নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

একজন সুখী মানুষ, স্রষ্টার অপার ক্ষমা ও করুণাধন্য, তাই স্রষ্টার প্রতি শ্রদ্ধাবনত।

খায়রুল আহসান

অবসরে আছি। কিছু কিছু লেখালেখির মাধ্যমে অবসর জীবনটাকে উপভোগ করার চেষ্টা করছি। কিছু সমাজকল্যানমূলক কর্মকান্ডেও জড়িত আছি। মাঝে মাঝে এদিক সেদিকে ভ্রমণেও বের হই। জীবনে কারো বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ করিনি, এখন তো করার প্রশ্নই আসে না। জীবন যা দিয়েছে, তার জন্য স্রষ্টার কাছে ভক্তিভরে কৃতজ্ঞতা জানাই। যা কিছু চেয়েও পাইনি, এখন বুঝি, তা পাবার কথা ছিলনা। তাই না পাওয়ার কোন বেদনা নেই।

খায়রুল আহসান › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমাদের কাশ্মীর ভ্রমণ- ১৪: বেলা শেষের গান

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:২২



০৬ মে ২০১৯, সকাল সকাল ঘুম ভেঙে গেল। শ্রীনগরের চেয়ে প্যাহেলগামে শীত অনেক বেশী ছিল। আগের রাতে হোটেলের হাউস কীপিং বিভাগের এক লোক এসে দেখিয়ে দিয়েছিল, বিছানার গদির নীচে লম্বালম্বি রাখা বৈদ্যুতিক দন্ডের তাপ কিভাবে কমাতে বাড়াতে হবে। শোয়ার সময় তাপমাত্রার সুইচটাকে ‘মিডিয়াম’ এ দিয়ে শুয়েছিলাম। মাঝরাতে একবার প্রচন্ড গরমে ঘুম ভেঙে গিয়েছিল। উঠে সুইচটাকে ‘অফ’ করে রেখেছিলাম। সকালে ঘুম ভাঙার পর আলস্যভরে বিছানায় শুয়ে শুয়ে আগের দিনের তোলা ছবিগুলো এডিট করতে থাকলাম, মাঝে মাঝে ফেইসবুকিং ও চলতে থাকলো। বাকী দু’জন তখনো অঘোরে ঘুমাচ্ছিল। এক সময় উঠে গোসল সেরে এসে বাকী দু’জনকে ডেকে তুললাম। একজন গোসলে গেল, আরেকজন আলস্যভরে আবার চোখ বন্ধ করলো। ধীরে ধীরে সবাই তৈরী হয়ে নেবার পর ব্রেকফাস্ট টেবিলে গিয়ে বসলাম। আগের রাতে যখন ডিনার করেছিলাম, তখনই ব্রেকফাস্টের মেন্যু দিয়ে রেখেছিলাম। যে ছেলেটা মেন্যু জানতে এসেছিল, তার নাম জিজ্ঞেস করাতে সে জানিয়েছিল ‘শিব্বির’। এবারে আর তাকে তার নামের বানান জিজ্ঞেস না করেও বুঝে নিলাম শিব্বির বা SHIBBIR, যা আমাদের ভাষায় হয়ে যায় শাব্বির।

