নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

চলে যাব- তবু যতক্ষণ দেহে আছে প্রাণ, প্রাণপণে পৃথিবীর সরাব জঞ্জাল।

হাবিব

বিশ্বজোড়া পাঠশালা মোর, সবার আমি ছাত্র।

হাবিব › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমি কি ম্যাডামের মন ভেঙেছি?

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ সকাল ১১:৩০



২০০১ থেকে ২০০৮ সাল।
সময়টা আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। ছাত্রজীবনের সবচেয়ে বেশি সময় পার করতে হয় হাই স্কুলে। প্রইমারী কিংবা ভার্সিটির স্যারদের থেকে হাই স্কুলের স্যারদের সাথে সখ্যতা গড়ে উঠে বেশি। সবার ক্ষেত্রেই সম্ভবত এমনটি হয়। আমার ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম হয়নি। পড়াশুনা করেছি স্থানীয় একটি দাখিল মাদ্রাসায়। ক্লাস ফোর থেকে ক্লাস টেন পর্যন্ত। মাদ্রাসায় পড়ার সময়টাতে পরিচয় হয় এক সুশ্রী ম্যাডামের সঙ্গে। অন্যান্যদের তুলনায় আমার সাথে স্যারদের সম্পর্ক একটু বেশিই ভালো ছিল। ব্যবহারে নম্র-ভদ্র (নিজের ঢোল নিজেই পিটাই.. :P ) আর ক্লাসের ফার্স্ট বয় হওয়াতে ম্যাডামদের সাথেও সম্পর্ক ছিল বেশ ভালো।

যে ম্যাডামের কথা বলছি তিনি আমাদের সায়েন্স পড়াতেন।
ক্লাস নাইন-টেনে সায়েন্স পড়ার কারণে ম্যাডামের ক্লাস পেয়েছি। ম্যাডামের বুঝানোর স্টাইল যা ছিল তার বর্ণনা দিতে গেলে একটা মহাকাব্য রচনা করে ফেলা যাবে। রিডিং দেখে দেখে পড়তেন আর বলতেন বুঝছো? আমরাও সুবোধ বালকের মতো বলতাম বুঝছি.. ;) । ফলাফল সায়েন্স ভীতি তৈরী হয় আমার মাঝে। সায়েন্সের ভিত্তি এতটাই নড়বড়ে হয় যে সেই ভিত্তির উপর টিনের ঘর তো দূরের কথা ছনের ঘরও টিকবে না। রিখটার স্কেলের ১ মাত্রার ভূমিকম্পে সেই ঘর ধ্বসে পরতে বাধ্য.. ;) । অবশ্য নিজের প্রচেষ্টায় আর ছোট চাচার সহযোগিতায় পাঠ্য বই ভালোই দখলে নিয়েছিলাম।

এসএসসি (দাখিল) পাস করি ২০০৮ সালে।
মোবাইল ফোন তখনো সবার হাতে হাতে পৌঁছেনি। আমার হাতে মোবাইল পেয়েছি ২০১০ সালের পর। স্যার-ম্যাডামদের কারোর নাম্বারই আমার জানা ছিলো না। অবশ্য আমাদের প্রধানশিক্ষক যিনি ছিলেন তাঁর নাম্বার আমার মুখস্থ ছিলো। এখনো আছে।

গত বছরের মাঝামাঝি সময়ের কথা বলছি।
ফেসবুকে হঠাৎ একটা ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট পেলাম। আমার সেই ম্যাডামের নাম দেখে রিকুয়েস্ট একস্পেট করলাম। রিকুয়েস্ট একসেপ্ট করার পরপরই ম্যাডামের ম্যাসেজ পেলাম।
-"হাবিব কেমন আছো? আমি তোমাদের ম্যাডাম বলছি। মনে আছে? সেই দাখিলের ম্যাডাম।"
আমি সালাম আর কুশলাদি বিনিময় পর্ব শেষ করে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করলাম ম্যাডামের প্রতি। বললাম, আমাকে মনে রাখার জন্য অনেক ধন্যবাদ। সেদিনের কথাবার্তা বেশি লম্বা করিনি।

