নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ভুয়া মফিজ

ভুয়া মফিজের সাথে ভুয়ামি না করাই ভালো...

ভুয়া মফিজ › বিস্তারিত পোস্টঃ

লক ডাউনে বগ ডাউন

০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:১২



গতকাল ছিল রবিবার।

সকালে ঘুম থেকে উঠে মনটা ভালো হয়ে গেল। কি সুন্দর একটা দিন। রৌদ্রজ্জল। আবহাওয়ার পূর্বাভাস জানাচ্ছে সারাটা দিন এমনই থাকবে। তাপমাত্রা উঠানামা করবে ১৮ থেকে ২০ ডিগ্রী সেলসিয়াসের মধ্যে। অলসতা করার জন্য একটা মোক্ষম দিন। ব্লগ ডে'র ম্যাগাজিনটা হাতে পাওয়া অবধি এখন পর্যন্ত একটু চেখে দেখেছি, পুরাপুরি রস-আস্বাদন করা হয়ে ওঠেনি এখনও। ভাবলাম, মধ্যাহ্ন ভোজনের পরই ওটা হাতে নিবো। দুপুর দু'টার দিকে ভোজন সেরে ম্যাগাজিনটা নিয়ে ব্যাকইয়ার্ডের ফোল্ডিং চেয়ারটাতে কাৎ হলাম। দেখি বউ আমার আশেপাশে পোষা কবুতরের মতো ঘুর ঘুর করছে। পাত্তা দিলাম না। করুক ঘুর ঘুর। কোন বদ মতলব আছে কিনা জানি না, তবে থাকলেও লাভ হবে না। আজকে এত্তো সুন্দর একটা দিন আমি মাঠে মারা যেতে দিতে পারি না। আমার প্রোগ্রাম ফিক্সড।

পড়তে পড়তে যথারীতি ঘুম চলে এলো। ভরপেট খাওয়া বিশেষ প্রানীটার মতো কুই কুই শব্দ করে একটা টানা দিলাম; তারপরে কাৎ হয়ে শুয়ে ঘুমের প্রস্তুতি নিলাম। আবেশে দু'চোখ মুদে আসছে। ঠিক এমনি সময়ে হঠাৎ শুরু হলো বউয়ের বাকবাকুম।

এ্যাই চলো না, সুমনা ভাবীদের ওখান থেকে ঘুরে আসি। এতো সুন্দর একটা দিনে পরে পরে ঘুমানোর কোন মানে হয়?

কথার উত্তর না দিয়ে মটকা মেরে পরে রইলাম। কথা বললেই কথার পিঠে কথা আসবে। তারচেয়ে চুপচাপ থাকাই ভালো। তাছাড়া এখন কথা বললে আমার আরামের তন্দ্রাভাবও বিঘ্নিত হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা। কিন্তু এ'তো ছেড়ে দেয়ার জিনিস না। হুমকি দিয়ে বললো,

তুমি যদি এখন কথা না বলো, আর ঘুমানোর চেষ্টা করে তাহলে গায়ে পানি ঢেলে দিব কিন্তু!!

আর থাকা গেল না। বললাম, দ্যাখো, ঝামেলা করবা না। তোমার যদি খুব বের হতে ইচ্ছা করে তো মার্টিনকে গিয়ে বলো। ও তোমাকে নিয়ে যাবে, যেখানে যেতে চাও।

বউ ফোস করে উঠলো, মার্টিন আমার কি লাগে যে ওকে বলবো? আর ওই বা আমাকে নিয়ে যাবে কেন? তুমি কি মরে গেছ?

আমি বললাম, ধরে নাও আমি গেছি। এ্যবসোলিউটলি গন! যথেষ্ট হইছে! খবরদার, আমাকে আর বিরক্ত করবা না। কিছু হলেই তো আমাকে মার্টিনের ভয় দেখাও। যাও, এবার ওর কাছেই যাও। তারপরে সখেদে বললাম, শালার কি লাইফ! একটা দিন একটু আরাম করবো তারও উপায় নাই।

শুনি বউ ধুপধাপ করে চলে যাচ্ছে। যেতে যেতে বানী দিয়ে গেল, একটা চরম আইলসা মানুষের সাথে সারাজীবন ঘর-সংসার করে গেলাম। এই জীবনে কোন শখ-আহ্লাদই পূরণ হইলো না।