নাস্তার পর ঔষধ ইত্যাদি খেয়ে ব্যাগ গুছিয়ে নিলাম। তখনো হাতে কিছু সময় আছে। আমরা নীচে নেমে হোটেলের ল’নে বসে কিছু ছবি তুললাম। আরও কিছু এটা সেটা করে বেলা ঠিক এগারটায় হাতে প্রচুর সময় নিয়ে শ্রীনগর বিমান বন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম। ইচ্ছে ছিল, পথে যদি কোন সুন্দর ফুলবাগান পাই (যা পাওয়া যাবে বলে শাফি আগের দিন ধারণা দিয়েছিল), তবে সেখানে নেমে আমরা কিছু ছবি তুলে নেব। আগে থেকে সাব্যস্ত ছিল যে আমরা প্যাহেলগাম থেকে সরাসরি শ্রীনগর বিমান বন্দরে যাব, কিন্তু গাড়ীতে ওঠার পর শাফি বললো, মানযুর সাহেব তাকে শ্রীনগর শহর হয়ে যেতে বলেছেন, এতে আধা ঘন্টার মত অতিরিক্ত সময় লাগবে। শুনে আমি একটু অবাক হ’লাম, কারণ মানযুর সাহেবের পাওনা টাকা পয়সা সব মিটিয়ে দিয়েই আমরা শ্রীনগর ছেড়ে প্যাহেলগামে এসেছিলাম। যাহোক, হাতে যথেষ্ট সময় থাকাতে আমি কোন আপত্তি করলাম না। পথে বারবার শাফিকে ফুলবাগানের কথা স্মরণ করাতে থাকলাম, সে এটা সেটা বলে এড়িয়ে যেতে থাকলো। আমরাও এ নিয়ে আর খুব একটা জোর বা জেরা করলাম না।

প্যাহেলগাম থেকে ফেরার সময় ১০ নং পর্বে উল্লেখিত সেই “আই লাভ ইউ, হেনা” লেখা প্রস্তর খন্ডটার ছবি তোলার কথাটা বেশ মনে ছিল। তাই গাড়ীতে উঠেই শাফিকে বলেছিলাম, আমি পথের একটি জায়গায় একটি পাথরের ছবি নেব। কোথায় গাড়ী থামাতে হবে বা স্লো করতে হবে, তা আমি আগে থেকেই তাকে জানাবো, সে যেন তদনুযায়ী গাড়ী থামায়, থামানো সম্ভব না হলে অন্ততঃ যেন একটু স্লো করে। কি কারণে আমি একটি পাথরের ছবি তুলতে আগ্রহী ছিলাম, সে অভিপ্রায়টা আমি নিজের কাছেই গোপন রেখেছিলাম। সেটি শাফিও যেমন জানতো না, আমার স্ত্রী পুত্রও তেমন জানতো না। ওরা ভেবেছিল, আমি কোন সুন্দর পাথর ছড়ানো দৃশ্যের চিত্র ধারণ করতে চাই। তাই পথে যেখানে যেখানে ওরা কিংবা শাফি সুন্দর সুন্দর পাথর দেখতে পেয়েছে, তখনই আমাকে জিজ্ঞেস করেছে, গাড়ী থামাবে কি না। অপ্রশস্ত রাস্তায় আমাদের গাড়ীর পেছনে পেছনে অনেকগুলো গাড়ী আসছিল। তাই অস্থিরতার এবং নিরাপত্তার কারণে আমি সেই পাথরটা খোঁজার ব্যাপারে মনযোগ হারিয়ে ফেলেছিলাম। একটা জায়গায় এসে আমি বুঝতে পারলাম যে পাথরটাকে আমি পেছনে ফেলে এসেছি। সেখান থেকে পাথর খোঁজার ব্যাপারে আমাকে নিরুৎসাহী দেখে শাফি বারবার জিজ্ঞেস করতে থাকলো, গাড়ী ঘুরাবে কিনা। আমি বললাম, সামনে চলতে থাকো।

