নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি \'স্মৃতিকাতরতা \' নামক ভীষণ এক রোগগ্রস্ত, সেই সাথে বিষাদগ্রস্থ মানুষ। আমার চিকিৎসার প্রয়োজন।

স্বপ্নবাজ সৌরভ

এক ফালি মেঘ, এক ফোঁটা জল- রংধনুকের একটি কণায়, একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা ।

স্বপ্নবাজ সৌরভ › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমার আব্বার টুকরো স্মৃতিকথা ...

২০ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৩:২০




আমার আব্বা অনেক কিছুই লিখতে চাইতেন। বিভিন্ন কারণে শেষ করতে পারেননি। অনেক জায়গাতেই টুকরো টুকরো লেখা আছে। কোন লেখায় শেষ হয়নি। এই লেখাটা কয়েক দিন আগের লেখা। উনি লেখেন নি। এখন আর সেই ক্ষমতা নাই।
আমার কাছে ভয়েজ রেকর্ড পাঠিয়েছিলেন। আমি পাতায় হুবহু লিখেছি মাত্র। আজ কিছু অংশ দিলাম। যখন ক্ষমতা ছিল লেখার , তখন হয়তো অনেক কিছুই লিখতে পারতেন। আমার ভীষণ অপরাধবোধের একটা হচ্ছে আব্বার কথা গুলো না লিখতে পারা।



১.
ফজরের নামাজের পর আব্বা ডাকছেন- " ও গো ওঠো ওঠো। তোমার কাছে কে যেন এসেছে। বাইরে দাঁড়িয়ে আছে। "
এই ভোরে আমার কাছে কে আসবে ? আমি দরজা খুলে বাইরে গেলাম। দেখি একজন লোক দাঁড়িয়ে আছে । বুঝলাম অনেক দূর থেকে এসেছে । চোখ দুটো বড় , ফোলা। বোঝা যায় সারারাত ঘুম হয়নি । দীর্ঘ ভ্রমন আর না ঘুমানোর ক্লান্তি স্পষ্ট লেগে আছে চোখে। উনার হাতে একটা চিঠি। আমার দিকে বাড়িয়ে দেয়।
তাতে লেখা--
" আমার যদি ভুল না হয় তুমি আবুল কাসেমের ভাই - রুহুল ইসলাম । পত্র পাওয়া মাত্রই বাহকের সাথে চলে আসো।"
চিঠিটা লিখেছেন তেঁতুলিয়া হাইস্কুলের হেডমাস্টার ।
সিদ্ধান্ত নিতে দেরী করলাম না । বাবার দেয়া সাহস আর আগ্রহে যাত্রা শুরু করলাম সূদুর তেঁতুলিয়ার পথে। সেই সাথে একজন হেডস্যারের ৩৮ বছরের যাত্রা শুরু হলো। তখন আমার বয়স ছিল ২১!

২.
তেঁতুলিয়াতে কাজ বুঝে নিতে সমস্যা হয়নি। ভেড়ামারা স্কুলের অভিজ্ঞতা কাজে লাগলো। তেঁতুলিয়া হাইকুল কে সাজানোর চেষ্টা করলাম। বয়স কম ছিল বলে কখনো দ্বিধায় পড়িনি। অনেকেই তাচ্ছিল্য করে বলতো , আপনিই হেডস্যার ? পারবেন তো।
আমি বলতাম , জ্বী আমিই হেডস্যার। এতে কোন সন্দেহ নাই।
তেঁতুলিয়ায় যেখানে আমি থাকতাম। তার কিছুটা দূরেই চায়ের দোকান। সারাদিন চা বিক্রি হয়। নোনতা বিস্কুট , মিষ্টি বিস্কুট , মুড়ি , চানাচুর। সকল ধরনের মানুষ ওখানে চা খেত। বয়োজ্যেষ্ঠ , মুরুব্বি , দড়িপাকা বুড়ো এবং নানা বয়সী মানুষ।
আমি দোকানে চা খেতে যেতাম। আমাকে দেখলেই দোকানি চায়ের কাপ গরম পানি দিয়ে ধোয়া শুরু করতো , ‘হেডস্যার আসছে’ বলে সবাই উঠে দাঁড়াতো , এমনি কি চায়ের বিল দিতে দিতো না। বাবার বয়েসী মানুষদের থেকে এই ধরনের আচারে আমি স্বাভাবিকভাবেই বিব্রতবোধ করতাম।
একদিন দোকানিকে ডেকে বললাম। সম্ভব হলে আমার চাটা তুমি আমার ঘরে দিও। দোকানে আমার ঘরেই চা দিয়ে আসতো। এরপর থেকে আমি কোনদিন চায়ের দোকানে চা খায়নি।