বলে কি এইটা!! সে গেল তো গেল, ঘুমটার বারোটা বাজিয়ে দিয়ে গেল। এখন আর চেষ্টা করলেও ঘুম আসবে না। কিছুক্ষণ শুয়ে থেকে ভাবলাম এই জীবনে ওর কি কি শখ-আহ্লাদ পূরণ করি নাই! নিজেকে বোঝালাম, আসলে এই লকডাউনের সময়ে ঘরে বসে বসে সবাই বোরড হয়ে যাচ্ছে। ওর মাথা আউলা-ঝাউলা হলে দোষ দেয়া যায় না! আবার এদিকে বের হলে সমস্যাও আছে। পুলিশ থামালে, আর যথাযথ কারন দেখাতে না পারলে ফাইনও করে দিতে পারে! সাত-পাচ চিন্তা করে উঠলাম। ওর জীবনে কোনও শখ-আহ্লাদই যখন পূরণ করি নাই, এটা অন্ততঃ করি!

আমার বাসা থেকে সুমনা ভাবীদের বাসায় যাওয়ার পথে একটা ধনুকের মতো বাকা রাস্তা আছে। উইক ডে গুলোতে মাঝে-মধ্যে ওখানে পুলিশের গতি-মাপার ক্যামেরাসহ গাড়ী পার্ক করা থাকে, তবে উইক এন্ডে কখনও দেখি নাই। একেবারেই শুনসান রাস্তায় ৩০ মাইলের স্পীড লিমিটের জায়গায় ৪০ এ গাড়ী ছোটালাম। বাকটা নিতেই দেখি খাইছে আমারে! হালার পুলিশের গাড়ী দাড়ানো। স্পীডোমিটারের দিকে আর তাকানোর সময় নাই। তড়িঘড়ি ব্রেক করে স্পীড কমালাম। একটু এগুতেই পুলিশের একটা গাড়ী থামার সিগন্যাল দিল। থামলাম। গাড়ী থেকে নেমে এলো মৈনাক পর্বতের মতো এক বিশালদেহী পুলিশ।

হ্যালো স্যার, গুড আফটারনুন। তুমি কি খুব তাড়াহুড়ার মধ্যে আছো? জরুরী কোন কাজে বের হয়েছো?

আমি বললাম, জরুরী তো বটেই। বাসায় আলু শেষ হয়ে গিয়েছে। স্টোরে যাচ্ছি, আলু কিনতে।

কিন্তু স্টোরতো চারটার সময়ে বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এখন বাজে পাচটা!

যাচ্চলে! স্টোর যে রবিবারে বিকাল চারটার সময়ে বন্ধ হয়ে যায়, টেনশানে মনেই ছিল না। বললাম, হ্যা, তাইতো! কিন্তু আলু আমার জন্য খুবই জরুরী। ঘরে খাবার মতো আর কিছুই নাই। দেখি, কোন কনভিনিয়েন্ট স্টোরে পাই কিনা!

কতো বড় আলুর বস্তা কিনবা যে, দু‘জনের বের হওয়া লাগলো? আমি আমতা আমতা করছি দেখে বললো, তুমি যে স্পীডিং করছো তা কি জানো?

আমি বললাম, স্পীডিং করছি? হায় হায়!! বলো কি? আসলে সব সময়ে তো স্পীডোমিটারের দিকে নজর রাখা যায় না! হিউম্যান এরর হতেই পারে। তা, কতোটুকু ওভার স্পীডিং হয়েছে? আমার অভিনয়ে তেমন একটা কাজ হলো না। অবশ্য হওয়ার কথাও না। তবু বিপদে পড়লে মানুষ খড়কুটা আকড়ে ধরেও তো বাচার চেষ্টা করে।

তুমি ৩০ এর রাস্তায় ৩৪ এ চালাচ্ছো!!

মনে মনে বললাম, তোর তো দেখি ঠিক মতোন ট্রেনিংই হয় নাই। ট্রেনিংয়ের জন্য তোরে বাংলাদেশে পাঠানো দরকার। ৩০ আর ৩৪ এ তফাৎ কতোটুকুনরে ব্যাটা ব্যাক্কল! এর জন্য এখন কি ভোগান্তি হয়, কে জানে? গাধাটা আমার ডিটেইলস নিয়ে ছেড়ে দিল।

এই ভোগান্তির জন্য আমার পাশে বসা সিন্দাবাদের ভুতটাই দায়ী। কিছু বলার জন্য রাগে কটমট করে ভুতটার দিকে তাকালাম। দেখি তার আগেই সে কটমট করে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। আমি কিছু বলার আগেই বললো, চালাও! আরো জোরে চালাও! কতোবার বলছি একটু দেখেশুনে গাড়ি চালাও। তা না। কে শোনে কার কথা! যেন চলছে গাড়ি, যাত্রাবাড়ি!!!