ফেরার সময় আবার সেই ঝিলাম নদীর আরো কিছু ছবি তুললাম। ইচ্ছে হচ্ছিল, গাড়ীটাকে কোথাও পার্ক করে রেখে হেঁটে গিয়ে কিছুক্ষণ নদীর পাড়ে বসি, কিন্তু সময় বড় বালাই। পুনরায় সেই সমতল পথের দু’পাশের শ্যামলিমা দেখে মুগ্ধ হচ্ছিলাম। একটা জায়গায় কিছু গাছ দেখিয়ে শাফি বললো, এগুলো উইলো গাছ, এগুলো দিয়ে বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ ক্রিকেট ব্যাট তৈরী হয়। শ্রীনগর শহরের কাছাকাছি একটা জায়গায় এসে একটা তোরণ নজরে এলো, যার উপরে লেখা, “WELCOME TO BADAMI BAGH CANTONMENT”। শাফি বললো, এটা সেখানকার সবচেয়ে বড় সেনানিবাস। আবার সেই ডাল লেইকের তীরে এসে শাফি মানযুরকে ফোন দিল। শীঘ্রই মানযুর এসে জানালো, আমার ঢাকার ট্রাভেল এজেন্ট সাঈদ হাসান ওকে অনুরোধ করেছে, আমার মাধ্যমে যেন ওর কাছে সে কিছু নাটস পাঠিয়ে দেয়। আমরা গাড়ীতেই বসে থাকলাম, মানযুর কিছু নাটস কিনে এনে একটা ব্যাগ আমার হাতে ধরিয়ে দিল। তারপর তার সাথে বিদায়ী শুভেচ্ছা বিনিময় করে আমরা শ্রীনগর বিমান বন্দরের উদ্দেশ্যে গাড়ী ঘুরালাম। এইটুকু রাস্তা ডিট্যুর করাতে আমাদের তেমন কোন অসুবিধে হয়নি, তবে শাফির মাঝে মাঝে টেলিফোনে কথা বলার সময় তার অভিব্যক্তি দেখে মনে হচ্ছিল, কোথা থেকে যেন তার কাঁধে কামানের গোলা এসে পড়ছিল। সেকথা একটু পরে বলছি।

আসার সময় শাফি একবার আমাকে হঠাৎ করে জিজ্ঞ্যেস করে বসলো, স্যার ভাইয়া কাব শা’দী কারেগা? ওর এই প্রশ্নটা শুনে ভাইয়াও যেমন একটু অপ্রস্তুত হলো বলে মনে হলো, আমিও একটু হতচকিত হয়েই নিজেকে সামলে নিয়ে তাকে বললাম, এখনো দেরী আছে। সে আমার কথাটাকে লুফে নিয়ে বললো, স্যার আমি বিয়ে করবো আগামী ঈদুল আযহা’র দু’সপ্তাহ পর, আপনাদের সবার দাওয়াৎ থাকলো। তখন আমি বুঝতে পারলাম, হঠাৎ করে ভাইয়ার বিয়ের ব্যাপারে তার খোঁজ নেয়ার আসল কারণটা কী ছিল। নিজের খবরটা দিতেই সে অতি উদগ্রীব ছিল। তাকে অভিনন্দন জানানোর কোন ফুরসৎ আমাকে না দিয়ে সে তার হবু বউ এর ব্যাপারে বেশ আগ্রহ সহকারে একটার পর একটা বর্ণনা দিতেই থাকলো। যখন সে তার বউ এর ব্যাপারে কথা বলছিল, তখন তার মুখে এক ধরণের আভা খেলে যাচ্ছিল, কিন্তু আবার যখন কোন ফোন আসছিল, তখন আবার মনে হচ্ছিল সেই কামানের গোলার কথা। একবার সে কলটা কেটে দিয়ে ব্যাজার মুখে আমাকে বললো, “স্যার কাশ্মীরি আওরাতোঁ কো মিজাজ মার্যি ইধারকা মাওসুম য্যায়সা, কাভি জ্বালতি হ্যায় সুরুজ, কাভি বারিশ!” আমি মনে মনে বললাম, এই বয়সে আর দেখেছো কি, আরো বড় হও বাছা!

