নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ভুয়া মফিজ

ভুয়া মফিজের সাথে ভুয়ামি না করাই ভালো...

ভুয়া মফিজ › বিস্তারিত পোস্টঃ

ঢাকা, আমার ঢাকা

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:১২



আমার স্বদেশী জীবনের ৯৮ শতাংশই কেটেছে ঢাকায়। আমার স্কুল, কলেজ, ইউনিভার্সিটির বন্ধু-বান্ধব সবাই ঢাকার। ছোটবেলার পাড়াতো বন্ধু-বান্ধব, বড়বেলার কর্ম-স্থলের সহকর্মীরা যারা এক পর্যায়ে ঘনিষ্ঠ বন্ধু হয়ে যায়, তারাও ঢাকায়। আমার এবং আমার স্ত্রীর বেশীরভাগ আত্বীয়-স্বজনও ঢাকায়। তাই ঢাকার সাথে আমার সম্পর্ক পুরাটাই আত্বিক। চোখের সামনেই ঢাকাকে আস্তে আস্তে বদলাতে দেখেছি। শান্ত নিরিবিলি সবুজ ঢাকা থেকে আজকের ইট-পাথরের বৃক্ষহীন কুৎসিৎ ঢাকা। কিছু মানুষের অদম্য লোভ-লালসার কাছে পরাজিত একটা অনুপম সুন্দর শহরের মৃত্যু। চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া আর কিইবা করতে পারতাম! বিডিআর ২নং গেইট থেকে নিউমার্কেট পর্যন্ত কি বিশাল বিশাল গাছ ছিল। ইট বিছানো সাতমসজিদ রোড মনে পড়ে যেখানে রাতের আধো-অন্ধকারে রিক্সাওয়ালারাও যেতে চাইতো না। কলাবাগানের মেইনরোডে দাড়ালে প্রায় আসাদগেট পর্যন্ত দৃষ্টি চলে যেতো, ওদিকেও সাইন্স ল্যাবরেটরী ছাড়িয়ে যেতো বাধাহীন দৃষ্টি। খুব ছোট ছিলাম, ডিভাইডার-বিহীন রাস্তার পাশে দাড়িয়ে চিন্তা করতাম, এত বড় রাস্তা বানানোর মানে কি? স্কুলে পড়ার সময় স্কুল পালিয়ে ভাড়ার সাইকেলে পুরো ঢাকা টো টো করে ঘুরে বেড়ানো, পুরান ঢাকায় টিকেট কেটে ভিসিআরে হিন্দি/ইংলিশ সিনেমা দেখতে যাওয়া, আরও কত হাজারো স্মৃতি ঢাকার অলিতে-গলিতে!

আজ অনেক বছর ধরে প্রবাসী। বছরে অন্তত একবার ঢাকায় আসি। দেশে আসি বললাম না, কারন সত্যি কথা বলতে, আসি ঢাকার টানে। ঢাকা থেকে ফেরত আসার পরে ২/৩ মাস ঠিক থাকি, তারপরই আস্তে আস্তে আবার মন খারাপ হওয়া শুরু হয়। আকাশে প্লেন দেখলে চোখে পানি চলে আসে। বাড়াবাড়ি মনে হতে পারে কিন্তু এই যে ঢাকাকে নিয়ে লিখছি, বার বার চোখে পানি চলে আসছে। অবস্থা এমন দাড়িয়েছে যে, আমার মন বাড়াবাড়ি রকমের খারাপ (সেটা যে কারনেই হোক) দেখলেই আমার স্ত্রী বলে, চলো ঢাকা থেকে ঘুরে আসি (আমার দেখাদেখি ও-ও দেশ বলে না, বলে ঢাকা)। সবাইকে বলে আমি নাকি বউ এর চেয়ে ঢাকাকে বেশী ভালোবসি কারন ওর জন্য ও কখনও আমার চোখে পানি দেখেনি, ঢাকার জন্য দেখেছে। আমি প্রতিবাদ করি না, কি জানি, হলেও হতে পারে! আমার স্ত্রী সবসময় প্লেনে জানালার ধারে বসে, ঢাকার কাছে আসলে আমি নীচে দেখার জন্য পাগল হয়ে যাই, স্ত্রী ধমক দিয়ে বলে, কি দেখবা, এখনও কিছুই ঠিকমতো দেখা যায় না। তারপর আমার করুণ চোখ দেখে দয়া হয়, একটু জায়গা দিয়ে বলে, আচ্ছা দেখো। এটা শুধু ওর মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে না। সবাইকে বলে, সবাই হাসাহাসি করে। আম্মা বলেন, তুই কি পাগল? আকাশ থেকে ঢাকা দেখার কি আছে? আমার আবেগ কেউ বুঝতে পারে না। আমি আসলেই পাগল! নিজেকে বোঝাই, অতিরিক্ত আবেগ তো আসলে পাগলেরই নামান্তর!

