত সুন্দর করে সিগারেট খাওয়া সম্ভব নয়। যদিও রবীন্দ্রনাথ সারা জীবন স্বাস্থ্য সচেতন ছিলেন। উনি খেতেন চিরতার পানি।

মিসির আলি খুব নরম সুরে বললেন, আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক। এই কথা বলার সাথে সাথে ইলেকট্রিসিটি চলে গেল এবং বড় বড় ফোটায় বৃষ্টি পড়তে শুরু করলো। মিসির আলি অন্ধকারের মধ্যেই মোমবাতি খুঁজে বের করলেন। মোমবাতি জ্বালিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে বললেন, আমার কাছে কেন এসেছো রাজীব?
আমি বললাম, স্যার আমি আপনার ক্যাম্পাসে গিয়েছিলাম। সেখান থেকে জানতে পারলাম আপনি অসুস্থ। তাই আপনাকে দেখতে এলাম।
মিসির আলি হেসে ফেললেন, সহজ সরল সুন্দর হাসি। তিনি মুখে হাসি রেখেই বললেন, তুমি আমাকে দেখতে আসোনি। এসেছো একটা সমস্যার কথা বলতে। আমি কি ঠিক বলেছি? ইংরেজিতে একটা কথা আছে 'Listen to understand, not to reply'।
আমি লজ্জিত গলায় বললাম জ্বী স্যার, আপনি ঠিক বলেছেন।
মিসির আলি বললেন, অল্প কথায় তোমার সমস্যা বলো।

আমি বললাম, স্যার আমি যে ফ্ল্যাটে থাকি তার পাশের ফ্ল্যাটে একটি মেয়ে খুন হয়েছে। দরজা ভেতর থেকে আটকানো। এমনই দরজা ভেতর থেকে কেউ না খুললে খোলা যাবে না। মেয়েটি কিভাবে খুন হলো? ঘরে তো কোনো ছুরি পাওয়া যায় নি। কিন্তু মেয়েটিকে ছুরি দিয়েই খুন করা হয়েছে। ধারালো ছুরি। পুলিশ এসে দরজা ভেঙ্গে দেখতে পায় মেয়েটি মেঝেতে পরে আছে। রক্তে মেঝে ভেসে গেছে। রক্ত শুকিয়ে কালো হয়ে আছে। কিন্তু ঘরে কোনো ছুরি খুঁজে পাওয়া যায়নি।

মিসির আলি চোখে বন্ধ করে আমার কথা শুনলেন।
আমি তার মুখের দিকে তাকিয়ে আছি। তিনি কি ঘুমিয়ে পড়েছেন? অসুস্থ মানূষ ঘুমিয়েও পড়তে পারেন। আমি তাকে ডাক দিবো? না দরজা বন্ধ করে চলে যাবো? কি করবো ঠিক বুঝতে পারছি না, এমন সময় মিসির আলি চোখ মেলে চাইলেন এবং একটি সিগারেট ঠোটে নিলেন। সিগারেটে লম্বা একটা টান দিয়ে বললেন, ঘটনাটা আরেকবার প্রথম থেকে বলো। আমি জানতাম মিসির আলি ঘটনাটা আরেকবার শুনতে চাইবেন। এটা ওর স্বভাব। একই ঘটনা তিনি দুইবার তিনবার শুনে অনেক কিছু বুঝে ফেলেন। অনেক ক্লু পেয়ে যান।

আমি ঘটনাটা আরেকবার বলা শুরু করলাম।
স্যার মেয়েটি বাসায় একা ছিল। তার বাবা মা একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়েছে। মেয়েটি বাবা মার একমাত্র সন্তান। ইডেন কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে পড়ছে। বাসায় কেউ ছিল না। মেয়েটি ঘরের মধ্যে একা ছিল। বিয়ের অনুষ্ঠান শেষ করে মেয়েটির বাবা মা একটু বেশি রাত করে বাসায় ফিরে দেখতে পান মেয়ের ঘরের দরজা ভেতর থেকে লাগানো। অনেক ডাকাডাকি করার পর মেয়ের ঘর থেকে কোনো সাড়া শব্দ না আসায় তারা পুলিশে ফোন করেন। পুলিশ এসে দরজা ভেঙ্গে দেখতে পায় মেয়েটি মরে পরে আছে। পেটের কাছে অনেকখানি ক্ষত। ক্ষতটি দেখলে মনে হয় কেউ তাকে প্রচন্ড ধারালো ছুড়ি দিয়ে খুন করেছে। কিন্তু পুলিশ সারা ঘর তল্লাশি করে কোনো ছুড়ি বা এই রকম কিছু পায়নি। তাহলে মেয়েটি কিভাবে মরলো?

এবার মিসির আলি চোখ বন্ধ রেখেই আমার কথা শুনলেন। কিছুক্ষন চুপ থেকে বললেন, আমি বলছি। তুমি নোট করো।
১। মেয়েটি তার ঘরে একা।
২। দরজা ভেতর থেকে লাগানো। আর দরজাটা এমন যে ভেতর থেকে না খুললে দরজা খোলা সম্ভব নয়।
৩। ঘরে কোনো ছুরি বা এই রকম কিছুই পাওয়া যায়নি। কিন্তু মেয়েটি ছুরির আঘাতেই মারা যায়।