চলতে চলতে একটা সময় সে আমাকে মুখ ফুটে জানালো, অনেকদিন পর সে আর তার হবু বউ দু’জনে একসাথে কিছুটা ফ্রী টাইম পেয়েছে, তাই আমাদেরকে বিমান বন্দরে নামিয়ে দিয়ে সে আর তার বাগদত্তা কিছুটা সময় একসাথে ঘুরে ফিরে কাটাবে। বিমান বন্দরের প্রায় কাছাকাছিই চলে এসেছিলাম, সেখান থেকে অল্প একটু পথ সে তার হবু বউকে আমাদের গাড়ীতে উঠিয়ে নেবে। আমি তার আর্জেন্সীটুকু উপলব্ধি করে আর আপত্তি জানালাম না। সামনের আসনে শাফি’র পাশে সে যেন বসতে পারে, সেজন্য আমি আগে থেকেই পেছনের আসনে এসে বসেছিলাম। একটু পরে সে এক জায়গায় গাড়ীটা থামিয়ে তার বউকে দিক নির্দেশনা দিয়ে চলে আসতে বললো। কিন্তু এবারেও তার মুখের অভিব্যক্তি দেখে আর তার কথা শুনে বুঝতে পারলাম, গাড়ীটা তার যে জায়গায় থামানোর কথা ছিল, তার থেকে সে কিছুটা দূরে থামিয়েছে, তাই তার বাগদত্তাকে রৌদ্রের মাঝে কিছুটা পথ হেঁটে আসতে হবে, সুতরাং আবারও সেই কামানের গোলা!

একটু পরে তার হবু বউ গাড়ীর কাছে আসলো। আমাদেরকে দেখে সে ভীষণ আড়ষ্ট হয়ে কোন রকমে একটা সালাম দিয়ে গাড়ীর সামনের সীটে বসে দরজাটা লাগালো। শাফি আবার গাড়ী চালাতে শুরু করলো। মেয়েটির আড়ষ্টতা কমানোর জন্য আমার স্ত্রী তার নাম জিজ্ঞেস করলেন। সে এতটাই কাঁচুমাচু করে অত্যন্ত নীচু স্বরে তার নামটা বললো যে আমি কিছুই শুনতে পেলাম না। তাই আমি এবারে তার নাম পুনরায় জিজ্ঞেস করলাম। সে আগের চেয়ে একটু জোরে বললো, “কুলসুম”। শাফিও তাকে কিছুটা নরমাল করার জন্য এটা সেটা বলে হাসাতে চাইলো, কিন্তু সে লাজুকলতা হয়েই বসে রইলো। দেখতে দেখতে বিমান বন্দরের একেবারে সন্নিকটে চলে এলাম। প্রথম চেকপোস্টে এসে শাফি বললো, এখানে সবাইকে নেমে নিরাপত্তা তোরণের ভেতর দিয়ে যেতে হবে। এমনকি লাগেজও সব নামিয়ে টেনে নিয়ে যেতে হবে। আমরা তাই করলাম। নিরাপত্তা প্রহরীরা আমাদের টিকেট দেখতে চাইলো না, শুধু আমাদের দেহ আর লাগেজ স্ক্যান করলো। তাদের চেকিং শেষ হবার পর শাফি লাগেজগুলো গাড়ীতে তুললো। হাসতে হাসতে সে তার বউকে দেখিয়ে বললো, ভাগ্যিস প্রহরীরা টিকেট চেক করে নাই, করলে ওকে এখানেই রেখে যেতে হতো! এ কথা শুনে কুলসুম আরও কিছুটা আড়ষ্ট হলো বলে মনে হলো। আমার স্ত্রী তাকে জিজ্ঞেস করলেন সে এখনো পড়াশোনা করছে কি না। সে জানালো, তার নার্সিং ডিপ্লোমা কোর্স কেবলই শেষ হয়েছে।