মন খুব খারাপ হলে একগাদা টাকা খরচ করে লন্ডনের বাংগালী এলাকা হোয়াইট চ্যাপেলে যাই। পিয়াজু-ছোলা খাই। টিএসসি বা বেইলীরোডের স্বাদ পাই না। জিলাপী-সিংগারা খাই, পুরান ঢাকার স্বাদ পাই না। তবুও যাই, তবুও খাই। খাই আর মন খারাপ করি। বউ বলে, মনই যদি খারাপ করো তাহলে যাও কেন, খাও-ই বা কেন? ঢাকায় নামার পর থেকেই শুরু করি খাওয়া। বছরের ক্ষুধা মিটানোর চেষ্টা। টং দোকানের চা, রাস্তার ঝালমুড়ি-চানাচুর মাখা, হালিম, চটপটি যা সামনে পড়ে তাই খাই। ২/৩ দিনের মধ্যেই পেট নেমে যায়, টয়লেটে দৌড়াদৌড়ি, বাড়ি থেকে বের হতে পারি না। প্রতিবছর একই ঘটনা। বউ বলে, পেটে যখন সহ্যই হয় না, তখন খাও কেন?

কি উত্তর দিবো? আমি নিজেই কি ঠিকমতো জানি?

ঢাকাকে নিয়ে অনেক নেগেটিভ কমেন্টও হয়, যদিও এর জন্য ঢাকা দায়ী না। যেমন ব্লগার ঢাকাবাসী বলেছেন: ঢাকা নিয়ে আর কি বলবেন, এটা পৃথিবীর নিকৃস্টতম জঘন্যতম কুৎসিৎ অপদার্থ বাসের অযােগ্য একটা শহর নামের কলঙ্ক। ভাগাড় এর চাইতে ভাল হয়! আমিও উনার সাথে বহুলাংশে একমত। আসলে আবেগ-উদ্বেগ আর ভালোবাসা থেকেই এসব কথা আসে। ঢাকা নিয়ে অকৃত্রিম আবেগ-উৎকন্ঠা না থাকলে এসব কথা বলা যায় না। কতটা দুঃখ থেকে মানুষ এসব কথা বলে, আমি বুঝি। কথায় আছে না, শাসন করা তারই সাজে, সোহাগ করে যে! আসলে ঢাকার আজকের অবস্থার জন্য যারা দায়ী তারা তো কোনদিনই সুন্দর পরিচ্ছন্ন ঢাকা চায় না। ব্যক্তিস্বার্থ তাদের কাছে সবচেয়ে বড়। স্বপ্নে দেখি, আমাদের অপূর্ব সুন্দর ঢাকা শহর। দেশ-বিদেশ থেকে পর্যটকরা আসছে এই শহরের সৌন্দর্য দেখার জন্য। স্বপ্নেই দেখি, বাস্তবে তো ইহজনমে দেখে যেতে পারবো না! দেশে যতদিন থাকি, ঢাকায় থাকি। ট্রাফিক জ্যাম, দূষিত পরিবেশ, নোংরা-আবর্জনা উপেক্ষা করেই থাকি। বউ অভিমান করে। আম্মা বলেন, যা, বউকে নিয়ে রাংগামাটি-কক্সবাজার ঘুরে আয়। আমি খুটি গেড়ে বসে থাকি। আমার আবাল্যপ্রেম ছেড়ে কোথায় যাবো? যতদিন পারি জড়িয়ে ধরে থাকি, আসন্ন বিচ্ছেদের আশংকায়।

কিছু মনে করবেন না। লেখাটা একটু এলোমেলো, অগোছালো হয়ে গেল। তবে তাই সই। মনের এলোমেলো আবেগ সবসময় গোছানোর দরকার কি? থাক না এভাবেই। যেমন আছে আমার সবচেয়ে প্রিয় আবেগের শহর ঢাকা! এলোমেলো...অগোছালো!

