নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ভাবনাহীন ভাবনাগুলো

মাহের ইসলাম

মাহের ইসলাম › বিস্তারিত পোস্টঃ

আশাভঙ্গ

০৯ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৪২



বড় ধাক্কাটা খেলাম, যেইনেপের ভ্রূ নাচানো প্রশ্নে।
গালভর্তি দুষ্টুমিপূর্ণ হাঁসি। চোখে বাঁকা চাহনী।
-“ তুমি কি এমন যাদু করেছ যে, রাবিয়া তোমার এত বড় ভক্ত হয়ে গেল?”
শুনে অপ্রস্তুত হয়ে যাই। কথা খুঁজে পাই না।
আকর্ষণীয়া এবং সুন্দরী তকমা পেতে একজন তরুণীর যা যা থাকতে হবে, সবই আছে রাবিয়ার মধ্যে। প্রথম দর্শনেই নজর কাড়বে, নজরকারা সুন্দরীর একেবারে পারফেক্ট উদাহরণ। সহজাত একটা মিষ্টি হাঁসি সব সময় ঠোঁটের কোনে চোখে পড়ে। পোশাক আশাকেও মানের উচ্চতা স্পষ্ট। তার উপরে লেখাপড়া শেষ করে একটা ব্যাংকে বছর খানেক আগে যোগ দিয়েছে।
আমার মতো একজন সাধারণ ভিনদেশী তরুণের পক্ষে তার মন জয় করতে পারার দুঃসাহস দেখানোর প্রশ্নই উঠে না। তাই, নিজের কাছেই লজ্জা লাগে। তার চেয়ে বড় কথা সোনালি চুলের লম্বা দীর্ঘাঙ্গী রাবিয়ার চেয়ে কালো চুলের এলিফকে আমার বেশি পছন্দ। এলিফ, তার কাজিন। মারমারা ভার্সিটির ছাত্রী। লেখাপড়া শেষ হতে কয়েক মাস বাকী। দু’জনের বাসা একই এলাকায়। একই ট্যুরে তাদের দুইজনের সাথে পরিচয় হয়। তাদের পরিবারও সাথেই ছিল।

সেটা ছিল দশদিনের এক ট্যুর।
সকাল-সন্ধ্যা সবাই একত্রেই কাটিয়েছি। খোলামেলা পোশাক, বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ, অযাচিতভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়া ইত্যাদি দেখে যে ধারনাই হোক না কেন, তুরস্কের বেশীরভাগ মানুষই রক্ষণশীল। নারীর স্বাধীনতা এখানে শ্রদ্ধার সাথেই মূল্যায়ন করা হয়। ততোদিনে আমি এটা বুঝে গেছি। তাই, রাবিয়া, এলিফ, তাদের পরিবার এবং ট্যুরের অন্য সবার সাথেই আমার আচরণ ছিল সংযত। এতে করে আমার ধর্মীয় রক্ষণশীলতা এবং পারিবারিক মুল্যবোধ সবার কাছে স্পষ্ট হয়েছে অল্প কয়েকদিনেই।
বসফরাসের পাড়ে বসে চায়ের ক্যাপ চুমুক দিতে দিতে কথা হচ্ছিল।

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে রাবিয়া, এলিফ আর আমি এমন আড্ডা নিয়মিতই দেই।
যেইনেপ আজ প্রথমবারের মতো আমাদের আড্ডায় যোগ দিয়েছে।
মুলত আমার সাথে পরিচিত হতেই এসেছে। কয়েক মাস আগের এক ট্যুরে গিয়ে পরিচয়ের পর থেকে রাবিয়া কাজের ফাঁকে ফাঁকে তার কলিগদের কাছে আমার সম্পর্কে এতো গল্প করেছে যে, স্বচক্ষে আমাকে দেখার লোভ সামলাতে পারেনি। আর হাকান এসেছে যেইনেপ’র সাথে। তাদের মধ্যে মন দেয়ানেয়া চলছে দীর্ঘ দিন ধরে। এই বছরের শেষ নাগাদ বিয়ে করবে। এসেই হাকান আর যেইনেপ ক্ষমা চেয়ে নিয়েছে। তারা বেশিক্ষণ আমাদের সাথে থাকতে পারবে না।