বিমান বন্দর এসে গেল। এবারে শাফি আর তার বউ এর কাছ থেকে আমাদের শেষ বিদায় নেয়ার পালা। গাড়ী থেকে নেমে আমার ছেলে একটা ট্রলী নিয়ে আসলো। সে আর শাফি মিলে লাগেজগুলো ট্রলীতে উঠালো। বিমান ছাড়ার তিন ঘন্টা বিশ মিনিট আগে আমরা বিমান বন্দরে পৌঁছেছিলাম। তাই তখনো গাড়ী বা প্যাসেঞ্জারের ভিড় লাগেনি। শাফি অনুমতি চাইলো একটি গ্রুপ সেলফী তোলার। আমরা রাজী হ’লাম, কিন্তু তার বউকে এতে তেমন আগ্রহী বলে মনে হলো না। শাফিকে গত পাঁচদিনে তার সেবার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে তার টিপস মিটিয়ে দিলাম। সে খুশী হয়ে কোলাকুলি করার জন্য বুক এগিয়ে দিল। আমিও তাকে বুকে জড়িয়ে রাখলাম কিছুক্ষণ। পারস্পরিক শুভকামনা বিনিময়ের পর ওরা দু’জন গাড়ীতে গিয়ে বসলো। কুলসুমও গাড়ীতে ওঠার আগে এবারেই প্রথম একটা স্বাভাবিক হাসি দিল। বুঝলাম, সেদিনের জন্য তার খুশীর প্রহর শুরু হলো, শাফি’র উপরেও কামানের গোলাবর্ষণ বন্ধ হয়ে গিয়েছিল বোধকরি। ওরা আগে চলে গেল। আমরা ওদেরকে বাই বাই দিয়ে ট্রলী ঠেলে টার্মিনাল ভবনে প্রবেশের জন্য অগ্রসর হতে থাকলাম।

ঢাকা
০৮ জুলাই ২০১৯


"গোল্ডেন রেসিডেন্স" এর পরিচারক শিব্বির আহমেদ এর সাথে....
With Shibbir Ahmad, a Kashmiri young man who looked after us at "Golden Residence".


গাড়ী থেকে তোলা ঝিলাম নদীর ছবি
Picture of Jhelum River at Pahelgam, taken from our Jeep.


গাড়ী থেকে তোলা ঝিলাম নদীর ছবি
Picture of Jhelum River at Pahelgam, taken from our Jeep.



সমতল রাস্তার পাশে সবুজ শ্যামলিমা
Greenery astride the road


এগুলো উইলো গাছ, এগুলো দিয়ে বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ ক্রিকেট ব্যাট তৈরী হয়।
Willow trees astride the road. World's best cricket bats are made from these.


শ্রীনগরের "বাদামি বাঘ সেনানিবাস" এর স্বাগত তোরণ।
Welcome arch at the entrance of "Badami Bagh Cantonment" at Srinagar.

মন্তব্য ২৯ টি রেটিং +৮/-০

মন্তব্য (২৯) মন্তব্য লিখুন

১| ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৩২

সোহানাজোহা বলেছেন: আপনার কাশ্মীর ভ্রমণ পর্ব প্রতিটি মনোযোগ সহকারে পড়েছি। ধন্যবাদ আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য।

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার কাশ্মীর ভ্রমণ পর্ব প্রতিটি মনোযোগ সহকারে পড়েছি - অনেক ধন্যবাদ, আমার এ সিরিজটি মনোযোগ সহকারে পড়ার জন্য। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২| ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৭

ইসিয়াক বলেছেন: চমকপ্রদ । খুব ভালো লেগেছে। আচ্ছা ছবি নেই কেন ?
ছবি না থাকার কারণে পোষ্টটি চোখে পড়তে দেরি হয়েছে।
অনেক ভালোলাগা । দোয়া রইলো ।
আল্লাহ হাফেজ

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:১৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: আচ্ছা ছবি নেই কেন? ছবি না থাকার কারণে পোষ্টটি চোখে পড়তে দেরি হয়েছে - ওহ, তাই তো! আপাততঃ তিনটে ছবি দিলেম। পরে আরো কিছু আসবে।
পোস্টটা আপনার খুব ভালো লেগেছে জেনে অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

৩| ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:০০

আনমোনা বলেছেন: ভালো লাগলো। শাফি এবং কুলসুমের জন্য শুভেচ্ছা রইলো।

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৪৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: ভাল লেগেছে জেনে প্রীত হ'লাম। প্লাসে অনুপ্রাণিত।
ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

৪| ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৩০

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনারা যেই কয়দিন ছিলেন, কি পরিমাণ টুরিষ্ট আপনার চোখে পড়েছিলো; ইহা জড়িতদের আয়ের জন্য যথেষ্ট? নাস্তার পর, আপনি ঔষধ খেয়েছেন; কিসের ঔষধ খাচ্ছিলেন?