৩.
একদিন অফিসে বসে আছি দপ্তরি একটা খাম দিয়ে গেল। ইন্টারভিউয়ের জন্য সিরাজগঞ্জ হাই স্কুল থেকে ডেকেছে হেড মাস্টার পদের জন্য । কিছুক্ষন চিঠি নিয়ে বসে থাকলাম। তারপর একটা চিঠি লিখলাম ,
“আপনারা যে পদে আমাকে ইন্টারভিউয়ের জন্য ডেকেছেন , আমি ঠিক সেই পদেই কর্মরত আছি। তাই আবার সেই পদেই ইন্টারভিউ দেয়াটা আমার যোগ্যতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। সেইসাথে যাতায়াতে সময় নষ্ট , অর্থ নষ্ট , শারীরিক পরিশ্রম। তাই হেড মাস্টার পদে ইন্টারভিউ দিতে যেতে খুব একটা আগ্রহ পাচ্ছি না। “

মাসখানেক পরে একটা চিঠি এলো। তাতে লেখা ,
“আমরা তোমার চিঠি পড়েছি। আমাদের ইন্টারভিয়ের পর্ব সমাপ্ত হয়েছে। আমরা কাউকে সিলেক্ট করতে পারিনি। আমরা হেড মাস্টার পদে তোমাকেই যোগ্য মনে করছি। তোমার ইন্টারভিউ নেয়ার প্ৰয়োজন নেই। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তুমি সিরাজগঞ্জ হাইস্কুলে স্কুলে যোগদান করো। “

চিঠিটা নিয়ে আমি তেঁতুলিয়া স্কুল কমিটির কাছে গেলাম। তারা বললো – “ তোমাকে ছাড়তে আমাদের খুব খারাপ লাগবে। তাই বলে আমরা চাইনা জীবনের ভালো সুযোগ গুলো তুমি কাজে না লাগাও। তেঁতুলিয়াকে ভুল না। “

আমি তেঁতুলিয়া কে ভুলি নি। ওখানকার মানুষের কাছে অনেক সন্মান অর্জন করেছি , ভালোবাসা পেয়েছি। আমার খুব ইচ্ছা জীবনের শেষ সময়ে হলেও যেন তেঁতুলিয়া ঘুরে আসতে পারি। সেই স্কুল তাকে দেখতে পারি। আমি জানি আমার ছাত্ররা নিশ্চয় একটা ব্যবস্থা করবে।


৪.
হাঁটু পানিতে দাঁড়িয়ে আছি। হাতে টিনের ট্রাঙ্ক আর ঘাড়ে ব্যাগ। সামনেই সিরাজগঞ্জ হাইস্কুলের ঘর। আমাকে দেখে এক বয়োজ্যেষ্ঠ লোক এগিয়ে এসে বললেন , আপনার পরিচয় ?
আমি বললাম , আমি এই স্কুলের হেডমাস্টার। আমার নাম মোঃ রুহুল ইসলাম।
উনি সালাম দিয়ে বললেন , আসুন স্যার আসুন।
আপনার নাম কি ? আমার নাম বসন্ত। আমিদপ্তরি।
তিনি আমাকে স্কুল রুমে নিয়ে গেলেন। সিরাজগঞ্জে আমার নতুন যাত্রা শুরু হলো।

