নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

একজন সুখী মানুষ, স্রষ্টার অপার ক্ষমা ও করুণাধন্য, তাই স্রষ্টার প্রতি শ্রদ্ধাবনত।

খায়রুল আহসান

অবসরে আছি। কিছু কিছু লেখালেখির মাধ্যমে অবসর জীবনটাকে উপভোগ করার চেষ্টা করছি। কিছু সমাজকল্যানমূলক কর্মকান্ডেও জড়িত আছি। মাঝে মাঝে এদিক সেদিকে ভ্রমণেও বের হই। জীবনে কারো বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ করিনি, এখন তো করার প্রশ্নই আসে না। জীবন যা দিয়েছে, তার জন্য স্রষ্টার কাছে ভক্তিভরে কৃতজ্ঞতা জানাই। যা কিছু চেয়েও পাইনি, এখন বুঝি, তা পাবার কথা ছিলনা। তাই না পাওয়ার কোন বেদনা নেই।

খায়রুল আহসান › বিস্তারিত পোস্টঃ

একজন সুখী পিতা এবং তার শিশু পুত্র-কন্যার ঈদ আনন্দঃ

১২ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৫২

আজ সকালে ঈদের নামায পড়ে এসে বাসায় আমরা তিনজন এবং মেহমান তিনজন মিলে সবাই একসাথে চা-নাশতা করলাম। যেখানে আমাদের কুরবানি’র পশু জবেহ করা হবে সে স্থানটি আমাদের বাসা থেকে প্রায় ৩ কিঃমিঃ দূরে। সেটা তদারকির দায়িত্ব আমার উপরে ন্যস্ত, তাই নাশতার পরে পরেই সেই স্থানের উদ্দেশ্যে যাত্রা করলাম। মোটামুটি ফাঁকা রাস্তা, তাই ড্রাইভার সাহেব বেশ জোরেই গাড়ী হাঁকাচ্ছিলেন। হঠাৎ খেয়াল করলাম, রাস্তার পাশ দিয়ে এক ব্যক্তি একটি বাইসাইকেল চালিয়ে ধীরে ধীরে অগ্রসর হচ্ছে। সাইকেলের সামনের বার এ তার বছর দুই তিনের শিশুপুত্র দাঁড়ানো, পেছনের ক্যারিয়ারে তার বছর পাঁচ ছয়েকের মেয়েটি দাঁড়ানো। ছেলের দু’পাশ ঘিরে বেষ্টনী দিয়ে চালকের হাত সাইকেলের হ্যান্ডেলে ধরা। আর মেয়ের কচি হাত দুটি আলগা বেষ্টনীতে তার পিতার গলা জড়িয়ে ধরা। তখন ছিল মাথার উপরে কাঠফাটা রোদ। সেটা উপেক্ষা করে এই তিনজন মহা আনন্দে গল্প শুনতে শুনতে আর গল্প করতে করতে ঘুরতে বেড়িয়েছেন। এক ঝলকে দেখা এ অনুপম দৃশ্যটি মনে ধরে গেল। ড্রাইভারকে গাড়ী থামাতে বলতে বলতেই সে অনেক দূর এগিয়ে চলে এলো। আমি পেছন ফিরে দৃশ্যটি দেখতে থাকলাম। ওরা কাছে আসলে বুঝতে পারলাম, সাইকেল চালক কেন এত ধীরে সাইকেল চালাচ্ছেন। উনি সাইকেল চালাচ্ছিলেন আর সেই সাথে তার পুত্র কন্যাদেরকে একটা গল্প শোনাচ্ছিলেন, যা ওরা মন দিয়ে শুনছিল। আমি ওনাকে ইশারায় একটু থামতে বললাম। উনি সাইকেল ঘুরিয়ে আমার কাছে এলে ওনাকে বললাম, দুই পুত্র কন্যা নিয়ে ওনার এই সাইকেল চালনার দৃশ্যটি আমার খুব ভাল লেগেছে, তাই একটু ভিডিও করতে চাই আর একটা স্থির ছবিও নিতে চাই। উনি সানন্দে অনুমতি দিলেন, আমার কথা শুনে ওনার মেয়েটাও আনন্দিত হলো বলে বুঝা গেল, কিন্তু শিশুপুত্রটি ছবি তোলা দেখে একটু ভড়কে গেল। ভিডিও এবং স্থির চিত্র ধারণের পর আমি চলে এলাম, ওরা তিনজন কিছুটা অবাক হয়ে আমার পথের দিকে তাকিয়ে থাকলো।