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৪৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রচুর সংখ্যক পর্যটক ছিল, যার মধ্যে প্রায় অর্ধেক ছিল ভারতীয়, এবং বাকী অর্ধেক বিদেশী। পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে পরের মাসগুলোতে পর্যটক সংখ্যা আরো বাড়ার কথা ছিল। তবে আমি যতটুকু দেখেছি, ততটুকুই আয় রোজগারের জন্য যথেষ্ট ছিল বলে মনে হয়েছে।
আমি নিয়মিতভাবে প্রতিদিন সকালে দুটো ঔষধ সেবন করি, চিকিৎসকের পরামর্শে।

৫| ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: কাশ্মীর থেকে কি কি কেনাকাটা করেছেন কিছু ছবি পোষ্টের সাথে সম্পর্ক রাখে। শাল সোয়েটার ইত্যাদি। খায়রুল আহসান ভাই আপনি একটা লেখা লিখে যাচ্ছেন বলতেই হবে !!! - নাতী নাতনীরা গর্ব করে পড়বে একসময়। ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন ব্যাস্ত থাকুন।

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ৮:৩৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: শাল সোয়েটার ইত্যাদির কিছুই আনিনি। প্রয়োজনও নেই। শুধু কিছু নাটস এনেছিলাম।
নাতী নাতনীরা গর্ব করে পড়বে একসময় - নাতনিটা তার মা বাবার সাথে প্রবাসী হয়ে গেছে। এখনো বাংলায়ই কথা বলে। জানিনা কতদিন তা ধরে রাখতে পারবে।
আলহামদুলিল্লাহ, ভাল আছি, সুস্থ আছি এবং ব্যস্তও আছি।
মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

৬| ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫৬

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:





খায়রুল আহসান ভাই, আপনার লেখা অনেক পাঠক পড়তে পারবেন না (হয়তোবা) , কারণ লেখার প্রথমে ছবি নেই - আর ছবির কারণে লেখা অনেক সময় নজরে আসেনা।

কাশ্মীরের ঠান্ডা শিতল পানিতে পা ডুবিয়ে বসে থাকতে পারলে মনে খুব শান্তি পেতাম।


১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:৩৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: পোস্টের একেবারে উপরে, শিরোনামের নীচে একটি ছবি দিয়ে দিলাম আপনার কথা মত, যেন পোস্টটা সবার নজরে পড়ে। আর পোস্টের নীচে ছ'টি ছবি গতরাতেই দিয়েছিলাম।
পা ডুবিয়ে বসে থাকতে পারেন এখানে, একেবারে বরফ গলা জলেঃ

৭| ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:১৪

করুণাধারা বলেছেন: ভ্রমণের শুরুতেই সেই কালো ব্যাগ হারানোর (এবং পরে প্রাপ্তি) পর থেকেই মনে হচ্ছিল, আবারো না জানি কি হারিয়ে ফেলেন! অবশেষে ১৩তম পর্বে এসে আশঙ্কা সত্যি হলো; মোবাইল হারালেন। এই পর্ব ভয় নিয়ে পড়ছিলাম, আবার না জানি কি হারান! যাক অবশেষে সব মাল সামান সহ এয়ারপোর্ট এসে পৌঁছালেন। :)

আপনার বর্ণনা চমৎকার! ছবিগুলো ভালো তুলেছেন। ঝিলাম নদীর প্রথম ছবিটি দেখে মনে হচ্ছে, নদীটি সোজা যাচ্ছেনা, হয় নদী থেকে কোন শাখা বের হয়েছে অথবা এটা meandering river. ব্রিজের উপর থেকে তোলা দ্বিতীয় ছবি দেখে অবশ্য নদীটি সোজা মনে হচ্ছে। নীল জলে স্রোতের সাদা ফেনা... নদীটি নিঃসন্দেহে মনোহর!

