নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

www.facebook.com/abdur.sharif

আবদুর রব শরীফ

বাধা বিঘ্ন না পেরিয়ে বড় হয়েছে কে কবে?

আবদুর রব শরীফ › বিস্তারিত পোস্টঃ

নুয়ে যাওয়া বাবা

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫৫

বয়স ৫৫ থেকে ৬০ হবে, মাথার উপ্রে মে বি লম্বা ডাঁটওয়ালা শরীফ ছাতা,
.
দুহাতে দুটা ব্যাগ একটা পুটলি মাথায়, সামনে চবি সেন্ট্রাল ফিল্ডে বৃষ্টিতে জমে থাকা পানি, অন্ধকার, মোবাইলের আলো জ্বালালাম!
.
সে আলোয় পথের খোঁজ করছে লোকটি, দেখলাম অদ্ভুত কসরতে ছাতাটা বগল তল বরাবর করে ধরা,
.
দুহাতে দুটা ব্যাগ, মাথায় একটা পুটলি নিয়েও সহজে অনেককে বোঝা ভয়ে নিয়ে যেতে দেখেছি কিন্তু ছাতাটা ওনাকে বড্ড বেকাদায় ফেলে দিয়েছে!
.
এদিকে বৃষ্টি যে থেকে গেছে ওনার খবর নেই! বললাম 'চাচা, বৃষ্টিতো নেই' উনি এখন ছাতা বন্ধ করার জন্য বাজারের একটা ব্যাগ মাটিতে রাখলেন,
.
ছাতাটা বন্ধ করে বগল তলে নিয়ে ব্যাগটি হাতে তুলে নিয়ে মাঠের পশ্চিম দিকে মেডিক্যাল ব্লক নামক কলোণীতে যাচ্ছেন আর উত্তর দিকের রাস্তায় শোভাকলোণী
.
আমাদের রাস্তা ভিন্ন হয়ে যাচ্ছে, মোবাইলের আলো উত্তর দিক্ মুখী, পশ্চিম দিকে লোকটি অন্ধকারে মিলিয়ে যাচ্ছে!
.
যেতে যেতে উনি আমাকে উদ্দেশ্য করে বলে যাচ্ছেন 'বাবা, আমার ছেলেগুলো লাট সাহেব হয়ে গেছে, চাইলে ঘরের বাজারগুলো এক হাত দু হাত করে নিয়ে যেতে পারে'
.
বাবার ঘোলায় বসে বসে খাচ্ছেতো খবর নেই, একটু আড্ডা ফাড্ডা কমিয়ে সংসারে মনোযোগ দিলেতো হয়!
.
দূর থেকে ওনার কথাগুলো মিলিয়ে যাচ্ছে, স্পষ্ট বুঝতে পারছি কথাগুলোতে মনের ক্ষোভ নেই, শারীরিক কষ্টে বেরিয়ে যাচ্ছে,
.
ছেলেরা হয়তো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে, তাদের ইগোতে লাগে বেপারটা এমনও হতে পারে!
.
তবে আমি এমন ছেলেদেরও দেখেছি যারা পাবলিকে পড়া সত্ত্বেও বাবার চাকরির পাশাপাশি ফলানো সবজি বাজারে নিয়ে বিক্রী করতো,
.
বাবার খোলা আকাশের নিচে ফল বিক্রীতে ক্লাশ শেষে এসে নিজে সামলিয়ে বাবাকে রেস্ট দিতো
.
সুন্দরী ক্লাসমেট আসতেছে দেখে কিছুক্ষণ পালিয়ে থাকতেও দেখেছি তবুও ইগো তাদের পরাজিত করতে পারেনি!
.
সেসব ছেলেদের এখন দেখলে সত্যি গর্ব হয়, কখনো বলা হয়না, হবেও না!
.
আর যে বাবাকে দিয়ে শুরু করেছি তার ছেলেদের আমি চিনিনা, যদি চিনতাম, যতবার দেখতাম ততবার মনে মনে গালি দিতাম!

মন্তব্য ৪ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (৪) মন্তব্য লিখুন

১| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫৮

রাজীব নুর বলেছেন: বাপ অন্য এক জিনিস। একদম বুকের গভীরে এসে লাগে।

২| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:১৯

রাজ্য জ্যোতি বলেছেন: অনেক সুন্দর হয়েছে লেখাটি, পড়ে ভাল লাগল,এরকমের আরো অনেক লেখা পেতে ভিজিট করুন- hijibiji.org

৩| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:২০

রাজ্য জ্যোতি বলেছেন: অনেক সুন্দর হয়েছে লেখাটি, পড়ে ভাল লাগল,এরকমের আরো অনেক লেখা পেতে ভিজিট করুন- http://www.hijibiji.org

৪| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:২৬

রাজীব নুর বলেছেন: মনের ব্লগিং খুব সুন্দর।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.