সম্পর্ক তৈরী হয় সম্মানের মাধ্যমে , সম্পর্ক টিকিয়ে রাখে পরস্পরের প্রতি সম্মানবোধ। দপ্তরি বসন্ত বয়স্ক মানুষ , স্কুলের অনেক পুরোনো মানুষ। স্কুলের প্রতি তাঁর দরদ আর সন্মান দেখেই বোঝা যায় স্কুলের সাথে তাঁর সম্পর্ক কতটুকু। স্কুলের ভালো মন্দ , ফাঁক ফোকর সব কিছু বসন্ত জানত।
ওর সাথে আমার অনেক কথা হতো। স্কুল ছুটির পর মাঠে হাঁটতাম কথা হতো স্কুল নিয়ে। একদিন তার বেতনের কথা জিজ্ঞেস করলাম। বলল , ১২ টাকা।
কমিটিকে একদিন বললাম , উনার বেতন বাড়িতে দিন। অনেক পুরোনো লোক, সৎ । স্কুলের সব খবর জানে , পরিশ্রম করে, দায়িত্ব পালন করে , স্কুলের প্রতি প্রচন্ড রকম দরদ আছে। ওর বেতন ৫০ টাকা করে দিন।
কমিটি অবাক হয়ে বললো, আপনার বেতন ই তো ৫১ !
আমি বললাম, হোক! এই স্কুলে আমার চেয়ে বেশি বেতন পাওয়ার যোগ্যতা রাখে সে।
স্কুল কমিটি আমার কথা রেখেছিলো।

এর আগে সম্মানের কথা বলেছিলাম। বসন্তকে আমি বয়জেষ্ঠ হিসাবে এবং স্কুলের প্রতি তার দায়িত্ববোধ , ভালোবাসার প্রেক্ষিতে যেমন সন্মান করতাম ঠিক তেমন ই সে হেডস্যার হিসেবে আমাকে সন্মান করত। এতে সন্দেহের কোন অবকাশ ছিল না।
বসন্ত যেদিন মারা যায় আমি আমার চেয়ারে বসে খুব কেঁদেছিলাম। হুহুকরে কেঁদেছিলাম। অভিবাবক , বন্ধুত্ব কিংবা বিশ্বস্ততা .... সম্পর্কের সংজ্ঞা কি?

৫.
সপ্তাহের একদিন একটা ভিক্ষুক আসতো। আমি পয়সা দিতাম। একদিন দেখি আসে না। আমি অপেক্ষা করলাম , এলো না। পরদিন আসতে দেখে পয়সা বের করলাম। ভিক্ষুক বললো , স্যার আজ ভিক্ষা নিতে আসিনি। দাওয়াত দিতে এসেছি। স্কুলের সবাইকে দিয়েছি।
পরেরদিন দপ্তরির নিয়ে গেল ভিক্ষুকের বাড়িতে। গিয়ে তো অবাক। টিনের পাঁকা বাড়ি। আমাদের বাড়ির চেয়েও অনেক ভালো।
পরের সপ্তাহে ভিক্ষুক আবার এলো। আমি বললাম , তোমার অবস্থা এতো ভালো তবুও ভিক্ষা করো কেন ?
ভিক্ষুক বললো , স্যার। ভিক্ষা আমাদের বংশগত পেশা। অবস্থা যতো ভালোই হোক না কেন ভিক্ষা আমরা করবো।
আমি বললাম, আমি তোমাকে আর ভিক্ষা দেব না।

৬.
বাড়ি থেকে আব্বা চিঠি দিচ্ছে। বলছে তুমি চলে এসো। ভেড়ামারা স্কুলের হাল ধর। ভেড়ামারা ছেড়ে কোথাও চাকুরী করতে হবে না। ভেড়ামারার মুরুব্বি বয়জেষ্ঠ এবং প্রভাবশালী মানুষগুলো আব্বাকে বলেছেন চলে আসতে।
সিরাজগঞ্জ থেকে আমি চলে আসলাম।বিশাল এক অভিজ্ঞতা আর স্মৃতি জমা হলো। আমার প্রাণের একটা অংশ রেখে ওখানে এলাম।

জয়েনিং লেটার হাতে পেলাম। আব্বা বললো, যাও বড় চাচার সাথে দেখা করে আসো।সবার আগে চিঠি টা তাকে দেখাও।
আমি বড় চাচার কাছে গেলাম।চিঠিটা দিলাম। দিয়ে বললাম , বড় চাচা আমি ভেড়ামারা ছেড়ে কোথাও যাচ্ছি না !
বড় চাচা আবেগ সামলাতে না পেরে সবাই কে ডাকলেন। বললেন , দেখো ভেড়ামারা হাইস্কুলের নতুন হেডস্যার এসেছে।
ভিএম সাহেব চাচার ওখানে থাকতেন। তিনি ছুটে এলেন নতুন হেডস্যার দেখতে। দেখে কিছুটা অবাক হলেন।