আমরা তিনজন গত প্রায় দু’মাস ধরে একেক সপ্তাহে একেকজনের পছন্দের ক্যাফেতে বসি। আজ ছিল, আমার পছন্দের দিন। এখানকার কুম্পির (এক প্রকারের বেকড আলু) আমার খুব প্রিয়। তাই, আমি বেসিকতাসের এই ক্যাফেতে আসার প্রস্তাব দেই। অন্যরা অমত করেনি। কারণ, এই জায়গা তাদেরও পছন্দের।
বসফরাসের পাড়ের এই জায়গাটা সুন্দর।
গাছের ছায়ায় টেবিল ঘিরে কাঠের বেঞ্চ বিছানো।
দূরে ফাতিহ সুলতান মেহমেত ব্রিজ দেখা যায়।
আমাদের গল্প জমে উঠতে সময় লাগে না।
হাজারো গল্প জমে উঠেছে।
সামনে টেবিলে ছোট ছোট টার্কিশ চায়ের কাপ। বেচারাদের এক মুহূর্ত ফুরসত মিলছে না। একটু ক্ষনের জন্যেও খালি হওয়ার সুযোগ পাচ্ছে না।

নিজের সীমাবদ্ধতা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই আমার। রাবিয়ার সাথে একটু ঘুরাঘুরি কিংবা এক টেবিলে বসে চা খাওয়াই আমার কাছে সৌভাগ্য মনে হয়। স্থানীয় কালচার মেনে গালে গাল ছুইয়ে চুমো দেওয়াটাই চরম প্রাপ্তি মনে করি। তাই, আমার যাবতীয় চেষ্টা এলিফের কাছে ঘেষে বসার, তার মেজাজ-মর্জি বুঝে চলার। আমার এই কাছে ঘেষার প্রচেষ্টাকে এলিফ কোনো মতেই পাত্তা দেয় না। বরং, যা চাইনি, তাই হচ্ছে। রাবিয়ার সাথে আমার সম্পর্ক ধীরে ধীরে অনেক কাছাকাছি পর্যায়ে চলে এসেছে। অথচ, আমি ঘনিষ্ঠতা কামনা করছিলাম এলিফের সাথে।

- “সামনেই সামার ভ্যাকেশন আসছে। কারো কোনো প্ল্যান আছে?”
যেইনেপ আর হাকান উঠে যাওয়ার পরেই রাবিয়া প্রশ্নটা তুলে। পরক্ষনেই নিজে নিজেই জানায় যে, সে এখনো কিছু ঠিক করেনি।
- “আমার প্ল্যান ছিল, বসনিয়া যাওয়ার। কিন্তু এখন আর সম্ভব হচ্ছে না।“
এরপরে, কিভাবে আমার বসনিয়া যাওয়ার প্ল্যান ভেস্তে গেছে বিস্তারিত খুলে বললাম।

এলিফ জানালো যে, সে আনতালিয়ার এক রিসোর্টে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে বুকিং করে ফেলেছে।
শুনেই পুলকিত বোধ করি। প্রস্তাব করলাম,
-“আমি যোগ দিতে চাই। কোন রিসোর্ট? দরকার হলে আজকেই বুকিং করে ফেলবো।“
- “সেটা সম্ভব নয়। কারণ, মা-বাবা যাচ্ছে না। সাথে থাকবে ছোট বোন। আর কয়েকজন ক্লাশফ্রেন্ড। সব মেয়ে। কোন ছেলে নেই। আমার বোন তোমাকে চিনে। ঠিক মাকে বলে দিবে।“ দ্রুত উত্তর দেয় এলিফ। যেন সে এমন প্রশ্নের জন্যে তৈরি ছিল।