সুন্দর একটা দিন এমন অসুন্দরভাবে শেষ হবে কে জানতো!

ছবি কৃতজ্ঞতাঃ গুগল।

মন্তব্য ৪০ টি রেটিং +১৬/-০

মন্তব্য (৪০) মন্তব্য লিখুন

১| ০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:১০

শের শায়রী বলেছেন: আচ্ছা আপনারইবা কি দরকার ছিল ভাবীগো বাসায় যাবার জন্য অত তাড়াহুড়ার, আস্তে গেলেই হইত! আর বিদেশের মুর্খ পুলিশ ৩০ আর ৩৪ এর পার্থক্য ধরে, কামে আমিও বাইর হইছিলাম, মহাখালী থিক্কা ধানমন্ডি বাই রিকশা, দেখলাম কিছু যায়গায় রিকশা গুলারে উল্টাইয়া পুলিশ ফালাইয়া রাখছে, ভালো অইত বিদেশে অই রকম গাড়ী উল্টাইয়া ফালাইয়া রাখার নিয়ম থাকলে, ভাবতেই মজা লাগতাছে =p~

০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:১৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: এক্কেরে ফাকা রাস্তা দেইখা উড়াল দিতে মন চাইলো। রবিবার রাস্তায় পুলিশ থাকে খুব কম। হালারা টাইম মতো কোইত্থে যে আইলো, বুজলাম না। :(

আমাগো গাড়ি উল্টাইলে মন্দ হয় না। ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী মেলাগুলা ট্যাকা দিব। ;)

আমাগো পুলিশ ওই রিক্সাওয়ালাগো লগেই পারবো। হিম্মত থাকলে দুই চাইরটা গাড়ি উল্টাইয়া দেহাউক না!!

২| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ২:১৫

নেওয়াজ আলি বলেছেন:
সামনের দিন যেন সুন্দর হয়

০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:১২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আল্লাহ ভরসা।

৩| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:৪৪

তারেক ফাহিম বলেছেন: লকডাউনের সময়ে ভাবী আর বাহানা করবে বলে মনে হয় না। B-)

০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:১৩

ভুয়া মফিজ বলেছেন: অনুমান ভুল। আরো বেশী করবে। :)

৪| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:৪৯

রাজীব নুর বলেছেন: মাই ফ্রেন্ড, ইজ ব্লোয়িন ইন দ্য উইন্ড!

০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:১৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ইংরেজী কম বুঝি। :D

৫| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৬

:):):)(:(:(:হাসু মামা বলেছেন: নারীদের কোনো দোষ দিতে নেই ;)

০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:১৬

ভুয়া মফিজ বলেছেন: দোষ দেই নাই মামু, সেই সাহস কি আর আমার আছে! তবে, বেশী ত্যক্ত করলে সেটা প্রকাশ করা কি দোষের!! B-)

৬| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৮:১০

মনিরা সুলতানা বলেছেন: যত বিরক্ত ভাব ই দেখানোর চেষ্টা করেন, স্পিডলিমিট ক্যান বেশি আমরা জানি :P

০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:৩০

ভুয়া মফিজ বলেছেন: স্পিডলিমিট ক্যান বেশি আমরা জানি :P আমি তো জানি না; এট্টু খুইলা কন দেহি! :``>>

৭| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৮:৫২

সোহানী বলেছেন: ভাবীতো ঠিকই আছে, কুমির সাহেবইতো গাড়ি চালাইতেছিল, নাকি!!!

কিন্তু ৩০ স্পীড!! গাড়ি চালান নাকি ঠেলা :P :P । আমি ৫০ এর কমে চালালে ঘুম আসে........

