নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

একজন সুখী মানুষ, স্রষ্টার অপার ক্ষমা ও করুণাধন্য, তাই স্রষ্টার প্রতি শ্রদ্ধাবনত।

খায়রুল আহসান

অবসরে আছি। কিছু কিছু লেখালেখির মাধ্যমে অবসর জীবনটাকে উপভোগ করার চেষ্টা করছি। কিছু সমাজকল্যানমূলক কর্মকান্ডেও জড়িত আছি। মাঝে মাঝে এদিক সেদিকে ভ্রমণেও বের হই। জীবনে কারো বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ করিনি, এখন তো করার প্রশ্নই আসে না। জীবন যা দিয়েছে, তার জন্য স্রষ্টার কাছে ভক্তিভরে কৃতজ্ঞতা জানাই। যা কিছু চেয়েও পাইনি, এখন বুঝি, তা পাবার কথা ছিলনা। তাই না পাওয়ার কোন বেদনা নেই।

খায়রুল আহসান › বিস্তারিত পোস্টঃ

দেবী দর্শন এবং তার আগে পরে

২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৪:২১

প্রথমেই বলে নেয়া প্রয়োজন, আমার এ লেখাটা সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি "দেবী"র কোন রিভিউ নয়, কাল্পনিক_ভালবাসা কর্তৃক রচিত মিসির আলি এবং দেবী শীর্ষক একটা সাম্প্রতিক পোস্টে করা আমার একটি মন্তব্য এ পোস্টের বহুলাংশ জুড়ে রয়েছে। যারা ওনার পোস্টে আমার মন্তব্যটি ইতোমধ্যে দেখেছেন, তাদের কাছে আমার এ পোস্ট চর্বিত চর্বণ মনে হতে পারে, সেজন্য তাদের কাছে আমি আগে ভাগেই দুঃখ প্রকাশ করছি। "দেবী" নয়, বরং দেবী দর্শন করতে গিয়ে আমার কিছু সুখানুভূতিই এ পোস্টের মূল উপজীব্য।

গত পরশু সকালে গিন্নী অনেকটা আব্দার করেই বললেন, আজ বিকেলে আমরা কিন্তু “দেবী” দেখতে যাব, তুমি না করবে না। দেবী দর্শনের এ প্রস্তাবে প্রথমে একটু চমকিত হয়েছিলাম, ভাবছিলাম এ কোন দেবীর কথা বলছেন তিনি! সম্প্রতি তো দূর্গা পূজো শেষ হয়ে গেল, বাসার কাছে একটি পূজো মন্ডপও বসেছিল, কিন্তু তিনি নিশ্চয়ই সে দেবীর কথা বলছেন না আমাকে। জিজ্ঞেস করলাম, কোথায় দেবী দেখতে যাবে? যমুনা ফিউচার পার্কের কথা বলাতে মুহুর্তেই ব্যাপারটা পরিষ্কার হয়ে গেল, তিনি সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত, বহুল আলোচিত চলচ্চিত্র “দেবী”র কথা বলছেন। এর আগেও তিনি একবার আমার সাথে একসাথে হলে গিয়ে ‘বেলাশেষে” দেখতে চেয়েছিলেন, কিন্তু আমি শেষ পর্যন্ত নানা কারণে সময় দিতে পারিনি বলে সে ছবিটা আর আমাদের দু'জনের একসাথে বসে দেখা হয়নি। অথচ শুনেছি, আমাদের বয়সীদের আবেগ অনুভূতিই নাকি ছবিটির মূল উপজীব্য ছিল। যাহোক, এ নিয়ে আমার ভেতরে এমনিতেই একটা গাফিলতিবোধ কাজ করছিল। তাই এবারে এক কথায় রাজী হয়ে গেলাম। এছাড়া এ ছবির চিত্র পরিচালককে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি। সম্প্রতি চারিদিকে শুনছি, এ ছবি নিয়ে ওনার বেশ নাম ডাক হয়েছে। তাই একবার ভাবলাম, যাই দেখে আসি, উনি কেমন কাজ করেছেন।