মন্তব্য ৫৩ টি রেটিং +১৩/-০

মন্তব্য (৫৩) মন্তব্য লিখুন

১| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:২৬

জে আর সিকদার বলেছেন: এলোমেলো ভালোবাসাই প্রকাশ পেয়েছে। তবে খুব গভীর এ ভালোবাসা।

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৩৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই। আপনি অন্ততঃ ভালোবাসার গভীরতা বুঝতে পেরেছেন। ভালো থাকবেন আর যদি ঢাকায় থাকেন তাহলে ঢাকাকে ভালো রাখার চেষ্টা করবেন। প্লিজ।

২| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৩৬

জুন বলেছেন: আপনার লেখাটি পড়ে লগ না হয়ে পারলাম না ভুয়া মফিজ । আমিও ঢাকার বাসিন্দা । কেউ দেশ জানতে চাইলে বলি ঢাকা। এনিয়ে অনেকে হাসে খোচা দেয়, কিন্ত আমি কিছু মনে করি না। অনেকে বিশেষ করে ছুটি ছাটাতে নিজ জন্মভুমিতে ফেরার সময় ঢাকা নিয়ে অনেক আজেবাজে মন্তব্য করে বিভিন্ন মাধ্যমে । তখন আমার মনটা ভীষন বিষন্ন হয়ে পরে । ঢাকার বর্তমান এই কুৎসিত চেহারার জন্য ঢাকা কি দায়ী ! ঢাকা যে এত মানুষের জায়গা দিচ্ছে তার প্রতি কোন কৃতজ্ঞতা নেই । নেই এই শহরটিকে সুন্দর করার কারো প্রয়াস। শুধু নিজ নিজ স্বার্থে ব্যাবহার করার জন্যই যেন ঢাকা । আপন করে নেয়ার কোন ইচ্ছে দেখি না।
অনেক মন খারাপ হয় যখন আগের ঢাকার সাথে এখনকার আমার চৌদ্দ পুরুষের প্রিয় জন্মশহর ঢাকাকে মেলাতে পারি না।
+

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৩

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ভুয়া মফিজ বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপা। ঢাকার জন্য এখন আপনাদের মতো মানুষের সত্যিকারের ভালোবাসা খুবই প্রয়োজন, না হলে এই শহরকে আর বাচানো যাবে না।

৩| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৫

জুন বলেছেন: ভুয়া মফিজ উত্তরের ঘরে না লিখে মন্তব্যের ঘরে লিখেছেন তাই হয়তো কখনোই নোটিফিকেশন আসতো না । কি মনে করে ঢুকে দেখি আপনার উত্তর ।
আমিতো ঢাকাকে অনেক ভালোবাসি । আমার জন্মভুমি :)

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৫০

ভুয়া মফিজ বলেছেন: স্যরি, ভুলে ক্লিক করে ফেলেছিলাম, ঠিক করে দিয়েছি। আমারো জন্মভুমি। ভালো থাকুন।

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ১০:১১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আমিতো ঢাকাকে অনেক ভালোবাসি আপনার মন্তব্যটায় আবার চোখ গেল, মনে হয় আপনার ২নং মন্তব্যের উত্তর আমি ঠিকমতো দিতে পারি নাই, তাই আপনার এই মন্তব্য। ঢাকার জন্য এখন আপনাদের মতো মানুষের সত্যিকারের ভালোবাসা খুবই প্রয়োজন এর মাধ্যমে আমি আসলে বলতে চেয়েছি, আপনাদের মতো মানুষ যারা ঢাকাকে সত্যিকার ভালোবাসেন তাদের এই ভালোবাসাটুকু ঢাকার খুবই প্রয়োজন। আমার অপারগতা ক্ষমার চোখে দেখবেন আশা করি।

৪| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৫৫

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: এমন আবেগী অগোছালো একটা মানুষও যদি থাকত নগর কত্তাদের মাঝে!!!!...........

অর্থতো ঢাকাকে বাসযোগ্য কর্ওে কামানো যায়.. বুদ্ধি না থাকলে ধার নে...
তবু দোহাই- সেভ ঢাকা!!!!!!