স্কুলের প্রথমদিন। হাফেজ সাহেব সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। আমি উনাকে খুঁজলাম । পেলাম না। শুনলাম উনি স্কুলের ছাত্রাবাসে শুয়ে আছেন। আমি গিয়ে বললাম , হাফেজ সাহেব উঠুন। একসাথে কাজ করতে হবে না ?
হাফেজ সাহেব চুপ করে কিছুক্ষন বসে রইলেন। তারপর উঠে দাঁড়ালেন। সেইযে উঠে দাঁড়ালেন , মৃত্যুর আগে পর্যন্ত আমার পাশেই দাঁড়িয়ে রইলেন।
দাপ্তরিক, সামাজিক , ব্যক্তিগত সব ক্ষেত্রেই এই মানুষটা আমার পাশেই দাঁড়িয়েছিলেন। ঈদের নামাজের পরে আমি উনার কাছে চলে যেতাম। ওই একটা মানুষের কাছেই যেতাম।
উনি যেদিন মারা যান।ঠিক মনে করতে পারছি না। শুধু মনে আছে। কথা বলতে কষ্ট হতে ছিল।
সবাই যখন আমার পাশে দাঁড়িয়ে। আমি ছলছল চোখে শুধু এটুকুই বলতে বলতে পেরেছিলাম , "আমার একটাই বন্ধু ছিল। সেও আমাকে ছেড়ে চলে গেল। '
সম্পর্ক নিয়ে একটা কথা বলেছিলাম। আবার বলবো - অভিবাবক, বন্ধুত্ব কিংবা বিশ্বস্ততা....সম্পর্কের সংজ্ঞা কি?

শেষঃ
ভেড়ামারা পাইলট হাইস্কুলের শেষ দিনের কথা , স্মৃতির কোন কিছুই আজ বললো না।
শুধু বলতে পারি - শেষ দিন স্কুল থেকে ফিরে আসতে আসতে ভেবেছিলাম, “স্কুলকে পিছনে রেখে আমি শেষ দিনটাই গেট পার হয়েছি ঠিকই কিন্তু আমার হেডস্যার হিসাবে যাত্রাটা চলমান থাকবে। স্কুলে লিখিত কোন পদ থাকবে না ঠিক কিন্তু 'অলিখিত' হেডস্যার পদের দায়িত্বটা পালন করে যেতে হবে আজীবন। এটাই নিয়তি কিংবা ভীষণ প্রাপ্তি!

মন্তব্য ২৮ টি রেটিং +১৪/-০

মন্তব্য (২৮) মন্তব্য লিখুন

১| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৩:৩৬

জ্যাকেল বলেছেন: আহা কি চমৎকার একজন মানুষ ছিলেন আপনার পিতা! উনার জন্য মন ভরে দোয়া করি যেন ভাল থাকেন।

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:২১

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
উনার অনেক কিছু বলার ছিল। লেখার ছিল। আমার শুনে শুনে লেখা উচিত ছিল। হয়নি।

২| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৪:০৮

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: ১২ টাকা থেকে একবারে ৫০ টাকা তা ও আবার নিজের বেতনের প্রায় সমান! এই মহানুভবতার তুলনা হয় না।

ছোটবেলায় মফস্বলে যখন থাকতাম তখন এক ভিক্ষুককে ঘোড়ায় চড়ে ভিক্ষা করতে দেখতাম।

কিছু কিছু সম্পর্ককে সংজ্ঞায়িত করা যায় না।

অলিখিত হেড স্যার আজীবন দায়িত্ব পালন করে গেছেন বিনে মায়নায়। এটা তার কোন বোঝা না বরং প্রাপ্তি যা তার নিয়তিতে লেখা আছে।