০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:৩৮

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ৩০ মাইল কইলাম, কিলোমিটার না। তয় ৩০ এ চালাইলে আমারও ঘুম আসে, কিন্তু কিছু করার নাই। আপনেগো নিয়ম-কানুনে মনে হয় ছাড় আছে। ৩০ এর রাস্তায় ৩৫ বা এর উপরে চালাইলে মিনিমাম ফাইন ১০০ পাউন্ড আর লাইসেন্সের ৩ পয়েন্ট কাটা, কোন মাফ নাই। ধরা পড়ার চান্স ষোলতে পনরো আনা। কোইত্থে জানি পুলিশগুলা আয়া পরে!

আমি তো আপনের লাহান বড়লোক না, গরীব মানুষ। ১০০ পাউন্ড কামাইতে বহুত কাঠখড় পোড়াইতে হয়!! :((

৮| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:৩৮

রাজীব নুর বলেছেন: শুভ সন্ধ্যা।

০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:৩৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: গুড ইভিনিং! :P

৯| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:১৩

সোহানী বলেছেন: এহানে বড়লোকের কথাখান কেন আইলো বুঝবার পারি নাই !!!

জ্বি, স্পীড লিমিট এর আইন কড়া কিন্তু এতো কড়া না। জরিমানা আছে কিন্তু পয়েন্ট কাটা যায় না। সাদা ট্রাফিক পুলিশ ওৎ পেতে থাকে রাস্তায়। বড় কথা এখানে জরিমানার একটা পার্সেন্টিজ ওই ট্রাফিক পুলিশ পায়। যার কারনে স্পীড লিমিট এর বাইরে আমরা যাই না খুব একটা। তবে এখানের সব রাস্তাই বলতে গেলে ৫০ কিমি নট মাইল। কম বেশী ১০% ছাড় দেয় ওরা!!

০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:২৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ৩০ মাইল, পেরায় ৫০ কিমি-ই। মাইল আর কিলোমিটারে প্যাচ লাগছে।

আপনে যেমন, ৩০ রে কিমি ধইরা কইছেন আমি ঠেলা চালাই, তেমনি আমি ৫০ রে মাইল ধইরা ভাবছি আপনে তো তাইলে শখ কইরা রেগুলার ফাইন দ্যান, কাজেই বড়লোক। কথা কি কিলিয়ার? :P

আমি ৩০ মাইলের লিমিটে চান্স পাইলেই ৪০ এ (৬৫ কিমি) চালাই.......কাজেই ঠেলা চালাই না। তয়, সাবধানে থাকি, তাই এহন পর্যন্ত ওই স্পীডে ধরা খাই নাই। B-)

আমাগো কোন ছাড় নাই!!! :((

১০| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:৩১

মা.হাসান বলেছেন: আলুর সমস্যা?
পুলিশকে বলার মতো আর কিছু ছিলো না?

পুলিশ বেটা মনে হয় প্রশ্ন ফাস জেনারেশন, ৪০ কে ৩৪ দেখছে।

পুলিশ কত নিলো? ৩৫ এর নিচে তো ফাইন করার কথা না, তবে কিছু দিয়ে আসলে পারতেন। আমাদের দেশে কিন্তু এখন ট্রাফিক পুলিশরা খুব অর্থ সংকটে আছে।

মনে রাখবেন, Twenty is plenty

মনিরা আপা কি বুজলো আমারো জানিতে আগ্রহ হইতেছে।

০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:৫০

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আলুর সমস্যা? সেই মুহুর্তে মাথায় আলু'র কথাই আসছে। কেন? তার ব্যাখ্যা হয়তো এইভাবে দেয়া যায়; যেমন, ওদের অন্যতম প্রধান খাদ্য আলু হওয়াতে এর অভাবের কারনে হয়তো একটু সহানুভূতি পাইতে পারি। তবে আসলেই কেন মাথায় আলু আসলো, জানি না। :P

পুলিশ বেটা মনে হয় প্রশ্ন ফাস জেনারেশন, ৪০ কে ৩৪ দেখছে। পুলিশ না, আপনেই তো মনে হয় প্রশ্ন ফাস জেনারেশন। ব্লগের সম্রাট তো আপনেরে এই কথা খামাখা বলে না। পোষ্ট ঠিকমতো পড়েন নাই? ক্যামেরাওয়ালা গাড়ী দেইখা খাড়ার উপরে ব্রেক মাইরা স্পীড কমাইছিলাম। ক্যামেরা যখন আমারে ধরছে, কতোতে ধরছে যেহেতু জানতাম না, তাই ওর কাছ থিকা জাইনা নিলাম। B-)