তবে “দেবী” একে তো সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি, তার উপর হুমায়ুন আহমেদ এর উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত, জয়া আহসান, চঞ্চল চৌধুরীর মত ডাকসাঁইটে তারকা এতে অভিনয় করেছেন, এসব কারণে মুক্তির আগেই এ ছবি নিয়ে বেশ বড় একটা hype বাজারে তৈরী হয়েছিল। তাই এ ছবির টিকেট প্রাপ্তি নিয়ে একটা সংশয় এবং তজ্জনিত চাপ রাজী হবার পর থেকেই ভেতরে ভেতরে অনুভব করছিলাম। তাই ছোট ছেলের শরণাপন্ন হ’লাম, ওকে ফোন করে অনুরোধ করলাম একটু ইন্টারনেট ঘেঁটে দেখতে, “দেবী” ছবির দুটো টিকেট অনলাইনে কাটা যায় কিনা। ওর সাথে কথা বলে বুঝলাম, ওকে ওর মা আগেই এ ব্যাপারে বলে রেখেছিলেন, কিন্তু ও সেটা বিশ্বাস করেনি কারণ ও কদাচিৎ আমাদেরকে হলে গিয়ে মুভি দেখতে দেখেছে। যাই হোক, আমার কাছ থেকে অনুরোধ পাবার পর ও বেশ উৎসাহ নিয়ে অনলাইনে দুটো টিকেট কিনে টিকেট কনফার্মেশন এর একটা কপি আমাকে মেইল করে পাঠিয়ে লিখলো যে হলে ঢোকার সময় এই মেইলটা গেটে দেখাতে হবে। তবে কোন ক্যাচাল এড়ানোর জন্য সেটার একটি প্রিন্ট কপি সাথে নিয়ে যেতে ও পরামর্শ দিল। আমার ঝামেলা ব্যস ঐ টুকুই- মেইলটার কপি করা। নিকটস্থ একটা শপিং মলের একটা ফটোকপি/কম্পিউটারের দোকানে কাজ করা একজন তরুণের সাথে সম্প্রতি পরিচয় হয়েছিল। ভাগ্যিস তার সেলফোন নম্বর এবং ইমেইল ঠিকানাটা আমার ফোনে সেভ করে রেখেছিলাম। ছেলের মেইলটা ওকে ফরোয়ার্ড করে ওকে একটা ফোন দিয়ে অনুরোধ করলাম, ওটার একটা প্রিন্ট কপি করে রাখার জন্য। পরে ড্রাইভার পাঠিয়ে সেটা নিয়ে এলাম এবং সেই সাথে টিকেট বিষয়ক সব চিন্তার অবসান হলো। ছবি শুরু হবার দশ মিনিট আগে আমরা ব্লকবাস্টার সিনেমায় গিয়ে পৌঁছলাম। একটা নাতিদীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে দুটো মাসালা পপকর্ণ এর চোঙ্গা প্যাকেট হাতে করে আসন গ্রহণ করার সাথে সাথেই জাতীয় সঙ্গীত বেজে উঠলো। মিনিট বিশেক পরে ছেলে ফোন দিয়ে জিজ্ঞাসা করলো, হলে প্রবেশ করতে কোন সমস্যা হয়েছে কিনা। ওকে জানালাম আমরা হলে বসে গেছি এবং ছবি দেখছি। ওর এই ফোনটা পেয়ে ভাল লাগলো। ওরা তিনভাই যখন ছোট ছিল, আমরা তখন ওদের সমস্যাগুলো সবসময় পুরোপুরি সমাধান করে দিতাম না। কিছুটা সমাধান করে ওদের ওপর ছেড়ে দিয়ে দেখতাম, ওরা নিজেরাই বাকীটুকু সমাধান করতে পারে কিনা। মনে হলো, সেও আজ আমাদের একটা ছোট্ট পরীক্ষা নিল; ইচ্ছে করেই একটু দেরীতে ফোন করে দেখে নিল, আমরা আমাদের বাকী পথটুকু নিজেরাই হাঁটতে পেরেছি কিনা।

ছবিটি দেখার পর ছবিটি নিয়ে অনেকগুলো রিভিউ সোশ্যাল মিডিয়াতে এবং ব্লগে পড়লাম। পড়ে বুঝতে পারলাম, আমার মত অন্য অনেকেই ভেবেছেন, “আয়নাবাজী”তে চঞ্চল চৌধুরী যতটা সাবলীল ও সার্থক অভিনয় করতে পেরেছেন, “দেবী”তে তিনি তা পারেন নি। আর এ ছবিতে তার মেকাপ/গেটাপও মিসির আলীকে সফলভাবে প্রতিনিধিত্ব করতে পারেনি। "কন্ঠ এবং শারীরিক গঠনের দিক দিয়েও মিসির আলীর সাথে তার পার্থক্য রয়েছে। তবুও আমি ইতিবাচকভাবেই ছবিটিকে দেখছি" - কাল্পনিক_ভালবাসা এর এ কথাগুলোকেই আমারও মনের কথা বলে মনে হয়েছে। আর, এটাই প্রথম বাংলাদেশী প্যারাসাইকোলজিকাল হরর ফিল্ম, সে হিসেবে এ ছবিটা কিছুটা ছাড় তো পেতেই পারে। তবে জয়া আহসান এর অভিনয় বহুলাংশে অনবদ্য হয়েছে এ কথাটা সহজেই বলা যায়। নতুন শিল্পী হিসেবে ইরেশ জাকের এবং ফারিয়াও ভালই করেছেন। আরও ইতিবাচক/নেতিবাচক অনেক কিছুই বলা যায়, তবে আমি তা করছিনা। বহুযুগ পর শুধু আমরা দু’জন একসাথে ছবি দেখতে গিয়েছি, এটাই আমি বেশী উপভোগ করেছি। ছবি দেখার চেয়ে ছবি দেখার আগে পরে কাটানো সময়গুলো আরো বেশী ভাল লেগেছে।