পরের দিন আবার ম্যাডামের টেক্সট। ভালো-মন্দ জিজ্ঞাসা, কি খেলাম কি করছি, কোথায় আছি, চাকরি বাকরি কেমন চলে ইত্যাদি ইত্যাদি। সব শুনে ম্যাডাম খুব খুশী হলো মনে হচ্ছে। এরপর থেকে নিয়মিতই কথা হতে থাকে ম্যাডামের সাথে। ম্যাডামের হাসব্যান্ডের সাথেও কথা বলিয়ে দেন আমাকে। তিনি আরও আন্তরিকতার সাথে কথা বলেন। ম্যাডামের সাথে কথা হয় প্রতিদিন আর তার স্বামীর সাথে সপ্তাহে একদিন কি দুই সপ্তাহে একদিন।

এক মাস পার হলো এরই মধ্যে।
ম্যাডামের দুই মেয়ে আর এক ছেলে। মেয়ে দুইটা বড়। ম্যাডাম আমাকে মেয়েদের ছবি আর বায়োডাটা দেখিয়ে বললেন হাবিব আমার মেয়েদের জন্য ভালো পাত্রের ব্যবস্থা কইরো তো। মেয়েরা বড় হয়েছে, বিয়ে নিয়ে টেনশনে আছি। তিনি আমাকে পাত্রের কোয়ালিফিকেশনও বললেন। সেই কোয়ালিফিকেশনের সাথে আমি নিজেকে মিলিয়ে দেখলাম ম্যাচ করে কি না। তা দেখলাম ভালোই ম্যাচ কর।.... :P দুই একটা পাত্র দেখালাম ম্যাডামকে। একদিন মিললে আরেক দিক মিলে না। এভাবেই চলছিলো। ম্যাডামও খোঁজ খবর নেয়া বাড়িয়ে দিলেন আমার। টেক্সেটের রিপ্লাই না দিলে দু:শ্চিন্তা করা, দেরী হলে কৈফিয়ত চাওয়া ইত্যাদি । আমি কিছুটা বিরক্ত হলেও প্রকাশ করি না।

একদিন আমার ছেলের সাথে ফেসবুকে ছবি আপলোড দিলাম।
ছবি দেবার পর ম্যাডামের টেক্সট পেলাম অনেকগুলো। সেসবের সারাংশ যা পেলাম তা হলো আমি বিয়ে করছি সেটা ম্যাডাম জানতেন না। ম্যাডামের টেক্সটগুলোকে বিষন্ন মনে হলো। আমি অবশ্য মিটমিট করে হাসলাম। ম্যাডাম যে আমাকে মনে মনে পাত্র ভেবে রেখেছেন বুঝলাম তখন যখন দেখলাম আর আগের মতো খোঁজ নিচ্ছেন না। কখন কি খেলাম জিজ্ঞেস করছেন না। এখন অবশ্য মাস ছয় হবে কোন কথায় হয় না ম্যাডামের সঙ্গে। ম্যাডামের মেয়ে দুইটা ভালোই সুন্দরী। আমাকে বলেছিলো কি কি দেবে মেয়ের বিয়েতে। সে সব এখন শুধুই স্মৃতি আমার কাছে। আর কোনদিন ম্যাডাম হয়তো খোঁজ নেবেন না। অপরাধ আমি তার মন ভেঙ্গেছি!! :(

ছবি সংগৃহীত

মন্তব্য ৩৬ টি রেটিং +৯/-০

মন্তব্য (৩৬) মন্তব্য লিখুন

১| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ সকাল ১১:৪৪

খোলা জানালা। বলেছেন: অসাধারণ রচনা

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:৩৩

হাবিব বলেছেন: প্রথম মন্তব্য এবং প্লাস প্রদানের জন্য অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।

২| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ সকাল ১১:৫২

আলমগীর সরকার লিটন বলেছেন: চমৎকার গল্পকথণ হাবিব দা অনেক শুভেচ্ছা রইল

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:৩৪

হাবিব বলেছেন: লেখার প্রশংসা এবং প্লাস প্রদানের জন্য ধন্যবাদ লিটন ভাই

৩| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:০০

সাসুম বলেছেন: আমাদের বাংলা ম্যাডাম বলেছিলেন ইন্টারে পড়া অবস্থায়- উনার ২ টা ছেলে না হয়ে একটা মেয়ে হলে আমার কাছে বিয়া দিতেন :/

অবশ্য বাজে লোকে এ কথা ও বলে- ম্যাডাম এর বয়স আরেক টু কম হলে আমাকেই অফার করে বসতেন :P আমাকে আবার একটু বেশি দেখতে পেতেন কিনা।

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:৩৪

হাবিব বলেছেন: আপনি মনে হয় খুবই হ্যান্ডসাম ছিলেন স্যার.....

