নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মানুষের চেয়ে বড় কিছু নেই।

মুজিব রহমান

মুক্তচিন্তা ও বিজ্ঞানমনষ্ক মানুষ

মুজিব রহমান › বিস্তারিত পোস্টঃ

ভাস্কর্যই আমাদের প্রধান সমস্যা?

০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৪১


দেশে হাজার রকমের সমস্যা৷ সীমাহীন ঘুষ-দুর্নীতি চলছে- আপত্তি নেই! বলাৎকার-ধর্ষণ চলছে- আপত্তি নেই! মাদক-সন্ত্রাস চলছে আপত্তি নেই! ভোট-অধিকার ডাকাতি চলছে- আপত্তি নেই! মোল্লাতন্ত্র এসব অনৈসলামিক কর্মকাণ্ড নিয়ে কথা বলে না৷ এসব বিষয় দেশকে মারাত্মক ক্ষতি করছে একই সাথে এদেশে মুসলিমদেরও ক্ষতি করছে৷ অথচ এ সবের বিরুদ্ধে ইসলামপন্থী দলগুলো কথা বলতে চায় না৷ ঘুষ থেকে মাদক অনেক দিক থেকেই অনেকের সুবিধা আসে তাই আপত্তি নেই৷

সৌন্দর্য বর্ধন ও ইতিহাস-ঐতিহ্য-ব্যক্তিত্বকে তুলে ধরতে ভাস্কর্য নির্মাণ করা হয়৷ সেই ভাস্কর্য কি করে প্রধান সমস্যা হয়ে উঠে? যখন গার্মেন্টস শ্রমিকরা পৃথিবীর সর্বনিম্ন বেতন পাচ্ছে, জীবনের নিরাপত্তা নেই, হাজারো নারী নিপীড়নের শিকার হচ্ছে, ক্রস-ফায়ারে খুন হচ্ছে গুম হচ্ছে, শিক্ষার মান ডুবে যাচ্ছে, বাক স্বাধীনতা সীমিত হয়ে যাচ্ছে৷ মুসলিমদের মাথা উঁচু রাখতে হলে এসব কথা বলতে হবে৷ গবেষণার সুযোগের কথা বলতে হবে, চাঁদাবাজি বন্ধের কথা বলতে হবে, চাকরি পেতে ঘুষ বন্ধের কথা বলতে হবে, মেধা ও অর্থ পাচার বন্ধের কথা বলতে হবে৷

অথচ আজ মনে হচ্ছে ভাস্কর্যই ইসলামের একমাত্র শত্রু! ভাস্কর্য বন্ধ হলেই মুসলিমরা শনৈ শনৈ উন্নতি করবে! সত্যি সেলুকাস! বিচিত্র এ দেশ! আমাদের অসচেতনতার সুযোগ নিয়ে ধর্ম ব্যবসায়ীরা আমাদের আরো ভুল পথে নিতে চাচ্ছে৷ তাইতো দেখি বিভিন্ন দেশে ছাগলের ভাস্কর্য থাকলেও ছাগুদের ভাস্কর্য নেই৷ ভাস্কর্যকে সামনে নিয়ে আসা যতটা ধর্মীয় তার চেয়ে বেশি রাজনৈতিক সেটাই বুঝতে হবে৷ মূল সমস্যাগুলো থেকে নাগরিকদের দৃষ্টি সরিয়ে ভাস্কর্যকে প্রধান ইস্যু বানানো হয় মূর্খতা না হয় গভীর ষড়যন্ত্র৷ সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুকে সরিয়ে দিয়ে- ভাস্কর্য হঠাওকে সামনে নিয়ে আসার মানে কি? দৃষ্টি সরিয়ে দেয়া? মুসলিমদের প্রধান সমস্যা হিসেবে ভাস্কর্যকে চিহ্নিত করারই বা মানে কি?