শিব্বিরের ছবি দেখেও ভাল লাগল। আমার ধারণা ছিল কাশ্মীরা অন্য ধরনের পোশাক পরে, এবং তাদের চেহারা ও অন্য ধরনের হয়। এই ছবি দেখে তাকে উপমহাদেশের অন্য যেকোনো জায়গায় যুবকের মতই মনে হল।

এই পর্বৈও ++++

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৫২

খায়রুল আহসান বলেছেন: ইদানীং খুব জিনিস হারাই আমি। গত সফরে প্রতিবারে অল্পের জন্যে শেষ রক্ষা হয়েছে, করুণাময়ের অশেষ মেহেরবানিতে। তবে বুঝতে পারছি, বড় সড় ধাক্কা খাওয়ার দ্বারপ্রান্তে এখন দাঁড়িয়ে আমি।
যাক অবশেষে সব মাল সামান সহ এয়ারপোর্ট এসে পৌঁছালেন - :) :)
মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

৮| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:০৩

বলেছেন: আচ্ছা, ভাইয়া কান শাদী কারেগা -- দামী প্রশ্ন।।।।



ধন্যবাদ নিরন্তর।।

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:০৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রশ্নটা ছিল, "ভাইয়া কাব শাদী কারেগা"? অর্থাৎ ভাইয়া কবে বিয়ে করবে? বলা বাহুল্য, নিজের বিয়ের খবরটা পাতার জন্যেই এ প্রসঙ্গের অবতারণা।
মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

৯| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:৩৪

রাজীব নুর বলেছেন: কাশ্মীর গেলে কোন সময়ে যাওয়া উচিত?
পুরো কাশ্মীর ঘুরে বেড়াতে কত দিন সময় লাগবে এবং খরচ কত হবে?
নিরাপত্তা কেমন? দিল্লীতে খরচ বেশি না আকশ্মীরে??
বিষয় গুলো জানালে খুশি হবো।

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫২

খায়রুল আহসান বলেছেন: ১। জুলাই-আগস্ট ভাল সময়।
২। সপ্তাহ দুয়েক হলে ভাল হয়।
৩। ভাল, তবে এখনকার পরিস্থিতি অন্যরকম। দিল্লীতে খরচ বেশী।

১০| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৩

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: একটা ছবি দুইবার এসেছে ।

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:২৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: হ্যাঁ, শিরোনামের ছবিটা নীচেও আছে।

১১| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৪৩

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: আপনি নিঃসন্দেহে সাহসী মানুষ, আমার ভারতে অনেকবার যেতে হয়েছে, স্পেশাল পারমিট নিয়ে কোথায়ও যাইনি এছাড়া দুটি জায়গাতে যেতে কখনো সাহস করিনি ১। কাশ্মীর ২। গোয়া। কাশ্মীর সম্পর্কে সবাই মোটামোটি জানেন, গোয়া একটি সাগর সৈকত সহ ভ্রমণ সিটি সেখানে আইন যেমন কড়া তেমনি চুরি ছিনতাই সহ মাদকের আখড়া। সব জেনেশুনে সেখানে যাওয়া অর্থ চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করা। ভারতে আমি বিদেশী মানুষ চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করার মতো সিনেমাটিক জীবন ভারতে চলে না।

২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:২৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমি অত শত না ভেবেই হুট করে চলে গিয়েছিলাম। মাত্র ৫ দিন সফর করে ফিরে এসেছি।

১২| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:১৯

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: পর্বগুলো ফেসবুকে পড়া থাকার পরো আবারো পাঠে ভালই লাগলো।

আর মনে একটা ধীর্ঘশ্বাস অজানিতেই বেরিয়ে এলো - হায় কাশ্মীর!
ভু-স্বর্গের বর্তমান করুন খবরগুলো হৃদয়ে শুধু যাতনাই বাড়ায়।

আপনার কাশ্মীর ভ্রমন নিয়ে একটা পুরো বই হয়ে যায় কিন্তু।
হবে নাকি আসছে বই মেলায়?