পুলিশ কত নিলো? পুলিশ ক্যাশ নিতে পারে না। ফাইন হলে ব্যাঙ্কে জমা দিতে হবে। জরিমানা বা ওয়ার্নিং যাই হোক, নোটিশ বাসার ঠিকানায় আসবে।

৩৫ এর নিচে তো ফাইন করার কথা না আমিও তাই জানি। নোটিশ আসুক, তারপরে দেখবো। অনেক সময় ভয় দেখানোর জন্যও এরা ডিটেইলস নেয়, বাসায় কিছুই আসে না।

মনে রাখবেন, Twenty is plenty আমার হার্ডডিস্ক ফুল। আজাইরা জিনিস মনে রাখতে পারুম না। :P

মনিরা আপা কি বুজলো আমারো জানিতে আগ্রহ হইতেছে। আমারও। দেখি উনি ব্যাপারটা খোলাসা করেন কিনা!!

১১| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:০৯

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আলু থাকুন বা নাই থাকুক তাই বলে কি আমরা আমি খাব না?
ব্যাটা পুলিশ সপ্তপদী দেখেনি কিম্বা অমন বিখ্যাত গানটি শোনেনি,নাইলে এমন রোমান্টিক জুটির বিশেষ মূহুর্তের এইভাবে বেগরবার করে? আমরা আরেকদিন এমন নির্বিঘ্নে, 'এই পথ যদি না শেষ হয়' .......
দেখতে চাই।

০৭ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:১৮

ভুয়া মফিজ বলেছেন: সপ্তপদী শাব্দিক অর্থ বুঝতে পারছি, কিন্তু কোন অন্তর্নিহিত মানে আছে নাকি? সপ্তপদী দেখা'র কথা বলছি।

বুড়া বয়সে রোমান্টিকতা করার সময় কি আর আছে? যাইহোক, এইখানকার পুলিশ অনেকটা রোবটের মতো। নিজেেদের ডিউটির সময়ে ডিউটি ছাড়া ব্যাটারা কিছুই বোঝে না।

আমরা আরেকদিন এমন নির্বিঘ্নে, 'এই পথ যদি না শেষ হয়' .......দেখতে চাই। তাহলে তো কোন ঘটনা থাকে না, লেখারও কিছু থাকে না। তখন 'আমার কথা ফুরালো, নটে গাছটি মুড়ালো'র মতো হয়ে যায় ব্যাপারটা। :)

১২| ০৮ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:০৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: ভুয়া মফিজ,




আপনি আসলেই প্রশ্ন ফাঁস জেনারেশান!
মনিরা সুলতানা কি জানে আপনি জানেন না ? নাকি বোঝেন নাই? :|
সুমনা ভাবীর নামটা শুনেই যে ওখানে যাবার জন্যে কতো কায়দা করে বউয়ের শখ আহ্লাদের কথা বলে সুন্দর দিনের কসম খাওয়া ফিক্সড প্রোগ্রামও আনফিক্সড করে ফেললেন, তা ও বোঝেন নি ? :(
সিংকিং সিংকিং ........( ইংরেজি নাকি বোঝেন না তাই বাংলায় লিখলুম :P ) ?
"মনিরা আপু" খোলাসা করে আর কি কইবে ????

মা.হাসানও নাকি মনিরা সুলতানার কথা বোঝেন নি, তিনিও সেটা বুঝতে চাইছেন। তাকে একটু বুঝিয়ে দিয়েন, আলু দিয়ে মাছ ঢাকলেন না মাছের ঝোলে আলু দিলেন ................. :#)

ভালো থাকুন আর এমন মধুময় বগ ডাউনেই থাকুন।

১০ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ২:০৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনার মন্তব্য পড়ে একটা গল্প মনে পড়ে গেল। এটা শুনেছেন নিশ্চয়ই, তবু সংক্ষেপে বলি।

এক বামুন ঘাড়ে করে এক ছাগশিশু নিয়ে যাচ্ছে। তিন বাটপার ঠিক করলো ওটা করায়ত্ব করবে। প্ল্যান অনুযায়ী তারা একটু পর পর দাড়ালো। প্রথমজন বললো, বামুন মশাই, কুকুরছানা নিয়ে কোথায় যাও? বামুন তাকে ইগনোর করে এগিয়ে গেল। দ্বিতীয়জন একই কথা বলাতে বামুন একটু সন্দিহান হলো, ওর ঘাড়ে ওটা আসলে কি? তৃতীয়জন যখন একই কথা বললো, তখন বামুন মশাই কাধ থেকে ওটাকে ফেলে দিয়ে একটা পুকুরে গোসল করে বাড়ির পথ ধরলো।