ছবি দেখা শেষে দু’জনে KFC তে বসে আর্লী ডিনার করে ঘরে ফিরলাম। ফাস্ট ফুড ও জাঙ্ক ফুড আমাদের উভয়ের জন্য পরিত্যাজ্য, কিন্তু আমরা সেই সন্ধ্যায় নিয়মের একটু ব্যতিক্রম করতে সম্মত হয়েছিলাম। ফেরার পথে গাড়ীতে বসে মনে হলো, KFC এর ছোট গ্লাসের পেপসিতে যেন তৃষ্ণা মেটেনি। তাই পথে গাড়ী থামিয়ে একটা ঠান্ডা পেপসি’র বোতল কিনে নিষেধহীন পেপসিপানে একে অপরকে প্রশ্রয় দিতে দিতে আমরা বাড়ী ফিরেছিলাম।








বের হবার সময় যখন গাড়ীর জন্য অপেক্ষায় ছিলাম, তখন দূর আকাশে চাঁদটা এভাবেই দেখা দিয়েছিল।



ঢাকা
২৩ অক্টোবর ২০১৮
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।

মন্তব্য ৬২ টি রেটিং +২৩/-০

মন্তব্য (৬২) মন্তব্য লিখুন

১| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:২৩

জাহিদ অনিক বলেছেন: ভাগ্যিস !
কাল্পনিক ভালোবাসা'র পোষ্টে আপনার মন্তব্যটি আমি পড়িনি।

দেবী দর্শন নয়, আমার কাছে মনে হলো প্রসন্ন চিত্তের আপনাদেরকে দেখলেন দেবী। পুরো ঘটনাটা যেভাবে লিখলেন একবার পড়া শুরু করে আর চোখ নড়ানো গেল না। ইন্টারেস্টিং লেগেছে আপনাদের সিনেমা দেখবার আদ্যোপান্ত, ছেলেকে দিয়ে টিকিট কাটানো থেকে শুরু করে পেপসিপানে নিজেদেরকে প্রশ্রয় দেয়া; সবটাই বেশ ভালো লেগেছে পড়তে।

সিনেমা দেখে মন ভালো করাটাই আমার কাছে মোক্ষম, সিনেমা দেখে আপনাদের মন যে বেশ ফ্রেশ ছিল সেটা কেএফসি-তে আর্লি ডিনারের মধ্য দিয়েই ইঙ্গিত পাওয়া যায়।

ভালো থাকুন। সুস্থ থাকুন সতত।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৮:২৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রথম মন্তব্য এবং প্রথম প্লাসে প্রাণিত হ'লাম। খুবই প্রেরণাদায়ক মন্তব্য।
ইন্টারেস্টিং লেগেছে আপনাদের সিনেমা দেখবার আদ্যোপান্ত, ছেলেকে দিয়ে টিকিট কাটানো থেকে শুরু করে পেপসিপানে নিজেদেরকে প্রশ্রয় দেয়া; সবটাই বেশ ভালো লেগেছে পড়তে। -- অনেক ধন্যবাদ।
আপনার জন্যেও রইলো অনেক শুভকামনা। ভালো থাকুন...

২| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৫

জুন বলেছেন: আপনার এই নাতিদীর্ঘ এবং সুখপাঠ্য মন্তব্যটি কাভার পোষ্টে দেখেছিলাম। ম্যুভির আগে পরে ভাবীকে নিয়ে এমন একটি আনন্দদায়ক এবং এলোমেলো সময় কাটানোর ব্যপারটি আমার খুব ভালোলাগলো । কারন আমার সবকিছুই এমন হঠাৎ হঠাৎ ভালোলাগে । আগে থেকে পরিকল্পনা করে কিছু করার কথা আমি ভাবতেই পারি না খায়রুল আহসান । তাই গত রবিবার যমুনা ফিউচার পার্কে একটা প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে গিয়ে venom ম্যুভির এড দেখে ছেলেসহ বসে পড়লাম তা দেখার জন্য । কমিকস নিয়ে করা ম্যুভিটি খুবই এনজয় করেছি । তখন দেখি দেবীর বিশাল লাইন এবং কাউন্টারে তর্কাতর্কি কারন টিকিট শেষ ।
আশাকরি সময় করে দেবী দর্শন হবে :)
+

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৮:৩৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: আগে থেকে পরিকল্পনা করে কিছু করার কথা আমি ভাবতেই পারি না - আমিও ঠিক তাই। জীবনের অনেকগুলো বড় বড় কাজ আমি করে ফেলেছি কোন সুচিন্তিত পরিকল্পনা ছাড়াই। :)
যমুনা ফিউচার পার্কে একটা প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে গিয়ে venom ম্যুভির এড দেখে ছেলেসহ বসে পড়লাম তা দেখার জন্য - বাহ, খুব সুন্দরতো! আর কমিকস নিয়ে করা ম্যুভিটা এই বয়সেও খুবই উপভোগ করেছেন জেনে আরও ভাল লাগলো।
আশাকরি সময় করে দেবী দর্শন হবে - আমিও তাই আশা করি। দর্শনের পর দেবীকে কেমন লাগলো তা জানিয়ে একটা ছোট্ট পোস্ট লিখে দিবেন, এটাও আশা করি। :)
অনেক ধন্যবাদ আপনার মন্তব্য এবং প্লাসের জন্য। ভাল থাকুন, শুভকামনা---