গাড়ী থেকে নেমে এই স্বর্গীয় দৃশ্যটি আমি সেলফোনে বারবার দেখতে থাকলাম। আমার কাছে মনে হলো, এই তিনজন ব্যক্তিই যেন আজকের দিনের সবচেয়ে সুখী ব্যক্তি। যে পিতা তার পুত্র কন্যাদেরকে এভাবে সময় দেয়, আর যে শিশুরা এমন কাঠফাটা রোদেও তাদের পিতাকে জড়িয়ে ধরে এবং পিতার হস্তবেষ্টনীতে থেকে সাইকেলে চড়ে তার মুখে গল্প শুনতে পারে, তাদের চেয়ে সুখী আর কে হতে পারে? সব শিশুদের ভাগ্যে এমন পিতার ভালবাসা জুটুক, আজকের এই পবিত্র ঈদের দিনে এটাই আমার বাংলাদেশের শিশুদের প্রতি শুভকামনা।

ঢাকা
১২ আগস্ট ২০১৯
সময়ঃ সকাল নয়টা আট থেকে নয়টা দশ


বাবার সাথে মজার ভ্রমণ
Fun ride with dad


একজন স্নেহবৎসল পিতা এবং তার দুই পুত্র কন্যা
A loving dad and his two kids


সুখী তিনজন
Happy trio

মন্তব্য ৪২ টি রেটিং +৭/-০

মন্তব্য (৪২) মন্তব্য লিখুন

১| ১২ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:০০

চাঁদগাজী বলেছেন:


ঈদ মোবারক।
ছবিতে ৩ জনকে দেখছি, এরা সুখী হোক; তবে, এভাবে সাইকেল চালানো বেশ রিস্কি, বাচ্চারা পড়ে আহত হওয়ার খুবই বড় সম্ভাবনা আছে।

১২ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৪৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: তবে, এভাবে সাইকেল চালানো বেশ রিস্কি, বাচ্চারা পড়ে আহত হওয়ার খুবই বড় সম্ভাবনা আছে। - আপনি ঠিকই বলেছেন। তবে আমার কাছে মনে হয়েছে, প্রায় যানবাহনবিহীন রাস্তা বলেই হয়তো তিনি এতটা সাহস করেছেন।
আপনাকেও জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা!

২| ১২ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৩০

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনার অনুসন্ধিৎসু অন্তর আছে বলেই অনেকের নিকট নিতান্ত সাধারণ মনে হতে পারে এমন একটি দৃশ্য আপনার চোখে ভিন্নতর মাত্রা পেয়েছে। এটা অনুভবের ভিন্নতা। পিতৃস্নেহের অসাধারণ প্রকাশ দেখে আপনি বিমুগ্ধ হয়েছেন। আমরাও।

শেষের প্রত্যাশাটুকু বেশি ভালো লাগলো। বাংলাদেশের সকল শিশু বেড়ে উঠুক এমনই বাবাদের স্নেহ পরশে। তাবত বিশ্বের সকল শিশুদের ভাগ্যেও জুটুক পিতৃস্নেহের অনাবিল এই আনন্দ। পোস্টে +++

১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:০১

খায়রুল আহসান বলেছেন: এটা অনুভবের ভিন্নতা - অনেক ধন্যবাদ, আপনার এ নিবিড় পর্যবেক্ষণের জন্য।
তাবত বিশ্বের সকল শিশুদের ভাগ্যেও জুটুক পিতৃস্নেহের অনাবিল এই আনন্দ - জ্বী, এটাই আমার কামনা। ঐ দুটো শিশুকে দেখে তখন আমার এ সুভকামনাটাই আমার মনে এসেছিল।
মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা----