স্বাধীনতার মাসে ভাস্কর্য ভাঙ্গার নামে কি ওরা আমাদের স্মৃতিসৌধ ভাঙ্গতে চায়? শহীদ মিনার? শহীদ মিনারেতো একজন মা আর তার সন্তানদেরই প্রতিকৃতি! তাহলে! আমাদের মসজিদের মিনারের বা গম্বুজের উপরে চাঁদ-তারার ভাস্কর্য কি ভাঙ্গার তালিকায় রেখেছে তারা? ওরা কি বুঝে ওরা সব ভাস্কর্য ভাঙ্গতে চাইলে ওটাও তার মধ্যেই পড়ে।

মন্তব্য ২২ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (২২) মন্তব্য লিখুন

১| ০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৫২

কথক আরমান বলেছেন: অগনিত বেকার জনতা আর ফাউ জিনিস নিয়ে মাথা ঘামানোই আমাদের প্রধান সমস্যা।

০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১০:২০

মুজিব রহমান বলেছেন: তাই নাকি?
সব ভাস্কর্য ভাঙ্গা নিয়ে ভাবাও কি ফাউ জিনিস নিয়ে ভাবা?

২| ০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৫৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


মোল্লারা দেখছি, আপনার থেকেও কম বুঝেন!

০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১০:২২

মুজিব রহমান বলেছেন: আমিতো ভেবেছিলাম- আপনার চোখে দেশের সবচেয়ে কম বুঝতে পারা মানুষই আমি। আরেকবার ভেবে দেখুন। পরেতো আবারও বলবেন, ‘আপনিই সবচেয়ে নিবোর্ধ!’

৩| ০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৫৯

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: ঘুষ- দুর্নীতি বলাৎকার- ধর্ষণ এসব পাপ থেকে রক্ষা পাবার হাজারো তরিকা তাদের জানা আছে।কিন্তু মুর্তি বানানোর পাপ থেকে রক্ষা পাবার কোন তরিকা তাদের জানা নেই।

০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১০:২৪

মুজিব রহমান বলেছেন: ওরা নিজেদের সুবিধার কথাই ভাবে, পাপের কথা ভাবে না। সাদ মাওলানাতো বলে গিয়েছিলেন, ধর্ম বিক্রি করে আয় করা পতিতার আয় থেকেও নিকৃষ্ট। তাহলে ও নিকৃষ্ট আয়ে যে পাপ সেটা নিয়ে অন্তত ভাবতো।

৪| ০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১০:০৭

মোগল সম্রাট বলেছেন: কান্ধে উঠানোর সময় কই আছিলেন?

০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১০:২৫

মুজিব রহমান বলেছেন: সংগ্রামের মধ্য দিয়েইতো আছি।

৫| ০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১০:১৩

শাহ আজিজ বলেছেন: ভালই লিখেছেন । এদের দিয়ে উন্নতি আশা করেন কেউ । আমাদের আধুনিক হতে হবে । রাজনিতিকরা এদের মাথায় উঠাইছিল আবার প্রয়োজনে ঝাইড়া ফালাইব ।

০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১০:২৬

মুজিব রহমান বলেছেন: রাজনীতিবীদগণ চান মানুষ অসচেতন-ধর্মান্ধ থাকুক, তাদের বিরুদ্ধে আঙুল না উঠাক!

৬| ০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১০:১৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


বাংলার এতিমদের আপনি পড়ান, নাকি শেখ হাসিনা পড়ান?

০১ লা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩৭

মুজিব রহমান বলেছেন: আমাদের পাশের গ্রামে একটি এতিমখানা রয়েছে ১০০ আসনের। সুবিশাল ভবন। শিক্ষার্থী থাকে ১০/১৫ জন। এর ভিন্ন কারণ রয়েছে। বিক্রমপুর জুড়েই বহু মাদ্রাসা রয়েছে যাতে ছাত্র আসে ভোলা, বরিশাল, হাতিয়া, ফরিদপুর থেকে। বড় বড় মাদ্রাসাগুলোর সাথে জড়িত রয়েছে বড় বড় ধনীরা। যেমন পাকিজা গ্রুপের একটি মাদ্রাসা রয়েছে। তারা কি কেবলই পরকালের পুন্যি অর্জনের জন্য মাদ্রাসা করেছেন? আমি একটি মাদ্রাসায় দুই মাস শিক্ষকতা করেছি। সেখানে কি পড়ানো হয় তা দেখেছি। সরকারি প্রাইমারি স্কুলে পড়তে কোন টাকা লাগে না। হাইস্কুলেও বই লাগে না, বৃত্তি পাওয়া যায়। দরিদ্র হলে ফ্রিও পড়া যায়। তাহলে? এতিমদের খাওয়ার সমস্যা থেকে যায় বটে। এতিমরা মাদ্রাসাগুলোতে কিভাবে জীবন কাটায় তার একটু খোঁজ নিতে পারেন অবশ্যই। কারা বলাৎকারের শিকার হয়? ওই এতিমরাই সাধারণত। ব্যক্তিগতভাবে শিক্ষা নিয়ে আমার কাজ রয়েছে- তা কম নয়।