আমার কাছে ব্যাপারটা লোভনীয় মনে হয়। তার অনিচ্ছাকে পাত্তা দেই না।
আমি নাছোড়বান্দার মতো যোগ করি,
- “রিসোর্টে তো যে কেউ গিয়ে উঠতে পারে। আমি না হয় তেমনি কেউ একজন। এমন ভাব করবে যে, তোমার সাথে হঠাৎ দেখা হয়েছে। আগে থেকেই যে আমি জানতাম। কিংবা তুমি আছো বলেই যে আমি এখানে এসেছি, সেটা কাউকে বুঝতে দিয়ো না।“
- “তুমি বুঝবে না। কিছু সমস্যা আছে।“ বিনয়ের সুরে বলে এলিফ।
আমি আসলেও বুঝি না। সমস্যা কি হতে পারে? শেষ চেষ্টা করি,
- “ একটা রিসোর্টে গিয়ে পরিচিত কারো সাথে দেখা হতে পারে না? ব্যাপারটা না হয় তেমনি ধরনের হবে?”
- “নাহিদ, প্লীজ। এ নিয়ে জেদ করো না।“ এলিফের কণ্ঠে বিরক্তি।
মুখ ঘুরিয়ে নেয়। ভ্রূ কুচকে বসফরাসের পানির দিকে তাকিয়ে থাকে।
কিছুক্ষণ পরে, কপালের উপর থেকে সানগ্লাস দিয়ে ঢেকে দেয় কালো চোখজোড়া।

আমি ক্ষনিকের জন্যে বেকুব বনে যাই।
মুখে কথা আসে না। দৃষ্টি চলে যায় আরো সামনে।
বসফরাসের গাঢ় নীল পানির উপরে চলছে টুরিস্ট ভর্তি এক স্টীমার।
পিছনে পিছনে উড়ে আসছে একগাদা সীগ্যাল।
টুরিস্টদের কেউ কেউ সিমিট (এক ধরনের টার্কিশ বন্রুটি) ছিড়ে ছুঁড়ে মারছে সীগ্যালদের দিকে। পাখিগুলো খাওয়ার জন্যে কাছে আসতেই ক্লিক করে উঠছে, ট্যুরিস্টদের হাতের ক্যামেরাগুলো।

রাবিয়া আমার ত্রাণকর্তার ভুমিয়ায় আবির্ভূত হয়।
সে প্রস্তাব করে যে, আমরা মিশর যেতে পারি কিনা।
তার কয়েকজন ফ্রেন্ড গতবছর গিয়েছিল। পিরামিডের গল্প শুনে মনে হয়েছে, মিশরে একবার না গেলে জীবনটাই বৃথা।
আমি রাজী হলাম না। কারণ, পরেরবার দেশে ফেরার সময় আমি মিশর হয়ে ফিরবো। তাই এখন আর পয়সা খরচ করার প্রশ্নই উঠে না।
-“রুমানিয়া? আমাদের ব্যাংকের এক কলিগ কয়েক মাস আগে সেখানে বদলী হয়েছে। আমাকে কয়েকবার মেইল করেছে, যেতে।“ রাবিয়া আগ্রহ নিয়ে জানতে চায়।
-“রুমানিয়া সম্পর্কে আমার আইডিয়া কম। তবে যা কিছু শুনেছি, ভালো কিছু নয়। বিশেষ করে মেয়েরা।“ বলেই লজ্জিত বোধ করি। সত্যি হলেও এমন কথা বলা ঠিক হয়নি। তাই, ‘সরি’ বলতে সময় নেই না।

ইস্তাম্বুলের লালেলী এলাকা রুশ সুন্দরিদের জন্যে প্রসিদ্ধ। এখানেই বিশেষ এলাকায় প্রাক্তন সোভিয়েট ইউনিয়নের মেয়েদের সাথে রুমানিয়ার মেয়েদের অনেকেই থাকে। এছাড়া অনেক লং রোডের ট্রাক ড্রাইভারের প্রিয় গন্তব্যস্থান রুমানিয়া। কারন, ঐখানে মেয়ে সস্তায় পাওয়া যায়। মূলত গত কয়েক বছর থেকেই তাদের আর্থিক অবস্থা অত্যন্ত খারাপ। প্রায় একই অবস্থা পূর্ব ইউরোপের আরো কয়েকটি দেশে। তাই, রুমানিয়া কখনোই আমার পছন্দের তালিকায় ছিল না।