আপনার আব্বার লেখা খুব ভালো লাগলো। ওনার জীবনের সত্য ঘটনা নিশ্চয়ই।

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:২৩

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
হ্যাঁ উনার জীবনের সত্য ঘটনা। আরো অনেক গল্প আছে। ভালো মত শোনাও হয়নি কেন জানি।
যুদ্ধের সময়টা নিয়ে একটা বই লিখে ফেলা যেতো। দুইবার হানাদার বাহিনী ধরে নিয়ে গেলো। পতাকা উত্তোলন আর রাসায়নিক দ্রব্য স্কুল থেকে পাচারের জন্য।

৩| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৪:১৩

শাওন আহমাদ বলেছেন: আমি ভীশণ রকমের সৃতি খোর মানুষ। আপনার বাবার লিখার মতোই জীবন্ত আমার স্মৃতিরা। উনি লেখা গুলো অসমাপ্ত রাখলেও লেখার শেষটা আন্দাজ করতে পারছি খুব। যেনো শেষ হয়েও হইলোনা শেষ, এই অতৃপ্তিই গুলোই বৃহত নদীর বুকে জেগে উঠা চরের মতো আমাদের বুকে জেগে থাকে। দোয়া রইলো বাবার জন্য।

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:২৫

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আব্বার স্মৃতিগুলো নিয়ে নিজের মত করে লেখার ইচ্ছা আছে।
আমিও স্মৃতিখোর মানুষ। তাই আপনার লেখা মিস দিতে চাইনা।

৪| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৪:৪৩

জটিল ভাই বলেছেন:
আপনার বাবার প্রতি শ্রদ্ধা জানাই ও দোয়া করি।

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:২৫

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
বাবারা ভালো থাকুন।

৫| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৪:৪৪

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: সুন্দর লিখেসেন, আপনার পিতার প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা।

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:২৬

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: আমি চাইলে একেবারেই নিজের মত লিখতে পারতাম। বলা চলে আমি শুনে শুনে টাইপ করেছি।

৬| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৪:৫৭

শায়মা বলেছেন: কত শত স্মৃতি পেছনে ফেলে মানুষ সামনে হেঁটে চলে।

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:২৭

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
শেষ বয়সে স্মৃতিগুলো নিশ্চয়ই কাঁদায়?

৭| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:২৬

জুল ভার্ন বলেছেন: হৃদয় ছুঁয়ে দেওয়া.....

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:২৮

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
দোয়া করবেন। আব্বা আমার শৈশব।

৮| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:২৭

শেরজা তপন বলেছেন: ~স্কুলে লিখিত কোন পদ থাকবে না ঠিক কিন্তু 'অলিখিত' হেডস্যার পদের দায়িত্বটা পালন করে যেতে হবে আজীবন। এটাই নিয়তি কিংবা ভীষণ প্রাপ্তি!
ছোট্ট অথচ কি দারুন অর্থবহ উক্তি
~অভিবাবক, বন্ধুত্ব কিংবা বিশ্বস্ততা....সম্পর্কের সংজ্ঞা কি?
আসলে এর সংজ্ঞা আমরা কেউ জানিনা।

মন্ত্র মুগ্ধের মত পড়লাম!
আরো পর্ব আছে কি?

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:৩৫

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
প্রায় ৩৬ বছর একটা স্কুলের হেডমাস্টারী করেছেন। তিনি কিভাবে অবসরে যাবেন?
দপ্তরী বসন্তের কথা বলতে গেলে দেখেছি চোখ ছলছল করে। আব্বা উনার বাসায় গিয়ে খেয়েছেন।

বসন্ত, হাফেজ স্যার কে হয়ত তিনি অভিবাবক, বন্ধু , বিশ্বাসের জায়গা মনে করতেন যেখানে আত্মীয়তা মুখ্য না। উনার ঐ কথাটা আমার ভালো লাগে।

'দূরের মানুষ, কাছের মানুষ
জটিল সমীকরণ!' আসলেই সমীকরণটা জটিল।

অনেক ভাসাভাসা স্মৃতি আমি জানি। লিখতে হবে।

৯| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:১৬

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:


ভালো মানুষের জীবনের অভিজ্ঞতা পড়লাম,ভিতরটা নাড়া দিলো। জীবনে একবার হেডমাস্টার যেন আজীবনের হেডমাস্টার।

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:৩৬

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
জীবনে একবার হেডমাস্টার যেন আজীবনের হেডমাস্টার। +++