৩| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৬

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: আপনার সেই মন্তব্যটি আমার পোষ্টের সৌন্দর্য বাড়িয়েছে, আমাকে কিছুটা নিশ্চিত করেছে। কারন আমি আমি ইতিবাচক সমালোচনা করতে চেয়েছি, চঞ্চল চৌধুরীকে আমার বিশ্লেষন বা পর্যবেক্ষন যে কিছুটা হলেও সঠিক তা আপনার মুল্যায়নের পর স্বীকৃতি পেয়েছে।

আপনাদের সিনেমা দেখার গল্পটি কিন্তু আমার কাছে খুবই চমৎকার এবং অনুপ্রেরণার মত লেগেছে। আপনি এবং ভাবী দুইজনই দীর্ঘজীবি হোন, জীবনের ছোটখাটো আনন্দগুলো একসাথে উপভোগ করুন, এটাই আমার প্রার্থনা। :)

শুভেচ্ছা জানবেন প্রিয় খায়রুল ভাই।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৯:০৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার এ কথাগুলোয় খুবই একটা উষ্ণ আন্তরিকতা অনুভব করলাম, অনেক ধন্যবাদ এমন মনছোঁয়া মন্তব্যের জন্য।
আপনি ছবিটা দেখেছিলেন শুক্রবারে, আমি শনিবারে। দেখার পর থেকে ভাবছিলাম, এ নিয়ে কিছু লিখবো কিনা। স্মৃতি টাটকা থাকতে থাকতেই আপনার রিভিউটা চোখে পড়লো। পড়ে বুঝলাম, এর পরে আর রিভিউ লেখা চলবেনা। মন্তব্য লিখে শেষ করার পর মনে হলো, অনেক লম্বা হয়ে গেছে, কিন্তু কাটতে ইচ্ছে হলোনা। আর তার পরে মনে হলো, আরে, এটাকেই তো একটু পরিমার্জন পরিবর্ধন করে পোস্ট করা যায়। সে ভাবনা থেকেই এসেছে এ পোস্ট।
অনেক অনেক শুভকামনা, আপনার এবং আপনার পরিবারের জন্য।

৪| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:১২

রাকু হাসান বলেছেন:


ব্লগে দেবী নিয়ে অনেক কথা হয়েছে ,এখনও হচ্ছে । সোসাল মিডিয়াতে আরও বেশি । পড়ার চেষ্টা করেছি । তবে সবচেয়ে ভালো লেগেছে কাভা ভাইয়ের সিনেমা পোস্টটা । অনেক কে দেখলাম ১০ বছর পর হলে ফিরছেন । এটা খুব পজিটিভ দিক । সাম্প্রতিক সময়ে আয়নাবাজি এবং সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত দেবী দর্শকদের হলমুখী করতে পারছে । জয়া আহসানের চেষ্টার প্রশংসা করতেই হবে । প্রথম প্রজোযক হিসাবে বাণিজ্যিক ছবি বেছে নিলেও পারতেন । দেবী বেছে নিয়ে তিনি শিল্পীয় মানসিকতার পরিচিয় দিয়েছেন । শিল্পী এমনই হওয়া চাই । আপনার পোস্টও খুব ভালো লাগলো । এ সময়েও হলে গিয়েছেন জেনে ভালো লাগছে । ভালো থাকবেন খুব ।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৯:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার উদার দৃষ্টিভঙ্গী প্রশংসনীয়। যা কিছু বলেছেন, সব কথার মধ্যেই একটা উদারতা দেখতে পেয়েছি।
প্রেরণাদায়ক মন্তব্যের জন্য এবং প্লাসের জন্য অনেক ধন্যবাদ।
ভাল থাকুন, শুভকামনা---

৫| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২০

সাগর শরীফ বলেছেন: ভাল লাগল ।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৯:৩৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ এবং শুভেচ্ছা!

৬| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: কাভা ভাইয়ের পোস্টে মন্তব্যটি পড়েছিলাম। এখানেও পড়লাম।
বোর লাগেনি একটুও।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৯:৪৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: বোর লাগেনি একটুও - তাই নাকি? প্রায় একই জিনিসও দু'বার পড়ে বোর লাগেনি, এটা তো আমার জন্য খুবই একটা প্রেরণার কথা।
অনেক অনেক ধন্যবাদ আপনার এ মন্তব্যের জন্য। আপনার এ মন্তব্যটি পড়ে আমার আগেই আরেকজন পাঠক এটাতে 'লাইক' দিয়ে গেছেন। দেখুন, ছোট্ট একটি মন্তব্যেও আপনি পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পেরেছেন।