-“ রুমানিয়ার মেয়ে ভালো না মন্দ তা দিয়ে আমাদের কি? আমরা থাকবো আমাদের মতো।“ কিছুটা সময় নিয়েই উত্তর দেয় রাবিয়া।
আমরা!
আমরা মানে?
রাবিয়ার কথার যুক্তি অত্যন্ত সবল।
কিন্তু তার যুক্তির ধারের চেয়ে ‘আমরা’ শব্দটিই আমার মনোযোগের পুরো মাথাটাই খেয়ে ফেলে। প্রত্যুত্তরে কি বলবো ভাবতে থাকি।

রাবিয়া নিজে থেকেই বলে উঠে,
-“ এলিফ, চল। রুমানিয়া ঘুরে আসি। এক আনতালিয়া আর কতোবার যাওয়া যায়?“
- “ আমি পারবো না। তুমি ভালো করেই জানো। আমার মা কক্ষনোই আমাকে এভাবে একা যেতে দিবে না।“ একটু চিন্তা করেই এলিফ উত্তর দেয়।
-“একা কোথায়? আমি যাচ্ছি। আর, নাহিদকে তো তোদের বাসার সবাই চিনে।“ রাবিয়া বুঝানোর চেষ্টা করে।
বেশ কিছুক্ষণ এভাবে নিস্ফল চেষ্টার পরে, এলিফকে রাজী করানোর চেষ্টায় ক্ষান্ত দেয়।

শেষ পর্যন্ত ঠিক হয়, আমি আর রাবিয়া এই দুজন যাচ্ছি। সে চেষ্টা করবে, আরো কিছু ফ্রেন্ডকে রাজী করাতে। যদি না পাওয়া যায়, শুধু আমরা দুজনেই যাবো। সে নিজেই দায়িত্ব নেয়। তার কলিগের সাথে যোগাযোগ করে আমাদের ট্যুর প্ল্যান চূড়ান্ত করবে। আমরা কোথায় গিয়ে উঠবো? কি করবো? এগুলো নিয়ে আমার মাথা না ঘামালেও চলবে। আপাততঃ আমার কাজ শুধুমাত্র আমার নিজের ভিসা যোগাড় করা।

আল্লাহ্‌ যা করেন, ভালোর জন্যেই করেন।
কথাটার প্রতি বিশ্বাস আরো বাড়লো। বসনিয়া যাওয়ার টিকেট পাইনি বলেই আজ এই অভাবনীয় সুযোগ সামনে এসেছে। সব কিছু কমপ্লিট হয়ে যাওয়ার পরে শুনি, যে তারিখে বসনিয়া যেতে চাচ্ছি, ঐ তারিখে কোনো সীট খালি নেই। তার কাছাকাছি সময়েও নয়। শুনে চরম হতাশায় ডুবে যাই। প্রায় সপ্তাহখানেক দৌড়াদৌড়ি করে ভিসা পেলাম। এর মধ্যেই বাসিচের সাথে কথা ফাইনাল হয়েছে। তুজলাতে তাদের বাসায় আমাকে থাকতে দিবে। ভিসা আনতে যাওয়ার সময় আদেলাইস টিপ্পনী কেটে বলেছে যে, সেই বাসায় বাসিচের এক কাজিন থাকে। প্রায় আমারই সমবয়সী। আমি যেন তার কাছ থেকে দূরে থাকি। মেয়ে হলেও সে কিন্তু একাই একশো। শুনেই আমি মনে মনে সুন্দরী এক বসনিয়ান তরুণীর ছবি মানসপটে এঁকে ফেলেছিলাম। কিন্তু টিকেট জটিলতায় সব ভেস্তে যেতে বসেছিল। এখন রুমানিয়ার ট্রিপটা নতুন সুযোগের দ্বার নয়, যেন পুরো আঙ্গিনা খুলে দিয়েছে।

এলিফ যেতে রাজী হয়নি বলে মনে মনে খুশীই হলাম।
প্রথমদিন থেকেই কেন যেন সে আমাকে একটু কম পাত্তা দেয়।
অন্যদিকে, আমার প্রতি রাবিয়ার আলাদা একটা টান আমি সবসময় খেয়াল করেছি। তার চেয়ে বড় কথা, রুমানিয়া গিয়ে রাবিয়ার সাথে একা বেড়ানোর মধ্যে আলাদা একটা আবেদন আছে। আমি আর রাবিয়া একা থাকলে যা করতে পারবো, এলিফ সাথে থাকলে কখনোই তা সম্ভব হবে না।