৪| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:০৮

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: পরোক্ষভাবে অনেক সময় প্রস্তাব দেয়া হয়। আমি যখন ব্যাচেলর ছিলাম তখন আমার এক মহিলা কলিগ, যিনি আমার চেয়ে ৩ বছরের বড়, আমাকে একদিন তার বাসায় চায়ের দাওয়াত দিয়ে নিয়ে গেলেন। দাওয়াতের আগে অবশ্য উনি ওনার ছোট বোনের জন্য আমাকে পাত্র খুঁজতে বলেছিলেন। যেদিন ওনার বাসায় গেলাম তখন ওনার বোন ট্রে তে করে আমার জন্য চা, নাস্তা নিয়ে আসলো। আমার কলিগ তখন বলল যে ও নিজের হাতে তৈরি করে নিয়ে এসেছে। এইসব ঘটনা থেকে আমি বুঝতে পেড়েছিলাম যে আমার কলিগ আসলে পরোক্ষভাবে আমার কাছে প্রস্তাব দিচ্ছেন। মেয়েটা অনেক সুন্দর ছিল। কিন্তু আমি ওনাদেরকে পরে এড়িয়ে যাই, কারণ আমার সাথে আমার হবু স্ত্রীর তখন পরিচয় হয়ে গেছে। আমার কলিগ যেহেতু আমাকে সরাসরি প্রস্তাব দেন নাই। তাই আমিও আমার ব্যাপারে কিছু বলি নাই। আমার বিয়ের এক বা দুই বছর পরে ঐ এক্স কলিগের সাথে আমার রাস্তায় দেখা হোল। কুশল বিনিময়ের পরে উনি নিজে থেকেই বললেন যে ওনার ছোট বোনের লন্ডনের একটা পাত্রের সাথে বিয়ে হয়ে গিয়েছে। এখন আমি চিন্তা করি আমার ঐ কলিগও হয়তো আমার উপর কিছুটা ক্ষুব্ধ। এটা আমার ধারণা। যদিও তিনি আমাকে ভালো জানতেন।

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:৩৬

হাবিব বলেছেন: হ্যান্ডসাম হলে এই একটা সমস্যা স্যার। সবাই বিয়ে করতে চাই। আমি অবশ্য হ্যান্ডসাম না, তবুও এমন বেশ কয়েকটি স্মৃতির মুখোমুখি হয়েছি। সেগুলোও বলবো সময় করে।

৫| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:৩৬

জুন বলেছেন: স্যার নিয়া ক্যাচাল শেষ হইতে না হইতেই ম্যাডাম নিয়া আসলেন :-*
আমরা যারা স্যার ও না, ম্যাডামও না তারা কুন্দিকে যাবে কন :-/

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:৩৮

হাবিব বলেছেন: জুন আপা আপনাকেউ পার্মানেন্টলি ম্যাডাম ডাকবো ভাবতেছি। রাগ করবেন নাকি? :P

৬| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:৩৭

রানার ব্লগ বলেছেন: মন বড্ড অভিমানী তাকে বশ করা আর পাগলা ঘোড়া কে পোষ মানানো একই কথা !!!