৭| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৫

করুণাধারা বলেছেন: ভেবেছিলাম দেবী সিনেমা নিয়ে গল্প! আমি কাভার পোস্টের ঐ মন্তব্য দেখি নি, তাই আপনার পোস্টটা পুরোটাই পড়লাম, আনন্দময় কিছু সময় কাটানোর আপনার বর্ণনা খুবই ভালো লাগলো। ভালো থাকুন, পুরো পরিবার নিয়ে।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:০৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: আনন্দময় কিছু সময় কাটানোর আপনার বর্ণনা খুবই ভালো লাগলো - প্রীত হ'লাম তা জেনে। ভাগ্যিস, আপনি কাভার পোস্টের ঐ মন্তব্যটা আগে ভাগেই দেখে ফেলেন নি। তা'হলে হয়তো এ লেখাটা আর ভাল লাগতো না।
অনেক ধন্যবাদ, প্রেরণাদায়ক মন্তব্য এবং প্লাসের জন্য।
ভাল থাকুন, শুভকামনা...

৮| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪০

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন:
বাহ! এইতো জীবন।
জীবনের ফাঁকে একটু সময় করে নিজেদের মতো করে নিজেদের খুঁজে ফেরা!
একটু ব্যতিক্রম, একটু নিষেধহীন নিষেধে প্রশ্রয় - - আহা জীবন কত্ত মধুর :)

দেবী দর্শন আর তার দারুন গল্প শেয়ারে ধন্যবাদ।
অনেক অনেক ভাল লাগল।
অনেক অনেক শুভেচ্ছা আর শুভকামনা রইল প্রিয় সিনিয়র :)

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:০৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: জীবনের ফাঁকে একটু সময় করে নিজেদের মতো করে নিজেদের খুঁজে ফেরা! - ঠিকই বলেছেন। আপনাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ, এমন সুন্দর একটা মন্তব্যের জন্য।
মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম। শুভেচ্ছা জানবেন।

৯| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:০৭

নূর ইমাম শেখ বাবু বলেছেন: এই বিষয়ের উপর অনেকগুলো পোষ্ট পড়লাম।
সবগুলোই ভাল লাগল। সবাই সুন্দরভাবে উত্থাপন করেছেন।
ধন্যবাদ সবাইকে।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:২৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ পোস্টগুলো পড়ার জন্য, বিশেষ করে আমার এ লেখাটা পড়ার জন্য।
শুভকামনা রইলো...

১০| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৪

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আমি হুমায়ূন আহমেদের উপন্যাসটি পড়েনি বা দেবী সিনেমাটিও দেখিনি । কিভাবে দেখব সে ব্যাপারে বেশ সন্দেহে আছি । কাভা ভাই এর রিভিউ টি পড়েছিলাম । গল্পের একটা সিনোপসিস যেমন পেয়েছি ,তেমনি পেয়েছি চরিত্রগুলির তুল্যমূল্য আলোচনাও । অসাধারণ লেগেছিল উনার ওই আলোচনাটি । ওই পোস্টে আপনার কমেন্ট পড়েও বেশ মজা পেয়েছিলাম । মজা পেয়েছিলাম এটা দেখে যে আপনারা দুজন যেভাবে সিনেমাটি উপভোগ করে সন্ধ্যেবেলায় ফুড হ্যাবিট বিরোধী কেএফসিতে খেয়ে বাসায় ফিরলেন এটা দেখেও । ওই পোস্টে কাভা ভাইয়ের দুপুরের মেনু আর আপনার কেএফসির খাবার ছিল আমাদের কাছে লোভনীয় ।

বেলাশেষে দেখেছি । অসাধারণ লেগেছিল । আজ দেবী দর্শনে আপনার সুখ অনুভুতি দেখে মুগ্ধ হলাম । এমন অনুভূতি শুধু আপনার একার নয় এটি আমাদের সবারই যেন অনুকরণীয় হয়।

বিনম্র শ্রদ্ধা ও শুভকামনা আপনাকে ।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:৩৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার মন্তব্যগুলো সরাসরি হৃদয় থেকে উঠে আসে এবং তা লেখক ও পাঠকদেরও হৃদয় স্পর্শ করে যায়। অনেক ধন্যবাদ, এমন চমৎকার একটি মন্তব্যের জন্য। প্লাসেও অনেক অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভেচ্ছা জানবেন। ভাল থাকুন সপরিবারে, সব সময়...

১১| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩০

মৌরি হক দোলা বলেছেন: ‘দেবী’ বইটি পড়েছি। মিসির আলী সিরিজের এটিই আমার প্রথম পড়া বই। খুব ভালোলেগেছিল। তাই এখন ভীষণ ইচ্ছে করছে উপন্যাসটির চিত্ররূপ কেমন হয়েছে তা দেখবার। অধির আগ্রহে বসে আছি কোনো এক ফাঁকে দেবী দর্শনের জন্য। :)



পোস্টে ভালোলাগা। +++++

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:০৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, অনেকদিন পরে হ'লেও আমার কোন পোস্টে এসে মন্তব্য করে যাবার জন্য। প্লাসে প্রাণিত হ'লাম।
অধির আগ্রহে বসে আছি কোনো এক ফাঁকে দেবী দর্শনের জন্য - আশাকরি, শীঘ্রই আপনার এ মনোবাসনা পূর্ণ হবে।
আপনার পুরনো পোস্ট অশ্রুমোচন পড়ে একটা মন্তব্য রেখে এলাম।

০৭ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১০:৫৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: "অশ্রুমোচন" এর পর আপনার "স্বপ্নের স্রোত" গল্পটাও পড়লাম। খুব সুন্দর লিখেছেন। +

১২| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৫৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


যতটুকু শুনলাম, উহাতে কিছুটা "হরর" আছে?