মিসির আলি আরেকটি সিগারেট ধরালেন, আর ঠিক তখন ইলেকট্রিসিটি এলো। এবং মিসির আলি আমাকে অবাক করে দিয়ে বললেন, মেয়েটি কিভাবে খুন হলো- তা আমি বুঝতে সক্ষম হয়েছি। কিন্তু আমি তোমাকে বলল না, মেয়েটি কিভাবে খুন হলো। আমি চাই তুমিই এই রহস্য খুঁজে বের করো। আমি আকশ থেকে পড়লাম! আমি কিভাবে এই খুনের রহস্য বের করবো!(?) আমার মতো মানুষের পক্ষে ইহ জীবনে সম্ভব নয়? আমি এক আকাশ বিস্ময় নিয়ে মিসির আলি সাহেবের দিকে তাকিয়ে আছি। তিনি বললেন, তুমি পারবে। আমি তোমাকে একটা ক্লু দিয়ে দিচ্ছি। ক্লু টা হচ্ছে- 'বরফ'।

আমি বিড়বিড় করে 'বরফ' বলতে বলতে ঘর থেকে বের হচ্ছি, তখন মিসির আলি বললেন, সুরভি কি 'সুইট সানডে' বইটি পড়েছে? সুরভিকে বলো একদিন এসে তার রান্না খেয়ে যাবো। ইলিশ মাছের ডিম দিয়ে করলা ভাজি, ইলিশ মাছের ভর্তা এবং গরুর মাংস ভূনা। আর শোনো, একজন অসুস্থ মানুষের ঘর এলোমেলো থাকাটাই স্বাভাবিক। দশ দিন ঘরের বাইরে ছিলাম। কাজের ছেলেটি আছে ছুটিতে। আর ঘরে চিনি নেই। তাই চা-টা তোমার কাছে ভালো লাগেনি। আমি চায়ে চিনি খাই না। শুধু লিকার খাই। সাথে এক চিমটি লবন। আমি মিসির আলির দিকে তাকিয়ে হেসে দিলাম। তিনিও হেসে দিলেন। সহজ সরল সুন্দর হাসি।

(পূর্বে প্রকাশিত)

মন্তব্য ১৬ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (১৬) মন্তব্য লিখুন

১| ২৫ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:২৪

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: Great.

২৫ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:২৯

রাজীব নুর বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ।

২| ২৫ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:৩৮

সোহানী বলেছেন: এটি কি আপনার লিখা নাকি হুমায়ুন আহমেদের? যতটুকু মনে পড়ে ঠিক একই রকম সিন আমি উনার কোন একটা বইতে পড়েছি।

২৫ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:৩৯

রাজীব নুর বলেছেন: লেখাটা আমার।

৩| ২৫ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:১১

নেওয়াজ আলি বলেছেন: সুন্দর লেখা। পড়ে অভিভূত হলাম। শুভ কামনা আপনার জন্য।

২৫ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:১৮

রাজীব নুর বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ।

৪| ২৫ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:৩৮

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

এমনি্ একটি প্লট মিসির আলি সিরিজে
পড়েছি। তাইতো ভাবলাম এখানে সুরভি
ইন করলো কি ভাবে? সেখানে সুরভী নামের
কাউকে পাইনি। রাজীব নামের ও কেই ছিলোনা।

অবশ্য এডিট করে কস্তুরী বেগম কে সুরভী ব্গেম
করা কোন ব্যাপার না। দারুন দেখালেন খান সাব!!
আমরা মনে হয় অচিরে আর একজন হুমায়ূন আহমদ পেতে যাচ্ছি
যার বই কিনতে একুশের বই মেলায় লাইন ধরতে হবে!!

২৫ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:৪৩

রাজীব নুর বলেছেন: পজেটিভ থাকা মানে এটা নয় কারো রোগ হবে না,এ জন্য সে বাইরে থাকবে।
নিয়ম মানবে না।
পজেটিভ থাকা মানে সচেতনতার সাথে মনকে শক্ত রাখা।দুশ্চিন্তা না করা।

৫| ২৫ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:০৭

সন্ধ্যা প্রদীপ বলেছেন: লেখাটা চেনা চেনা লাগে-- B:-)

২৫ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:৩৫

রাজীব নুর বলেছেন: কি বলেন??!!!

৬| ২৫ শে মার্চ, ২০২০ বিকাল ৩:০০

ভুয়া মফিজ বলেছেন: এক কার্টুন মানে বিশ প্যাকেট না, দশ প্যাকেট। একজন বিড়িখোর হিসাবে এমন ভুল কেমনে করলেন? :)
হুমায়ুন আহমেদও একজন বিড়িখোর ছিলেন, উনি এমন ভুল করতেন না।

২৫ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৮:৪৭

রাজীব নুর বলেছেন: ভাইজান বিশ পেকেটেরও কার্টুন হয়।

৭| ২৫ শে মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫১

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

লেখক বলেছেন: পজেটিভ থাকা মানে এটা নয় কারো রোগ হবে না,এ জন্য সে বাইরে থাকবে।

কি মন্তব্যের কি উত্তর !! মাথা আউলা হলে যা হয়!!
সুরভী ভাবীকে চিনতে পারেনতো? ওই যে পরীর মা !!
হুমায়ূন আাহমদ সাজার চেষ্টা করবেন না, রাজীব হয়েই থাকুন।
স্বকীয়তা বড়ই আনন্দের !!

২৫ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৮:৪৮

রাজীব নুর বলেছেন: হুমায়ূন আহমেদ সাজার চেস্টা করলে সমস্যা কি??
হুমায়ূন আহমেদ কি খারাপ?

৮| ২৭ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৮:০১

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
লেখক বলেছেন: হুমায়ূন আহমেদ সাজার চেস্টা করলে সমস্যা কি??
হুমায়ূন আহমেদ কি খারাপ?


তা না, তবে কেমন যেন কৃত্তিম মনে হয়। ওই যেমন কাকের ময়ূর পুচ্ছ ধারণ জাতীয় !! খিকজ !! =p~

২৮ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৯:০২

রাজীব নুর বলেছেন: দুষ্ট লোকের কাছে এরকমই মনে হয় সব কিছু।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.