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:৩৯

হাবিব বলেছেন: পাগল মন মন রে মন কেন এত কথা বলে...... আপনার মন্তব্যে এই গানটি মনে পড়ে গেল।

৭| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:৪৮

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: @ স্যার জুন - আপনার আসল নাম যে জুন এটা জেনে ভালো লাগছে। আরেকটা পোস্টে আপনি নিজেকে বুড়ো বলেছেন (শখ করে মনে হয়) :)। এই বয়সেই যদি নাম হয় জুন তাহলে বয়স যখন কম ছিল তখন কি নাম ছিল আপনার, এটা জানতে ইচ্ছা করে? :) মনে হয় জানুয়ারি ছিল। বয়স বাড়তে বাড়তে এখন জুনে এসে ঠেকেছে। :)

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১:০৯

হাবিব বলেছেন: স্যার, জুন আপার নাম জুলাই কবে হবে কিছু জানলে আমাকে জানাইয়েন। অনেকদিন আগেই শুনছিলাম জুন আপা বুড়া মানুষ, এখনো কি বুড়াই আছেন নাকি জোয়ান হইছেন জানতে মন চায়

৮| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১২:৫৬

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: আমি তো হ্যান্ডসাম কোন কালে ছিলাম না। আমার তো মনে হয় তারা মনে করিয়াছিল যে আমার মত মফিজ (এই মফিজ কিন্তু ব্লগার ভুয়া মফিজ না :)। উনি ভুয়াও না মফিজও না।) কিসিমের একটা পাত্র পাওয়া গেলে নাকে দড়ি দিয়া ঘুরাইতে সুবিধা হইবে। কিন্তু মফিজ যে আগেই আগেই এক মহিলা মফিজের কাছে ধরা খাইয়া আছে এইটা ওনাদের জানা ছিল না। :)

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১:১১

হাবিব বলেছেন:



আপনি যে মহিলাকে মফিজ বলছেন উনি জানতে পারলে আপনার কিন্তু খানা বন্ধ হয়ে যাবে./.... :P

হুম, ঠিক বলেছেন। আমিও কিছুটা মফিজ টাইপের। যে যা বলে তাই শুনি। আপনে কিন্তু চালাক আছেন স্যার।

৯| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১:০৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: মন ভাঙ্গা আর মসজিদ ভাঙ্গা সমান কথা। এইটা অবশ্য কথার কথা!! ছবিটা কার? ম্যাডামের নাকি ম্যাডামের মেয়ের? :Pview this link এই পোষ্টের ২৭ নং মন্তব্যে আপনার উদ্দেশ্যে একটা বানী দিয়াছিলাম, দেখিয়াছেন? ;)

@সাড়ে চুয়াত্তরঃ ভাবছি মফিজের ভুয়া বাদ দিয়ে স্যার লাগাবো। আপনার মুল্যবান মতামত দিবেন। :-B

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১:১৯

হাবিব বলেছেন:





"একটা চুলের চারশো ভাগে
চিকন কাঁচের তৈরী মন
ভাইঙ্গা গেলে লাগাই জোড়া
নাই কারিগর এমন জন
দেহ মাঝে কোনখানে সে
কে বা তারে দেখতে পায়"


মমতাজ স্যারের গান খানা আপনার তরে উৎসর্গ করিলাম।

আপনেরে এহন থেকেই ডাকা শুরু করলাম ভূয়া স্যার থুক্কু মফিজ স্যার........ ;)
নতুন নিকে আপনাকে স্বাগতম.... :P

স্যার আপনের বাণী আগেই আমার দৃষ্টিগোচর হইছিলো। দেখিয়া মিটমিট করিয়া হাসিয়াছি।
যাক দেড়িতে হইলেও আমার প্রতি আপনার সু ধারনা দেখে আঁখিতে জল আসিয়াছিলো। ... :P
এমন সত্য কথনের জন্য আপনি আজ থেকে আমার স্যার। আমার মফিজ স্যার... B-)


আমি আবার খুব সুন্দর গান গাইতে পারি (আমার বউ অবশ্য গান শুনলে বলে চিল্লানো বন্ধ করো)। আপনাকে প্রথম লাইন গুলো গাইয়া শুনাবোনি একদিন .. :P

১০| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১:৪২

জুন বলেছেন: আল্লাহর দোহাই লাগে আমারে ম্যাডাম ডাইকেন্না, শেষে আপার খোচা শুনতে শুনতে আমার জীবন ত্যানা ত্যানা হৈয়া যাবে :-/

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ২:০৬

হাবিব বলেছেন:





আইচ্ছা আপা, আপনি যখন বাংলা সিনেমার মতন কইরা আল্লাহর দোহাই দিলেন তখন আর না কইলাম। নিজেরে ভিলেন ভিলেন ঠেকলো