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:২০

খায়রুল আহসান বলেছেন: উহাতে কিছুটা হরর এলিমেন্ট রহিয়াছে বটে, তবে তাহা সেরকম ভয়ঙ্কর কিছু নহে। মানুষের মনোজাগতিক বিশ্লেষণই ছবিটির বক্তব্যে প্রাধান্য পাইয়াছে। :)

১৩| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৮:৩৩

রাজীব নুর বলেছেন: যদি আপনি অন্তর থেকে কাউকে চান , জেনে রাখুন সেই মানুষটাও আপনাকে ভেবেই ঘুমুতে যায়!

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:৫৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: বাহ, খুব সুন্দর তো বললেন কথাটা!
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। শুভেচ্ছা রইলো...

১৪| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ১০:১৮

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: 'দেবী' পড়েছি। তবে এর কাহিনী বোঝার ও উপভোগ করার মত মানুষ কম আছে। যাই হোক, আপনাদের সুখকর আনন্দঘন মুহূর্তের বর্ণনা পড়ে তৃপ্ত হলাম(কাভা'র পোস্টে আপনার মন্তব্য পড়িনি আমি)...

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১২:৪১

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনাদের সুখকর আনন্দঘন মুহূর্তের বর্ণনা পড়ে তৃপ্ত হলাম - আপনার তৃপ্তি পাওয়াতে আমিও মুগ্ধ হ'লাম। আর ভাগ্যিস, কাভা'র পোস্টে আমার মন্তব্যটি আপনি পড়েন নি, পড়লে হয়তো এতটা তৃপ্ত বোধ করতেন না।
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

১৫| ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ১১:২৭

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আপনার পোস্ট পড়ে দেবী দেখতে ইচ্ছা করছে :)
দেবী বইটি পড়েছি অনেক আগে

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১২:৫৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার পোস্ট পড়ে দেবী দেখতে ইচ্ছা করছে - তাই? কথাটা জেনেই আমার খুব ভাল লাগছে।
অনেক ধন্যবাদ, মন্তব্যের জন্য, অনুসরণ তালিকায় রাখার জন্য।
ভাল থাকুন, শুভেচ্ছা---

১৬| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ ভোর ৫:০৬

সোহানী বলেছেন: ওরে বাপরে আপনাদের ছবি দেখার কাহিনীতো ছবির কাহিনীর মতোই দারুন। আর এক আধটু এরকম অন্যরকম দিনইতো জীবনের প্রাপ্তি। তাই নয় কি!!!

তবে আপনার ছেলের বুুদ্ধি দেখে মজা পেলাম। আপনার সঠিক শিক্ষাই পেয়েছে তাহলে........হাহাহাহাহাহাহা।

কেএফসি ওয়ালাদের বেঁচাকেনা কিন্তু সা্র্থক....... । ভাবী নিশ্চই খুব এনজয় করেছেন আপনাদের এ বয়সের আউটিং.... হাহাহাহা!!!

কাভা ভাইয়ের বদৈালতে অন্য রকম পোস্ট পেলাম আপনার। ভালোলাগলো আপনার যাপিত জীবনের গল্প।

যদিও ছবিটা দেখিনি বা দেখার সুযোগ কবে পাবো জানি না তবে জয়া বা চঞ্চলের অভিনয় বরাবরেই ভালোলাগে। ও ভালো কথা জয়ার সাথে কিন্তু আমার ছেলে একটা নাটক করেছিল। যাহোক সে গল্প আরেকদিন।

আর ব্যাস্ততার কারনে আপনার অনেক লেখা পড়া পেন্ডিং আছে। খুব শীঘ্রই আসবো...............