সপ্তাহ শেষে আবার আড্ডায় বসেছি।
এলিফ তার সিদ্ধান্ত বদলায়নি।
রাবিয়া তখন পর্যন্ত কাউকে পায়নি যারা আমাদের সাথে রুমানিয়া যেতে পারবে।
সবাই যার যার মতো সামার ট্রিপ প্ল্যান করে ফেলেছে। তাই, এখন আর বদলাতে চাচ্ছে না। সবশুনে আমি মোটেও হতাশ হলাম না। আমার কাছে মনে হলো, এগুলো সবই আমার জন্যে শাপে বর হতে চলেছে।

সাধারণত সপ্তাহের মধ্যে রাবিয়াকে কখনো ফোন করতাম না।
ফোন করার জন্যে কারণ থাকতে হবে তো?
সপ্তাহ শেষে না হয় জিজ্ঞেস করতে পারি, কোথায় দেখা হচ্ছে?
তবে এখন, বিনা কারণেই ফোন করি।
প্রতিদিনই জানতে চাই, কাউকে পেয়েছে কিনা?
যদিও, কথা বলতেই ফোন করা।
আদৌ কাউকে পেলো কি পেলো না, তা নিয়ে বিন্দুমাত্র মাথা ব্যাথা নেই।

রাবিয়া এখনো কাউকে পায়নি।
তবে, আমাদের ট্যুর প্ল্যান করা হয়ে গেছে।
বুখারেস্টে আমরা সময় নস্ট করতে চাইনা। বরাবর ঐতিহাসিক স্থানগুলো আমাকে টানলেও এবার সেগুলোতে গুরুত্ব কম দিলাম। রাবিয়ার পছন্দ মতোই আমাদের গন্তব্য বুখারেস্ট থেকে প্রায় ১৪০ কিমি উত্তরে সিনাইয়া স্কি রিসোর্টে। এই সিজনে স্কি করা যাবে না। তাই, ট্যুরিস্ট কম থাকবে। নিরিবিলি সময় কাটানো যাবে। একই সাথে কাছাকাছি ব্রাশোভ শহরে ঢুঁ মেরে আসা যাবে। শহরটিতে মধ্যযুগের কিছু স্থাপত্য আছে। এছাড়াও সিনাইয়াতে যে হোটেলে থাকবো, সেগুলোও মধ্যযুগের তৈরী। তাই, আমার পছন্দের ঐতিহাসিক স্থাপত্য আর রাবিয়ার নিরিবিলি সময় কাটানো – দুই’ই পূরণ হবে।

পরের কয়েকটা দিন কাটলো দৌড়ের উপরে।
কিন্তু, ভিসার জন্যে এমব্যাসিতে যাতায়াতের ব্যাস্ততা গায়েই লাগলো না।
রাবিয়ার সাথে কোথায় কোথায় বেড়াবো? কি কি করবো?
এরকম অনেক কল্পনা মাথায়। সবই ছিল সুখকর কল্পনা। একবার দু’বার পেটে প্রজাপতিও উড়লো। এ এক অন্যরকম অনুভূতি।

স্বর্গ থেকে মর্ত্যে নামতে বেশিদিন লাগলো না।
দুঃসংবাদটা ফোনের মাধ্যমেই পেলাম। কয়েকদিন পরেই।
রাবিয়ার মা-বাবা কোন মতেই রাজী নয়।
রাবিয়া যত বড়ই হোক না কেন। বয়স যাই হোক। ভার্সিটি শেষ। চাকুরি করে। তো কি হয়েছে?
এর আগে একাধিকবার ফ্রেন্ডদের সাথে ইউরোপে গেছে। সেটা ঠিক আছে।
কিন্তু, এই বার আমার সাথে, একা তাকে যেতে দিবে না। অসম্ভব।
যদিও তাদের বাসার সবাই আমাকে চিনে।
তারা সবাই আমাকে খুব ভালো একজন ছেলে বলেই বিশ্বাস করে।
তারপরেও।
তাদের এক কথা। আরো কয়েকজন বন্ধু-বান্ধবী থাকলে, তারা কখনোই নিষেধ করতো না।