গল্পের পান্চলাইন হলো, বার বার বিভিন্নজনের কাছে একই কথা শুনলে সত্য বলে মনে হয়। নিজেকে এখন সত্যি সত্যি প্রশ্ন ফাঁস জেনারেশানের সদস্য বলে মনে হচ্ছে! সান্তনা একটাই, মা. হাসানও আমার সাথে আছে। :P

মনিরা সুলতানা কি জানে আপনি জানেন না ? নাকি বোঝেন নাই? সুমনা ভাবীর নামটা শুনেই যে ওখানে যাবার জন্যে কতো কায়দা করে বউয়ের শখ আহ্লাদের কথা বলে সুন্দর দিনের কসম খাওয়া ফিক্সড প্রোগ্রামও আনফিক্সড করে ফেললেন, তা ও বোঝেন নি ? হে হে হে……….ঘরের কথা পরে জানলো কেমনে?? =p~

১৩| ১০ ই এপ্রিল, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৮

আরোগ্য বলেছেন: বুঝলাম না এই লক ডাউনে ভাবির আবার সুমনা ভাবীর ওখানে যাওয়ার কি দরকার হলো। খামাখাই আরামের ঘুমটা হারাম করলো। যাক গে শপিংয়ে যেতে চায়নি হাজার শোকর :P

ভুয়া ভাই আপনেগো ওদিকে পুলিশরে চা সিগারেটের লেইগা বকশিস দিলে কাজ হয়না বুঝি। শালাগো এই ট্রেইনিং টা আমগো এদিক থেইকা নিতে অইবো। অবশ্য লক ডাউনে আমগো পুলিশ ও একখান লাঠি লইয়া ঘুরে। আর জায়গা মত মাইরা বসে।

বাংলাদেশের রাহুকাল শুরু হয়া গেছে। পুরান ঢাকায়ও করোনা করুনা করবার লাগাইছে। :((

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:৪৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ভাবীদের প্রধান এবং প্রধানতম কাম হইলো, ভাইদের আরাম হারাম করা। বাকীটা আপনের বুঝ! শপিংয়ে আমার সাথে যাইতে চায় না, তার কারনও আছে। আমি মানুষটা বেশী সুবিধার না কিন্তু!! ;)

আমাগো এদিকের পুলিশগুলা একেকটা আজিব চীজ। এগুলারে দেখি আর ভাবি, একটা দিন যদি এ'গুলারে ডিউটিতে বাংলাদেশে পাঠানো যাইতো, কতোই না মজা হইতো। দেশ নিয়া বেশী টেনশান কইরেন না। আল্লাহ ভরসা।

১৪| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:৫৪

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আমিও সুবিধার নই ;)

হা হা হা ...

শেষ ভরসা তাহলে আলু ;)

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৫:০০

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আমিও সুবিধার নই আপনি সুবিধার না জেনে ভালো লাগলো। দুনিয়াতে আমি একা না জানতাম, তবে আপনিও যে ঝামেলার লোক, এইটা জানতাম না। :P

আলু'র আসলে বিবিধ গুন আছে। তাই, মাথায় সবসময়ে আলু'ই ঘোরে। আলু'র উপর ভরসা করা আমার পুরানো অভ্যাস। =p~

১৫| ১২ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:১১

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
সুদিন ফিরে আসতে কত দেরি।

১৩ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৯:১৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: মহান আল্লাহ জানেন।

১৬| ১২ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:৫১

জুন বলেছেন: আমার মনে হয় সুমনা ভাবীর বাসায় যাওয়ার ব্যাপারে আপনার গিন্নীর চেয়েও আপনার বেশি আগ্রহ ছিল ভুয়া B-) নইলে কবে থেকে আপ্নে এত জরুকা গোলাম হইলেন যে বলার সাথে সাথে গাড়ী (মনে হয় রিকশা,৩০ এ চলে যখন) স্টাট B:-) ঢাকার পুলারা কখনোই এত বউ এর --- হয়না যদি না তাগো নিজ স্বার্থ না থাকে :P
ভুইয়া মফিজ দিনে দিনে রম্য লেখায় অসাধারণ হইয়া উঠতেছে। তার জন্য আমার পক্ষ থিকা এক্রাশ ধন্যবাদ গ্রহন করবেন #:-S