+++++

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:০৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: সদিচ্ছাই অাসল রে ভাই, সেটাই নাই। সব ধান্ধাবাজেরা ঢাকাকে মেরে ফেলছে, ঢাকার মৃত্যু চিৎকার এদের কানে পৌছে না। সুন্দর মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

৫| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:২৪

নিরব জ্ঞানী বলেছেন: আপনার লেখাতে এটা স্পষ্ট ফুটে উঠেছে যে আপনি ঢাকাকে কতটা ভালবাসেন।

প্রবাসে আমার বউ জিজ্ঞেস করেছিল আমি ঢাকার কোন জিনিসটা সবচেয়ে মিস করি। উত্তরে আমি বলেছিলাম তিন নম্বর বাস (যেটাতে চড়ে অফিসে যেতাম)। সে কতক্ষণ আমার দিকে তাকিয়েছিল এটা বোঝার জন্য যে আমি উত্তরটা ঠাট্টার ছলে দিয়েছি কি না?
আমারো জন্ম এবং বেড়ে ওঠা ঢাকাতে। আগে আমাদের বাসার ছাদ থেকে (গ্রীণ রোড) সংসদ ভবন দেখা যেত। মাত্র চার তলা ছিল বাসাটা। কিন্তু ছাদ থেকে পুরো ঢাকা শহর দেখা যেত।
এই ছাদ থেকেই আমরা চাঁন রাতে ঈদের চাঁদ দেখতাম। আগে এখনকার মত চাঁদ দেখা কমিটি ছিল কিনা জানা নেই, কিন্তু ছোটবেলায় আমাদের কখনো টিভি দেখে ঈদ করতে হয়নি। নিজ চোখে চাঁদ দেখেই ঈদ করতাম। :)

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:৩২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনার স্মৃতিচারণ আমাকে নষ্টালজিক করে দিলো। সদরঘাট টু রামপুরা মুড়ির টিন বাসের কথা মনে আছে?

৬| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:৪০

জুন বলেছেন: সদরঘাট টু রামপুরা মুড়ির টিন বাসের কথা মনে আছে?
আমি এক আত্মীয়র মুখে শুনেছিলাম সে সময় রামপুরা টু সদরঘাট একটি লক্কর ঝক্কর মুড়ির টিন বাস চলতো, নাম তার প্রিন্স অফ পারজোয়ার । সে পাশ দিয়ে গেলে নাকি ধুলোয় ধুসরিত হয়ে যেতো পথিককুল B-)

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:৫২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: একটা না আপা, অনেকগুলা। সব এক চেহারার, মুড়ির টিন। প্রিন্স অফ পারজোয়ার কানা ছেলের নাম পদ্মলোচন :)! কি দিন ছিলো, কোথায় হারিয়ে গেল :((

৭| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:৪৪

নিরব জ্ঞানী বলেছেন: সদরঘাট টু রামপুরা মুড়ির টিন বাসের কথা মনে আছে?
এই মুড়ির টিনের কথা আমিও শুনেছি। খুব সম্ভবত ৪ নাম্বার রুট।

আমি বেশি চড়েছি ১, ৩, ৬, ৭, ১৩ এই রুটের বাস গুলো। এছাড়া মিরপুর ১০,১১,১২ বাসের কথাও মনে পড়ে।

৮| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:৪৭

নিরব জ্ঞানী বলেছেন: টেম্পুর কথাও মনে পড়ে গেল। আগে তিন টাকা ভাড়া ছিল ফার্মগেট টু নিউমার্কেট। সেটাতে করে স্কুলে যেতাম। এখনতো লেগুনা বা এরকম কিছু চলে সেই রুটে।

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:৫৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: কিংবা গুলশান-বনানী থেকে ফার্মগেট হয়ে পীরজংগী মাজার, ৬ নাম্বার রুট। ভাই, সময় কিভাবে চলে যায়... :(

৯| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ২:১৫

বনসাই বলেছেন: আহ মুড়ির টিন! খুব মিস করি। কাঠের বডি। সামনে উইন্ডশিল্ড ছিল না। দুই পাট জানালা মতো ছিল; গরমের সময় ড্রাইভার কাত করে দিতো, তখন হু হু করে বাতাস ঢুকে যাত্রীদের ঠান্ডা করতো। তবে বৃষ্টির সময় ঝামেলা হতো। এখনকার মতো কাঁচের জানালা ছিল না। জানালা ছিল বোর্ডের; নামিয়ে দিলে বাসে আঁধার নেমে আসতো।