শুনেই বাকরুদ্ধ হয়ে গেলাম।
ভিসা হাতে। প্লেনের টিকেটও।
আমাদের দেশের তরুণেরা নাকি রুমানিয়া দিয়ে পালিয়ে ইউরোপে ঢুকে।
তাই, টিকেট ছাড়া আমাকে ভিসা দিতে চায়নি। ভিসার জন্যে রিটার্ন টিকেট পর্যন্ত কিনতে হয়েছে। এদিকে হাতে সময় আছে মাত্র কয়েকদিন।

দুশ্চিন্তার সাথে জুটি বেঁধেছে আশাভঙ্গের বেদনা।
দুই দিন চলে গেল। ভাবছি, কি করা উচিৎ?
রাবিয়া যাবে না বলে আমি এতগুলো টাকা জরিমানা দিবো?
আশাহত হয়েছি ঠিকই। তাই বলে সব বরবাদ হয়ে যাবে?
ভাবলাম, একাই যাবো। পরক্ষনেই চিন্তার উদয় হলো। একা গিয়ে যদি কোন বিপদে পড়ি?

পরের পর্ব কৌতুহল
ছবি- গুগল।

মন্তব্য ২৮ টি রেটিং +৬/-০

মন্তব্য (২৮) মন্তব্য লিখুন

১| ০৯ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৫৩

রাজীব নুর বলেছেন: রাবিয়ার চেয়ে রাবেয়া নামটা বেশি সুন্দর।

০৯ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৫৬

মাহের ইসলাম বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ।
তবে আপনি নিশ্চয় মুজিযে সিনেমাতে দেখেছেন যে, তুরস্কের নামগুলো একটু ভিন্ন।
যেমন, আমাদের আয়েশা, তাদের আইশে; আমাদের রাবেয়া, তাদের রাবিয়া; আমাদের মাহমুদ, তাদের মেহমেত; আমাদের নিলুফার, তাদের নিলুফের।
তাই, নামটা বদলাইনি।

ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা এবং অনেক অনেক শুভ কামনা রইল।

২| ০৯ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:০০

রাজীব নুর বলেছেন: ইয়েস। আপনি ঠিক বলেছেন।
ধন্যবাদ আপনাকে এত দ্রুত আমার মন্তব্যের উত্তর দেওয়ার জন্য।

ভালো থাকুন। সুস্থ থাকুন।
ইদ মোবারক।

০৯ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:২৫

মাহের ইসলাম বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ।
শুভ কামনা রইল।

ঈদ মোবারক।

৩| ০৯ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:২৬

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: চলবে নাকি শেষ ?

লেখার ধরনটা ভালো লেগেছে। গতিময়।

০৯ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৩৪

মাহের ইসলাম বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ।

আরেকটু চলবে।
সমস্যা হলো, আমি আবার একই গতিতে এগোতে পারি না।
যেমন ধরেন, লেবাননের গল্পটাই দুই পর্বের মধ্যে দুই মাসের গ্যাপ বানিয়ে ফেলেছি। এ ছাড়া, আমার প্রথম পর্বের চেয়ে দ্বিতীয় পর্বগুলো সব সময় খারাপ হয়। ডাক্তার দেখাতে হবে, মনে হচ্ছে।
তাই, এই বার ভয়ে 'চলবে' লিখিনি।

ঈদুল আযহার শুভেচ্ছে এবং শুভ কামনা রইল।

৪| ০৯ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৫৭

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: ভালো/খুব ভালো হয়েছে বলে চলে যাবো, নাকি সমালোচনা করা যাবে?