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: যাহোক সে গল্প আরেকদিন - হোক সে গল্প আরেকদিন, কিন্তু আমি ইতোমধ্যে কাল্পনিক_ভালবাসা'র পোস্টে জয়া আহসানের সাথে আপনার ছেলের ছবিটা দেখে ফেলেছি। মা শা আল্লাহ, খুবই মিষ্টি চেহারা আপনার ছেলের। ও নিশ্চয়ই এতদিনে আরেকটু বড় হয়ে গেছে।
ভাবী নিশ্চই খুব এনজয় করেছেন আপনাদের এ বয়সের আউটিং.... হাহাহাহা!!! - আমরা প্রায় প্রতি সপ্তাহেই একবার করে বন্ধুদের সাথে মিলিত হয়ে আশে পাশে কোথাও যাই, দুই একবার বন্ধু ও বন্ধুপত্নীরা মিলে ছবি টবিও দেখেছি, কিন্তু শুধু আমরা দু'জনে মিলে মুভিতে যাওয়াটা বহু যুগ পরে সেদিন হঠাৎ করেই ঘটে গেলো। তাই সেটা আমরা দু'জনেই বেশ এনজয় করেছি। :)
আপনার অনেক লেখা পড়া পেন্ডিং আছে - এরকম ভাবলে একটা চাপ অনুভব করতে পারেন। যখন এ্যাবসলিউটলী ফ্রী থাকবেন, তখনই পড়তে যাবেন। সেটা হবে মনের আনন্দে পড়া।
মন্তব্যে, প্লাসে অনুপ্রাণিত। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

১৭| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ২:১১

বিজন রয় বলেছেন: দেবী'র কাহিনীর চেয়ে আপনাদের কাহিনীটা কম চিত্তাকর্ষক নয়।
এই বয়সটা যে উপভোগ করছেন সেটাই আনন্দের।

ভাল থাকুন, দীর্ঘায়ু হন।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: দেবী'র কাহিনীর চেয়ে আপনাদের কাহিনীটা কম চিত্তাকর্ষক নয় - তাই নাকি? সাদামাটা জীবনের সাদামাটা কিছু ঘটনা- এই আর কি!
অনেক ধন্যবাদ মন্তব্য ও প্লাসের জন্য। আপনি যে দুরূহ কাজটি করে যাচ্ছেন নিরন্তর, নিষ্ঠার সাথে, তার জন্য মনে হয় কোন ধন্যবাদই যথেষ্ট নয়।

১৮| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ২:৫৫

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: কাল্পনিক ভালবাসা ভাইয়ের পোষ্টে আপনার কমেন্টটি পড়ে খুব ভাল লেগেছিল।সে সময় মনে মনে আপনার দেবী দর্শন নিয়ে একটা পোষ্ট আশা করছিলাম।
আবারও পড়লাম।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৮:০১

খায়রুল আহসান বলেছেন: যাক, আপনার এ আশাটা খুব দ্রুতই পূরণ করতে পারলাম, এটা ভেবে প্রীত বোধ করছি।
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ এবং শুভেচ্ছা!!!

১৯| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৩

পদ্ম পুকুর বলেছেন: একদম শেষ লাইনটা সবচে সুন্দর আর খুব রোমান্টিক লাগলো....

এই যে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ঘটনাকে বিস্তৃত এবং বিস্তারিতভাবে প্রকাশ করার ক্ষমতা, এটাই বোধহয় একজন লেখকের স্বার্থকতা। যেখানে একজন সাধারণ মানুষ ঘটনাকে ঘটনা হিসেবেই দেখে, লেখক সেখানে গল্প খুঁজে পায়। ভালো থাকবেন।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৮:২৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনারও শেষের লাইন দুটো আমাকে অনেক আনন্দ দিয়ে গেল। :)
লেখাটা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভকামনা...

১৪ ই জুন, ২০১৯ রাত ১১:২১

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার প্রায় ১১ বছরের পুরনো পোস্ট "সে এবং আমি" পড়ে একটা মন্তব্য রেখে এলাম।
চমৎকার লিখেছেন।

২০| ২৫ শে অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১২:২৪

আখেনাটেন বলেছেন: অসাধারণ একটি অনুভূতি হল আপনার এই কাহিনি পড়ে। প্রবীণ দম্পতিরাও এন্টারটেইনমেন্টের জন্য সিনেমা দেখতে যাচ্ছে এই কালচারটা সেই কবেই উঠে গিয়েছিল দেশ থেকে। অথচ কী ভীষণ জরুরী এই সাময়িক বিনোদনটুকু কাঠখোট্টা কংক্রিটের ঘেরাটোপে বন্দি থাকা অবস্থায়!!

যে বটলনেকগুলো অামাদের সাংস্কৃতিক বুদ্ধিবৃত্তিকে বাধাগ্রস্ত করছে নতুন প্রজন্মের সেগুলোর বাধা জয় করা অাবশ্যকীয় হয়ে পড়েছে। সংকুচিত বিনোদনের এই শহরে একটু মুক্ত ও উদার হাওয়া নিয়েছেন জেনে অামোদিত হলুম।

২৫ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৩:১৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: সংসারের সব দায়িত্ব পালন করে তাদের ব্যস্ত জীবন থেকে একটুখানি সময় বের করে নেয়াটা মহিলাদের জন্যেও বেশ কঠিন। সুতরাং ওনারা যখন বিনোদনের আশায় এমন কোন উদ্যোগ নেন, তাদের সে আয়োজনে সাড়া দেয়াটা অবশ্যই সমীচীন। আপনি ঠিকই বলেছেন, কাঠখোট্টা কংক্রিটের ঘেরাটোপে বন্দি থাকা অবস্থায় এই সাময়িক বিনোদনটুকু ভীষণ জরুরী।
চমকার মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২১| ২৫ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:২৫