বাংলা সিনেমার নায়িকার মা (ভিলেন কে উদ্দেশ্য করে): তোর আল্লার দোহাই লাগে আমার মেয়েটারে ছাইরা দে........ (কান্না করতে করতে)

ভিলেন (হু হু হা হা হাসি দিয়ে): তর জামাইরে (জামাই আবার সৎ পুলিশ অফিসার) আমার লগে পাঙ্গা লইতে মানা করিস। নইলে কইলাম সানডে মানডে কোলুজ কইরা দিমু ......... =p~

১১| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১:৫৫

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: @ ভুয়া মফিজ ভাই - আমার মনে হয় আপনার 'ভুয়া মফিজ' আসলে ব্লগে একটা ব্র্যান্ডের মত। তাই ভুয়া মফিজ পুরা না হইলেও অন্তত ভুয়া শব্দটা আপনার নিকে থাকা দরকার। আমার মনে হয় আপনি নতুন নিক নেন ‘ভুয়া স্যার’। এতে স্যার হিসাবে সম্মান পাইলেন আবার নিজের ব্র্যান্ড ভেলুটাও থাকলো। :)

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ২:১০

হাবিব বলেছেন:




জব্বর কইছেন বস। আমি সম্পূর্ণ একমত। ভূয়া রাখতেই অইবো।

একটা কথা জানবার মুনচায়: স্যার আপনি যে সাড়ে চুয়াত্তর অইছেন এইটা কয়দিনে হইছুন? মানে আমি বুঝাতে চাচ্ছি এক, সাড়ে এক, দুই, সাড়ে দুই, তিন, সাড়ে তিন........ চুয়াত্তর, সাড়ে চুয়াত্তর এইভাবে আগাইছেন নাকি এক ধাক্কায় সাড়ে চুয়াত্তর? =p~

১২| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ২:১৫

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: সাড়ে চুয়াত্তরে কি কেউ এক ধাক্কায় যাইতে পারে!!! অনেক ঠেলা, ধাক্কা খাওয়ার পরেই সাড়ে চুয়াত্তরে আইসা আটকাইসি। এখন এইটা চুয়াত্তরও হয় না আবার পঁচাত্তরেও যাই যাই কইরা যায় না। :)

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ২:২২

হাবিব বলেছেন: খালি ধাক্কার আশায় বইসা থাকলে অইবো......?, নিজে একটু আকটু হেইয়ো কইতে অইবো।
পরামর্শ: এক ধাক্কায় পঁচাত্তরে না যাইতে পারলে একটু একটু করে আগান। এই যেমন সাড়ে চুয়াত্তর পয়েন্ট এক, সাড়ে চুয়াত্তর পয়েন্ট দুই ..... এইভাবে। সফলতা আসবেই লেগে থাকলে। আপনার জন্য শুভ কামনা। :P

১৩| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ২:১৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: বুঝছি, আমারে ভুয়া ডাকার সুযোগ আপনেরা হারাইতে চান না। থাক, আমার ভুয়া স্যার হওয়ার দরকার নাই। আমার ভুয়া মফিজই ভালো। B:-/

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ২:৪৮

হাবিব বলেছেন: আপনে তো একজন সেলিবরেটি। (ভূয়া সেলিবরেটি)...... :P

১৪| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ২:৩৯

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: হাহাহা ভালোই খাতির পাচ্ছিলেন। ছবি প্রকাশ না করলেই পারতেন।

ভালো লাগলো গল্প

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ২:৪৭

হাবিব বলেছেন: মিয়া বোন (মিয়া ভাই এর ফিমেল ভার্সন) যে কি কন। ছবিটা তো কালেকটেড, অই মাইয়ার না। নেটে সার্চ দিছি ভাঙা মন লেইখা কিছু ছবি পাইছিলাম। এইটা চয়েছ হইলো, তাই টাঙ্গাইলাম।

১৫| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:২৪

নীল আকাশ বলেছেন: জুন বলেছেন: স্যার নিয়া ক্যাচাল শেষ হইতে না হইতেই ম্যাডাম নিয়া আসলেন :-*
আমরা যারা স্যার ও না, ম্যাডামও না তারা কুন্দিকে যাবে কন