৩| ১২ ই আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২১

বলেছেন: আপনাকেও জানাই ঈদের সালাম ও শুভেচ্ছা।।

এটা কি সাইকেল চালানোর ডিজিটাল স্টাইল -- বেশ বিপদজনক।।।

জগতের সকল মানুষ সুখী হোক।।।

১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৫৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনাকেও জানাচ্ছি সালাম এবং পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা!
না, ডিজিটাল স্টাইল কেন হবে? এটা তো দেখছি ম্যানুয়াল স্টাইলই, তবে বিপদজনক বটে। চালককে অবশ্য ভীষণ আত্মবিশ্বাসী মনে হচ্ছিল।
জগতের সকল মানুষ সুখী হোক - তথাস্তু!

৪| ১২ ই আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২৫

hasan9 বলেছেন: বাহ গল্পটা পরে ঈদ ঈদ আনন্দে ভরে গেলুম

১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:২২

খায়রুল আহসান বলেছেন: বাহ, তাই নাকি? ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে থাকুন।

৫| ১২ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:২৩

হাফিজ বিন শামসী বলেছেন:
চলন্ত সাইকেলে বাচ্চাদের এভাবে দাঁড়িয়ে রাখা সত্যিই বিপদজনক।

প্রতিটি মানুষের খুব নিকটেই সুখ ঘোরাঘুরি করে। কেউ উপভোগ করে কেউ অক্ষম।

১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৪১

খায়রুল আহসান বলেছেন: চলন্ত সাইকেলে বাচ্চাদের এভাবে দাঁড়িয়ে রাখা সত্যিই বিপদজনক - বিপজ্জনক বটে, তবে তাদেরকে এতে অভ্যস্ত বলে মনে হয়েছে।
প্রতিটি মানুষের খুব নিকটেই সুখ ঘোরাঘুরি করে। কেউ উপভোগ করে কেউ অক্ষম - খুব সুন্দর বলেছেন কথাটা।
ভাল থাকুন, শুভকামনা....

৬| ১২ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৩৮

ইসিয়াক বলেছেন: অসম্ভব সুন্দর ছবি এবং তার থেকে ভালো সুখী মানুষের , সুখে ইদ কাটানোর ঘটনার বিবরণ ।

১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:০২

খায়রুল আহসান বলেছেন: পোস্ট পাঠ এবং মন্তব্যের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ। প্রীত হ'লাম।

৭| ১২ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪০

রাজীব নুর বলেছেন: পিতা কন্যা আর পুত্র ভালো থাকুক।
বাসা থেকে তিন কি মি দূরে কোরবানী কেন??

১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:২২

খায়রুল আহসান বলেছেন: পিতা কন্যা আর পুত্র ভালো থাকুক - অনেক ধন্যবাদ, এ শুভেচ্ছাটুকুর জন্য।
বাসা থেকে তিন কি মি দূরে কোরবানী কেন?? - বেশ কয়েকজনে মিলে একত্রে কুরবানি দিয়েছিলাম। কেন্দ্রীয়ভাবে সবকিছু ম্যানেজ করা হয়েছে। সে জন্যেই এরকম ব্যবস্থা ছিল।

৮| ১২ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৫৩

কথার ফুলঝুরি! বলেছেন: বাবারা এমন ভাবেই সন্তানদের ভালোবাসে । তবে সামনের ছেলে বাবুটির যে কোন সময় পরে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল ।
আপনার লেখায় বর্ণনাটি ভালো লেগেছে ।
ঈদ মোবারক 8-|

১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:২৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেকদিন পরে আমার কোন লেখায় এলেন, এতে প্রীত হ'লাম।
বাবারা এমন ভাবেই সন্তানদের ভালোবাসে - অনেক ধন্যবাদ এ কথাটার জন্য। তবে অবশ্যই, একেক জনের ক্ষেত্রে সে ভালবাসার প্রকাশটুকু একেক রকম।
আপনার লেখায় বর্ণনাটি ভালো লেগেছে - অনুপ্রাণিত হ'লাম, ধন্যবাদ।
আপনাকেও জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা!