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:




মুভিটা ভাল ছিলো তার চেয়েও ভাল ছিলো মনে হয় আপনাদের একসাথে পার করা মুহূর্তটুকু ।

২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৯:০৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: হ্যাঁ, দুটোই ভাল ছিল, তবে পরেরটা বেশী। :)
লেখাটা পড়ার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২২| ২৫ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৮:০৭

সুমন কর বলেছেন: সাবলীল লেখা। খুব ভালো লাগল।

লেখায় আপনার ছেলের বিষয়টুকু আমার বেশি ভালো লেগেছে। +।

২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: লেখায় আপনার ছেলের বিষয়টুকু আমার বেশি ভালো লেগেছে - আমার এ লেখাটি থেকে আপনার সুনির্দিষ্ট এই প্রসঙ্গটি ভাল লাগার কথাটুকু জানিয়ে যাবার জন্য অনেক ধন্যবাদ। আপনার মন্তব্যের এ অংশটুকুও আমার বেশী ভাল লেগেছে।
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২৩| ২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ ভোর ৫:৪৩

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
মাঝে মাঝে নিষিদ্ধ খাবারও খেতে মন চায়।

পোস্টে এ প্লাস।

২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: জ্বী, তা তো চায়ই!
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

২৪| ২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০৪

নীলপরি বলেছেন: সহব্লগার কাল্পনিক ভালোবাসা'র পোষ্টে আপনার মন্তব্যটা আমি পড়িনি। তাই পুরোটাই খুব আগ্রহ নিয়ে পড়লাম আর ভীষণ ভালো লাগলো । জীবনের কিছুটা সময়ের চিত্র আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ ।
++++++

২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২০

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমার পোস্টে আসার জন্য ধন্যবাদ।
জীবনের কিছুটা সময়ের চিত্র আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ - আনন্দিত হ'লাম এ কথায়। লেখাটা ভাল লেগেছে জেনে প্রীত হ'লাম। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত।

২৫| ২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৪

অনেক কথা বলতে চাই বলেছেন: আবুল হায়াত আমার দেখা শ্রেষ্ঠ মিসির আলী। "দেবী" সিনেমায় আমি ধরেই নিয়েছিলাম উনিই চরিত্রটি করবেন। পরে শুনে হতাশ।

২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৮:৩১

খায়রুল আহসান বলেছেন: আবুল হায়াত আমার দেখা শ্রেষ্ঠ মিসির আলী - তাই নাকি? তা'হলে তো হতাশ হবারই কথা!
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। শুভেচ্ছা রইলো---

২৬| ২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ১১:১৫

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: খায়রুল ভাই, ভাল আছেন?

আপনাদের শেষ মুহূর্ত অনেক ভাল লাগলো! এমনটা যেন সবসময় লেগে, প্রেস্ফিকশনের নিষিদ্ধ নীতি ব্যতীত! ;)

রিভিউটি ভালই হয়েছে।

২৭ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৮:০৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমি ভাল আছি। আশা করি, আপনিও কুশলেই আছেন।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ, অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২৭| ২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ১১:১৮

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: ও হ্যা, ছবিটা কতটুকু দীর্ঘ?

২৭ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৮:২৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: ঘড়ি দেখিনি, তবে অনুমান, ঘন্টা দেড়েকের মত হবে, বা তার চেয়ে কিছুটা বেশী।

২৮| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ১:১৩

ধ্রুবক আলো বলেছেন: ভীষণ ব্যস্ত দিন যাচ্ছে, সময় বের করতে পারছি না যে মুভিটা দেখতে যাবো!

২৭ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৮:৪০

খায়রুল আহসান বলেছেন: ব্যস্ত আছেন মানে ভাল আছেন। আপনার এখন ব্যস্ত থাকারই সময়।
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।
ভাল থাকুন, শুভেচ্ছা!

২৯| ২৯ শে অক্টোবর, ২০১৮ ভোর ৫:৫৯

স্বপ্নীল ফিরোজ বলেছেন:
আপনার লেখা খুব সুন্দর। পড়তে খুব ভালো লাগে।

২৯ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৭:৫৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, স্বপ্নীল ফিরোজ। সকাল সকাল আপনার প্রশংসা পেয়ে মনে হচ্ছে আজ আমার জন্য একটা চমৎকার দিন শুরু হলো! :)
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম। শুভেচ্ছা জানবেন।

৩০| ১০ ই নভেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৫৩

MirroredDoll বলেছেন: you two are very sweet & romantic no doubt.
দেবী উপন্যাসটা পড়েছিলাম সেই সময় । অনেক ভালো লেগেছিল । বেলাশেষে মুভিটা না দেখে থাকলে মাস্ট দেখবেন । very touchy.

১৫ ই নভেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৫৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: থ্যাঙ্ক ইউ। গ্ল্যাড টু নো দ্যাট! :)
আশাকরি ভাল আছেন? নতূন পোস্ট লিখুন।
মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হয়েছি। ধন্যবাদ এবং শুভেচ্ছা...

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.