এত সোজা রাস্তা থাকতে আবার জিগায়? ঘটকালীতে নাইমা পরেন।
ম্যাডামের এই দুই মাইয়ার শাদি মোবারকের সুবন্দোবস্ত কইরা দেন।
বেশি খুঁজাখুঁজি করতে হবে না। ব্লগে প্রচুর সুপাত্র আছে।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ সকাল ১১:৫০

হাবিব বলেছেন: স্যার আপনিও নামতে পারেন ঘটকালিতে। উপরি ইনকাম হইবো, সাথে করোনা কালিন সময়টা ভালোই কাটবো। :P

১৬| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ১০:০৩

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: গ্রেট লস! গ্রেট লস! একজীবনে কত যে হারালেন তার ইয়ত্তা নেই। আবার সেই ম্যাডামকে নিয়ে পোস্ট দিলেন।একে তো ওনার মনে অনল জ্বলছে।আর সেটাকে তুলে প্রকাশ্যে জানানোয় আপনার নামে ম্যাডাম হানির মোকদ্দমা হবে।
জুনাপুর কমেন্টে প্লাস।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ সকাল ১১:৫১

হাবিব বলেছেন: ম্যাডাম হানির ভয়ে ওনার নাম বলিনি। তবুও মামলা...... :((

১৭| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ ভোর ৪:১১

সোহানী বলেছেন: হায় হায় এইটা কি করলা হাবিব। তুমি মনে হয় কম যাও না, চুপে চাপে চাইপা গেছো..........হাহাহাহা

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ সকাল ১১:৫৩

হাবিব বলেছেন: আমি আবার কি করলাম। আমি তো যানতাম যে উনি হয়তো। তবে শেষে এসে আমার খারাপই লাগলো ম্যাডামের জন্যে.... :( (এইটা ভাইবেন না যে ওনার মেয়েদের জন্যে.. B:-/ )

১৮| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ সকাল ১১:৩৩

ইসিয়াক বলেছেন:






আমার পোস্টে প্রিয় ব্লগার নীল আকাশ ভায়ের মন্তব্যটা কপি পেস্ট করে দিলাম।
নীল আকাশ বলেছেন: শুভ সকাল,
নিজেই গল্পকার সেজন্যই নাকি জানি না, ব্লগের সব গল্পকারদের জন্য আমার হৃদয়ে সফট কর্নার আছে। যেহেতু আপনি গল্প লেখা শুরু করেছে এখন অটোমেটিক এটা আপনার জন্য বরাদ্দ হবে। তবে কিছু কিছু ব্লগার গল্পের নামে প্রেম পিড়ীতি অতিরিক্ত দেখায় যেটা আমি অপছন্দ করি। এই পৃথিবীতে প্রেম ভালোবাসায় ছাড়াও অনেক বিষয়ে প্লট বানিয়ে গল্প লেখা যায়, সেইগুলির উপর লিখতে থাকুন। চোখে পড়লেই আমি এসে পড়ে যাব। চোখে না পড়লে জানাবেন আমি যেয়ে পড়ে আসব।