১৩ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:১২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনেদেরকে নিয়া আর পারি না। আপন মনে কইরা আপনেগো অনেক কিছুই কই, কিন্তু আপনেরা এইসব কয়া আমার সংসারে আগুন লাগানের পায়তারা করতাছেন। মনে আসলে আর বুঝলেই কি সব কথা কওন লাগে!!! :((

ঢাকার পুলারা কখনোই এত বউ এর --- হয়না যদি না তাগো নিজ স্বার্থ না থাকে ভুল। সবাইরে এক পাল্লায় মাপন ঠিক না। আমি ঢাকার পুলা হইলেও গোবেচারা কিসিমের...........নিজের বউ তো বটেই, যে কোনও বউরেই আমার ক্যান জানি আপন মনে হয়। =p~

আপনার মন্তব্যে ইমো'র ব্যবহার দেখে মনে হচ্ছে, আপনার মন কিছুক্ষণের জন্য হলেও ভালো করতে পেরেছি......নিজেকে ধন্য মনে করছি। কামনা করি, মনের এই অবস্থা চিরস্থায়ী হোক!!! :)

১৭| ১৩ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ২:৩২

মুক্তা নীল বলেছেন:
ভাই ,
ড্রাইভের ভুল করলেন আপনি আর ক্ষেপেছেন আমার ভাবীর উপর ?
অবশ্য আপনার আর কি দোষ ,আপনারা অনেকেই নিজেদের দোষ বউয়ের উপর চাপানো স্বভাবগত সমস্যা ।
যাইহোক আপনার পোস্টে প্লাস দিলাম শুধু এজন্যই ভাবিকে নিয়ে বের হয়েছেন , যদি বের না হতেন তাহলে দিতাম না (হা হা)।
দোয়া করি ,পরিবারের সকলকে নিয়ে নিরাপদে থাকুন ।

১৩ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:৪৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: যাইহোক আপনার পোস্টে প্লাস দিলাম শুধু এজন্যই ভাবিকে নিয়ে বের হয়েছেন , যদি বের না হতেন তাহলে দিতাম না আপনার সহৃদয়তার জন্য অশেষ ধন্যবাদ। আপনার ভাবীও এই জন্যে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে!! :P

যতো দোষ, নন্দঘোষ..........অতি পুরাতন একটা প্রবচন। :)

১৮| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:১১

জুন বলেছেন: আসলাম দাওয়াত কর্তে /:)

১৮ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৪১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনে আমারে দাওয়াত দ্যান, আমি আপনেরে দেই......বিষয়টা খারাপ না, ইন্টারেস্টিং। দাওয়াত কবুল করছি। =p~

১৯| ১৮ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৪৯

জুন বলেছেন: এই দাওয়াতী কার্যক্রম অনেকেই পছন্দ করে না ভুয়া :(

১৮ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৫৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: মানুষ তো কতোকিছুই পছন্দ করে না আপা। সবার পছন্দ মিটানো তো সম্ভব না, আর সেই চেষ্টা করাও কোন বুদ্ধিমানের লক্ষণ না। যে যার পছন্দ নিয়ে থাকুক না.....অতো গুরুত্ব দেওয়ার কিছু নাই। :)

২০| ২১ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:০০

করুণাধারা বলেছেন: গল্প মন্তব্য সবই পড়লাম। গল্প পড়ে এই ফালতু বিড়ম্বনার শিকার হওয়ায় আপনার জন্য বেশ কিছুটা সহানুভূতি প্রকাশ করব ভাবছিলাম। কিন্তু তারপর সবগুলো মন্তব্য পড়ে মনে হলো, "যেমন কর্ম তেমন ফল" মন্তব্য করলেই মনে হয় যথার্থ হয়। B-)

২১ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: সহানুভূতি প্রকাশ করাই উচিত ছিল। কিন্তু আজকাল দেখি অনেকেই আমি যা-ই বলি বা করি, তার উল্টা মানে করে! :((

বউয়ের আব্দার পূরণ করতে গেলে একরকমের দোষ, আবার না করলে আরেক রকমের দোষ বের হয়। মন্তব্যেই এগুলি পরিস্কার! কোনদিকে যে যাই!!! :(

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.