সম্ভবত চেচিস ছাড়া বাকি সবটাই লোকাল জিনিসের তৈরি ছিল।
স্কুলজীবনে পলাশি-সায়েন্স ল্যাব রুটে চলেছিলাম, বাসটি গাবতলী পর্যন্ত যেতো। আর পরে দেখেছিলাম সদরঘাট-রামপুরার পথে।

মুড়ির টিন বাস

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ২:৩১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনার বর্ণিত বাস গুলিস্থান-গাবতলী রুটে চলতো পলাশি-সায়েন্স ল্যাব হয়ে। বাসের দারুন বর্ণনা দিয়েছেন! এই বাস আর সদরঘাটের বাসের সামনের দিকে পার্থক্য ছিলো। গুলিস্থান এর সামনেরটা বাসের মতোই ছিল, সদরঘাটের টা সামনে জীপের মতো ছিল দেখতে। ২টাকেই মুড়ির টিন বলতো তবে নামের উৎপত্তি সম্ভবতঃ সদরঘাট-রামপুরার বাস থেকে। ভালো থাকুন।

১০| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ২:২৪

চিটাগং এক্সপ্রেস বলেছেন: মায়া খুব খারাপ জিনিস কাউকে সুখে থাকতে দেয় না।
সুযোগ পেলে ঢাকায় পারমানেন্টলি চলে আসুন ।

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ২:৩৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আমার মনের কথাই বলেছেন, এই নিয়ে ভাই অনেক হাউ-কাউ। আবেগ আর বাস্তবতায় অনেক তফাৎ। ছোট্ট জীবন আমাদের, সংসারে অশান্তি করে কি লাভ? ভালো থাকুন সবসময়।

১১| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৩:৩৭

নতুন বলেছেন: দেশের বাইরে থাকলে দেশের সবকিছুই মিস করি আমরা। :(

ঢাকা আমার ভালো লাগেনা... আমি ১ বছরের মতন ছিলাম... বাকি সময় অন্য জেলায় তাই জেলা শহরই আমার ভালো লাগে...

কিন্তু বিদেশের এতো উন্নত জিনিসের ভিড়েও আমাদের দেশের অনেক কিছুই আমরা মিস করি।

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:৩২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: যে কোনও প্রিয় থেকে দুরে থাকা কষ্টের। কামনা করি আপনার যেন এমন সিচুয়েশন না হয়। ভালো থাকুন সবসময়।

১২| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:২৭

নাগরিক কবি বলেছেন: ভালবাসার শহর।

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:৩৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: জ্বী, অতি ভালবাসার শহর :(

১৩| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:২৭

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: দেশ দেশই...

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:৩৮

ভুয়া মফিজ বলেছেন: দেশ দেশই..., সব দেশের সব মানুষের জন্যই প্রযোজ্য। সমস্যা হলো আমাদের দেশপ্রেমের চেয়ে আত্বপ্রেম বেশি।

১৪| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:২৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: ভুয়া মফিজ ,




প্রচন্ড আবেগময় লেখা ।
ইনহাস্ত ওয়াতানম .......

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:৪৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই। দুঃখ হয় আমরা, সাধারন মানুষরা দেশের জন্য, ঢাকার জন্য কিছুই করতে পারি না। আর যারা পারে তারা কিছুই করে না :(

১৫| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:৪২

প্রোলার্ড বলেছেন: ঢাকায় বেড়াতে আসলে প্রতিবারই এরকম একটা সিডিউল রাখবেন - একদিন আবদুল্লাহপুর হতে বাদামতলী , আরেকদিন যাত্রাবাড়ী থেকে গাবতলী বাসে বা গাড়ীতে ভ্রমন করবেন । এবং সেটা হবে কোন ওয়ার্কিং ডে তে।

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:৪৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: কেন? তাতে কি হবে? কোন বিশেষ কিছু?