৯| ১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৩:৪৪

রাবেয়া রাহীম বলেছেন: ঈদ মোবারক ।
সবার ঈদ আনন্দের হোক

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:২৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: সবার ঈদ আনন্দের হোক - আপনার এ শুভ উচ্চারণের সাথে দেরীতে হলেও, উচ্চকন্ঠ হ'লাম।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।
ভাল থাকুন, শুভকামনা...

১০| ১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৩:৫০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: খায়রুল আহসান ভাই, ঈদ মোবারক। পিতা-পুত্র-কন্যার জন্য রইলো অনেক অনেক ভালোবাসা।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১২:২৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনাকেও জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা! (যদিও একটু দেরী হয়ে গেল, সেজন্য আন্তরিক দুঃখিত)
চলার পথে ক্ষণিকের তরে তাদের সাথে দেখা হয়েছিল। তাই আপনার ভালবাসার কথা তাদের কাছে পৌঁছে দেয়ার কোন উপায় নেই। তাই আপনার মত আমিও তাদের জন্য আমার শুভকামনা জ্ঞাপন করছি।
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

১১| ১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৮:২৫

জাহিদ অনিক বলেছেন:
বাহ ! দারুণ তো !
আমার শৈশব মনে পড়ে গেল-- এভাবে আমি আর আমার ভাই এভাবে বাবার সাইকেলে করে এদিক সেদিক গিয়েছি-
অভিজ্ঞতা অবশ্য দারুণ ছিল :)
আপনার পোষ্টের সৌজন্যেই সেই স্মৃতি রি'কল করতে পারলাম।
শুভেচ্ছা রইলো ছবির তিনজন এবং ক্যামেরার পিছনের আপনাকে।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:০০

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমার শৈশব মনে পড়ে গেল - এতেই যেন আমার এ লেখাটা সার্থক হয়ে গেল!
শুভেচ্ছা রইলো ছবির তিনজন এবং ক্যামেরার পিছনের আপনাকে - আপনাকেও জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা, লেখাটা পাঠ, মন্তব্য এবং প্লাসের জন্য।
ভাল থাকুন, শুভকামনা---

১২| ১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:১৮

মাহের ইসলাম বলেছেন: ঈদ মোবারক।
ছবিটা সুন্দর, জায়গাটাও বেশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন।

চমৎকার একটা মুহূর্ত উপহার দেয়ার জন্যে ধন্যবাদ।
ভালো থাকবেন, শুভ কামনা রইল।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:০১

খায়রুল আহসান বলেছেন: চমৎকার একটা মুহূর্ত উপহার দেয়ার জন্যে ধন্যবাদ - মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!
এবারের বইমেলায় আপনার প্রকাশিত বইটি কিনতে চাই। কিভাবে কিনতে পারি, তা জানাবেন।
আপনাকেও জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল আযহা'র শুভেচ্ছা!

১৩| ১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১২:৫২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: সুন্দর পোস্ট।
ঈদের শুভেচ্ছা নিন।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৩৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ। প্রশংসায় অনুপ্রাণিত হ'লাম।
আপনাকেও জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল আযহা'র শুভেচ্ছা!

১৪| ১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২৮

মাহমুদুর রহমান জাওয়াদ বলেছেন: সব শিশুদের ভাগ্যে এমন পিতার ভালবাসা জুটুক

আমীন।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:২৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: সব শিশুদের ভাগ্যে এমন পিতার ভালবাসা জুটুক - পোস্ট থেকে উদ্ধৃতির জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে প্রীত ও অনুপ্রাণিত।

১৫| ১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:২৮

শাইয়্যানের টিউশন (Shaiyan\'s Tuition) বলেছেন: মন ভরে যাওয়া কয়েকটি ছবি। সাইকেল চালনাকারী খুবই পটু, এটা বুঝা যাচ্ছে।

ঈদের শুভেচ্ছা থাকলো।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:০৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: সাইকেল চালনাকারী খুবই পটু, এটা বুঝা যাচ্ছে - আমারও তাই মনে হয়েছে।
মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম। আপনাকেও জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল আযহা'র বিলম্বিত শুভেচ্ছা!