১০ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:০০

মাহের ইসলাম বলেছেন: সমালোচনা করলে খুব খুশী হবো।
প্লীজ।

৫| ১০ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:০৬

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: পোষ্ট অনেক বড় দিয়েছেন। গল্প ছোট করুন, ব্লগাররা আপনার গল্প পড়বে, নয়তো এতো বড় গল্প কেউ পড়বে না শুধু শুধু কমেন্ট করে চলে যাবে। মূল থিম লিখুন - মূল থিম। ট্রেইলার লিখুন - পুরো গল্প লিখারও অনেক সময় প্রয়োজন পরে না।

আপনার লেখা ভালো, লেখা সর্ট করুন, পড়ে আনন্দ পাবে ব্লগার।

১০ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:১২

মাহের ইসলাম বলেছেন: আপনার কথা শুনে ভালো লাগলো।
আমি চেষ্টা করবো, এখন থেকে লেখা আরো ছোট করার।

মুল থিম বুঝেছি। তবে, ট্রেইলার লেখা বলতে কি বুঝাতে চেয়েছেন, বুঝতে পারিনি। আমি কি ডায়ালগ কমিয়ে শুধু ঘটনাটা তুলে ধরবো?

আবারো ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

৬| ১০ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:১৭

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: রাইট ডায়লগ কমান, প্রয়োজনে টিপস হিসেবে হিন্দি শর্ট ফ্লিম দেখুন। কাহিনী ৭-১০ মিনিটে শেষ হয় এমন মুভি অভাব নেই। আপনার লেখা ভালো তাই গল্প ভালো লিখবেন - এটি আশা করছি।

১০ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:২২

মাহের ইসলাম বলেছেন: অসংখ্য ধন্যবাদ।

আমি বুঝতে পেরেছি।
আশা করছি, এর পর থেকে ছোট করে লিখতে পারবো।

ভালো থাকবেন। শুভ কামনা রইল।
ঈদ মোবারক।

৭| ১০ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:১৮

স্রাঞ্জি সে বলেছেন:

মাহের ভাই।

কিছু দুর্ঘটনা এমন সময়ে হাজির হয়ে আসে। এদিকও যাওয়া যায়না, ওদিকও না। আহা কত্তো আশা, স্বপ্ন, সব শেষ হয়ে গেল।

গল্পটা তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে গেল তবে গল্পের রেশ এখনো থেকে গেছে। দ্বিতীয় পর্ব নিয়ে আসিয়েন। আমি চাই আপনার (নাহিদ) আর রাবিয়ার সাথে সম্পর্ক গাঢ় হোক । :P

১০ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:২৫

মাহের ইসলাম বলেছেন: আপনার সহানুভূতি পেয়ে ভালো লাগছে।
সেই সাথে অনুপ্রাণিত বোধ করছি।
অসংখ্য ধন্যবাদ।

গল্পের এখানেই শেষ নয়। আরেকটু আছে।
দ্বিতীয় পর্ব তাড়াতাড়ি আনার চেষ্টা করবো, ইনশাল্লাহ।

তবে রাবিয়া কিন্তু কুপির আগুনের মতো। নাহিদের মতো পোকারা কাছে যায় পাগলের মতো। কিন্তু মৃত্যু ছাড়া কিছু আলিঙ্গন করতে পারে না।

ভালো থাকবেন, শুভ কামনা রইল।
ঈদ মোবারক।

৮| ১০ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:৪১

আনমোনা বলেছেন: ভালো লাগলো। ২্য় পর্ব পেতে আশাভঙ্গ হবেনা আশা করি।
ভালো থাকুন।


১০ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৪৬

মাহের ইসলাম বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ।
অনুপ্রাণিতবোধ করছি।

২য় পর্ব খুব শীগগিরই দেওয়ার চেষ্টায় আছি।

ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা রইল।

৯| ১০ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ২:৩৭

ওমেরা বলেছেন: হায় আল্লাহ ! এটা গল্প নাকি ! আমি তো মনে করেছিলাম এটা আপনার জীবনের ঘটনা ।
ভাল হয়েছে তবে সাইজ একটু বড়।

১০ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৫০

মাহের ইসলাম বলেছেন: গল্পগুলো সব বানানো হতে হবে, এমনতো নয় ?