১৬| ২৫ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:৫০

প্রোলার্ড বলেছেন: ঢাকাকে প্রাণ ভরে উপভোগ করতে চাইলে এটাই হবে সবচেয়ে চমৎকার পন্থা ।

২৫ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:৫৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আমি ভাই যতদিন থাকি, প্রাণ ভরেই উপভোগ করি। তারপরও নেক্সট বার আপনার সাজেশান মনে রাখবো। ভালো থাকবেন।

১৭| ২৬ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:২০

নতুন বলেছেন: লেখক বলেছেন: যে কোনও প্রিয় থেকে দুরে থাকা কষ্টের। কামনা করি আপনার যেন এমন সিচুয়েশন না হয়। ভালো থাকুন সবসময়।

আমি ২০০৬ থেকে দেশের বাইরে ভাই :) এখন অবশ্য পরিবার সাথে তাই কস্ট কম হয়।

২৬ শে জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৫:৫৮

ভুয়া মফিজ বলেছেন: শুনে খুশি হলাম। পরিবার নিয়ে সুখে-শান্তিতে থাকুন এই কামনা করি।

১৮| ২৬ শে জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:২৪

সামিয়া বলেছেন: আপনার অনুভুতির প্রতি শ্রদ্ধা।। এই ব্লগে প্রায় সমস্ত অভিবাসীদের দেখেছি দেশের নামে বদনাম করতে ঢাকার নামে বদনাম করতে নোংরা যা মুখে আসে তাই বলতে, কাউকে দেখি সেখানকার স্কুল কলেজ বর্ননার পাশাপাশি দেশের সাথে তুলনা করতে বেশ জঘন্য ভাবেই তুলনা করতে কিন্ত কি বলব! ওগুলো ঢাকার পরিবেশ না, জন্মের পর অত ক্ষ্যাত পরিবেশ আমি অন্তত দেখিনি। পড়ে আমি একটা জিনিস লক্ষ্য করেছি ইউ কে ইউ এস এ কানাডা থাকা পাবলিক যারা দেশ কে ভালোবাসি ভাব ধরে সোনা মুখ করে দেশের নামে বিচ্ছিরি বিচ্ছিরি কথা বলে তারা সব ঢাকার বাইরের পাবলিক। তারা ঢাকা বলতে বড় জোড় এয়ারপোট দেখে আর তাদের গ্রাম দেখে মনে করে পুরা বাংলাদেশ দেখে ফেলছে। এরা দেশ রে এত ছোট করে আর বিদেশের এত পা চাটে। ক্যামনে এত মুগ্ধ হয় মাথায় আসেনা।।
আমি ঢাকার পোলাপাইন রে এত মুগ্ধ হতে দেখিনাই। তারা বিদেশ যায় ঘোরাঘুরি কাজ কাম করে আসে ব্যাস শেষ।। যত ক্ষ্যাত তত মুগ্ধ ।।
আমার কথা হল দেশ হল আমার মা এর মতন আমার মা যেমন হোক কালো হোক বোকা হোক গরীব হোক দেখতে খারাপ হোক তবু তো আমার মা তার কাছেই আমার শান্তি পাশের বাড়ির কোটিপতির বউ রে আমি মা ডেকে শান্তি পাব না আর সে ও সেটা করতে দিবেন না। কাজেই নিজের মা কে না পঁচিয়ে পারলে মা এর জন্য কিছু করেন।। আমিও ঢাকার মেয়ে ঢাকা নিয়ে আপনার ফিলিং আমার কথা , ঢাকা যেনো রক্তের সাথে মিশে আছে আমার। রাস্তায় জ্যাম হোক বসবাসের অনুপযুক্ত হোক তবু সে আমার শহর আমার রক্তের সাথে মিশে থাকা শহর। যারা দেশ নিয়ে বাজে কথা বলে তারা আসলে একেকজন উদ্বাস্তু ।।
যাই হোক আবেগে অনেক কথা বললাম আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ প্রিয় ঢাকা নিয়ে লেখার জন্য।।