১৬| ১৪ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:৪৯

মুক্তা নীল বলেছেন:
শ্রদ্ধেয় ,
আপনার এই ধরনের লেখা গুলো পড়তে খুব ভালো লাগে। খুব সুন্দর একটি কথা বলেছেন স্বর্গীয় দৃশ্য।
তাই আপনার মত করে আমিও বলি,

সব শিশুদের ভাগ্যে এমন পিতার ভালবাসা জুটুক, আজকের এই পবিত্র ঈদের দিনে এটাই আমার বাংলাদেশের শিশুদের প্রতি শুভকামনা।
অনেক ধন্যবাদ ।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৫১

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার এই ধরনের লেখা গুলো পড়তে খুব ভালো লাগে - অনেক অনুপ্রাণিত হ'লাম আপনার এ ভাললাগার কথাটি জেনে।
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত।
শুভকামনা---

১৭| ১৬ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:০৮

সোহানী বলেছেন: সুখের সংজ্ঞা হয়তো ভিন্ন ব্যক্তি বা অবস্থাবেদে কিন্তু বাবার সাথে সন্তানদের এমন দৃশ্যকে সবাই স্বীকার করে নিবে সুখ হিসেবে,সেটা দেশে কিংবা বিদেশে।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৫২

খায়রুল আহসান বলেছেন: বাবার সাথে সন্তানদের এমন দৃশ্যকে সবাই স্বীকার করে নিবে সুখ হিসেবে,সেটা দেশে কিংবা বিদেশে - ঠিক বলেছেন। সুখ এবং তৃপ্তির একটা আভা এদের চোখে মুখে ফুটে উঠেছে। ভালবাসার ঔজ্জ্বল্য তাদের অবয়বে দীপ্তমান।
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা....

১৮| ১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৩৫

MirroredDoll বলেছেন: সত্যিই অসাধারণ !!!
খুব ভালো লাগলো পড়ে ।
তাদের আনন্দটা অনুভব করতে পারছি আপনার লেখায় ।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:২৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রীত হ'লাম, লেখাটি আপনার ভাল লেগেছে জেনে। আমার এ লেখাটি পড়ে তাদের ঈদের দিনের আনন্দটা অনুভব করতে পেরেছেন জেনেও অনুপ্রাণিত বোধ করছি।
লেখাটি পাঠ এবং মন্তব্যের জন্য অশেষ ধন্যবাদ।
শুভকামনা....

১৯| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:৩২

মাহের ইসলাম বলেছেন: আপনার প্রত্যুত্তরও চমৎকার হয়েছে।

আপনি বইটি কিনতে চাইলে রকমারি ডট কমে অর্ডার করতে পারেন। এখনি পেয়ে যাবেন।
ইংরেজি ভার্সনটাও পাওয়া যাবে।

অনুপ্রাণিত বোধ করছি, আপনার আগ্রহে।
দোয়া করবেন যেন, মানুষকে সঠিক জিনিসগুলো জানাতে পারি।

অনেক অনেক শ্রদ্ধা এবং কৃতজ্ঞতা রইল।
ভালো থাকবেন।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: ইংরেজীটা কি বাংলাটারই অনুবাদ, নাকি দুটো ভিন্ন? বই দুটোর উপর কি কোন রিভিউ প্রকাশিত হয়েছে? হয়ে থাকলে লিঙ্ক দেবেন। আর সম্ভব হলে দুটো বই এর প্রচ্ছদের ছবি এখানে মন্তব্যের ঘরে দেবেন।

২০| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:০০

মাহের ইসলাম বলেছেন: দুটো একই বই।
কোন রিভিউ প্রকাশিত হয়নি।

তবে, রকমারি ডট কমে বইয়ের উপরে কয়েকজনের মন্তব্য আপনাকে হেল্প করতে পারে।

https://www.rokomari.com/book/179923/prekkhito--parbotto-chittagong--sotto-mittha-opoprochar-

ভালো থকবেন, শুভ কামনা রইল।

২১ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৫৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: ধন্যবাদ। মন্তব্যগুলো লেখকের জন্য প্রেরণাদায়ক, পাঠকের জন্য উৎসাহব্যঞ্জক।

২১| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:১৭

মাহের ইসলাম বলেছেন:


২১ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:২০

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!!!!

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.