৭| ০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৪০

রাজীব নুর বলেছেন: যারাই ভাস্কর্যের বিরোধিতা করবে তারা অবশ্যই নির্বোধ। এরা দেশের বোঝা। এদের বিরুদ্ধে সরকারের দুত ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ৮:৩০

মুজিব রহমান বলেছেন: কত কি যে হতে পারে?
ধরুন কেউ জনগণের দৃষ্টি সরিয়ে দিতে তাদের সামনে নিয়ে এলো টাকা খাইয়ে! অবাক হবো না।

৮| ০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৫২

নেওয়াজ আলি বলেছেন: মেজর সিনহা কথা ভুলে গিয়েছি এখন দেখি ভাস্কর্য আর ভাস্কর্য

০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ৮:৪২

মুজিব রহমান বলেছেন: ভুলে গেলে কাদের লাভ? তারাই কি এদের লেলিয়ে দিল? নাকি কেবলই মূর্খতা!

৯| ০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১০:০৯

অধীতি বলেছেন: এটার ফলে মুসলমানদেরই ক্ষতি হচ্ছে। বিশ্বাসের ক্ষেত্রে বিভ্রান্তি তৈরি হচ্ছে।

০৩ রা ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ৭:৫১

মুজিব রহমান বলেছেন: অবশ্যই। কিন্তু মুসলমানরা সেটা উপলব্ধি করতে ব্যর্থ হচ্ছে।

১০| ০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ১১:৪০

রাজীব নুর বলেছেন: দেখুন, দেশে সমস্যার শেষ নেই। অথচ আমরা ফালতু বিষয় নিয়ে ক্যাচাল করে যাচ্ছি। এসব করে কি দেশের উন্নতি হবে?

০৩ রা ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ৭:৫২

মুজিব রহমান বলেছেন: সেটাইতো! ওরাতো এমন ভাব করছে ইসলামের এটাই প্রধান সমস্যা।

১১| ০৩ রা ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:২৩

এমেরিকা বলেছেন: শহীদ মিনার মা ও সন্তানদের প্রতিকৃতি নয়। মা ও সন্তানদের সাথে ২১ শে ফেব্রিয়ারির কোন সম্পর্ক নেই। থেকেও যদি থাকে, তাহলে ৪ সন্তানের প্রয়োজন কি? যাই হোক, শহীদ মিনার নিয়ে আলেম সমাজের কোন মাথাব্যাথা নেই, কারণ সেটা দেখতে কোন প্রাণীর প্রতিকৃতির মত নয়। তাদের মাথাব্যথা অপরাজেয় বাংলা বা জয় তারুণ্য নিয়ে।

১২| ০৩ রা ডিসেম্বর, ২০২০ রাত ৮:০৩

মুজিব রহমান বলেছেন: মাঝের মিনারটি আনতমস্তকে স্নেহময়ী মাতা এবং ছোট অবয়ব চারটিকে সন্তান ধরেই শহীদ মিনার তৈরি করা হয়েছে। আপনি অস্বীকার করার কেউ নন। হামিদুর রহমান এমনটা ভেবেই ডিজাইন করেছিলেন। আরো বিস্তৃত ভাবনার সুযোগ রয়েছে। যেহেতু একজন নারী ও তার চার সন্তানের বিমূর্ত প্রতিকৃতি তাই তারা এটাকে ছাড়বে কেন? তাদের আন্দোলনটাইতো এর জন্য। বায়ান্ন ও একাত্তরের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতেই তারা শহীদ মিনার ও স্মৃতিসৌধ ভাঙ্গতে চান- এটা বুঝতে না পারা কিছু নেই।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.