আপনার ভালো লেগেছে জেনে খুশী হলাম।
ছোট করার সাজেশন ইতোমধ্যেই শ্রদ্ধেয় ঠাকুর মাহমুদ ভাইয়ের কাছ থেকে পেয়েছি।
এর পর থেকে আরো ছোট করে ফেলবো, লেখাগুলো।

অসংখ্য ধন্যবাদ।
ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা রইল।

১০| ১০ ই আগস্ট, ২০১৯ ভোর ৫:১৬

বলেছেন: আপনার লেখার হাত আসলেই ভালো -

মাহমুদ ভাইয়ের সাথে এডিট করি, কমে কথায় বেশি বলার প্রবণতা থাকলে ভালো হবে।।।

১০ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৫২

মাহের ইসলাম বলেছেন: অনুপ্রাণিত করার জন্যে অসংখ্য ধন্যবাদ।

আমি শ্রদ্ধেয় ঠাকুর মাহমুদ ভাইয়ের পরামর্শ অনুযায়ী লেখাগুলো ছোট করে ফেলব।
চেষ্টা করবো, যেন কম কথায় বেশি বলতে পারি।

আবারও ধন্যবাদ।
ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা রইল।

১১| ১০ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:৪১

ইসিয়াক বলেছেন: সুন্দর । আপনি অনেক ভালো লেখেন । আমার লেখাটা কি বিচ্ছিরি বুঝলাম গল্প লেখায় মন দিতে হবে।
ভালো থাকবেন।
ধন্যবাদ

১০ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:৫৫

মাহের ইসলাম বলেছেন: ভাই,
সকাল সকাল কি লজ্জায় পড়ে গেলাম বলেন তো?
আপনার লেখা কেন বিচ্ছিরি হতে যাবে?
আমাদের সবার স্টাইল আলাদা।

আমি আজ ল ভাইয়ের লেখা পড়লাম। শব্দভান্ডার সমৃদ্ধ। স্টাইল পুরো ভিন্ন, অনেক উপমা সহজেই দিয়ে দিচ্ছেন। কিন্তু ভালো লেগেছে।

সেখানেই দেখলাম নীল আকাশ ভাইয়ের কিছু টিপস। খুব পছন্দ হয়েছে। চাইলে আপনিও দেখে নিতে পারেন।

শুভ কামনা রইল। ঈদ মোবারক।

১২| ১০ ই আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৩৪

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আশাভঙ্গেরও একটা সীমা থাকে। টার্কিশ রাবেয়ার সাথে পাঠক হিসেবে আমরাও রোমানিয়া যাওয়ার মনস্থির করলাম হাতে ভিসা ও বিমানের টিকেট আর শেষ মুহূর্তে কিনা তার বাবা-মা বাদ সাধল। ভয়ঙ্কর ভয়ঙ্করভাবে আশা ভঙ্গ হলাম। উপরে পর্বাকারে শিরোনামঃ দেননি বা নিচে চলবে... সে কথাও বলেননি। আমরা প্রচন্ড উদগ্রীব। আমাদেরকে এভাবে অসহায় রেখে আপনি গল্প শেষ করতে পারেন না। আমরা আশাবাদী আপনি আমাদেরকে বুখারেস্টে নিয়ে যাবেই যাবেন।

১০ ই আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৪৫

মাহের ইসলাম বলেছেন: আপনাকে দেখে ভালো লাগলো।
ঠিকই ধরেছেন, পর্ব কিংবা চলবে লিখিনি।
যদিও গল্পের এখানেই শেষ নয়।

সত্যি বলতে কি, আমার লেখার প্রথম পর্বের চেয়ে পরের পর্বগুলো খারাপ হয়ে যাচ্ছে।
তাই, পরের পর্ব লিখতে উৎসাহ থাকে না।

চেষ্টা করবো, এবারে অন্তত কম খারাপ কিছু করারা।
শুভ কামনা রইল, ভালো থাকবেন।
ঈদের শুভেচ্ছা।

১৩| ১০ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:৪১

সোনালী ডানার চিল বলেছেন: এ ধরনের লেখা উপভোগ করি- শুভকামনা আপনার জন্য্!

১০ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৯

মাহের ইসলাম বলেছেন: অনুপ্রাণিত বোধ করছি।
অনেক অনেক ধন্যবাদ।

শুভ কামনা রইল।
ঈদ মোবারক।

১৪| ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৫১

MirroredDoll বলেছেন: true story or fiction?

২১ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৩৭

মাহের ইসলাম বলেছেন: ধন্যবাদ।

It could be true.

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.