শুভেচ্ছা প্রিয় সিনিয়র

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৫৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: হায় কাশ্মীর! ভু-স্বর্গের বর্তমান করুন খবরগুলো হৃদয়ে শুধু যাতনাই বাড়ায় - আসলেই তাই। আল্লাহ রাব্বুল 'আ-লামীন কাশ্মীরের নিপীড়িত জনগণের সহায় হউন!
আপনার কাশ্মীর ভ্রমন নিয়ে একটা পুরো বই হয়ে যায় কিন্তু - এত অল্প রসদ নিয়ে আপাততঃ অগ্রসর হতে চাচ্ছিনা, তবে ভ্রমণের উপর একটি বই বের করার ভাবনাটা মাথায় আছে। ধন্যবাদ, এ পরামর্শের জন্য।
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত। শুভকামনা---

১৩| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৪১

দৃষ্টিসীমানা বলেছেন: চমৎকার বর্ণনায় কাশ্মীর ভ্রমন ভাল লাগছে ।

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, লেখাটি পড়ার জন্য এবং ভাল লাগার কথাটি এখানে জানিয়ে যাবার জন্য।
ভাল থাকুন, সব সময়। শুভকামনা---

১৪| ২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:০০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: রেস্পেক্টেড স্যার,

ছবিগুলো যতটা সুন্দর, আপনার বর্ননা ততটাই ঝরঝরে ততটাই প্রাণবন্ত। ভ্রমণ অভিজ্ঞতাকে আমার চলমান নাটকের প্রতিচ্ছবি বলে যদি মনে করি। সে দিক থেকে বিচার করলে আজকের পর্বে শফিই যেন মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করছেন। সাধারণ কাশ্মীরীরা অতিথিবৎসল জাতী।আপনার বর্ণনায় প্রতিটি পরতে পরতে তার পরিচয় পেয়েছি। পোস্টে শফির আচরণের মধ্যে যার পূর্ণ প্রতিফলন বর্তমান।
কিন্তু প্রেম সমস্ত কিছুর উর্ধে। শফিও তার ব্যতিক্রম নয়। তাই বারংবার ফোন নামক কামানের মাধ্যমে সে বিব্রত বোধ করলেও অতিথিদের ম্যানেজ করে নিজের প্রিয়তমার জন্য সামান্য সময় বার করতে মরিয়া। শফি ও তার বাগদত্তার জন্য অগ্রিম শুভেচ্ছা রইলো।
শ্রদ্ধা ও শুভকামনা স্যার আপনাকে।

২২ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:৩৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবিগুলো যতটা সুন্দর, আপনার বর্ননা ততটাই ঝরঝরে ততটাই প্রাণবন্ত - অনেক ধন্যবাদ, এ প্রশংসাটুকুর জন্য।
আপনি শাফি'র পরিস্থিতিটাকে সঠিক ও সম্যকভাবে উপলব্ধি করতে পেরেছেন।
মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:০৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: শফি ও তার বাগদত্তার জন্য অগ্রিম শুভেচ্ছা রইলো - আমার এ লেখাটি পড়ে আপনি ছাড়াও আরো কয়েকজন শাফি ও কুলসুম এর প্রতি ভালবাসার, ভাল লাগার অনুভূতি জানিয়েছেন, শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এতে আমিও প্রীত বোধ করছি, কারণ ওদের উভয়ের প্রতি আমারও আন্তরিক দোয়া এবং শুভকামনা রয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.