প্রকৃত হেডমাস্টাররা অবসরে যাননা।

১০| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:৪৪

কামাল৮০ বলেছেন: এমন মানুষ খুব কম হয়।যুক্তি দিয়ে বিচার করতেন,তাই অমন হতে পেরেছিলেন।সমাজে এমন মানুষের খুব বেশি দরকার।

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:৪৪

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
যুক্তি আর আবেগ নিয়েই কাটিয়ে দিলেন। যুক্তি ছিল জোড়ালো।
আমার সাথে রাজনীতি নিয়ে কোন আলোচনা করেননি। নিজেও জড়িত ছিলেন না। কোন দল নিজের লোক বলার সাহস পায়নি। আমাদের হাসানুল হক ইনু সাহেব, হানিফ সাহেব ভোটের আগে আব্বার সাথে দেখা করতে যেতেন। কোন দিন ভোট চাননি।
তিনি কাকে ভোট দেন সেটাও আমরা কেউ জানি না।
একবার বুদ্ধি করে জানতে চেয়েছিলাম, আব্বা কাকে ভোট দেব?
'আমি কাউকে না কাউকে ভোট দেই সেটা আমার পছন্দ আর বিবেচনার উপর নির্ভর করে। আমার বিবেচনা তোমার উপর চাপাতে চাই না। আমার তো ভুলও হতে পারে।'

এরপর এই ব্যাপারে আর কোনদিন কথা বলিনি।

১১| ২০ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১১:২৮

রূপক বিধৌত সাধু বলেছেন: সোনার মানুষ।

২১ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:৪৪

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
ঠিক বলেছেন।

১২| ২২ শে আগস্ট, ২০২২ দুপুর ২:১৫

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: আপনার পিতার প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা। আসলে সবাই লিখতে পারেনা কিন্তু ইচ্ছা থাকে।

১ম অংশটা মনে আগেও ব্লগে দিয়েছিলেন। ভাল থাকুন পিতা-পুত্র।+++

২২ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৫:১৯

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: প্রথম প্যারাটা ফেসবুকে পড়েছিলেন। একটু অন্যরকম ভাবে উপস্থাপনা করা ছিল।

১৩| ২৪ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১:২৮

মুক্তা নীল বলেছেন:
আপনার আব্বাকে নিয়ে স্মৃতিচারণ পড়ে ভালো লাগলো । উনার বিবেক ও মহানুভবতা প্রশংসনীয় ।

২৪ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৫:১৮

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
অনেক ধন্যবাদ আপনাকে। আজ একটা লেখা শেয়ার করবো।

১৪| ০৯ ই সেপ্টেম্বর, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:১১

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবিতে চেয়ারে উপবিষ্ট ব্যক্তি আপনার বাবা বলে অনুমান করছি। সামনে বসা কয়েকজনের মধ্যে কি আপনিও আছেন?
স্কুলের দপ্তরি বসন্তের প্রতি হেডস্যারের এই একান্ত সহমর্মিতার কথা পড়ে একেবারে অভিভূত হয়ে গেলাম। ৫১ টাকা বেতনের হেডস্যার দপ্তরির বেতন ৫০ টাকায় উন্নীত করার ব্যবস্থা করেছিলেন!
আপনার আব্বার প্রতি অন্তর থেকে ভক্তি ও শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। উনি এখন কেমন আছেন, এবং ওনার বয়স কত?

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০২২ রাত ১:৫২

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: চেয়ারে বসা মানুষটাই আমার আব্বা। ২০১২ সালের দিকে তোলা একটা ছবি। ছবিতে আমি বাদ পড়েছি। সামনেই বসে ছিলাম। ভেড়ামারায় পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা বিষয় একটা ইভেন্টের আলোচনায় আমরা বসেছিলাম তাঁর প্রিয় স্কুল প্রাঙ্গনে।
উনার অনেক স্মৃতিকথা আছে। স্কুলের সেই দপ্তরী মারা যাওয়ায় তিনি কেঁদে ছিলেন।

আমার আব্বার বয়স ৯০ এর ঘরে। অসুস্থ আছেন, বিছানায় আছেন। সোডিয়াম আর পটাশিয়াম খুব উঠা নামা করে। এখন আর উঠতে পারেন না। ছয় মাস আগেও হাঁটতেন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.