২৬ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ১০:৫৬

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ঢাকা নিয়ে আপনার আবেগ দেখে মুগ্ধ হলাম। আসলে যে সিলেট, চট্টগ্রাম বা অন্য কোথাও জন্মেছে, বড় হয়েছে সে আপনার আমার মতো ঢাকাকে অনুভব করবে না, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু দিনশেষে আমরা সবাই দেশকে ভালোবাসি, অন্ততঃ আমি এটা বিশ্বাস করি। কিছু ব্যতিক্রম অবশ্যই আছে তবে এদেরকে আমি গনায় ধরি না, এদের কথা শোনারও প্রয়োজন মনে করি না।
যারা বদনাম করে, তারা এটা আসলে একধরনের হতাশা থেকে করে, দেশের করুন অবস্থা থেকেই এই হতাশার উৎপত্তি। বিদেশে থাকলে দেশের সাথে অটোম্যাটিক্যালী তুলনা চলে আসে, এক্সপ্রেশান একেকজন একেকভাবে করে। দেশ তো নিজে নিজে খারাপ হতে পারে না! খারাপ করি আমরা। আমরা দেশ-বিদেশের সব বাংলাদেশী যদি যার যার দায়িত্ব ঠিকভাবে পালন করি তো দেশে পরিবর্তন আসতে বাধ্য।
তবে আপনি ঠিকই বলেছেন, বিচ্ছিরি বিচ্ছিরি কথা বলা ঠিক না, গঠনমূলক সমালোচনাই করা উচিত। অনেক কথা বললাম, ভালো থাকবেন আর আমাদের প্রিয় ঢাকাকে দেখে-শুনে রাখবেন, এটাই প্রত্যাশা।

১৯| ২৭ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ২:২৯

অন্তরন্তর বলেছেন: আপনার পোস্টের জন্য লগ ইন করা হল। ঢাকা নাড়ীর সংগে সংযুক্ত। আমার জন্ম ফরাশগঞ্জ। তাই ঢাকা আমার কাছে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ শহর। কে কি বলল তাতে কিছু যায় আসে না। আমিও আপনার মত দেশের বাইরে থাকি। আমার বউ আবার অন্য জেলার মেয়ে এবং তার জন্ম তাই অন্য জেলায়। সে আমার ঢাকা প্রীতি দেখে আমার মতই হয়ে গেছে এখন ( হয়তবা ইচ্ছের বিরুদ্ধে )।
আমি চেষ্টা করি প্রতিবছর ঢাকা যেতে এবং সময়টা বেছে নেই জানুয়ারীতে। ৩ মাস থাকি এবং রিকশা নিয়ে ঘুরি উদ্দেশ্যহীনভাবে। আর বই মেলায় যাই ( আমার খুব পছন্দের ), টি এস সি তে বসে থাকি এক ঘোরের মাঝে। আপনার পোস্ট নস্টালজিক করে দিল।
খুব ভাল থাকুন ভাই। শুভ কামনা।

২৮ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ১০:১৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনার সাথে তো ভাই আমার বেশ মিল আছে! আমার বউও অন্য জেলার মেয়ে, আমি রিকশা নিয়ে ঘন্টাচুক্তিতে ঘুরি। টি এস সি তো আমার স্বপ্নের জায়গা, শুধু শুধু বসে থাকলেও আনন্দ লাগে। আমার সময় অবশ্য ডিসেম্বর মাস (একটু আগে-পিছে হয়)। বই মেলা খুবই মিস করি (কি করবো, ১মাসের বেশি থাকতে পারি না :( )। অনেক অনেক শুভ কামনা।

২০| ২৭ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ২:৪২

অন্তরন্তর বলেছেন: @ জুন আপু রামপুরা টু সদরঘাট মুড়িরটিন কত চরেছি তা হিসেবে নেই। সেই মুড়িরটিন সামনের দিকে স্টার্ট দিতে হত। হেল্পার একটা লোহার রড বাঁকানো বাসের সামনে ঢুকিয়ে ঘুরিয়ে স্টার্ট দিত। আমি কোনদিন একবারে স্টার্ট নিতে দেখি নাই। অনেক বার চেষ্টায় তবে স্টার্ট নিত ( হেল্পার বেটা ঘেমে যেত )। মুড়িরটিন বলে কথা যা তা নয়।

২১| ১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১০:৪২

কালীদাস বলেছেন: আমার জীবনটা কেটেছে সম্পূর্ণরুপে ঢাকায়। খুব নোংরা একটা শহর। জ্যামের জন্য অসহ্য একটা শহর। যতবার দেশে ফিরি দুনিয়ার বিভিন্ন কোণা থেকে সাথে সাথে এয়ারপোর্টে ছেঁকে ধরার চেষ্টা করে বাটপারের দল। প্রত্যেকটা রন্ধে রন্ধে পঁচে যাওয়া একটা শহর। . .. ... .... ..... ...... .......