১। লাইন আর প্যারাগ্রাফ ফরম্যাট নিয়ে আপনাকে কাজ করতে হবে। আলাদা আলাদা প্যারার মধ্যে নূন্যতম এক লাইন গ্যাপ দিবেন।
২। পারলে প্রতিটা কথপোকথন আলাদা আলাদ লাইনে সামনে - হাইফেন দিয়ে লেখার চেস্টা করবেন। এতে প্রেজেন্টেশন ভাল হয়।
৩। বানান ভুল গুলি শুধরানোর জন্য পোস্ট দেয়ার আগে প্রিভিউতে একবার মনোযোগ দিতে পড়ে নিবেন।
৪। শেষে এসে আলাদা করে শেষ/চলবে বলার দরকার নেই। পাঠক পড়ার পরেই নিজেই বুঝে নেবে লেখা শেষ নাকি চলবে।
৫। পর্ব ভিত্তিক লেখা দিলে প্রথম পর্ব, দ্বিতীয় পর্ব () এর মধ্য দিয়ে গল্পের হেডিং এর পর দিয়ে দেবেন। তবে প্রতিটা পর্বের শেষে একটা দুর্দান্ত ট্যুইস্ট দিয়ে রাখবেন যেন পরের পড়ার জন্য সবার আগ্রহ থাকে। আর পর্ব হলে খুব তাড়াতাড়ি পোস্ট দিয়ে দিবেন। পরের পর্বের শুরুতেই আগের পর্বেই লিং দিয়ে রাখবেন যেন কেউ চাইলেই পড়ে আসতে পারে।
৬। গল্পের থীম, স্টার্ট আর ফিনিস কেমন হবে সেটা আগেই ঠিক করে নিবেন। ফিনিস অবশ্যই ড্যাসিং হতে হবে।
৭। যেহেতু নতুন লিখছেন, ভাষা একদম নিজেরটা স্বাভাবিক ভাবে ব্যবহার করুন। কৃত্রিম কোন ভাষা ভালোভাবে আপনি বেশিক্ষন লিখতে পারবেন না। টেনে শুধু গল্প বড় করতে যাবেন না। পাঠক বিরক্ত হয়ে যাবে।
৮। স্থান, সময় কিংবা প্রেক্ষাপট চেঞ্জ হলে সম্পূর্ন আলাদা ভাবে প্যারাগ্রাফ ব্যবহার করুন, যেন পাঠক বুঝতে পারে এটার সাব টপিক ভিন্ন। গোলমাল যেন না পাঁকিয়ে যায়! পারলে সময়ের ক্রমানুসার হিসেবে লিখবেন।
৯। একটানা কারও চারটা বা বেশি লাইন কথোপকথন পর পর লাইনে না দিয়ে মাঝখানে ব্রেক দিয়ে অপর জনের এক্সপ্রেশন কিছু একটা দেখান। দেখতে ভাল লাগবে।
১০। ফাইনাল পোষ্ট দেবার আগে অবশ্যই প্রিভিউ ভাল করে দেখে নিবেন। যেন কথোপকথন সুন্দর ভাবে দেখা যায় আর বুঝা
যায়। ফরম্যাট এই সময় দেখে নিন ভেঙগে নষ্ট হয়ে গেছে নাকি!!
১১। আলাদা আলাদা ব্যাক্তির সাথে কথা বলার সময় আলাদা প্যারাগ্রাফ ব্যবহার করুন।
১২। অনুরাগের বা ভাবের কথা লেখার সময় সহজ ভাষায় ছোট ছোট করে কথোপকথন দিবেন। পড়তে ভালো লাগবে।
১৩। পড়ুন, বেশি করে পড়ুন। গল্পের থীম ফাইনাল করার পর, কাছাকাছি বিষয়ের যেকোন লেখকের কোন লেখা পড়ে আসুন। কিছুটা ধারনা পাবেন।

অবশ্য মনে রাখবেনঃ -
১। ফিনিসটা ভালো করে দিতেই হবে। ট্যুইস্টও যদি দিতে চান ভালো করে দিবেন। চমক রাখবেন। কারন পাঠকের ফিনিসটাই দিন শেষে মনে থাকে!
২। নামকরন নিয়ে ভাল ভাবে কাজ করবেন। পাঠক কিন্তু সারাগল্পেই আপনার গল্পের নামকরনের সার্থকতা খুজে বেড়াবে।
৩। ছবি যেন মানাসই হয়। আমার শেষ গল্পে আমার ছবির কারন হাসান ভাইকে বলেছি। পড়ে দেখুন।

* ছোট গল্প লেখার জন্য ব্লগার শ্রদ্ধেয় কাওসার ভাইয়ের একটা পোষ্ট আছে সেটা খুব ভালো করে পড়ে নিবেন।
আরও লিখুন, লিখতে লিখতেই হাত খুলে যাবে। কেউ মায়ের পেট থেকে গল্প লেখা শিখে আসে না। আর চেস্টার উপর কিছুই নেই।

* লেখার সময় বা ব্লগে যেকোন বিপদের সময় কোন সাহায্য লাগলে আমার কাছে চলে আসবেন। আমি যতটুকু পারি চেস্টা করে যাবে।

ধন্যবাদ আর শুভ কামনা রইল!

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ সকাল ১১:৪৯

হাবিব বলেছেন: ধন্যবাদ ইসিয়াক ভাই। ভালো থাকবেন। আপনার সফলতা কামনা করছি

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.