নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

www.facebook.com/abdur.sharif

আবদুর রব শরীফ

বাধা বিঘ্ন না পেরিয়ে বড় হয়েছে কে কবে?

আবদুর রব শরীফ › বিস্তারিত পোস্টঃ

বাংলাদেশ গিলে খাচ্ছে

১৯ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ১১:১১

গল্পটি জানেন কি না জানিনা, সরাসরি মাদার তেরেসার মুখ থেকে শুনা,
.
লিংক সার্চ করলে পেয়ে যাবেন! আমার কেনো জানি মনে হয় যে সেরা সে সব দিক থেকে চাইলে সেরা হতে পারে!
.
আমি বিশ্বাস করি মাদার তেরেসা, নেলসন ম্যান্ডালা প্রমুখ বিশ্ব নন্দিতরা যদি মোটিভেশনাল স্পীচ দিতেন তাহলে হালের আজকের কেউ ভাত পেতো না!
.
যদিও ওরা কাজের মধ্য দিয়ে সর্বোচ্চ মোটিভেশনটা দিয়ে গেছেন, বলে যাননি, যে কয়টা ঘটনা বলেছেন তা ই বিষ্পোরণ!!
.
একদিন মাদার তেরেসা রাস্তা থেকে এক অভুক্ত শিশুকে উদ্ধার করলো! সে ক্ষুধায় মৃতপ্রায়!
.
তেরেসা তাকে মায়ের মতো একটু রুটি খেতে দিলো! শিশুটি রুটি খাচ্ছে না! তারপর তিনি তাকে বললেন, এটা খাও!
.
সে নির্বাক! হয়তো মাদার তেরেসা মনে করছেন, তার মানবতা দেখে কৃতজ্ঞতায় সে এমন করছে!
.
একটু পর সে খাওয়া স্টার্ট করলো! অল্প অল্প করে খাচ্ছে! আস্তে আস্তে!
.
এমন এক ক্ষুধার্ত শিশুতো বাঘ্রের ন্যায় রুটির টুকরোটি গিলে খাওয়া উচিত ছিলো! কঠিন ভাবে!
.
যেভাবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শোভাকলোণীতে এক বার এক ভিক্ষুক খাওয়ার সময় ভাত খুঁজছে আর তাকে খেতে দিলে সে দেখলাম এক প্রকার গিলে খাচ্ছে!
.
খোদার কসম! আমি আর কাউকে ভাত গিলে খেয়ে ঢোক গিলতে দেখিনি! মনে হলো সে বাংলাদেশ গিলে খাচ্ছে!
.
পরে মশাররফ করিমের এক নাটক থেকে জানতে পারলাম ভাত গিলে খেলে পেটে বেশীক্ষণ থাকে!
.
মাদার তেরেসা উৎসুক হয়ে গেলো! তাকে জিজ্ঞেস করলো তুমি এভাবে এতো ক্ষুধা নিয়ে আস্তে আস্তে খাচ্ছো কেনো!
.
শিশুটি মুখ খুললো! বললো! আমি ভয় পাচ্ছি জোরে জোরে খেলে যদি রুটির টুকরোটি শেষ হয়ে যায়!

মন্তব্য ২ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (২) মন্তব্য লিখুন

১| ১৯ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ১১:৪২

রাজীব নুর বলেছেন: মাদার তেরেসা আর মেন্ডেলারা দুনিয়াতে বার বার আসে না।

২| ১৯ শে জুলাই, ২০১৯ বিকাল ৫:৫১

জাহিদ হাসান বলেছেন: সারহীন লেখা

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.