কিন্তু সবকিছুর পরও আমার নিজের শহর এটা। আমার জন্ম, বড় হওয়া, বাংলাদেশের মানুষের কাছ থেকে পাওয়া ভালবাসা, সবই আমি পেয়েছি এই শহরে। এখানে যে গর্বটুকু নিয়ে ডাস্টবিনের ময়লা পাড়িয়ে হেঁটেও যে শান্তিটা পাই, ইউরোপের সবচেয়ে ধনী শহরটাতে মানুষের ব্যাপক সমীহ পেয়েও ঘোরার সময় সেই তৃপ্তিটা পাই না। খুব ফিল করলাম লেখার লাইনগুলো।

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১২:৪৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: খুবই সত্যি কথা বলেছেন, পুরাই একমত।
আসলে নিজের প্রিয় জায়গা একটা কমফোর্ট জোন, পারিপার্শ্বিকতা যতোই খারাপ হোক না কেন!
আমার ব্লগবাড়ীতে আসার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

২২| ২৮ শে আগস্ট, ২০১৮ দুপুর ১:৩৩

বিজন রয় বলেছেন: পড়লাম।
প্রায় এক বছর আগের পোস্ট।

আপনি সব ছেড়ে ঢাকা চলে আসুন।

২৮ শে আগস্ট, ২০১৮ দুপুর ১:৩৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ১০ নং মন্তব্যে এর উত্তর আছে দাদা। একটু কষ্ট করে দেখেন।

২৩| ২৮ শে আগস্ট, ২০১৮ দুপুর ১:৩৯

বিজন রয় বলেছেন: হা হা হা..... দেখলাম।

শুভকামনা সবসময়ের।

২৮ শে আগস্ট, ২০১৮ দুপুর ১:৪১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: :)

২৪| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৩:৫২

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: দেশের জন্য ভালোবাসার
ঢাকার জন্য ভালোবাসা আহা ....। আমিও ঢাকার প্রেমে পড়ে গেছি
মাত্র ১৮ বছর ঢাকাতে থাকি, বছরে দুইবার যাই গ্রামে-হবিগঞ্জ আর ময়মনসিংহ। বেশীদিন গিয়ে থাকা যায় না
নিজের অফিস, বাচ্চাদের স্কুল, সংসার নানান ঝামেলা।

বছরের শেষ দিকে এসে মনটা আনচান করতে থাকে গ্রামে যাবার জন্য। আমার দেশ আমার গর্ব আমার অহংকার
ভালোবাসি দেশকে আমার

২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:২১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: অত্যন্ত বিশৃংখল, নোংরা, বিভিন্ন দুষণে দূষিত একটা নগরী, ঢাকা।
তারপরও যখন আসি, প্লেনটা ল্যান্ড করে.......আপনাকে বোঝাতে পারবো না, কতোটা আনন্দ অনুভব করি। ছেড়ে আসার সময়ও একই.....তবে আনন্দটা কষ্টে রুপান্তরিত হয়।

ঢাকা ভালো থাকলে ভালো লাগে। তারপরও, যেমনই থাকুক ঢাকা.....ভালবাসি!

পুরানো একটা লেখা পড়লেন, কষ্ট করে মন্তব্য করলেন.....আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

২৫| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৬

ব্লগার_প্রান্ত বলেছেন: আমিও পড়লাম :(

২২ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৩:০৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ।

২৬| ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৫

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: ঢাকা ভবন ও কালোধোঁয়ায় ঢেকে গেছে :(

২২ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৩:০৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: পুরো ঢাকাই এখন কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গেছে। :(

ভবিষ্যতে কপালে কি আছে একমাত্র আল্লাহ জানেন!

২৭| ১৮ ই মে, ২০১৯ দুপুর ১:৫৯

রাজীব নুর বলেছেন: মোটেও অগোছালো লেখা নয়।
আর ঢাকা ষরের জন্য তো আপনার ব্যাপক মায়া।

১৯ শে মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:০০

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আমি যদি কোনদিন ঢাকার মেয়র হতে পারতাম, দেখতেন ঢাকার চেহারাই পাল্টে ফেলতাম।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.